বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

মেডিকাল কলেজ

ডাঃ মৃণ্ময় বেরা

ও মশাই জানি খুব ই ব্যস্ততা আপনার, তবুও কয়েকটা কথা শুনে যান। কোন এক দলে তো পড়বেনই যাদের সম্বোধন করে এই খোলা চিঠি। বিশ্বকাপ দেখার মাঝে যদি এক দুবার খবরের চ্যানেলে চোখ পড়ে গিয়ে থাকে বা খবরের কাগজের ভেতরের পাতায় যদি চোখ পড়ে থাকে তাহলে নিশ্চয়ই অন্তত এটুকু জেনেছেন যে মেডিক্যাল কলেজ কোলকাতায় তৃতীয়, দ্বিতীয় ও চতুর্থ বর্ষের প্রায় শ'খানেক ছেলে-মেয়ে ৯ দিন ধরে কলেজের কমন রুমে থাকছে হোস্টেল না পেয়ে। ৫ ই জুলাই হোস্টেলের দাবি নিয়ে প্রিন্সিপাল এর কাছে গেলে তিনি শান্তিপূর্ন অবস্থানের ওপর ২০০ জন পুলিশ ও তৃণমূল গুন্ডা বাহিনীকে লেলিয়ে দেন। তার ফলে বেশ কিছু ছাত্র গুরুতর আহত হয়। তার পরেও ছাত্ররা দমে থাকে নি। তারা এখনো কলেজের কমন রুমে থাকছে। ৯ ই জুলাই সোমবার অন্যান্য বন্ধু চিকিৎসক-চিকিৎসাকর্মী সংগঠন ও ছাত্র সংগঠন মিলে প্রায় ৪৫০ জন কলকাতার রাজপথে মিছিল করে পাল্টা বুঝিয়ে দিয়েছে যে তারা আরো দৃঢ় ভাবে তৈরি। পুলিশ গুন্ডাদের সঙ্গে মিলে অনশন মঞ্চ ভেঙ্গে দিয়েছে। অন্যায়ভাবে নতুন হোস্টেলে কোন কাউন্সিলিং ও অফিশিয়াল নোটিশ ছাড়া রাতারাতি স্নাতকোত্তর মেয়েদের ঢুকিয়ে দিয়েছেন। এই স্নাতকোত্তর মেয়েদের কোন অফিশিয়াল থাকার জায়গা না দিয়ে তাদেরকে ব্যবহার করা হচ্ছে ছাত্রদের মধ্যেকার(স্নাতকোত্তর এর সাথে প্রাক-স্নাতক) সংহতি নষ্ট করার কাজে। সারা ক্যাম্পাস জুড়ে অঘোষিত কার্ফু জারি হয়েছে। ছাত্র-ছাত্রীরা এর পরেও কিন্ত হার মানেনি। ১০ তারিখ দুপুর থেকে তারা প্রশাসনিক ভবনে অনির্দিষ্টকালীন অনশনে বসেছে। স্বচ্ছ হোস্টেল কাউন্সিলিং এর দাবীতে ও কলেজ ক্যাম্পাসের গণতন্ত্র বজায় রাখতে তারা আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে।
এসব শুনতে বলছি কেন? কোন মেডিক্যাল কলেজের ঝামেলা বা কে মার খেল বা কে হোস্টেল না পেল তাতে আপনার আমার দিন গুজরানে সরাসরি কিছু যায় আসে না তো ঠিকই, কিন্তু আসতেও তো পারে কখোনো। হঠাৎ করে আপনার নিজের বা কাছের কারোর শরীর খারাপ তো হতেই পারে। এমনই অবস্থা, যে মেডিক্যাল কলেজের ক্রিটিক্যাল কেয়ার ইউনিট এ (CCU) তে ভর্তি করতে হল। জানেন এই CCU এর ডেপুটি ইনচার্জ কে? এমন একজন ডাক্তার, যিনি ২০১৬ সালে এমবিবিএস পাশ করেন। CCU এর কাজ, অর্থাৎ ক্রিটিকাল কেয়ারে কাজের জন্য প্রথামত কোনো বিশেষ প্রশিক্ষণ ও ডিগ্রী তার নেই। উপরন্তু তিনি পাশ করার পর বড়জোর দুবছর রোগী দেখেছেন (যদিও এই দুবছরে কতদিন ডিউটি দিয়েছেন তার খবর যদি আপনি সঠিক ভাবে নেন তাহলে আপনি বাকরুদ্ধ হবেন এ নিশ্চিত) ।
মেডিকেল কলেজে CCU এ বা ক্রিটিকাল কেয়ারে যথেষ্ট অভিজ্ঞ ডাক্তার আছেন। তাঁদের অনেকের অ্যানাস্থেশিয়োলজি বা মেডিসিন-এ পোস্ট গ্রাজুয়েট ডিগ্রী আছে। তাঁরা ক্রিটিকাল কেয়ার (CCU / ITU) তে কাজও করছেন। তাঁদের মাথার ওপর বসিয়ে দেওয়া হল এরকম অভিজ্ঞতাহীন ও বিশেষ প্রশিক্ষণ বিহীন এক ডাক্তারকে, যিনি সাধারণ সমস্ত মাপকাঠিতেই ডাক্তারি ছাত্র হিসেবে বা ডাক্তার হিসেবেও যথেষ্ট যোগ্যতার পরিচয় কোনদিনই দেন নি। যোগ্যতা একটা অবশ্য আছে, শাসক দলের ঘনিষ্ঠ হওয়া। ভাবুন একবার, মেডিক্যাল কলেজের CCU এর ডেপুটি ইনচার্জ এর anesthesiology তে স্নাতকোত্তর বা এমডি ডিগ্রী নেই। ভাবুন আপনার চিকিৎসা হবে কার হাতে। আর সেই স্বাস্থ্য ব্যবস্থার তদারকি করেন আমাদের মুখ্যমন্ত্রী। ধরেই নিলাম এই কারচুপি তাঁর কাছে অজানা। ভাবতেই ইপারেন, আমি কি আর সরকারি হাসপাতালে ভর্তি হব? সে না হয় কিছু সাধারণ মানুষ মরবে। সমস্যা হল এই ভদ্রলোক আপ্যোলো হাসপাতালেও যুক্ত। কী এবার। কোথায় যাবেন? ভয় করছে না? তা এই ভদ্রলোকই হলেন মেডিক্যাল কলেজের নতুন হোস্টেলের সুপার। যার অধীনে প্রিন্সিপাল মহাশয় প্রথম বর্ষের ছাত্রদের রাখবেন বলে ঠিক করেছেন। মেডিক্যাল এর ছাত্ররা হোস্টেলের দাবীর পাশাপাশি লড়ছে এটার জন্য যে এই রকম এক জনকে তারা হোস্টেলের সুপার হিসেবে মেনে নিতে নারাজ। আর এর প্রধান মদতদাতা হলেন 'কুকুরের ডায়ালিসিস' করানো (কু)খ্যাত আরেকজন 'চিকিৎসক'। ছবিটা ভাবুন, আপনি মেডিক্যাল কলেজের CCU তে ভর্তি আপনার চিকিৎসক হলেন ইনি। হয়ত আপনার পাশের বেডে কুকুরের ডায়ালিসিস চলছে। এর পর ভয় করছে না! ভাবুন ছেলেমেয়েগুলো আপনার জন্যও কিন্ত পরোক্ষ ভাবে ৯ দিন ধরে লড়ছে।
শুধু চিকিৎসাপ্রার্থী কেন? আপনি যদি সেই সমস্ত বাবা - মা ও আত্মীয়দের একজন হন, যাদের ছেলে-মেয়েরা হয়তো ভবিষ্যতে মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হবে, তাহলে ভেবে দেখুন, কার দায়িত্বে ছেলেকে রাখতে চলেছেন? এতো স্বপ্ন করে মেয়ে বা ছেলেকে ডাক্তারি পড়তে পাঠাবেন পশ্চিমবঙ্গ এর সেরা মেডিক্যাল কলেজে, রাখবেন কার অধীনে? কী পরিবেশে সে থাকবে? কী শিক্ষা পাবে?
আপনি যদি চিকিৎসক বন্ধুদের একজন হন তো, শেষ দুই বছর ধরে ডাক্তারদের যে গণশত্রু হিসেবে দেখান হল তার সাথে মিলিয়ে দেখুন। ভাবুন এমন লোক যদি CCU এর ডেপুটি ইনচার্জ হয় তবে রোগী গাফিলতি তো হবেই। আর এরকম কিছু ডাক্তারের জন্য সারা ডাক্তার সমাজ কে গণশত্রু তে দেখান হবে আর সাধারণ মানুষ ও এটাই ভাবতে বাধ্য হবেন। এর পর ও চুপ থাকবেন? আপনি প্রাইভেট চেম্বার করলেও এই কিছু ডাক্তারের জন্য আপনার রোগী আপনার পেশার জাতি কে অসুর বানাবে। চুপ থাকবেন নাকি ভাই বা ছেলের বয়সি এই ছাত্রদের পাশে দাঁড়াবেন। লড়াইটা ময়দানে ওরা লড়লেও এটা কিন্তু পুরো ডাক্তার সমাজের লড়াই।
পুলিশ আর প্রিন্সিপাল এর জন্য অবশ্য শব্দ খরচ করাও পাপ। একজন নিজে ছাত্রাবস্থায় থাকতেন হোস্টেল জবরদখল করে। আর আজ ছাত্র পিটিয়ে কুকুরের ডায়ালিসিসকারী ও তার কোম্পানির কাছে পুষ্পস্তবক নিয়ে হাসি বদনে ছবি তুলছেন বুক ফুলিয়ে। নিজে তিনি কলেজের আনাটমি বিভাগের ওপরের হোস্টেল জবরদখল করে থাকতেন প্রথম ও দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রদের সাথে পাশ করার পরেও হাউসস্টাফশিপের সময়। আর এখন তিনি মেডিক্যাল কলেজের ১৮৪ বছরের ঐতিহ্য কে নষ্ট করে প্রথম বর্ষের ছাত্রদের আলাদা করে দাললদের অধীনে রাখতে তৎপর। যিনি একসময় মালদা মেডিক্যাল কলেজে তৃণমূল এর হাতে মার খেয়েছিলেন আজ তিনি সেই তৃণমূলের হাতের পুতুল।
পুলিশ কিছুদিন আগে একটি পোস্টার দিয়েছিল যে 'ডাক্তারেরা সমাজবন্ধু বিপদে-আপদে আমাদের সহায়। ওদের গায়ে হাত তোলা দণ্ডনীয়। জেল হতে পারে ১০ বছর পর্যন্ত।' ঘটনা এই, যে আজ তারাই ১০০ জন মিলে শাসক গুন্ডাদের সাথে হাত মিলিয়ে ডাক্তারি ছাত্রদের পেটাচ্ছে।
হায় সেলুকাস কি বিচিত্র এ দেশ!



কোন বিভাগের লেখাঃ খবর্নয় 
শেয়ার করুন


মন্তব্যের পাতাগুলিঃ [1] [2]   এই পাতায় আছে 9 -- 28
Avatar: avi

Re: মেডিকাল কলেজ

নাহ, সবাইকে পাল্টে দেওয়ার দরকার পড়ে না। আমাদের সময় প্রতি ব্যাচে দেড়শ মতো স্টুডেন্ট থাকতো, রাজনৈতিক মতামত অনেকসময় পাঁচদশ জনের ঘুরিয়ে দেওয়া গেলেই সেটা নির্ণায়ক হয়ে যেত। সবার মতামত যে প্রভাবিত করা যায় না, সেটা মনে হয় সবাই মানে। সুইংটুকু নিয়েই গণ্ডগোল। :)
Avatar: abrupa

Re: মেডিকাল কলেজ

দেখুন sm আপনার বয়স কত জানিনা। কিন্তু এর মধ্যে গঙ্গা দিয়ে অনেক (ময়লা)জল বয়ে চলে গেছে। বর্তমান সময়ের কলেজ পলিটিক্সের ধরণধারণ যে পাল্টে গেছে সেটা নিয়ে বোধহয় সবাই আপডেটেড নন। আমাদের সময়ে হ্যান করতাম ত্যান করতাম সেরকম বলা সোজা ভাই। কিন্তু কেন এতগুলো কলেজের কোনোটাতেই শাসকদলের পেছনচাটা স্টুডেন্ট উইং ছাড়া আর কোনো বিরোধী দল রইল না, কেন DSA অন্যান্য কলেজ থেকে উঠে গেল, তার কারণ রয়েছে, সেগুলো তো জানতে হবে, তাইনা! সুদু আমরা হ্যান করতাম ত্যান করতাম তা বল্লে হবে! আর ফার্স্ট ইয়ারের বাচ্চাদের স্টুপিড কি না তা নিয়ে নতুন কিছু বলার নেই। ফার্স্ট ইয়ারের বাচ্চা স্টুপিড না হোক, রাজনীতিমুখী তো নয়ই, আজ থেকে ২০-২৫ বছর আগে যেটুকুওবা ছিল আজ, ফেবু, হোআ, চ্যাটপ্যাট ইত্যাদির দৌলতে সেটুকুও নয়। শুধু পড়ব, জানব এরম করলে হবে! বলুন! আর ডেপুটি ইনচার্জ না কি যেন ওই পার্থপ্রতিম মন্ডল একসময় SFI ছিল, এখন Tmcp, একদিন BJP, XXX, YYY হবে। ওর সহচর হচ্ছে কিছু মেডিক্যাল ফেলু গুন্ডা, আর বেশ কিছু নন মেডিক্যাল টক্সিক প্রকৃতির লোকজন, যারা পৃথিবীতে ক্ষমতা বলতে গায়ের জোর বোঝে। আপনার সুন্দর, সুখী ঘরখানাও কিন্তু রাজনীতিমুক্ত নয়, ফার্স্ট ইয়ারের হোস্টেল তো নয়ই। চলুন না আজ আড়াইটায় মেডিক্যাল কলেজ বাচ্চারা ওপেন কনভেনশন ডেকেছে, একটু দেখে আসি কেমন আছে এখনকার বাচ্চারা। ওখানেই কথা হবে নাহয়। এরম বাড়িতে বসে বুকনি দেয়াটা কি ভালো!? আপনারাই বলুন।

Avatar: sm

Re: মেডিকাল কলেজ

না না ,বুকনি দেওয়ার কোন প্রশ্নই নেই। আমি এখন ও বুঝতে পারিনি স্টুডেন্ট দের দাবি টা কি?যদি স্টুডেন্ট দের দাবি হয় ভালো হোস্টেল, তবে ফার্স্ট প্রেফারেন্স পাওয়া উচিত দ্বিতীয় বর্ষ থেকে ইন্টার্ন অবধি। কারণ তাদের পড়াশোনা করার দরকার সব চাইতে বেশি। তাহলে মেইন দাবি হওয়া উচিত আমরা থাকবো নতুন হোস্টেলে আর ফার্স্ট ইয়ার ও পিজিটিরা থাকুক বাকি হোস্টেল গুলো তে। কোন বিরোধ বা দ্বিমত নেই তো। কিন্তু তার জন্য ফার্স্ট ইয়ার এর স্টুডেন্ট দের সঙ্গে একসাথে থাকতে হবে কেন?
যখন এম সি আই এর গাইড লাইন বাধা নিষেধ আরোপ করেছে।
অবিশ্যি এই গাইড লাইনের কথা কাগজেই পড়েছি, শুধু।
Avatar: কেঁচো

Re: মেডিকাল কলেজ

smএর প্রতি:
১) Admission seat দেড়শো থেকে বেড়ে আড়াইশো হ'লে ৬৭% বাড়াতে হয় hostel প্রতি, বা ৪০% studentকে অন্যত্র রাখতে হয়। তাই "গুঁজে" দিয়ে এই সমস্যার সমাধান হবে না।
২) শাসকদলকে ছাত্র "পটাতে" হয় না।
৩) আপনি নিশ্চিত যে এখনো hostel superintendent hostelএই থাকেন?
৪) আপনি নিশ্চিত যে আপনাকে কোনো item, part, internal, annual, gold medal বা university পরীক্ষার আগের রাতে বা সময়ে-অসময়ে seniorদের সাহায্য নিতে হয়নি?
৫) Psychological ragging করার জন্য hostelএ একসাথে থাকতে হয় না এটা দেখিয়েছে MCCP(I), B.C.Roy hostelএ days' scholarদের নিয়ে বাধ্যতামূলক রুদ্ধদ্বার বৈঠক ক'রে।
৬) তাহ'লে juniormost doctorদের professor বা HOD করার সপক্ষে আপনি?
৭) আপনি চান class representative বিনা নির্বাচনে ঠিক হোক?
৮) আপনি চান বিনা counselingএ hostel seat allot হোক?
৯) "পটানো"-টা রাজনীতি নয়, রাজনীতি সমাজ চেনা ও চলা-টা।

শাসক তার সুবিধার্থে চায় এমন ঘোড়াদের যাদের চোখে ঠুলি পরানো আছে(বা হয়েছে)।
Avatar: sm

Re: মেডিকাল কলেজ

সব কিছুই অনুমান করে নিলে মুশকিল।
এখনও দুটো প্রশ্নের উত্তর পেলাম না।
এক, নতুন হোস্টেলে কত সিট?
দুই, যদি, এম সি আই গাইড লাইন থাকে, ফার্স্ট ইয়ার এর সঙ্গে সিনিওর স্টুডেন্টদের রাখা যাবে না, তাহলে এতো জোরাজুরি কেন?
আমি তো বললাম দাবী হোক, সেকেন্ড থেকে ফাইনাল ইয়ার ও ইন্টার্নরা নতুন হোস্টেলে থাকুক।

কিছু প্রশ্নের উত্তর--
সিনিয়র দের সাহায্য অবশ্যই লাগে। যাদের লাগবে, তাদের কে কলেজ চত্বরে নোটস দিয়ে, ছোট ক্লাস নিয়ে সাহায্য করবে সিনিয়র স্টুডেন্টরা।
যাদের আরো বেশি সাহায্যের দরকার হবে, তারা নিজের দায়িত্বে সিনিয়র দের হোস্টেলে যাবে।
বহু ডে স্কলার তো এমন ভাবেই পড়াশোনা করে বা গোল্ড মেডেলও পায়।
তিন, ছাত্র সংসদে নির্বাচন তো করতেই হবে।
চার, কোন মতেই পিজি ডিগ্রি ছাড়া কাউকে কনসালট্যান্ট করা উচিত নয়। প্রফেসর বা হেইচ ও ডি তো দূরের কথা!

সেই জন্যই তো জিজ্ঞাসা করলাম মোট কতো জন কনসালট্যান্ট ক্রিটিকাল কেয়ারে?
আর আমি একমত যে রাজনীতি হলো, সমাজ কে জানা ও চেনা।
এটাতো ফার্স্ট ইয়ারের সঙ্গে একসাথে থেকেই শুধু হয় না।
ফার্স্ট ইয়ার নিজেই সমাজ কে চিনে বা জেনে নেবে। এর জন্য সিনিয়র স্টুডেন্ট দের হেল্প এর প্রয়োজন তো দেখি না।
র্যাগিং এর সময় যে আলোচনা হতো , তাতেও এক যুক্তি পড়তো; সিনিয়ররা নাকি ফার্স্ট ইয়ার কে স্মার্ট করছে।
এটা সঠিক নয় বলে এখন,মনে করেন তো?

Avatar: কেন্নো

Re: মেডিকাল কলেজ

Avatar: কেঁচো

Re: মেডিকাল কলেজ

কোনোটাই অনুমান নয়, it's just a figure of speech.
Avatar: কেঁচো

Re: মেডিকাল কলেজ

একজন ডাক্তার হিসেবে guideline বলতে কী বোঝেন তার উপর নির্ভর করছে কাগজের লেখাটা বেশি গুরুত্ব দেবেন না পরিস্থিতিকে। প্রশ্ন করার যে অভ্যাস আপনাকে medical collegeএ পৌঁছিয়ে দিয়েছে তাকে বিদায় জানাবেন কি না তাও এর সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত।
Avatar: কেঁচো

Re: মেডিকাল কলেজ

এর থেকেও গুরুতর কত MCI guidelines উপেক্ষা করার জন্য কর্তৃপক্ষ কুখ্যাত তা অন্যদের এখানে জানাতে অনুরোধ করছি।
Avatar: কেঁচো

Re: মেডিকাল কলেজ

avi যে লিখেছেন CPI(M)এর কোনো হেলদোল ছিল না, এর থেকে বোঝা যায় হয় তিনি বারংবার main hostelএ SFIএর গুণ্ডা নিয়ে আক্রমনের কথা জানেন না, নয়ত জেনে না জানার ভাণ করছেন।
Avatar: avi

Re: মেডিকাল কলেজ

নাহ, ভান টান না, ওটা আমার কাছে একটা প্রহেলিকা বলতে পারেন। এখানে সেযুগে মেডিক্যাল কলেজ রাজনীতি নিয়ে বিশেষ টানাটানির মানে নেই যদিও, কিন্তু আমার সেই সময় খুব মনে হতো, এসএফআই যদি কলেজ ইউনিয়ন দখল করার জন্য উঠেপড়ে লাগতো, তাহলে সিপিকে আক্রমণ করা বা গিলে ফেলা অনেক সহজ হতো মেইন হস্টেলের দখল নেওয়ার চেয়ে। শাসকদলের হাত বাড়ালে সিপি আলাদা করে টিকে থাকতো কিনা সন্দেহ, যেটা এগারোর পরে হলো। কিন্তু সেটা হয় নি, আমার জ্ঞানত।
Avatar: sm

Re: মেডিকাল কলেজ

এখানে পোস্ট গুলো পড়ে যা বুঝলাম, শাসক দল গুন্ডা গিরি করে ক্ষমতা কায়েম করে রেখেছে।কিন্তু প্রশ্ন হলো, প্রবল পরাক্রম শালী সিপিএম এর তিন দশকের বেশি রাজত্বে ও মেডিকেল কলেজে এস এফ আই, দাঁত ফোটাতে পারে নি।
ছাত্র পরিষদ বেশিরভাগ সময়ে বেশি আসন জিতেছে তার পর ডি এস এ।
প্রসঙ্গত বলা ভাল, মেডিকেল কলেজে ছাত্র পরিষদ মানে এম সি সি পি আর ডি এস এ ও হলো এম সি ডি এস এ।
অর্থাৎ কলেজ ভিত্তিক রাজনীতি। মোদ্দা কথা হলো ,এজেন্ডা হচ্ছে,কলেজর ও স্টুডেন্ট দের উন্নয়ন।বৃহত্তর রাজনীতির স্কোপ এখানে কম।
বর্তমান পরিস্থিতিতে তিনোমুল এর জয়ী ক্যান্ডিডেট সংখ্যা বেশি।
অর্থাৎ অর্ধেক এর ওপর স্টুডেন্ট দের সমর্থন তিনোমুল ছাত্র পরিষদ পেয়েছে, সে যে ভাবেই হোক।
পোস্ট গুলো পড়ে বোঝা যাচ্ছে এস এফ আই এর ভূমিকায় ও ছাত্রদল খুশি নয়।
তাহলে আন্দোলনটা কি সর্বাঙ্গীন নয়?
অর্থাৎ প্রকৃত অর্থে মেজরিটি ছাত্রের সমর্থন নেই বা তারা মৌন আছেন।
তাহলে, সবাগ্রে উচিত, সমস্ত সিনিয়র ছাত্রদের মেজরিটি কি চায় , সেটা লিখিত ভাবে পেশ করে, ব্যবস্থা নেওয়া বা দাবি দাওয়া পেশ করা।
Avatar: কেঁচো

Re: মেডিকাল কলেজ

sm বোধহয় জানেন না, তাপস রায় বরানগর বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক।
Avatar: কেঁচো

Re: মেডিকাল কলেজ

avi বলেছেন SFI চাইলে সহজেই MCCP(I)কে গিলে ফেলতে পারত। তবে কি তারা পাগল ছিল যে union ছেড়ে MCDSAর পেছনে পড়ে থাকত? ভাবুন তো, চাইলেই কি ভাজপা গিলে ফেলতে পারে সভাতৃক-কে? তার থেকে ভাকপা(মা) বা পবপ্রক ভাঙানো সহজতর।
Avatar: pi

Re: মেডিকাল কলেজ

একশো ঘণ্টা হয়ে গেল অনশনের! লোকজন অসুস্থ হয়ে পড়ছে।
Avatar: sm

Re: মেডিকাল কলেজ

হ্যাঁ ঠিক বলেছেন, তাপস রায় বরানগরের বিধায়ক।তবে ওই বউবাজার অঞ্চলেরই লোক।
তবুও অনিচ্ছা কৃত্ ভুলের জন্য দুঃখিত।
Avatar: pi

Re: মেডিকাল কলেজ

অনিকেত চ্যাটার্জির আপডেট।
ও নিজেও অনশনকারী।

গতকাল মেডিক্যাল কলেজে প্রায় শতাধিক পুলিশ ও তৃণমূলী গুন্ডা মোতায়েন করে রীতিমতো বলপূর্বক অনশনকারীদের হসপিটালে এবং বাকিদের হয়তো লালবাজার তুলে নিয়ে যাওয়ার ব্লু-প্রিন্ট তৈরি হয় প্রিন্সিপাল রুমে বসে। সেইমতো তৈরি ছিল একাধিক পুলিশ ভ্যানও। কিন্তু শেষপর্যন্ত ছাত্রছাত্রী,বুদ্ধিজীবী, শহরের গণতন্ত্রপ্রেমী সাধারণ মানুষদের সমবেত প্রচেস্টায় পিছু হঠে পুলিশ। পালিয়ে যান প্রিন্সিপাল ও। আক্রমণের আশঙ্কায় এডমিনিট্রেটটিভ ব্লকে রাত জাগে সবাই।

এখন সকাল 10.30 । কিছুক্ষন আগেই প্রিন্সিপাল এসেছেন তাঁর অফিসে। স্যার যে এই বিশ্বকাপ ফাইনালের বাজারে তাঁর রোবিবাসরীয় দিনলিপিতে আমাদের স্থান দেওয়ার কথা ভেবেছেন এতে আমরা অভিভূত। কিন্তু 'সমস্ত বর্ষের ছাত্রদের জন্য দূরত্ব ও সিনিওরিটির ভিত্তিতে স্বচ্ছ হোস্টেল কাউন্সেলিং-এর ব্যবস্থা' না করা পর্যন্ত আন্দোলন চলছে। তাতে আপনি বিনোদনের জন্য পুলিশ ডাকুন,গুন্ডা ডাকুন আপনার ব্যাপার, আমাদেরটা আমরা বুঝে নিচ্ছি।

কারণ ইতিমধ্যে আজ সকালে অনশনকারী অর্ণবের বাড়িতে পুলিশ পাঠিয়ে ভয় দেখানো সত্ত্বেও তার অভিভাবক, সে নিজে এবং আমরা নিজের ন্যায় দাবিতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ।

অনশনের 116 ঘন্টা।
#MCK_Is_Fighting
Avatar: π

Re: মেডিকাল কলেজ

দেবাশিস হালদারের পোস্ট।

ট্রু কলারে যাঁর নাম দেখাচ্চে, দেখে সত্যিই হুব্বা হয়ে গেলাম!


'অনশনকারী অসুস্থ ডাক্তারি পড়ুয়া আপন সামন্তের বাড়িতে পুলিশ গেল। থ্রেট মারল যে আপনার ছেলে অনশন করছে জানেন? কি হতে পারে জানেন?

কাকু কাকিমা বললেন জানি, আমার ছেলে ন্যায্য কারণে লড়ছে। প্রয়োজনে আমরাও অনশন করব। তাতে পুলিশ একটা নাম্বার দিয়ে বলে, এই নাম্বারে ফোন করে কথা বলুন, সব জানতে পারবেন।

তো সেই নাম্বার টা আমরা ট্রু কলার এ দেখলাম এবং হোলি শিট! নাম টা নিজেরাই দেখুন। সক্কলে দেখুন। নোংরামি দেখুন।

পারলে সব্বাই যাচাই করুন। কতটা নোংরামি চলছে সেটা দেখুন।

#MCKisFighting
#ShameOnAuthority
Avatar: b

Re: মেডিকাল কলেজ

নাম আর নোংরামি কোথায়?
Avatar: π

Re: মেডিকাল কলেজ

মোবাইল থেকে ছবি দেওয়া চাপ। ওর টাইমলাইনে পাবেন।।ট্রু কলারে প্রিন্সিপ্লের নাম দেখাচ্ছে।

মন্তব্যের পাতাগুলিঃ [1] [2]   এই পাতায় আছে 9 -- 28


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন