এবার পুজোয় ইন্দ্রপ্রস্থ


লিখছেন -- পারমিতা চট্টোপাধ্যায়


আপনার মতামত         


যাবেন না কি ? ইন্দ্রপ্রস্থ অথবা হস্তিনাপুর হয়ে প্রয়াগ আর লক্ষণপুরী ? দশটি হাজার টাকায় দশদিনের প্যাকেজ ট্যুর।
কি হল ? অমন ব্যোমকে গেলেন ?
বুঝেছি। কাগজপত্র পড়া কি ছেড়েই দিলেন ? আরে বাঙ্গালী বুদ্ধিজীবি সমাজে বাঁচবেন কি করে। যাকগে আসুন এট্টূ জ্ঞান দিয়ে নিই।
বেঙ্গেলুরু জানেন তো ? আমাগো ব্যাঙ্গালোরের লোতুন নাম । নভেম্বারের ছয় তারিখ থেকে হাই-ফাই আইটি সুন্দরী আধুনিকা ব্যাঙ্গালোর খোলস ছেড়ে( নাকি পরে?) হল গিয়ে নম্র ব্রীড়াবতী বেঙ্গেলুরু। এতো না হয় ঠোঙ্গা হয়ে যাওয়া খপর , সেই কবে দু হাজার পাঁচে জ্ঞানপীঠ প্রাপ্ত অনন্তমুর্তিবাবু যেই বললেন কর্ণটকের দশটি শকরের নাম বদলে কান্নাডা নাম দিয়ে দিতে , অমনি ধরম সিং সুড় সুড় করে দিলেন অ্যাপ্রুভের ছাপ্পাটি বসিয়ে।অত:পর ব্যঙ্গালোরে হল বেঙ্গেলুরু । সাথে মাইসুরু , ম্যঙ্গালুরু , বেলগাভি, শিভামোগ্গে এটসেট্রা এটসেট্রা।সিংজি হয়তো ভেবেছিলেন নাম দিয়ে ভোট টানবেন।বুড়োর ভাগ্যে তা আর জোটে নি শ্যাষতক। সে অন্য গপ্প।
একদিকে আমি কিন্তু বাপু এই নামবদলের পক্ষেই। আমার পোড়ামুখো গোরাবন্ধুগুলোর Bang Galore Bang Galore বলে হাসি ঠাট্টা সহ্যের সীমা ছাড়িয়ে যাচ্ছিল এক্কেবারে। বেশ হয়েছে এবার ,নাম নিতে বেঙ্গে বেঙ্গে করে দুবার চেষ্টা দিয়েই যখন ক্ষান্ত দিবি খুব হাসবো আমি একচোট তখন।

তবে ব্যঙ্গলোরের সময় ই বা এত হাল্লাগুল্লা কিসের বাপু। এইতো কবছর আগে যখন শিবসেনার ধাড়ি খোকাদের আবদারে বোম্বে হয়ে গেল মুম্বাই। কি না , মুম্বাই এসেছে কোলিদের পুজিত দেবী মুম্বাদেবী থেকে।মুম্বাদেবী থেকে মুম্বা বাই আর তার থেকে মুম্বাই। তা বেশ এসেছে তো এসেছে । গপ্পে পড়ি বম্বে ও তো এসেছিল পর্তুগীজ কলোনী বম বাহিয়া থেকে। মানে নাকি সুন্দর বন্দর। তা থাকলেই বা ক্ষতি কি ছিল। বেশ হংকং নামের সাথে কম্পিটিশন হতে পরতো। সেই যে ফেলুদার নাম করে সত্যজিত রায় টুক করে জ্ঞান দিয়েছিলেন হংকং মানে সুবাসিত বন্দর। ভুল গয়া ?
যাকগে যা হয়েছে হয়েছে। বম্বে এখন পুরো কাসুন্দি। আর নতুন হলেও বা ঘাঁটছে কে ? বাল থাকরের সাথে ঘাঁটাঘাঁটি করতে ইয়াব্বড় নেতারা থরথরিয়ে কাঁপে আর আমি না হয় ছোত্তো একতি বাঙ্গালী বুদ্ধিজীবি। গোটা দেশে যাদের নাম বাবুমশাই আর যারা মাছ আর রসোগোল্লা বই মুখে দেয় না।

তবে হ্যাঁ । আমি ঘেঁটে গেছিলুম ম্যাড্রাসের চেন্নাই নামকরণে। এদ্দিন দেখে এসেছি হতচ্ছাড়া বৃটিশগুলোর মোটা জিভে আমাদের দ্যাশের যে নামগুলো আটকে গিয়ে ছড়িয়ে ছত্রিশ হত সেই নামগুলোয় উড়িয়ে পুড়িয়ে দিয়ে আবার পুরোনো নামে ফিরে আসতো। কিন্তুক ম্যাড্রাস আর চেন্নাই ?
এর পেছনেও গপ্প আছে। শুরু হয়েছিল একটি নির্দোষ কেল্লা গড়া নিয়ে। গড়েছিল অবশ্যই গোরারা , তখন আমাদের পয়্‌হা কোথায় কেল্লা গড়ার ? তীতুমীর যদিই বা বাঁশ-টাঁশ দে গড়ল একখানি , তার যে কি হাল হল সে তো গপ্প-কবিতাতেই পড়েছেন। তা কেল্লা গড়া হল মাদ্রাসাপটনম গ্রামের গায়ে।দিনে দিনে বাড়তে লাগলো গোরাদের সে উপনিবেশ আর তার পাশে গড়ে উঠলো আরো একটি গাঁ। তারই মধ্যে ভেন্‌কটপতি বলে এক রাজা-গজার ইচ্ছে হল তার বাপ চেনাপ্পা নায়কের নামে নাম দেয় চেনাপটনম। ব্যাস কালাদের জিভে বেশ সরসরিয়ে নেমে গেল চেনাপটনম আর গোরাদের আড়ষ্ট জিভে মাদ্রাসাপটনম ছোটো হয়ে ছেঁটে হল ম্যাড্রাস।আবার লোকে বলে পর্তুগীজরা এসে নাকি আর এক উপনিবেশ বসিয়ে দেছিল এইখানেই , নাম ছিল মাদ্রে দি দিওস। তার থেকেই ম্যাড্রাস। সত্য হোক কি মিথ্যা , একবার যখন বিদেশি গন্ধ পাওয়া গ্যাছে তখন সে নাম কি আর তামিলনাড়ুতে চলে ? ওরা বলে হিন্দি শুনলে ক্ষেপে ব্যোম হয়ে যায় আর এতো এসেছে পোর্তুগাল না কোন ম্লেচ্ছ দ্যাশ থেকে। তাচ্চেয়ে চেন্নাই ই ভালো। আদতে তো এক তামিলের নাম সে বিষয়ে কোনো সন্দ নাই।অতয়েব ম্যাড্রাস হল চেন্নই। সাথে আরো বদল কোয়েম্বাতুর হল কোয়েমাত্তুর, তুতিকোরিন হল তুত্তুকুড়ি ইত্যাদি ইত্যাদি।
অবশ্য দক্ষিণে নাম বদল হলেও আমাদের তেমন কিছুই এসে যায় না। শেষ পর্যন্ত খটমটত্তে অল্পবিস্তর রদবদল হয় কি ন।
তা চাদ্দিকে যখন এত নতুন নতুন নামকরণ হচ্ছে তখন পশ্চিম বঙ্গই বা পিছায়ে রয় কেন।আমাদের কি কালচার কম পড়িয়াছে? অবশ্য চেন্নই আর মুম্বায়ের নামকরণের মতন আমাদের নেতাবর্গদের ইতিহাস-টিতিহাস অত ঘাঁটাঘাঁটি করতে হয় নাই। ক্যালকাটা যে কোলকতা হবে তা নিয়ে কারুর কিছু বলার ছিল কি ? শুনেছি বড়বাড়িতে নাকি সব নেতারা একসাথে ঘাড় হেলিয়ে হ্যাঁ বলেছিল নামবদলের কথায়।আমার এইসান রাগ হয়ে গেছিল শুনে। বেশ গ্যাট-ম্যাট করে বলতুম আই অ্যাম ফ্রম ক্যাল।তা অকাজখোর নেতাদের চোটে তা আর হতে দিলে না। এবার থেকে ম্যাড়মেড়িয়ে বলতে হবে কোলকাতা। উত্তরে তেনারা বলবেন ও ও ও কলকতা, মাছ খাবে , রসগুল্লা খাবে।
আর বলি এই নামবদল কি শুধু ভারতেই(পেরাকটিশ করে নিই , শিগ্গিরিরি ই হয়তো ইন্ডিয়া হবে ভোলবদলে ভারত , বলা যায় !) হচ্ছে নাকি। আরে মশাই কাগজ-টাগজ পড়লে , নেট-টেট ঘাঁটলে দেখবেন অমন আকছার হচ্ছে গোটা পৃথিবী জুড়েই। গাদা গাদা উদাও আছে - কম্বোডিয়া-কাম্পুচিয়া-ফির সে কম্বোডিয়া , বেইজিং-পেকিং , সেন্ট পিটার্সবার্গ-লেনিনগ্রাড , বর্মা-মায়ানমার , রেঙ্গুন-ইয়ানগন.......।

তব্বে ?কি বললেন ? খচ্চাপাতি ?? তা মহায় হয় , অনেক হয়। গোল কম নাকি ? সব সাইন-ফাইনের নাম মোছোরে , নতুন নাম লেখো রে । তারপর এবারে বদলাও যত অন্য সংস্থার নাম। ম্যাড্রাস ইউনিভার্সিটি হল চেন্নাই ইউনিভার্সিটি , আই আই টি বম্বে হল আই আই টি মুম্বাই। অতএব বদলাও যত কাগজপত্র , দলিল-দস্তাবেজ। সরকারী হিসেব বলে এক এক শহরের নাম বদলাতে খরচ হতে পারে কুড়ি থেকে সত্তর কোটী টাকা।
অ অ অ অনেক টাকা ?
দুর মশাই তাতো হবেই। শহরের নাম বদলানো বলে কথা।
অপচয় ?
আচ্ছা জ্বালালেন মশায় , আপনার কাজ আপনি ট্যাক্স ভরবেন। এবারে সে ট্যাহায় লালুর খোঁয়াড়ে নতুন গাই আসছে না ক্যালকাটা কলকাতা হচ্ছে তাতে আপনার কি ছেঁড়া যায় ? যান যান , খামোকা বাজে বকিয়ে দিলেন তো কাজের সময়টা নষ্ট করে।