Arkady Gaider RSS feed

Arkady Gaiderএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • বাংলায় এনআরসি ?
    বাংলায় শেষমেস এনআরসি হবে, না হবে না, জানি না। তবে গ্রামের সাধারণ নিরক্ষর মানুষের মনে তীব্র আতঙ্ক ছড়িয়েছে। আজ ব্লক অফিসে গেছিলাম। দেখে তাজ্জব! এত এত মানু্ষের রেশন কার্ডে ভুল! কয়েকজনের সাথে কথা বলে জানলাম প্রায় সবার ভোটারেও ভুল। সব আইকার্ড নির্ভুল আছে এমন ...
  • যান্ত্রিক বিপিন
    (১)বিপিন বাবু সোদপুর থেকে ডি এন ৪৬ ধরবেন। প্রতিদিন’ই ধরেন। গত তিন-চার বছর ধরে এটাই বিপিন’বাবুর অফিস যাওয়ার রুট। হিতাচি এসি কোম্পানীর সিনিয়র টেকনিশিয়ন, বয়েস আটান্ন। এত বেশী বয়েসে বাড়ি বাড়ি ঘুরে এসি সার্ভিসিং করা, ইন্সটল করা একটু চাপ।ভুল বললাম, অনেকটাই চাপ। ...
  • কাইট রানার ও তার বাপের গল্প
    গত তিন বছর ধরে ছেলের খুব ঘুড়ি ওড়ানোর শখ। গত দুবার আমাকে দিয়ে ঘুড়ি লাটাই কিনিয়েছে কিন্তু ওড়াতে পারেনা - কায়দা করার আগেই ঘুড়ি ছিঁড়ে যায়। গত বছর আমাকে নিয়ে ছাদে গেছিল কিন্তু এই ব্যপারে আমিও তথৈবচ - ছোটবেলায় মাথায় ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছিল ঘুড়ি ওড়ানো "বদ ছেলে" দের ...
  • কুচু-মনা উপাখ্যান
    ১৯৮৩ সনের মাঝামাঝি অকস্মাৎ আমাদের বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ(ক) শ্রেণী দুই দলে বিভক্ত হইয়া গেল।এতদিন ক্লাসে নিরঙ্কুশ তথা একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তার করিয়া ছিল কুচু। কুচুর ভাল নাম কচ কুমার অধিকারী। সে ক্লাসে স্বীয় মহিমায় প্রভূত জনপ্রিয়তা অর্জন করিয়াছিল। একটি গান অবিকল ...
  • 'আইনি পথে' অর্জিত অধিকার হরণ
    ফ্যাসিস্ট শাসন কায়েম ও কর্পোরেট পুঁজির স্বার্থে, দীর্ঘসংগ্রামে অর্জিত অধিকার সমূহকে মোদী সরকার হরণ করছে— আলোচনা করলেন রতন গায়েন। দেশে নয়া উদারবাদী অর্থনীতি লাগু হওয়ার পর থেকেই দক্ষিণপন্থার সুদিন সূচিত হয়েছে। তথাপি ১৯৯০-২০১৪-র মধ্যবর্তী সময়ে ...
  • সম্পাদকীয়-- অর্থনৈতিক সংকটের স্বরূপ
    মোদীর সিংহগর্জন আর অর্থনৈতিক সংকটের তীব্রতাকে চাপা দিয়ে রাখতে পারছে না। অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন শেষ পর্যন্ত স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছেন যে ভারতের অর্থনীতি সংকটের সম্মুখীন হয়েছে। সংকট কতটা গভীর সেটা তার স্বীকারোক্তিতে ধরা পড়েনি। ধরা পড়েনি এই নির্মম ...
  • কাশ্মীরি পন্ডিত বিতাড়নঃ মিথ, ইতিহাস ও রাজনীতি
    কাশ্মীরে ডোগরা রাজত্ব প্রতিষ্ঠিত হবার পর তাদের আত্মীয় পরিজনেরা কাশ্মীর উপত্যকায় বসতি শুরু করে। কাশ্মীরি ব্রাহ্মণ সম্প্রদায়ের মানুষেরাও ছিলেন। এরা শিক্ষিত উচ্চ মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত শ্রেনি। দেশভাগের পরেও এদের ছেলেমেয়েরা স্কুল কলেজে পড়াশোনা করেছে। অন্যদিকে ...
  • নিকানো উঠোনে ঝরে রোদ
    "তেরশত নদী শুধায় আমাকে, কোথা থেকে তুমি এলে ?আমি তো এসেছি চর্যাপদের অক্ষরগুলো থেকে ..."সেই অক্ষরগুলোকে ধরার আরেকটা অক্ষম চেষ্টা, আমার নতুন লেখায় ... এক বন্ধু অনেকদিন আগে বলেছিলো, 'আঙ্গুলের গভীর বন্দর থেকে যে নৌকোগুলো ছাড়ে সেগুলো ঠিক-ই গন্তব্যে পৌঁছে যায়' ...
  • খানাকুল - ২
    [এর আগে - https://www.guruchan...
  • চন্দ্রযান-উন্মত্ততা এবং আমাদের বিজ্ঞান গবেষণা
    চন্দ্রযান-২ চাঁদের মাটিতে ঠিকঠাক নামতে পারেনি, তার ঠিক কী যে সমস্যা হয়েছে সেটা এখনও পর্যন্ত পরিষ্কার নয় । এই নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়াতে শুরু হয়েছে তর্কাতর্কি, সরকারের সমর্থক ও বিরোধীদের মধ্যে । প্রকল্পটির সাফল্য কামনা করে ইসরো-র শীর্ষস্থানীয় বিজ্ঞানীরা ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

দেশ এবং জাতীয়তাবাদ

Arkady Gaider

স্পিলবার্গের 'মিউনিখ' সিনেমায় এরিক বানা'র জার্মান রেড আর্মি ফ্যাকশনের সদস্যের (যে আসলে মোসাদ এজেন্টে) চরিত্রের কাছে পিএলও'র সদস্য আলি ঘোষনা করে - 'তোমরা ইউরোপিয়ান লালরা বুঝবে না। ইটিএ, আফ্রিকান ন্যাশনাল কংগ্রেস, আইরিশ রিপাব্লিকান আর্মি, আমরা - আমরা সবাই ভান করি যে আমরা তোমাদের আন্তর্জাতিক বিপ্লব কে সমর্থন করি, কিন্তু আমরা ওসব নিয়ে ভাবি না। We want to be nations.'
Nation - এটা খুব মজার শব্দ।
Nationalism মানে জাতীয়তাবাদ। Nationality মানে জাতি।
ভারতের National / জাতীয় পশু, সংগীত, ফুল রয়েছে।
আমাদের nationality হলো ভারতীয়।
তাহলে 'ভারতীয়' কি একটা জাতি? এইখানেই ব্যাপারটা একটু ঘেঁটে যাচ্ছে। মানে জার্মানরা একটি জাতি। তাদের দেশ জার্মানি। ডাচরা একটি জাতি। তাদের দেশ নেদারল্যান্ডস। এমনকি ব্রিটিশরাও একটি জাতি। তাদের দেশ গ্রেট ব্রিটেন। কিন্তু ভারতীয় বলে তো কোন জাতি হয় না। বাঙালি জাতি হয়। তামিল জাতি হয়। পাঞ্জাবী জাতি হয়। তাহলে ভারত নামক nation এর বাংলা করতে গেলে যা দাড়াচ্ছে - বহুজাতিক জনসমষ্টি। আরেকটু সুন্দর ভাষায় বলতে গেলে - মহাজাতি।
তাহলে আমরা 'ভারত' দেশ নামক রাজনৈতিক সত্তার সদস্য হলাম কি করে? আমাদের দেশের যারা বাঙালি, জাতিগত ভাবে তারা আমাদেরই দেশের তামিলদের থেকে বাংলাদেশের বাঙালিদের অনেক বেশি কাছের। আবার আমাদের দেশের যারা পাঞ্জাবী, জাতিগত ভাবে তারা একজন তেলেগুর থেকে পাকিস্তানের একজন পাঞ্জাবীর অনেক বেশি কাছের। তবুও, এই একজন বাঙালি, একজন পাঞ্জাবি, একজন তেলেগু, একজন তামিল, আমরা সবাই ভিন্ন ভিন্ন জাতি হয়েও সবাই 'ভারতীয়'। পৃথিবীতে এরকম আরও কয়েকটিমাত্র দেশ রয়েছে - আমেরিকা, সুইৎজারল্যান্ড।
তাহলে এমনকি কারন আছে যার জন্যে আজকে আমরা সবাই 'ভারতীয়'?
উত্তর - সংবিধান।
বা আরও পরিষ্কার করে বলতে গেলে, কিছু ধারনা, কিছু মত, কিছু আদর্শ, কিছু উদ্দ্যেশ্য, যার বেশিরভাগের সাথে আমরা একমত হয়েছি এবং সমষ্টিগতভাবে অংশগ্রহন করতে সম্মত হয়েছি। এই shared ideas কে লিপিবদ্ধ করা হয়েছে আমাদের সংবিধানে। এই যে একটি কাগজের টুকরো - এতগুলো ভাষা, জাতিকে এক জায়গায় এনেছে, এই কাগজের টুকরোটাই শুরু আর এটাই শেষ। এই সংবিধানকে স্বীকৃতি দেওয়া - এটাই এক এবং একমাত্র ব্যাপার যা আমাদের 'ভারতীয়' করে তোলে। দেশ হিসেবে ভারতের যে ধারনা - সেটার মূর্ত রুপ হলো সংবিধান। যদি বিশাল সংখ্যায় মানুষ মনে করে তারা এই ধারনাকে পালটাতে চায় - সেটাও সাংবিধানিক উপায় সম্পন্ন করবার সম্ভাবনা রয়েছে।
এবং যখন আমরা এই সংবিধানের মধ্যে দিয়ে নিজেদেরকে দেশ বলে স্বীকৃতি দিলাম, তখন অনেকে আড়ালে মুচকি হেসেছিলো। যেখানে প্রতি ৫০০ কিলোমিটার গেলেই জাতি, ভাষা, খাদ্যভাস পালটায়, সেই দেশ কখনও টিকতে পারে নাকি? আমরা দেখিয়েছি - পারে। জাতি, ভাষা, সংস্কৃতি সবকিছুকে টেক্কা দিয়ে সফল হতে পারে যে ম্যাজিক, তার নাম - আইডিয়া। আইডিয়া অফ ইন্ডিয়া। একটা শক্তিশালী ধারনা, যার বলে ৭০ বছর আর ৭০ হাজার বাধা বিপত্তি পেরিয়েও আমরা টিকে রয়েছি। এই ধারনার হয়তো বাস্তবায়ন হতে অনেক দেরি, কিন্তু এই ধারনাকে উদ্দ্যেশ্য করেই আমরা প্রতিনিয়ত লড়ে যাচ্ছি। যদি কোনদিন এই ধারনাকে এমনভাবে পালটে ফেলা হয় যাতে দেশের একটা বিশাল অংশের আপাত নির্লিপ্ত মানুষ এর প্রতি বিরুপ হয়ে পড়ে, তাহলে এই 'আইডিয়া', এবং তার সাথে 'ইন্ডিয়া; ধ্বংস হয়ে যাবে।
খুব গোদা ভাবে এই ধারনার বর্ণনা দিতে চেষ্টা করবো - গনতন্ত্র, সমাজবাদ, ধর্মনিরপেক্ষতা, ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ, প্রতিটি জাতি এবং ভাষার স্বাতন্ত্র্য বিকাশ এবং অর্থনৈতিক সাম্য। কেউ কেউ হয়তো এর মধ্যে কিছু বদল আনতে চান। কেউ কেউ হয়তো মনে করেন এই ধারনাকে সাধন করতে অনেক লড়াই লড়তে হবে। এই বিভিন্ন দ্বন্দ, পরস্পর বিরোধী চেতনাকেও পরিসর দিয়েই আমাদের দেশের ধারনার অস্তিত্ব।
এবার আসি মানুষের কথায়। ধরুন আপনার বাড়ি দক্ষিন কলকাতায়। আপনার বাড়িতে রোজ সকালে যে মহিলা কাজ করতে আসেন, তাকে যদি জিজ্ঞ্যেস করেন - তোমার দেশ কোথায়? উত্তর পাবেন - ক্যানিং। বা সোনাটিকারি। বা আপনার অফিসের কর্মচারী ছুটির দরখাস্ত দিতে এসে বলবে - একটু দেশের বাড়ি যাবো। আচ্ছা, একটা গল্প শুনি চলুন। ধরুন একজন ব্যাক্তি। বাঙালি। তার নাম ধরে নিলাম 'ক'। 'ক' বাবুর জন্ম ১৯৪০ সালে, ঢাকায়। এই সময় তিনি ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের প্রজা। ১৯৪৭ এ তিনি হয়ে গেলেন পাকিস্তান দেশের নাগরিক। ১৯৭১ এই আবার তিনি হয়ে গেলেন বাংলাদেশের নাগরিক। এবার সামরিক শাসনের আমলে অন্য অনেকের মতন তিনিও এলেন ভারতে, হয়ে গেলেন ভারতের নাগরিক। এর মধ্যে তার বয়েস হয়েছে, সন্তান হয়েছে, তারা রয়েছে বিদেশে, ধরুন আমেরিকায়। তাদের কাছে 'ক' বাবু চলে গেলেন। সেখানে কয়েক বছর কাটিয়ে তিনি হয়ে গেলেন আমেরিকার নাগরিক। অর্থাৎ পরিস্থিতি এবং ক্ষমতার খেলার ফল হিসেবে তার জীবনকালে তিনি পাচটা আলাদা আলাদা 'দেশের' নাগরিক হলেন। কিন্তু যেটা কেউ তার কাছে থেকে কেড়ে নিতে পারলো না - তার জাতিপরিচিতি। বাঙালি। এবার 'ক' বাবুর জাতীয়তাবাদ বা দেশপ্রেম প্রদর্শনীর প্রশ্ন উঠলে উত্তর খুজতে মুশকিলে পড়তে হবে। কার প্রতি তিনি জাতীয়তাবাদের সাক্ষ্য রাখতে দায়বদ্ধ?
এর উত্তরও খুব সোজা। দেশ মানে যদি মহাজাতি হয়, তাহলে জাতীয়তাবাদের প্রমান হিসেবে আমাদের আনুগত্য কিছু রাজনৈতিক এবং ভৌগলিক সীমানার (যা আজ বাদে কাল পালটে যাবে) প্রতি নয়, আমাদের দায়বদ্ধতা কেবল মাত্র মানুষের প্রতি। যেহেতু বাস্তবের নিয়ম মেনে একটি অপরের নির্নয় করে দেওয়া সীমানা আমাদের বিচরনক্ষেত্র, তাই প্রাথমিক ভাবে এই ভৌগলিক পরিসর, যার রাজনৈতিক নাম 'দেশ', এর মানুষের প্রতি আমরা দায়বদ্ধ। এবং যেখানে যেখানে সম্ভব, সেখানে আমাদের কাজের প্রভাব বিস্তার করে এই সীমানার বাইরের প্রত্যেকটা মানুষের প্রতিও আমরা দায়বদ্ধ। এই দায়বদ্ধতা থেকেই ব্রিটেনের শ্রমিক ইউনিয়নরা ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের পাশে দাড়িয়েছিলো। এই দায়বদ্ধতা থেকেই ভিয়েতনাম যুদ্ধের বিরুদ্ধে আমেরিকার রাস্তায়, ইউনিভার্সিটিতে হাজার হাজার ছাত্র-ছাত্রী পুলিশের ব্যাটনের সামনে দাড়িয়েছিলো। কারন তারা নিজেদের দেশকে, দেশের মানুষকে ভালোবাসতো। তাদের চেতনায় তাদের দেশের যে ধারনা, সেই ধারনা কে আহত হতে দেখে, তাকে রক্ষা করতেই তারা এই লড়াই লড়েছিলো।
তাই, আমাদের দেশের যে ধারনা, যার ভিত্তিতে আমরা আজকে 'ভারতীয়', সেই ধারনাকে রক্ষা করা, তার বাস্তবায়ন করা, এটাই দেশপ্রেমের কর্মসূচী। 'জাতীয়তাবাদ' যদি সেই ধারনার পরিপন্থী হয়, তাহলে সেই জাতীয়তাবাদ মেকি, তা আমাদের দেশকে ধ্বংস করবে। সেই মেকি জাতীয়তাবাদকে ত্যাজ্য করাই আসল দেশপ্রেম




https://www.facebook.com/ArkadyGaider/posts/274137026399814

278 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: দ

Re: দেশ এবং জাতীয়তাবাদ

তেলেগু নয় "তেলুগু"

আর বানান ভুল! বাপরে! অতি সাধারণ সাধারণ বানানও ভুল!
উফফ!


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন