আদমের আপেল


অনির্বাণ বসু


আপনার মতামত         


আদমের আপেল
অনির্বাণ বসু





(মেয়েরা ভালোবাসেনা বলে রোজ সন্ধ্যেবেলা রাগ হয় আর সেই রাগ থেকে এই সব লেখা)


এক

আপেল দেখে আদমি চেনা যায়। সুব্রতর বাড়িতে দাদা-বৌদি বেড়াতে গেল, আমরাও রাতে বাড়ি ফাঁকা পেয়ে ভিসিআর ভাড়া করে পানু দেখার ব্যবস্থা করলাম। সে কি সাংঘাতিক পানু। মেয়েদের মতো বুক আছে আবার ছেলেদের মতো ইয়ে। সেই প্রথম ঐ জিনিস দেখলাম। অনেক পরে জেনেছি তাদের কী বলে ইত্যাদি কিন্তু তখন আমাদের মধ্যে দারুণ তর্ক - ওরা আসলে ছেলে না মেয়ে। সুব্রত জ্ঞানী ছিল। বলল ওরা ছেলে। অ্যাডামস অ্যাপল খালি ছেলেদের থাকে।

দুই

অ্যাডামস অ্যাপল্‌স বলে একটি ডেনমার্কের সিনেমা আছে। দেখি নাই। ভালোই হবে। আমাদের কলকাতায় এই সব আসে ফেস্টিভ্যালে। তখন আমরা দেখতে যাই। আর সিনেমাকে ছবি বলি। সমস্ত ছবি বিনে পয়সায় দেখার জন্যে ডেলিগেট কার্ড লাগে। ডেলিগেট কার্ডের জন্যে আপেল লাগে। বড়ো বড়ো আপেল না থাকলে ডেলিগেট হওয়া খুব শক্ত।

তিন

আপেল খেলে রোগজ্বালা হয় না। ওয়ান আপেল এ ডে, কিপস ডক্টর অ্যাওয়ে। কিন্তু আপেলের খুব দাম। ফলে গরিবের আপেল হল পেয়ারা। অথচ আপেলের কথা মাথায় থাকে। যেমন সেই বার জাহাজের ওপর পার্টি হচ্ছিল আর থালায় আপেল সাজিয়ে রাখা ছিল।আর শ্যামলবাবুর ভাই (ছোট বাচ্চা) সেই আপেল কচকচ করে পেয়ারা খাবার স্টাইলে খেয়ে ফেলল। শ্যামল গাঙ্গুলীর লেখাতে এইসব পড়েছি।

চার

ওয়াশিংটন ডি সি তে কনফারেন্স হচ্ছে (এক চিমটে বিদেশ থাকুক)। সেই কনফারেন্সে রুমেলা বলছে - "আমি এই পরের মাসেই কিনব। তোরটা কত ইঞ্চি?' পামেলা বলল - "আমারটা ১৫ ইঞ্চি। আর তোরটা?' ঝুমা বলল, "আমারটা বড়, ১৭ ইঞ্চি'। রুমেলা বলল - "আমার ছোটই পছন্দ। আমি ১৩ ইঞ্চিই কিনবো'। ম্যাকবুকের সাইজ নিয়ে কথা হচ্ছিল। সাইজ ডাজ ম্যাটার। অরণ্যের প্রাচীন প্রবাদ - যার ফেস নাই, বুক নাই, তার ফেসবুক আছে।

পাঁচ

শাং লি চৈনিক ছাত্র।মাও ফাও মানে না। বলে আমাদের গরমেণ্ট স্টুপিড। আমাদের পার্টি স্টুপিড। ফক্সকনের ওপর সাংঘাতিক রাগ। ফক্সকন তাইওয়ানের কোম্পানি। আপেলের মাল তৈরী করে। শ্রমিকদের দিনে মিনিমাম ১২ ঘণ্টা খাটায়। ধরে রাখে। সপ্তাহে একদিনও ছুটি নাই। চাবুকও মারে। আর মাঝে মাঝে শ্রমিকরা বিস্ফোরণে মারা যায়। এই সব হয় মেইনল্যান্ড চায়নায়। হং কং -এ এইসব বাল বিচি নাই। কারন রেনেসাঁস কা সুবাসিত বন্দর। ফলে আমরা রেনেসাঁসের ইয়েরা জানি যে মাইক্রোসফ্‌ট ইভিল কিন্তু আপেল ভালো। চিনেদের আপেল ছোট ছোট হয়।


ছয়

ওদিকে ফেলুদা বলে গেছে জব মানে কাজ। আর জোব মানে নাম। ফলে সমস্ত তোপসে ও লালমোহনের কাছে ক্লীয়ার ইন্সট্রাকশন। নাম হলেই জোব হবে। নাম ঠিক বলতে হবে। লিখব অভীক অথচ বলবো ওভিখ - ঐ সব বালবাজি হবে না। ওভিখ বললে তাই লিখব।এটাই সঠিক লাইন। আর সঠিক লাইন হলেই কেল্লা ফতে - আমরা জানি। সেই যে যখন সরকার পার্টির নাইন্টি পার্সেণ্ট লোককে মেরে দিলো, লাইন পাল্টে সঠিক লাইন নিয়ে চেয়ারম্যান মাও বিপ্লব করে দিল। ফলে যদি দেখি নামের মধ্যে Jobs আছে আমরা বলব জোবস।ফেলুদার আপেল কতো বড়ো ছিল জানিস। লালমোহনের থেকেও বড়ো ছিল। ফলে ব্রিটিশরা, আমেরিকানরা, অস্ট্রেলিয়ানরা ওকে জবস বলুক, Jobs নিজে নিজেকে জবস বলুক, আমাদের লাইন সঠিক লাইন। আমাদের চেয়ারম্যান আপেলের চেয়ারম্যান। আমাদের আপেল বড়ো বড়ো আপেল। এখন প্রশ্ন হল ওভিখের আপেল কত বড়ো। ওদিকে আমাদের বাড়িতে মেজপিসি জবামাসিকে জোবা বলে ডাকছে।

সাত

কী কী সব করলে পরে সব ঠিক-ঠাক হবে সেইসব কথা বলতে হবে। শুধু আপেল থাকলেই হবে না শ্রেণীচেতনাও থাকতে হবে। গাঁয়ের লোকের গায়ে গন্ধ হলেও আর মেয়েগুলোকে বিচ্ছিরি দেখতে হলেও ওরা হল সাবজেক্টিভ ফোর্স। আমরা বাইরে থেকে আপেল নিয়ে আসব। ফ্রম উইদাউট। এইসব কথা বললাম আর মহাবোধি সোসাইটি হলে উপস্থিত সকলে ছুঁড়ে ছুঁড়ে ক্রেডিট দিলো আর আমি ঝুঁকে ঝুঁকে সব ক্রেডিট কুড়িয়ে নিলাম।


ছবি: সুমেরু মুখোপাধ্যায়