Purandar Bhat RSS feed

Purandar Bhatএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • জীবন যেরকম
    কিছুদিন আগে ফেসবুকে একটা পোষ্ট করেছিলাম “সাচ্‌ ইজ লাইফ” বলে। কেন করেছিলাম সেটা ঠিক ব্যখ্যা করে বলতে পারব না – আসলে গত দুই বছরে ব্যক্তিগত ভাবে যা কিছুর মধ্যে দিয়ে গেছি তাতে করে কখনও কখনও মনে হয়েছে যে হয়ত এমন অভিজ্ঞতার মুখোমুখি মানুষ চট করে হয় না। আমি যেন ...
  • মদ্যপুরাণ
    আমাদের ভোঁদাদার সব ভাল, খালি পয়সা খরচ করতে হলে নাভিশ্বাস ওঠে। একেবারে ওয়ান-পাইস-ফাদার-মাদা...
  • বার্সিলোনা - পর্ব ৩
    ঊনবিংশ শতকের শেষে বা বিংশশতকের প্রথমে বার্সিলোনার যেসব স্থাপত্য তৈরী হয়েছে , যেমন বসতবাটি ক্যাথিড্রাল ইত্যাদি , যে সময়ের সেলিব্রিটি স্থপতি ছিলেন এন্টোনি গাউদি, সেগুলো মধ্যে একটা অপ্রচলিত ব্যাপার আছে। যেমন আমরা বিল্ডিং বলতে ভাবি কোনো জ্যামিতিক আকার। যেমন ...
  • মাসকাবারি বইপত্তর
    অত্যন্ত লজ্জার সাথে স্বীকার করি, আমি রিজিয়া রহমানের নামও জানতাম না। কখনও কোনও আলোচনাতেও শুনি নি। এঁর নাম প্রথম দেখলাম কুলদা রায়ের দেয়ালে, রিজিয়া রহমানের মৃত্যুর পরে অল্প কিছু কথা লিখেছেন। কুলদা'র সংক্ষিপ্ত মূল্যায়নটুকু পড়ে খুবই আগ্রহ জাগে, কুলদা তৎক্ষণাৎ ...
  • ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা... বাংলাদেশের রাজনীতির গতিপথ পরিবর্তন হওয়ার দিন
    বিএনপি এখন অস্তিত্ব সংকটে আছে। কিন্তু কয়েক বছর আগেও পরিস্থিতি এমন ছিল না। ক্ষমতার তাপে মাথা নষ্ট হয়ে গিয়েছিল দলটার। ফলাফল ২০০৪ সালের ২১ আগস্টে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী শেখ হাসিনাকে গ্রেনেড মেরে হত্যার চেষ্টা। বিরোধীদলের নেত্রীকে হত্যার চেষ্টা করলেই ...
  • তোমার বাড়ি
    তোমার বাড়ি মেঘের কাছে, তোমার গ্রামে বরফ আজো?আজ, সীমান্তবর্তী শহর, শুধুই বেয়নেটে সাজো।সারাটা দিন বুটের টহল, সারাটা দিন বন্দী ঘরে।সমস্ত রাত দুয়ারগুলি অবিরত ভাঙলো ঝড়ে।জেনেছো আজ, কেউ আসেনি: তোমার জন্য পরিত্রাতা।তোমার নমাজ হয় না আদায়, তোমার চোখে পেলেট ...
  • বার্সিলোনা - পর্ব ২
    বার্সিলোনা আসলে স্পেনের শহর হয়েও স্পেনের না। উত্তর পুর্ব স্পেনের যেখানে বার্সিলোনা, সেই অঞ্চল কে বলা হয় ক্যাটালোনিয়া। স্বাধীনদেশ না হয়েও স্বশাসিত প্রদেশ। যেমন কানাডায় কিউবেক। পৃথিবীর প্রায় সব দেশেই মনে হয় এরকম একটা জায়গা থাকে, দেশি হয়েও দেশি না। ...
  • বার্সিলোনা - পর্ব ১
    ঠিক করেছিলাম আট-নয়দিন স্পেন বেড়াতে গেলে, বার্সিলোনাতেই থাকব। বেড়ানোর সময়টুকুর মধ্যে খুব দৌড় ঝাঁপ, এক দিনে একটা শহর দেখে বা একটা গন্তব্যের দেখার জায়গা ফর্দ মিলিয়ে শেষ করে আবার মাল পত্তর নিয়ে পরবর্তী গন্তব্যের দিকে ভোর রাতে রওনা হওয়া, আর এই করে ১০ দিনে ৮ ...
  • লাল ঝুঁটি কাকাতুয়া
    -'একটা ছিল লাল ঝুঁটি কাকাতুয়া।আর ছিল একটা নীল ঝুঁটি মামাতুয়া।'-'এরা কারা?' মেয়েটা সঙ্গে সঙ্গে চোখ বড়ো করে অদ্ভুত লোকটাকে জিজ্ঞেস করে।-'আসলে কাকাতুয়া আর মামাতুয়া এক জনই। ওর আসল নাম তুয়া। কাকা-ও তুয়া বলে ডাকে, মামা-ও ডাকে তুয়া।'শুনেই মেয়েটা ফিক করে হেসে ...
  • স্টার্ট-আপ সম্বন্ধে দুচার কথা যা আমি জানি
    স্টার্ট-আপ সম্বন্ধে দুচার কথা যা আমি জানি। আমি স্টার্ট-আপ কোম্পানিতে কাজ করছি ১৯৯৮ সাল থেকে। সিলিকন ভ্যালিতে। সময়ের একটা আন্দাজ দিতে বলি - গুগুল তখনও শুধু সিলিকন ভ্যালির আনাচে-কানাচে, ফেসবুকের নামগন্ধ নেই, ইয়াহুর বয়েস বছর চারেক, অ্যামাজনেরও বেশি দিন হয়নি। ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

অসহিষ্ণুতা - ২

Purandar Bhat

এবার এরা পড়েছে টিপু সুলতানের পিছনে। খুব স্বাভাবিক, যাদের ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদীদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের কোনো ইতিহাস নেই, যাদের জন্ম হয়েছিলো সাহেবদের দালালি করার জন্যে, সেই জগৎ শেঠদের রক্ত যারা ধমনীতে বয়ে নিয়ে চলেছে, তারা ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে লড়াই করা টিপু সুলতানকে সম্মান করবে তা কল্পনাই করা উচিত না। এরপর বাহাদুর শাহ জাফরকে ধরে টানবে। তারপর আকবর, জাহাঙ্গীর, শাহ জাহান, কুতুবুদ্দিন - একে একে কবর থেকে টেনে বের করা হবে, ক্ষতবিক্ষত করা হবে। অস্বীকার করা হবে ভারতের সুবিশাল ঐতিহ্যকে, মুছে ফেলা হবে ৬০০-৭০০ বছরের ইতিহাস। তারপর কি পড়ে থাকবে? পড়ে থাকবে পাকিস্তানের মতো একটা দেশ যা নিজের ঐতিহ্যকে অস্বীকার করে জাতিসত্তা হারিয়ে ফেলেছে।

কি কি অস্বীকার করবে ওরা? আমীর খুসরুকে অস্বীকার করতে পারবে? যে তবলা, সীতার, খেয়াল, ঘজল আবিষ্কার করেছে তাকে অস্বীকার করবে? তার চেয়েও বড় কথা হলো আধুনিক হিন্দি ভাষাটাই হতো না আমীর খুসরু না থাকলে। ব্রজ ভাষা আর ঔধী ভাষা অনেক আগে হারিয়ে যেতো। রাধা কৃষ্ণর প্রেমের সঙ্গে নিজামুদ্দিন আউলিয়ার প্রতি তার ভালবাসার মিল খুঁজে পেয়েছিলেন খুসরু। তাই নিয়ে একাধিক কবিতা গান লিখে গেছেন যা একই সঙ্গে রাধা কৃষ্ণর প্রেমের গান আবার নিজামুদ্দিনের প্রতি ভক্তির গান। এই খুসরুই আবার আলাউদ্দিন খিলজির যুদ্ধ জয়ের বর্ণনাও লিখেছেন যে আলাউদ্দিন সোমনাথের মন্দির ধ্বংস করেছিলো, রানী পদ্মিনীর লোভে চিতোর আক্রমন করেছিলো। আলাউদ্দিন খিলজিকে আমরা সবাই জানি এক লোভি, কামার্ত নির্দয় যোদ্ধা হিসেবে, যার লালসার কাছে নতিস্বীকার করবেন না বলে আগুনে ঝাঁপ দিয়েছিলেন রানী পদ্মিনী। কিন্তু আলাউদ্দিন আর রানী পদ্মিনীর এই গল্প কাল্পনিক, আলাউদ্দিন রাজ্যের লোভেই চিতোর আক্রমন করেছিলেন রানীর লোভে না, কিন্তু সেটা গুরুত্বপূর্ণ নয়। কজন জানেন যে রানী পদ্মিনীর এই বীরগাথা রচনা যিনি করেছিলেন তিনিও একজন মুসলমান সুফী কবি? নাম মালিক মহম্মদ জয়সি। আবার সম্রাট বাহাদুর শাহ জাফর একজন প্রসিদ্ধ কবিও ছিলেন। হোলি উত্সবকে কেন্দ্র করে রাধা কৃষ্ণের প্রেমরসের একাধিক কবিতা আছে তাঁর যেমন "কিযুঁ মো পর্ রং কি মারি পিচকারী, দেখো কুমারজী দুঙ্গী মেয় গালি।"

এরা এই সমস্ত ঐতিহ্যকে অস্বীকার করতে চায়, দেখাতে চায় যে এই দেশে হিন্দু মুসলমান শুধু একে অপরকে ঘৃণাই করে গেছে হাজার বছর ধরে। বিহারের ভোটে শিক্ষা হয়নি, এখনো বোঝেনি যে ভারতের অসাম্প্রদায়িকতার ইতিহাস বহু পুরনো, ইউরোপের আধুনিকতার অনেক আগের থেকে এই অসাম্প্রদায়িকতার বীজ আমাদের সংস্কৃতিতে রয়েছে আর তাকে নিয়ে কাঁটাছেঁড়া করলে সাধারণ মানুষ মানবে না।

300 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: কল্লোল

Re: অসহিষ্ণুতা - ২

টিপু সুলতান ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছিলেন বা বাহাদুর শাহ জাফর কি ওয়াজেদ আলি শাহকে ব্রিটিশরা নির্বাসনে পাঠিয়েছিলো বলেই তারা মহান হয়ে যান না।
ওয়াজেঅদ আলি ও বাহাদুর শাহ খুব অপদার্থ গোছের শাসক ছিলেন। তবে হ্যাঁ, এরা দুজনেই গুণী শিল্পী ছিলেন।
টিপু নিয়ে যে ঝামেলাটা হচ্ছে, সেটা মূলতঃ কুর্গীদের থেকে। টিপু ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে যেমন লড়েছিলেন, তমনি অজস্র কুর্গী সাধারন মানুষকে হত্যা করেছেন, কারন কুর্গীরা চিরকালই স্বাধীনচেতা, তাই টিপুর শাসন তারা মানতে চায় নি।
এদেরকে খামোখা মহান বানানোর কোন কারন নেই। শিবাজী বা রাণা প্রতাপও সাংঘতিক মহান কিছু নন।
দিনের শেষে এরা সকলেই শাসক। ব্রিটিশদের সাথে বা মুঘলদের সাথে এদের কলহে কোন দেশভক্তির গল্প নেই।
Avatar: মনোজ ভট্টাচার্য

Re: অসহিষ্ণুতা - ২

পুরন্দর বাবু,

আপনার সুচিন্তিত অভিমতের জন্য অনেক ধন্যবাদ ! - এখন আমাদের অতি প্রয়োজন আপনার মতো কিছু যুক্তিবাদী লেখনী ! - এ এক অসহিষ্ণু সময় চলছে ! যেমন কেন্দ্রের হনুমান ভক্তদের তেমনি রাজ্যেও দিদিভক্তদের ! এদের কাছে অর্থনীতি সমাজনীতি বা মূল্যবোধ বলে কিছু নেই !

এই সব ধর্মান্ধ মানুষগুলো পশ্চিমী এশিয়ার দেশগুলোতে যে মার্কিনী সন্ত্রাশের বিরুদ্ধে কোনোদিন প্রতিবাদ করে না ! বা আমেরিকায় কালো মানুষদের বিনা বিচারে মেরে ফেলে - তারও কোনও প্রতিবাদ করে না ! কারন এসব করে কি হবে ! - গোমাতার চরনের সেবা লাগে ! - গোমাতা যে মানুষের খাদ্য হিসেবে ব্যবহৃত হত - তাই বা কজনে জানে !

যাই হোক, এই ধর্মের গোঁড়ামি ও অসহিষ্ণুতা খুব শীঘ্রই যে ভারতবর্ষের বুকে এক ভয়ানক বিপদ ডেকে আনবে - এ ব্যাপারে আমরা নিশ্চিত !

মনোজ
Avatar: robu

Re: অসহিষ্ণুতা - ২

কল্লোলদাকে ক।
Avatar: Purandar Bhat

Re: অসহিষ্ণুতা - ২

বাহাদুর শাহ দেশভক্ত ছিলেন না এটা মানা গেলো না। দেশভক্তির কনসেপ্ট যেটুকু তৈরী হয়েছিলো সেই আমলে তাতে বাহাদুর শাহ অবশ্যই শিক্ষিত ছিলেন। সেই সময় কলনিয়ালিসম নিয়ে মানুষের ধারণা ছিলো না, ব্রিটিশদের অর্থনৈতিক শোষণ সম্পর্কে মানুষের ধারণা ছিলো না। বরং ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে ক্ষোভের কারণ ছিলো ভারতবর্ষের প্রি মডার্ন যে সমস্ত সেন্সিবিলিটিস গুলো ছিলো তার ওপরে ব্রিটিশ আধুনিকতার আক্রমন, ব্রিটিশরা ভারতীয়দের পূর্বতন সমস্ত সংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে অস্বীকার করে বর্বর বলে প্রচারিত করছিলো। সেপাই বিদ্রোহের একটা বড় উপকরণ ছিলো পশ্চিমী আধুনিকতাবাদের বিরোধিতা।
Avatar: বাহাদুর শাহ

Re: অসহিষ্ণুতা - ২

বাহাদুর শাহ ঠিক বীর বা অপদার্থ, এককথায় ডেসক্রাইব করার মত লোক ছিলেন না। দোষে গুণে মিলিয়ে একজন মানুষ। ডালরিম্পলের দ্য লাস্ট মুঘল পড়ুন।
Avatar: কল্লোল

Re: অসহিষ্ণুতা - ২

বাহাদুর শাহ বিদ্রোহী সিপাহিদের নেতৃত্ব দিতে অস্বীকার করেন। বাহাদুর শাহের পক্ষে দেশভক্তি, জাতীয়তা ইত্যাদি ভাবনাচিন্তা ধারন করাই সম্ভব ছিলো না। সিপাহী বিদ্রোহ পশ্চিমী আধুনিকতাবাদের বিরোধীতা করছিলো কিসের ভিত্তিতে? যে ভিত্তিতে সতীদাহের বিরোধীতা, বাল্য বিবাহের বিরোধীতা, স্ত্রী শিক্ষার বিরোধীতা করছিলো তখনকার বাঙ্গালী হিন্দু সমাজ। ফলে সেটা ব্রিটিশ বিরোধী লড়াই ছিলো, কিন্তু দেশভক্তি বা জাতীয়তার লড়াই ছিলো না।
আজকের উত্তরাধুনিক চিন্তা থেকে অধুনিকতার যে বিরোধীতা, বা বলা ভালো, যে সমালোচনা উঠে আসে, সে বিরোধীতা আর ঐ বিরোধীতা এক নয়।
Avatar: Purandar Bhat

Re: অসহিষ্ণুতা - ২

"সিপাহী বিদ্রোহ পশ্চিমী আধুনিকতাবাদের বিরোধীতা করছিলো কিসের ভিত্তিতে? যে ভিত্তিতে সতীদাহের বিরোধীতা, বাল্য বিবাহের বিরোধীতা, স্ত্রী শিক্ষার বিরোধীতা করছিলো তখনকার বাঙ্গালী হিন্দু সমাজ।"


অবাক হয়ে যাই যে লোকে এইসব ইম্পিরিয়ালিস্ট ইতিহাসের ধ্যান ধারণা এখনও বয়ে বেড়ায় দেখে। গত ৫০ বছরে ইতিহাস চর্চা এতো এগিয়ে গেছে অথচ সেই বস্তাপচা সাম্রাজ্যবাদী ইতিহাসের ঘ্যান ঘ্যানানি থামে না।

ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদ কোনো একমাত্রিক রেখায় চলেনি। প্রথম দিকের ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদের সঙ্গে ১৯ শতকের মাঝামাঝি সময়ের সাম্রাজ্যবাদের অনেক পার্থক্য। ১৮ শতক এবং ১৯ শতকের শুরুর দিক অবধি ব্রিটিশ শাসকরা সমাজ সংস্কারের যে সমস্ত উদ্যোগ নিয়েছিলো সে সব সম্পর্কে সমাজের ক্ষমতাশালী শ্রেনীর কিছু বিরক্তি থাকলেও মেনে নিতে খুব বেশি সমস্যা হয়নি কারণ ব্রিটিশ শাসকরা ভারতীয় সংস্কৃতির প্রতি সংবেদনশীলও ছিলো প্রথম প্রথম। ভারতীয় সংস্কৃতিতে যে সমস্ত প্রশংসনীয় উপাদান আছে সেগুলোকে স্বীকার করতে কোনো কুন্ঠা করেনি, কুপ্রথাকে সমালোচনা করলেও। এই ধারা বদলাতে থাকে ১৯ শতকের মাঝামাঝি এসে। ভারতীয় সভ্যতাকে সম্পূর্ণ অস্বীকার করা শুরু হয়, সমাজ সংস্কারকদেরকে পেছনে ঠেলে দিয়ে ক্রিশ্ঠান মিশনারীদের উত্সাহ দেওয়া হতে শুরু করে, এক প্রাচীন সভ্যতার বদলে ভারতবর্ষকে কুসংস্কার, কুপ্রথার দেশ বলে প্রচার করা হতে থাকে। এর পেছনে কারণ হলো এই সময়ে ইউরোপে এক বদল ঘটে গিয়েছে। শুধুই ব্যবসার জন্যে সাম্রাজ্যবিস্তার নয়, সারা বিশ্বে ইউরোপের এনলাইটেনমেন্টের আলো জ্বালানোর মহান দায়িত্ব নেওয়ার জন্যে সাম্রাজ্যবিস্তার করতে হবে এই ধারণা বদ্ধমূল হয়েছে। ফরাসী বিপ্লব থেকেই এটা ইংল্যান্ডে ছড়িয়েছে তাতে সন্দেহ নেই। এই কারণে ১৯ শতকের মাঝে এসে ব্রিটিশদের সঙ্গে ভারতীয়দের সম্পর্ক একদম নতুন করে পুনর্গঠন হয়। আদান প্রদানের থেকে ক্রমশ সভ্য শাসক এবং অসভ্য শোষিতর সম্পর্কে অবনমন ঘটে। এর প্রতিফলন ঘটে সমাজের সমস্ত ক্ষেত্রে বিশেষ করে সেনাবাহিনীতে যার প্রতিক্রিয়া ছিলো সেপাই বিদ্রোহ। সেপাই বিদ্রোহের মধ্যে সাংস্কৃতিক সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী চেতনাকে আজকাল প্রায় কোনো সিরিয়াস ঐতিহাসিকই অস্বীকার করেন না। বাহাদুর শাহ জাফরের কবিতা লেখাতে সেই উপাদান ভালো ভাবেই মজুত আছে।
Avatar: কল্লোল

Re: অসহিষ্ণুতা - ২

বাহাদুর শা যে সিপাহিদের নেতৃত্ব দিতে অস্বীকার করেন, সেটা নিয়ে কোন নতুন তথ্য আছে কি? মানে অসাম্রাজ্যবাদী ঐতিহাসিক তথ্য!!
ইউরোপের "সাদা মানুষের বোঝা"র পিছনেও ব্যাবসাই ছিলো, আর কিছু নয়। সব ক্ষেত্রেই, এমনকি বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে, বিশেষ করে চিকিৎসা বিজ্ঞানে জীবানু তত্ত্বের আবিস্কারের পিছনে নিরক্ষীয় অঞ্চলের দেশগুলিতে সাম্রাজ্যবিস্তারের (বলাই বাহুন্য ব্যবসা বিস্তারের) ঠেলা কাজ করেছে।
ইউরোপ তার বাইরের জগৎকে হেয় ভাবতে শুরু করে এটা যেমন সত্য, তেমনি সিপাহী বিদ্রোহ নেহাৎই নিম্নবর্গের বিদ্রোহ ধরে নিলে ভুল হবে। এদের নেতৃত্ব ছিলো স্থানীয় সামন্তদের হাতে। লক্ষীবাই, নানাসাহেব, তাঁতিয়া - এরা কেউই নিম্নবর্গের প্রতিনিধিত্ব করতেন না।
ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে আদিবাসীদের বিদ্রোহ, সন্ন্যাসী বিদ্রোহ, আর সিপাহি বিদ্রোহ এক বিষয় নয়।
যদি ঠিকঠাক ভাবে কেউ পশ্চিমী আধুনিকতার উল্টোদিকে গিয়ে ব্রিটিশ বিরোধীতা করে থাকেন তো সেটা গান্ধীই করেছেন তার সমস্ত দোদুল্যমানতা সত্ত্বেও।

Avatar: বাহাদুর শাহ

Re: অসহিষ্ণুতা - ২

আছে। ঐতিহাসিক তথ্য যা আছে, সেই অনুযায়ী, সিপাহীরা বাহাদুর শাহকে অনুরোধ করেছিল নেতৃত্ব দেবার জন্য, কিন্তু তিনি সরাসরি নিজের নেতৃত্ব দেবার অপারগতা জানান। তিনি সিপাহীদের জানান - তাঁর আশীর্বাদ থাকবে তাদের জন্য। সিপাহীরা তাঁর আশীর্বাদ মাথায় নিয়ে যা নয় তাই করে দিল্লি শহর জুড়ে, এবং দিল্লির বাইরে - আজ যেখানে হরিয়ানা উত্তর প্রদেশ, সেই সব এলাকায়। এর সঙ্গে এসে জুটেছিল "তিলঙ্গী"রা, তেলেঙ্গানার যোদ্ধারা, এরা ছিল আরও দুর্বিনীত।

সিপাহী বিদ্রোহের নামে সিপাহীরা সাধারণ ব্রিটিশ এবং অ-ব্রিটিশ খ্রিস্টানদের কচুকাটা করেছিল, লুঠ ধর্ষণ এবং অন্যান্য কীর্তি তো করেইছিল জাঠ গুজ্জর ডাকাতদের দল। এর অসংখ্য ডকুমেন্ট আজও পাওয়া যায়।

ইংরেজরা প্রস্তুত ছিল না এই অতর্কিত আক্রমণের জন্য। পরে যখন ইংলন্ড থেকে সেইন্য অস্ত্র ইত্যাদি আসে, প্রতিশোধ নেবার জন্য তারা উন্মত্তের মত তাণ্ডব চালায় উত্তর ভারত জুড়ে। লালকেল্লার মধ্যে যে অপরূপ আর্কিটেকচারের শহর ছিল, তাকে ধূলোয় মিশিয়ে দেয়, নবাব বংশের বাচ্চাদের লালকেল্লার মধ্যে খুন করা হয়, জামা মসজিদে প্রভূত পরিমাণ শুওর এনে কেটে রান্না করে ব্রিটিশ বাহিনী বিজয়োল্লাস প্রকাশ করে।


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন