Parichay Patra RSS feed

Parichay Patraএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • বিনম্র শ্রদ্ধা অজয় রায়
    একুশে পদকপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক অজয় রায় (৮৪) আর নেই। সোমবার ( ৯ ডিসেম্বর) দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকার একটি হাসপাতালে শেষনিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। অধ্যাপক অজয় দীর্ঘদিন বার্ধক্যজনিত নানা অসুখে ভুগছিলেন।২০১৫ ...
  • আমাদের চমৎকার বড়দা প্রসঙ্গে
    ইয়ে, স-অ-অ-অ-ব দেখছে। বড়দা সব দেখছে। বড়দা স্রেফ দেখেনি ওইখানে এক দিন রাম জন্মালেন, তার পর কারা বিদেশ থেকে এসে যেন ভেঙেটেঙে মসজিদ স্থাপন করল, কেন না বড়দা তখন ঘুমোচ্ছিলেন। ঘুম ভাঙল যখন, চোখ কচলেটচলে দেখলেন মস্ত ব্যাপার এ, বড়দা বললেন, ভেঙে ফেলো মসজিদ, জমি ...
  • ধর্ষকের মৃত্যুদন্ড দিলেই সব সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে ?
    যেকোন নারকীয় ধর্ষণের ঘটনা সংবাদ মাধ্যমে প্রতিফলিত হয়ে সামনে আসার পর নাগরিক হিসাবে আমাদের একটা ঈমানি দায়িত্ব থাকে। দায়িত্বটা হল অভিযুক্ত ধর্ষকের কঠোরতম শাস্তির দাবি করা। কঠোরতম শাস্তি বলতে কারোর কাছে মৃত্যুদন্ড। কেউ একটু এগিয়ে ধর্ষকের পুরুষাঙ্গ কেটে নেওয়ার ...
  • তোমার পূজার ছলে
    বাঙালি মধ্যবিত্তের মার্জিত ও পরিশীলিত হাবভাব দেখতে বেশ লাগে। অপসংস্কৃতি নিয়ে বাঙালি চিরকাল ওয়াকিবহাল ছিল। আজও আছে। বেশ লাগে। কিন্তু, বুকে হাত দিয়ে বলুন, আপনার প্রবল ক্ষোভ ও অপমানে আপনার কি খুব পরিশীলিত, গঙ্গাজলে ধোওয়া আদ্যন্ত সাত্ত্বিক শব্দ মনে পড়ে? না ...
  • The Irishman
    দা আইরিশম্যান। সিনেমা প্রেমীদের জন্য মার্টিন স্করসিসের নতুন বিস্ময়। ট্যাক্সি ড্রাইভার, গুডফেলাস, ক্যাসিনো, গ্যাংস অব নিউইয়র্ক, দা অ্যাভিয়েটর, দ্য ডিপার্টেড, শাটার আইল্যান্ড, দ্য উল্ফ অব ওয়াল স্ট্রিট, সাইলেন্টের পরের জায়গা দা আইরিশম্যান। বর্তমান সময়ের ...
  • তোকে আমরা কী দিইনি?
    পূর্ণেন্দু পত্রী মশাই মার্জনা করবেন -********তোকে আমরা কী দিইনি নরেন?আগুন জ্বালিয়ে হোলি খেলবি বলে আমরা তোকে দিয়েছি এক ট্রেন ভর্তি করসেবক। দেদার মুসলমান মারবি বলে তুলে দিয়েছি পুরো গুজরাট। তোর রাজধর্ম পালন করতে ইচ্ছে করে বলে পাঠিয়ে দিয়েছি স্বয়ং আদবানীজীকে, ...
  • ইশকুল ও আর্কাদি গাইদার
    "জাহাজ আসে, বলে, ধন্যি খোকা !বিমান আসে, বলে, ধন্যি খোকা !এঞ্জিনও যায়, ধন্যি তোরে খোকা !আসে তরুণ পাইওনিয়র,সেলাম তোরে খোকা !"আরজামাস বলে একটা শহর ছিল। ছোট্ট শহর, অনেক দূরের, অন্য মহাদেশে। অনেক ছোটবেলায় চিনে ফেলেছিলাম। ভৌগোলিক দূরত্ব টের পাইনি।টের পেতে দেননি ...
  • ছন্দহীন কবিতা
    একদিন দুঃসাহসের পাখায় ভর করে,ছুঁতে চেয়েছিলাম কবিতার শরীর ।দ্বিখন্ডিত বাংলার মত কবিতা হয়ে উঠলোছন্দহীন ।অর্থহীন যাত্রার “কা কা” চিৎকারে,ছুটে এলোপ্রতিবাদী পাঠক।ছন্দভঙ্গের নায়কডানা ভেঙ্গে পড়িপুঁথি পুস্তকের এক দোকানে।আলোক প্রাপ্তির প্রত্যাশায়,যোগ ধ্যানে কেটে ...
  • হ্যালোউইনের ভূত
    হ্যালোউইন চলে গেল। আমাদের বাড়িতে হ্যালোউইনের রীতি হল মেয়েরা বন্ধুদের সঙ্গে ট্রিক-অর-ট্রিট করতে বেরোয় দল বেঁধে। পেছনে পেছনে চলে মায়েদের দল। আর আমি বাড়িতে থাকি ক্যান্ডি বিতরণ করব বলে। মুহূর্মুহূ কলিং বেল বাজে, আমি হাসি-হাসি মুখে ক্যান্ডির গামলা নিয়ে দরজা ...
  • হয়নি
    তুমি ভালবাসতে চেয়েছিলে।আমিও ।হয়নি।তুমিঅনেক দূর অব্দি চলে এসেছিলে।আমিও ।হয়নি আর পথ চলা।তুমি ফিরে গেলে,জানালে,ভালবাসতে চেয়েছিলেহয়নি। আমি জানলামচেয়ে পাইনি।হয়নি।জলভেজা চোখে ভেসে গেলআমাদের অতীত।স্মিত হেসে সামনে এসে দাঁড়ালোপথদুজনার দু টি পথ।সেপ্টেম্বর ২২, ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

গুলাম আলি এবং শিবসেনা সমাচার

Parichay Patra

গুলাম আলির গজল অনুষ্ঠান মুম্বাইতে বন্ধ করা নিয়ে নানা কথা চলছে। শিবসেনা ঠাকরের মৃত্যুর পরে প্রায় উঠে যেতে বসেছিল, এককভাবে ভোটে লড়ে বিজেপিও তাদের একঘরে করে দিয়েছিল। শিবসেনা কেবল ধর্মীয় মৌলবাদী দলই নয়, তারা ভয়ঙ্কর রেসিস্ট প্রাদেশিক দল। নিজেদের জাতীয় পরিচিতি এবং প্যান-ইন্ডিয়ান হিন্দু জাতীয়তাবাদ নামক অস্ত্র নিয়ে সতর্ক বিজেপি এদের থেকে ধীরে ধীরে দূরত্ব বজায় রাখার চেষ্টায় ছিল পরেরদিকে। শিবসেনা তাই আগের চেহারায় ফিরে আসতে চেষ্টা করল, খবরে থাকতে চাইল। শিবসেনার কাছে এটা নতুন নয়, তাদের জন্মই হয়েছিল মুম্বাইয়ের ট্রেড ইউনিয়নকে দুর্বল করতে, এবং কংগ্রেস এই বিষবৃক্ষ রোপণে সাহায্য করেছিল। বিজয় তেণ্ডুলকরের ‘ঘাসিরাম কোতোয়াল’ নাট্যকর্ম বা তা অবলম্বনে মণি কাউল ও কে হরিহরনের ফিল্ম শিবসেনার জন্মরহস্যের রূপক বলেই মনে করাই হয় তাই। আমার গুলাম আলির গান সম্পর্কে কিছুই বলার হক নেই, কেননা দেশি ক্লাসিকাল, সেমি-ক্লাসিকাল, লাইট-ক্লাসিকাল কিছুই বুঝি না, এগুলি নিয়ে চর্চা বা পড়াশোনা নেই, তাই শুনিও না। গুলাম আলির একটি গান শুনেছি যতদূর মনে পড়ছে। তাঁর কনসার্টে আমি এমনিতেও যাব না, সমজদার নই বলে। কিন্তু প্রশ্ন এখানে অন্য। সেন্সরশিপ ভারতে নানা ফর্মে করেন নানা দল। আনন্দ পটবর্ধনের ‘ওয়ার অ্যাণ্ড পীস’ বিজেপি আমলে অনেক চেষ্টা হয়েছিল আটকাবার, আদালতের রায়ে দেখানো গিয়েছিল, এবং কলকাতায় দেশের মধ্যে প্রথম স্ক্রীনিং হয়, সীগালের উদ্যোগে। তখন আমি ইশকুলের শেষ ধাপে, সীগালের মেম্বার ছিলাম, খুব উৎসাহ নিয়ে ম্যাক্সমূলারে গিয়েছিলাম দেখতে। এই ছবি আবার কংগ্রেস আমলে গোয়ায় ইফিতে বেশি লোক হলে আসার আগেই জানানো হয়েছিল হাউসফুল। কংগ্রেসের সেন্সরশিপের ফর্মটা বেশ পাকা মাথার কাজ। শিবসেনারটা রাস্তার মস্তানের। আবার অতিবাম কিছু দলের কৃপায় আলেক্সান্দর সকুরভের ‘টরাস’ এর একটি প্রদর্শনী বাতিল হয়েছিল ২০০১ এর কলকাতা ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে। পিওর এস্থেটিক আনন্দের জায়গা আটকে, এস্থেটিকস এবং পলিটিক্সের সম্মিলনের জায়গা আটকে যা হচ্ছে তা হল এই যে শিবসেনা-বিজেপির বিরুদ্ধে আমাদের যে শিল্প তা ক্রমশই বেশি করে ডাইডাকটিক এবং শিল্পগুণহীন হয়ে উঠছে। যে আমি ইশকুলবেলায় পটবর্ধনের ছবি দেখতে ছুটেছি আজ সেই আমার পটবর্ধনের হালফিলের কাজ বা একই মোডে নির্মিত ‘মুজফফরনগর বাকি হ্যায়’ জাতীয় ছবি পছন্দ হয় না, কেননা নন-ফিকশন আর ফিকশনের ভেদরেখা অনেকদিনই নেই, আর এই আমি প্যাট্রিশিও গুজমান, পেদ্রো কোস্তা, হোয়াকিম পিণ্টো, কর্নেলিউ পোরাম্বিউ, সেরগেই লোজনিৎসা, হোসে লুই গেরিন, মারসেদেস আলভারেজদের ছবি দেখে ফেলেছি। বুঝতে পেরেছি বাকি পৃথিবীতে নন-ফিকশন বহুদূর এগিয়ে গিয়েছে। পরমুহূর্তেই আমার মনে পড়ে যায় আমার দেশে শিবসেনা, বানরসেনা ইত্যাদি আছে, সেখানে এই তিরিশ বছর ধরে একটুও ইভলভ না করা বিরক্তিকর তথ্যচিত্রের বিরোধিতাও করা মুশকিল, কেননা তার একটা রাজনৈতিক প্রাসঙ্গিকতা আছে। শিবসেনা আজ আমাকে আবার এই একই সমস্যার কথাই মনে করিয়ে দিল।

অতএব, যেমন মহামতি বের্টোল্ট ব্রেশটের গালিলেও বলিয়াছেন, দুর্ভাগা সেই দেশ যেখানে কেবল বীরেরই প্রয়োজন হয়।


461 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: pi

Re: গুলাম আলি এবং শিবসেনা সমাচার

কথাগুলো দরকারি।

'যে আমি ইশকুলবেলায় পটবর্ধনের ছবি দেখতে ছুটেছি আজ সেই আমার পটবর্ধনের হালফিলের কাজ বা একই মোডে নির্মিত ‘মুজফফরনগর বাকি হ্যায়’ জাতীয় ছবি পছন্দ হয় না, কেননা নন-ফিকশন আর ফিকশনের ভেদরেখা অনেকদিনই নেই', এটা নিয়ে একটু বিস্তারিত চাই, এখানে না হোক,একটা আলাদা লেখাতে।
Avatar: অনামী

Re: গুলাম আলি এবং শিবসেনা সমাচার

শিবসেনা - যখন বিজেপি আপনার জন্যে যথেষ্ঠ জাতিবিদ্বেষী বা পরধর্ম বা অপরের সংস্কৃতির প্রতি অসহিষ্ণু নয়, আমাদের কাছে আসুন!
এম-এন-এস - যখন শিবসেনাকে নরমপন্থী মনে হবে, আমাদের সদস্য হোন!

Avatar: de

Re: গুলাম আলি এবং শিবসেনা সমাচার

অনামী - যা বলেছেন! এক সে বড়্কর এক!
Avatar: nripen

Re: গুলাম আলি এবং শিবসেনা সমাচার

"এগুলি নিয়ে চর্চা বা পড়াশোনা নেই, তাই শুনিও না।"
কী বিদঘুটে লজিক!
ভালো লাগা ব্যাপারটা সবসময় চর্চা নির্ভর নাকি!
Avatar: Ekak

Re: গুলাম আলি এবং শিবসেনা সমাচার

একেবারেই চর্চা -পড়াশোনা না থাকলে কোনো জিনিস কিভাবে ভালো লাগতে পারে ? !!! ভালোলাগা একটা লার্নিং প্রসেস তো । অনেকসময় আমাদের "নতুন জিনিস " ভাললাগছে মনে হয় বটে কিন্তু সেক্ষেত্রেও সেটা কোনো না কোনো আগে ভালোলাগা টেম্পলেট কে ইনহেরিট করছে বলেই ।
Avatar: sinfaut

Re: গুলাম আলি এবং শিবসেনা সমাচার

বড় হয়ে ভালো লাগা তৈরী হওয়ার আগে চর্চা লাগতেও পারে, তাও সব সময় নয়। ছোটো থেকে যেগুলো ভালো লাগায় পরিণত হয়, যেমন আমার ক্ষেত্রে ইন্ডিয়ান ক্লাসিকাল শোনা সেটা আমার কানের কাছে জন্ম থেকে বাজতো বলে হয়েছে। এবার কানের কাছে গান বাজাকে চর্চা বলবো কিনা জানিনা, কিন্তু আমার নিজের তরফ থেকে এই সঙ্গীত নিয়ে চর্চার পরিমাণ একেবারেই শুণ্য। দুয়েকটা বই পড়াকে নিশ্চয় এর মধ্যে ধরব না। আর নিজের চেষ্টায় নানা ধরণের শিল্পীর গান বাজনা শোনাকে যদি চর্চা বলে ধরি তাহলে সেই চর্চা আমি করি গানবাজনা ভালো লাগে বলে। চর্চাটা আপনাআপনি শুরু করার এছাড়া কোন মানে নেই তো। যদি না পয়সা পাওয়া যায় বা পিহেইচডি করার মত কারণ থাকে। তো এখানে চর্চা বলতে কি বোঝানো হচ্ছে?
Avatar: রজত

Re: গুলাম আলি এবং শিবসেনা সমাচার

পরিচয়,
সময়োপযোগী লেখা সন্দেহ নেই। "দেশি ক্লাসিকাল, সেমি-ক্লাসিকাল, লাইট-ক্লাসিকাল কিছুই বুঝি না, এগুলি নিয়ে চর্চা বা পড়াশোনা নেই, তাই শুনিও না" শুনে একটু অস্থির হলাম। গুলাম আলি শুনতে এসব বোঝার প্রয়োজন নেই। 'আওারগী', 'চুপকে চুপকে রাত দিন', 'হাঙ্গামা হ্যায় কিঁউ বরপা' শুনুন, মন ভাল হয়ে যাবে। শিবসেনার মহাপুরুষেরা যে উৎকট, সন্দেহ নেই - অবাক ব্যাপার হল আমার কয়েক বিজেপী-বাদী বন্‌-"গো" সন্তান ফেবু বন্ধুও দেখলাম সমর্থন জানিয়ে লেখা লেখি করছে। লজ্জা।
- রজত
Avatar: পরিচয়

Re: গুলাম আলি এবং শিবসেনা সমাচার

'চুপকে চুপকে রাত দিন' শুনেছি। ওইটে প্রিয়।
Avatar: রৌহিন

Re: গুলাম আলি এবং শিবসেনা সমাচার

পরিচয়ের জন্য দুটো লাইন -
"নফরতোঁ কে তীর খা কর - দোস্তোঁ কি শহর মে
হামনে কিস কিস কো পুকারা ইয়ে কহানী ফির সহি
হাম কো কিসকে গম মে মারা ইয়ে কহানী ফির সহি" -
প্রসঙ্গত চর্চা আমারো শুন্য - কিন্তু গুলাম আলী শুনতে এমনিতেই ভালো লাগে দীর্ঘদিন - ছোটবেলায় উর্দু শব্দের মানে বুঝতাম না - তখন আমার বাবা বুঝিয়ে দিতেন গুলাম আলী আর মেহেদী হাসানের বিভিন্ন গানের লিরিক - পরে নিজে একটু একটু করে বুঝতে শিখলাম। ভালো লাগাটা একটা প্র্যাকটিসও বোধ হয়



আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন