পিনাকী মিত্র RSS feed
পিনাকী মিত্রর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • দক্ষিণের কড়চা
    গরু বাগদির মর্মরহস্য➡️মাঝে কেবল একটি একক বাঁশের সাঁকো। তার দোসর আরেকটি ধরার বাঁশ লম্বালম্বি। সাঁকোর নিচে অতিদূর জ্বরের মতো পাতলা একটি খাল নিজের গায়ে কচুরিপানার চাদর জড়িয়ে রুগ্ন বহুকাল। খালটি জলনিকাশির। ঘোর বর্ষায় ফুলে ফেঁপে ওঠে পচা লাশের মতো। যেহেতু এই ...
  • বাংলায় এনআরসি ?
    বাংলায় শেষমেস এনআরসি হবে, না হবে না, জানি না। তবে গ্রামের সাধারণ নিরক্ষর মানুষের মনে তীব্র আতঙ্ক ছড়িয়েছে। আজ ব্লক অফিসে গেছিলাম। দেখে তাজ্জব! এত এত মানু্ষের রেশন কার্ডে ভুল! কয়েকজনের সাথে কথা বলে জানলাম প্রায় সবার ভোটারেও ভুল। সব আইকার্ড নির্ভুল আছে এমন ...
  • যান্ত্রিক বিপিন
    (১)বিপিন বাবু সোদপুর থেকে ডি এন ৪৬ ধরবেন। প্রতিদিন’ই ধরেন। গত তিন-চার বছর ধরে এটাই বিপিন’বাবুর অফিস যাওয়ার রুট। হিতাচি এসি কোম্পানীর সিনিয়র টেকনিশিয়ন, বয়েস আটান্ন। এত বেশী বয়েসে বাড়ি বাড়ি ঘুরে এসি সার্ভিসিং করা, ইন্সটল করা একটু চাপ।ভুল বললাম, অনেকটাই চাপ। ...
  • কাইট রানার ও তার বাপের গল্প
    গত তিন বছর ধরে ছেলের খুব ঘুড়ি ওড়ানোর শখ। গত দুবার আমাকে দিয়ে ঘুড়ি লাটাই কিনিয়েছে কিন্তু ওড়াতে পারেনা - কায়দা করার আগেই ঘুড়ি ছিঁড়ে যায়। গত বছর আমাকে নিয়ে ছাদে গেছিল কিন্তু এই ব্যপারে আমিও তথৈবচ - ছোটবেলায় মাথায় ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছিল ঘুড়ি ওড়ানো "বদ ছেলে" দের ...
  • কুচু-মনা উপাখ্যান
    ১৯৮৩ সনের মাঝামাঝি অকস্মাৎ আমাদের বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ(ক) শ্রেণী দুই দলে বিভক্ত হইয়া গেল।এতদিন ক্লাসে নিরঙ্কুশ তথা একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তার করিয়া ছিল কুচু। কুচুর ভাল নাম কচ কুমার অধিকারী। সে ক্লাসে স্বীয় মহিমায় প্রভূত জনপ্রিয়তা অর্জন করিয়াছিল। একটি গান অবিকল ...
  • 'আইনি পথে' অর্জিত অধিকার হরণ
    ফ্যাসিস্ট শাসন কায়েম ও কর্পোরেট পুঁজির স্বার্থে, দীর্ঘসংগ্রামে অর্জিত অধিকার সমূহকে মোদী সরকার হরণ করছে— আলোচনা করলেন রতন গায়েন। দেশে নয়া উদারবাদী অর্থনীতি লাগু হওয়ার পর থেকেই দক্ষিণপন্থার সুদিন সূচিত হয়েছে। তথাপি ১৯৯০-২০১৪-র মধ্যবর্তী সময়ে ...
  • সম্পাদকীয়-- অর্থনৈতিক সংকটের স্বরূপ
    মোদীর সিংহগর্জন আর অর্থনৈতিক সংকটের তীব্রতাকে চাপা দিয়ে রাখতে পারছে না। অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন শেষ পর্যন্ত স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছেন যে ভারতের অর্থনীতি সংকটের সম্মুখীন হয়েছে। সংকট কতটা গভীর সেটা তার স্বীকারোক্তিতে ধরা পড়েনি। ধরা পড়েনি এই নির্মম ...
  • কাশ্মীরি পন্ডিত বিতাড়নঃ মিথ, ইতিহাস ও রাজনীতি
    কাশ্মীরে ডোগরা রাজত্ব প্রতিষ্ঠিত হবার পর তাদের আত্মীয় পরিজনেরা কাশ্মীর উপত্যকায় বসতি শুরু করে। কাশ্মীরি ব্রাহ্মণ সম্প্রদায়ের মানুষেরাও ছিলেন। এরা শিক্ষিত উচ্চ মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত শ্রেনি। দেশভাগের পরেও এদের ছেলেমেয়েরা স্কুল কলেজে পড়াশোনা করেছে। অন্যদিকে ...
  • নিকানো উঠোনে ঝরে রোদ
    "তেরশত নদী শুধায় আমাকে, কোথা থেকে তুমি এলে ?আমি তো এসেছি চর্যাপদের অক্ষরগুলো থেকে ..."সেই অক্ষরগুলোকে ধরার আরেকটা অক্ষম চেষ্টা, আমার নতুন লেখায় ... এক বন্ধু অনেকদিন আগে বলেছিলো, 'আঙ্গুলের গভীর বন্দর থেকে যে নৌকোগুলো ছাড়ে সেগুলো ঠিক-ই গন্তব্যে পৌঁছে যায়' ...
  • খানাকুল - ২
    [এর আগে - https://www.guruchan...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

চা বাগানের হালহকিকৎ নিয়ে একটা লেখা

পিনাকী মিত্র

প্রথমেই ডিসক্লেমার দিয়ে নিই, কারণ এটা যদিও আমার ব্লগে তুলছি, কিন্তু লেখাটা আমার নয়। আমার বন্ধু, চা বাগানের অ্যাকটিভিস্ট, শমীক চক্রবর্তীর। ওর ফেসবুক ওয়াল থেকে ওর অনুমতিসহ লেখাটা হুবহু তুলে দিচ্ছি, কারণ আমার মনে হয় লেখাটা চা বাগানের এখনকার সমস্যাকে বোঝার জন্য খুব জরুরী একটা লেখা। আমি নিজে এর আগে কখনো ব্লগে লিখিনি, তাই এইভাবে অন্যের লেখা তুলে দেওয়াটা ব্লগ-সংস্কৃতির সঙ্গে হয়তো ঠিক যায় না, কিন্তু বিষয়টার গুরুত্বের কারণে সে নিয়ে বেশী ভাবলাম না।

**********************************************************


"অ্যালকেমিস্ট কথাটা এসেছে প্রাচীন যুগের অ্যালকেমি থেকে, যার মানে ‘ধাতুকে বদলে দেওয়ার কৌশল’। নানা ধাতুকে পাল্টে সোনা বানিয়ে দেওয়ার স্বপ্ন দেখিয়েছিল তারা। আর আমরা নতুন করে যে ‘অ্যালকেমিস্ট’কে চিনলাম, তারা দশ হাজার কোটির একটা কোম্পানি, নানা ব্যবসার সাথে তাদের হাতে রয়েছে দার্জিলিং পাহাড়ের চা বাগানও। আগে নাম ছিল টুব্রো, এখন অ্যালকেমিস্ট। চিটফান্ড নিয়ে হইচইয়ের বাজারে এদেরও নাম ভেসে বেড়াচ্ছিল। মালিকের নাম কে ডি সিং। তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্যসভার সাংসদ।
দশ-বারো বছর ধরে পশ্চিমবঙ্গে তিনটে চা বাগান রয়েছে অ্যালকেমিস্ট গ্রুপের হাতে। একটা পেশক চা বাগান— তিস্তাবাজারের কাছে। আর বাকি দুটো সোনাদা পেরিয়ে রঙবুল থেকে পাহাড়ের ঢাল বেয়ে নীচে, প্রথমে কলেজভেলি, তারপর বালাসন নদীর এপার-ওপার মিলিয়ে ধোত্রে চা বাগান। মোট তিনটে চা বাগানের ২০৭৫ হেক্টর জুড়ে ছড়ানো ৭ টা ডিভিশনে স্থায়ী শ্রমিকের সংখ্যা ২৫৪৪। তাছাড়া আরও হাজার তিনেক ঠিকা শ্রমিক কাজ করতেন এই বাগানগুলিতে।
বাগানগুলো খোলা। কিন্তু অস্থায়ী শ্রমিক তো ছেড়েই দিন, স্থায়ী শ্রমিকদের সিংহভাগও কাজ করছেন না এখন। বেতন পাচ্ছেন না শ্রমিকরা। পাচ্ছেন না বেতনের অংশ হিসেবে প্রাপ্য আরও নানা দ্রব্যাদি ও সুযোগসুবিধা। গত বছর শারদোত্সবের সময় থেকে বোনাস নিয়ে টালবাহানা শুরু হয়েছিল, তা বাড়তে বাড়তে এখন সমস্যা শিখরে এসে পৌঁছেছে। শ্রমিক-কর্মচারীদের প্রাপ্য আর্থিক বকেয়ার পরিমাণ ১।৭২ কোটি টাকা, যার সাথে ওষুধের বিল, জ্বালানী কাঠের পয়সা, ছাতা, চপ্পল ইত্যাদি এবং অবসরপ্রাপ্তদের গ্র্যাচুইটির বকেয়া হিসেব ধরলে পরিমাণটা ৫ কোটিতে পৌঁছবে। কয়েক মাস আগে অব্দি ছিটেফোঁটা যা-ও বা টাকাপয়সা পাচ্ছিলেন শ্রমিকরা, বিগত দুই মাস সেসবও বন্ধ।
পাতা তুলতে যাচ্ছেন শ্রমিকরা, তবে সংখ্যায় খুব কম। ২৫-৩০ শতাংশ। অনেকেই রাস্তার কাজ, ১০০ দিনের কাজ, নদীতে পাথর ভাঙ্গার কাজ করে বা আরও নানাভাবে সংসার চালাচ্ছেন। দূরদেশে পাড়িও দিয়েছেন অনেকে।
সরকারের শ্রম দপ্তরের ডাকা ত্রিপাক্ষিক মিটিংগুলোতে দুই দফায় সমস্ত বকেয়া পরিশোধের সময়সীমা দু’-দুবার নির্ধারিত হওয়া সত্ত্বেও মালিকপক্ষ সেসব পূরণ করেনি এবং ইদানিং মিটিংয়ে আসা বা শ্রম দপ্তরের আধিকারিকদের ফোন ধরাও বন্ধ করে দিয়েছে। শ্রমিকরা জানেন না কোথায় গেলে সুরাহা হবে, আশ্চর্য যে শ্রম দপ্তরের আধিকারিকরাও তা’ জানেন না বলে শ্রমিকদের জানিয়ে দিয়েছেন!
শ্রমিকরা বিধানসভা নির্বাচনের আগে ভোট বয়কটের ডাক দিয়েছিলেন, সেই সময় বকেয়া পাওয়ার কিছু প্রতিশ্রুতি আদায় করেছিলেন তাঁরা, তারপর নানা মহল থেকে চাপ আসায় ভোট বয়কট থেকে সরে আসতে হয়। এবং বকেয়া পাননি। নির্বাচনী রাজনীতির সমীকরণে যা-ই মেরুকরণ হোক, শ্রমিক ইউনিয়নগুলোর ওপরমহলে যেমনই বিন্যাস থাকুক, বাগানস্তরে শ্রমিকরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে সমস্ত ইউনিয়ন সংযুক্তভাবে গড়ে তুলেছেন জয়েন্ট অ্যাকশন কমিটি। আন্দোলনের নানা কর্মসূচী চলছে অবিরাম আর চলছে শ্রমিকদের দিশাহীন দৌড়— কোথায় গেলে সমাধান হবে সেই পরশপাথরের খোঁজে!
অ্যালকেমিস্ট গ্রুপের চা বাগানগুলো থেকে অর্থোডক্স টি ও চায়না টি ধরণের চা পাতা জার্মানী, অস্ট্রিয়া, সিঙ্গাপুর, সৌদি আরব ও আমেরিকায় রপ্তানি হয় বলে তাদের ওয়েবসাইটে রয়েছে। শীতকাল জুড়ে পাতা তোলা বন্ধ থাকার পর প্রথম যে চা পাতা ওঠে, মার্চ থেকে মে মাস পর্যন্ত, সেই ফার্স্ট ফ্লাশের চা পাতার দাম আন্তর্জাতিক বাজারে সব থেকে বেশি। তারপর ১৫-২০ দিন পরে শুরু হয় সেকেন্ড ফ্লাশের পাতা তোলা। শ্রমিকরা ভাবছেন, ফার্স্ট ফ্লাশ তো গেছে, কম শ্রমিক এবং যত্নের অভাব ও কম বৃষ্টির ফলে পাতা কম উঠেছে। কিন্তু সেকেন্ড ফ্লাশে নিশ্চয়ই মনোযোগ দেবে মালিক! কিন্তু কই, তারও তো কোনও নামগন্ধ নেই।
চা শিল্প লোকসানে চলছে বলে মালিকরা যতই হল্লা করুন, বাস্তবতা সেটা নয়। ২৭৭ টা চা বাগানের মধ্যে হাতেগোনা কিছু বাগানই বন্ধ আছে। কিছু বাগান আবার ফিবছর বন্ধ হয় শীতের সময়ে, কেননা তখন পাতা থাকে না বলে মালিকদের অনেকে সেইসময়ের খরচা বাঁচিয়ে আরও মুনাফা খোঁজে। অন্যদিকে চলতে থাকে শ্রমিকদের প্রাপ্যগুলো না দেওয়া এবং বাগান রক্ষণাবেক্ষণ নিয়ে চূড়ান্ত অবহেলা। অ্যালকেমিস্টের বাগানগুলো তার স্পষ্ট প্রমাণ নিয়ে আবার হাজির হল। গত বছর জুড়ে ডানকান-গোয়েঙ্কার বাগানগুলোর ক্ষেত্রেও আমরা তাই দেখেছি। দীর্ঘদিন ধরে সেগুলোতে অরাজকতা চালানোর পর গত বছরের এপ্রিল থেকে মালিকরা শ্রমিকদের পাওনাগন্ডা বন্ধ করে দেয়, বাগানগুলো ছেড়ে চলে যায় ম্যানেজাররা, কোনও লক আউটের নোটিস ছাড়াই! তারও অনেক পরে, শ্রমিকদের ঘাম-রক্তের সঙ্গে তিস্তা-তোর্সা-লিস-ঘিস দিয়ে অনেক জল গড়িয়ে যাওয়ার পর সরকার-প্রশাসন-বিচারব্যবস্থার একটুআধটু নড়াচড়া শুরু হয়। এখন কয়েকটা বাগান খুলেছে, যদিও তার বেশিরভাগে ফ্যাক্টরি খোলেনি, পাওনাগন্ডা নিয়ে টালবাহানা চলছে, আর সাতখানা তো এখনও বন্ধই। কেন্দ্রীয় সরকারের অধিগ্রহণ, হাইকোর্টের কেসকাছারি, সরকারের উদাসীনতা, বাগান খোলার নিভু নিভু আশা, বিনা চিকিত্সায় মৃত্যু, শিশুদের পড়াশোনা নিয়ে টেনশন, পানীয় জলের হাহাকার, রেশনবন্টন নিয়ে চূড়ান্ত অব্যবস্থা, কাঁচা পাতা তোলা নিয়ে অরাজকতা আর অন্যদিকে আশা যে ভোটের পরে কিছু একটা নিশ্চয়ই হবে— এই নিয়ে বেঁচে আছে ডুয়ার্সের তথাকথিত ‘ডানকান নগরী’র সাতটা চা বাগানের বাসিন্দারা।
আমরা অ্যালকেমিস্টের বাগানগুলো নিয়ে কথা বলছিলাম। ডানকানের বাগানগুলোর কথা চলে এলো মাঝখানে। কেন? বাগান বন্ধও নয়, অথচ শ্রমিকদের বেতন ও প্রাপ্য বন্ধ— এরকম খোলা-বন্ধের মাঝামাঝি মডেলটা যদি ডানকান থেকে শুরু করে অ্যালকেমিস্ট।।। এবং আরও অনেক মালিকরা মুনাফার উপায় হিসেবে নিতে শুরু করে, তাহলে তো সমূহ বিপদ! শ্রমিকরা না পাচ্ছেন বাগানের মজুরি ও সুযোগসুবিধা, না বন্ধ বাগানের জন্য বরাদ্দ ‘ফাউলাই’ ভাতা!
অ্যালকেমিস্ট-এর বাগানগুলোর ব্যাপারে প্রাথমিক পর্যবেক্ষণ থেকে উঠে আসছে যে— সমস্ত বাগানেই পুরনো গাছের (৫০ বছর হয়ে গেলে উত্পাদনশীলতা কমে যায়) সংখ্যা বেশি, সেগুলো তুলে ফেলে নতুন গাছ লাগানো, বাগানের শূন্যস্থানগুলো ভরানো, যথাযথ কীটনাশকের প্রয়োগ, জলসিঞ্চনের ব্যবস্থা— এই সবেরই করুণ অবস্থা। মোট ২০৭৫ হেক্টর জমির মধ্যে প্ল্যান্টেশন এরিয়া ৯৯৫।২৩ হেক্টর। আপরুটিং ও রিপ্ল্যান্টেশন হয়েছে ২০।৪৫ হেক্টরে, ইনফিলিং হয়েছে ২।২৭ হেক্টরে, ইরিগেশন ১৮০।০৭ হেক্টরে, ড্রেনেজ ব্যবস্থা আছে ১৫০ হেক্টরে। ফলে উত্পাদনশীলতার গড় নিতান্তই কম। পাহাড়ে গড় উত্পাদনশীলতা ৫০০ কেজি/হেক্টর হওয়ার কথা। কলেজভ্যালিতে ৫৪০ কেজি/হেক্টর হলেও ধোত্রেতে মাত্র ৪০৬ কেজি/হেক্টর, আর পেশকে তো আরও কম, ৩৩৫ কেজি/হেক্টর মাত্র। এই তথ্যগুলো তিন বছর আগের, সরকারী রিপোর্টেই প্রকাশিত। এর পরে অবস্থা আরও খারাপ হয়েছে।
ধোত্রে বা কলেজভ্যালির বাগানের শ্রমিকরা কোনওকালে বাগান চলায় এরকম নিদারুণ খারাপ অবস্থা এসেছিল বলে মনে করতে পারেন না। কিন্তু উপরের পরিসংখ্যানের মধ্যে লুকিয়ে আছে আজকের পরিণতির গোপন রসায়ন। পেশক বাগান অবশ্য প্রায় এক দশক আগে পর্যন্ত দীর্ঘ ১২ বছর বন্ধ ছিল। সেসময় বাগানের ফ্যাক্টরি, হাসপাতাল, গোডাউন— সব নিঃশেষ হয়ে যায়। এখন এখান থেকে সংগৃহীত পাতা যায় বহু রাস্তা পেরিয়ে ধোত্রে বাগানের তুমসুঙের ফ্যাক্টরিতে। তিনটে বাগানের একটাই ফ্যাক্টরি চালু রয়েছে, বেশিরভাগ চা গাছ একশো বছরের পুরনো, কীটনাশক প্রয়োগ হয়নি অন্ততঃ তিন বছর— এভাবেই খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে অ্যালকেমিস্টের বাগানগুলো।
বাগানের লভ্যাংশ অন্য ব্যবসায় ‘সাইফনিং’ করে, বাগানের কুমিরছানা দেখিয়ে নানারকম লোন আদায় করে, অকশন মার্কেটকে পাশ কাটিয়ে অন্য নানাভাবে চা পাতা বিক্রির কারবার চালিয়ে বাগানের আয়ব্যয়ের হিসাবে গরমিল করে এক অভূতপূর্ব লুঠতরাজ চালাচ্ছে চা বাগানের মালিকরা। উদার অর্থনীতি এদেশে চালু হওয়ার পর চা বাগানগুলোতে হু হু করে বেড়েছে ফড়ে মালিকের সংখ্যা, যারা বাগান কিনে তারপর বাগান ছিবড়ে করে দিয়ে বেরিয়ে যাচ্ছে। আর অন্যদিকে চা বাগানের অসংগঠিত ক্ষেত্র হিসেবে দ্রুতগতিতে বেড়ে চলেছে নয়া বাগান ও বটলিফ কারখানার ব্যবস্থাপনা। চাষের জমি বদলে চা-বাগান আর বাইরে থেকে কেনা পাতা দিয়ে কারখানা চালিয়ে দায়হীন দেদার মুনাফার বন্দোবস্ত! ভারতের আভ্যন্তরীণ বাজারে চায়ের অভূতপূর্ব চাহিদা বৃদ্ধির ফলে এই মডেলেরই এখন জয়জয়কার।
অন্যদিকে পুরনো এস্টেট বাগানগুলোতে বেড়ে চলেছে ঠিকা শ্রমিকের সংখ্যা, কমছে বাগান রক্ষণাবেক্ষণ ও শ্রমিকখাতে ব্যয়। চা শিল্পের মত একটা সংগঠিত ক্ষেত্রে আজও চালু নেই ন্যুনতম বেতন! শ্রমিকদের প্রাপ্যের হিসেবে রেশন, চিকিত্সার সুবিধা, ছাতা, জুতো, কম্বল, জ্বালানী কাঠ, শিশুদের জন্য ক্রেশের সুবিধা দেওয়ার কথা থাকলেও, সেসব না দেওয়ার তালিকা দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হচ্ছে। সরকার চুপচাপ বসে দেখবে আইনের এই নিদারুণ লঙ্ঘন? শ্রমিকরা বিক্ষোভ দেখালে গেল গেল রব ওঠে, বাগানে কাজ করে পোষাচ্ছে না বলে শ্রমিকরা অন্য কাজের সন্ধানে বাইরে চলে গেলে ‘অ্যাবসেন্টিজম’-এর নিদারুণ সংকট চলছে বলে বুক চাপড়াতে থাকে মালিকরা— অথচ সরকার একটা যথাযথ মনিটরিং ব্যবস্থা, মালিকী আইনলঙ্ঘনে শাস্তির ব্যবস্থা করতে পারে না?
কোনও এক প্রাচীন যুগে চা শ্রমিকদের ‘চিয়াকো বোটমা সুন ফ্ল্ছ’ (চায়ের গাছে সোনা ফলে) বলে দলে দলে নিয়ে আসা হয়েছিল দূরদেশ থেকে। সোনা বানানোর কারবারী অ্যালকেমিস্টরা সোনা নিষ্কাশন করে নিয়েছে শ্রমিকদের রক্ত-ঘাম আর বাগানের সবুজ পাতা থেকে। বাগানে পড়ে থেকেছে বঞ্চনা, কান্না আর হাহাকার।"

317 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: দেবব্রত

Re: চা বাগানের হালহকিকৎ নিয়ে একটা লেখা

পশ্চিম বঙ্গের চা বাগান ঃ- খণ্ড চিত্র ঃ-
সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গের ২৭৩ টি চা বাগানের ওপর একটা সার্ভে হয়েছে ঃ- সারাংশ শুনুন ঃ- 1.1 মিলিয়নের অধিক মানুষ চা বাগান এলাকায় বাস করেন । ২০০২ সাল থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত ১০০০ এর ওপর অনাহারে , অপুষ্টিতে মারা গেছেন । চা বাগান এলাকায় গড় BMI 17.5। চূড়ান্ত অপুষ্টি ।
২০১৪ সাল পর্যন্ত শ্রমিকের মাইনে ছিল ৯৫/- প্রতি দিন । বর্তমানে কেঁদে ককিয়ে ১২২/- । ৮৭ টি চা বাগান প্লান্টেসান লেবার অ্যাক্টের রেজিস্ট্রেসান সার্টিফিকেট প্রডিউস করতে পারেনি । ৫ টা চা বাগান অবশ্য পালনীয় সার্টিফিকেট টি বোর্ডের রেজিস্ট্রেসান সার্টিফিকেট দেখাতে পারেনি । ১৮৫ টি চা বাগান ইন্ডাস্ট্রিয়াল এমপ্লয়মেন্ট অ্যাক্ট এর রেজিস্ট্রেসান সার্টিফিকেট প্রডিউস করতে পারেনি।
১৭৫ টি চা বাগানে লেবার ওয়েলফেয়ার অফিসার নেই ( ম্যান্ডেটারি ) । ২৪ টি চা বাগান ৬ বছর ধরে এক পয়সা পিএফ জমা করেনি । ৪১ টি চা বাগান ২০১০ থেকে পিএফ দেয়না । ৪৬ টি চা বাগানের Provident Fund on the part of workers’ contribution is Rs 17,14,02,978 বাকি । ৫৫ টি চা বাগানের Provdent Fund on the part of managements’ contribution is Rs 33,79,11,088. 22 বাকি । ৩৫ টি চা বাগান ৯৫/- টাকা মজুরী বৃদ্ধির সময়ের এরিয়ার আজ পর্যন্ত দেয়নি । এই সার্ভেটি করেছেন শ্রমদপ্তর কিন্তু কুটোটি নাড়েন নি । জমে থাকা বিক্ষোভের বাস্প বেরো করে দেওয়ার জন্য দুটাকা'র চাল ,১০০ দিনের কাজ ইত্যাদি ব্যবহৃত হচ্ছে । মালিক পিএফ মেরে পালাচ্ছেন এবং বিগত ও বর্তমান সরকার নাক ডেকে ঘুমাচ্ছেন যদি শিল্পবিরোধী ট্যাগ পরে যায় ?

Avatar: Robu

Re: চা বাগানের হালহকিকৎ নিয়ে একটা লেখা

ঃ-(


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন