হোককলরব RSS feed

hokkolorob 2014এর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • ইন্দুবালা ভাতের হোটেল-৬
    চিংড়ির হলুদ গালা ঝোলকোলাপোতা গ্রামটার পাশ দিয়ে বয়ে চলেছে কপোতাক্ষ। এছাড়া চারিদিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে খাল বিল পুকুর। সবুজ জংলা ঝোপের পাশে সন্ধ্যামণি ফুল। হেলেঞ্চার লতা। উঠোনের কোন ঘেঁষে কাঠ চাঁপা। পঞ্চমুখী জবা। সদরের মুখটায় শিউলি। সাদা আঁচলের মতো পড়ে থাকে ...
  • যৌন শিক্ষা মহাপাপ...
    কিছুদিন ধরে হুট করেই যেন ধর্ষণের খবর খুব বেশি পাওয়া যাচ্ছে। যেন হুট করে কোন বিষাক্ত পোকার কামড়ে পাগলা কুকুরের মত হয়ে গেছে কিছু মানুষ। নিজের খিদে মিটাতে শিশু বৃদ্ধ বাছ বিচার করারও সময় নাই, হামলে পড়ছে শুধু। যদি বিষাক্ত পোকার কামড়ে হত তাহলে এই সমস্যার সমাধান ...
  • ইতিহাসবিদ সব্যসাচী ভট্টাচার্য
    আধুনিক ভারতের ইতিহাস চর্চায় সব্যসাচী ভট্টাচার্য এক উল্লেখযোগ্য নাম। গবেষক লেখক শিক্ষক এবং শিক্ষা প্রশাসক হিসেবে তাঁর অবদান বিশেষ উল্লেখযোগ্য। সবসাচীবাবুর বিদ্যালয় শিক্ষা বালিগঞ্জ গভর্মেন্ট হাই স্কুলে। তারপর পড়তে আসেন প্রেসিডেন্সি কলেজের ইতিহাস বিভাগে। ...
  • পাগল
    বিয়ের আগে শুনেছিলাম আজহারের রাজপ্রাসাদের মতো বিশাল বড় বাড়ি! তার ফুপু বিয়ে ঠিকঠাক ‌হবার পর আমাকে গর্বের সাথে বলেছিলেন, "কয়েক একর জায়গা নিয়ে আমাদের বিশাল বড় জমিদার বাড়ি আছে। অমুক জমিদারের খাস বাড়ি ছিল সেইটা। আজহারের চাচা কিনে নিয়েছিলেন।"সেইসব ...
  • অশোক দাশগুপ্ত
    তোষক আশগুপ্ত নাম দিয়ে গুরুতেই বছর দশেক আগে একটা ব্যঙ্গাত্মক লেখা লিখেছিলাম। এটা তার দোষস্খালন বলে ধরা যেতে পারে, কিন্তু দোষ কিছু করিনি ধর্মাবতার।ব্যাপারটা এই ২০১৭ সালে বসে বোঝা খুব শক্ত, কিন্ত ১৯৯২ সালে সুমন এসে বাঙলা গানের যে ওলটপালট করেছিলেন, ঠিক সেইরকম ...
  • অধিকার এবং প্রতিহিংসা
    সল্ট লেকে পূর্ত ভবনের পাশের রাস্তাটায় এমনিতেই আলো খুব কম। রাস্তাটাও খুব ছোট। তার মধ্যেই ব্যানার হাতে একটা মিছিল ভরাট আওয়াজে এ মোড় থেকে ও মোড় যাচ্ছে - আমাদের ন্যায্য দাবী মানতে হবে, প্রতিহিংসার ট্রান্সফার মানছি না, মানব না। এই শহরের উপকন্ঠে অভিনীত হয়ে ...
  • লে. জে. হু. মু. এরশাদ
    বাংলাদেশের রাজনৈতিক ইতিহাসের একটা অধ্যায় শেষ হল। এমন একটা চরিত্রও যে দেশের রাজনীতিতে এত গুরুত্বপূর্ণ অবস্থানে থাকতে পারে তা না দেখলে বিশ্বাস করা মুশকিল ছিল, এ এক বিরল ঘটনা। মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে যুদ্ধ না করে কোন সামরিক অফিসার বাড়িতে ঘাপটি মেরে বসে ছিলেন ...
  • বেড়ানো দেশের গল্প
    তোমার নাম, আমার নামঃ ভিয়েতনাম, ভিয়েতনাম --------------------...
  • সুভাষ মুখোপাধ্যায় : সৌন্দর্যের নতুন নন্দন ও বামপন্থার দর্শন
    ১৯৪০ সালে প্রকাশিত হয়েছিল সুভাষ মুখোপাধ্যায়ের প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘পদাতিক’। এর এক বিখ্যাত কবিতার প্রথম পংক্তিটি ছিল – “কমরেড আজ নবযুগ আনবে না ?” তার আগেই গোটা পৃথিবীতে কবিতার এক বাঁকবদল হয়েছে, বদলে গেছে বাংলা কবিতাও।মূলত বিশ্বযুদ্ধের প্রভাবে সভ্যতার ...
  • মৃণাল সেনের চলচ্চিত্র ভুবন
    মৃণাল সেনের জন্ম ১৯২৩ সালের ১৪ মে, পূর্ববঙ্গে। কৈশোর কাটিয়ে চলে আসেন কোলকাতায়। স্কটিশ চার্চ কলেজ ও কোলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে পদার্থবিদ্যায় স্নাতক ও স্নাতকোত্তর স্তরে পড়াশুনো করেন। বামপন্থী রাজনীতির সাথে বরাবর জড়িয়ে থেকেছেন, অবশ্য কমিউনিস্ট পার্টির সদস্য ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

হোক আপডেট-কোলকাতা থেকে

হোককলরব

যাদবপুর এবং কোলকাতার ঘটনা, মিটিং , মিছিল, প্রতিবাদসভার আপডেট। যা হয়ে গেল এবং যা হতে চলেছে। এখানে সব থাকুক। টুকরো খবর, প্রতিবেদন, ছবি, ভিডিও, পোস্টার, সবকিছু।

http://s23.postimg.org/k2hvea0fv/ganoconvention.jpg
গতকাল সেক্টর পাঁচঃ

রুচণ্ডা৯ র ভাটিয়া৯ থেকে ঃ

name: /\ mail: country:

IP Address : 127.194.196.161 (*) Date:22 Sep 2014 -- 10:23 PM

সাতটা বলা হয়েছিল, শুরু হল সাড়ে সাতটা থেকে সেক্টর ফাইভের মিছিল। এস ডি এফ অটো স্ট্যান্ড থেকে টেকনোপোলিস অবধি। কালো রিবন আর আলপিনের ব্যবস্থা ছিল। চারশ মতো লোক জন ছেলে মেয়ে হাঁটল। বাঁ দিকের রাস্তা দখল করে দু সারিতে সবাই হাঁটছিল। পুলিশ ও মহিলা পুলিশ মোতায়েন ছিল। পুলিশ ও পুলিশের ভ্যান মিছিলের পিছু পিছু হাঁটছিল। প্রতিটা মোড়েই আরো কিছু কিছু পুলিশ ছিল। যে শ্লোগান গুলো হল-
লাঠির মুখে গানের সুর / দেখিয়ে দিল যাদব্পুর, পুলিশ তুমি যতই মারো / মাইনে তোমার একশ বারো, ছাত্র মেরে শিক্ষা প্রেম/ পুলিশ তোমায় শেম শেম, পুলিশ যত মারবে/মিছিল ততই বাড়বে, পুলিশ তুমি মারবে কত / আমরা সবাই বহিরাগত, এই ভিসিকে চিনে নিন / ওয়েলেক্সে বেচে দিন, আয় ভিসি দেখে যা / যাদবপুরের ক্ষমতা, হোক হোক হোক কলরব, হাতে হাতে কমরেড । গড়ে তোল ব্যারিকেড।এইরকম। আরো তিন চারটে বাদ পড়ল হয়তো। একদিকের সারির লোক গুনলাম, দুবার, একবার ১৭০ হল, পরের বার ১৫০। দু সারিতে মোটামুটি ৩৪০ আর মাঝখানে কিছু ছেলে হাততালি ও শ্লোগানের মুখরা ধরিয়ে দিচ্ছিল তাদের গুনে ঐ ৪০০ মতো ই হবে মোটমাট। টেকনোপোলিস এর মুখে এসে আবার ঘুরে দাঁড়িয়ে শ্লোগান হচ্ছিল। হেঁটে হেঁটে আবার এস ডি এফ ফিরবে কিনা দেখা হয়নি আর। শুরুতে কিছু সমস্যা হচ্ছিল। লোকজন রাস্তায় দাঁড়িয়ে বুঝতে পারছিল না কোন দিকে যেতে হবে, কোথা থেকে শুরু হবে মিছিল আদৌ হচ্ছে কিনা বুঝতে না পেরে অনেকে ফিরেও গেছে। আমাদের আপিসের ই একজন ফিরে যাচ্ছিল, আমরা ডেকে নেওয়ায় আবার উৎসাহে চলে এল। অনেকে ফটো তুলেছে, সাক্ষাৎকার ও হয়েছে। চ্যানেলের মরো দেখতে ভিডিও ক্যামেরা ও ছিল, প্রফেশনাল ক্যামেরা নিয়েও অনেকে ফটো তুলছিল ।মোবাইলে তোলা ভিডিও ছবি খুব ভালো আসে নি, আপলোড করে লাভ হবে না বোধয়। তবু দেখব।

---

Comment from pobitro b on 22 September 2014 23:38:58 IST 127.194.89.106 (*) #
সেক্টর ফাইভ এ আজ মিছিলে ৪০০ লোক হাটলেন। পিওর “আই টি পিপল”। অফিস আওয়ার্স এরপর কর্ম সংস্কৃতি অক্ষুন্ন রেখে নিরব মিছিল। নিরবতা, কারণ ঐ বলেই পুলিস এর থেকে পার্মিসন নেওয়া হয়েছিল। তবে সে মিছিল আর নিরব থাকলো কই? CTS এর গেট পেরোতে না পেরোতেই শুরু হলো স্লোগান। প্রথমে discretely একটা দুটো, তারপর continuous। অনেকেই জীবনে প্রথম মিছিলে হাটলেন বলে মনে হলো। কমন স্লোগান গুলোর সাথেও পরিচিত নন। তবে স্মার্ট লোকজন তো, একবার শুনেই তুলে নিলেন, তারপর আর থামায় কে?
হোক হোক হোক কলরব।
'Events in Kolkata this week.
----------------------------------------
1. 24th September - Citizens convention called by JU students

2. 25th September - Global day of protest in solidarity with JU students and march to Lalbazar police headquarters

3. 26th September - Protest meeting at Jadavpur 8B bus stand from 3 pm by APDR against police brutalities on JU students, police action to prevent the meeting of Forum for Alternative Politics in Hyderabad, police disruption of Bandi Mukti Committee meeting at Midnapur and polcie action against democratic rights organization in Manipur

4. 27th September - Public meeting by Nari Nirjatan o Durbrittayan birodi Ganamanch (Peoples forum to resist crimes against women and criminalization) at Jadavpur 8B bus stand from 3 pm to protest against sexual assaults in Jadavpur, Visvabharati and Dhupguri and police atrocities on protesting students.

Please participate and inform others.'

-পার্থসারথি রায়

25901 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


মন্তব্যের পাতাগুলিঃ [1] [2] [3] [4] [5] [6] [7] [8] [9] [10] [11] [12] [13] [14] [15] [16] [17] [18] [19] [20] [21] [22] [23] [24] [25] [26] [27] [28] [29] [30] [31] [32] [33] [34] [35] [36] [37] [38] [39] [40] [41] [42] [43] [44] [45] [46] [47] [48] [49] [50] [51] [52] [53] [54] [55] [56] [57] [58] [59] [60] [61] [62] [63] [64] [65] [66] [67] [68] [69] [70] [71] [72] [73] [74] [75] [76] [77] [78] [79] [80] [81] [82] [83] [84] [85] [86]   এই পাতায় আছে 1688 -- 1707
Avatar: Bangali

Re: হোক আপডেট-কোলকাতা থেকে

Presi te mrinmoy naam e ek ahoto chhatro ke kaal CMC te nei jaoa hoy. Dean of Students Gagari Chakroborty taake dekhteo giechhilen. ektu khonj khobor nie likhun..
Avatar: a x

Re: হোক আপডেট-কোলকাতা থেকে

সুখবর। ফেবু থেকে -

he university authority finally bows to the demands of the students on the formation of a Gender Cell with elected student representatives:
The Internal Complaints Cell (ICC) will cease to operate on cases of sexual offenses involving students of the university. A new SEPARATE Gender Cell will be formed to investigate those cases, and to undertake gender sensitization programmes in campus throughout the year, as resolved by the All Faculty General Body, and its modality and structure will be decided upon by a committee, which will include student representation, and will draw from the Saksham Guidelines.
Avatar: ঈশান

Re: হোক আপডেট-কোলকাতা থেকে

আপনাদের আগেই বলেছিলাম যদুপুরে কলরব মোটামুটি জয়যুক্ত। ভিসি গেছেন। মেয়েটির অভিযোগের তদন্ত রিপোর্ট বেরিয়েছে। শেষ মেজর দাবী ছাত্রপ্রতিনিধির, সেটাও সময়ের অপেক্ষাই ছিল, হয়ে গেল।

এই জেন্ডার সেন্সিটাইজেশান নিয়ে কিঞ্চিৎ চিন্তায় আছি, কিন্তু সে থাক।
Avatar: Abhyu

Re: হোক আপডেট-কোলকাতা থেকে

এই টইটাই খুঁজে পেলাম।

"ডন বস্কো পার্ক সার্কাসের এই ছাত্রটির মা এবং বাবা দুজনেই শিবপুর আইআইইএসটির ইলেকট্রিক্যালের ইঞ্জিনিয়ার৷ অপরাজিতার বক্তব্য , ‘যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়া অর্কদেবের কাছে আর কোনও ভালো অপশন নেই৷ কিন্ত্ত ইদানিং সেই বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলন যে চেহারা নিচ্ছে , তাতে ওকে কিছুতেই ওখানে পড়ার জন্য রাজি করাতে পারছি না৷ ’ "

http://www.epaper.eisamay.com/epaperimages/662016/662016-md-em-7/14479
988.JPG

Avatar: Abhyu

Re: হোক আপডেট-কোলকাতা থেকে

র‌্যাগিং বন্ধ হওয়াটা জরুরী
http://www.anandabazar.com/state/jadavpur-university-formed-investigat
ion-committee-to-prevent-ragging-1.508798#


"যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রাবাসের জলের ট্যাঙ্কের উপর থেকে পড়ে এই মুহূর্তে এক ছাত্র নার্সিংহোমে চিকিৎসাধীন। কোনও কোনও মহল থেকে ওই ছাত্র র‌্যাগিংয়ের শিকার বলে অভিযোগ তোলা হলেও তা এখনও স্পষ্ট নয়। কারণ, ইলেকট্রনিক্স অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন বিভাগের ওই পড়ুয়া শোভনদেব পাল মস্তিষ্কে আঘাত পাওয়ায় এখনও কথা বলতে পারছেন না। তিনি কী কারণে পড়ে গিয়েছিলেন, তা এখনও জানতে পারেননি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

সূত্রের খবর, ইউজিসি-র চিঠিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রাবাসের নির্দিষ্ট দু’টি ঘরে র‌্যাগিং চলে বলে উল্লেখ রয়েছে। উচ্চশিক্ষার এই কেন্দ্রীয় সংস্থার নির্দেশ মেনে র‌্যাগিং রুখতে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ক্যাম্পাসে নানা সচেতনতামূলক ব্যবস্থা নিয়ে থাকেন। নিয়ম মেনে ভর্তির সময় পড়ুয়া ও অভিভাবকদের র‌্যাগিং-বিরোধী ফর্মে সইও করতে হয়। কিন্তু এত কিছুর পরেও কেন বারবার র‌্যাগিংয়ের অভিযোগ সামনে আসছে, উঠছে সেই প্রশ্ন।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রের খবর, ২০১৩ সালে তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের এক ছাত্রকে র‌্যাগিংয়ের দায়ে তিন ছাত্র দোষী সাব্যস্ত হয়েছিলেন। কিন্তু তাঁদের শাস্তি মকুবের দাবিতে ছাত্রদের একাংশ প্রায় দু’দিন তৎকালীন উপাচার্য শৌভিক ভট্টাচার্যকে ঘেরাও করে রেখেছিলেন। শেষ পর্যন্ত ওই তিন ছাত্রের কোনও শাস্তি হয়নি। ২০১৫ সালেও হস্টেলে র‌্যাগিংয়ের অভিযোগ উঠেছিল।

বছর না ঘুরতেই ফের ছাত্রাবাসে উঠল র‌্যাগিংয়ের অভিযোগ।"
Avatar: হোককলরব

Re: হোক আপডেট-কোলকাতা থেকে

কলরবের যে গল্পটা বলব আজকে।

২০১৪ সালে "হোক কলরব" ডাক দিয়ে যেদিন কোলকাতায় জনসমুদ্রের ঢেউ আছড়ালো, সেদিন শ'খানেক ছেলেমেয়ে আইআইটি বম্বের রাস্তাতেও সলিডারিটি মিছিল করেছিল, যার মধ্যে আমিও ছিলাম। তখন আমি ফেসবুকে একটা বড়োসড়ো "প্রতিষ্ঠান-বিরোধী" সাহিত্য পত্রিকা গ্রুপের মেম্বার, বোধ হয় অ্যাডমিনও। সেই গ্রুপ যিনি চালাতেন (এখনো চালান, সম্ভবতঃ) সেই তৎকালীন বান্ধবীটি একজন বিলেতফেরত রিসার্চ সায়েন্টিস্ট, ভালো লিখতেন, বঙ্গীয় বামাঁতেল সম্প্রদায়ের ব্লু আইড গার্ল এবং বেশ কিছুটা ক্যারিশ্মাটিক। মোট কথা, তার প্রচুর ভক্ত ছিল এবং যাদবপুরের বাচ্ছারা অধিকাংশই সিনিয়র হিসেবে তাকে গুরু মানতো। সেই পত্রিকা এবং পত্রিকার কর্ণধার তখন আভঁ গার্দ রূপেণ কলরব-মঞ্চে সংস্থিতা। তার আহ্বানে দুর্গাপূজা জুড়ে কলরব কর্মসূচিতে যোগ দিলাম।

সপ্তমীতে এইট বি। অষ্টমীতে সাউথের কী একটা পার্কের পুজোতে, যেখান থেকে কর্তাব্যক্তিরা অবশ্য আমাদের উঠে যেতে বললেন। নবমীর বিকেলে স্লোগানিং হবার কথা ছিল বিধাননগরে। সেদিন আমি আর যেতে পারিনি, বাড়িতেই ছিলাম। তখন বেশ কয়েকটা ফেসবুক গ্রুপের অ্যাক্টিভ মেম্বার, মিছিলে না গিয়েও লাইভ খবর পাচ্ছি। হঠাৎ খবর এলো, একেবারে ঘোড়ার মুখ থেকেই, যে বিধাননগরের মিছিল পুলিশ ভেঙে দিয়েছে, ছেলেমেয়েদের তুলে নিয়ে গেছে। পত্রিকা মহতরমা নিজেই লিখলেন যে তাকেও সাদা পোষাকের পুলিশ অফিসার পাশে ডেকে নিয়ে গিয়ে বলেছেন, আপনার ওপর আমাদের নজর আছে। আপনি কি গ্রেফতার হতে চান? এবং তিনি "না, আমি অ্যারেস্ট হতে চাই না" বলে অকুস্থল থেকে সরে গেছেন।

শুনে খানিক অবাক হয়ে বললাম, তুমি অ্যারেস্ট হলে না? তিনি বললেন, না, আমি কী করে অ্যারেস্ট হবো?

সত্যিই তো। অ্যারেস্ট হবে ছাত্রছাত্রীরা, যারা ক্যানন ফডার। প্রশ্নটা করাই উচিত হয়নি আমার।

তারপর জিজ্ঞাসা করা হলো, এরপর উপায়? তো তারা জানালেন যে গ্রুপে অবস্থিত তৃণমূল সদস্য বন্ধুজন সাহায্য করছেন, যাদের গাড়ি করে তুলেছিল পুলিশ, তাদের কিছুক্ষণ ঘুরিয়ে উল্টোডাঙার কাছে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

ঠিক হলো, শান্তিপূর্ণ মিছিলের বিরুদ্ধে পুলিশের এই অসভ্য হস্তক্ষেপের প্রতিবাদ করতে আবার বিধাননগর অভিযান হবে, দশমীতে। তখনো বুঝিনি যে কলরবের এই চ্যাপ্টারের অন্ততঃ বিজয়া হয়ে গেছে।

পৃণাকা আর আমি দশমীর দিন বিধাননগর গেলাম মিছিলে যোগ দিতে। গিয়ে দেখি, গোটা পঞ্চাশ সাংবাদিক ক্যামেরা হাতে, আর জনা ষোলো প্রতিবাদী ছেলে-মেয়ে। স্ট্রেন্থ লাইজ ইন নাম্বারস।

ষোলো অবশ্য ছাব্বিশ হলো মিনিট তিরিশের মধ্যে। আমরা এগোলাম স্লোগান দিতে দিতে। সে এক দৃশ্য! মুষ্টিমেয় লোকজন স্লোগান দিচ্ছে। তাদের দিকে ক্যামেরা তাক করে পিছনের দিকে হাঁটছে দ্বিগুণ সংখ্যক সাংবাদিক। তাদের কেউ কেউ আবার আমাদের প্রম্পট করছিলেন, হাতটা মুঠো করে ওপরের দিকে তুলুন, তুলুন না! ভালো ফ্রেম পাচ্ছি না! আচ্ছা, বাঁদিক থেকে নিলে একটু বেশি লোক মনে হবে কি? তাদের উদ্দেশ্যে তখন ধ্যার মড়া ছাড়া আর কিছুই মাথায় আসেনি।

যাই হোক। পুলিশ কমিশনারের অফিসের সামনে আসতেই একজন সাদা পোষাকের অফিসার হাসতে হাসতে এসে বললেন, আপনারা কি কাগজটাগজ কিছু জমা দেবেন?

প্রশ্নটা সকলেরই খুব ভালো লাগলো। ছেলেমেয়েরা ওখানেই বসে বসে একটা চিঠি লিখল, বাংলায় আর ইংলিশে। অনেকদিন পর্যন্ত সেই ইংরিজি চিঠিটা স্ট্যাম্প পড়ার পর আমার কাছেই ছিল, তারপর হারিয়ে ফেলেছি।

চিঠিটা জমা দিতে ভিতরে যাবে কে?

যাদবপুরের এক ছাত্রী বলল, আমি যাবো। তারপর একটি ছেলেও বলল, যাবো। আমি বললাম, আমিও যাবো, যদি আর কেউ না যেতে চায়। পত্রিকা - ঠাকরুন বললেন, তুমি যাবে? তাহলে আমিও যাই।

আমরা চারজন ঢুকলাম। কমিশনারটি বেশ মিশুকে, রসিক ভদ্রলোক। কে কী করে জেনে নিলেন। আইআইটি বম্বে শুনে জানতে চাইলেন এরোতে রিক্রুটমেন্ট কেমন; ওর ভাইপো না ভাইঝি কে পড়তে চায়। তারপর নিপুণভাবে আমাকে বহিরাগত ডিক্লেয়ার করে তিনি ম্যাডামকে জিজ্ঞাসা করলেন, আপনার ইনভলভমেন্টটা কী?

ম্যাডামের তখন মুখ শুকিয়ে আমশি। অদ্ভুত মিষ্টি, মিনমিনে গলায় তিনি বললেন যে তিনি অন্য প্রদেশের একটি নামকরা সরকারি শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানে রিসার্চ করেন; এই যে পশ্চিমবঙ্গের পুলিশ তাকে ফলো করে, তার পিছনে স্পাই লাগিয়েছে, এগুলো কি ঠিক? এতে কি তার ব্যক্তিস্বাধীনতা ক্ষুণ্ণ হচ্ছে না? না হয় তিনি একটি পত্রিকা চালান, তা'বলে পুলিশ তাকে অ্যারেস্ট করতে চায় কোন বিচারে? কমিশনার সাহেব যেন বিষয়টি নিয়ে দয়া করে একটু ভেবে দেখেন।

শুধু আমিই নয়, সামনের রোয়ে বসা ছাত্রছাত্রী দু'জন ও হাঁ করে ওর দিকে দেখছিল। একবারের জন্যও কলরব বা আগের দিন ছাত্রদের গ্রেফতার নিয়ে একটিও শব্দ খরচ করেননি সেই মহামান্যা।
দায়িত্ব নিয়ে মুভমেন্টের শিরদাঁড়া না হলেও, পায়ের কয়েকটা আঙুল ভেঙে দিয়েছিলেন তিনি। শুধু মিনমিন করে।

সেদিনের পর আমি নমস্কার জানিয়ে কলরব থেকে সরে গিয়েছিলাম। হয়তো সেই গ্রুপ থেকে সরে যাবারও সেটাই শুরু।

আজও তাই, জুনিয়র ডাক্তারদের নার্ভাস হতে দেখে একটুও খারাপ লাগেনি আমার। ওই দুঁদে পলিটিশিয়ানের সামনে বাঘা বাঘা হেভিওয়েট মূর্চ্ছা যায়, তোমরা তো বাচ্ছা, ভাই-বোনেরা। যা বলে আসতে পেরেছো তাই যথেষ্ট, তাই ঢের। অন্ততঃ, অন্য অনেকের মতো ক্ষমতার দম্ভের সামনে পড়ে তোমাদের শিরদাঁড়া বিকিয়ে যায়নি, এর জন্যই আমার আন্তরিক ধন্যবাদ নিও।
Avatar: হোককলরব

Re: হোক আপডেট-কোলকাতা থেকে

পিছনে স্পাই ফলো করে সেই ম্যাডামটি কে?
Avatar: তাতিন

Re: হোক আপডেট-কোলকাতা থেকে

পৃথিবীতে এমন কোনও আন্দোলন হয় নি, এমন কোনো আন্দোলন-নেতৃত্ব হয় নি, যার নামে এই টাইপের কুৎসা হয় নি। আর ু উপরের পোস্টার তো মনে হয় পেশাগত দক্ষতায় সেইসবই করে থাকেন :)
Avatar: dc

Re: হোক আপডেট-কোলকাতা থেকে

নাম না করে কুত্সা করাটা আমার সবচেয়ে অসহ্য লাগে। আপনি একজনের বিরুদ্ধে নাম না করে এতোসব অভিযোগ আনলেন, অথচ নামটা অবধি লেখার সাহস দেখাতে পারলেন না।

ঘটনার যা বর্ণনা দিয়েছেন তা যদি সত্যিও হয় তাহলেও আমার কিছু দোষের মনে হলো না। আমদের প্রত্যেকের নিজের নিজের ফ্যামিলি আছে লাইফ আছে। সেসব ছেড়ে পুলিশের মার খেতে কে রাজি হবে? অন্তত আমি কখনো কোন কারনেই হবো না। পার্সোনাল লেভেলে কম্প্রোমাইস আমরা প্রত্যেকে করি, আমি নিজেও করেছি। কাজেই কেউ করলে তাঁকে নিয়ে এতো বড়ো পোস্ট করতে যাবো না। (যদি আপনি যেমন লিখেছেন সেরকমই হয়ে থাকে তো)। আরেকটা কথা, এই গ্রুপে কারুর সাথেই আমার দেখা হয়নি, ডিডিদা ছাড়া (আর এককের সাথে ও অন্য একজনের সাথে ফোনে কথা হয়েছে)। তবে এখানে যাঁরা লেখেন তাঁদের সবাইকেই আমার ভালো লোক মনে হয়। নাম না করে ঘুরিয়ে পেঁচিয়ে কুত্সা করার কোন দরকার আছে বলে মনে করিনা। আর পাই ম্যাডাম, খ দা, ঈশান, আরও কয়েকজনের পার্সোনাল ইন্টেগ্রিটি নিয়ে আমার অন্তত কোন ডাউট নেই।
Avatar: Ivy

Re: হোক আপডেট-কোলকাতা থেকে

ঘোলা জলে মাছ ধরতে নেমে পড়েছে, ভালো ভালো। আপস আমরা কে করিনা , 20 টাকার চাল যখন 60 টাকায় কিনে আনি তখনই আপস করি। আর নাম না লিখে কুৎসা যারা করে তাদের কৃমি কীট মনে করি।
Avatar: dc

Re: হোক আপডেট-কোলকাতা থেকে

মাস দুয়েক আগে বোধায়, আমার বৌএর স্কুটারটা আমি চালাচ্ছিলাম আর পেছনে বৌ বসেছিল। সামনে একটা সিগনাল ছিল যেখানে ইউ টার্ন নিতে হবে। সিগনাল লাল ছিল, কিন্তু উল্টোদিকে খুব কম ট্রাফিক ছিল বলে টুক করে ঘুরিয়ে নিয়েছি। আর সাথে সাথে একটা পুলিশের গাড়ির সামনে পড়েছি, সেটায় আবার সার্জেন্ট বসে। স্কুটার থামালো, বললো এভাবে কেন ইউ টার্ন নিলে, দেখছো না সিগনাল নেই? লাইসেন্স বার করো, পাঁচশো টাকা ফাইন দাও। আমি মিনমিন করে বল্লাম স্যার মানি ব্যাগে মোটে একশো টাকা আছে, আর কখনো করবো না, এবার যেতে দিন। শেষে দেড়শো টাকায় রফা হলো।

এই হলো ব্যাপার। পুলিশ কমিশনারের সামনে যেতে হলে প্যান্ট হলুদ করে দিতাম।
Avatar: i

Re: হোক আপডেট-কোলকাতা থেকে

হোক কলরব নিকের ১০ঃ৪৭ পোস্টঃ

এই ধরণের পোস্টের উত্তরে লিখি না কোনদিন।ফালতু পাত্তা দেওয়া হয়, নিজের সময়ও নষ্ট ।আজ লিখছি একটাই কারণে-আপনার গদ্য খুব ভালো। বেনামে এই সব হাবি জাবি কুৎসা না রটিয়ে লিখুন না ভাল গদ্য, কবিতা.. যা সবার মনে থেকে যাবে/ ভালো লাগবে।সাম্প্রতিক ঘটনা নিয়ে যদি লিখতেই হয়, তো আলাদা করে লিখতেন না হয়-
দেখুন, ব্যক্তিগতভাবে , আমি এ পাতার বাইরে কী করি না করি তাও যেমন লোককে জানানোর ইচ্ছে নেই, কে এই পাতার বাইরে কী করল তা জানার বিন্দুমাত্র সময়/ ইচ্ছে নেই। আর অল্প কিছু মানুষজনকে যেটুকু চিনি জানি তাতে তাঁদের সম্বন্ধে যা ভালো/মন্দ ধারণা হওয়ার হয়েই গেছে। যতদিন বাঁচব বদলাবে না।

এই সব হাবিজাবি লেখার কোন মানে হয়? বেনামে কুৎসা করে নিজের লেখার ক্ষমতার অপচয় শুধু-
Avatar: r2h

Re: হোক আপডেট-কোলকাতা থেকে

নাম না নিয়ে গা বাঁচিয়ে ছুঁড়ে দেওয়া প্রাচীন অভিযোগ, অ্যানোনিমিটির সুযোগে মুখ ঢেকে তা আবার কপি পেস্ট - মজা মন্দ না।

ব্যক্তিগত ইনভলভমেন্টের প্রশ্নের উত্তরে পুলিশের ব্যক্তিগত হেনস্থার সম্ভাবনা সম্পর্কে বলা, এতে ঠিক কী সমস্যা তাও বুঝলাম না, কমিশনারের কাছে চিঠি নিয়ে যাওয়া ও মিছিলকে রিপ্রেজেন্ট করা মানেই তো ইনভল্ভমেন্ট দেখানো।

এই পোস্টটাকে আদৌ গুরুত্ব দেওয়া উচিত কিনা সেটা নিয়ে দ্বিধা ছিল, কিন্তু মনে হলো বলা উচিত, ব্যক্তিবিশেষকে নিয়ে কুৎসা বা অভিযোগ, সবরকম পরিচয়ের দায় অস্বীকার করে, এটার প্রতিবাদ করা দরকার মনে হলো।
Avatar: দ

Re: হোক আপডেট-কোলকাতা থেকে

ইসে, আমার একটা কথা মনে হল। গুরুর ব্লগে একটা জেনেরিক বাগ আছে মোবাইল থেকে মোবাইল ভার্সানে খুললে অনেক সময় নামের বাক্সটা আসে না বরং ব্লগটি যে নিকে লেখা সেটি অটোপপুলেট হয়ে বসে থাকে। এটার ওয়ার্ক অ্যারাউন্ড হল উপরের ওয়্রব ভার্সানে ক্লিকিয়ে ওয়েব ভার্সান লোড হলে সেখানে নামের বাক্স আসে, তখন লেখা। কিন্তু নেট কানেকশান স্লো হলে ওয়েব ভার্সান লোড হতে অনেক সময় লাগে।

এত কথা লেখার কারণ হল যে পোস্টটি নিয়ে সবাই বেনামী আক্রমণ বা অ্যানোনিমিটির আড়াল ইর‍্যাদি বলিছেন সেটা এই মোবাইল ভার্সানের বাগের শিকার নয়ত? কারণ পৃণাকা, বোম্বে আই আই টি ইত্যাদি দেখে লেখক নাম গোপনে খুব উৎসুক এমনটা মনে হচ্ছে না। নামের জায়গাতে ব্লিগের নিক 'হোককলরব' এসে গেছে কী?

বাকী রইল কুৎসা আর আক্রমণ। তো সেটায় ছোটাইয়ের সাথে অনেকটাই একমত। এমন চমৎকার গদ্য - চমিৎকার সব লেখা পড়তে পেলেই খুশী হব।
Avatar: র২হ

Re: হোক আপডেট-কোলকাতা থেকে

দমদি, লেখাটা যাঁর, এই পোস্টটা তিনি করেননি তো। পরপর দুটো পোস্ট দেখো। ইনি বক্তব্যটা অন্যত্র পেয়ে এখানে পোস্ট করেছেন - তাই অ্যানোনিমিটির আড়াল বললাম।
Avatar: দ

Re: হোক আপডেট-কোলকাতা থেকে

আচ্ছা বলছ যে 10.47 এর কমেন্টটা বক্তব্যের অসল লেখকের নয়, সেটা অন্য কেউ অন্যত্র থেকে কপি করে এনে পেস্টিয়েছে।
সেক্ষেত্রে তোমাদের বক্তব্য ঠিক।

তাহলে আবার চোটাইয়ের এবং ল্যাজ ধরে আমারটা ঠিক হয় না। মানে বক্তব্যের মালিক তো এখাঅনে লেখেন নি, নিজের ঘরে, নিজের সার্কলে কে কী বলবেন সে নিয়ে আর কিইবা বলব।

ধুত্তোর এত জটিলতা কেন!?
মরুগগে।
Avatar: pi

Re: হোক আপডেট-কোলকাতা থেকে

কপি পেস্ট কেন হবে, মোহর ভট্টাচার্যের ধক হলনা সাইটে নিজের নামে পোস্টটা করতে? আইপি ট্রেস হলে সমস্যা হবে? এত গালগুল্প খেউড় নিয়ে কেউ কিছু ব্যবস্থা নিলে সমস্যা হয়ে যাবে?
প্রতিটা ঘটনার এত এত আরো সাক্ষী আছে, কোথায় কী করেছি বলেছি, তা সংগে থাকা লোকজন মাত্রেই জানে ( ইনক্লুডিং কমিশনারকে কী বলেছি) আর অনেকেই সেসব কিছু গ্রুপে লিখেও যাচ্ছে, তাতেই কি আরো জ্বলছে?
তবে পাঁড় চাড্ডি হয়ে যাওয়া এই মহিলার এই এন আর এস আন্দোলন হাইজ্যাক করতে না পারার হতাশা আর চাড্ডি হুওয়া জনিত খার বা নতুন কোন এজেন্ডা থেকে এসব নতুন কুকীর্তি কিনা তা নিয়ে অনেকেই অনেক সম্ভাবনার কথা বলছেন, আমি ভাবছি এঁ্র আরো কীর্তিকলাপ ব্যাকগ্রাউন্ড লিখব কিনা।
তবে সে লেখার যখন সময় পাব, তখন লিখব।
নিত্যনতুন অসুখ পরীক্ষা রেস্ট্রিকশ্নস, মায়ের অসুস্থতা নিয়ে জেরবার হয়ে থাকা আর ফিল্ডে এই কাজের প্রচণ্ড চাপে, সেসব প্রায়োরিটি ফেলে, আমি মোটেও এসব চক্করে সময় অপচয় করব না, হয়ত সেটা করানোই উদ্দেশ্য। এসব ফাঁদে পা ফেলে অনেক ঠেকে ঠুকে শিখেছি এখন। যত ইচ্ছে মিথ্যে বানানো গাঁজাখুরি যা পারে চালাক, প্রভোক করা এখন অতটাও সোজা না। জীবনে অনেক দরকারি কাজ আছে। অপচয় করার মত অফুরান সময় সবার থাকেনা।


Avatar: r2h

Re: হোক আপডেট-কোলকাতা থেকে

ওহ আচ্ছা; হোককলরব on 19 June 2019 10:52:31 IST 9001212.56.340112.5 (*) #
"পিছনে স্পাই ফলো করে সেই ম্যাডামটি কে?" - এই কমেন্টটা পড়ে মনে হলো অন্য কেউ কপি পেস্ট করেছে।
Avatar: r2h

Re: হোক আপডেট-কোলকাতা থেকে

তবে এই পোস্টের পেছনে সময় অপচয় করার মানে হয় না, সেটা আমারও মত।
এটা আলোচনার যোগ্য কিছু নয়, প্রতিবাদ বা নিন্দাটা রেজিস্টার করার জন্য লিখলাম শুধু।
Avatar: হোককলরব

Re: হোক আপডেট-কোলকাতা থেকে

এটা তো ফেসবুকে মোহর ভট্টাচার্য বলে একজন লিখেছে দেখলাম। পাবলিক পোস্ট, অনেকে শেয়ার করেছে। উনি কার কথা বলতে চাইছেন?

মন্তব্যের পাতাগুলিঃ [1] [2] [3] [4] [5] [6] [7] [8] [9] [10] [11] [12] [13] [14] [15] [16] [17] [18] [19] [20] [21] [22] [23] [24] [25] [26] [27] [28] [29] [30] [31] [32] [33] [34] [35] [36] [37] [38] [39] [40] [41] [42] [43] [44] [45] [46] [47] [48] [49] [50] [51] [52] [53] [54] [55] [56] [57] [58] [59] [60] [61] [62] [63] [64] [65] [66] [67] [68] [69] [70] [71] [72] [73] [74] [75] [76] [77] [78] [79] [80] [81] [82] [83] [84] [85] [86]   এই পাতায় আছে 1688 -- 1707


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন