Debabrata Chakrabarty RSS feed

Debabrata Chakrabartyএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • বার্সিলোনা - পর্ব ১
    ঠিক করেছিলাম আট-নয়দিন স্পেন বেড়াতে গেলে, বার্সিলোনাতেই থাকব। বেড়ানোর সময়টুকুর মধ্যে খুব দৌড় ঝাঁপ, এক দিনে একটা শহর দেখে বা একটা গন্তব্যের দেখার জায়গা ফর্দ মিলিয়ে শেষ করে আবার মাল পত্তর নিয়ে পরবর্তী গন্তব্যের দিকে ভোর রাতে রওনা হওয়া, আর এই করে ১০ দিনে ৮ ...
  • লাল ঝুঁটি কাকাতুয়া
    -'একটা ছিল লাল ঝুঁটি কাকাতুয়া।আর ছিল একটা নীল ঝুঁটি মামাতুয়া।'-'এরা কারা?' মেয়েটা সঙ্গে সঙ্গে চোখ বড়ো করে অদ্ভুত লোকটাকে জিজ্ঞেস করে।-'আসলে কাকাতুয়া আর মামাতুয়া এক জনই। ওর আসল নাম তুয়া। কাকা-ও তুয়া বলে ডাকে, মামা-ও ডাকে তুয়া।'শুনেই মেয়েটা ফিক করে হেসে ...
  • স্টার্ট-আপ সম্বন্ধে দুচার কথা যা আমি জানি
    স্টার্ট-আপ সম্বন্ধে দুচার কথা যা আমি জানি। আমি স্টার্ট-আপ কোম্পানিতে কাজ করছি ১৯৯৮ সাল থেকে। সিলিকন ভ্যালিতে। সময়ের একটা আন্দাজ দিতে বলি - গুগুল তখনও শুধু সিলিকন ভ্যালির আনাচে-কানাচে, ফেসবুকের নামগন্ধ নেই, ইয়াহুর বয়েস বছর চারেক, অ্যামাজনেরও বেশি দিন হয়নি। ...
  • মৃণাল সেন : এক উপেক্ষিত চলচ্চিত্রকার
    [আজ বের্টোল্ট ব্রেশট-এর মৃত্যুদিন। ভারতীয় চলচ্চিত্রে যিনি সার্থকভাবে প্রয়োগ করেছিলেন ব্রেশটিয় আঙ্গিক, সেই মৃণাল সেনকে নিয়ে একটি সামান্য লেখা।]ভারতীয় চলচ্চিত্রের ইতিহাসে কীভাবে যেন পরিচালক ত্রয়ী সত্যজিৎ-ঋত্বিক-মৃণাল এক বিন্দুতে এসে মিলিত হন। ১৯৫৫-তে মুক্তি ...
  • দময়ন্তীর সিজনস অব বিট্রেয়াল পড়ে
    পড়লাম সিজনস অব বিট্রেয়াল গুরুচন্ডা৯'র বই দময়ন্তীর সিজনস অব বিট্রেয়াল। বইটার সঙ্গে যেন তীব্র সমানুভবে জড়িয়ে গেলাম। প্রাককথনে প্রথম বাক্যেই লেখক বলেছেন বাঙাল বাড়ির দ্বিতীয় প্রজন্মের মেয়ে হিসেবে পার্টিশন শব্দটির সঙ্গে পরিচিতি জন্মাবধি। দেশভাগ কেতাবি ...
  • দুটি পাড়া, একটি বাড়ি
    পাশাপাশি দুই পাড়া - ভ-পাড়া আর প-পাড়া। জন্মলগ্ন থেকেই তাদের মধ্যে তুমুল টক্কর। দুই পাড়ার সীমানায় একখানি সাতমহলা বাহারী বাড়ি। তাতে ক-পরিবারের বাস। এরা সম্ভ্রান্ত, উচ্চশিক্ষিত। দুই পাড়ার সাথেই এদের মুখ মিষ্টি, কিন্তু নিজেদের এরা কোনো পাড়ারই অংশ মনে করে না। ...
  • পরিচিতির রাজনীতি: সন্তোষ রাণার কাছে যা শিখেছি
    দিলীপ ঘোষযখন স্কুলের গণ্ডি ছাড়াচ্ছি, সন্তোষ রাণা তখন বেশ শিহরণ জাগানাে নাম। গত ষাটের দশকের শেষার্ধ। সংবাদপত্র, সাময়িক পত্রিকা, রেডিও জুড়ে নকশালবাড়ির আন্দোলনের নানা নাম ছড়িয়ে পড়ছে আমাদের মধ্যে। বুঝি না বুঝি, পকেটে রেড বুক নিয়ে ঘােরাঘুরি ফ্যাশন হয়ে ...
  • দক্ষিণের কড়চা
    (টিপ্পনি : দক্ষিণের কথ্যভাষার অনেক শব্দ রয়েছে। না বুঝতে পারলে বলে দেব।)দক্ষিণের কড়চা▶️এখানে মেঘ ও ভূমি সঙ্গমরত ক্রীড়াময়। এখন ভূমি অনাবৃত মহিষের মতো সহস্রবাসনা, জলধারাস্নানে। সামাদভেড়ির এই ভাগে চিরহরিৎ বৃক্ষরাজি নুনের দিকে চুপিসারে এগিয়ে এসেছে যেন ...
  • জোড়াসাঁকো জংশন ও জেনএক্স রকেটপ্যাড-১৪
    তোমার সুরের ধারা ঝরে যেথায়...আসলে যে কোনও শিল্প উপভোগ করতে পারার একটা বিজ্ঞান আছে। কারণ যাবতীয় পারফর্মিং আর্টের প্রাসাদ পদার্থবিদ্যার সশক্ত স্তম্ভের উপর দাঁড়িয়ে থাকে। পদার্থবিদ্যার শর্তগুলি পূরণ হলেই তবে মনন ও অনুভূতির পর্যায় শুরু হয়। যেমন কণ্ঠ বা যন্ত্র ...
  • উপনিবেশের পাঁচালি
    সাহেবের কাঁধে আছে পৃথিবীর দায়ভিন্নগ্রহ থেকে তাই আসেন ধরায়ঐশী শক্তি, অবতার, আয়ুধাদি সহসকলে দখলে নেয় দুরাচারী গ্রহমর্ত্যলোকে মানুষ যে স্বভাবে পীড়িতমূঢ়মতি, ধীরগতি, জীবিত না মৃতঠাহরই হবে না, তার কীসে উপশমসাহেবের দুইগালে দয়ার পশমঘোষণা দিলেন ওই অবোধের ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

কোন কোন মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও ভারী ...............

Debabrata Chakrabarty


শহীদ হলেন প্রবাদপ্রতিম কুর্দ কম্যান্ডার ‘ আবু লয়লা ‘ । সিরিয়ায় আইসিসের রাজধানী ‘ রাক্কা ‘ প্রদেশ মুক্ত করার লড়াই শুরু হয়েছে মে মাসের শেষ সপ্তাহ থেকে । প্রায় ৩০০০০ কুর্দ এবং বিভিন্ন জাতি গোষ্ঠী নিয়ে গড়া SDF ২০১৪ সাল থেকে দখল করে রাখা ‘ রাক্কা ‘ শহর আইসিসের হাত থেকে ছিনিয়ে নেওয়ার নির্ণায়ক লড়াই শুরু করেছে বিভিন্ন দিক থেকে । এই লড়াইয়ে সামরিক দিক থেকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ “ মানবিজ “ শহর থেকে আইসিস নির্মূল করার লড়াইয়ে নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন 'প্রবাদ প্রতিম 'কুর্দ কম্যান্ডার ‘ আবু লয়লা ‘ ।

মানবিজ আবু লয়লার জন্মভূমি , তাই মানবিজ মুক্ত করার লড়াইয়ে তার স্বাভাবিক আবেগ জড়িত । গত শুক্রবারে লুকিয়ে থাকা আইসিস স্নাইপারের গুলীতে সাংঘাতিক আহত আলি কে যুদ্ধ ক্ষেত্র থেকে নিয়ে আসা হয় সুলেমাইয়ার হাসপাতালে ,সেই থেকে হাজারো কুর্দ ,আরব ,আর্মেনিয়ান নারী পুরুষ হাসপাতালের বাইরে তাঁবু খাটিয়ে বসে ছিলেন সু খবরের আশায় । এর আগেও বহুবার যুদ্ধে আহত আবু লয়লা মৃত্যু মুখ থেকে ফিরে এসেছিলেন । সদা হাস্যময় , অকুতভয় আবু লয়লা'র উড়ে যাওয়া আঙ্গুল, ভাঙ্গা পা , এক হাতে ক্র্যাচ ,অন্য হাতে রাইফেল নিয়ে আইসিসের বিরুদ্ধে সম্মুখ যুদ্ধের ভিডিও চিত্র কুর্দ জনজাতির প্রত্যকের মোবাইলে সেভ করা আছে , ছড়িয়ে আছে ইউ টিউবের লিংকে । স্বাধীনতার স্বার্থে ,বর্বরতার বিরুদ্ধে আবু লয়লা ছিলেন অসংখ্য কুর্দ ,আরব ,আর্মেনিয়ান জনতার বীরত্বের প্রতীক । মানবিকতার উজ্জ্বল মুখ ।

শামস অল শামাল ব্রিগেডের প্রতিষ্ঠাতা ব্রিগেডিয়ার সমপর্যায়ের “ আবু লয়লা “ খ্যাতিতে আসেন অবিস্মরণীয় ‘কোবানের ‘ লড়াইয়ের সময়ে । অবরুদ্ধ কোবানের প্রতি বাড়ির দখল নেওয়া নিয়ে যখন আইসিস এবং রোজাভার বাহিনীর লড়াই চলছিল বেয়নটে বেয়নটে , বাড়ির এক তলা কুর্দদের দখলে তো ওপরের তলা আইসিসের কব্জায় - আলি তখন পরিচালনা করছিলেন বিভিন্ন জাতি নিয়ে গঠিত এক যৌথ বাহিনী । ১৮২ দিন অবরুদ্ধ ছিল কোবানে -আইসিস তার সমস্ত শক্তি দিয়ে কোবানে দখলের প্রয়াস চালাচ্ছিল , কোবানের মাত্র ৩০০ মিটার বাকি ছিল আইসিসের দখল নেওয়ার এই সময়ে আবু লয়লা’র নেতৃত্বে কেবলমাত্র হালকা অস্ত্র সম্বল করে প্রত্যেক গলি দখলের লড়াই লড়ছিল অকুতভয় রোজাভার নারী /পুরুষ যোদ্ধারা । পৃথিবী ‘কোবানে’ পতনের দিন গুনছিল । সীমান্তে দাঁড়িয়ে মজা দেখছিল তুরস্কের ফ্যাসিস্ত সরকার -আর সদ্য অর্জিত গণতান্ত্রিক অধিকার রক্ষায় দাঁতে দাঁত চেপে লড়ে যাচ্ছিল সদা হাস্যময় আলি এবং তার বাহিনী -যেন পিকনিক চলছে ।

কোবানে লড়াইয়ের ৮০-৯০ দিনের মাথা থেকে চাকা ঘুরতে শুরু করে , ততদিনে বিশ্ব বুঝতে শুরু করে এতদিনের অপরাজেয় আইসিস এ লড়াই হারতে শুরু করেছে - রোজাভার ১৭ - থেকে ৭০ ততদিনে সব্বাই নিজেদের অর্জিত স্বাধীনতা রক্ষায় অস্ত্র হাতে তুলে নিয়েছে , বয়স্ক মহিলাদের নিয়ে গড়ে উঠেছে মাদার্স ব্রিগেড । প্রত্যেক দিন এক একটা মহল্লা আইসিস মুক্ত হচ্ছে । এইরকম সময়ে জানুয়ারি মাসের মাঝামাঝি থেকে আমেরিকা কুর্দদের সহায়তায় এয়ার সাপোর্ট দেওয়া শুরু করে -কুর্দদের সাথে সমন্বয়ে বিমান আক্রমণ শুরু হয় আইসিস অধিকৃত কোবানে;র বিভিন্ন অঞ্চলে। জানুয়ারি মাসের এক একটা দিনে কোবানে শহরে ৭০০-৮০০ টার্গেটে বোমা বর্ষণের নজির বর্তমান । কৌশল পালটে আইসিস আত্মঘাতী হানার রাস্তা নেয় । বারুদ ভর্তি ট্রাক চালিয়ে কুর্দ অধিকৃত এলাকায় প্রবেশ করে ট্রাক সমেত নিজেকে উড়িয়ে দেওয়া -যথাসম্ভব সাধারণ নাগরিকের প্রানহানি ঘটানো যায় - সন্ত্রস্ত করা যায় -মনোবল গুঁড়িয়ে দেওয়া যায় । আলি এবং তার বাহিনী প্রতিটি রাজপথ , গলি , মহল্লা , বাড়ি নিরলস আইসিস মুক্ত করতে থাকেন । প্রতিটি বাড়ি তখন মাইনফিল্ড , বুবি ট্র্যাপ , এমনকি চায়ের কেটলিতে , বিছানার -সোফার গদিতে প্রেশার বোমা লাগিয়ে রেখেছে আইসিস ।

এইরকম এই বাড়ি আইসিস মুক্ত করার সময়ে বিস্ফোরণ ঘটে , ভেঙ্গে পড়া রাবিশের তলায় চাপা পড়ে যায় আইসিসের কতিপয় যোদ্ধা - এই ভয়ঙ্কর হাতাহাতি যুদ্ধে যখন অন্যপক্ষকে পলক ফেলার আগেই মেরে দেওয়া নিয়ম - আবু লয়লা তখন সেই আটকে পড়া আইসিস যোদ্ধাদের রাবিশ থেকে মুক্ত করার কাজে হাত লাগান । আবু লয়লা কে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল ভিডিও ক্যামেরার সামনে , যে আপনি মানবতার শত্রু এই ভয়ঙ্কর জিহাদিদের বাঁচানোর চেষ্টা করছেন কেন ? উত্তরে লয়লা বলেছিলেন ‘ আমরা আইসিস নই, আমরা মানুষ মারার জন্য যুদ্ধ করছিনা ,অসহায় অবস্থায় শত্রু কে হত্যা করা কাপুরুষতা, আহত সে যেই হোক আমার দায়িত্ব তাকে সুস্থ করে তোলা ‘ পরবর্তীতে সেই সমস্ত উদ্ধার কৃত আইসিস যোদ্ধাকে আলী তাদের পরিবারের সাথে যুক্ত হওয়ার স্বার্থে মুক্ত করে দেন । যুদ্ধের উন্মত্ততার মাঝে চরম শত্রুকে মুক্ত করে দেওয়া ভীষণ সাহসের কাজ , এমনকি যুদ্ধে প্রাণ দেওয়ার থেকেও সাহসের পরিচয় । আবূ লয়লা সেই বিরল সাহসের অধিকারী ছিলেন

কোবানের সেই ভয়ঙ্কর যুদ্ধ কালীন অবস্থায় যখন পরের মুহূর্তে মৃত্যু আলিঙ্গন করবে কিনা এ বিষয়ে নিশ্চয়তা নেই - আবু লয়লা তখন তার ফুটফুটে মেয়েদের উদ্দ্যশ্যে একটি চিটি লেখেন

To My beloved Leyla ,
This is how our way as it’s our duty to defend , work and fight for your future and the future of children like as well . Hoping when you grow up , wouldn’t set the blame upon us , by not saying that our fathers and grandfathers did nothing for us .I’d fight for you ,children like you ,all dangers and risk you go through is to work for a better future for you and children like you to live a free and safe life in this country . As we will continue this revolution till the full freedom of our beloved country ,Syria.
I missed you so much ! Oh my sweet Leyla, be sure you will be proud of your father whether I am alive or a martyr .
My kisses with you
your father
Abu Leyla
Kobani

কোবানের যুদ্ধের শেষের দিকে বোমার আঘাতে আবু লয়ালার আঙ্গুল উড়ে যায় ,পায়ের হাড় ভেঙ্গে যায় স্পিলন্টারের আঘাতে । সেই সময়েও আরব , কুর্দ , আর্মেনীয় জনতা হাসপাতালের বাইরে তাঁবু খাটিয়ে বসে ছিলেন , কে জানে কখন রক্ত্রের দরকার পড়ে । অজস্র মানুষের ভালোবাসা ,সন্মান এবং স্বাধীনতা রক্ষার স্বার্থে আহত আলী হসপিটাল থেকে ফিরে আসেন যুদ্ধ ক্ষেত্রে । কোবানে ততদিনে আইসিস মুক্ত , আধুনিক স্তালিনগ্রাদের ইতিহাস রচিত হচ্ছে সারা বিশ্ব জুড়ে , বিশ্বের জনতা পরিচিত হচ্ছে অকুতভয় কুর্দ জনতার স্বাধীন গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা ‘ রোজাভার ‘সাথে । আইসিসের অপ্রতিহত বিজয়ের রথ কোবানের শক্ত দেওয়ালে ধাক্কা খেয়ে ততদিনে ইউফ্রেটাস নদীর পশ্চিমপারে পালিয়ে বেঁচেছে । আইসিস মধ্যে প্রাচ্যে এই প্রথম বিষম পরাজয়ের গ্লানির প্রতিশোধ নিতে কোবানের আপাত শান্তির সুযোগ নিয়ে কুর্দ সেনাদের পোশাকের ছদ্মবেশে আত্মঘাতী হামলা চালায় কোবানে শহরে । লয়লা তখন ভাঙ্গা পা নিয়ে বড় রাস্তার ধারে এক দোতলা বাড়ির বাইরের ঘরে শুশ্রূষাধীন । ভাঙ্গা পা , ক্র্যাচ বগলে আলী , তার সর্বসময়ের সাথী হালকা মেশিনগান এবং তার বাহিনী নিয়ে গড়ে তোলেন পাল্টা প্রতিরোধ । সেই রাত্তিরে আইসিসের কাপুরুষ সেনাদের জবাই অবশেষে দেখা যায় ঘুমন্ত অবস্থায় প্রায় ২০০ জন নিরস্ত্র নারী পুরুষ শিশু নির্বিশেষে তারা হত্যাকাণ্ড চালিয়েছে - কুর্দ সেনাদের পোশাক পরিহিত আইসিস জিহাদিদের কেউ সন্ধেহও করেনি । নিরীহ কোবানে বাসীদের রক্ষায় ভাঙ্গা পা নিয়ে পাল্টা লড়াই এবং তার অসমসাহসিক বীরত্ব গাথা ছড়িয়ে পড়ে লোকে মুখে ।

২০১৫ সালের শেষের দিকে বিভিন্ন জাতি , উপজাতি সমন্বয়ে গড়ে ওঠে SDF আবু লয়লা তার স্বাভাবিক নেতা । আরব , কুর্দ , তুর্কমান , আর্মেনিয়ান , খ্রিস্টান , মুসলমানদের এক গণতান্ত্রিক বাহিনীর সুযোগ্য এবং স্বাভাবিক নেতার নেতৃত্বে তুরস্কের হুমকি এবং রক্তচক্ষু অগ্রাহ্য করে মে মাসের প্রথম দিকে কুর্দ রা ইউফ্রেটাসের পশ্চিমতীরে পা রাখে । আইসিসের সাপ্লাই লাইন বন্ধ করে দিয়ে শ্বাসরোধ করে খতম করার সামরিক কৌশলের অঙ্গ হিসাবে মানবিজ শহরের দখল অনিবার্য ছিল আর সেই শহর দখলের লড়াইয়ে স্নাইপার রাইফেলের গুলির আঘাতে আহত আবু লয়লা সমস্ত কুর্দ জনতা কে চোখের জলে ভাসিয়ে মৃত্যু বরন করেছেন গত কাল ।

আবু লয়ালার শেষযাত্রায় সঙ্গী হয়েছেন হাজারো জনতা । আলি রেখে গেছেন তার ফুটফুটে চার শিশু কন্যা এবং অসমসাহসী স্ত্রী । আবু লয়ালারা আজকের এই স্বার্থপর পৃথিবীতে বিরল -যদিও হাজারো কিলোমিটার দূরে আবু লায়লার মৃত্যুতে আমাদের কিছু যায় আসেনা তবুও আইসিসের বিরুদ্ধে নির্ণায়ক লড়াইয়ে আবু লয়লার অনুপস্থিতি পৃথিবীর সমস্ত শান্তিকামী , স্বাধীনতা কামী মানুষের কাছে পাহাড়ের মত ভারী । আবু লয়লা বেঁচে থাকুন মানুষের হৃদয়ে !

http://postimg.org/image/6765gy1fv/
http://postimg.org/image/f2lqmz4qz/






522 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: Debabrata Chakrabarty

Re: কোন কোন মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও ভারী ...............

Avatar: Debabrata Chakrabarty

Re: কোন কোন মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও ভারী ...............

আবু লায়লার স্ত্রী এবং ফুটফুটে শিশু কন্যারা -পিতার শেষকৃত্যে

http://s33.postimg.org/pnk2bxjgv/Ck_SFiz_SXIAU_3_Zy.jpg
Avatar: dd

Re: কোন কোন মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও ভারী ...............

এটা পড়ে ভালো লাগলো।

আইসিসের সাথে লড়াইতে (পিওরলি মিলিটারী পয়েন্ট অব ভিউ থেকে) আমি খুবই নেট হাৎড়াই। প্রবন্ধ,নিউস বা ডকু। সেরকম আদৌ কিছু পাই না। বরং এই লেখাটায় একটু ডিটেইল্স আছে।
Avatar: avi

Re: কোন কোন মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও ভারী ...............

বেশ ভালো লাগলো।
Avatar: Debabrata Chakrabarty

Re: কোন কোন মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও ভারী ...............

dd দা , যে শহর দখলে প্রাণ দিলেন লয়লা সেই মানবিজ এখন ৯০% ঘেরাবন্দি , সিভিলিয়ানরা শহর ,ছাড়ছে , আইসিস টায়ার জ্বালাচ্ছে বিমান হানা কে বিভ্রান্ত করার উদ্দ্যেস্যে , শহরের ১২ কিলোমিটার বাইরে কুর্দরা একটি গুরুত্বপূর্ণ টিলা দখল করে নিয়েছে , ইউফ্রেটাসের ওপরে পন্টুন ব্রিজ তৈরি হয়ে গেছে , যাতে হেভি ট্রাক এবং সাপ্লাই লাইন ঠিক থাকে , আজ থেকে ফ্রান্স কুর্দ দের সাথে সমন্বয় রেখে বিমান হানা শুরু করছে । মানবিজ / আলেপ্পো হাইওয়ে কুর্দ রা দখল করে নিয়েছে । লেটেস্ট ম্যাপ একটা লিংক থাকলো ঃ- MANBIJ: 8 JUN 1100EDT. http://24live.co/ep6
Avatar: nibaron

Re: কোন কোন মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও ভারী ...............

আপনাদের ব্লগে মাঝে মাঝে ঘুরে যাই , কিছুই জানায় না আমাদের দেশের কাগজ গুলো , কেবল মাঝে মাঝে আইসিস বিসয়ে চুটকি খবর ছাড়া । এই ব্লগে আগেও পরেছি কুর্র্দ দের খবর -এইটাও পরলাম , লিখতে থাকুন ।
Avatar: শিবাংশু

Re: কোন কোন মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও ভারী ...............

লেখাটি থেকে বহু কিছু জানলুম। কিছু ছিন্ন সূত্র বাঁধা গেলো। প্রবাদের জন্ম সর্বত্রই একই রকম। আর dd যা বললেন সেটা তো আছেই।

Avatar: ranjan roy

Re: কোন কোন মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও ভারী ...............

ভারতের ইন্ডিয়ান একস্প্রেস এইটুকুই বলছে যে যদিও তুরস্ক সরকার রোজাভাকে টেরারিস্ট বলে দাগিয়ে দিয়েছে , কিন্তু কুর্দদের একটা বিরাট অংশ ওদের স্বাধীনতাসংগ্রামী মনে করেন।
ব্যস্‌, এইটুকুই।ঃ(((
Avatar: Debabrata Chakrabarty

Re: কোন কোন মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও ভারী ...............

তুরস্ক খুব চাপে আছে , আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছে রোজাভা = পিকেকে প্রমান করার , কিন্তু তাঁদের আইসিসের সঙ্গে সহযোগিতা প্রমাণিত । একমাত্র কুর্দ রা সিরিয়াতে আইসিসের সাথে জমি দখলের লড়াই করতে সক্ষম সেটাও প্রমাণিত তাই তুরস্ক কে একঘরে করে , রাশিয়া /ফ্রান্স এবং আমেরিকা রোজাভাকে এয়ার সাপোর্ট দিচ্ছে । মানবিজের লড়াইয়ে আজথেকে ফ্রান্স এয়ার সাপোর্ট দিচ্ছে । আগামী দশ দিনের মধ্যেই মানবিজ আইসিসের হাতছাড়া হয়ে যাবে । মানবিজ দখল সিরিয়াতে আইসিস রাজধানী রাক্কা দখলের দ্বিতীয় পদক্ষেপ । মানবিজ দখল হয়ে গেলে ইউফ্রেটাসের পশ্চিম প্রান্তে আল্লেপ্পো পর্যন্ত আইসিস বোতল বন্দী হয়ে যাবে । খুব গুরুত্বপূর্ণ লড়াই । কুর্দদের কাছে তো বটেই !
Avatar: ranjan roy

Re: কোন কোন মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও ভারী ...............

ভিভা কুর্দ!
Avatar: সে

Re: কোন কোন মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও ভারী ...............

পরশু টিভিতে বলল রাক্কা থেকে ১৫ কিমি দূরত্বে সিরিয়ান আর্মি চলে এসেছে।
Avatar: দেবব্রত

Re: কোন কোন মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও ভারী ...............

না মামলা অত সোজা নয় এখনো ,বর্তমান খবর অনুযায়ী মানবিজ থেকে আইসিস উইথদ্র হওয়ার এখনো লক্ষণ নেই ,শহরে সিভিলিয়ান ক্ষতি এড়াতে কুর্দরা ফায়ারিং রেঞ্জে পৌঁছে গেলেও কামান দাগছেনা , শহরের ভেতরে থাকা স্লিপার সেল এখনো আক্রমণের সিগন্যাল দেয়নি । মানবিজের গ্রামাঞ্চলের লড়াইয়ে এখনো পর্যন্ত ২৬জন কুর্দ , ১২৫ -১৩০ এর মত আইসিস এবং তার সাথে ৩৭-৪০ সাধারণ নাগরিকও মারা গেছে । সাধারণ নাগরিক শহর ছেড়ে পালানোর চেষ্টা করলেই আইসিস গুলি চালাচ্ছে , ওরাই ঢাল সুতরাং বেয়নেট বেয়নেট, গলিতে গলিতে লড়াইয়ের সম্ভাবনা । রাক্কা আরও অনেক কঠিন ঠাই ।

কুর্দ এবং SDF আমেরিকা/ ফ্রান্সের এয়ার সাপোর্ট নিয়ে এগোচ্ছে , অন্যদিকে আসাদ বাহিনী রাশিয়ার সাপোর্ট নিয়ে । দুপক্ষের কারো নিজেদের মধ্যে কো-অর্ডিনেশন নেই , তার পর কুর্দ/SDF আসাদের শত্রু । সুতরাং রাক্কা দখল আগামী ৬-৮ মাসে হচ্ছেনা ( খুব অঘটন কিছু ঘটলে আলাদা কথা ) আর কুর্দদের তা উদ্দ্যেশ্যও নয় ।

কুর্দরা ভীষণ বুদ্ধি করে এই যুদ্ধ নিজেদের স্বার্থে ব্যবহার করছে । আজ থেকে ৪ বছর আগে যখন রোজাভা বিপ্লব হয় তখন আফরিন , কবানে , এবং জিজরে রোজাভার এই তিনটে প্রশাসনিক অঞ্চল ভৌগলিক ভাবে তিনটে আলাদা আলাদা বিচ্ছিন্ন অঞ্চল ছিল , কুর্দদের লক্ষ সবার আগে এই তিনটে অঞ্চল সংযুক্ত করা । কোবানে এবং জিজরে সংযুক্ত হয়ে গেছে এই চার বছরে , গড় গড়িয়ে ট্যাক্সি সার্ভিস পর্যন্ত চালু হয়ে গেছে -কিন্তু কোবানে এবং আফরিনের মধ্যে এখনো বিস্তীর্ণ অঞ্চল তুরস্কের সমর্থনে আইসিসের কব্জায় । কুর্দ রা মানবিজ দখল করে আইসিস কে বোতল বন্দী করার উদ্দশ্যে এবং কোবানে /আফরিন সংযুক্ত করার উদ্দ্যেশে সাম্প্রতিক লড়াই লড়ছে । রাক্কা অনেক পরের প্রায়োরিটি , এবং আদৌ প্রায়োরিটি কিনা সে বিষয়ে যথেষ্ট সন্ধেহ আছে । সুতরাং টিভি যায় বলুক মামলা জটিল ।
Avatar: দ্রি

Re: কোন কোন মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও ভারী ...............

এখন তো মনে হচ্ছে ইউএস ব্যাক্‌ড কুর্দদের (SDF) আগে রাশিয়ান ব্যাক্‌ড সিরিয়ান আর্মি (SAA) আগে রাক্কা দখল করবে। সেটা হলে সিচুয়েশান খুব জটিল হবে। একই সাথে দুই পক্ষ রাক্কা পৌঁছলে বার্লিনের মত কেস হবে।

রাক্কা যদি কুর্দরা না পায় সেটা তাদের পক্ষে একটা সেটব্যাক হবে। রাক্কার তেল সব পক্ষের জন্যই লোভনীয়। সিরিয়াও ছাড়বে না। কুর্দদেরও রোজাভা মডেল চালাতে চাই। আর আইসিস তো এখনো লড়ে যাচ্ছে বেসিকালি রাক্কার তেলের টাকায়।

আইসিস এখন প্রিটি মাচ ডায়িং ফোর্স। আম্রিকা হাত ধুয়ে ফেলেছে। এখন আম্রিকা সাপোর্ট করছে কুর্দদের। লক্ষ্য, কুর্দদের দিয়ে সিরিয়ার ফেডারালাইজেশান, এবং আসাদের ডানা ছেঁটে ফেলা, এবং পূর্ব সিরিয়ায় একটা করিডর বানানো যেখান দিয়ে ফিউচারে কাতারের ন্যাচারাল গ্যাস ইওরোপে ঢুকবে। আগে এই কাজটা আইসিসকে দিয়ে করানোর চেষ্টা হয়েছিল। সেটা এখন ডুম্‌ড। আইসিসের বদনামও হয়েছে প্রচুর। আইসিসের সাইডে থাকার পাবলিক সাপোর্ট পাওয়া সম্ভব নয় আর। কিন্তু কুর্দের বেলায় সেটা পাওয়া অনেক সোজা। মুক্তিযুদ্ধ।

কিন্তু এই ট্রিকি পাওয়ার স্ট্রাগলে প্রত্যেকেরই নিজস্ব অ্যাজেন্ডা আছে।
Avatar: দেবব্রত

Re: কোন কোন মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও ভারী ...............

আমার মনে হয়না কুর্দদের আপাতত রাক্কা দখলের কোন প্রায়োরিটি আছে ,তাঁদের মুল উদ্দেশ্য নিজেদের তিনটি ক্যান্টন সংযুক্ত করা , নিজেদের শক্ত ভূমীতে দাড় করানো যাতে আগামী নেগসিয়েসনে যথা সম্ভব সুবিধা আদায় করা যায় , সাথে তুরস্ক কে পুরো সিরিয়া সীমান্তে ঘিরে ফেলা যায় ,কুর্দরা রাক্কা নয় উলটো দিকে আক্রমণ করছে " মানবিজ " -রাক্কা থেকে ৮০ মাইল দূর কিন্তু নিজেদের ক্যন্টন গুলি সংযুক্ত করবার ক্ষেত্রে একমাত্র বাঁধা - রাক্কায় তাদের আপাত ইন্টারেস্ট নেই স্পুটনিকের এই বিশ্লেষণ টি দেখতে পারেন "

"I don’t think there is coordination between the two sides,” said Bangash. More so there appears to be a race towards Raqqa, although the Syrian Army seems to be better placed because they have already captured al Tabqah right next to a dam on the Euphrates River, and they are trying to take control of the airport there."

"The Syrian Army is only 40km (25 miles) southwest of Raqqa whereas the Syrian Democratic Forces, dominated by the Kurds, have headed in the opposite direction, towards Manbij, which is 136 kilometers (85 miles) away from Raqqa, so the Kurds are much further away right now."

Bangash explained that Kurdish forces are focused on playing the long game by consolidating their own territories with a view toward having a stronger hand in future negotiations, but potentially at the expense of the United States losing the race to be the first to seize Raqqa."

কুর্দরা নিজেদের দীর্ঘ অ্যাজেন্ডা নিয়ে লড়ছে - রাক্কা দখলের রেসে আপাতত নেই ।

Avatar: দ্রি

Re: কোন কোন মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও ভারী ...............

কুর্দদের নিজেদের অ্যাজেন্ডা ঠিকই আছে। আমার যেটায় সবচেয়ে অসুবিধে, সেটা হল আমেরিকা অ্যাক্টিভলি কুর্দদের সাহায্য করছে যুদ্ধটা লড়তে। কুর্দদের ব্যাট্‌ল লাইনে আমেরিকানদের স্পট করা হয়েছে। তার অ্যাডভাইস দিচ্ছে। এই হেল্পের প্রতিদান তো আমেরিকা চাইবে।

সেটা কী হবে? অনেকেই মনে করছে সেগুলো হবে এমন কিছু মুভ যাতে আসাদের অসুবিধা হয়। সিরিয়াকে ভেঙ্গে টুকরো করা কয়েক পীসে। সিরিয়ার পূব দিকের কন্ট্রোল -- চাই আমেরিকার, সৌদির, কাতারের এবং টার্কির। ব্যাপারটা সহজ নয়। কিন্তু ঐদিকে একটা পুশ থাকবে।
Avatar: দেবব্রত

Re: কোন কোন মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও ভারী ...............

শুধু আমেরিকান স্পেশাল ফোর্স নয় , ফ্রান্সের সেনাও এই মানবিজের যুদ্ধে টেকনিক্যাল /ট্রেনিং ইত্যাদি সহযোগিতা দিচ্ছে । ইউফ্রেটাস ক্রস করলেই রোজাভা আক্রমণ করব এই হুমকি তুরস্ক অনেকদিন আগে থেকে দিয়ে রাখলেও , পরিস্থিতির বাধ্যবাধকতায় আমেরিকা /ফ্রান্স এবং রাশিয়া তুরস্ক কে এক পাশে ঠেলে কুর্দদের সাহায্য দিচ্ছে , কুর্দ রাও ইউফ্রেটাস ক্রস করে তুরস্কের হুমকি অগ্রাহ্য করে আফরিন এবং কোবানে সংযুক্ত করার টার্গেট নিয়ে বর্তমানে মানবিজ দখলের লড়াই চালাচ্ছে ।

কুর্দ রা সিরিয়ায় অন্যতম প্রভাবশালী পক্ষ হওয়া স্বত্বেও এতদিন তুরস্কের চাপে সিরিয়া নিয়ে ভিয়েনা কনফারেন্সে ডাক পায়নি ,কিন্তু আগামী কনফারেন্সে কুর্দরা অংশগ্রহণ করবে , এক্ষেত্রেও তুরস্কের আপত্তি অগ্রাহ্য করে আমেরিকা /রাশিয়া আলোচনায় কুর্দদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করেছে -সম্ভবত এই কারনেই আগামী আলোচনার পূর্বেই কুর্দরা নিজেদের এলাকা সংযুক্ত করে নিতে চাচ্ছে যাতে সিরিয়ার ভবিষ্যৎ নির্ণয়ের নেগোসিয়েসনে সুবিধাজনক অবস্থানে থাকে ।

কুর্দরা সিরিয়ার অখণ্ডতার স্বপক্ষে ,কিন্তু অচালানের তত্ব অনুযায়ী ' ডেমোক্র্যাটিক কনফেডারিলিজম ' বা বর্তমান রোজাভা মডেলের অবলুপ্তি ঘটিয়ে পূরানো আসাদ জমানা ফিরিয়ে আনার বিপক্ষে ,রাষ্ট্রের একাধিপত্য চলবেনা একথা পরিষ্কার -আর আসাদও সিরিয়াকে বলপূর্বক সেই অবস্থানে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার ক্ষমতায় নেই । এই গৃহযুদ্ধ কুর্দদের সামনে অচালানের তত্ব প্রয়োগের /মডেল স্থাপন করার সুযোগ উপস্থিত করেছিল আজ পর্যন্ত কুর্দরা সেই সুযোগ পূর্ণ মাত্রায় বুদ্ধিমত্তার সাথে সাফল্যের সাথে ব্যবহার করেছে । পসিটিভ ,গণতান্ত্রিক ফোর্স হিসাবে তাদের বিশ্বব্যাপী স্বীকৃতি । রোজাভা এবং কুর্দদের ফেভারে বিপুল পসিটিভ প্রচার ইত্যাদি ভবিষ্যতে সিরিয়ায় তাদের অবস্থান নিশ্চিত করে দেবে বলে আমার বিশ্বাস । বিপুল রক্তক্ষয় স্বত্বেও -কুর্দদের জেদ এবং প্রতিকূলতা অগ্রাহ্য করে লড়াই করার ক্ষমতা স্যালুট যোগ্য ।

Avatar: দেবব্রত

Re: কোন কোন মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও ভারী ...............

শুধু আমেরিকান স্পেশাল ফোর্স নয় , ফ্রান্সের সেনাও এই মানবিজের যুদ্ধে টেকনিক্যাল /ট্রেনিং ইত্যাদি সহযোগিতা দিচ্ছে । ইউফ্রেটাস ক্রস করলেই রোজাভা আক্রমণ করব এই হুমকি তুরস্ক অনেকদিন আগে থেকে দিয়ে রাখলেও , পরিস্থিতির বাধ্যবাধকতায় আমেরিকা /ফ্রান্স এবং রাশিয়া তুরস্ক কে এক পাশে ঠেলে কুর্দদের সাহায্য দিচ্ছে , কুর্দ রাও ইউফ্রেটাস ক্রস করে তুরস্কের হুমকি অগ্রাহ্য করে আফরিন এবং কোবানে সংযুক্ত করার টার্গেট নিয়ে বর্তমানে মানবিজ দখলের লড়াই চালাচ্ছে ।

কুর্দ রা সিরিয়ায় অন্যতম প্রভাবশালী পক্ষ হওয়া স্বত্বেও এতদিন তুরস্কের চাপে সিরিয়া নিয়ে ভিয়েনা কনফারেন্সে ডাক পায়নি ,কিন্তু আগামী কনফারেন্সে কুর্দরা অংশগ্রহণ করবে , এক্ষেত্রেও তুরস্কের আপত্তি অগ্রাহ্য করে আমেরিকা /রাশিয়া আলোচনায় কুর্দদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করেছে -সম্ভবত এই কারনেই আগামী আলোচনার পূর্বেই কুর্দরা নিজেদের এলাকা সংযুক্ত করে নিতে চাচ্ছে যাতে সিরিয়ার ভবিষ্যৎ নির্ণয়ের নেগোসিয়েসনে সুবিধাজনক অবস্থানে থাকে ।

কুর্দরা সিরিয়ার অখণ্ডতার স্বপক্ষে ,কিন্তু অচালানের তত্ব অনুযায়ী ' ডেমোক্র্যাটিক কনফেডারিলিজম ' বা বর্তমান রোজাভা মডেলের অবলুপ্তি ঘটিয়ে পূরানো আসাদ জমানা ফিরিয়ে আনার বিপক্ষে ,রাষ্ট্রের একাধিপত্য চলবেনা একথা পরিষ্কার -আর আসাদও সিরিয়াকে বলপূর্বক সেই অবস্থানে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার ক্ষমতায় নেই । এই গৃহযুদ্ধ কুর্দদের সামনে অচালানের তত্ব প্রয়োগের /মডেল স্থাপন করার সুযোগ উপস্থিত করেছিল আজ পর্যন্ত কুর্দরা সেই সুযোগ পূর্ণ মাত্রায় বুদ্ধিমত্তার সাথে সাফল্যের সাথে ব্যবহার করেছে । পসিটিভ ,গণতান্ত্রিক ফোর্স হিসাবে তাদের বিশ্বব্যাপী স্বীকৃতি । রোজাভা এবং কুর্দদের ফেভারে বিপুল পসিটিভ প্রচার ইত্যাদি ভবিষ্যতে সিরিয়ায় তাদের অবস্থান নিশ্চিত করে দেবে বলে আমার বিশ্বাস । বিপুল রক্তক্ষয় স্বত্বেও -কুর্দদের জেদ এবং প্রতিকূলতা অগ্রাহ্য করে লড়াই করার ক্ষমতা স্যালুট যোগ্য ।

Avatar: দ্রি

Re: কোন কোন মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও ভারী ...............

আমার কিন্তু ভীষণ মনে হচ্ছে আইসিসের সমস্যা মিটে গেলে কুর্দ এবং সিরিয়ার মধ্যে সমস্যা শুরু হবে। এর মধ্যে আম্রিকাও একটু নাক গলাবে।

কুর্দরা ইরাকে নিজেদের জায়গা করে নিতে পেরেছে ইরাকের মিলিটারী ফোর্স যখন উইক হয়েছে। সিরিয়ায়ও তাই। টার্কি এবং ইরানের মিলিটারী এখনও উইক নয়। তাই এসব জায়গায় সংঘাত। রাশিয়ার সাহায্যর পর সিরিয়ান মিলিটারীর দিশেহারা অবস্থাটা কেটে গেছে। এরপর সংঘাতের একটা সম্ভাবনা আছে।
Avatar: দেবব্রত

Re: কোন কোন মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও ভারী ...............

একদম সংঘাতের সম্ভাবনা নেই তা নয় । কুর্দদের সাথে এক জেলখানা দখল নিয়ে রক্তারক্তি হয়েছে মাস খানেক পূর্বে । তবে আসাদের সেই শক্তি অবশিষ্ট নেই , সেই অহমিকাও নেই , আর অসংখ্য ছোট ছোট আসাদ বিরোধী গ্রুপ , সৌদি সমর্থিত গ্রুপ , ইরান সমর্থিত গ্রুপ এদেরকে এক টেবিলে বসানোও বেশ দুরূহ , তার ওপর রাশিয়া /আমেরিকার ইন্টারেস্ট -সুতরাং ঝামেলা থাকবেই তবে আইসিস সরে গেলে এই ঝামেলার আকার অনেকটা কমে আসবে , একথা নিশ্চিত আসাদ কে কিছু ক্ষমতা ছাড়তে হবে , কিন্তু কতটা বা কি ফর্মে সে এক লাখ টাকার প্রশ্ন , এই ফাঁকে কুর্দরা নিজেদের এলাকা কন্সোলিডেট করে নেবে , ব্যাক চ্যানেল /ফর্মাল চ্যানেল নেগোসিয়েসনের জন্য ইতিমধ্যে মস্কোতে /ফ্রান্সে অফিস খুলে ফেলেছে এবং কংক্রিট কিছু আশ্বাস পেলে রাক্কা অ্যাটাকে ঝাঁপাবে ।

গতবার লাদেন হত্যা আমেরিকায় ডেমোক্রাট জয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিল এইবার তাই নভেম্বরের পূর্বেই রাক্কা দখল আমেরিকার কাছে গুরুত্বপূর্ণ সুতরাং কুর্দদের থেকেও আমেরিকার তারা বেশী -হয়ত সিরিয়াতে কুর্দ ফেডারেশন হয়েও যেতে পারে ।
Avatar: Prativa Sarker

Re: কোন কোন মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও ভারী ...............

রোজাভা মডেল সম্বন্ধে আপনার লেখাই সচেতন করে। কুর্দরা নিপীড়িত বলে দরদ ছিলো, কিন্তু নারী পুরুষ নির্বিশেষে এই বীরের লড়াই ওদের জন্য বিরাট সম্মান আদায় করে নিয়েছে।
শিরোনামটিও বড় যথাযথ। কোন মৃত্যু যদি পাখীর পালক, অন্য কোন মৃত্যুর ভার হিমালয়ের মত।


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন