L§VLQ¡9 1


শয়রর


আপনার মতামত         



            নাইন ইলেভেন -- একটি শোকগাথা

টুইন টাওয়ারে সন্ত্রাসবাদী হানা জনিত সর্বশেষ ক্যাজুয়ালটিটির খবর পাওয়া গেল হালে, যা এতদিন জনচক্ষুর অগোচরে ছিল। অসমর্থিত সূত্রের খবরে প্রকাশ, জনৈক বিবাহিত শ্বেতকায় যুবক,যার কর্মস্থল ঐ যুগ্ম স্তম্ভের কোনো একটিতে ছিল, ঘটনার দিন অফিস ফাঁকি দিয়ে প্রেমিকার অ্যাপার্টমেন্টে প্রেমসাগরে নিমজ্জিত ছিলেন। স্বভাবতই সেই অ্যাপার্টমেন্টে টিভি ও রেডিও, দরজা ও জানালা ছিল বন্ধ। শোনা যায় ভদ্রলোকের সেলফোনটি ও অফ করা ছিল, অভিসার শেষে অন করা মাত্র যা তারস্বরে বেজে ওঠে এবং অপরপ্রান্তে স্ত্রীর উৎকন্ঠিত গলার শব্দ শোনা যায়। -- কোথায় তুমি? প্রশ্নের উত্তরে নির্দ্বিধায় যুবক জানায় --কেন? অফিসে।কিছু কি হয়েছে সুইটি? হায়, তার জানা ছিলনা, ইতিমধ্যেই ঘটে গেছে সেই ঘটনা যাকে অত:পর সারা পৃথিবী রেফার করবে নাইন ইলেভেন বলে এবং তার সেই অফিস এই ধরাধামে আর টিকে নেই। অত:পর কেঁচো খুঁড়তে কেউটে এবং তার জের হিসাবে মাত্র কয়েকদিন আগে ঐ দম্পতির বিবাহবিচ্ছেদ নির্বিঘ্নে সুসম্পন্ন হয়েছে। আপনারা, যারা এখনও আবু ঘ্রাইব বলে লাফাচ্ছেন, তারা সন্ত্রাসবাদের এই বিশেষ দিকটি সম্পর্কেও অবহিত হন। এরা যে শুধু মানুষ মারে তাই নয়, জীবিত মানুষের কাছ থেকেও কেড়ে নেয় মৌলিক সেই অধিকার, যার নাম গোপণীয়তা। এরা ব্যক্তির কাছ থেকে কেড়ে নেয় স্বাধীনতা, স্ত্রীর কাছ থেকে কেড়ে নেয় স্বামীকে, ভেঙে চুরমার করে দেয় সুখের সংসার। ভেঙে যাওয়া সুখী গৃহকোণটির স্মৃতিতে দুফোঁটা চোখের জল ফেলুন প্লীজ, ব্যক্তির স্বাধীনতা ও নিরাপত্তা রক্ষার জন্য নি:স্বার্থ ধর্মযুদ্ধ লড়ছেন যাঁরা তাঁদের অকুন্ঠ সমর্থন করুন এবং তার পরে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে সমস্বরে গর্জে উঠুন -- হালুম। আর এই বিশ্ববিজয় শেষ হলে যদি জানা যায় অসমর্থিত সূত্রে প্রাপ্ত এই খবরটা আসলে গুজব, তাতে আর কি ই বা যায় আসে।



            জনতন্ত্র ও গণভোট

আপনারা কি বলেন জানিনা, তবে এই একমেরু দুনিয়ার অধীশ্বরের মতই আমরাও মানুষের অধিকার ও গণতন্ত্রে বিশ্বাসী। মানুষের মতামতের আমরা মূল্য দিই এবং জনতার রায় আমরা মাথা পেতে নিই। এটা যে শুধু কথার কথা নয়, তা জানানোর জন্য আমরা এক গণভোটের অয়োজন করেছি। আপনি যখন এই পাতায় এই লেখা অবধি পৌঁছেছেন, তখন ধরে নেওয়া যায় এই সাইটটি আপনি ভালোভাবেই পড়েছেন। এবার শুধু নিচের বোতাম গুলোর মধ্যে কোনো একটা টিপে এই সাইট সম্পর্কে আপনার মতামত আমাদের জানান। যদি বেশিরভাগ লোক জানান,যে সাইটটি ভাল লাগছে, তাহলে আমরা আমাদের পথে এগিয়ে চলব। অন্যথায়, খুব দু:খ পেলেও পথ পরিবর্তন করব। খুবই দু:খ হলে সাইট তুলেও দিতে পারি, কিন্তু জনতার রায় আমাদের শিরোধার্য। কারণ, এই একমেরু দুনিয়ার অধীশ্বরের মতই আমরাও মানুষের অধিকার ও গণতন্ত্রে বিশ্বাসী।

ভোটের বিষয়:
এই সাইট আপনার কেমন লাগল? উত্তর দেবার জন্য এখানে ক্লিক করুন