এই সুতোর পাতাগুলি [1] [2] [3] [4] [5] [6] [7] [8] [9] [10] [11] [12] [13] [14]     এই পাতায় আছে389--419


           বিষয় : প্রিয় কবিতা - (২)
          বিভাগ : অন্যান্য
          বিষয়টি শুরু করেছেন : san
          IP Address : 14.99.231.200          Date:09 Mar 2011 -- 11:21 PM




Name:  apps          

IP Address : 122.79.35.182 (*)          Date:04 Oct 2015 -- 02:13 AM

আজকে এই ভোরের আলোয় হাসান উজ্জ্ব্ল
আমার হাতে মানুষ মারার কল

আজকে এই ভোরের আলোয় হুসেনহত লাল
আমার হাতে মানুষ মারার ফাল

রাস্তা দিয়ে গড়িয়ে আসে শবের ভাঙা গাড়ি
আমি পতাকাগুলি নাড়ি

আমি পতাকা দিয়ে ঢাকি
আমি পতাকা দিয়ে ছাঁকি

কফির জল , শোধন জল , বারুদ পোড়া ছাল
অনুশোচক করোটিকঙ্কাল

আমার বুক ভরে ওঠে ভোরের নিশ্বাসে
আজকে এই আগুনরাঙা ঘাসে

ভস্মময় পাকে় আর চাবুকটানা খালে
জড়িয়ে পড়ি একেশ্বর জালে

ছিটকে পড়ি আপন বাহুটানে
অস্ত্রহীন আলোর সন্ধানে

দেখি দূরের জানলাগুলি খোলা
বেতের খাটে হাজার শিশুর দোলা

ধাত্রীপ্রেত দুহাত তুলে থামায়
দুধের ট্রাক রক্তমাখা জামায় l

[উত্পল কুমার বসু]



Name:  b          

IP Address : 24.139.196.6 (*)          Date:04 Oct 2015 -- 12:31 PM

স্যান, সৈয়দ শামসুল হকের আরো লেখা চাই।


Name:  san          

IP Address : 113.252.218.171 (*)          Date:08 Oct 2015 -- 02:09 PM

বই নেই আমার কাছে এখানে। নেটে কিছু পেলাম।


Name:  san          

IP Address : 113.252.218.171 (*)          Date:08 Oct 2015 -- 02:11 PM

আমি কার কাছে গিয়া জিগামু সে দুঃখ দ্যায় ক্যান,
ক্যান এত তপ্ত কথা কয়, ক্যান পাশ ফিরা শোয়,
ঘরের বিছন নিয়া ক্যান অন্য ধান খ্যাত রোয়?-
অথচ বিয়ার আগে আমি তার আছিলাম ধ্যান ।
আছিলাম ঘুমের ভিতরে তার য্যান জলপিপি,
বাশীঁর লহরে ডোবা পরানের ঘাসের ভিতরে,
এখন শুকনা পাতা উঠানের পরে খেলা করে,
এখন সংসার ভরা ইন্দুরের বড় বড় ঢিপি।
মানুষ এমন ভাবে বদলায়া যায়, ক্যান যায়?
পুন্নিমার চান হয় অমাবস্যা কিভাবে আবার?
সাধের পিনিস ক্যান রঙচটা রদ্দুরে শুকায়?
সিন্দুরমতির মেলা হয় ক্যান বিরান পাথার?
মানুষ এমন তয়,একবার পাইবার পর
নিতান্ত মাটির মনে হয় তার সোনার মোহর।



(পরাণের গহীন ভিতর (৪) - সৈয়দ শামসুল হক)




Name:  san          

IP Address : 113.252.218.171 (*)          Date:08 Oct 2015 -- 02:19 PM

আমারে তলব দিও দ্যাখো যদি দুঃখের কাফন
তোমারে পিন্ধায়া কেউ অন্যখানে যাইবার চায়,
মানুষ কি জানে ক্যান মোচড়ায় মানুষের মন,
অহেতুক দুঃখ দিয়া কেউ ক্যান এত সুখ পায়?
নদীরে জীবন কই, সেই নদী জল্লাদের মতো
ক্যান শস্য বাড়িঘর জননীর শিশুরে ডুবায়?
যে তারে পরান কই, সেই ব্যক্তি পাইকের মতো
আমার উঠানে ক্যান নিলামের ঢোলে বাড়ি দ্যায়?
যে পারে উত্তর দিতে তার খোঁজে দিছি এ জীবন,
দ্যাখা তার পাই নাই, জানা নাই কি এর উত্তর।
জানে কেউ? যে তুমি আমার সুখ, তুমিই কি পারো
আমারে না দুঃখ দিয়া? একবার দেখি না কেমন?
কেমন না যায়া তুমি পারো দেখি অপরের ঘর? –
অপর সন্ধান করে চিরকাল অন্য ঘর কারো।



পরাণের গহীন ভিতর (৮) - সৈয়দ শামসুল হক



Name:  ব          

IP Address : 213.132.214.155 (*)          Date:08 Oct 2015 -- 02:23 PM

বাহ!!


Name:  san          

IP Address : 113.252.218.171 (*)          Date:08 Oct 2015 -- 02:23 PM

b , এই লিংটায় গিয়ে দেখি পুরো সিরিজটাই রয়েছে -

http://pipra24.blogspot.in/2012/04/blog-post.html


Name:  lcm          

IP Address : 83.162.22.190 (*)          Date:23 Jan 2016 -- 12:14 PM

পাগলা হাতির মা
- দেবজ্যোতি মুখোপাধ্যায়
--------
মা আমার পেটে ধরেছিল হাতি
সেই কবে - উনিশশো পঁচাশির জুন মাসে তার জন্ম
মা কি ভেবেছিল হাতিকে খাইয়ে
বড়ো করে, তার পিঠে বসে পৃথিবী বেড়াবে
আর লোকে সেলাম ঠুকবে।
হাতির জননী সে হল বটে
কিন্তু এ হাতি পাগল
সে তার মা-কে ফেলে, কলাবন জ্ঞানে
কাগজের বনে ঢুকে পড়েছে
আর লাফাচ্ছে যদি শব্দেরা ধরা দেয়
আর মা আমার, পাগলা হাতির মা,
কী ভয় পাচ্ছে -
বনদফতর যেন না নেয়
---
(ফেসবুকে কবীর সুমনের পাতায় দেখলাম)


Name:  Kaju          

IP Address : 11.39.137.8 (*)          Date:23 Jan 2016 -- 12:32 PM

বাঃ ভালো তো। এর আগে দেবজ্যোতির অনেক লেখা পড়েছি, নবপত্রিকাতেও, খুব একটা মনে ধরেনি, বুঝতে তো পারিই নি।


Name:  i          

IP Address : 134.168.158.206 (*)          Date:23 Jan 2016 -- 01:26 PM

কালাহারি মরুভূমি সুনসান,
সাদা গোলাপের পাপড়ি উড়ে পড়ল পক্ষীরাজ-
কার ঘোড়া।
তুমিই সওয়ার একা।
তোমাকে না, এই ভাব, এই দ্রুতি, এই বীরত্বকে
গতকাল দুপুরেই বিবাহ করেছি।

দেবদারু গাছটির পাতার উচ্ছাসে সে কোথায়,
লালচোখ কোকিল ঐ তারস্বরে ডেকে যাচ্ছে-
সারা মন, অচৈতন্য টলমল,
আমি তার গানকে বিবাহ করি
মনে বড় সাধ।

অবাধ বিকেলে কাল বিয়ে করব
পৃথিবী ও সূর্যতারাচাঁদ,
নিরাকার মাত্রাহীন স্থানকাল,
সৃষ্টিরহস্যকে একবার।


আমার বিবাহ
দেবারতি মিত্র
[মুজবৎ পাহাড়ে হাওয়া দিয়েছে, পৃষ্ঠা ৪৫]


Name:  i          

IP Address : 134.168.158.206 (*)          Date:23 Jan 2016 -- 01:32 PM

যখন তোমাকে আগে বুকে চেপে ধরতাম,
খুব হাঁসফাঁস করতে,
তোমার চামড়ার নীচ পর্যন্ত জ্বলন্ত লোহার দাগ পড়ে যেত।

আজ আমি তোমাকে
ছোট্ট সরু একটি নদীর মতো গলায় পরেছি,
আবছা আকাশের মতো গায়ে জড়িয়েছি।

হঠাৎ ছাঁট আসছে পুব থেকে দক্ষিণে,
ময়ূর ডাকে না, ব্যাঙেরাও না।
তুমি বৃষ্টিভেজা বনস্থলী
ঘুমিয়ে পড়েছ আজ হৃদয়ে আমার।

তোমার মুখ আমার থেকে দূরে,
তোমার মুখ আমার কাছাকাছি,
তোমার মুখ আমার মুখের দিকে-
দুটি একটি পদ্ম ফুটে আছে।

দুটি একটি পদ্ম
দেবারতি মিত্র
[মুজবৎ পাহাড়ে হাওয়া দিয়েছে, পৃষ্ঠা ৬৩]



Name:  i          

IP Address : 134.168.158.206 (*)          Date:23 Jan 2016 -- 01:41 PM

আগে ছিলাম দেয়াল, ছাদ, দরজা, জানলা, চৌবাচ্চার,
এখন আমি হাইওয়ের ধারে মেঘ, রোদ্দুর, পাকুড় গাছের,
অটোরিক্শা, বাস, ট্যাকসি, ভাঁটবন, আসশ্যাওড়া জঙ্গলের।
টালির ঘরের নির্মলাকে দিদি বলে হাত চেপে ধরি,
ধুলোমাখা পায়ে তার নাতি উঠে আসে আমার কোলে।
ভাব ঘন হয়, মাদুরে বসে জাঁতি দিয়ে সুপুরি কেটে কেটে
পান খাওয়া , তাস খেলা চলে।

ও পাড়ার চন্দবাবুদের মালী বলে-
মাসি, সুপুরি গাছের চারা নেবে দুটো?
নেব যে মাটি কোথায়?
আজকাল খুব জ্যোৎস্না হয়, সাদা কাপড় পরে
আমার মরা মা যেন দাঁড়িয়ে আছে
বাগানের সিঁড়ির নিচে।
ইটভাঁটার কাছে স্বপ্ন আর হাসিকান্নার চুলোচুলি
নিষুত রাত্তিরে।
এ বয়সে ঘুম ভাঙে তাড়াতাড়ি,
শিউলি ফুল কুড়োতে যাব,
মানি বেড়াল থাবা দিয়ে আঁচল টেনে ধরে।
আমি এখন কুকুরবেড়ালের, হাওয়াবাতাসের।


হাওয়াবাতাসের
দেবারতি মিত্র
[মুজবৎ পাহাড়ে হাওয়া দিয়েছে, পৃষ্ঠা ৬৪]


Name:  i          

IP Address : 134.168.158.206 (*)          Date:23 Jan 2016 -- 01:51 PM

কাল রাতে চাঁদের আলোয় দেখেছিলাম
পদ্মফুলের তলায় পদ্মফুলের ছায়া,
সকালে দেখি, ভুল।
পদ্মের বুকের নীচে আরেকটি পদ্ম,
জীবন মৃত্যুকে নিয়ে
ঐরকম ফুটে আছে।
আজ হেমন্তকালের রোদকুয়াশায় ছাওয়া সকালবেলায়
আর একজনের মুখ ঐরকম সত্যি।

গানের ঢেউয়ে ভেসে যেতে যেতে দেখি
শূন্যতার তৈরি নৌকোয়
সাদা-লাল রূপসী ছোট্টো কীটের মতো
সেও ডুবছে, ভাসছে।
আমাদের আবহাওয়ায় শুধু শিহরণ, শুধু স্পন্দন,
প্রাণ কেঁদে ওঠে কোলের মেয়ের মতো,
থামতে পারি না।
হিল্লোল কোথায় হারিয়ে যায়, কোথায় জন্মায়!
আমার সাথের সাথী কথাও বলে,
আলোর সুদর্শনচক্র ঘোরে নদীর স্রোতে-
স্রোত দাঁড়ায় না, আলো ও দাঁড়ায় না,
কিন্তু সে দাঁড়ায়,
একটু থেমে সে শোনে হাওয়াকে, আকাশকে।
সে হাসে না,
স্ফটিক-রুদ্রাক্ষের তার মালাটি এখন
আমলকী গাছের পাতাফলের মতো দোলে,
দেখে হয়তো তার মন কেমন করে।

পদ্মের নীচে পদ্মের ছায়ার মতো
তার নীচে এখন
আমি ঘুমো ই, জাগি, কথা কই।

পদ্মের তলায়
দেবারতি মিত্র
[তুন্নুর কম্পিউটার, পৃষ্ঠা ১৪]




Name:  Kaju          

IP Address : 11.39.36.131 (*)          Date:23 Jan 2016 -- 05:57 PM

এই শেষেরটা 'রক্তমাংস'-তে বেরিয়েছিল। গত বছরের ২৫ বছর সংকলনে দেখেছি।


Name:  i          

IP Address : 147.157.8.253 (*)          Date:25 Jan 2016 -- 01:56 AM

সাদার্ন অ্যাভিনিউর মাঝখানের ঘেরা গাছগুলো
এ কদিনে বেশ লম্বা হয়ে গেছে,
দেবাঞ্জলিকে এখানে পুঁতে দিলে অনেকখানি বাড়ত।
একঘেয়ে হয়ে যাবে সেই ভয়?
আরে না, না এক একটি পাতার এক এক রকমের মন।
গাছপালার স্বপ্ন, কাকভোরে মায়ের গন্ধ,
ভরসন্ধেয় ট্রেনের কান্না,
রাতদুপুরে ছমছমে স্তব্ধতা।

বোবা বোনটা আমার, পাগল বোনটা আমার,
শুনলেই লোকে হাসে-
কত আর মেঘ দিয়ে রোদ ঢাকবে?
ও আর কথা বলবে কী করে
ও কি আর এ দেশে আছে!
গোছা গোছা ফুলভর্তি মাধবীলতা পরনে
তেঁতুলপাতার টিপ কপালে চাঁদপানা বোন,
তোমার চেয়ে পাগল কোনোকালে হয় নি,
কোনোকালে ছিল না।

একটা গাছের কলম থেকে আরেকটা গাছ,
গাছ থেকে গাছের শিকড়বাকড় চারিয়ে
ঝুরি নামিয়ে আরেকটা গাছ,
শুকিয়ে গেলেও চট করে ধরা যায় না-
সঙ্গে সঙ্গে বিম্ববতীর আলোর কণা নখের মতো
গজিয়ে ওঠে।
গাছের শেষ নেই-
শীতকালে ওর জন্মদিন আর বসন্তকালে চলে যাবার দিন
ওরও শেষ নেই।


দেবাঞ্জলির কথা
দেবারতি মিত্র
[তুন্নুর কম্পিউটার]


Name:  Div0          

IP Address : 132.178.234.204 (*)          Date:18 Feb 2016 -- 11:05 PM

Do not go gentle into that good night,
Old age should burn and rave at close of day;
Rage, rage against the dying of the light.

Though wise men at their end know dark is right,
Because their words had forked no lightning they
Do not go gentle into that good night.

Good men, the last wave by, crying how bright
Their frail deeds might have danced in a green bay,
Rage, rage against the dying of the light.

Wild men who caught and sang the sun in flight,
And learn, too late, they grieved it on its way,
Do not go gentle into that good night.

Grave men, near death, who see with blinding sight
Blind eyes could blaze like meteors and be gay,
Rage, rage against the dying of the light.

[In Country Sleep, And Other Poems | Dylan Thomas, 1914 - 1953]


Name:  san          

IP Address : 11.39.35.185 (*)          Date:20 Apr 2016 -- 06:53 PM

দুদণ্ড দাঁড়াই ঘাটে। এই স্থির শান্ত জলে
তার আয়ত দৃষ্টির মৌন রহস্য
বিম্বিত হয় যদি।
দুদণ্ড দাঁড়াই এই অপরূপ অন্ধকারে।

--- পুরো কবিতাটা কারো হাতের কাছে থাকলে একটু লিখে দেবেন প্লিজ।


Name:  pi          

IP Address : 192.66.20.202 (*)          Date:19 Jul 2016 -- 09:53 AM

'দুটি একটি পদ্ম' কী ভাল লাগল।


Name:  b          

IP Address : 135.20.82.164 (*)          Date:02 Dec 2016 -- 10:42 AM

General, Your Tank
(Bertolt Brecht)
***********************
General, your tank is a powerful vehicle
It smashes down forests and crushes a hundred men.
But it has one defect:
It needs a driver.

General, your bomber is powerful.
It flies faster than a storm and carries more than an elephant.
But it has one defect:
It needs a mechanic.

General, man is very useful.
He can fly and he can kill.
But he has one defect:
He can think.


Name:  রোবু          

IP Address : 213.132.214.88 (*)          Date:02 Dec 2016 -- 10:50 AM

নিলাম।


Name:  Sudipta          

IP Address : 176.62.53.94 (*)          Date:23 Dec 2016 -- 09:44 PM

আজ বড় আনন্দ পেয়েছি, এটা থাকুক।

ধিক - শঙ্খ ঘোষ

একে ছেড়ে দাও, ওকে যদি চাও ধরতে
দক্ষিণ থেকে টান দাও বামাবর্তে।

নিজেকে ভেবো না মহাদুর্লভ-শঙ্খ
পথের দু-ধারে ছড়িয়ে আছে অসংখ্য।

চারিদিকে ভেবে তাতার নিষাদ দস্যু
অঝোর ধারায় ঝরিয়ো না আর অশ্রু।

বরং দু-হাতে ভাঙো রক্তের লজ্জা
নতুন ছন্দে মালিনী ইন্দ্রবজ্রা।

স্পর্শ-ও যেন না করে করুণাভিক্ষার
সারারাত্রির অবসানহীন ধিক্কার।

বছরে বছরে বয়স নিয়ে অলক্ষ্যে
নিজের শরীরে ব্যস্ত কোরো না লোককে।


Name:  b          

IP Address : 135.20.82.164 (*)          Date:11 Jan 2017 -- 11:11 AM

The Rolling English Road ( G K Chesterton, 1913) ****************************************************************************Before the Roman came to Rye or out to Severn strode,
The rolling English drunkard made the rolling English road.
A reeling road, a rolling road, that rambles round the shire,
And after him the parson ran, the sexton and the squire;
A merry road, a mazy road, and such as we did tread
The night we went to Birmingham by way of Beachy Head.

I knew no harm of Bonaparte and plenty of the Squire,
And for to fight the Frenchman I did not much desire;
But I did bash their baggonets because they came arrayed
To straighten out the crooked road an English drunkard made,
Where you and I went down the lane with ale-mugs in our hands,
The night we went to Glastonbury by way of Goodwin Sands.

His sins they were forgiven him; or why do flowers run
Behind him; and the hedges all strengthening in the sun?
The wild thing went from left to right and knew not which was which,
But the wild rose was above him when they found him in the ditch.
God pardon us, nor harden us; we did not see so clear
The night we went to Bannockburn by way of Brighton Pier.

My friends, we will not go again or ape an ancient rage,
Or stretch the folly of our youth to be the shame of age,
But walk with clearer eyes and ears this path that wandereth,
And see undrugged in evening light the decent inn of death;
For there is good news yet to hear and fine things to be seen,
Before we go to Paradise by way of Kensal Green.


Name:  i          

IP Address : 116.69.193.160 (*)          Date:15 Jan 2017 -- 05:23 AM

উজ্জ্বল আশ্বিন

রুক্ষ শুকনো চাঁদ সূর্য আমি আর পছন্দ করছি না
জলতলে ছিন্নমস্তা গোলাপ ফুলের মতো রশ্মি,
বিদেহী ডানারা ঐ অস্পষ্ট মাছ, অ্যানিমোন।
হাত পা ছুড়তে ছুড়তে আমি
অতল পাথারে ভেসে গেছি-
বন্ধু নেই, প্রিয় নেই, শেষ নেই,
কেবল আরম্ভ আছে, রয়েছে জীবন।

হাত থেকে উপহার নিতে চাই তোমাদের কাছে
আকাশবাতাস,
ভাদ্র সংক্রান্তির শেষে উজ্জ্বল আশ্বিন,
শূন্য থেকে ভেসে ওঠা নীল বা
আশ্চর্যবৎ ধ্বনির স্পন্দন।

[থঙহোয়া ফুল সাদাঃ দেবারতি মিত্র]


Name:  san          

IP Address : 113.245.14.101 (*)          Date:22 Mar 2017 -- 09:31 AM

মনে থাকবে না ? বাঃ ! সবগুলো
চাবুকের দাগ, যত কালশিটে , সব
বাদামি চামড়ার নিচে ঢাকা।
খুব মনে আছে।
একবার 'সপাৎ' শুনলে দুইপায়ে খাড়া।
দু'থাবায় ভিক্ষে চাওয়া। 'সপাৎ-সপাৎ'
শুনলে কেশর-টেশরশুদ্ধ শানের মেঝেয়
গড়াগড়ি, গড়াগড়ি, শীত-গ্রীষ্ম
নেই। তিনবার 'সপাৎ' শুনলে ? নির্দ্বিধায়
আগুনের ব্যুহের ফাঁদেও
চমৎকার ঝাঁপ দিই। আবার ?
আবার -

খুব মনে আছে।
কানেকানে নেশাতুর আদুরে 'সপাৎ' -
অক্লেশে লাফিয়ে পড়ি দাউ দাউ
জ্বলন্ত বলয়ে। আবার ?
আবার -
অন্ধকার থেকে
নিশিডাক বেজে ওঠে , শৃঙ্খলের মতো
ঝম্‌ঝম্‌ করতালি আষ্টেপৃষ্ঠে
সর্পিল জড়ায়। - দু'চোখ
ধাঁধিয়ে দেয় অলাতচক্রের
মায়া-দ্যুতি , এমন কি আগুনও
কিছু নয়। রিং মাস্টার,
ভুলিনি কিছুই। মনে নেই

শুধু পূর্বনাম। মনে নেই
অরণ্য কেমন ?

(লায়নটেমারকে - নবনীতা দেবসেন)





Name:  san          

IP Address : 113.245.14.101 (*)          Date:22 Mar 2017 -- 09:35 AM

এই যদি জীবন হয় ; জীবন-যৌবন,
আমার ও-বস্তুতে তবে কোনো লোভ নেই।
মা, তুমি ফিরিয়ে নাও স্বপ্ন ও স্মরণ,
কবিতা কল্পনালতা, সাতরাজার ধন
যা কিছু দিয়েছো , সব।
মাতৃস্নেহ, বন্ধুপ্রীতি , বিজয় , বিস্ময়,
পুঁটলি খুলে অনায়াসে ছুঁড়ে ফেলে দেবো
নাড়ীছেঁড়া রক্তমাংস। নিকষিত হেম।
রাশি রাশি স্বপ্নহারা দরিদ্র রয়েছে -
আমার স্বপ্নেতে তারা ভরুক হৃদয়।

এই যদি জীবন হয় ; জীবন-যৌবন,
তাহলে তো বিজ্ঞাপনে আমাদের স্রেফ ঠকিয়েছে।

(বন্যা - নবনীতা দেবসেন )


Name:  san          

IP Address : 113.245.14.101 (*)          Date:22 Mar 2017 -- 09:53 PM

কোনোদিন দেখা হয় না।
কোনোদিন কারো সঙ্গে দেখা হয় না।

যেন মধ্য সমুদ্রের নিরবধি জল,
নিঃসঙ্গ জেলে-ডিঙি
কয়েকটা খুচরো মাছ , নিরিবিলি একাধিক পাখি
নোনা, আঁশটে গন্ধ -
জলে তেমন কোনো ঢেউ নেই
গোলমেলে হাঙরের পর্যন্ত দেখা নেই

এ কেমন মাঠের মতো শান্ত , অসহায়
যেন নীলঘাসের গালিচায়
নৌকা না আরাম কেদারা ?
কোথায় যাচ্ছেন , তারাপদবাবু ?


(কোথায় যাচ্ছেন তারাপদবাবু - তারাপদ রায়)


Name:  san          

IP Address : 113.245.14.101 (*)          Date:22 Mar 2017 -- 09:57 PM

ছিলাম ভালোবাসার নীল পতাকাতলে স্বাধীন
কয়েকদিন মাত্র তবু এখনো সেই স্বাধীনতার স্বাদ
এখনো ভোলা গেল না।

সেই যে ফাঁকা আকাশ ধূধূ ময়দানে নীল পতাকা
জীবনপণ ভালোবাসার দাবী,
অস্ত্রাগার লুন্ঠনের অগ্নিযুগে দামাল
টেলিগ্রাফের লাইন কেটে ট্রেজারি লুট, থানা চড়াও,
বর্গ কয় মাইল জুড়ে অসম্ভব স্বরাজ ঘোষণায়
তোমার নীল পতাকাতলে কয়েকদিন মাত্র।

তবু এখনো সেই স্বাধীনতার স্বাদ,
তবু এখনো সেই ভালোবাসার স্বাদ,
এখনো ভোলা গেল না।


(ছিলাম ভালোবাসার নীল পতাকাতলে স্বাধীন - তারাপদ রায় )


Name:  rabaahuta          

IP Address : 202.86.100.204 (*)          Date:23 Mar 2017 -- 12:01 AM

তারাবাবু তো আমার অতি প্রিয়, কবি, এই কবিতাগুলো বারবার পড়তে ভালো লাগে।
আমিও এইটা তুলে দিই

----------------------------------------
ঈশ্বর ও আমার কবিতা – তারাপদ রায়
----------------------------------------
জয়দেবের কথা মনে রেখে
তোমারই জন্য দারোয়ান রাখবো বাড়িতে।
তুমি যাই করো, ঈশ্বর,
আমার অনুপস্থিতির সুযোগ নিয়ে,
আমার ছদ্মবেশে
আমার কবিতা সম্পূর্ণ করতে এসো না।


Name:  একক          

IP Address : 53.224.129.42 (*)          Date:23 Mar 2017 -- 02:02 AM

তারাপদ ভীষণ প্রিয় । এত সহজ ভাবে ভিডিও কায়নেস্থেটিক নোড কানেক্ট করেন যে ওরকম লিখতে সারা জীবন কলম ঘষে যেতে হবে ।

কোথায়, কে জানে?

তবু যেতে হবে শালবন
হয়তো ফুটেছে ফুল

শালফুল কখনো দেখেনি
শালফুল হয়তো ফোটেনা
ফুটলেও যাবেনা চেনা

কেননা এ পথ চলেছে
......... নিঝুমপুর।


Name:  san          

IP Address : 113.245.14.101 (*)          Date:23 Mar 2017 -- 12:20 PM

কে কতটা নত হব, যেন সব স্থির করা আছে।
যেন প্রত্যেকেই তার উদ্বৃত্ত ভূমিকা অনুযায়ী
উজ্জ্বল আলোর নিচে নত হয়।
সম্রাট , সৈনিক , বেশ্যা, জাদুকর , শিল্পী ও কেরানি,
কবি, অধ্যাপক, কিংবা মাংসের দোকানে
যাকে নির্বিকার হাতে মৃত ছাগলের চামড়া ছাড়াতে দেখেছি
এবং গর্দানে-রাঙে যে তখন মগ্ন হয়ে ছিল,
তারা প্রত্যেকেই আসে উজ্জ্বল আলোর নিচে একবার।
কপালে স্বেদের বিন্দু, সানন্দ সুঠাম ঘুরে গিয়ে
তারা প্রত্যেকেই নত হয়।

কেউ বেশি , কেউ কম, কিন্তু প্রত্যেকেই নত হবে
উজ্জ্বল আলোর নিচে একবার।
না-কেনা না-বেচা পণ্য , স্বর্গের তটিনী
সারাদিন জ্বলে;
এবং সৈনিক , বেশ্যা , কলাবিৎ, ভাড়াটিয়া গুন্ডা, কারিগর
একবার সেখানে যায় , যে যার ভূমিকা অনুযায়ী
নত হয় ; স্বর্গ হতে প্রলম্বিত আলোর সলিলে
মুখ প্রক্ষালন করে নেয়।

ঘরের বাহিরে জ্বলে দৈব জলধারা ;
দ্যাখো আলো জ্বলে , দ্যাখো আলোর তরঙ্গ জ্বলে , আলো
সকালে , দুপুরে , সারা দিন।
স্বর্গের তটিনী জ্বলে , আলো জ্বলে, আলো'
যেখানে দাঁড়াও।
কে বড়বাজারে যাবে , দু গজ মার্কিন এনে দিও ;
কে যাও পারস্যে , এনো সুন্দর গালিচা ;
কে যাও তটিনী-তীরে , স্বর্গের পুতুল ,
কিছুই এনো না , তুমি যাও।


(স্বর্গের পুতুল - নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী)


Name:  san          

IP Address : 113.245.14.101 (*)          Date:23 Mar 2017 -- 12:25 PM

তিনটে আকাট মূর্খ কবিতার বৈঠকখানায়
আলাপ জমাচ্ছে । মুক্তি পয়ারে , অথবা
রাত দু'-পহরে যদি গুটিকয় পঞ্চমুখী জবা
ছিঁড়ে নেওয়া যায় .... তবে ...তবে ....
তবে কি জাহাজগুলি অসম্ভব কচুরিপানায়
মূর্ছিত হবে না ? নাকি পাতালের চাবি
না পেয়ে বন্ধুরা গেল কবিতার ভীষণ গৌরবে ?

এদিকে শব্দের শিখা হাওয়ার ভিতরে খায় খাবি।

তাহলে শব্দের শিখা ... তাহলে শব্দের শিখা ... তাহলে তাহলে
শব্দ কি বোতলে বন্ধ ভূতের মতন
জড়তাবরণে স্বর্গসুখ পায় ? তারা তিনজন
উত্তরমালার অংশ দারুণ প্রাণপণে
উল্টিয়ে এখন দেখে, পৃষ্ঠাগুলি সমুদ্রের জলে
ধুয়ে গেছে , তাই তারা কচুরিপানায়
জাহাজ বন্ধক রেখে মগ্ন আজ কথোপকথনে।
তিনটে আকাট মূর্খ কবিতার বৈঠকখানায়।


(তিনটে আকাট মূর্খ - নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী )


এই সুতোর পাতাগুলি [1] [2] [3] [4] [5] [6] [7] [8] [9] [10] [11] [12] [13] [14]     এই পাতায় আছে389--419