বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

কোলকাতাকে, গণিখানের ছাত্ররা

মহঃ হাসানুজ্জামান

প্রিয় কোলকাতা,
আমরা গনি খান চৌধুরী ইনস্টিটিউট অফ ইঞ্জিনীয়ারিং এন্ড টেকনোলজির ছাত্রছাত্রীরা মালদা থেকে এখন আপনার পথে পথে। সেই পথে পথেই ঘুরছি, পথেই অবস্থান, পথেই রাত কাটাচ্ছি। বারো দিন হয়ে গেল। কিন্তু, কেন?

আমাদের ডিপ্লোমার বৈধ সার্টিফিকেট ও উচ্চশিক্ষার দাবিতে বিটেক এ লাটেরল এন্ট্রি তে ভর্তির দাবি নিয়ে আমরা লড়ে যাচ্ছি বহুদিনধরে। রাজ্যের কারিগরি সংস্থা আমাদেরকে তিন বছরের ডিপ্লোমার সিলেবাস পড়ার পর দুবছরের ডিপ্লোমা দিতে চাইছে যেটা কোনো সরকারি,বেসরকারি চাকরি ও উচ্চশিক্ষাই ভর্তির জন্য বৈধ নয়।আমরা লাটেরল এন্ট্রিতে ডিপ্লোমায় ভর্তি হয়েছিলাম স্টেট কাউন্সিল এর আন্ডার এ রেজিস্ট্রেশন করেছিলাম আমাদের সব ডাটা ও ডকুমেন্টস আপলোড করেছিলাম তারপরেও আমাদের দুবছরের ডিপ্লোমা দিচ্ছে যদিও স্টেট কাউন্সিল অন্যান্য ইনস্টিটিউট কে তিন বছরের ডিপ্লোমা দেয়।

এতদিন ধরে এই দাবি নিয়ে আমাদের লড়াই ছিল মালদাতেই। কলেজটি মালদা জেলার প্রত্যন্ত এলাকা নারায়ণপুর এ অবস্থিত,তাই সংবাদ মাধ্যম ও উচ্চশিক্ষা দফতরের কর্মীদের কোনো হেলদোল নেই।আমরা কেন্দ্রীয় সরকারের দ্বারা প্রতারিত ও রাজ্য সরকারের দ্বারা অবহেলিত।কেউই আমাদের দায়িত্ত্ব নিতে চাইছেনা।কলেজের শিক্ষক দের মাসিক বেতন ও বিল্ডিং উঠা বজায় থাকলেও প্রতারণার শিকার শুধু আমরা, এই তরুণ ছাত্রছাত্রীরা।
এইসব দাবি নিয়েই প্রান্ত থেকে কেন্দ্রে আসা, আপনার কাছে আসা, কোলকাতা। আসতে বাধ্য হওয়া। কোলকাতার সাধারণ মানুষ ও ছাত্রসমাজের কাছে।

এখানে এসে আমরা যা কিছু করেছি

1.প্রথমদিন যাদবপুর 8b বাসস্ট্যান্ড এ পথসভা করলাম আমাদের ন্যায্য দাবি ডিপ্লোমার বৈধ সার্টিফিকেট ও লাটেরল এন্ট্রিতে বিটেক এ ভর্তির দাবিতে।
2.দ্বিতীয়দিন কলেজ স্ট্রিট এ পথসভা যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়,প্রেসিডেন্সি কলজ,ক্যালকাটা বিশ্ববিদ্যালয় ও আশুতোষ কলেজ সহ কলকাতার আরো ছাত্রদের সহায়তায়।
3.তৃতীয় দিন একাডেমি অফ ফাইন আর্টস এর সামনে রানুছায়া মঞ্চে পথসভা ও তারপর অবস্থান বিক্ষোভ ও একজন ছাত্র অনশন শুরু করে।
4.রাজ্যপাল মহাশয় এর সাথে সাক্ষাৎ এর জন্যে appointment চাইলে উনি দেননি,গত বার দিন হয়ে গেল।
5.রাজ্যের মুখ্য মন্ত্রী মহাশইয়া সাথে দেখা করার appointmemt চাইলেও উনি দেননি।আমাদের সার্টিফিকেট প্রোভাইডিং সংস্থা WBSCT&VE&SD এর মন্ত্রী ও আমাদেরকে আপ্পইন্তমেন্তন্ট দেননি।
6.সাংসদদের কাছে আমাদের দাবি পৌঁছানো
7.রানুছায়া মঞ্চে খোলা আকাশের নিচে রাত কাটিয়ে গণ কনভেনশন,সাংস্কৃতিক জমায়েত,শপথ গ্রহণ এর মাধ্যমে কলকাতার সমস্ত ছাত্রসমাজ,বুদ্ধিজীবি,আইনজীবী ও সাধারণ মানুষকে জানানোই আমাদের উদ্দেশ্য।

আমরা কী কী পেয়েছি এতদিনে

1.চার বছর পড়াশোনা করার পর অবৈধ সার্টিফিকেট।
2.বাবা মার দুশ্চিন্তা আমাদের নিয়ে কারণ প্রত্যেক বাবা মাই তার ছেলেমেয়েকে সুপ্রশিক্ষত করতে চাই এবং সর্বস্ব চেষ্টা করে।
3.মালদার লোকাল থানায় আমাদের নামে FIR দায়ের কর্তৃপক্ষের, এই মর্মে যে আমরা নাকি অহেতুক আন্দোলন করছি,যদিও এটা আমাদের ন্যায্য অধিকার পড়াশোনার পরে তার শংসাপত্র চাওয়া টা কি কারো অযৌক্তিক মনে হতে পারে।
3.আমার ভাই নাসিম নাওয়াজ ও শুভম সাহার শরীরে ধারালো ছুরি ও রড দিয়ে আঘাত করলো কর্তৃপক্ষ।আমাদের সহপাঠী সাক্ষীকুমারী ও সুপ্রিয়া সরকারকে "ক্যামেরা না থাকলে rape করে বডি ফেলে দিতাম"বললেন আমাদের শিক্ষক সিরাজ সমমুদিপ দীপাঞ্জন উত্তম নামক বিভিন্ন উচ্চ পদের শিক্ষকরা।

আমরা সামনের দিনগুলোতে যা করতে চলেছিঃ

১..রাজ্যপালের অফিস রাজভবনের উদ্দেশ্য এক অভিযান ও বিক্ষোভের আয়োজন করা হবে খুব শীঘ্রই।
২.রাজ্য সরকারকে আমাদের সমস্যায় হস্তক্ষেপ করানোর জন্য সবরকমভাবে চেষ্টা করতে থাকা।
৩. এই নিয়ে আলোচনার জন্যে, এই বার্তা পৌঁছে দেওয়ার জন্যেই কাল, ২০ অগস্ট বিকেল থেকে রাণুচ্ছায়া মঞ্চে নাগরিক কনভেনশন, যেখানে সমস্ত কোলকাতাবাসীকে আমরা আসার অনুরোধ করছি।

কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতারণার সাথে সাথে রাজ্য সরকারের অবহেলার শিকার হয়েছি আমরা। বিনা দোষে শাস্তি পাচ্ছি আমরা। তাই আমাদের দাবি আদায় হওয়া অব্দি এই আন্দোলন থামার প্রশ্ন নেই, সে আমাদের যতই হুমকি দেওয়া হোক, আমাদের নামে যতই কেস দেওয়া হোক।
কিন্তু এই লড়াইয়ে আপনাদের যে পাশে চাই, কোলকাতা!

কাল দেখা হচ্ছে তো গণকনভেনশনে, কোলকাতা?





162 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

কোন বিভাগের লেখাঃ বুলবুলভাজা  খবর্নয় 
শেয়ার করুন


Avatar: aranya

Re: কোলকাতাকে, গণিখানের ছাত্ররা

গণকনভেনশনে অনেকে আসুন, মানুষের ভিড় উপচে পরুক - মন থেকে চাইছি এটা। জানি হয়ত হবে না

এত ন্যায্য দাবী - কয়েক বছর পড়াশুনোর পর ডিগ্রী সার্টিফিকেট, এর জন্যও আন্দোলন করতে হয়, এটাই আশ্চর্য। শিব ঠাকুরের আপন দেশে সবই সম্ভব।
রাজ্যপাল, মুখ্যমন্ত্রী সবাই মহা ব্যস্ত, দেখা করার সময় নাই, অথচ ছাত্রদের এই দুরব্স্থার দায় এবং দায়িত্ব সবই সরকারের
Avatar: দ

Re: কোলকাতাকে, গণিখানের ছাত্ররা

কি ভয়ানক অবস্থা!
Avatar: pi

Re: কোলকাতাকে, গণিখানের ছাত্ররা

বড় হচ্ছে আন্দোলনের পরিসর। আলমগীর লিখেছে,
আজ কলেজের নতুন ছাত্রছাত্রীদের সাথে কথা বললাম।।তারা আমাদের আন্দোলন ও আমাদের দাবিকে সমর্থন জানিয়েছে।।এবং তাদের কিছু দাবি আমাদের জানিয়েছে যেমন - ল্যাব নেই কলেজে তাদের ল্যাব চাই,লাইব্রেরীতে পর্যাপ্ত পরিমানে বই নাই বই চাই,হোস্টেল এখনো কলেজ তাদের দেই নি সকলে বাইরের ছাত্র,কলকাতা,মেদনিপুর,শিলিগুড়ি ও রাজ্যের বাইরের,খাওয়ার জল নেই,ক্যান্টিন নেই,বেশি টাকা নিয়ে ভর্তি নিয়েছে কলেজ কর্তৃপক্ষ সেটা ফেরত দিতে হবে,বাস ফ্যাসিলিটি দিতে হবে নাহলে তারাও আন্দোলনের পথে যাবে।। তাদের এই দাবি আমরা সমর্থন করেছি।।
আজ থেকে কলেজ বন্ধ অনির্দিষ্টকালের জন্য।।

Avatar: pi

Re: কোলকাতাকে, গণিখানের ছাত্ররা

গণ কনভেনশনে উপস্থিতির হার খুবই শোচনীয় শুমলাম। কোলকাতা মালদার কথা শোনেইনা দেখা যাচ্ছে।
Avatar: debu

Re: কোলকাতাকে, গণিখানের ছাত্ররা

কোলকাতা কি শুধু মালদার আম খেতে চায়?
Avatar: debu

Re: কোলকাতাকে, গণিখানের ছাত্ররা

নবান্নে গিয়ে অনশনে বসতে পারবে?

Avatar: আপডেট

Re: কোলকাতাকে, গণিখানের ছাত্ররা

আগামী 6ই সেপ্টেম্বর দুপুর 2টোর সময় রানুছায়া মঞ্চ থেকে রাজভবন পর্যন্ত মহামিছিলে যোগদান করুন।
#GKCIETর প্রতারিত ছাত্রছাত্রীরা আজ গত 23 দিন ধরে কলকাতা মহানগরীর একাডেমি অফ ফাইন আর্টস এর সামনে রানুছায়া মঞ্চে অবস্থান বিক্ষোভ ও একজন ছাত্র অনশন শুরু করেছিলাম আমাদের ন্যায্য দাবি ডিপ্লোমার বৈধ সার্টিফিকেট ও বিটেক এ ভর্তির দাবিতে।
#কিন্তু এখন পর্যন্ত কলকাতার ছাত্রসমাজ ও নাগরিক সমাজ,বিশিষ্টজীবী,বুদ্ধিজীবী ও আইনজীবীদের পাশে পেলেও সরকারি দফতর থেকে কোনোরকম সাহায্য পায়নি।বরং আরো আমাদের জীবনকে অন্ধকার যুক্তিহীন ভবিষ্যতের দিকে নিক্ষেপ করছে।রাজ্য সরকার আমাদের জীবন বাঁচানোর উদ্দেশ্যে এখন পর্যন্ত কোনোরকমের পদ্দক্ষেপ নাইনি কারণ আমাদের এই ইঞ্জিনীয়ারিং কলেজ নাকি কেন্দ্রীয় সরকারের অন্তর্গত,কিন্তু যদিও এখানে পশ্চিমবঙ্গের বহু ছাত্রছাত্রীরা এখানে তাদের স্বপ্ন পূরণের আসায় এখানে ভর্তি হয়েছিল খবরের সংবাদ ও টিভি তে প্রচার দেখে।

#এখানে পশ্চিমবঙ্গ সহ পার্শবর্তী বিহার ঝাড়খন্ড আসাম অরুণাচল প্রদেশ নাগাল্যান্ড দিল্লি সহ আরো অনেক রাজ্যের ছাত্রছাত্রীরা উচ্চশিক্ষার উদ্দেশ্যে অনেক টাকা রেজিস্ট্রাশন ফী দিয়ে এখনে বছরের পর বছর এখানে থেকে পড়াশোনা করে পরীক্ষা দিয়ে তার বৈধ মার্কশীট ও সার্টিফিকেট পাচ্ছে না।এই আবার কেমন নিয়ম?????????
#সাধারণতই কোনো কোর্স শেষ করার পরে তার একটা বৈধ সার্টিফিকেট ও মার্কশীট দিতে হয়।তাহলে আমাদের #GKCIETর প্রতারিত ছাত্রছাত্রীদের ভারতের এই সংবিধানের নিয়মটা পালন করা হচ্ছেনা কেন?কেন্দ্রীয় মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রককে একবার জোর গলায় ধিক্কার জানাচ্ছি।সঙ্গে MHRD মিনিস্টার কেও ধিক্কার জানাচ্ছি।তিনি সবকিছু জেনেও আজ গত 2 বছর ধরে নিশ্চুপ আছেন কারণ তিনি এই ইনস্টিটিউট নিয়ে ব্যাবসা করছেন।হ্যাঁ তিনি ব্যাবসা শুরু করেছেন এরকম আরো কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কে নিয়ে।তার সঙ্গে আমাদের রাজ্যেরও অনেক কলেজে শুরু হয়েছে এই #শিক্ষাকে নিয়ে দুর্নীতির খেলা।যোগ্য ব্যাক্তি যোগ্য কাজে নিযুক্ত হতে পারছেনা এই দুর্নীতির জন্য।

##আমরা GKCIETর প্রতারিত ছাত্রছাত্রীরা কলেজ কর্তৃপক্ষ থেকে শুরু করে মালদার উচ্চপ্রশাসনিক কে প্রথমে আমাদের সমস্যার কথা জানানো তারপর মালদার প্রশাসনিক ভবনের সামনে অবস্থান বিক্ষোভ করেছি মালদাতে NH 34 ব্লক করেছি,রেল অবরোধ করেছি কিন্তু কোনো সুফল পাইনি শেষ পর্যন্ত আমরা আপনাদের শহর কলকাতা আসতে বাধ্য হয়েছি প্রশাসনিক কর্তা ও নাগরিক সমাজের কাছে আমাদের ন্যায্য দাবি ফিরিয়ে নিতে।
#আপনাদের একটু একটু করে পাশে থাকা নিয়ে এগিয়ে যাবো আর একদিন অবশ্যই জয়লাভ করবো।#SAVEGKCIET.
ইতি GKCIETর প্রতারিত ছাত্রছাত্রীরা।
Please share as much as u can.
Avatar: Pi

Re: কোলকাতাকে, গণিখানের ছাত্ররা

#GKCIET-র দীর্ঘ লড়াই অবশেষে সাফল্যের মুখ দেখল। কেন্দ্রীয় মানব সম্পদ উন্নয়ন দপ্তরের উচ্চশিক্ষা বিভাগ একটি আদেশনামা প্রকাশ করেছে। তার ক্রমাঙ্ক F. No - 8-10/2013 - TS.VII (Part - II) dtd 23.08.2018।

এই আদেশনামায় স্পষ্টভাষায় বলা হয়েছে -

Therefore Ministry of Human Resource Development hereby notifies that:

(i) The successful completion of the third level of modular programme from GKCIET is considered
equivalent to 4 year B.Tech programme in engineering and students who have successfully completed the 3rd level of modular programme of GKCIET are eligible for all employment and higher educational avenues where B.Tech (4 year) in engineering is the eligibility requirement.

(ii) The successful completion of the second level of the modular programme from GKCIET is consideredequivalent to 3 year diploma programme in engineering and students who have successfully completed the 2nd level of modular programme of GKCIET are eligible for all employment and higher educational avenues where 3 year diploma in engineering is the eligibility requirement.

(iii) The successful completion of the first level of the modular programme from GKCIET is consideredequivalent to 10+2 (vocational) level programme and students who have successfully completed the 1st level of modular programme of GKCIET are eligible to all employment and higher educational
avenues where 10+2 (vocational) is the eligibility requirement.

সমস্যা এরপরেও পড়ে থাকবে। জট পাকাতে চাইবে কলেজ কর্তৃপক্ষ। যেহেতু এখন আর মডুলার সিস্টেম নেই, তাই দ্বিতীয় মডিউল পাশ করা ছাত্রছাত্রীদের ডিগ্রীতে ভর্তি করতে আপত্তি করতে পারে। সেক্ষেত্রে লড়াইটা মালদায় কেন্দ্রীভূত করতে হবে।

GKCIETর লড়াকু ছাত্রছাত্রীদের রক্তিম অভিবাদন।

(Sujan Bhattacharyyaদার পোস্ট)

#পাশেঅাছিজিকেসিঅাইইটি
Avatar: pi

Re: কোলকাতাকে, গণিখানের ছাত্ররা

এটা কদ্দুর সত্যাসত্য, জানা নেই।

এটা ছাত্রদের বক্তব্য

"বহুবার আমাদের কাগজ দেখিয়ে ঠগানো হয়েছে,অবাক হওয়ার মত কিছু নেই।।ছাত্রদের সাথে আলোচনায় বসুন না হলে আন্দোলন চলবে কাল ২টায় রানুছায়া মঞ্চে আসুন।।"


Avatar: pi

Re: কোলকাতাকে, গণিখানের ছাত্ররা

ছাত্রদের আপডেট

"GKCIET-র আন্দোলন আপডেট:
২০১০ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর GKCIET-র পড়ুয়াদের কখনোই MHRD-র তরফ থেকে সরকারি ভাবে জানানোই হয়নি তাদের 2+2+2 মডিউলার প্যাটার্ন ঠিক কীসের কীসের ইকুইভ্যালেন্ট। তাদের বরাবর মৌখিক আশ্বাস দেওয়া হয়েছে, "সব হয়ে যাবে"। এমনকি ২০১৬ সালে যখন দেখা যায় কলেজটির এত সমস্যা এবং তার পরিপ্রেক্ষিতে আন্দোলন শুরু হওয়ার পরও MHRD লিখিত ভাবে এই প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার কোনো প্রয়োজনীয়তাই বোধ করেনি। ২০১৬ সাল থেকে দীর্ঘ আড়াই বছরের আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি ৮০০ পড়ুয়ার ইমেল, চিঠি যাওয়ার পরেও MHRD কোনো কর্ণপাত করেনি। কিন্তু কলকাতার রানু ছায়া মঞ্চে অবস্থান শুরু হওয়া এবং তাতে পশ্চিমবঙ্গের ছাত্র ও নাগরিক সমাজের পাশাপাশি সারা দেশের ছাত্র ও নাগরিকদের সমর্থন এবং নিজের দমে লড়ে যাওয়া নাছোড়বান্দা আন্দোলনের চাপে বাধ্য হয়ে MHRD এই গেজেট নোটিফিকেশন দিতে বাধ্য হয়েছে যে GKCIET-র এই মডিউলার প্যাটার্নের প্রথম দু'বছর 10+2/ভোকেশনাল ইকুইভ্যালেন্ট, পরের দু'বছর ডিপ্লোমা (৩ বছরের) ইকুইভ্যালেন্ট এবং তার পরের দু'বছর বি. টেক (৪ বছরের) ডিগ্রির ইকুইভ্যালেন্ট।

এই আন্দোলনে আমাদের শক্তি জুগিয়েছে কলকাতার বিভিন্ন কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা এবং সাধারণ মানুষ। অবস্থানের প্রথম দিন থেকেই তাঁরা আমাদের পাশে থেকেছেন সর্বতোভাবে। কোনো প্রস্তুতি ছাড়াই আমরা যেভাবে কলকাতায় এসেছিলাম, সেখানে আমাদেরকে আর্থিক সহযোগিতা করা, নৈতিক সমর্থন, প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে এই আন্দোলনের পাশে দাঁড়ানো থেকে শুরু করে আজকের মিছিলে অংশগ্রহণ করা - প্রতিটি পদক্ষেপেই আমরা কলকাতার ছাত্রসমাজ ও সাধারণ মানুষের যে সহযোগিতা পেয়েছি, তার জন্য আমরা তাঁদেরকে ধন্যবাদ জানাই। আমরা এই ভরসা রাখি যে আগামীতেও আমাদের এই আন্দোলনে তাঁরা আমাদের পাশে থাকবেন এবং আমরা সবাই একসাথে মিলে মানুষের সমস্যায় পাশে দাঁড়াবো।

আজ যখন আমরা রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করতে যাই, তিনিও MHRD প্রদত্ত গেজেট নোটিফিকেশনের বৈধতা স্বীকার করেন এবং এর ভিত্তিতেই MHRD এবং কলেজ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করার আশ্বাস দেন।

কিন্তু বিগত আড়াই বছরের আন্দোলনের অভিজ্ঞতায় আমরা দেখেছি আমাদের বারবার এখান থেকে সেখান, সেখান থেকে ওখানে এধরণের নানা কিছু বলে ঘোরানো হয়েছে। যেহেতু গেজেট নোটিফিকেশনে এই সার্টিফিকেট কে দেবে এবং উচ্চশিক্ষায় এই পড়ুয়াদের ভর্তির সমস্যাটি কীভাবে নিরশিত হবে সে বিষয়ে কোনো নিৰ্দিষ্ট সমাধানের কথা উল্লেখ করা নেই এবং রাজ্যপালও এই সমস্যা সমাধানের জন্য কোনো নির্দিষ্ট সময়সীমা আমাদের দিতে পারেননি, তাই আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাবো। তারই কর্মসূচি হিসেবে আমরা এই নোটিফিকেশনের ভিত্তিতে MAKAUT-এর অধিনস্ত ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজগুলিতে বি. টেক কোর্সে ভর্তির ব্যাপারে তাদের সুনির্দিষ্ট সমাধান আদায় করতে আগামীকাল MAKAUT অভিযান করছি।"

GKCIET-র আন্দোলনরত পড়ুয়াদের তরফ থেকে


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন