বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

এই সুতোর পাতাগুলি [1]     এই পাতায় আছে1--3


           বিষয় : 'ডায়লগস' কলকাতার এল জি বি টি চলচ্চিত্র উৎসব।
          বিভাগ : অন্যান্য
          শুরু করেছেন :অভিষেক রায়
          IP Address : 149.5.228.249 (*)          Date:13 Dec 2017 -- 03:39 PM




Name:  অভিষেক রায়           

IP Address : 149.5.228.249 (*)          Date:13 Dec 2017 -- 03:46 PM

কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের পরে অনেকটা নীরবে আরেকটি আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব হয়ে গেল ২৩- ২৬ নভেম্বর। বসুশ্রী সিনেমায় আয়োজিত হল ‘স্যাফো ফর ইকুয়ালিটি’, ‘প্রত্যয় জেন্ডার ট্রাস্ট’ ও ম্যাক্সমুলার ভবনের ত্রয়ী উদ্যোগে। দেশের এটি প্রথম LGBT ফিল্ম উৎসব যা প্রতি বছর পালিত হয়ে আসছে। চার দিন ব্যাপী এই উৎসবে দেখানো হয়েছে ৩৭ টি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক শর্ট ফিল্ম, ডকুমেন্টারি ও ফিচার ফিল্ম। এই বছর তারা একাদশ বার্ষিকীতে পা দিলেন। ২০০৭ সালে একটি বাৎসরিক সাংস্কৃতিক উৎসব হিসেবে ‘ডায়লগস’ র যাত্রা শুরু।
শুধু যে চলচ্চিত্র প্রদর্শন নয়, পরিচালক, স্ক্রিপ্ট লেখক, অভিনেতা সকলেই উপস্থিত থাকেন। আলোচনা হয়। যৌনতার জন্যে পৃথিবী জুড়ে যে বৈষম্যের শিকার হন অসংখ্য মানুষ সেইরকম বিভিন্ন ঘটনা ও প্রসঙ্গ তুলে ধরা হয় এই উৎসবে। সমকামী মানুষদের নিয়ে ধারণাটা এখনো কতটা অস্পষ্ট এবং যৌনতার অর্থ যে ক্ষুদ্র ব্যাখ্যায় বন্দি, তার থেকে মুক্ত হতে এই উৎসবের একটি বিশেষ ভূমিকা।
এখানে প্রদর্শিত ছবিগুলির মধ্যে তুলে ধরা হয় গে, লেসবিয়ান, উভয়কামী এবং রুপান্তরকামী মানুষদের কথা, তাদের দৈনন্দিন জীবনের বৈষম্য ও মানসিক, শারীরিক নানা ভীতিকর অভিজ্ঞতার কথা, তাদের গ্লানীর কথা। তার সঙ্গে পৃথিবীব্যাপী যে Queer আন্দোলন চলছে এবং আমাদের দেশের IPC 377 র বৈধতার যে কঠিন সংগ্রাম এবং সর্বস্তরের সমকামী মানুষের সুবিচার ও সুসম্মানের জন্যে যে ব্যক্তিগত ও সমষ্টিগত লড়াই সেই বিষয়গুলি এখানকার ছবি ও আলোচনায় তুলে ধরার এক বিশেষ প্রয়াস।
২০১৭ য় ৩৭ টি ছবি প্রদর্শিত হয়েছে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক মিলে ১৭ টি ভাষায়।
‘স্যাফো ফর ইকুয়ালিটি’ ২০০৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। পূর্ব ভারতে এই সংস্থাটি সমকামী নারী ও রুপান্তরকামী মহিলাদের (যারা লিঙ্গ পরিবর্তন করে নারী থেকে পুরুষ হন) অধিকার ও সুবিচার নিয়ে উল্লেখযোগ্য কাজ করে যাচ্ছে।
প্রত্যয় জেন্ডার ট্রাস্ট’র যাত্রা শুরু ১৯৯৭-’৯৮ সালে একটি সম্প্রদায় বিশিষ্ট উদ্যোগ হিসেবে। কতি হিসেবে যারা পরিচিত এবং আনুষ্ঠানিক ভাবে যারা লিঙ্গ বিশিষ্ট নন এবং রূপান্তরকামী মানুষদের বৈষম্য নানা হিংসাত্মক ঘটনার শিকার ও সামাজিক অধিকার নিয়ে লড়াই করে যাচ্ছে এই সংস্থা।
দেবলীনা নির্মিত ডকুমেন্টারী ‘লাইভস, লিভিংস অ্যান্ড জার্নি অব স্যাফো’ তে উঠে এসেছে এই সংস্থার ১৮ বছরের কাহিনী, এই ব্যতিক্রমী আন্দোলনের সূচনাপর্ব থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত তার সমষ্টিগত ভাবে তার অক্লান্ত প্রয়াস ব্যক্তিগত ও রাজনৈতিক।




Name:  prativa          

IP Address : 213.163.242.113 (*)          Date:13 Dec 2017 -- 07:24 PM

দেবলীনার ডকুমেন্টারির লিঙ্কটা পেলে খুব ভালো হত। এতোদিন ধরে কাজ করছে এই সংস্থা, অথচ কি আশ্চর্য নাম শুনেছি চার পাঁচ বছর হল। সোশাল মিডিয়ায় আরো প্রচার চাই। ভালো ডকু, নাটক, ফিচার , সাহিত্য সবকিছু দিয়ে সার্বিক প্রচার। গুরু ছাড়া তেমন ভাবে আর কোন সংস্থা কি ডেডিকেটেডলি এই কজকে লাগাতার সাপোর্ট দিয়ে যায় ?


Name:  pi          

IP Address : 24.139.221.129 (*)          Date:13 Dec 2017 -- 07:28 PM

আমাদের দেশে ৩৭৭ নিয়ে এখন ঠিক কী কী আন্দোলন হচ্ছে ? আর কী মনে হয়, এইধরণের প্রোগ্রামে আগের থেকে অংশগ্রহণ বেশি ? বিষমকামী মানুষেরা কেমন আসেন ? এই যে রেইনবো প্রাইড ওয়াক হল, তাতেও কি আগের থেকে অংশগ্রহণ বেড়েছে ? নন-lgbtq মানুষজনের অংশ নেওয়া বেড়েছে ? ৩৭৭ নিয়ে সেদিনের প্রাইড ওয়াকে নিশ্চয় পোস্টার ছিল। কিছু দেখতে পেলে ভাল হত।

এই সুতোর পাতাগুলি [1]     এই পাতায় আছে1--3