Dipankar Basu RSS feed

Dipankar Basuএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা... বাংলাদেশের রাজনীতির গতিপথ পরিবর্তন হওয়ার দিন
    বিএনপি এখন অস্তিত্ব সংকটে আছে। কিন্তু কয়েক বছর আগেও পরিস্থিতি এমন ছিল না। ক্ষমতার তাপে মাথা নষ্ট হয়ে গিয়েছিল দলটার। ফলাফল ২০০৪ সালের ২১ আগস্টে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী শেখ হাসিনাকে গ্রেনেড মেরে হত্যার চেষ্টা। বিরোধীদলের নেত্রীকে হত্যার চেষ্টা করলেই ...
  • তোমার বাড়ি
    তোমার বাড়ি মেঘের কাছে, তোমার গ্রামে বরফ আজো?আজ, সীমান্তবর্তী শহর, শুধুই বেয়নেটে সাজো।সারাটা দিন বুটের টহল, সারাটা দিন বন্দী ঘরে।সমস্ত রাত দুয়ারগুলি অবিরত ভাঙলো ঝড়ে।জেনেছো আজ, কেউ আসেনি: তোমার জন্য পরিত্রাতা।তোমার নমাজ হয় না আদায়, তোমার চোখে পেলেট ...
  • বার্সিলোনা - পর্ব ২
    বার্সিলোনা আসলে স্পেনের শহর হয়েও স্পেনের না। উত্তর পুর্ব স্পেনের যেখানে বার্সিলোনা, সেই অঞ্চল কে বলা হয় ক্যাটালোনিয়া। স্বাধীনদেশ না হয়েও স্বশাসিত প্রদেশ। যেমন কানাডায় কিউবেক। পৃথিবীর প্রায় সব দেশেই মনে হয় এরকম একটা জায়গা থাকে, দেশি হয়েও দেশি না। ...
  • বার্সিলোনা - পর্ব ১
    ঠিক করেছিলাম আট-নয়দিন স্পেন বেড়াতে গেলে, বার্সিলোনাতেই থাকব। বেড়ানোর সময়টুকুর মধ্যে খুব দৌড় ঝাঁপ, এক দিনে একটা শহর দেখে বা একটা গন্তব্যের দেখার জায়গা ফর্দ মিলিয়ে শেষ করে আবার মাল পত্তর নিয়ে পরবর্তী গন্তব্যের দিকে ভোর রাতে রওনা হওয়া, আর এই করে ১০ দিনে ৮ ...
  • লাল ঝুঁটি কাকাতুয়া
    -'একটা ছিল লাল ঝুঁটি কাকাতুয়া।আর ছিল একটা নীল ঝুঁটি মামাতুয়া।'-'এরা কারা?' মেয়েটা সঙ্গে সঙ্গে চোখ বড়ো করে অদ্ভুত লোকটাকে জিজ্ঞেস করে।-'আসলে কাকাতুয়া আর মামাতুয়া এক জনই। ওর আসল নাম তুয়া। কাকা-ও তুয়া বলে ডাকে, মামা-ও ডাকে তুয়া।'শুনেই মেয়েটা ফিক করে হেসে ...
  • স্টার্ট-আপ সম্বন্ধে দুচার কথা যা আমি জানি
    স্টার্ট-আপ সম্বন্ধে দুচার কথা যা আমি জানি। আমি স্টার্ট-আপ কোম্পানিতে কাজ করছি ১৯৯৮ সাল থেকে। সিলিকন ভ্যালিতে। সময়ের একটা আন্দাজ দিতে বলি - গুগুল তখনও শুধু সিলিকন ভ্যালির আনাচে-কানাচে, ফেসবুকের নামগন্ধ নেই, ইয়াহুর বয়েস বছর চারেক, অ্যামাজনেরও বেশি দিন হয়নি। ...
  • মৃণাল সেন : এক উপেক্ষিত চলচ্চিত্রকার
    [আজ বের্টোল্ট ব্রেশট-এর মৃত্যুদিন। ভারতীয় চলচ্চিত্রে যিনি সার্থকভাবে প্রয়োগ করেছিলেন ব্রেশটিয় আঙ্গিক, সেই মৃণাল সেনকে নিয়ে একটি সামান্য লেখা।]ভারতীয় চলচ্চিত্রের ইতিহাসে কীভাবে যেন পরিচালক ত্রয়ী সত্যজিৎ-ঋত্বিক-মৃণাল এক বিন্দুতে এসে মিলিত হন। ১৯৫৫-তে মুক্তি ...
  • দময়ন্তীর সিজনস অব বিট্রেয়াল পড়ে
    পড়লাম সিজনস অব বিট্রেয়াল গুরুচন্ডা৯'র বই দময়ন্তীর সিজনস অব বিট্রেয়াল। বইটার সঙ্গে যেন তীব্র সমানুভবে জড়িয়ে গেলাম। প্রাককথনে প্রথম বাক্যেই লেখক বলেছেন বাঙাল বাড়ির দ্বিতীয় প্রজন্মের মেয়ে হিসেবে পার্টিশন শব্দটির সঙ্গে পরিচিতি জন্মাবধি। দেশভাগ কেতাবি ...
  • দুটি পাড়া, একটি বাড়ি
    পাশাপাশি দুই পাড়া - ভ-পাড়া আর প-পাড়া। জন্মলগ্ন থেকেই তাদের মধ্যে তুমুল টক্কর। দুই পাড়ার সীমানায় একখানি সাতমহলা বাহারী বাড়ি। তাতে ক-পরিবারের বাস। এরা সম্ভ্রান্ত, উচ্চশিক্ষিত। দুই পাড়ার সাথেই এদের মুখ মিষ্টি, কিন্তু নিজেদের এরা কোনো পাড়ারই অংশ মনে করে না। ...
  • পরিচিতির রাজনীতি: সন্তোষ রাণার কাছে যা শিখেছি
    দিলীপ ঘোষযখন স্কুলের গণ্ডি ছাড়াচ্ছি, সন্তোষ রাণা তখন বেশ শিহরণ জাগানাে নাম। গত ষাটের দশকের শেষার্ধ। সংবাদপত্র, সাময়িক পত্রিকা, রেডিও জুড়ে নকশালবাড়ির আন্দোলনের নানা নাম ছড়িয়ে পড়ছে আমাদের মধ্যে। বুঝি না বুঝি, পকেটে রেড বুক নিয়ে ঘােরাঘুরি ফ্যাশন হয়ে ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

দীপঙ্কর বসু

Dipankar Basu

এক একটি গান হঠাৎ করে কেমন জানি পেয়ে বসে আমাকে । গানের শ্রোতাই বল , আর গাইয়ে বাজিয়েই বল,কম বেশি সবার ই এমনটা হয় মাঝে মাঝেই । ঘুরি ফিরি –সারাদিন সেই গান মনের মধ্যে একটানা বেজেই চলে । অনেক সময়ে দীর্ঘ দিন ধরে মগজে সে গানের কথাগুলি ,সুরের নানান বাঁক চোর হাতছানি দিয়ে ডাকতে থাকে কোন এক অজানা রহস্য লোকের পানে । যেমন ,এখনি একটি গানের কথা মনে পড়ছে - “এই আকাশে আমার মুক্তি আলোয় আলোয়” – কিশোর বয়সে গানটি আমাকে যে কি গভীর ভাবে প্রভাবিত করেছিল সেই স্মৃতি আজও অম্লান হয়ে আছে । গানটির অর্থ বোঝার বয়স সেটা ছিলনা ,এমনকি সুরের কারিকুরি , অথবা অলঙ্করণের কোন বৈশিষ্ট সচেতনভাবে চিহ্নিত করে উঠতে পারার ক্ষমতাও ছিল অনায়ত্ব । তবু –
“দেহ মনের সুদূর পারে হারিয়ে ফেলি আপনারে
গানের সুরে আমার মুক্তি উর্দ্ধে ভাসে”
গানের অন্তরার এই অংশটি যেন কোন যাদু মন্ত্রে এক অজানা মুক্তির আস্বাদ এনে দিত – আমাকে নিয়ে গিয়ে দাঁড় করিয়ে দিত এক বিশালত্বের সামনে । কথাটা একটু বাড়াবাড়ি রকমের শোনালো কি ? একটি এগারো কি বারো বছর বয়সী বালকের কাছে “বন্ধন” , “মুক্তি” ইত্যাদি শব্দগুলোর কি কোন বিশেষ তাৎপর্য থাকে ? আরো কয়েক বছর পরে স্কুলে একটু উঁচু ক্লাসে পড়েছি - ”অসংখ্য বন্ধন মাঝে লভিব মুক্তির স্বাদ” মানে বই মুখস্থ করে পরীক্ষার খাতায় লাইনটার ব্যখ্যা লিখেছি বটে ,কিন্তু সত্যিই কি সেই ব্যখ্যা লাইনটির কোনও ব্যঞ্জনা আমার হৃদয়তন্ত্রীতে সাড়া জাগিয়েছিল ? উত্তরটা খুবই সোজা – জাগায়নি । কিন্তু গানের সুরে সেই মুক্তির একটা অস্ফুট আনন্দরূপ অমোঘভাবে প্রতিধ্বণি জাগিয়ে তুলত আমার সেই এগারো বারো বছর বয়েসেই ।
আবার , সঞ্চারীতে – “ দুঃখ বিপদ তুচ্ছ করা কঠিন কাজে” পঙক্তিটি সুরে উচ্চারণের মধ্যদিয়ে যেরোমাঞ্চ জাগত ,তাও ভোলার নয় । তার ষড়জ থেকে ধাপে ধাপে মধ্য সপ্তকের মধ্যম স্বরে নেমে আসা এবং সেই একই স্বরে তেওড়া তালের সাত মাত্রা স্থিত হওয়ার মধ্যে যে শুধু সুরের নাটকীয়তাই প্রকাশ পেয়েছে তাই নয় ,সুরের ওই সাতমাত্রাকালব্যপী মধ্যম স্বরে স্থিতি জাগতিক সুখ দুঃখ, আপদ বিপদকে জয় করবার দৃঢ সঙ্কল্প বুঝি বা নিকষকালো অন্ধকারের মধ্যে স্থির অচঞ্চল দীপশিখার ছবি হয়ে ধরা দিয়েছে মানসচক্ষে । অণৃতভাষনের দায় এড়াতে বলে রাখা ভাল যে সে বয়সে নিছক অনভিজ্ঞতার কারণেই রবীন্দ্রগানের বাণীর এই চিত্রে রূপান্তরের রহস্য স্পষ্টভাবে ধরা দেয়নি । তবে সেদিনের সেই রোমাঞ্চ ,সেই নিবিড় আনন্দ-অনুভুতি যে মিথ্যা ছিলনা ,সে কথা প্রত্যয়ের সঙ্গে উচ্চারণ করতে আমার দ্বিধা নেই । বস্তুত জীবনের অনেকগুলি বছর রবীন্দ্র গানের নিবিড় সান্নিধ্যে বসবাস করার ফাঁকে কখন জানিনা অতি সঙ্গোপনে এ গানের বানী-ব্যঞ্জনা সুরের পাখায় ভর করে আমার চেতনার ঘাটে এসে পৌঁছেছিল। তারই আলোতে রবীন্দ্রনাথের গীতিকবিতার সঙ্গে আমার পরিচয় । তাই খুব অবাক হই ,কিছুটা বেদনা বোধ ও জাগে যখন কেউ নিছক শ্রুতিসুখের খাতিরে বা বাণিজ্যিক সাফল্যের মুখচেয়ে অথবা শতাব্দী প্রাচীন রবীন্দ্র গানকে আধুনিক যুগের শ্রোতাদের কাছে জনপ্রিয় করে তোলার মহান ব্রতে ব্রতী হয়ে রবীন্দ্রগানের সুর নিয়ে পরীক্ষানিরীক্ষায় মাতেন ।



325 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: মনোজ ভট্টাচার্য

Re: দীপঙ্কর বসু

দীপঙ্করবাবু,

'এই আকাশে আমার মুক্তি আলোয় আলোয়' গানটা আমাদের বাড়ি থেকে বার করে নিয়ে গেছিল লালগোলা এক্সপ্রেসে করে সোজা মুর্শিদাবাদের - ধুলিয়ান বলে এক যায়গায় ! সে অনেকদিন আগে !

ওরে মুক্তি কোথায় আছে ! সে তো মুক্তি নয় - আর এক বন্ধন সংসারের প্যাঁচে ! গানের ব্যাকরন জানিনা । কিন্তু এটুকু বুঝেছি - এই গানের সুরে এমন একটা আবেদন আছে - যাতে সংসারে থাকা এক অসহায় অবস্থা !

আপনার লেখার মধ্যে তাই খুঁজছি - সেই মুক্তি - আকাশে নয় ! জীবনে !

মনোজ
Avatar: ranjan roy

Re: দীপঙ্কর বসু

বাসুদা,
ভালো লাগল। কোলকাতায় ফিরে আড্ডা দেব। গান শুনব, সোনারপুরে যাব।
Avatar: π

Re: দীপঙ্কর বসু

'“দেহ মনের সুদূর পারে হারিয়ে ফেলি আপনারে
গানের সুরে আমার মুক্তি উর্দ্ধে ভাসে”
গানের অন্তরার এই অংশটি যেন কোন যাদু মন্ত্রে এক অজানা মুক্তির আস্বাদ এনে দিত – আমাকে নিয়ে গিয়ে দাঁড় করিয়ে দিত এক বিশালত্বের সামনে । কথাটা একটু বাড়াবাড়ি রকমের শোনালো কি ?'

নাঃ, একেবারেই বাড়াবাড়ি শোনালো না ! মুক্তি, বন্ধন এসব কি জানার আগেও বোঝা বোধহয় হয়েই যায়। আর গানের থেকে বেশি আর কিছু দিয়ে বোঝা যায়না।
এই লেখার সাথে খুব রিলেট করতে পারলাম, চিত্রকল্প আর অনুভূতিগুলো একেবারে একরকম না হলেও।
Avatar: b

Re: দীপঙ্কর বসু

তুললাম।



আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন