আপনার মতামত         



শোভন ভট্টাচার্য





চতুর্দশপদী


যে কবি, সে কবি হতে চায় না কোনোদিন;
জোৎস্না তো চাঁদের, চাঁদ ফিরে পেতে চায়?
জল কি ডাঙার কাছে রেখে যায় হীণ
স্রোতের আক্ষেপ? শুধু বহতা শেখায়।

অস্ফুট যে ফুল, সে কি গন্ধ বুকে পোষে?
ছড়িয়ে যাবার ভয়ে ফুটতে করে দ্বিধা?
হাটখোলায় ভারী দর, তাই খ'সে খ'সে
পড়ে অবিরত? কত মূল্য ভাবে কি তা?

হর্ষ কোকিলের, কবে খ্যাত হবে কুহু
সে আশায় কোকিল কি ভরে, রাড়ি গানে?
কবি-চিত্ত আকর্ষণ করে মুহূর্মুহূ
যাতে সে অমর হয় কাব্যের বিধানে

কবি, সেও পেতে চায় আত্মার আনন্দ;
নিজেকে জুগিয়ে যায় ভাঙ্গা-গড়া ছন্দ।


শিলাবতী-কংসাবতী-১

নাম ধ'রে যার ডাকতে পারিনি, তাকে-
কিছুটা যেমন মা ব'লেই ডাকি মা-কে
বলছি নিজের মনে মনে, &হয়ষঢ়;সোনা-বউগো
ঘর যে আমার যথার্থ নয় চৌকো
মাথার ওপর মোটের ওপর চাল
চূড়া উদ্ধত, বিনয় যে তারই ঢাল
চালের ওপরে না হয় বিছাবো খড়
চৈড়-নিদাঘ লাগবেই না প্রখর
পাখিদের মতো ভলোবাসবই বৈ কি
যথার্থ নয় চৌকো, সরলরৈখিক
বাতাপি ফুলের গন্ধে তোমার বুক
ড়²মশ ফলের মতই ফুলে উঠুক
শ্বাসের চেয়েও সুক্ষ ওঠা পড়ায়
আমাদের দিন গড়াক এই ধরায়'

শিলাবতী- কংসাবতী-২

কে তুমি বলো তো ঠিক ক'রে
আমার যৌবন- শূণ্যে ফাগ
ছড়াতে এসেছ, রক্তরাগ...
হেসেছে ফাল্গুন ফিক করে

কোনও এক আদি বসন্তেও
পরনে বাসন্তী-রঙা মেয়ে
বাতাস হয়েছে গান গেয়ে
ফুল হাতে এসেছিল সেও

এ-বুক বিশীর্ণ করা শীতে
হাত পেতেছিল একজন
ভাবছিলাম- &হয়ষঢ়;ভেবে দ্যাখ মন'
পারিনি তাকেও কিছু দিতে

কেউ কেউ ভেবেছে বুঝি ঘ্যাম
আমার গড়নে অন্য ছবি
দেখেছে- জেনেছে যেই &হয়ষঢ়;কবি'
শ্রাবণ হয়েছে ঘনশ্যাম

শিলাবতী কংসাবতী-৩

সবার আপত্তি তো, যা--
আমি যে তোকে ভালবাসি
তুইও জানবি না

যন্ত্রনা হয় হোক সে
ডেকে ডেকে ব'লবো না আর লোককে

রো।ুরে বা &হয়ষঢ়;চাঁদের' আলোয়
ঘা শুকোবে ঠিক
আবার হবে জঙ্গলে পিকনিক
ফুটো ফুসফুস, হৃদয় তো নির্ভিক

ভিতরে তাই জ্বালিয়ে ফিরি বন
মাথায় লাল লাইলনের টকটকে রিবন

শরীর পোড়ে সবপ্রকার
সবপ্রকার শ্মশ্রু
প্রখর টানে, অপমানে, উবেই যায় অশ্রু

পোড়ে না প্রাণ-বীনা

পোড়ে তো পোড়েই তবুও, সে কি মন?