শিবাংশু RSS feed

শিবাংশু দে-এর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • থিম পুজো
    অনেকদিন পরে পুরনো পাড়ায় গেছিলাম। মাঝে মাঝে যাই। পুরনো বন্ধুদের সঙ্গে দেখা হয়, আড্ডা হয়। বন্ধুদের মা-বাবা-পরিবারের সঙ্গে কথা হয়। ভাল লাগে। বেশ রিজুভিনেটিং। এবার অনেকদিন পরে গেলাম। এবার গিয়ে শুনলাম তপেস নাকি ব্যবসা করে ফুলে ফেঁপে উঠেছে। একটু পরে তপেসও এল ...
  • কাঁসাইয়ের সুতি খেলা
    সেকালে কাঁসাই নদীতে 'সুতি' নামের একটা খেলা প্রচলিত ছিল। মাছ ধরার অভিনব এক পদ্ধতি, বহু কাল ধরে যা চলে আসছে। আমাদের পাড়ার একাধিক লোক সুতি খেলাতে অংশ নিত। এই মৎস্যশিকার সার্বজনীন, হিন্দু ও মুসলিম উভয় সম্প্রদায়ে জনপ্রিয়। মনে আছে ক্লাস সেভেনে পড়ার সময় একদিন ...
  • শুভ বিজয়া
    আমার যে ঠাকুর-দেবতায় খুব একটা বিশ্বাস আছে, এমন নয়। শাশ্বত অবিনশ্বর আত্মাতেও নয়। এদিকে, আমার এই জীবন, এই বেঁচে থাকা, সবকিছু নিছকই জৈবরাসায়নিক ক্রিয়া, এমনটা সবসময় বিশ্বাস করতে ইচ্ছে করে না - জীবনের লক্ষ্য-উদ্দেশ্য-পরিণ...
  • আবরার ফাহাদ হত্যার বিচার চাই...
    দেশের সবচেয়ে মেধাবীরা বুয়েটে পড়ার সুযোগ পায়। দেশের সবচেয়ে ভাল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নিঃসন্দেহে বুয়েট। সেই প্রতিষ্ঠানের একজন ছাত্রকে শিবির সন্দেহে পিটিয়ে মেরে ফেলল কিছু বরাহ নন্দন! কাওকে পিটিয়ে মেরে ফেলা কি খুব সহজ কাজ? কতটুকু জোরে মারতে হয়? একজন মানুষ পারে ...
  • ইন্দুবালা ভাতের হোটেল-৭
    চন্দ্রপুলিধনঞ্জয় বাজার থেকে এনেছে গোটা দশেক নারকেল। কিলোটাক খোয়া ক্ষীর। চিনি। ছোট এলাচ আনতে ভুলে গেছে। যত বয়েস বাড়ছে ধনঞ্জয়ের ভুল হচ্ছে ততো। এই নিয়ে সকালে ইন্দুবালার সাথে কথা কাটাকাটি হয়েছে। ছোট খাটো ঝগড়াও। পুজো এলেই ইন্দুবালার মন ভালো থাকে না। কেমন যেন ...
  • গুমনামিজোচ্চরফেরেব্বাজ
    #গুমনামিজোচ্চরফেরেব্...
  • হাসিমারার হাটে
    অনেকদিন আগে একবার দিন সাতেকের জন্যে ভূটান বেড়াতে যাব ঠিক করেছিলাম। কলেজ থেকে বেরিয়ে তদ্দিনে বছরখানেক চাকরি করা হয়ে গেছে। পুজোর সপ্তমীর দিন আমি, অভিজিৎ আর শুভায়ু দার্জিলিং মেল ধরলাম। শিলিগুড়ি অব্দি ট্রেন, সেখান থেকে বাসে ফুন্টসলিং। ফুন্টসলিঙে এক রাত্তির ...
  • দ্বিষো জহি
    বোধন হয়ে গেছে গতকাল। আজ ষষ্ঠ্যাদি কল্পারম্ভ, সন্ধ্যাবেলায় আমন্ত্রণ ও অধিবাস। তবে আমবাঙালির মতো, আমারও এসব স্পেশিয়ালাইজড শিডিউল নিয়ে মাথা ব্যাথা নেই তেমন - ছেলেবেলা থেকে আমি বুঝি দুগ্গা এসে গেছে, খুব আনন্দ হবে - এটুকুই।তা এখানে সেই আকাশ আজ। গভীর নীল - ...
  • গান্ধিজির স্বরাজ
    আমার চোখে আধুনিক ভারতের যত সমস্যা তার সবকটির মূলেই দায়ী আছে ব্রিটিশ শাসন। উদাহরণ, হাতে গরম এন আর সি নিন, প্রাক ব্রিটিশ ভারতে এরকম কোনও ইস্যুই ভাবা যেতো না। কিম্বা হিন্দু-মুসলমান, জাতিভেদ, আর্থিক বৈষম্য, জনস্ফীতি, গণস্বাস্থ্য ব্যবস্থার অভাব, শিক্ষার অভাব ...
  • সার্ধশতবর্ষে গান্ধী : একটি পুনর্মূল্যায়নের (অপ?) প্রয়াস
    [কথামুখ — প্রথমেই স্বীকার করে নেওয়া ভালো, আমার ইতিহাসের প্রথাগত পাঠ মাধ্যমিক অবধি। তবুও অ্যাকাডেমিক পরিসরের বাইরে নিছকই কৌতূহল থেকে গান্ধী বিষয়ক লেখাপত্তর পড়তে গিয়ে ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের এই অবিসংবাদী নেতাটি সম্পর্কে যে ধারণা লাভ করেছি আমি, তা আর ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

হননবৈশাখ ও একজন কবি

শিবাংশু

সেটা ছিলো একটা নিমবসন্তের কাল। মন্দমন্থরে নেমে আসা দুঃসময়ের কালো ছায়ার দিন। ভারতবর্ষ অনেক পালাবদল দেখেছে। বিংশশতক পড়ার পর এইবার প্রথম মানুষকে এতোটা নিষ্ঠুর ভবিতব্যের সম্মুখীন হতে হলো। বিশ্বযুদ্ধের চাপে পর্যুদস্ত ঔপনিবেশিক দস্যুদের কেউ যেন মরণকামড় দিতে প্ররোচিত করেছিলো। 'ভালো' ইংরেজরাও মুখোশ ছিঁড়ে মন্দ ইংরেজদের সঙ্গে একাত্মবোধ করতে শুরু করেছে। ভারতবর্ষ সাম্রাজ্যের লক্ষ্মী। সেখান থেকে নিহিত স্বার্থে আঘাত কোন হিজ ম্যাজেস্টিস অনারেবেল সাবজেক্ট সহ্য করবে। ১৯১৭ সালের ডিসেম্বর মাসে ভারতসচিব মন্টেগু মহামান্য স্যার সিডনি রাওলাটের নেতৃত্বে একটি কমিটি গঠন করলেন। তার কাজ হলো ভারতবর্ষে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি কীকরে কাবু'র মধ্যে রাখা যায় সে বিষয়ে উপদেশ দেওয়া। রাওলাটসাহেব ১৯১৯ সালের মার্চ মাসে প্রস্তাব করলেন ভারতবর্ষে যে সব ছিঁচকে লোকজন সহ্যের শেষ সীমায় পৌঁছোবার কষ্টে প্রতিবাদ করতে শুরু করেছে, তাদের সবাইকে বিনাবিচারে গারদে পোরা হোক। প্রেসের কণ্ঠরোধ করা হোক আর আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিসকে সম্পূর্ণভাবে দমননীতি গ্রহণ করার ক্ষমতা দেওয়া হোক। সেন্ট্রাল লেজিসলেটিভ কাউন্সিল মার্চ মাসেই প্রস্তাবটিকে অনুমোদন দিয়ে দিলো।
-----------------------------------------------
এই পর্যায়ের দমনমূলক নীতি ও তার সম্ভাব্য প্রতিক্রিয়া যে কতোটা ভয়াল হতে পারে সেই চিন্তায় এদেশে মানুষের আন্দোলন উত্তাল হয়ে ওঠে। রাওলাট প্রস্তাবকে কালা কানুন আখ্যা দিয়ে সারাদেশে আন্দোলন শুরু হয়ে যায়। গান্ধিজি তখন রণকৌশল হিসেবে সত্যাগ্রহের কার্যকারিতা নিয়ে পরীক্ষানিরীক্ষা করছিলেন। এই কানুনের প্রতিবাদে সারা দেশে হরতাল ডাকা হয়। দেশের বিভিন্ন স্থানে প্রতিবাদ কর্মসূচী হিংসাত্মক হয়ে ওঠে। তার চরিত্র অবশ্যই গান্ধিজির সত্যাগ্রহের নিয়মমতো হতে পারেনি। অহিংস থাকা যাচ্ছেনা এই অভিযোগে অকস্মাৎ গান্ধিজি ব্যাপক মাত্রায় ছড়িয়ে পড়া এই হরতাল প্রত্যাহার করে নিয়েছিলেন হত্যাকান্ড সম্পন্ন হয়ে যাবার পর ।
---------------------------------------------------
বৈশাখি উৎসব পঞ্জাবের একটি মুখ্য উদযাপন। পড়েছিলো ১৩ই এপ্রিল ১৯১৯। সেই দিনটিতে অমৃতসরের সাধারণ মানুষ পঞ্জাবের দুই বিশিষ্ট আন্দোলনকারী জননেতা ডঃ সতপাল এবং সইফুদ্দিন কিচলু'র গ্রেফতারের প্রতিবাদে একটি সভা ডাকলো। হিন্দু কলেজ, ধাব খটিকন, অমৃতসরে এক সমাবেশে এই সভাটি প্রস্তাব করেছিলেন ডঃ কিচলু'র সহযোগী মেঘরাজ। স্থান, পুরোনো শহরে একটি জনবহুল এলাকায় একটি ঘেরা জায়গা, নাম জালিয়াঁওয়ালা বাগ। ২০০ গজ বাই ২০০ গজ মাপের একটুকরো ভূখন্ড। বর্ষাকালে কিছু চাষবাস হয়। অন্যসময় স্থানীয় সভাসমিতি করার জন্য ব্যবহার করা হয়। অবস্থান হরমন্দির সাহিবের কাছেই একটি ঘিঞ্জি পরিবেশে। একটি মাত্র সরু গলিপথ দিয়ে সেখানে ঢোকা যায়। বাকি চারটে গেট সাধারণত তালাবন্ধ থাকে। চারদিক দশফুট উঁচু দেওয়াল দিয়ে ঘেরা। প্রাঙ্গনটির মাঝখানে একটি সমাধিস্থল এবং একদিকে একটি গভীর কুঁয়ো। এর আগে ১০ই এপ্রিল অমৃতসরের জেলাশাসকের বাংলোর সামনে ঐ দুজন নেতার মুক্তি দাবি করে সমবেত সত্যাগ্রহীদের শান্তসমাবেশে পুলিস কোনও প্ররোচনা ছাড়াই গুলি চালায়। বেশ কিছু সত্যাগ্রহী নিহত হ'ন, সঙ্গে ছিলো বহু আহত মানুষও। এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ১৩ই এপ্রিল সরকার সারা শহরে কারফিউ জারি করলো। সেদিন অপরাণ্হে দলে দলে সাধারণ মানুষ, যাঁরা মূলতঃ বৈশাখির দিন তীর্থ করতে সকালে হরমন্দির সাহিব এসেছিলেন, জালিয়াঁওয়ালাবাগের প্রতিবাদ সমাবেশে সামিল হতে এসে পৌঁছোতে লাগলেন। তার সঙ্গে আরো বহু মানুষ যাঁরা বৈশাখি মেলায় যোগদান করতে এসেছিলেন; কারফিউয়ের জন্য মেলা বন্ধ করে দিতে এই সভায় দলে দলে এসে পৌঁছোলেন। তাঁদের মধ্যে হিন্দু, মুসলিম, শিখ সব সম্প্রদায়ের মানুষই ছিলেন। সেদিন তাঁদের একমাত্র পরিচয় অত্যাচারিত ভারতবাসী। সভার সময় নির্দিষ্ট হয়েছিলো বিকেল সাড়ে চারটে। মুখ্য বক্তা, শহরের জনপ্রিয় দুই নেতা মুহম্মদ বশির আর লালা কনহইয়া লাল।
---------------------------------------
জেনারেল রেজিনাল্ড ডায়ার বৈশাখির সকালে শান্তিরক্ষার উদ্দেশ্যে তার পাইকপেয়াদা'দের নিয়ে শহর পরিভ্রমণে বেরোলো। বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে ঘুরে কারফিউ লাগার কথা ঘোষণা করাই তাদের প্রকাশ্য উদ্দেশ্য। বেলা সাড়ে বারোটা নাগাদ গুপ্তচরদের মুখে সাড়ে চারটে'র সময় জালিয়াঁওয়ালাবাগে সভা হতে যাচ্ছে শুনে তারা তৎকাল ব্যারাকে ফিরে গেলো। তাদের মতলব ছিলো কিছু অন্যরকম।

ঠিক সাড়ে চারটে'তে সভা শুরু হলো। প্রায় কুড়ি হাজার মানুষের সমাবেশ। অতো ছোটো জায়গায় ঘেঁষাঘেঁষি করে তারা জড়ো হয়েছে নেতাদের মুক্ত করার দাবিতে সামিল হতে। তখন মঞ্চে সবে লালা কনহাইয়া লাল বলতে শুরু করেছেন। জেনারেল ডায়ার তার পঁয়ষট্টিজন গুর্খা আর পঁচিশজন পঠান'বালোচ সৈন্যসামন্ত নিয়ে সেখানে এসে পৌঁছোলো। তাদের পঞ্চাশজনের সঙ্গে ছিলো থ্রি-নট-থ্রি লী-এনফিল্ড আর চল্লিশজনের সঙ্গে খুকরি। তাতেই শেষ নয়, দু'টো মেশিনগানসহ সাঁজোয়াগাড়িও ছিলো তাদের সঙ্গে। ঢোকার গলিটি অত্যন্ত সরু হবার জন্য সেগুলিকে ভিতরে নিয়ে যাওয়া গেলোনা। বাইরেই থেকে গেলো তারা। এই জন্য ডায়ার পরে খুব দুঃখ করেছিলো। ভিতর-বাহির করার একমাত্র গলিপথটিকে সম্পূর্ণ আটকে দিয়ে ডায়ার গুলি চালানোর আদেশ দিলো। এছাড়া, যাতে বুলেট বৃথা নষ্ট না হয় সেজন্য এ আদেশও ছিলো সমাবেশের যে যে অংশে বেশি ভিড় আছে সেদিকেই যেন বন্দুক তাক করা হয়। তাতে অনেক বেশি মানুষ মারা পড়বে। প্রায় পনের মিনিট ধরে ১৬৫০ রাউন্ড গুলি চালানো হলো নির্দোষ, নিরপরাধ, শান্ত জনতার উপর। তারা অবশ্য আরো কিছুক্ষণ গুলি চালানোর জন্য মানসিক প্রস্তুতি নিয়ে গিয়েছিলো। কিন্তু গুলি'র রসদ ফুরিয়ে যাওয়ায় তাদের পুণ্যকাজটি অসমাপ্ত থেকে যায়। ডায়ার পরে দুঃখ করে বলেছিলো সাঁজোয়াগাড়িগুলো ভিতরে নিয়ে যেতে পারলে একজনকেও জীবিত ছাড়তো না। গুলি, অন্য আঘাত ও পদপিষ্ট হয়ে সেদিন বিকেলে নিহত হয়েছিলেন সহস্রাধিক নিরীহ মানুষ, জখম দেড় হাজারেরও বেশি। সরকারি পরিসংখ্যান ৩৭৯ জন নিহত, ১১৩৭ জন আহত। সব থেকে মর্মান্তিক ছিলো বহু মারাত্মকভাবে আহত মানুষ ও ভাবেই সারারাত সেখানে পড়ে থেকে মারা গেলেন। কারণ কারফিউয়ের জন্য কাউকে উদ্ধারকাজ করতে যেতে দেওয়া হয়নি, সকাল না হওয়া পর্যন্ত। শুধু কুঁয়োটি থেকে ১২০টি মৃতদেহ তোলা হয়েছিলো, যাঁরা প্রাণ বাঁচাতে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন তার মধ্যে, তাঁদের।
----------------------------------------
প্রেস অ্যাক্ট লাগিয়ে যাবতীয় সংবাদমাধ্যমগুলি সরকার নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নিয়ে এলো। অমৃতসরে সমস্ত বহিরাগত মানুষের প্রবেশ নিষেধ। দীনবন্ধু অ্যান্ড্রুজ লোকমুখে কিছু খবর পেয়ে পঞ্জাব যাত্রা করলেন। তাঁকে প্রথমে অনুমতি দেওয়া হলেও অমৃতসরে পৌঁছোনোর আগেই ট্রেনে তাঁকে গ্রেফতার করে ফেরত পাঠানো হলো। নানাসূত্রে ছেঁড়া ছেঁড়া কিছু খবর কবির কাছে আসছিলো। তিনি অনুভব করছিলেন বড়ো কিছু একটা হয়েছে। কিন্তু বিশদ খবর পাচ্ছিলেন না। এই ঘটনার পাঁচদিন পরে ১৮ই এপ্রিল গান্ধিজি সত্যাগ্রহীদের সংযমহীন কার্যকলাপে নিরুৎসাহ হয়ে আন্দোলন প্রত্যাহার করে নিলেন। মন্তব্য করলেন " a blunder of Himalayan miscalculation"। অথচ গান্ধিজিকে এই আন্দোলনের কর্মপদ্ধতির সম্ভাব্য চ্যুতির কথা জানিয়ে কবি ১২ই এপ্রিল একটি চিঠি দিয়েছিলেন । কিন্তু গান্ধিজি নিজের রণকৌশল বিষয়ে এতো আত্মবিশ্বাসী ছিলেন যে কবির সাবধানবাণীর প্রতি কর্ণপাত করেননি। গত একশো বছর ধরে ইংরেজ প্রচারিত তথাকথিত সাম্যমূলক ন্যায়বিচার ও সমদৃষ্টির যে ভাঁওতা প্রচার করা হতো, গান্ধিজি তাতে কিছু হলেও বিশ্বাস করতেন। কবির এ বিষয়ে মন্তব্য "one continual lie, one perpetual deceit", গান্ধিজি ঠিক বিশ্বাস করতেন না। কবি আরো বললেন, "And today in 1919 the last shred of pretence at equality is thrown away and race insolence stands out stark naked for every one to see, in flogging Indians in their own public streets, in martial law proclamations that are frankly, brutally for Indians only, in aeroplanes bombing helpless villagers and machine guns firing on crowds armed only sticks." তিনি হয়তো আরো কিছু লিখতেন, কিন্তু সে চিঠি সেন্সরের কাঁচি পেরিয়ে গান্ধিজির কাছে কখনও পৌঁছোতো না। তাই এতোটাই লেখা হয়েছিলো।
------------------------------------
এই সময়টা কবি শান্তিনিকেতনে ছিলেন। ২২শে মে তিনি কলকাতায় ফিরে আসেন। শরীর খুব দুর্বল। মন আরো অস্থির। ২৮শে মে তারিখে প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায় যখন রামানন্দ চট্টোপাধ্যায়ের বাড়ি যা'ন, তখন দেখেন দোতলার বারান্দায় কবি ও সাংবাদিক অত্যন্ত গম্ভীর হয়ে বসে কিছু আলোচনা করছেন। তিনি অনুমান করেন পঞ্জাব বিষয়েই তাঁদের মধ্যে বিনিময় হচ্ছে। স্মৃতিচারণে রামানন্দকন্যা সীতাদেবী'র মনে পড়ে তিনি যখন সেদিন কবি'র কাছে কুশলসংবাদ নিতে যা'ন তখন কবি বলেন, " যেরকম চারদিক উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে, ভিতরে ভিতরে পুড়ে পুড়ে কী করে ভালো থাকবো।" সেদিন সকালের কথা পাই কালিদাস নাগে'র ডায়রি'র সূত্রে। " ..... বিচিত্রায় এসে কবির সঙ্গে দেখা। Punjab ও present discontent সম্বন্ধে যে চিঠি পড়লেন, শুনে অবাক।" সম্ভবত কবি'র কাছে কোনও প্রত্যক্ষ সাক্ষীর চিঠি এসে পড়েছিলো সে সময়। পঞ্জাব ও জালিয়াঁওয়ালাবাগ সম্বন্ধে নানা সূত্র থেকে কবি'র কাছে খবর এসে পৌঁছোচ্ছিলো। রুচিরাম সাহনি'র থেকে অনেক প্রাসঙ্গিক কথা জেনে বনোয়ারিলাল চৌধুরী জোড়াসাঁকোয় কবি'কে এসে জানালেন। এই সব সংবাদ মানসিকভাবে কবি'কে এমন অস্থির করে তুললো যে প্রশান্তচন্দ্র তাঁরা মাতুল ডাক্তার নীলরতন সরকারকে ডেকে এনে কবি'র স্বাস্থ্যপরীক্ষা করালেন। ডাক্তার কবি'কে সম্পূর্ণভাবে শারীরিক ও মানসিক বিশ্রাম নিতে নির্দেশ দিয়ে গেলেন। শারীরিকভাবে তিনি তখন এতো দুর্বল হয়ে গিয়েছিলেন যে চলাফেরা করতে অসুবিধে হতো। সারাদিন একটি লম্বা চেয়ারে বিষাদগ্রস্ত হয়ে শুয়ে থাকেন। কথা-বার্তা, হাসি-গল্প, সব নিরুদ্দেশ। এই অবস্থায় অ্যান্ড্রুজসাহেব'কে ডেকে পাঠালেন। তাঁর সঙ্গে আলোচনা করলেন, পঞ্জাবে যা ঘটেছে তা নিয়ে দেশে কোনও প্রধান ব্যক্তিরা প্রতিবাদ করছেন না, এই ব্যাপারটা কবি'র অসহ্য বোধ হচ্ছে। তাঁকে নির্দেশ দিলেন গান্ধিজির সঙ্গে যোগাযোগ করতে। কবি'র ইচ্ছা, কবি ও গান্ধিজি একসঙ্গে পঞ্জাব যাবেন এবং নিষেধাজ্ঞা অমান্য করার জন্য যদি ব্রিটিশ পুলিস তাঁদের গ্রেফতার করে, তবে সেভাবেই তাঁদের প্রতিবাদটি পৌঁছে দেওয়া হবে বর্বর শাসকের কাছে। অ্যান্ড্রুজসাহেব গেলেন গান্ধিজির সঙ্গে কথা বলতে। কবি অধীর আগ্রহে প্রতীক্ষা করতে থাকেন অ্যান্ড্রুজ কতো দ্রুত গান্ধিজির সম্মতি নিয়ে ফিরে আসেন।
----------------------------------------

কয়েকদিন পর সকালবেলায় পুরোনো বাড়ির দোতলায় পশ্চিম বারান্দায় কবি বসে আছেন। অ্যান্ড্রুজ এসে বসলেন সেখানে। তাঁকে দেখেই কবি অধীরভাবে প্রশ্ন করলেন, " কী হোলো? কবে যাবেন?" অ্যান্ড্রুজ খুব শান্তভাবে বললেন, "বলছি... আপনার শরীর এখন কেমন আছে?" কবি বললেন, ওসব কথা এখন থাক। গান্ধিজি কবে যাবেন বলেছেন? একটুক্ষণ চুপ থেকে অ্যান্ড্রুজ বললেন, গান্ধিজি এখন পঞ্জাবে যেতে রাজি ন'ন। বলেছেন, " I do not want to embarraass the Government now." এই কথা শুনে কবি একেবারে নির্বাক। পরদিন সন্ধেবেলা প্রশান্তচন্দ্র একজন দর্শনপ্রার্থী'কে নিয়ে কবির কাছে বিচিত্রাভবনে দেখা করতে এলেন। কিন্তু গিয়ে দেখেন কবি কোথাও বেরিয়েছেন। তিনি খুবই অবাক। কারণ সেইসময় রথীন্দ্রনাথের অনুপস্থিতি'র কারণে তিনিই কবি'র জনসংযোগের মাধ্যম ছিলেন। তাঁকে না জানিয়ে কবি কোথাও যেতেন না। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করার পর কবি ফিরলেন। খুব বিপর্যস্ত লাগছিলো তাঁকে। কথা বলতে যেন নিতান্ত অনিচ্ছুক। দর্শনপ্রাথী সজ্জন বুঝতে পেরে বিদায় নিলেন। কবি ডাকলেন, " প্রশান্ত, শুনে যাও।" তিনি আসার পর কবি বললেন, " তুমি কাল এখানে এসোনা।
-কেন?
-তা জানবার দরকার নেই। তোমাকে বারণ করছি। আমার কথা তোমাকে রাখতেই হবে। কাল তুমি এখানে আসবে না। আমি বারণ করে দিচ্ছি।"
কবি'কে এতো বিচলিত সচরাচর দেখা যায়না। কিছু না বলে প্রশান্তচন্দ্র ফিরে গেলেন।
-----------------------------------
রাতে তাঁর ভালো ঘুম হলোনা। ভোর আঁধারে আবার ফিরে গেলেন জোড়াসাঁকোয় । বুঝতে পারছিলেন না কেন কবি এতো অস্থির, বিচলিত ? নীচে থেকে দেখা গেলো দোতলার ঘরে আলো জ্বলছে। দারোয়ানদের ডেকে দরজা খুলিয়ে সিঁড়ির দিকে এগিয়ে গেলেন। সেখান থেকেই জানালার ফাঁক দিয়ে দেখলেন একটা টেবিলবাতি জ্বেলে কবি কিছু লিখছেন। প্রশান্ত ঘরে ঢুকতেই একবার তাকিয়ে বললেন, " কী এসেছো?" আবার লেখায় ডুবে গেলেন। কিছুক্ষণ পরে লেখা কাগজটা তাঁর হাতে দিয়ে বললেন, "পড়ো"। তিনি পড়লেন। তারপর কবি বললেন, " কাল সারারাত ঘুমোতে পারিনি। ব্যস, এখন চুকলো। আমার যা করবার, তা হয়ে গিয়েছে। মহাত্মাজি রাজি হলেন না পঞ্জাব যেতে। কাল তাই নিজেই গিয়েছিলুম চিত্তরঞ্জনের কাছে। প্রশান্ত শুধোলেন, কী বললেন তিনি?

কবি চিত্তরঞ্জন'কে বলেছিলেন,
-এই সময় সারা দেশ মুখ বন্ধ করে থাকবে, এ অসহ্য। তোমরা প্রতিবাদ সভা ডাকো। আমি নিজেই বলছি যে, আমি সভাপতি হবো...
চিত্তরঞ্জন একটু ভেবে বললেন,
-বেশ, আর কে বক্তৃতা দেবে?
- সে তোমরা ঠিক করো...
-আপনি যদি সভাপতি হ'ন, তবে তার পরে আর কারুর বক্তৃতা দেওয়ার দরকার হয়না...আপনি একা বললেই যথেষ্ট...
-তাই হবে। এবার তবে সভা ডাকো....
-আপনি একা যখন বক্তৃতা দেবেন, আপনিই সভাপতি, তখন সব চেয়ে ভালো হয় শুধু আপনার নামে সভা ডাকা।

কবি বুঝলেন রাজনীতিকদের দিয়ে কিছু হবেনা। প্রশান্ত'কে বললেন, " অথচ আমার বুকে এটা বিঁধে রয়েছে। কিছু করতে পারবো না, এ অসহ্য। আর আমি একাই যদি কিছু করি, তবে লোক জড়ো করার দরকার কী? আমার নিজের কথা নিজের মতো করে বলাই ভালো। এই সম্মানটা (নাইটহুড) ওরা আমাকে দিয়েছিলো। কাজে লেগে গেলো। এটা ফিরিয়ে দেওয়ার উপলক্ষ্য করে আমার কথাটা বলবার সুযোগ পেলুম।
-------------------------------------------------

আকাশে ততোক্ষণে আলো ফুটেছে। অ্যান্ড্রুজসাহেব এলেন। বড়োলাট'কে তার পাঠানো আর খবরকাগজে দেবার কপি তৈরি করে তিনি বেরিয়ে গেলেন। রামানন্দবাবুকে একটা কপি দেওয়া হলো। কবি'র ধিক্কারের ভাষা ছিলো অগ্নিময়। সারা দেশের প্রধান রাজনীতিকরা যখন সরকারি আইন ও অপশাসনের চাপে নতিস্বীকার করে, কঠোর শাস্তির ভয়ে প্রতিবাদহীন মৌনতা অবলম্বন করেছে, তখন কবি সারা ভারতের আহত'বিবেকের ভূমিকায় নির্ভীক, দ্ব্যর্থহীন এক প্রতিবাদী অবস্থান নিয়ে অত্যাচারিত, অবমানিত মানুষের পাশে এসে দাঁড়ালেন। অ্যান্ড্রুজসাহেব নাকি চিঠির বয়ানটিকে একটু 'নরম' করার জন্য কবি'কে অনুরোধ করেছিলেন। তার উত্তরে কবি অ্যান্ড্রুজসাহেবের দিকে এমন চোখে তাকিয়েছিলেন যা তিনি সারাজীবন ভুলতে পারেননি। " Such a look as I had never seen in the eyes of Gurudev before or after." কালিদাস নাগ তাঁর ডায়রিতে লিখেছেন কবির মুখে চিঠিটির বয়ান শুনে, " গায়ের রক্ত গরম হয়ে গেলো।"
------------------------------------------------
একটি চিঠি যে কোন পর্যায়ে জনমনে বিভিন্নমুখী প্রতিক্রিয়া জাগাতে পারে তার নমুনা আমরা এই সূত্রে দেখতে পেয়েছিলাম। সেগুলির মধ্যে অমৃতবাজার পত্রিকায় বিপিনচন্দ্র পালের 'Taking risk' শীর্ষক সম্পাদকীয় রচনাটি উল্লেখযোগ্য। সেখানে লেখক লিখেছিলেন " ....Under existing law in India, and in the present temper of authorities, common prudence would have certainly counselled silence in this case; and Rabindra Nath has undoubtedly done a rather risky thing in refusing to listen to it.... Rabindra Nath would indignantly repudiate such an appeal as an insult. But we ask the Government to take this view in its own interest only." সীতাদেবীর আত্মকথায় এই লেখাটিকে ' রবীন্দ্রনাথকে বাঁচাইবার জন্য বোকামিপূর্ণ প্রবন্ধ' বলা হয়েছে। জালিয়াঁওয়ালাবাগের ঘটনাক্রম প্রসঙ্গে তৎকালীন ভারতীয় রাজনীতিকদের প্রতিক্রিয়া বিচার করলে এটা স্পষ্ট হয়ে ওঠে এই ট্র্যাডিশনটিকেই আজকের রাজনীতিকেরাও হুবহু বহন করে চলেছেন। এসব 'ছোট্টো' ঘটনার প্রতি কথিত 'common prudence' অনুযায়ী অবস্থানই নিয়েছিলেন গান্ধিজি, চিত্তরঞ্জন, বিপিনচন্দ্রের মতো 'দেশবরেণ্য' জননেতারা। 'সোনার ঠাকুর, মাটির পা' জাতীয় প্রবাদ এভাবেই জন্ম নেয়। চারুচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায় মন্তব্য করেছিলেন "... মানুষ এতো দুমুখো হতে পারে? আশ্চর্য।" এই লেখাটি পড়ে কবি রামানন্দ চট্টোপাধ্যায়কে বলেছিলেন, " আমাকে এমন অপমান কেউ কখনও করেনি।" এর সঙ্গেই আবার একটি বাংলা সংবাদপত্রে সরাসরি সারল্যে লেখা হয়েছিলো, " .... উপাধিনির্মুক্ত হইয়া রবীন্দ্রনাথ এখন মেঘমুক্ত রবির ন্যায় প্রোজ্জ্বল হইয়া উঠিলেন। ..... সমগ্র দেশ যে সময় নির্বাক, ভীত, সকলেই যে সময় 'চাচা আপনা বাঁচা' নীতির আশ্রয় লইবার জন্যই ব্যস্ত ঠিক সেই সময়েই রবীন্দ্রনাথ সকল লজ্জা ভয় ভাবনা পরিত্যাগ করিয়া অগণিত মূক জনসঙ্ঘের গভীর বেদনা এক অপূর্বভাবে প্রকাশ করিয়া যে অনন্যসাধারণ স্বদেশপ্রীতির পরিচয় দিলেন তাহা ইতিহাসে বিরল।" ঘোষিত রবীন্দ্রবিরোধী পাঁচকড়ি বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর 'নায়ক' পত্রিকায় লিখলেন, " রবীন্দ্রনাথ উপাধিবর্জন করিয়া নিজের সুবিধা কি করিয়াছেন তাহা জানিনা, দেশের ও জাতির যে কোন সুবিধা করিতে পারেন নাই, তাহাই বলিব। আমরা তাঁহার কার্যের সমর্থন করিতে পারিলাম না।"
-------------------------------------------
এই চিঠি লেখার সময় কবি সচেতন ছিলেন, রাওলাট আইন অনুমোদিত হয়ে গিয়েছে। সে অবস্থায় সরকার তাঁকে অনায়াসে গ্রেফতার করতে পারেন। এমনই ইঙ্গিত সে সময় সোলানস্থিত রাণু অধিকারীকে নিজস্ব সরস ভঙ্গিমায় দিয়েও ছিলেন। রবীন্দ্রবিরোধিতায় অগ্রণী সুরেশচন্দ্র সমাজপতি কিন্তু কবিকে লিখেছিলেন, " শ্রীচরণকমলেষু, এই ত তোমার যোগ্য কথা"। আচার্য জগদীশচন্দ্র লিখেছিলেন, " বন্ধু, তুমি ধন্য।" মৃত্যুশয্যায় শায়িত আচার্য রামেন্দ্রসুন্দর ত্রিবেদী কবি'কে অনুরোধ পাঠান, তিনি যেন নিজে এসে ঐ চিঠিটি তাঁকে পড়ে শোনান। কবি ২রা জুন সকালে রামেন্দ্রসুন্দরের শয্যাপার্শ্বে বসে মূল চিঠিটি তাঁকে পড়ে শোনান। রামেন্দ্রসুন্দর নীরবে কবির পদধূলি গ্রহণ করেন। কবি তাঁর বাড়ি থেকে নিষ্ক্রান্ত হতেই রামেন্দ্রসুন্দর তন্দ্রানিমগ্ন হয়ে পড়েন। সেই তন্দ্রার মধ্যেই ৬ই জুন, মাত্র ৫৫ বছর বয়সে তিনি তিরোহিত হলেন।
-----------------------------------------------
কবির তরফ থেকে এবং শুধুমাত্র তাঁরই তরফ থেকে এ জাতীয় প্রতিবাদে সরকারি ও সরকারপদলেহী অ্যাংলো ইন্ডিয়ান প্রেস উভয়েই সোচ্চার হয়ে উঠেছিলো। ইংলিশম্যান পত্রিকা লিখেছিলো, " As if it mattered to the reputation, the honour and the security of British rule and justice whether this Bengali poet remained a knight or a plain Babu." বড়ো লাট চেমসফোর্ড ভারতসচিব মন্টেগু'কে ১১ই জুন একটি প্রাইভেট টেলিগ্রাম পাঠান। " A letter dated 31st May has been addressed to me by Rabindranath Tagore announcing his desire to resign Knighthood, which was conferred on him in June 1915, as a protest against the policy followed by the Government in dealing with the recent troubles in the Punjab. He, however, communicated it to the press before its receipt here. ......... the title can, it is presumed, only be revoked by His Majesty by whom it was granted. I propose to reply, in view of the advertisement that would be given to Tagore and of the fact that grant of his request might be interpreted as admission of mistaken policy in the Punjab, that I am unable myself to relieve him of his title and, in the circumstances, do not make any recommendation to His Majesty on the subject...."

এইভাবে চিঠিটি পাবার দশদিন পর বড়োলাটের আপ্তসহায়ক একটি প্রাপ্তিস্বীকার পত্র পাঠিয়ে দেন। তার পর নানা সরকারি আমলারা বহু চিঠিচাপাটি করার পর বড়োলাট সাহেবের উক্ত আপ্তসহায়ক সিগনেল সাহেব ২০শে জুন কবি'কে একটি চিঠিতে জানান। " ...His Excellency the Viceroy is unable himself to relieve you of your title of Knighthood, and that, in the circumstances of the case, he does not propose to make any recommendation on the subject to His Majesty the King Emperor." এভাবেই চতুর ইংরেজ রাজশক্তি সরকারিভাবে গোটা ব্যাপারটির উপর যবনিকা টেনে দেয়। তাদের চাতুর্যের আরো একটা নির্দশন এক্ষেত্রে চোখে পড়ে। তারা সফল হয়েছিলো তাদের পরীক্ষিত ছলনা পদ্ধতি দিয়ে তৎকালীন ভারতীয় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের নিজেদের পক্ষে টেনে নিতে। তাদের এই ছলনার স্বরূপ বুঝতে আমাদের রাজনীতিকদের অনেক সময় লেগে গিয়েছিলো। যখন তাঁরা সচেতন হতে পেরেছিলেন, ততোদিনে অনেক দেরি হয়ে গিয়েছিলো। এমন কি গান্ধিজি ৬ই জুন শ্রীনিবাস শাস্ত্রী'কে লেখেন, " The Punjab horrors have produced a burning letter from the Poet. I personally think it is premature. But he can not be blamed for it." সরকারি সিদ্ধান্ত যাই হোক না কেন, রবীন্দ্রনাথ নিজে এবং তাঁর অনুসারীরা তাঁর নামের সঙ্গে স্যার বা ডঃ আখ্যা চিরদিন বর্জন করে চলেছেন। ব্যতিক্রম ছিলো হিজ ম্যাজেস্টি'জ অনুগত প্রজারা। তারা চিরকাল কবির নামের সঙ্গে স্যার উপাধি লিখে গেছে। আশ্চর্য হতে হয়, অন্যে পরে কা কথা, গান্ধিজি'ও বহুদিন পর্যন্ত কবিকে 'স্যার' বিভূষণে সম্বোধিত করেছেন। ১৯২৫-২৬ সালে 'The Poet and the Charka' শীর্ষক একটি রচনায় গান্ধিজি কবি'র নামের সঙ্গে 'স্যার' উপাধি ব্যবহার করায় রামানন্দ চট্টোপাধ্যায় ও সুবোধচন্দ্র বসু তীব্র প্রতিবাদ জানান। এই বিতর্কের সূত্রে কবি সেই সময় ' Rabindranath Tagore and Knighthood' নামে একটি প্রবন্ধ লেখেন। সেখানে লেখা হয়, " ......in regard to my Knighthood, I feel it right to put clearly my own view of it before the public. It is obvious that it was solely to give utmost emphasis to the expression of my indignation at the Jallianwallaa Bagh massaacre and other deeds of inhumanity that followed it that I asked Lord Chelmsford to take it back from me. If I had not fully realised the value of this title , it would have been impertinent on my part to offer it as a sacrifice when such was needed in order to give strenghth to my voice. ...... I was driven to it when I hopelessly failed to pursuade our political leaders to launch an adequate protest against what was happening at that time in the Punjab......... I do not like any addition to my name, Babu or Sriyut, Sir or Doctor, or Mr.., and, the least of all, Esquire. A psycho-analyst may trace this to a sense of pride in the depth of my being and he may not be wrong."
------------------------------------------------
দেশের বৃহৎ ব্যক্তিদের মধ্যে একমাত্র আচার্য জগদীশচন্দ্র ব্যতিরেকে কেউ কবির পাশে এসে দাঁড়াননি। তাঁকে চূড়ান্ত অসম্মান করা হয় ১৯১৯ সালেই আয়োজিত অমৃতসর কংগ্রেস অধিবেশনে। সেখানে তিনদিন ধরে নানা রাজনীতিক গরম গরম বক্তৃতা দিয়েছিলেন ইংরেজ রাজশক্তি'র অত্যাচার ও বর্বরতা নিয়ে। কিন্তু একবারও কবি'র প্রতিবাদের উল্লেখ করা হয়নি। শুধু স্বামী শ্রদ্ধানন্দ একবার কবির নাম উল্লেখ করেছিলেন অতি সংক্ষেপে। আজ আশ্চর্য লাগে এই ভেবে, সেই সময় কংগ্রেসের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের মধ্যে বাঙালিরা ছিলেন বৃহৎ অংশ। তবু তাঁরা কবির এই প্রতিবাদ নিয়ে সম্পূর্ণ মৌন থাকাই শ্রেয় বোধ করেছিলেন। ২৫শে জুন তারিখে কবি অমিয় চক্রবর্তীকে লিখেছিলেন, " আমাদের কতো দুঃখ, কতো যে দায়িত্ব তার সীমা নেই---অথচ আমরা শুধু দুঃখটাই বহন করে চলেছি, দায়িত্বকে গ্রহণ করছিনে , এইটেতে আমরা কেবল নেমে যাচ্ছি........ এতদিন এই নিয়ে কেবলি লড়াই করেছি এবং দেশের লোকের কাছ থেকে নিয়ত মার খেয়েচি।"
------------------------------------------

বহুদিন হয়ে গেলো। ১৯৬৯ সালে কবির'র নাইটহুড প্রত্যাখ্যানের পঞ্চাশবর্ষ পূর্তি হিসেবে আমাদের শহরে একটি সভা আহ্বান করা হয়েছিলো। আমার প্রয়াত পিতৃদেব ছিলেন এই আয়োজনের একজন উদ্যোক্তা ও প্রধান বক্তা। আমি তখন নিতান্ত বালক। কিন্তু পারিবারিকসূত্রে এই সব অনুষ্ঠানে জ্ঞানবয়স থেকে থাকার সুযোগ পেতুম। সেদিন সভায় যে সব কথাবার্তা হয়েছিলো তার অধিকাংশই ঠিক বোধগম্য হয়নি। পরে পিতৃদেবের কাছে প্রশ্ন করে করে কিছু জানা হয়ে গিয়েছিলো। তবে যে অনুভূতিটি এখনও ভুলিনি সেটি আমার পিতৃদেবের এই ঘটনা প্রসঙ্গে কবি'র অসম্মানজনিত ক্ষুব্ধ আক্ষেপ। তাঁরা ভাবতেন একদিন কবির এই প্রতিবাদ মানুষের কাছে উপযুক্ত স্বীকৃতি পাবে। নানা নৈরাশ্যের মধ্যে তাঁদের এই আশাবাদ যথেষ্ট প্রখরভাবে বিরাজমান ছিলো। কিন্তু বস্তুতঃ ঘটেছে ঠিক বিপরীত। সেদিন এক যথেষ্ট আলোকপ্রাপ্ত, শিক্ষিত বাঙালি বন্ধু বললেন কবি নাকি নোবেল পুরস্কার প্রত্যাখ্যান করেছিলেন। প্রশ্ন করি, কেন? তিনি জানান গান্ধিজিকে গ্রেফতার করার প্রতিবাদে। তিনি আমাদের প্রজন্মের মানুষ। যদি এই অবস্থা হয়, তবে তাঁর সন্ততিরা কোন অবস্থানে আছে ভাবতে অবসাদ বোধ করি। তখনই এই লেখাটি মাথায় আসে। যদিও এই নিয়ে অনেক কথা বলা বা লেখা হয়েছে, কিন্তু তা মোটামুটি অ্যাকাডেমিক বাতাবরণে। আমাদের মতো ইতরজনদের জন্য এই নিয়ে মূলস্রোতের ইতিহাস একান্ত মৌন। আবার যখন এই মূহুর্তে জালিয়াঁওয়ালা বাগের প্রামাণ্য ইতিহাসগ্রন্থগুলি নিয়ে পড়তে বসি, সেই ঘটনায় ব্রিটিশ শাসকের হিংস্রতা, নিষ্ঠুরতা, বর্বরতা নিয়ে প্রায় একশো বছর পরেও তড়িৎস্পৃষ্ট হয়ে যাই। বিস্মিত হইনা ইংল্যান্ডে জেনারেল ডায়ার'কে দেওয়া তার দেশবাসীর অভ্যর্থনায়। কিন্তু স্তম্ভিত করে এই ঘটনার প্রতি আমাদের নেতৃবৃন্দের সামূহিক অবহেলা ও ঔদাসিন্য। শুধু কবিই সেদিন সম্মান রেখেছিলেন সমগ্র জাতির আত্মগৌরব, আত্ম উপলব্ধির।

তিনি যে শুধু পঁচিশে বৈশাখ ন'ন, তার প্রমাণ আরেকবার পেয়ে যাই, এভাবেই।

(সৌজন্যেঃ 'অবসর' পত্রিকা)

350 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: শিবাংশু

Re: হননবৈশাখ ও একজন কবি

বৈশাখের অনুষঙ্গ হয়ে যা কিছু জড়িয়ে থাকে, তার মধ্যে ইতিহাসের এই সর্ব অর্থে ভয়ালতম অধ্যায়টি এতোদিন পরেও ঠিক ভুলে থাকা যায়না। উত্তরাধিকারের গৌরবটিও....
Avatar: avi

Re: হননবৈশাখ ও একজন কবি

খুব, খুব ভালো লাগল। সময়ের প্রাসঙ্গিকতাও।
Avatar: Robu

Re: হননবৈশাখ ও একজন কবি

খুব ভাল লাগল।
Avatar: সেই

Re: হননবৈশাখ ও একজন কবি

জালিয়াঁওয়ালাবাগ আমি দেখে এসেছি। দু-দুবার। আজও হাড় হিম হয়ে যায় সেই ক্ষুদ্র ভূখণ্ড, সেই কুয়ো আর চারপাশের দেয়ালে সেই গুলির দাগ দেখলে।

ভারতীয় রাজনীতি, বা ভারতীয়দের রাজনীতিবোধ আজও খুব বদলায় নি। সত্যিই।
Avatar: dd

Re: হননবৈশাখ ও একজন কবি

অতি উৎকৃষ্ট লাগলো। শিবাংশুকে থেংকু জানাই ।

আমার পাকামি একটু অ্যাড করে দি।

"বিস্মিত হইনা ইংল্যান্ডে জেনারেল ডায়ার'কে দেওয়া তার দেশবাসীর অভ্যর্থনায়। কিন্তু স্তম্ভিত করে এই ঘটনার প্রতি আমাদের নেতৃবৃন্দের সামূহিক অবহেলা ও ঔদাসিন্য। "। নো, নট দ্য হোল ট্রুথ। ব্রিটীশেরা ও'ডায়ারের জন্য চাঁদা তুলে টাকা যোগার করেছিলো কিন্তু চামচাগিরিতে ভারতীয় বিশেষতঃ শিখ সম্প্রদায়কে হারাতে পারে নি। শিখ প্রবন্ধক কমিটি থেকে সব গুরুদ্বারা তখন ডায়ার বাবুকে শিরোপা দিয়ে,খিলাপ দিয়ে যা করেছিলো সেটা জাস্ট"ঔদাসিন্য" নয়।

ডায়ার বাবুর অটোবায়োগ্রাফিতেও দেখেছি উনি সাফাই দিয়েছেন - এতো'ই যদি খারাব কাজ করে থাকি তো নেটিভরা এতো আগ বাড়িয়ে কনগ্রাচুলেট করেছিলো ক্যানো?

সেকেন্ড পয়েন্ট - সেটা হচ্ছে রবিবাবু প্রতিবাদ করেছিলেন ১০০% কিন্তু তার প্রতিবাদ পত্রের শেষ প্যারাটি বড়ো'ই করুন ছিলো। হাতের কাছে তো নেই। বহুল প্যারাপ্রেজিত ভাবে বলা যায় উনি লিখেছিলেন আপনেরা এতো মহান বলেই আমি এই প্রতিবাদের সাহস পেলাম। আপনাদের সুসভ্যতার মুখে কালি দিচ্ছে ঐ ডায়ার বাঁদর। এইরকম। তবে হয়তো এ ছাড়া উপায়ও ছিলো না।

ভারতীয় সমাজের ভুমিকা ছিলো অতীব খারাপ। তুলনা করা যায় স্মরনীয় অতীতেই, এমারজেন্সীর সময়ে তাবৎ বিদ্বজনের স্পেশালি কমুনিসদের প্রভুত প্রভুত ল্যাজ নাড়ানাড়িকে।
Avatar: sosen

Re: হননবৈশাখ ও একজন কবি

ডিডিদাকে ক। ডায়ারকে অনারারি শিখত্বে ভূষিত করা হয়েছিল স্বর্ণমন্দির থেকে। দাড়ি রাখায় ছাড় দেওয়া হয়েছিল কিন্তু উনি বলেছিলেন একটা করে কম সিগারেট খাবেন সেটা মাসে না বছরে না দিনে মনে নাই।
শিবাংশুদার লেখাটা ভালো লাগল।
Avatar: Ekak

Re: হননবৈশাখ ও একজন কবি

ভালো লাগলো লেখা টা । ব্রিটিশ দের "প্রভু" মনে করার রোগ সকলেরই অল্পবিস্তর ছিল , ইতিহাস যদ্দুর পড়েছি। রবিবাবু একেবারে লাগামছাড়া সমালোচক ছিলেন তা নয় , তবে কিছু মানুষের শিরদাঁড়া অন্যদের চে বেশি সোজা হয় , উনি সেই দলের । সেটুকু ভাবলেও ভালো লাগে ।
Avatar: avi

Re: হননবৈশাখ ও একজন কবি

হুঁ, 'সভ্যতার সঙ্কট' লেখার আগে অব্দি তো কিছুটা ছিলই। তার আগে সাধারণ ধারণা ছিল ইংরেজরা ভালোই, কিন্তু এদেশে যারা আসে তারা বৃটিশ সমাজের আবর্জনা। সুরেন্দ্রনাথ মনে হয় এরকম একটা কথা বলেওছিলেন প্রকাশ্যে।
Avatar: শিবাংশু

Re: হননবৈশাখ ও একজন কবি

avi, Robu, সেই,dd, sosen,ekak'কে ধন্যবাদ।

প্রথমে dd'কে লিখি,
কবির প্রতিবাদপত্রের শেষ প্যারার 'করুণ' অংশ বলে যে উক্তিটির উল্লেখ করা হয়েছে, সেটি সম্ভবত এইটি,
“.... Knowing that our appeals have been in vain and that the passion of vengeance is blinding the nobler vision of statesmanship in our Government, which could so easily afford to be magnanimous as befitting its physical strength and moral tradition, the very least that I can do for my country is to take all consequences upon myself in giving voice to the protest of the millions of my countrymen, surprised into a dumb anguish of terror.”
যদি এই উক্তিটিই ধরা হয় ( কারণ, বাকি চিঠিতে বক্তব্য বেশ সোজাসুজিভাবে লেখা হয়েছিলো) তবে বলবো, একজন কবির প্রতিবাদ ও একজন রাজনীতিকের প্রতিবাদের ভাষায় পার্থক্য থাকবেই। তহজিবের এই ফারাকটিকে 'প্যারাফ্রেজে'র বিধি অনুযায়ী ব্যাখ্যা অবশ্যই করা যায়। কিন্তু তাতে প্রতিবাদের যাথার্থ্য বা তীব্রতা হ্রাস পায়না বলেই মনে হয়।
-----------------------------
দ্বিতীয়ত, রাওলাট আইন সংক্রান্ত আন্দোলনে শিখদের যোগদান বিশেষ ছিলোনা। তবে মনে রাখতে হবে তৎকালীন পঞ্জাবে শিখরা ছিলেন সংখ্যালঘু গোষ্ঠী। তাঁরা সামগ্রিকভাবে পঞ্জাবের জনগণের প্রতিনিধিত্ব করতেন না। এক বাহ্য, গোটা জালিয়াঁওয়ালাবাগ প্রকরণটিতে কোনও 'শিখ' নেতার যোগদান দেখতে পাইনি। জেনারেল ডায়ারকে হরমন্দির সাহিবে যে সরোপা ইত্যাদি দেওয়া হয়েছিলো তার কারণ ছিলো কিছু অন্য রকম। বস্তুতঃ ঐতিহাসিক কারণে যারাই মুসলিমদের আক্রমণ বা অধীনতার বিরুদ্ধে শিখদের ধর্ম ও ধর্মস্থানের নিরাপত্তার পক্ষে সওয়াল করতো, তাদেরই শিখ পুরোহিতবর্গ সম্মান জানাতেন।
শিখদের সঙ্গে ডায়ারের ঘনিষ্টতা বিষয়ে Nigel Collet তাঁর ' Butcher of Amritsar : General Reginald Dyer' বইটির ২৯১-২৯৩ পাতায় কিছু তথ্য দিয়েছেন।
--------------------------------
এবার ekak ও avi,

এটা ইতিহাস, যে ব্রিটিশরা আমাদের 'প্রভু' ছিলো। আসলে সামগ্রিকভাবে ধরতে গেলে 'জালিয়াঁওয়ালাবাগ' আমাদের স্বাদেশিক সচেতনতার উন্মেষপর্বের জলবিভাজকের কাজ করেছিলো। এই ঘটনার পর থেকেই এদেশের সাধারণ মানুষের চেতনায় ইংরেজের 'প্রভুত্বে'র অপরাজেয় ধারণাটি বৃহৎ ধাক্কা খায়। ব্রিটিশরাজও তা বুঝতে পেরেছিলো। জেনারেল ডায়ার'কে সমাদর বা নিন্দা করার প্রশ্নে তৎকালীন ব্রিটিশরাজের দুই গোষ্ঠী, টোরি ও লিবারেল, ভিন্ন অবস্থান নিয়েছিলো। হাউস অফ কমনসে ১৯২০ সালের জুলাইমাসে তৎকালীন Secretary of State for War উইনস্টন চার্চিল মশায় এই আক্রমণকে শুধু "monstrous" বলেই ক্ষান্তি দেননি, আরো বলেছিলেন "The crowd was unarmed, except with bludgeons. It was not attacking anybody or anything… When fire had been opened upon it to disperse it, it tried to run away. Pinned up in a narrow place considerably smaller than Trafalgar Square, with hardly any exits, and packed together so that one bullet would drive through three or four bodies, the people ran madly this way and the other. When the fire was directed upon the centre, they ran to the sides. The fire was then directed to the sides. Many threw themselves down on the ground, the fire was then directed down on the ground. This was continued to 8 to 10 minutes, and it stopped only when the ammunition had reached the point of exhaustion."ভূতপূর্ব প্রধানমন্ত্রী অ্যাস্কুইথ্সাহেব বলেছিলেন , "one of the worst outrages in the whole of our history"। জেনারেল ডায়ারের বিরুদ্ধে সরকারের নিন্দাপ্রস্তাব ২৪৭-৩৭ ভোটে গৃহীত হয়। হান্টার কমিশনের সুপারিশ সেনাবাহিনীর বহু প্রধান আধিকারিকদের বিরুদ্ধতায় কার্যকরী করা হয়নি। কিন্তু পরে ডায়ারের চাকরি যায়। যদিও বেশ বড়ো সংখ্যক দেশবাসীর কাছে সে 'হিরো' হয়ে গিয়েছিলো।
---------------------------
কবির কাছে জাতীয়তাবোধ, স্বাদেশিকতার ব্যাখ্যা, স্বাধীনতার অর্থ ইত্যাদি, সেকালের কংগ্রেসি ধ্যানধারণা বা একালের ফ্যাসিস্ট শক্তি প্রচারিত ফতোয়া থেকে আমূল ভিন্ন ছিলো। তাঁর চৈতন্যের অভিমুখ কখনো'ই মূঢ় সরলরৈখিক পথে চলেনি। এ বিষয়ে আগ্রহীদের আমি নেপাল মজুমদার মশায়ের 'ভারতে জাতীয়তা, আন্তর্জাতিকতা ও রবীন্দ্রনাথ' গ্রন্থের চারটি খন্ড এবং 'রবীন্দ্রনাথ-কয়েকটি রাজনৈতিক প্রসঙ্গ' নামক বইটি পড়তে অনুরোধ করবো। রবীন্দ্রনাথ মানে শুধু গীতাঞ্জলি বা সভ্যতার সংকট নয়। :-)


Avatar: avi

Re: হননবৈশাখ ও একজন কবি

অনেক ধন্যবাদ।
আরেকটা কথা জেনে নিই। উধম সিংএর বিষয়ে ইংল্যান্ডে কিরকম মতামত তৈরি হয়েছিল এ নিয়ে কিছুই জানি না। তা কি একরৈখিক ছিল, নাকি সেখানে ভিন্নস্বর এসেছিল?
Avatar: আচ্ছা

Re: হননবৈশাখ ও একজন কবি

"জেনারেল ডায়ারকে হরমন্দির সাহিবে যে সরোপা ইত্যাদি দেওয়া হয়েছিলো তার কারণ ছিলো কিছু অন্য রকম। বস্তুতঃ ঐতিহাসিক কারণে যারাই মুসলিমদের আক্রমণ বা অধীনতার বিরুদ্ধে শিখদের ধর্ম ও ধর্মস্থানের নিরাপত্তার পক্ষে সওয়াল করতো, তাদেরই শিখ পুরোহিতবর্গ সম্মান জানাতেন।"

তাহলে ওটা চামচামি নয়? ১৯১৯ সালে হরমন্দির সাহিব এর নিরাপত্তা মুসলমানদের 'আক্রমণ ও অধীনতায়' জনিত কারণে বিঘ্নিত ছিল?

Avatar: শিবাংশু

Re: হননবৈশাখ ও একজন কবি

avi,

উধম সিং প্রসঙ্গে গান্ধিজি বলেছিলেন, এই 'পাগলামি' তাঁকে দুঃখ দিয়েছে। নেহরু প্রথমে বলেছিলেন 'সেন্সলেস' এবং যথেষ্ট দুঃখপ্রকাশ করেছিলেন ব্রিটিশদের কাছে। তার পর ভোল পালটে শহীদ-এ-আজম উধম সিং'কে সলামও জানিয়েছিলেন। তবে লন্ডনের টাইমস পত্রিকা উধম সিংকে নিপীড়িত ভারতবর্ষের বিদ্রোহী চেতনার একজন স্বাধীনতা সংগ্রামী হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছিলো।

'আচ্ছা',

আমার মন্তব্যটি ছিলো এরকম, "....রাওলাট আইন সংক্রান্ত আন্দোলনে শিখদের যোগদান বিশেষ ছিলোনা। তবে মনে রাখতে হবে তৎকালীন পঞ্জাবে শিখরা ছিলেন সংখ্যালঘু গোষ্ঠী। তাঁরা সামগ্রিকভাবে পঞ্জাবের জনগণের প্রতিনিধিত্ব করতেন না। এক বাহ্য, গোটা জালিয়াঁওয়ালাবাগ প্রকরণটিতে কোনও 'শিখ' নেতার যোগদান দেখতে পাইনি। জেনারেল ডায়ারকে হরমন্দির সাহিবে যে সরোপা ইত্যাদি দেওয়া হয়েছিলো তার কারণ ছিলো কিছু অন্য রকম। বস্তুতঃ ঐতিহাসিক কারণে যারাই মুসলিমদের আক্রমণ বা অধীনতার বিরুদ্ধে শিখদের ধর্ম ও ধর্মস্থানের নিরাপত্তার পক্ষে সওয়াল করতো, তাদেরই শিখ পুরোহিতবর্গ সম্মান জানাতেন।"

'শিখ'রা ব্রিটিশদের 'চামচামি' করতেন কি না সেটা এই লেখাটির উপজীব্য নয়। আমার বক্তব্য ছিলো সেকালে মূল স্রোতের ভারতীয় রাজনৈতিক নেতারা জালিয়াঁওয়ালাবাগ প্রকরণে কী জাতীয় অবস্থান নিয়েছিলেন, সেই বিষয়ে। অবিভক্ত পঞ্জাবে সংখ্যালঘু শিখদের পুরোহিতগোষ্ঠীর অবস্থান নিয়ে সেকালে কবির এবং একালে এই প্রতিবেদকের বিশেষ মাথাব্যথা নেই। কারণ সামগ্রিক বিচারে শিখ সম্প্রদায় ব্রিটিশদের 'চামচা হলে ঘদর পার্টি, ভগত সিং, কর্তার সিং বা উধম সিংদের মতো শিখদের আমরা পেতাম না। তবে মনে রাখতে হবে এই সব স্বাধীনতাপ্রয়াসীরা সবাই ছিলেন বামপন্থায় বিশ্বাসী। তাঁদের সঙ্গে শিখ পুরোহিতদের কোনও রকম আদর্শের মিল ছিলোনা। সব 'শিখ'দের এক তুলির টানে রাঙিয়ে দেওয়ার ট্র্যাডিশন এদেশে বেশ পুরোনো এবং এখনও তা দেখতে পাওয়া যায়।
Avatar: ranjan roy

Re: হননবৈশাখ ও একজন কবি

একটি অসা সময়োপযোগী তথ্যপূর্ণ ও বিশ্লেষণাত্মক লেখা।
অনেক ধন্যবাদ।
Avatar: Tim

Re: হননবৈশাখ ও একজন কবি

লেখাটা খুব ভালো লাগলো।
সম্পূর্ণ কাকতালীয়ভাবে কদিন আগে সোনালী বোসের '৮৪ এর শিখ জেনোসাইডের ওপর বানানো ছবি "আমু" দেখতে বসে আবিষ্কার করলাম জালিয়ানওয়ালাবাগের তারিখ ম্যাচ করছে। তার আগের দিনই দেখেছি ফিরাক , নন্দিতা দাসের (গুজরাত দাঙ্গা)। বা হ্দরুন বিশাল ভরদ্বাজের হায়দর। এই সিনেমাগুলো যখন দেখি, বা কাশ্মীর নিয়ে লেখার জন্য বইপত্র ঘাঁটি তখন আমার মনে হয় নাগরিক প্রাণের মূল্য পরাধীন ভারত আর স্বাধীন ভারতে খুব আলাদা ছিলোনা কোনদিন, ভবিষ্যতে হবে কিনা সময় বলবে। শিবাংশুদাকে আবার ধন্যবাদ এরকম প্রাসঙ্গিক ও তথ্যপূর্ণ লেখার জন্য।
Avatar: দ

Re: হননবৈশাখ ও একজন কবি

ভাল লাগল লেখাটা।
Avatar: কান্তি

Re: হননবৈশাখ ও একজন কবি

সময়চিত লেখাটির জন্য শিবাংশু বাবুকে অনেক ধন্যবাদ।সেই সঙ্গে যারা আলোচনাকে আরো গভীরে নিয়ে যেতে সাহায্য কোরছেন তাদেরও ধন্যবাদ প্রাপ্য।
Avatar: শিবাংশু

Re: হননবৈশাখ ও একজন কবি

১৯৬৯ সালে রবীন্দ্রনাথ বেঁচেই ছিলেন না।নাইটহুড উপাধি তিনি আরো পূর্বে বর্জন করেছিলেন।নিবন্ধের শেষ দিকে এই ছাপার ভুল হয়ে থাকবে।এটি ঠিক করা উচিত।
Avatar: pi

Re: হননবৈশাখ ও একজন কবি

নাইটহুড উপাধি বর্জনের ৫০ বছর লেখা তো !


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন