Sakyajit Bhattacharya RSS feed

Sakyajit Bhattacharyaএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • গাম্বিয়া - মিয়ানমারঃ শুরু হল যুগান্তকারী মামলার শুনানি
    নেদারল্যান্ডের হেগ শহরে অবস্থিত আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে (ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অব জাস্টিস—আইসিজে) মিয়ানমারের বিরুদ্ধে করা গাম্বিয়ার মামলার শুনানি শুরু হয়েছে আজকে। শান্তি প্রাসাদে শান্তি আসবে কিনা তার আইনই লড়াই শুরু আজকে থেকে। নেদারল্যান্ডের হেগ শহরের পিস ...
  • রাতপরী (গল্প)
    ‘কপাল মানুষের সঙ্গে সঙ্গে যায়। পালানোর কি আর উপায় আছে!’- এই সপ্তাহে শরীর ‘খারাপ’ থাকার কথা। কিন্তু, কিছু টাকার খুবই দরকার। সকালে পেট-না-হওয়ার ওষুধ গিলে, সন্ধেয় লিপস্টিক পাউডার ডলে প্রস্তুত থাকলে কী হবে, খদ্দের এলে তো! রাত প্রায় একটা। এই গলির কার্যত কোনো ...
  • রাতপরী (গল্প)
    ‘কপাল মানুষের সঙ্গে সঙ্গে যায়। পালানোর কি আর উপায় আছে!’- এই সপ্তাহে শরীর ‘খারাপ’ থাকার কথা। কিন্তু, কিছু টাকার খুবই দরকার। সকালে পেট-না-হওয়ার ওষুধ গিলে, সন্ধেয় লিপস্টিক পাউডার ডলে প্রস্তুত থাকলে কী হবে, খদ্দের এলে তো! রাত প্রায় একটা। এই গলির কার্যত কোনো ...
  • বিনম্র শ্রদ্ধা অজয় রায়
    একুশে পদকপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক অজয় রায় (৮৪) আর নেই। সোমবার ( ৯ ডিসেম্বর) দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকার একটি হাসপাতালে শেষনিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। অধ্যাপক অজয় দীর্ঘদিন বার্ধক্যজনিত নানা অসুখে ভুগছিলেন।২০১৫ ...
  • আমাদের চমৎকার বড়দা প্রসঙ্গে
    ইয়ে, স-অ-অ-অ-ব দেখছে। বড়দা সব দেখছে। বড়দা স্রেফ দেখেনি ওইখানে এক দিন রাম জন্মালেন, তার পর কারা বিদেশ থেকে এসে যেন ভেঙেটেঙে মসজিদ স্থাপন করল, কেন না বড়দা তখন ঘুমোচ্ছিলেন। ঘুম ভাঙল যখন, চোখ কচলেটচলে দেখলেন মস্ত ব্যাপার এ, বড়দা বললেন, ভেঙে ফেলো মসজিদ, জমি ...
  • ধর্ষকের মৃত্যুদন্ড দিলেই সব সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে ?
    যেকোন নারকীয় ধর্ষণের ঘটনা সংবাদ মাধ্যমে প্রতিফলিত হয়ে সামনে আসার পর নাগরিক হিসাবে আমাদের একটা ঈমানি দায়িত্ব থাকে। দায়িত্বটা হল অভিযুক্ত ধর্ষকের কঠোরতম শাস্তির দাবি করা। কঠোরতম শাস্তি বলতে কারোর কাছে মৃত্যুদন্ড। কেউ একটু এগিয়ে ধর্ষকের পুরুষাঙ্গ কেটে নেওয়ার ...
  • তোমার পূজার ছলে
    বাঙালি মধ্যবিত্তের মার্জিত ও পরিশীলিত হাবভাব দেখতে বেশ লাগে। অপসংস্কৃতি নিয়ে বাঙালি চিরকাল ওয়াকিবহাল ছিল। আজও আছে। বেশ লাগে। কিন্তু, বুকে হাত দিয়ে বলুন, আপনার প্রবল ক্ষোভ ও অপমানে আপনার কি খুব পরিশীলিত, গঙ্গাজলে ধোওয়া আদ্যন্ত সাত্ত্বিক শব্দ মনে পড়ে? না ...
  • The Irishman
    দা আইরিশম্যান। সিনেমা প্রেমীদের জন্য মার্টিন স্করসিসের নতুন বিস্ময়। ট্যাক্সি ড্রাইভার, গুডফেলাস, ক্যাসিনো, গ্যাংস অব নিউইয়র্ক, দা অ্যাভিয়েটর, দ্য ডিপার্টেড, শাটার আইল্যান্ড, দ্য উল্ফ অব ওয়াল স্ট্রিট, সাইলেন্টের পরের জায়গা দা আইরিশম্যান। বর্তমান সময়ের ...
  • তোকে আমরা কী দিইনি?
    পূর্ণেন্দু পত্রী মশাই মার্জনা করবেন -********তোকে আমরা কী দিইনি নরেন?আগুন জ্বালিয়ে হোলি খেলবি বলে আমরা তোকে দিয়েছি এক ট্রেন ভর্তি করসেবক। দেদার মুসলমান মারবি বলে তুলে দিয়েছি পুরো গুজরাট। তোর রাজধর্ম পালন করতে ইচ্ছে করে বলে পাঠিয়ে দিয়েছি স্বয়ং আদবানীজীকে, ...
  • ইশকুল ও আর্কাদি গাইদার
    "জাহাজ আসে, বলে, ধন্যি খোকা !বিমান আসে, বলে, ধন্যি খোকা !এঞ্জিনও যায়, ধন্যি তোরে খোকা !আসে তরুণ পাইওনিয়র,সেলাম তোরে খোকা !"আরজামাস বলে একটা শহর ছিল। ছোট্ট শহর, অনেক দূরের, অন্য মহাদেশে। অনেক ছোটবেলায় চিনে ফেলেছিলাম। ভৌগোলিক দূরত্ব টের পাইনি।টের পেতে দেননি ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

মুনমুন সেন, রহস্য, পানুঃ আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে

Sakyajit Bhattacharya

সে ছিল আমাদের কিশোর বয়েস, স্কুলের উঁচু ক্লাস, যাকে বলে টিনকাল গিয়ে যৌবনকাল আসার সময়। সে বয়েসে কত কি ঘটে! ঢাকুরিয়া লেকে হঠাৎ খুচরো চুমুর দ্বিধা থরথর অমরাবতীর পাশেই সযত্নে লুকনো থাকে রঙ্গীন চটির ছেঁড়াখোঁড়া মলাট। প্রথম সিগারেট টানার রোমাঞ্চ এবং হঠাৎ করে নারীশরীরে উন্মুক্ত ব্রা-এর স্ট্র্যাপ দেখে শিরশিরানি কোথাও গিয়ে মিলে যায়। এ সেই বয়েস, নব্বই-এর শেষভাগ, যখন অনায়াসে বিশ্বাস করা যায় যে মড়ার খাটের নিচে বোমা রেখে আসলে তা একদিন গোটা শ্মশান উড়িয়ে দেবে। সেই বয়েসে রিটা হেওয়ার্থের অর্ধ-অনাবৃত পোস্টার পরম মমতায় আগলে লুকিয়ে রেখেছিল আততায়ীর পালানোর সুড়ংগপথ। আমাদের রিটা হেওয়ার্থ ছিলেন মুনমুন সেন, যিনি আদরে মমতায় একটা গোটা জেনারেশনের অপরাধী কৌতুহলের গোপন সুড়ংগপথ আগলে রেখেছিলেন। শরিরী বিভংগে এবং ঘিরে থাকা মিথ-মিথ্যের আলোছায়ার জটিল কাটাকুটির নকশা আমাদের চোখের সামনে মেলে ধরেছিলেন। আমরা বিশ্বাস করতাম পৃথিবীর কোনো এক হারিয়ে যাওয়া সিনেমার আর্কাইভে একদিন না একদিন খোঁজ মিলবেই মুনমুন সেনের ব্লু ফিল্মের।

মাঝেমাঝেই স্কুল বা কলেজের অফ পিরিয়ডের আড্ডায় কথাটা উঠত এরকমভাবে, যে আমাদের কোনো এক বন্ধুর দাদার রুমমেট-ই নাকি সেই পানু দেখেছে। সন্দেহ প্রকাশ করলে কেউ একজন নাক কুঁচকে জানাত “আরে জর্জ বেকারের সংগে, জানিস না?” কিন্তু কোথায় পাওয়া যাবে সেই জিনিস? দক্ষিণ কলকাতার গলিঘুঁজি দোকান তন্নতন্ন করে খুঁজে পাওয়া যায়নি। মাঝে মাঝেই গড়িয়াহাট মোড়ে গিয়ে আধবুড়ো দোকানদারকে ঢোঁক গিলে জিজ্ঞাসা করা হয়েছে “ইয়ে, মানে মুনমুন সেনের কিছু, ওই ইয়ে আছে নাকি?” দোকানদার শিওরলি ততদিনে এরকম কয়েক হাজার কাস্টমার সামলেছে যারা এক-ই জিনিসের খোঁজ করেছে। সে বিড়ি টেনে উদাস কন্ঠে অন্যদিকে তাকিয়ে বলত “ফরেন জিনিস আছে, নেবেন?” নিরাশ হয়ে ফিরে আসার সময় অন্য এক বন্ধু বলত, “বেলঘড়িয়ার গলিতে একজন বসে। তার কাছে রেয়ার কালেকশন থাকে। সে নাকি বলেছে জোগাড় করে দেবে”। তো, চালাও পানসি বেলঘড়িয়া! ছুট ছুট ছুট এবং আবার ব্যর্থমনোরথ হয়ে ফিরে আসা।

ততদিনে কিন্তু সেক্স জিনিসটা আর আমাদের জীবনে আর অত ট্যাবু নয়। বাজীগরে কাজলের ক্লিভেজ বা বেটা-তে মাধুরীর সেই দ্বিধা-থরথর দুলুনি আমরা দেখে ফেলেছি। সুপারহিট মুকাবিলার মাধ্যমেই হোক অথবা রাত্রে বিদেশী সিনেমায়, শরীর ব্যাপারটা আর অচেনা নয়। সত্যি বলতে কি আঠেরোয় পৌঁছনোর আগেই আমাদের অনেকের-ই শরিরী অভিজ্ঞতা হয়ে গিয়েছিল। আর মুনমুন সেন কোনোদিন-ই এমনকিছু হিট নায়িকা ছিলেন না যাঁকে নিয়ে ক্রেজ তৈরী হবে। কিন্তু এটা মনে হয় সেই নব্বই-এর ম্যাজিক মোমেন্ট, যা ইঁদুর-দৌড়ে থাকা নায়িকাদের সাইডলাইনে সরিয়ে জনমানসে পাকাপাকি প্রতিষ্ঠা দিয়ে দেয় মধ্যবয়স্ক, ঈষৎ পৃথুলা এবং খুব একটা ভাল অভিনয় করতে না জানা এক মহিলাকে। দুই হাতের দশ আংগুল গুণে হয়ত বলে দেওয়া যায় মুনমুন সেনের মনে রাখার মতন সিনেমা কি কি। হিট সিনেমার অবস্থাও তথৈবচ। বাংলা উচ্চারন খারাপ ছিল। ইন ফ্যাক্ট, মুনমুনের আধো আধো গলায় বলা বাংলাকেও প্রচুর ক্যারিকেচার করা হয়েছে এককালে। কিন্তু সেসব পেরিয়েও একটা জেনারেশন বড় হয়ে গেল এই দোলাচলে থেকেই যে সত্যিই মুনমুন সেনের পানু ছিল না নেই। আর এভাবেই মুনমুন সেন আরবান লেজেন্ডের অংশ হয়ে গেলেন। আশী বা নব্বইতে যে জেনারেশন কৈশোর কাটিয়ে যৌবনে ঢুকেছে তাদের সসময়সীমায় তর্কযোগ্যভাবে সবথেকে বড় আরবান লেজেন্ড।

সমাজবিজ্ঞানীরা আজকাল বলেন গুজব তখন-ই আরবান লেজেন্ডে রূপান্তরিত হয় যখন তার পেছনে এক বৃহৎ জনগোষ্ঠীর হিস্টেরিয়া, আকাংখা অথবা ঘৃণা কাজ করে। মুনমুনের ব্লু ফিল্মের ক্ষেত্রে মনে হয় নিঃশব্দে খেলা করে গিয়েছিল সময়। আমরা সাবালক হয়েছিলাম মুনমুনদের হাত ধরে। আশীর দমচাপা রাজনৈতিক বাস্তবতা নব্বইয়ের শুরুতে বার্স্ট করেছিল বিকেন্দ্রীকরণ মন্ডল-কমিশন বাবরীর হাত ধরে। সুপারহিট মুকাবিলা সেই সময়তেই এসেছে। হিন্দি সিনেমাতে নায়িকাদের ড্রেস-প্যাটার্ন পালটাচ্ছে একটু একটু করে। ক্লিভেজ দেখানো পোষাক পরছেন অনেকে। গোপন অপরাধবোধকে সোচ্চারে সগর্বে একটু একটু করে চিনে নেওয়া হচ্ছে তখন। আমাদের নাগরিক সত্বা উন্মুখ হয়ে ছিল এই খোলা হাওয়ার মধ্যে থেকে নিজেদের ব্যক্তিগত খোলা হাওয়াগুলোকে চিনে নিতে। সেখানে আমাদের নিজস্ব একজন, সুচিত্রা সেনের মেয়ে, বরাবরই আলো আঁধারিতে ঢাকা জীবন, তাঁর এরকম একটা স্ক্যান্ডাল, ছিল অথবা নেই সেটা বড় কথা নয়, সেটাকে আমরা ভালবেসেছিলাম। সেটা ছিল আমাদের নিজস্ব গোপন অপরাধবোধের স্বীকৃতি। আজ স্বীকার করতে বাধা নেই আমরা সকলেই মুনমুন সেনের প্রেমে পড়েছিলাম। শুধু তাঁর শরীরের প্রেমে নয়। তাঁর রহস্যের প্রেমে। তাঁর বিভংগের প্রেমে। আমরা বিশ্বাস করেছিলাম এই শহরে হয়ত কোনও এক আন্ডারগ্রাউন্ড ধুলি ধুসরিত ভাংগা ঘর আছে যেখানে হারিয়ে যাওয়া সিনেমাদের সযত্নে সঞ্চিত করে রাখা হয়। সেখানে যাবার পথ কেউ জানে না, কিন্তু কোনো এক আর্কাইভিস্ট সেখানে সংগোপনে রেখে দিয়েছেন মুনমুন সেনের ব্লু ফিল্ম। শ্যাডো অফ দ্য উইন্ড উপন্যাসের হারিয়ে যাওয়া বইদের কবরখানায় দাঁড়িয়ে বৃদ্ধ লাইব্রেরিয়ান বলেছিলেন, কোনো বই যখন হাতবদল হয় তখন নতুন পাঠকের আত্মার একটা টুকরোকে সেই বই শুষে নেয়। মুনমুন সেনের সেই সিনেমা আমরা দেখিনি। কিন্তু তবুও আমাদের মতন অ-দর্শকদের আত্মার একটা টুকরোকে শুষে নিয়ে সেই কল্পিত অথবা বাস্তব ফিল্মটি দীর্ঘজীবি হয়ে গেছে।

আজ ২০১৫ তে এসে এসব রোমান্টিকতার মানে হয়না। এখন অ্যাডাল্ট ফিল্মের নায়িকারা মেন্সট্রিমে অভিনয় করেন। ইন্টারনেটে ক্লিক করলেই নায়িকাদের এম এম এস সহজলভ্য। প্যারিস হিলটন বা কিম কারদাশিয়ানদের জগতে ঘুরপাক খাওয়া আজকের টিন বুঝবেই না আজ থেকে কুড়ি বছর আগে এক অনাঘ্রাত পর্ন সিনেমা কতটা মহার্ঘ্য ছিল। মুনমুন সেনের পানু তাই আসলে এক হারিয়ে যাওয়া সময়কে ধরে রাখে। এই লেখা তাই শুধু সেই পানুকে নয়, সেই হারিয়ে যাওয়া সময়কে এক অক্ষম হোমাজ। আলটিমেটলি আমরা জানি যে শ্মশান উড়ে যাবেনা। রিটা হেওয়ার্থের পোস্টার ছিঁড়ে ফর্দাফাই হয়ে গিয়ে আবিষ্কার হয়ে যাবে আততায়ীর সুড়ংগপথ। আজ সেই সুড়ংগপথে মাটিচাপা পড়ে গেছে। সন্ধ্যেবেলার দুরদর্শনে বিশেষ বিশেষ খবর আর কেউ দেখে না। আশিকি বাজীগর ডরের রোমাঞ্চ অথবা ডবলিউ ডবলিউ এফ-এর সেই স্টিকার জমানোর আদিখ্যেতার আজকাল কোন মূল্য নেই। তবু আমরা যারা সদ্য তিরিশ থেকে সদ্য চল্লিশের মধ্যে ঘোরাফেরা করছি, তাদের আকাশে কোথাও একটুকরো মেঘের মতন লুকিয়ে থেকেই যাবে আমাদের নিজস্ব বড় হয়ে ওঠার গোপন ব্যাথার দাগ। আকাশ অংশত মেঘলা ছিল। আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে।


3824 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


মন্তব্যের পাতাগুলিঃ [1] [2] [3] [4] [5]   এই পাতায় আছে 73 -- 92
Avatar: বোরোলীন

Re: মুনমুন সেন, রহস্য, পানুঃ আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে

আহা, দমু আমার টীনবেলা ব্যাপারটা বুঝতে হবে। মিশনারী ইস্কুল, পুরো ছেলেদের, মেয়ে মানে ভীনগ্রহের জীব - সেখানে এ-মার্কা সিনেমা মানেই...
Avatar:  ব

Re: মুনমুন সেন, রহস্য, পানুঃ আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে

আরে ভাই আমাদের ও সেই কেলাস ওয়ান থেকে টেন অবধি নন - কো এড। তারপরে আবার বিদ্যামন্দির ( আমরা রোজ বেলুড় মঠে মেয়ে দেখতে যেতুম!!)

কাজেই ও ই অরি দের মতোন ই.. ঃ((
Avatar: অনামী

Re: মুনমুন সেন, রহস্য, পানুঃ আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে

নেতাজী যেদিন ফিরবেন, সেইদিন মুনমুন সেনের পানু সঙ্গে নিয়েই ফিরবেন। বাঙালির সেইদিন সকল মনস্কামনা পূর্ণ হবে। ঘরে ঘরে ভোম্বল-পল্টু-মিন্টিরা সেইদিন থেকে অঙ্কের রাইডার সমাধান করতে করতে থিওরি অফ এভরিথিং আবিষ্কার করে বসবে। দেশবিদেশের শ্বেতাঙ্গ-দীর্ঘাঙ্গী ললনারা বাঙালি যুবকদের দেখে পাগল হয়ে উঠবেন। পুষ্পক বিমান আর এটম বোমা যে বেদে আছে প্রমানিত হবে। বাঙালির ঘরে ডাক্তার আর ইঞ্জিনিয়ার ছাড়া আর অন্য কোনো প্রজাতি জন্ম নেবেনা। পৃথিবী বুঝবে নিটশে কোনো মহামানব উবেরমানশদের কথা বলেছিলেন!
Avatar: .

Re: মুনমুন সেন, রহস্য, পানুঃ আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে

আসলটাই তো বাদ দিলেন! সেদিন - হ্যাঁ সেদিন - বিপ্লব এসে হাজির হবে। মহান বিপ্লব। সর্বহারা শ্রেনী সেদিন সব পেয়ে যাবে। সাম্রাজ্যবাদী আমেরিকা সেদিন ইরাক থেকে সরে গিয়ে বাংলার মাঠে এসে মুখ থুবড়ে পড়বে। তাদের কালো হাতটা শেষবারের মতো ভেঙ্গে গুঁড়িয়ে যাবে। সিয়ার চক্রান্তকারীদের শহীদ মিনারের সামনে হাতকড়া পরিয়ে বসিয়ে রাখা হবে। শ্রমিক আর কৃষকশ্রেনীর প্রতিনিধিরা তাদের পালা করে গণসঙ্গীত শোনাবে। আর তারপরেই বেরোবে গ্রিড দখল অভিযানে। যাবার পথে কয়েকটা ওলা উবেরকে গাছের ডালে লটকে দিয়ে যাবে। নেতাজী যেদিন ফিরবেন হাতে মুনমুন সেনের পানুর ভিডি ক্যাসেট নিয়ে, সেদিন এই সব হবে।
Avatar: ঈশান

Re: মুনমুন সেন, রহস্য, পানুঃ আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে

"নেতাজী যেদিন ফিরবেন, সেইদিন মুনমুন সেনের পানু সঙ্গে নিয়েই ফিরবেন।" -- এই লাইনটা হেব্বি হয়েছিল (এটা আমি কোথাও টুকে দেবো, গ্রান্টি)। কিন্তু গরু রচনায় চলে যাবেন্না প্লিজ।
Avatar: PM

Re: মুনমুন সেন, রহস্য, পানুঃ আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে

আমার ধারনা ছিলো মুনমুনের পানু আমাদের ইস্কুলের ছাত্রদের একচেটিয়া কনসেপ্চুআল অ্যাসেট ছিলো ঃ) কত্ত বড় ভুল ধারনা!!!!

যাক গে। কিন্তু আপনাদের কারো রেডিও-র বিবিধ ভারতীতে শনি রোববারের ১৫ বা ৩০ মিনিটের ধারাবাহিক নাটকের ব্যাপারে কোনো নস্টালজিয়া নেই? শ্রাবন্তীর ওয়েসিসের "মনের মতো গান আর মনে রাখা কথা" শনিবার দুপুর সারে বারোটা থেকে থেকে ১ টা। শনিবার দুপুর পৌনে দুটোর হাতুরী মার্কা ফিনাইল এক্সের "শনি বারের বারবেলা"। রোববার দুপুরের ১৫ মিনিটের আরব্য রজনী---- এই সব???

আর নাটকের মোক্ষম সময় বন্ধ করে শ্রাবন্তির ন্যাকা , আদুরে কন্ঠের দাবী "এর পরের টুকু শোনার জন্যে নিশ্চই ছটফট করছেন? তাহলে আগামী সপ্তাহে ঠিক এই দিন এই সময়ে রেডিও খুলতে ভুলবেন না কিন্তু" ঃ)

আর বোরোলিনের সংসার তো ছিলই
Avatar: Bratin

Re: মুনমুন সেন, রহস্য, পানুঃ আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে

পোএম, আজকের ভত পড়ো।ওয়েসিস, হাতুড়ি মার্কা ফিনাইল এক্স সব এসেছে ।

কিন্তু মুনমুন সেনের পানু শুনে তুমি কোথা থেকে ঊদয় হলে বাছা? ঃ))
Avatar: Sakyajit Bhattacharya

Re: মুনমুন সেন, রহস্য, পানুঃ আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে

আমার লেখার লিস্টে অনেকগুলো আছে এরকম। একটা জায়গা কেউ ধরেনি কখনো। পুরনো বাংলা অ্যাড এবং জিঙ্গলস।

নস্টালজিয়ার ডিহিস্টরিফিকেশন ঘটাতে চাই না। তবু বলি, নব্বই-এর দশক আমার সেরা দশক লাগে। নানাবিধ কারণে
Avatar: sosen

Re: মুনমুন সেন, রহস্য, পানুঃ আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে

হ্যাঁ কদিন সাম্রাজ্যবাদ রেকে এইগুলো লিখে ফ্যালো দিকি
Avatar: Sakyajit Bhattacharya

Re: মুনমুন সেন, রহস্য, পানুঃ আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে

:)
Avatar: শাক্যর জন্য

Re: মুনমুন সেন, রহস্য, পানুঃ আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে

শুধু বাংলা নয় যদিও - তবে দূরদর্শনের অ্যাড নিয়ে একটা টই চালু হয়েছিলঃ

http://www.guruchandali.com/guruchandali.Controller?portletId=8&po
rletPage=2&contentType=content&uri=content249&contentPageN
um=8

Avatar: Sakyajit Bhattacharya

Re: মুনমুন সেন, রহস্য, পানুঃ আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে

আরেহ! থ্যাংক ইউ :) দারুণ টই
Avatar: PM

Re: মুনমুন সেন, রহস্য, পানুঃ আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে

ব্রতীন , তোমাদের হাতুরী মার্কা ফিনাইলের আড্ডাবাজী দেখলাম ঃ)

"কিন্তু মুনমুন সেনের পানু শুনে তুমি কোথা থেকে ঊদয় হলে বাছা? ঃ))"

আমি তোমার মতই চল্লিশোর্ধ পারভার্ট ঃ) ঃ)

Avatar: ঋত্বিক

Re: মুনমুন সেন, রহস্য, পানুঃ আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে

৯০ এর দশকের অ্যাড নিয়ে একটা ট্রিবিউটঃ


https://www.youtube.com/watch?v=EjD3ZK91DHo
Avatar: Bratin

Re: মুনমুন সেন, রহস্য, পানুঃ আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে

চল্লিশোর্ধ ঠিক আছে।কিন্তু পারভার্ট কেন? পানু দেখা আমাদের সাংবিধানিক অধিকার। ঃ))
Avatar: pi

Re: মুনমুন সেন, রহস্য, পানুঃ আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে

আরে ঋত্বিক , থ্যাংকু থ্যাঙ্কু ! AIB র কাজকর্ম বেশিরভাগই খাসা হয় ! পেন মসালার পরে এরকম মুখবাদ্যিও বিশেষ শুনিনি।
ছোটবেলার বাংলা অ্যাড নিয়ে এরকম হলে বেশ হত। কিন্তু মনে করতে গিয়ে বোরোলিন, শালিমার আর রেডিওর অ্যাডগুলো বাদ তেমন জিঙ্গল ই মনে পড়ছে না ঃ(
কেউ বললে হয়তো পড়বে।
Avatar: Bratin

Re: মুনমুন সেন, রহস্য, পানুঃ আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে

কোন ঋত্বিক? আই আই টি র?
Avatar: PM

Re: মুনমুন সেন, রহস্য, পানুঃ আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে

চল্লিশোর্ধ আর পারভারসন এ দুটো একি মুদ্রার এপিঠ ওপিঠ ঃ)
Avatar: Bratin

Re: মুনমুন সেন, রহস্য, পানুঃ আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে

শোন হে পিএম বিপ্লবী হবার যেমন কোন বয়েস
নেই,তেমন পানু দেখার ও কোন বয়েস নেই। ঃ))
Avatar: ঋত্বিক

Re: মুনমুন সেন, রহস্য, পানুঃ আকাশ অংশত মেঘলা থাকবে

পাই দি,
হে হে। একদম। এ আই বি চরম জিনিস।
বোতিন দা,
একদম ঠিক। ঃ)

মন্তব্যের পাতাগুলিঃ [1] [2] [3] [4] [5]   এই পাতায় আছে 73 -- 92


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন