souvik ghoshal RSS feed

souvik ghoshalএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • অরফ্যানগঞ্জ
    পায়ের নিচে মাটি তোলপাড় হচ্ছিল প্রফুল্লর— ভূমিকম্পর মত। পৃথিবীর অভ্যন্তরে যেন কেউ আছাড়ি পিছাড়ি খাচ্ছে— সেই প্রচণ্ড কাঁপুনিতে ফাটল ধরছে পথঘাট, দোকানবাজার, বহুতলে। পাতাল থেকে গোঙানির আওয়াজ আসছিল। ঝোড়ো বাতাস বইছিল রেলব্রিজের দিক থেকে। প্রফুল্ল দোকান থেকে ...
  • থিম পুজো
    অনেকদিন পরে পুরনো পাড়ায় গেছিলাম। মাঝে মাঝে যাই। পুরনো বন্ধুদের সঙ্গে দেখা হয়, আড্ডা হয়। বন্ধুদের মা-বাবা-পরিবারের সঙ্গে কথা হয়। ভাল লাগে। বেশ রিজুভিনেটিং। এবার অনেকদিন পরে গেলাম। এবার গিয়ে শুনলাম তপেস নাকি ব্যবসা করে ফুলে ফেঁপে উঠেছে। একটু পরে তপেসও এল ...
  • কাঁসাইয়ের সুতি খেলা
    সেকালে কাঁসাই নদীতে 'সুতি' নামের একটা খেলা প্রচলিত ছিল। মাছ ধরার অভিনব এক পদ্ধতি, বহু কাল ধরে যা চলে আসছে। আমাদের পাড়ার একাধিক লোক সুতি খেলাতে অংশ নিত। এই মৎস্যশিকার সার্বজনীন, হিন্দু ও মুসলিম উভয় সম্প্রদায়ে জনপ্রিয়। মনে আছে ক্লাস সেভেনে পড়ার সময় একদিন ...
  • শুভ বিজয়া
    আমার যে ঠাকুর-দেবতায় খুব একটা বিশ্বাস আছে, এমন নয়। শাশ্বত অবিনশ্বর আত্মাতেও নয়। এদিকে, আমার এই জীবন, এই বেঁচে থাকা, সবকিছু নিছকই জৈবরাসায়নিক ক্রিয়া, এমনটা সবসময় বিশ্বাস করতে ইচ্ছে করে না - জীবনের লক্ষ্য-উদ্দেশ্য-পরিণ...
  • আবরার ফাহাদ হত্যার বিচার চাই...
    দেশের সবচেয়ে মেধাবীরা বুয়েটে পড়ার সুযোগ পায়। দেশের সবচেয়ে ভাল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নিঃসন্দেহে বুয়েট। সেই প্রতিষ্ঠানের একজন ছাত্রকে শিবির সন্দেহে পিটিয়ে মেরে ফেলল কিছু বরাহ নন্দন! কাওকে পিটিয়ে মেরে ফেলা কি খুব সহজ কাজ? কতটুকু জোরে মারতে হয়? একজন মানুষ পারে ...
  • ইন্দুবালা ভাতের হোটেল-৭
    চন্দ্রপুলিধনঞ্জয় বাজার থেকে এনেছে গোটা দশেক নারকেল। কিলোটাক খোয়া ক্ষীর। চিনি। ছোট এলাচ আনতে ভুলে গেছে। যত বয়েস বাড়ছে ধনঞ্জয়ের ভুল হচ্ছে ততো। এই নিয়ে সকালে ইন্দুবালার সাথে কথা কাটাকাটি হয়েছে। ছোট খাটো ঝগড়াও। পুজো এলেই ইন্দুবালার মন ভালো থাকে না। কেমন যেন ...
  • গুমনামিজোচ্চরফেরেব্বাজ
    #গুমনামিজোচ্চরফেরেব্...
  • হাসিমারার হাটে
    অনেকদিন আগে একবার দিন সাতেকের জন্যে ভূটান বেড়াতে যাব ঠিক করেছিলাম। কলেজ থেকে বেরিয়ে তদ্দিনে বছরখানেক চাকরি করা হয়ে গেছে। পুজোর সপ্তমীর দিন আমি, অভিজিৎ আর শুভায়ু দার্জিলিং মেল ধরলাম। শিলিগুড়ি অব্দি ট্রেন, সেখান থেকে বাসে ফুন্টসলিং। ফুন্টসলিঙে এক রাত্তির ...
  • দ্বিষো জহি
    বোধন হয়ে গেছে গতকাল। আজ ষষ্ঠ্যাদি কল্পারম্ভ, সন্ধ্যাবেলায় আমন্ত্রণ ও অধিবাস। তবে আমবাঙালির মতো, আমারও এসব স্পেশিয়ালাইজড শিডিউল নিয়ে মাথা ব্যাথা নেই তেমন - ছেলেবেলা থেকে আমি বুঝি দুগ্গা এসে গেছে, খুব আনন্দ হবে - এটুকুই।তা এখানে সেই আকাশ আজ। গভীর নীল - ...
  • গান্ধিজির স্বরাজ
    আমার চোখে আধুনিক ভারতের যত সমস্যা তার সবকটির মূলেই দায়ী আছে ব্রিটিশ শাসন। উদাহরণ, হাতে গরম এন আর সি নিন, প্রাক ব্রিটিশ ভারতে এরকম কোনও ইস্যুই ভাবা যেতো না। কিম্বা হিন্দু-মুসলমান, জাতিভেদ, আর্থিক বৈষম্য, জনস্ফীতি, গণস্বাস্থ্য ব্যবস্থার অভাব, শিক্ষার অভাব ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

উনিশ শতকের ভারতীয় উপন্যাস : একটি তুলনামূলক অধ্যয়ন

souvik ghoshal

প্রথম পর্ব -

উনিশ শতকের ভারতীয় উপন্যাস : একটি তালিকা
-------------------------------------
পূর্ব ও মধ্য ভারতীয় ভাষাগুলির মধ্যে
বাংলা – প্যারীচাঁদ মিত্র, বঙ্কিমচন্দ্র, রমেশচন্দ্র সেন,
ওড়িয়া – উমেশচন্দ্র সরকার (পদ্মমালী -১৮৮৮), রামশঙ্কর রায় (বিবাসিনী-১৮৯১/৯২), গোপাল বল্লভ দাস (ভীমা ভুইনা- ১৮৯৮), ফকীরমোহণ সেণাপতি (দু মাণ আঠ গুণ্ঠ-১৮৯৭, মামু-১৯১৩, লাছামা-১৯১৪, প্রায়শ্চিত- ১৯১৫)
অসমীয়া – এ কে গার্ণি (কামিনীকান্তর চরিত্র – ১৮৭৭), পদ্মাবতী দেবী ফুকোনোনি (সুধর্মার উপাখ্যান-১৮৮৪), লক্ষীনাথ বেজবড়ুয়া (পদুম কুনওয়ারী-১৮৯০), পদ্মনাথ গহৈন বড়ুয়া (ভানুমতী-১৮৯১, লাহোরি-১৮৯২), রজনীকান্ত বরদোলুই (মিরি জিয়োরি-১৮৯৪, মনোমাটি-১৯০০, তাম্রেশ্বরীর মন্দির- ১৯২৬, রোহদোই লিগিরি-১৯৩০),
হিন্দি – শ্রী নিবাস দাস (রণধীর প্রেমকাহিনী – ১৮৭৪, পরীক্ষাগুরু-১৮৮২), ঠাকুর জগমোহন দাস (শ্যাম স্বপ্না-১৮৮৫), বালকৃষ্ণ ভট্ট (নূতন ব্রহ্মচারী-১৮৮৬), অযোধ্যা সিং উপাধ্যায় (ঠেঠ হিন্দি কা ঠাঠ-১৮৯৯)
উর্দূ – নাজির আহমেদ (মিরাজ উল উরুস-১৮৬৯, বানাত উন নাস-১৮৭২, তাবাত উন নুশো-১৮৭৪, ইবন উল ওয়াকত-১৮৮৮), সৈয়দ আহমেদ (খুরশেদী-১৮৮৬), আব্দুল হালিম শারার (মালিক আল আজিজ ভারজানা-১৮৮৮, হাসান ঔর অ্যাঞ্জেলিনা-১৮৮৯), মানসুর মোহানা-১৮৯০, কোয়াইস ঔর লুবনা-১৮৯১, ফ্লোরা ফ্লোরিন্দা-১৮৯৯), মহমদ মির্জা রুসভ (উমরাওজান আদা-১৮৯৯)
পশ্চিম ও উত্তর ভারতীয় ভাষাগুলির মধ্যে
মারাঠী – বাবা পদ্মনজী (যমুনা পর্যটন-১৮৫৭), সদাশিব রিসবুড় (মঞ্জু ঘোষ – ১৮৬৮), জর্ভেকর (বিচিত্রপুরী -১৮৭০), গুঞ্জিকর (মোচনগড় – ১৮৭১), পট্টবর্ধন (হাম্বির রাও আনি পুতলাবাঈ – ১৮৭৩), রহাল কর (নারায়ণ রাও আনি গোদাবরী – ১৮৭৯), নাগেশ বাপ্ট (শম্ভুজী মহারাজ-১৮৭৯), শিরভলকর (পাণিপথচা মোকাবলা-১৮৯৩)
পাঞ্জাবী – ভাই বীর সিং (সুন্দরী-১৮৯৮, শতরম্ভ কাউর-১৯০০)
সিন্ধি – প্রীতম দাস (আজীব বাত-১৮৯২)
গুজরাতী – নন্দশঙ্কর (করণ ঘেলো-১৮৬৬), তালিয়ার খান (রত্নলক্ষী -১৮৮১), রামনায়ক মেহতা (ভানুমতী-১৮৮২), গোবর্ধন ত্রিপাঠী (সরস্বতীচন্দ্র – চার খণ্ড – ১৮৮৭ থেকে ১৯০০), ইছারাম (টিপু সুলতান-১৮৮৮), জ ব মরিহবান (নিমক হারাম-১৮৯৬)
দক্ষিণ ভারতীয় ভাষাগুলির মধ্যে
তামিল – বেদনায়কম পিল্লাই (প্রতাপ মুদালিয়র চরিত্রম – ১৮৭৯, সুগুন সুন্দরী-১৮৮৭)), মুত্তেস্বামী পিল্লাই (পদ্মিনী চপা-১৮৮৬), গুরুস্বামী শর্মা (পিরেম কলাবতীয়ম-১৮৯৩), রাজম আইয়ার (কমলামপাল চরিত্রম – ১৮৯৬), এ মাধবাইয়া (পদ্মাবতী চরিত্রম-১৮৯৮), অরুণাচল আইয়ার (নীলা-১৯০০)
তেলেগু – নরহরিশেট্টি গোপালকৃষ্ণমা (শ্রী রঙ্গরাজ চরিত্র-১৮৭২), কাণ্ডুকুরী বীরাসলিঙ্গম (রাজশেখর চরিত্র-১৮৮০), অ পন্ধ কমু (মঞ্জুরাণী বিজয়ম-১৮৯২), শুভারাভু লেক (প্রণয়মহিমা-১৮৯৪), গোপালরাও (ত্রিবিক্রম বিলাসম-১৮৯৫), লক্ষ্মী নরসিমহা (হেমলতা-১৮৯৭)
কন্নড় – গ ল ভীমরাও (চন্দ্রপ্রভা হল কাদম্বরীয়ু-১৮৯৬), গুলবাত্তি বেঙ্কটরাও (ইন্দিরা বাঈ-১৮৯৯), বোলারু বাবু রাও (বাগদেবী – ১৯০৫)
মালয়লম – অজ্ঞাত লেখকের ঘাতক বধর্ম(১৮৭৭), র র নাইক (কালপুরুষ-১৮৮৬), সি ভি রমন পিল্লাই (মার্তণ্ড বর্মা-১৮৯১, ধর্মরাজা -১৯১৩, রামরাজা বাহাদুর-১৯১৮-১৯), চান্দু মেনন (ইন্দুলেখা-১৮৮৯, সারদা-১৮৯২), পোথেরু কুনহামবু (সরস্বতী বিজয়ম-১৯৯৩), যোশেফ মুলিইল (সুকুমারি-১৮৯৭)
ইংরাজী ভাষার ভারতীয় উপন্যাস - বঙ্কিমচন্দ্র (রাজমোহন’স ওয়াইফ -১৮৬৪)।


296 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: অ

Re: উনিশ শতকের ভারতীয় উপন্যাস : একটি তুলনামূলক অধ্যয়ন

বঙ্কিমেরও আগে বাংলায় ইউরোপিয়ান ধাঁচে উপন্যাস লিখেছিলেন এক শ্বেতাঙ্গীনি। ১৮৫৩.এনা ক্যাথারিন মুলেন।ফুলমণি ও করুণার বিবরণ।এনার বাবা ছিলেন মিশনারি। শ্রীরামপুরে থাকতেন।বাড়িতেই বাংলা শেখেন।
কিন্তু কথা হচ্ছে উপন্যাস আমরা কাকে বলবো? গদ্যে রচিত প্লট সম্বলিত আখ্যান?
নাকি উপস্থাপিত যেকোনো ন্যাস কর্ম? উপস্থাপিত বিন্যাস আর নভেলকে আজ আমরা একই ভাবি।তবে দুটোই কি এক?
রামায়ণ বা বৃহৎকথা বা আরব্য রজনী কেন উপন্যাস বলবো না?
Avatar: Arindam

Re: উনিশ শতকের ভারতীয় উপন্যাস : একটি তুলনামূলক অধ্যয়ন

রামায়ণ / মহাভারত /বৃহৎকথা তো কাব্য । সংস্কৃত সাহিত্যে উপন্যাস বা গদ্য সেভাবে নেই। "গদ্যে রচিত প্লট সম্বলিত আখ্যান" - বোধহয় উপন্যাসকে সঠিক্ভাবে সংজ্ঞায়িত করা।
Avatar: অ

Re: উনিশ শতকের ভারতীয় উপন্যাস : একটি তুলনামূলক অধ্যয়ন

তাহলে কাব্যাপন্যাস হয় না? গদ্যই প্যারামিটার? আখ্যান বিন্যস্ত হয়ে উপস্থাপনা হলেই কিন্তু উপন্যাস।সেইটাই ব্যুৎপত্তি।
Avatar: Atoz

Re: উনিশ শতকের ভারতীয় উপন্যাস : একটি তুলনামূলক অধ্যয়ন

যারা বৃষ্টিতে ভিজেছিল---জয় গোস্বামীর লেখা কাব্যোপন্যাস ।
Avatar: অ

Re: উনিশ শতকের ভারতীয় উপন্যাস : একটি তুলনামূলক অধ্যয়ন

তাই জন্যেই তো বলছি। গদ্য প্যারামিটার হতে পারেনা। যদি বলি দেবদেবী নয় সামাজিক আখ্যান,প্লট তাহলেও পুরোটা মেলেনা। দেবতাকে চরিত্র বানিয়ে উপন্যাস দিব্যি হতে পারে।
আসলে 'প্রথম উপন্যাস' এই চিহ্নায়নের পেছনেও সেই ইউরোপের নভেল হয়ে ওঠার আকাঙ্ক্ষা থাকছে কলোনীর সাহিত্যের।
নইলে মঙ্গলকাব্য কাব্যোপন্যাস নয় ক্যানো?
Avatar: অ

Re: উনিশ শতকের ভারতীয় উপন্যাস : একটি তুলনামূলক অধ্যয়ন

তাই জন্যেই তো বলছি। গদ্য প্যারামিটার হতে পারেনা। যদি বলি দেবদেবী নয় সামাজিক আখ্যান,প্লট তাহলেও পুরোটা মেলেনা। দেবতাকে চরিত্র বানিয়ে উপন্যাস দিব্যি হতে পারে।
আসলে 'প্রথম উপন্যাস' এই চিহ্নায়নের পেছনেও সেই ইউরোপের নভেল হয়ে ওঠার আকাঙ্ক্ষা থাকছে কলোনীর সাহিত্যের।
নইলে মঙ্গলকাব্য কাব্যোপন্যাস নয় ক্যানো?


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন