Swarnendu Sil RSS feed

Swarnendu Silএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • ভারত ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
    ভারত আর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র - মিল কতটুকু?একটি দেশ যদি বিশ্বের সবচাইতে শক্তিশালী অর্থনীতি হয়, আরেকটির হাল বেশ নড়বড়ে - মানুষের হাতে কাজ নেই, আদ্ধেক মানুষের পেটে খাবার নেই, মাথার ওপরে ছাদ নেই, অসুস্থ হলে চিকিৎসার বন্দোবস্ত নেই। অবশ্য দুর্জনেরা বলেন, প্রথম ...
  • দক্ষিণের কড়চা
    গরু বাগদির মর্মরহস্য➡️মাঝে কেবল একটি একক বাঁশের সাঁকো। তার দোসর আরেকটি ধরার বাঁশ লম্বালম্বি। সাঁকোর নিচে অতিদূর জ্বরের মতো পাতলা একটি খাল নিজের গায়ে কচুরিপানার চাদর জড়িয়ে রুগ্ন বহুকাল। খালটি জলনিকাশির। ঘোর বর্ষায় ফুলে ফেঁপে ওঠে পচা লাশের মতো। যেহেতু এই ...
  • বাংলায় এনআরসি ?
    বাংলায় শেষমেস এনআরসি হবে, না হবে না, জানি না। তবে গ্রামের সাধারণ নিরক্ষর মানুষের মনে তীব্র আতঙ্ক ছড়িয়েছে। আজ ব্লক অফিসে গেছিলাম। দেখে তাজ্জব! এত এত মানু্ষের রেশন কার্ডে ভুল! কয়েকজনের সাথে কথা বলে জানলাম প্রায় সবার ভোটারেও ভুল। সব আইকার্ড নির্ভুল আছে এমন ...
  • যান্ত্রিক বিপিন
    (১)বিপিন বাবু সোদপুর থেকে ডি এন ৪৬ ধরবেন। প্রতিদিন’ই ধরেন। গত তিন-চার বছর ধরে এটাই বিপিন’বাবুর অফিস যাওয়ার রুট। হিতাচি এসি কোম্পানীর সিনিয়র টেকনিশিয়ন, বয়েস আটান্ন। এত বেশী বয়েসে বাড়ি বাড়ি ঘুরে এসি সার্ভিসিং করা, ইন্সটল করা একটু চাপ।ভুল বললাম, অনেকটাই চাপ। ...
  • কাইট রানার ও তার বাপের গল্প
    গত তিন বছর ধরে ছেলের খুব ঘুড়ি ওড়ানোর শখ। গত দুবার আমাকে দিয়ে ঘুড়ি লাটাই কিনিয়েছে কিন্তু ওড়াতে পারেনা - কায়দা করার আগেই ঘুড়ি ছিঁড়ে যায়। গত বছর আমাকে নিয়ে ছাদে গেছিল কিন্তু এই ব্যপারে আমিও তথৈবচ - ছোটবেলায় মাথায় ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছিল ঘুড়ি ওড়ানো "বদ ছেলে" দের ...
  • কুচু-মনা উপাখ্যান
    ১৯৮৩ সনের মাঝামাঝি অকস্মাৎ আমাদের বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ(ক) শ্রেণী দুই দলে বিভক্ত হইয়া গেল।এতদিন ক্লাসে নিরঙ্কুশ তথা একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তার করিয়া ছিল কুচু। কুচুর ভাল নাম কচ কুমার অধিকারী। সে ক্লাসে স্বীয় মহিমায় প্রভূত জনপ্রিয়তা অর্জন করিয়াছিল। একটি গান অবিকল ...
  • 'আইনি পথে' অর্জিত অধিকার হরণ
    ফ্যাসিস্ট শাসন কায়েম ও কর্পোরেট পুঁজির স্বার্থে, দীর্ঘসংগ্রামে অর্জিত অধিকার সমূহকে মোদী সরকার হরণ করছে— আলোচনা করলেন রতন গায়েন। দেশে নয়া উদারবাদী অর্থনীতি লাগু হওয়ার পর থেকেই দক্ষিণপন্থার সুদিন সূচিত হয়েছে। তথাপি ১৯৯০-২০১৪-র মধ্যবর্তী সময়ে ...
  • সম্পাদকীয়-- অর্থনৈতিক সংকটের স্বরূপ
    মোদীর সিংহগর্জন আর অর্থনৈতিক সংকটের তীব্রতাকে চাপা দিয়ে রাখতে পারছে না। অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন শেষ পর্যন্ত স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছেন যে ভারতের অর্থনীতি সংকটের সম্মুখীন হয়েছে। সংকট কতটা গভীর সেটা তার স্বীকারোক্তিতে ধরা পড়েনি। ধরা পড়েনি এই নির্মম ...
  • কাশ্মীরি পন্ডিত বিতাড়নঃ মিথ, ইতিহাস ও রাজনীতি
    কাশ্মীরে ডোগরা রাজত্ব প্রতিষ্ঠিত হবার পর তাদের আত্মীয় পরিজনেরা কাশ্মীর উপত্যকায় বসতি শুরু করে। কাশ্মীরি ব্রাহ্মণ সম্প্রদায়ের মানুষেরাও ছিলেন। এরা শিক্ষিত উচ্চ মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত শ্রেনি। দেশভাগের পরেও এদের ছেলেমেয়েরা স্কুল কলেজে পড়াশোনা করেছে। অন্যদিকে ...
  • নিকানো উঠোনে ঝরে রোদ
    "তেরশত নদী শুধায় আমাকে, কোথা থেকে তুমি এলে ?আমি তো এসেছি চর্যাপদের অক্ষরগুলো থেকে ..."সেই অক্ষরগুলোকে ধরার আরেকটা অক্ষম চেষ্টা, আমার নতুন লেখায় ... এক বন্ধু অনেকদিন আগে বলেছিলো, 'আঙ্গুলের গভীর বন্দর থেকে যে নৌকোগুলো ছাড়ে সেগুলো ঠিক-ই গন্তব্যে পৌঁছে যায়' ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

দুর্গা, নিওলিথিক উত্তরাধিকার

Swarnendu Sil

দুর্গাপুজোর মাঝে কিছু অদ্ভুত পোস্ট চোখে পড়ল ফেসবুকে... এক ধরণের কাউন্টার-প্রোপাগ্যান্ডা... মহিষাসুর 'অসুর' নামের কোন আদিবাসী উপজাতির লোককথার এক রাজা... যাকে সাদাচামড়ার ( implying, depending on the context, উচ্চবর্ণের বা ইন্দো-ইউরোপীয় ) দুর্গা কৌশলে হত্যা করে... আর তাই দুর্গাপুজো তাদের কাছে শোকের দিন...

এমন পোস্ট অবশ্য এবছরই প্রথম নয়, এর আগেও 'হুদুর-দুর্গা' ইত্যাদি নিয়ে লেখালিখি চোখে পড়েছে...

যাই হোক, ইতিহাস বিকৃতি এই হনুমানদের ভারতবর্ষে একরকম গা-সওয়া হয়ে যাচ্ছে বা গেছে বলা চলে... কিন্তু হনুমানদের বিরোধীদেরও সেই একই রাস্তায় হাঁটতে দেখলে ভবিষ্যৎ ভেবে একটু ডিপ্রেসসড লাগে এখনো... আমার কাছে অন্তত ইতিহাস বিকৃত করে কি বলছের থেকে এই অভিসন্ধিমূলক বিকৃতিটাই মৌলবাদের সমার্থক... সেই থেকেই কিছু কথা লেখা...

এই ধরণের propaganda য় subscribe যারা করেন তারা কি আদৌ মানুষের ইতিহাসে মাতৃপূজার ইতিহাস ও সেই সংক্রান্ত মতগুলো নিয়ে সামান্যও ওয়াকিবহাল? মহিষাসুর কোন আদিবাসী উপজাতীয় রাজা বা নেতা তো দুরে থাকুক, আদৌ কোন মানুষকে ( অর্থাৎ কোন ব্যক্তিকে, কোন individual কে, সে মানুষ, দেবতা, অসুর, রাক্ষস যাই হোক না কেন) রিপ্রেজেন্ট করে কি না আদৌ...

নাকি রিপ্রেজেন্ট করে, আজ্ঞে হ্যাঁ, বন্য মহিষকে... অন্যত্র বন্য ষাঁড়কে... এই অন্যত্রটা বুঝিয়ে বলি... একজন মহিলা ও একটা ষাঁড়, সঙ্গে কোন একটা big cat, মানুষের সংস্কৃতির ইতিহাসে এই symbol টার বয়স কত জানেন? ৯৫০০ বছর... আজ্ঞে হ্যাঁ, একটাও শূন্য বেশী দেখেন নি... সাড়ে নহাজারই লেখা ওটা... সবচেয়ে পুরনো এমন সিম্বল পাওয়া গেছে চাতালহয়ুক এ ...

https://en.wikipedia.org/wiki/%C3%87atalh%C3%B6y%C3%BCk

এই পেজেই ছবি পাবেন... দুটো লেপার্ড বা প্যান্থারের ওপর বসে থাকা mother goddess....... মন্দিরগুলোয় ষাঁড়ের শিং, ষাঁড়ের খুলি ভর্তি... দেওয়ালে ষাঁড়ের ছবি ও ...

cattle domestication এর সামান্য আগে-পরে... মোটামুটি সেই সময় থেকেই ( ৭৫০০ খ্রীষ্টপূর্বাব্দ মোটামুটি ) থেকেই এই সিম্বলটার অস্তিত্ব আছে...এবং যাকে নিওলিথিক রেভল্যুশন বলা হয় সেই থেকেই... আর্য-অনার্য, উচ্চ বর্ণ-নিম্ন বর্ণ, আদিবাসী জনজাতি এইসব ভাগাভাগি আস্তে তখনো বহু সহস্রাব্দ বাকি, এমনকি ইন্দো-ইউরোপীয় material culture এর জন্মলাভ তখনো কয়েক হাজার বছর ভবিষ্যতের গর্ভে...

এই নিওলিথিক কালচার প্যাকেজ-এর ছড়িয়ে পড়া ( উৎপত্তিস্থল মোটামুটিভাবে লেভান্ত, আজকের সিরিয়া-ইরাক-প্যালেস্তাইন-ইজরায়েল-লেবানন অঞ্চল) ... পুবে ও পশ্চিমে... এবং পুবে বন্য ষাঁড় এর বন্য মহিষে ট্রান্সফর্মড হয়ে যাওয়া ( মোষ বা water buffalo ভারতীয় উপমহাদেশে অথবা চীনে domesticated হয় প্রথম ) ... এগুলো জানার দুর্ভাগ্যক্রমে কোন শর্টকাট নেই... definitive account ও কম... without controversy ও নয় সেগুলো... তবু বই আছে... পড়ে দেখতে পারেন... একটা ১৯৫৯ এর ক্লাসিক,
জেমস এর কাল্ট অফ দ্য মাদার গডেস ...
https://books.google.ch/books/about/The_Cult_of_the_Mother_goddess.htm
l?id=ppyAoAEACAAJ&redir_esc=y


এছাড়াও
https://books.google.ch/books/about/The_Birth_of_the_Gods_and_the_Orig
ins_of.html?id=z4epGQpNyucC&redir_esc=y


সুমেরীয় বা মেসোপটেমিয়ার Ananna-Ishtar এর ছবি ও গুগল সার্চ দিলেই পাবেন... একটা দিলাম নিচে...সিংহবাহিনী দুর্গার সাথে মিলিয়ে নিন নিজেরাই...


http://67.media.tumblr.com/fd18556dbf36472c7e76fde7f082692e/tumblr_inl
ine_nkkr7xbnIg1qhe44g.jpg


প্রাচীন সিম্বলগুলোকে নাহয় একটু রেহাইই দিলেন আপনাদের আইডেন্টিটি পলিটিক্স এর থেকে...

যাই হোক, নবমীর রাত ফুরতে চলল... আপাতত এইটুকুই ...

[ লেখাটা ফেসবুকে লিখি গতকাল... এখানেও দিলাম আজ... অবিকৃতভাবেই...
সব্বাইকে শুভ বিজয়া ]

2657 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


মন্তব্যের পাতাগুলিঃ [1] [2] [3] [4] [5] [6]   এই পাতায় আছে 41 -- 60
Avatar: সায়ন্তনী

Re: দুর্গা, নিওলিথিক উত্তরাধিকার

সমস্যা হল মহিষাসুর উৎসব আগেও ছিল, কিন্তু খানিক হিন্দুত্ব রাজনীতির চক্করে তারও পলিটিসাইজেশন হচ্ছে। ওটা না বন্ধ করে, এটা কি করে বন্ধ করা যাবে? আর পাই যেটা বললি, সেটা তো হতেই পারে, সব ট্রাইবালরা কি এক দেব দেবীর পুজো করবে নাকি! অসুর ট্রাইবের শোক দিবস পালন নিয়ে কিছুদিন আগেই ঋজু বসু একটা লেখা লিখেছে আনন্দবাজারে, ওকে জিগ্যেস করলে জানা যাবে অসুর দের ব্যাপারটা
Avatar: Arpan

Re: দুর্গা, নিওলিথিক উত্তরাধিকার

Avatar: কল্লোল

Re: দুর্গা, নিওলিথিক উত্তরাধিকার

দিপ্তেন। বেদ্গুলি তো ওভাবে রচিত হয়নি। নানান মানুষ নানান অভিজ্ঞতা নানাভাবে ব্যক্ত করেছেন নানা সময়ে, সেগুলোকে বিষয় অনুযায়ী বিন্যস্ত করে চারটি বেদ তৈরী হয়েছে। ফলে এর থেকে ঐ টেক্স্টগুলোর উদ্দেশ্য বের করা বেশ কষ্টকর। সাধারণভাবে রচয়িতাদের মানসিক অবস্থান বোঝা যায় মাত্র।
কিন্তু পুরাণগুলো বা সেই অর্থে উপনিষদ রচিত হয় কিছু উদ্দেশ্য মাথায় রেখে। যদিও পুরানগুলি আর উপনিষদ রচনার উদ্দেশ্য আলাদা। পুরাণগুলি সবকটিই আর্য সুপ্রিমেসির কথা বলে। বিভিন্ন সময়ে অনার্যদের উপর নিজেদের অধিপত্য বিস্তার করতে এই পুরাণগুলি সাহায্য করে। একটা জাতিকে বশ্যতা স্বীকার করাতে সামরিক জয়ই যথেষ্ট নয়, বা বলা ভালো সামরিক অধিপত্য বশ্যতা স্বীকার করানোর ক্ষেত্রে বিশেষ কোন কাজে দেয় না। সেখানে দরকার পরে "উন্নত" চিন্তা, ফলে "উন্নত মানুষ"এর ধারনাকে কৌশলে ঢুকিয়ে দেওয়া। যেভাবে ইংরেজরা নিজেদের/পাশ্চাত্যের জ্ঞানভান্ডারকে ভারতীয়/প্রাচ্যের জ্ঞানভান্ডারের চাইতে উন্নত - এই ধরনা ঢুকিয়ে দিতে পেরেছিলো।
আমার এরকম মনে হয়।
Avatar: dd

Re: দুর্গা, নিওলিথিক উত্তরাধিকার

কল্লোলরে।

আরে, ঋগবেদেই তো সাদা চামড়া/কালো চামড়ার মানুষদের নিয়ে বিস্তর লেখা আছে। বেশ কয়েকবার লিখেছি। আবার সেগুলো লিখলে সবাই বোর হয়ে যাবে।যজুর্বেদেও অসুর/দেবতা/রাক্ষস এই সব নিয়ে ইন্টেরেস্টিং গল্পো আছে। এরা সবাই আলাদা ছিলেন। চেহারাতেও।

একাধিক যে জন গোষ্ঠী ছিলো সেটা বেশ বোঝা যায়। গায়ের রং নিয়ে তো অনেক উল্লেখ আছে। ইঃ।
Avatar: কল্লোল

Re: দুর্গা, নিওলিথিক উত্তরাধিকার

সে তো হতেই পারে। কিন্তু বেদ্গুলো তো বহু সময় ধরে আলাদা আলাদা ব্যাক্তি/গোষ্ঠীর লেখা অভিজ্ঞতা একত্র করা। তাতে প্রেক্ষিত বোঝা বেশ মুস্কিল। যেমন, অসুর আর রাক্ষস। এরা এক গোষ্ঠীর নয়। এদের মধ্যে মিল হলো, এরা দেবতাদের বিরোধী। আর্য্দের যুগভাগের প্রেক্ষিতে অসুরদের উল্লেখ পাই সত্যযুগে। ত্রেতা ও দ্বাপরে অসুর নাই, রাক্ষস আছে। অসুরেরা নগরবাসী (মহাদেবের ত্রিপুর ধ্বংস দ্রষ্টব্য), কিন্তু রাক্ষসেরা অরণ্যচারী। ব্যতিক্রম রাবণ ও তার লঙ্কাবাসী রাক্ষসেরা। মহভারত ও রামায়ণে যত অসুরের উল্লেখ আছে সবই "পুরাকালের" গল্প। ব্যতিক্রম প্রাগজ্যোতিষের নরকাসুর। তবে তারও দুরকম গল্প। ১) পুরাকালে পৃথিবীকে পাঁক থেকে উদ্ধার করতে গিয়ে বরাহ তাতে উপগত হন ও নরক জন্ম নেয়। নরককে বরাহ/বিষ্ণু অস্বীকার করেন ও শিশু অবস্থা মিথিলায়, যৌবনে প্রাগজ্যোতিষে পাঠিয়ে দেন। নরক সময় হিসাবে কামরূপের দেবীর সমসাময়িক। মানে "পুরাকালের"।
অথচ
২) দ্বাপরে কৃষ্ণ তাকে পরাজিত করে তার ১৬০০ দাসীকে মুক্ত করে নিজের সখী হিসাবে নিয়ে আসেন মথুরায়।

হতে পারে দুজন আলাদা ব্যক্তির একনাম। অথবা পরের গল্পটা কৃষ্ণের মহিমা কীর্তনে বানানো হয়েছে।

Avatar: dd

Re: দুর্গা, নিওলিথিক উত্তরাধিকার

ইয়েস, এটা ঠিক লিখলে।

রাক্ষস আর অসুর আলাদা জাতি। যজুর্বেদেও এদের আলাদা করেই দেখিয়েছে। ঋগবেদে বোঝা যায় দেবতা=অসুর , এই ভাবে শুরু হয়ে সেটা কেমনে দুটো আলাদা গোষ্ঠী হয়ে গেলো। এমন কি শত্রু হয়ে গেলো।

একটা সেন্ট্রাল থীম নেই, অনেকের লেখা একত্তর করে কমপাইল করা, স্পেশালি ঋগবেদ। সেহেতু কোনো খুব জোড়ালো এজেন্ডা নেই। কিন্তু তাও ও অসাড়েই, নানান নৃতাত্ত্বিক গল্প গাছা বেরিয়ে আসে। এইটাই কইছিলাম।


Avatar: গল্প

Re: দুর্গা, নিওলিথিক উত্তরাধিকার

অষ্টমী নবমীর সন্ধিপূজায় কিন্তু দুর্গার নয় , পুজো হয় দেবী চামুণ্ডার , সেই সন্ধিক্ষণে নাকি চামুন্ডা মহিষাসুর কে বোধ করেছিল । চামুন্ডা কিন্তু কালির মতোই কৃষ্ণবর্ণা, মদ্য ও মাংস ভক্ষণকারী দেবী ।
Avatar: কল্লোল

Re: দুর্গা, নিওলিথিক উত্তরাধিকার

গল্প। এটাই মজার। এই যে মদ খাওয়া, অট্টহাসি হাসা, যুদ্ধ করা, চুল খুলে রাখা ও ঘোরবর্ণ এগুলো একটাও আর্য নারীর বর্ণনা নয়। সরস্বতী, লক্ষী, অপ্সরাকুল, সীতা, দ্রৌপদী এর কেউ এমনধারা নন।
এই সমস্ত (মদ খাওয়া, অট্টহাসি হাসা, যুদ্ধ করা, চুল খুলে রাখা ও ঘোরবর্ণ) আইকনোগ্রাফি মূলতঃ তান্ত্রিক যোগিনীদের।
Avatar: dd

Re: দুর্গা, নিওলিথিক উত্তরাধিকার

ঐ কালো রং নিয়ে - দ্রৌপদী কিন্তু কালো। কৃষ্ণ আর অর্জুন দুজনেই কালো। ব্যাসদেব আর তার মা সত্যবতী কালো। পুরো মহাভারতের সেন্ট্রাল ক্যারাকটার এঁয়ারাই।

আর মদ তো জননী সীতাও খেতেন। দ্রৌপদী অতিথি আপ্যায়নে মদ পরিবেশন করেছিলেন। যদু কূলের মহিলেরাও খুব টানতেন।

তবে এসবই ট্রিভিয়া মাত্র। আদারওয়াইস কল্লোল যেটি বল্লো - সেগুলিই অর্থাৎ "মদ খাওয়া, অট্টহাসি হাসা, যুদ্ধ করা, চুল খুলে রাখা ও ঘোরবর্ণ এগুলো একটাও আর্য নারীর বর্ণনা নয়" এটা তো ঠিকই। মূলতঃ।
Avatar: rabaahuta

Re: দুর্গা, নিওলিথিক উত্তরাধিকার

মদ খেয়ে বেশীরভাগ লোক মুচকি, খিলখিল, ক্লিষ্ট, আমন্ত্রনমূলক, বুঝভুম্বুল, মোনালিসা এইসব হাসি হেসে থাকেন। অট্টহাসিটা রেয়ার।
Avatar: ...

Re: দুর্গা, নিওলিথিক উত্তরাধিকার

একটা প্রশ্ন, মদ খেয়ে টলোমলো অবস্থায় যুদ্ধ করলেন কিভাবে? একটা মার ও তো ঠিক জায়গায় পড়বে না!
Avatar: avi

Re: দুর্গা, নিওলিথিক উত্তরাধিকার

হুঁ, ওটা সিগনেচার সিদ্ধি।
Avatar: রৌহিন

Re: দুর্গা, নিওলিথিক উত্তরাধিকার

পড়বে পড়বে। রাজপুতেরাও মদ খেয়ে (নিন্দুকেরা বলে আফিম) যুদ্ধে যেত। ওতে ব্রাভাডো বাড়ে - কারণ বুদ্ধিশুদ্ধি লোপ পায়। স্ট্র্যাটেজিক যুদ্ধে হার নিশ্চিত - কিন্তু যাকে বলে "ঝাড়পিট" - তাতে টনিক হিসাবে কাজ করে।
Avatar: রৌহিন

Re: দুর্গা, নিওলিথিক উত্তরাধিকার

একক এবং স্বর্ণেন্দুর সাথে একটা ব্যপারে ভীষণ একমত - মহিষাসুর = অসুর বংশীয়দের আদিপুরুষ - এই মিথকে মেনে নিলে আর কিছুতেই আর্কিওলজিকালি বৈদিক দেবদেবীদের অস্তিত্বকে চ্যালেঞ্জ করা যাবে না। রাজনৈতিক স্বার্থে সেই অধিকার হারাতে আমি রাজি নই।
Avatar: Arpan

Re: দুর্গা, নিওলিথিক উত্তরাধিকার

যাস্লা, মদ খেলেই টলোমলো অবস্থা হবে কেন? পরিমিত মদ খাবার পরে তো নার্ভ টানটান হয়, কাজে ফোকাস বাড়ে। একটা থ্রেশোল্ড অব্দি।

তারপরেও খাওয়া কন্টিনিউ করা যায়, ভয়ভীতি জয় করতে গেলে। যেমনটি রৌহিন কইলেন।
Avatar: Ekak

Re: দুর্গা, নিওলিথিক উত্তরাধিকার

না , সিদ্ধি নয় মনে হয় । মধু থেকে তৈরী ওয়াইন অর্থাৎ মাধ্বীর প্রচলন ছিল । সোমরস মেয়েরা খেতেন এমন পাইনি কোথাও । ডিডি দা পেয়েছেন ?

সোমরস অবশ্য শুকনো নেশা বলা যায় অর্থাৎ লিকার নয় । এফিড্রিনের নেশা বেসিক্যালি । ওই এফিড্রিন খেয়েই হ্যালু হয়ে বেদ ফেদ লেখা :)
Avatar: avi

Re: দুর্গা, নিওলিথিক উত্তরাধিকার

সিদ্ধি ওই অট্টহাসি প্রসঙ্গে।
Avatar: dd

Re: দুর্গা, নিওলিথিক উত্তরাধিকার

খামোখা এতো মদ ঢালছেন কেনো এই টইতে?

সীতা খেতেন মৈরেয় মদ। আর মহাভারতে একাধিকবার উল্লেখ হয়েছে মহারথীরা যুদ্ধের মাঝেই কিরাত দেশীয় (নর্থ ইস্টের) মদ খেয়ে বিহ্বল হয়ে আবার যুদ্ধ করতেন। ওনাদের ঘোড়াদেরও দেওয়া হত।

নট মাধ্বী (Mead)।
Avatar: Soumyadeep Bandyopadhyay

Re: দুর্গা, নিওলিথিক উত্তরাধিকার

এই নিয়ে এক্তা আলোচোনা কোরেচিলম গুরু পেজে ।
Avatar: dc

Re: দুর্গা, নিওলিথিক উত্তরাধিকার

ডিডিদা এই কিরাত দেশীয় মদ কিভাবে বানানো হতো? রেসিপি টেসিপি কিছু আছে?

মন্তব্যের পাতাগুলিঃ [1] [2] [3] [4] [5] [6]   এই পাতায় আছে 41 -- 60


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন