গুরুচণ্ডা৯র খবরাখবর নিয়মিত ই-মেলে চান? লগিন করুন গুগল অথবা ফেসবুক আইডি দিয়ে।

এই সুতোর পাতাগুলি [1]     এই পাতায় আছে1--3


           বিষয় : এক টুকরো উত্তরাঞ্চল
          বিভাগ : অন্যান্য
          শুরু করেছেন : San Gita
          IP Address : 53.239.82.6 (*)          Date:08 Oct 2017 -- 06:21 PM




Name:   San Gita           

IP Address : 53.239.82.6 (*)          Date:08 Oct 2017 -- 06:21 PM

এক টুকরো উত্তরাঞ্চল- পর্ব ১
-------------------------------
এবারের বেড়ানোটা মূলতঃ ছিল পাখি দেখা আর পাখির ছবি তোলার জন্য। তো ছবি যে তোলার সে তুলেছে, আমার ক্যামেরা আর ফোনের এত সাধ্য নেই, বিশ্বেস করুন বাবুমশাইরা!! আমি অপূর্ব সব মূহুর্ত মনের ক্যামেরায় তুলে রেখেছি। প্রত্যেক রোমকূপ দিয়ে শুষে নিয়েছি জীবনের রূপ, রস, গন্ধ! কেয়া পাতা কাল হো না হো!

যাই হোক, আমি আমার তোলা ছবিই দেখাব আর আমার গল্পই বলব। ঠিকাছে?

শুরু করি নৈনিতাল দিয়ে। আগের বার করবেট আর বিনসর ফেরত নৈনিতাল গেছিলাম। হেভিওয়েটদের পাশে সেবার সে ছিল প্রায় দুধভাত। শহরে আমাদের আগ্রহ যেহেতু বেশ কম, তাই পাত্তাই দিইনি। কিন্তু আমাদের বন্ধু সুমন-শবরী এমন একটা থাকার জায়গা বেছেছিল যে সেখানে ঢুকেই আমাদের মনপ্রাণ হায় হায় করে উঠল। শহর থেকে অনেক ওপরে ভিউপয়েন্টের কাছে পুরনো একটা বাংলোর বিরাট বড় বড় উঁচু উঁচু ঘরগুলো দেখেই আমাদের প্রাথমিক প্রতিক্রিয়া ছিল খুব অদ্ভুত। সুমন, শবরী, আমি আর ইন্দ্রনীল কেউ কারো সাথে আলোচনা না করে, ইন ফ্যাক্ট কেউ কারো দিকে বিন্দুমাত্র দৃকপাতও না করে যে যার ফোন থেকে প্রথমে নিজেরা চেষ্টা করে শেষে না পেরে ভাই, বোন, বন্ধুদের ফোন করে ঝুলোঝুলি যদি পরের দিনের বদলে তার পরের দিনের কোন টিকিট পাওয়া যায়। অমন জায়গায় একদিন থাকলে হয় কখনো? টিকিট পাওয়া যায়নি যদিও!

এবারে নৈনিতাল যাব আর ওখানে থাকব না, তাই হয়? ওখানেই ছিলাম। ওখান থেকে কী যে অপূর্ব লাগে ম্যাঙ্গো-শেপড নৈনি লেক আর শহরটাকে। দিনে একরকম আর রাতে আরেকরকম।


Name:   San Gita           

IP Address : 53.239.82.6 (*)          Date:08 Oct 2017 -- 06:22 PM

এক টুকরো উত্তরাঞ্চল- পর্ব ২
-------------------------------
এত সুন্দর ঘরদোর, পাশে মস্ত গাছের ছায়ায় একটা ছোট খোলা মাঠ, তাতে মিষ্টি মত একটা মন্দির, আর য্দ্দুর চোখ যায় সবুজ গাছগাছালি, লেক, কিছুটা রাস্তা আর বিরাট আকাশের ব্যাপ্তি- সব মিলিয়ে দিল খুশ হয়ে তো যায়ই। তবে এবার আমরা সামনের সবচেয়ে বড় আর ভালো ঘরদুটোর একটাও পাইনি। দূরে একটেরে একটা কটেজ পেয়েছি, যার সাথে একফালি ফাঁকা আরেকটা ঘর আর একটা কাঠের বারান্দা পেয়েছি- একদম গাছপালার ওপর ঝুলে থাকা যেন বারান্দাটা।

এবার বাড়িটার সবকিছুতেই একটু অযত্নের ছাপ দেখলাম মনে হল আর সেটা যে সত্যিই, দ্বিতীয়বার দেখছি বলে নয় সম্ভবতঃ- এই ভেবে খারাপই লাগল। তবে কিনা রান্না ওদের বরাবরই খাসা, (যদিও বড্ড কসুরি মেথিতে বিশ্বাসী ওরা)। জলখাবারের পুরি-সবজির সবজিটা অবধি আঙুল চেটে খাওয়ার মত।

ওদিকে পরিবারের জুনিয়ার মেম্বার সারাক্ষণই নানা কান্ড ঘটিয়ে চলেছেন। নৈনিতাল যাওয়ার পথে ভোরবেলা কাঠগোদাম স্টেশানে তিনি দুটো তুলোর বলের মত কুকুরছানা দেখতে পান। তার পশুপ্রেমের কথা তো আপনারাও জানেন কিছু কিছু। ঐ ছানাদুটো ছিলও বড় ছটপটে আর সুন্দর, তারা উজানবাবুর প্রতি নানা আহ্লাদ প্রকাশ করতে শুরু করল। তিনি ও বিগলিত। কিন্তু আমাদের গতবারের ড্রাইভার পান্ডেজি, যিনি এবার নৈনিতালের হোটেল বুকিং ও করে দিয়েছেন (হোটেলের লোকেদের ফোন করলেও বুকিং নেওয়ার কোন চেষ্টাই করে না, এমন আজব), তিনি তাড়া দিতে লাগলেন, সাথে আমরাও। আমি চঞ্চল ছানাদুটোর ছবি অবধি তুলতে পারলাম না। এর জন্য আজ অবধি তো বটেই, সম্ভবতঃ সারা জীবন আমাদের গঞ্জনা শুনতে হবে। সত্যি! পরে আমাদেরও মনে হয়েছে যে, ওখানে আরো দশ-পনেরো মিনিট বেশি থাকলে কী এমন ক্ষতি হত আমাদের! ঐ হোটেলেও গতবার গিয়ে একটা বাবা কুকুর টাইগার আর তার ছানা রেইনবো কে পেয়েছিলাম, এবার তারাও নেই- ফলে অশান্তি চরমে। শেষে বিকেলে লেকের পাশে এক ক্ষীণবল ছানা পেয়ে এবং তৎক্ষণাৎ তাকে কোলে তুলে নিয়ে উজানবাবুর দুঃখ কিছুটা প্রশমিত হল। উফ! শান্তি!
(চলবে)


Name:  pi          

IP Address : 57.29.214.86 (*)          Date:08 Oct 2017 -- 08:18 PM

সত্যি, উজানের কুকুরছানাপ্রীতি যা দেখলাম!

ছবি কই?

এই সুতোর পাতাগুলি [1]     এই পাতায় আছে1--3