বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

শোনা কথা ২ - হিসাব-কিতাব

অভিজিত মজুমদার

শুনলাম ভারত না কি অর্থনৈতিক শক্তিতে হু হু করে ওপরের দিকে উঠে চলেছে। উঠছে নিশ্চই তবে খুব মসৃণ উড়ান তো, তাই টের পাচ্ছি না।

ঠিক যেমন টের পায় নি দিল্লীতে না খেতে পেয়ে মারা যাওয়া তিনটে ছোট্ট ছোট্ট বাচ্চা। জানতে পারলে নিশ্চই আরও দিনকতক অপেক্ষা করত কবে অর্থনীতির উপচোনো সমৃদ্ধি ট্রিকল ডাউনের তত্ত্ব মেনে তাদের মুখে পৌঁছবে। আরও শুনলাম তারা না কি পশ্চিমবঙ্গ ছেড়ে দিল্লীতে গিয়েছিল। বলিহারি বাপু, এখানে চাদ্দিকে উন্নয়নের বন্যা বইছে, এসব ছেড়ে হিল্লিদিল্লী করার দরকারটা কি?

এই আচ্ছে দিনের বাজারে অবশ্য সবসময় উন্নয়নের হিসেব রাখা মুশকিল। কখন কোথা দিয়ে বিকাশ হয়ে যাবে, টেরটিও পাবেন না। ভাববেন আমের বাজারদর যাচাই করবেন, সরকারপক্ষ আপনার হাতে ধরিয়ে দেবে আমলকী ফলনের বার্ষিক হিসেব। যেমন ধরুন, কর্মসংস্থান। বিরোধীপক্ষ সরকারের কাছে জানতে চাইলেন গত চার বছরে কত নতুন চাকরি সৃষ্টি হয়েছে। মোদীজি তার উত্তরে কতজন বছরে পাশ করে ডাক্তার, ইঞ্জিনীয়ার, সি এ হচ্ছে তার হিসেব দিয়ে দিলেন। নাও, এবার ঠ্যালা সামলাও। তাই বলছি, হিসেব মেলানোর চেষ্টা না করাই ভালো।

তার ওপর আবার বেশি হিসেব চাইতে গেলে আপনার হিসেব নিতেই লোক চলে আসতে পারে। তখন কিন্তু আপনার জামার রং আপনাকে বাঁচাতে পারবে না। ঠিক যেমন বাঁচাতে পারে নি স্বামী অগ্নিবেশকে। আর্য সমাজের এই গুরুকে শুধু গণপিটুনি খেতে হয়েছে তাই নয়, তাঁর নামেই আবার পুলিশের কাছে কেস ঠুকে দিয়েছে বিজেপি।

অবশ্য স্বামী অগ্নিবেশের কপাল ভালো তিনি প্রাণে বেঁচে গেছেন। উত্তর কর্ণাটকের আইনজীবি-অ্যাক্টিভিস্ট অজিত নায়েকের কপাল এতটা ভালো ছিল না। বহুকাল ধরেই তিনি বালি মাফিয়াদের বিরূদ্ধে আন্দোলন চালাচ্ছিলেন। দু দিন আগে তাঁকে কে বা কারা রাতের অন্ধকারে কুপিয়ে খুল করে। পুলিশ এখনো কিছু করে উঠতে পারে নি।

কর্ণাটকের পুলিশ কিছু না করলেও উত্তর প্রদেশের পুলিশ কিন্তু খুব তৎপর। অমিত শাহকে কালো পতাকা দেখানোর অপরাধে তারা দুজন ছাত্রীকে চুলের মুঠি ধরে হিড়হিড় করে টানতে টানতে রাস্তা থেকে সরিয়ে নিয়ে গেছে। কে না জানে, পথের কাঁটা অমিতজির একদম পছন্দ নয়।

অমিতজির কথায় আরেক অমিতজিকে মনে পড়ে গেল। পানামা পেপার খ্যাত অমিতাভ বচ্চন। তিনি শুনলাম না কি একটি সততার বিজ্ঞাপন করেছেন। সততার প্রতীক। ভাগ্যিস, ভারতে ছিলেন। পাকিস্তান হলে হয়তো পানামা পেপারের জের ধরে এতদিনে জেল হয়ে যেত। যেমন হয়ে গেল পাক প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের। পরের বার তাঁর জন্মদিন পালন করতে হলে মোদিজীকে জেলে গিয়ে সারপ্রাইজ ভিজিট দিতে হবে। অবশ্য বন্ধুদের দেখতে, উইশ করতে জেলে যাওয়ার অভ্যেস ওনার নিশ্চয় আছে।

হিসেবের কথাই যখন হচ্ছে তখন আরও কয়েকটা হিসেবে চোখ বুলিয়ে নেওয়া যাক। মোদী জমানায় ভারত থেকে গোমাংসের রপ্তানি নাকি দ্বিগুন হয়েছে। আর উচ্চশিক্ষায় অধ্যাপক শিক্ষকদের সংখ্যা কমেছে দু লাখেরও বেশি। অন্ধ্র থেকে ইউপি পৌঁছতে একটি মালগাড়ির সময় লেগেছে চার বছর। আচ্ছে দিনের ভারত পৌঁছতে সময় লাগছে বছর পাঁচেকের কিছু বেশি। কেরালা মাইগ্র্যান্ট ওয়ার্কারদের জন্য বানিয়েছে বাসস্থান, নাম "আপনা ঘর"। আপাতত তাতে ৬৪০ জন থাকতে পারবেন। অসমে সুতোয় ঝুলছে এক কোটির ওপর লোকের ভাগ্য। তাঁরা কি আরও একবার দেশহারা হবেন?

ও হ্যাঁ, গত সপ্তাহেও আরও কয়েকজন গণপিটুনিতে মারা গেছেন। এবার হিসেব রাখা সত্যিই মুশকিল হয়ে যাচ্ছে। সর্বশেষ খবর পেলাম, গণপিটুনির শিকার হয়ে আদিবাসী সম্প্রদায়ের একজন যুবকের মৃত্যু হয়েছে গুজরাটে। তার বন্ধুর অবস্থা আশঙ্কাজনক।

একেই বোধহ্য় বলে, সবকা সাথ, শবকা বিকাশ।



কোন বিভাগের লেখাঃ শোনা কথা 
শেয়ার করুন


Avatar: ভুবন মিত্র

Re: হিসাব-কিতাব

অভিজিতবাবু, টেনিদা কই ?
Avatar: দ

Re: হিসাব-কিতাব

গরুদের হিতের নিমিত্ত গরুদের দ্বারা চালিত গোবরমেন্ট তো 'শব'কা বিকাশই ঘটাবে।
Avatar: sm

Re: হিসাব-কিতাব

কিন্তু পব থেকে দিল্লি গিয়ে এই বেদনা দায়ক মৃত্যু হলো কেন?
দিল্লি তো ভারতের রাজধানী।
পব তে থাকলে হয় তো দুমুঠো ভাত জুটতে পার তো!
তবে সব ই অনুমান মাত্র। মানুষ তো বেটার লাইফের খোঁজ এই অন্যত্র পাড়ি দেয়। খুবই হতাশ জনক খবর।

Avatar: PT

Re: হিসাব-কিতাব

পব-র চাইতে "বেটার লাইফ"-এর খোঁজে অন্য রাজ্যে? তা কি করে সম্ভব? এই যে শুনলাম সর্বত্র উন্নয়ন দঁড়িয়ে আছে!!
Avatar: sm

Re: হিসাব-কিতাব

কেন , ইতিহাস তো অন্য কথা বলে। প্রণব বাবুর উদাহরণ ই ধরুন না কেন।
গুজরাটে উন্নয়ন কম ছিলো না। মোদী , তবু দিল্লি চলে এলো।
চাই কি কেরল রাজ্যের কথা ধরুন।ওটা তো বাম শাসিত উন্নয়ন এর প্যারাডাইস!
তবু, করাত, কারো কথা শুনলো না। গোপালন ভবনেই পরমানেন্ট ঠাঁই করে নিয়েছে।
Avatar: PT

Re: হিসাব-কিতাব

যে তিন্টি শিশু মারা গেল তাদের পরিবারের সঙ্গে প্রণব, কারাতের তুলনা কর্লেন?
Avatar: sm

Re: হিসাব-কিতাব

আপনি ই তো উন্নয়ন দাঁড়িয়ে আছে বলে বেকায়দা রসিকতা করলেন!
Avatar: PT

Re: হিসাব-কিতাব

বেকায়দা কেন? উন্নয়নের কথা তো আপনার দলের নেতারাই সারাক্ষণ বলে চলেছে। আর আপনিও যে সেটা বিশ্বাস করেন সেটা তো আপনার বিভিন্ন পোস্ট থেকেই বোঝা যায়। মোটামুটি সুখে-স্বাচ্ছন্দ্যে থাকলে একটা মানুষ তার পরিবার নিয়ে দিল্লী যাবে কেন থাকা খাওয়ার সন্ধানে?
Avatar: sm

Re: হিসাব-কিতাব

আমার, ১১.৫২ র পোস্ট টা আবার পড়ুন।
Avatar: PT

Re: হিসাব-কিতাব

পড়লাম।
পব তে থাকলে হয় তো "দুমুঠো ভাত" জুটছিল না। তাইতো যাওয়া।
কত হাজার স্বল্পশিক্ষিত বাঙালী ২ টাকা কিলো চালের ভিক্ষের দানের মায়া পরিত্যাগ করে অন্যত্র কাজের সন্ধানে গিয়েছে তার হিসেব কে রাখে?


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন