গুরুচণ্ডা৯র খবরাখবর নিয়মিত ই-মেলে চান? লগিন করুন গুগল অথবা ফেসবুক আইডি দিয়ে।

যাদবপুর - আন্দোলনকারীদের পক্ষ থেকে একটি বিবৃতি

অভিষেক তুঙ্গা

 আমাদের বক্তব্য কী?

 

১) যে কেউ অভিযোগ করতেই পারে তাকে র‍্যাগিং করা হয়েছে,কিন্তু প্রকৃতই র‍্যাগিং হয়েছে কিনা,তার সঠিক অনুসন্ধান হওয়া উচিত।

২) গোটা ঘটনায় মানিক এর দোষ অবৈধভাবে রুম-এ ছাত্র রাখার ঘটনা সুপার-এর নজরে আনা! অনুপমের দোষ উত্যক্ত কথাকাটাকাটি মধ্যে চড় মেরে বসা,যেটা আবার নিজে মিটিয়েও ফেলে। বাকি ঘটনাগুলো কারা করেছে প্রমাণিত নয়, তাহলে কি করে এই দুজনকে র‍্যাগিং এর শাস্তি দেওয়া হচ্ছে?

৩) Fact Finding Committee এভাবে লুকিয়ে অনুসন্ধান চালানো কেন? এমনকি Anti Ragging Committee-এর মেম্বারও জানতে পারলো না!

৪) Anti Ragging Committee Meeting-এর আগেও agenda তে কেন সদস্যদের Ragging-এর অভিযোগ বা মিটিং এর বিষয়ে কিছু জানাল হল না?

৫) একটি বচসার ভিত্তিতে যদি Ragging-এর শাস্তি দেওয়া হয়, তাহলে কাল football মাঠে offside নিয়ে বচসা বা প্রেম নিয়ে senior-junior-এর মধ্যে গণ্ডগোলকেও Ragging বলে চালানো হবে।

৬) তবে চড় মারার ঘটনা অবশ্যই অনভিপ্রেত ও অপ্রীতিকর,তাই Hostel-এর Code of Conduct-এর নিয়ম অনুযায়ী অভিযুক্তের শাস্তি পাওয়া উচিত।

৭) কাচ ভাঙ্গা ও মলত্যাগ এর ঘটনা কঠোরভাবে নিন্দনীয়,অভিযুক্তদের অবিলম্বে খুঁজে বের করে উপযুক্ত শাস্তি দেওয়া উচিত।

 

আরও পড়ুন...

আমেরিকার স্বাস্থ্য-ব্যবস্থা – কিছু কাটাছেঁড়া (প্রথম কিস্তি)

ঈপ্সিতা পাল ভৌমিক

এই বাধ্যতামূলক বিমা প্রকল্প নিয়ে আপত্তি উঠেছে অন্যান্য অংশ থেকেও, তবে সেটি সম্পূর্ণ অন্য কারণে। রিপাব্লিকান দলের আপত্তির উলটো কারণেও বলা চলে। বেসরকারিকরণ আরো বেশি করে হোক, এমনটিই চান রিপাব্লিকানরা। সরকারি মেডিকেইড, মেডিকেয়ার নিয়েও তাঁদের বিস্তর আপত্তি, কেননা রিপাব্লিকান দলের মতে এসব ক্ষেত্রে সরকারি হস্তক্ষেপ কমানো দরকার, ওবামা-সরকার সেটাকে বাড়িয়ে দিচ্ছে। রিপাব্লিকান পথের ঠিক উল্টোমুখের যাত্রী, আমেরিকা দেশের কিছু র্যামডিকাল অংশও বাধ্যতামূলক বিমা প্রকল্প নিয়ে আপত্তি তুলেছে, কেননা তা বেসরকারি বিমাকোম্পানির অংশগ্রহণ বাড়াবে। PNHP, মানে Physicians for a National Health Program, আমেরিকার প্রায় ১৮০০০ ডাক্তারদের অ্যাসোসিয়েশন এর ঘোর বিরোধী। এঁরা বহুদিন ধরে বলে আসছেন, এই অ্যাক্ট আমেরিকান স্বাস্থ্যব্যবস্থার অসুখের চিকিৎসার সঠিক প্রেসক্রিপশন নয়। বা, বড়জোর, ক্যান্সারের চিকিৎসার জন্য মরফিন গোত্রীয়। 

কেন? এক তো এটা দিয়ে এর পরেও সমস্ত মানুষকে চিকিৎসার নিশ্চয়তা দেওয়া যাবে না। র‍্যাডিকল-রা হিসেব করে দেখিয়েছেন, আড়াই-তিন কোটি মানুষ এর পরেও স্বাস্থ্যবিমার আওতার বাইরে থেকে যাবেন। আর এতে করে আমেরিকান স্বাস্থ্যব্যবস্থার অন্য যে মুখ্য সমস্যা, ক্রমবর্ধমান খরচ, তারও বিশেষ সুরাহা হবেনা। কেউ কেউ এও বলছেন, শুধু সুরাহা হবে না, তাই নয়, এতে করে কিছু ক্ষেত্রে আরো বিপদকেই ডেকে আনা হল।

আরও পড়ুন...

অন্য " কুয়োতলা"

ঈশানী রায়চৌধুরী

 এমনকি এই যে আমাকে আর ভাইকে নিয়ে ছড়া লিখেছে কত , কিন্তু মনেই পড়ে না , বাবার কাছে বসে ছড়া শুনছি ঘরে বসে | আর এমনিতে যদি কবিতা পাঠের কথা বল ,সে তো অজস্র | কবিতার আসর , সাহিত্যবাসর লেগেই থাকত | অনেক কবিতা পড়ত সেখানে | শুনে শুনে আমার যে কত কবিতাই মুখস্থ !

-- ছড়া ? বা: !  আচ্ছা, কবিতায় ছন্দ নিয়ে কিছু বিশেষ মতামত ছিল ?

--অবশ্যই ! বাবা প্রায়ই লিখেছে , ‘ ছন্দে লেখো আগে | পরে ছন্দ ভাঙার খেলা’ | এই যে সবাই কবিতা লেখে ; ছন্দের ছাঁকনি খুব দরকার | ওই ছাঁকনি ব্যবহার করলেই অ-কবি রয়ে যাবে ছাঁকনিতে আর কবিরা স্বতন্ত্র হয়ে বিরাজ করবেন | তখন সেই সব কবিদের মধ্যে আবার মূল্য নির্ণয়ন করা যাবে…কে কত উজ্জ্বল | এই তো, শান্তিনিকেতনে হয়েছিল ..কবিতা লেখার ক্লাস | সে কী উত্তেজনা |  ছেলেপুলেরা লিখছে , বাবাকে দেখাচ্ছে, পড়ে শোনাচ্ছে | বাবা মাত্রা মেপে ঠিকঠাক করে শিখিয়ে দিচ্ছে | বাবা বলত , ' ছন্দ গড়তে শেখার পর…. বুঝতে পারবে | ওই যে সেই খুব চেনা কথা ক'টি ….বাবাই লিখেছিল , ' ভাঙা ….গড়ার চেয়েও মূল্যবান কখনো সখনো ' .. |

আরও পড়ুন...

ঘুড়ি ও তান্ত্রিক

শুদ্ধসত্ত্ব ঘোষ

 তিনি এইখানে বলেছিলেন ঘুড়ি ওড়ানোর খেলার কথা। ঘুড়ির চল এলো এই বাংলাতে। যে ঘুড়ি আসলে এক অপদেবতা। সেই অপদেবতাকে সুতোয় বেঁধে ওড়ানোর উৎসব হল বৌদ্ধদের। প্রথমে প্রকাশ্যে, তারপরে গোপনে। ব্রাহ্মণ্যবাদ এবং বৈষ্ণবভাবধারার সঙ্গে তখন তুমুল বিবাদ। যে কারণে চর্যার উদ্ভব সান্ধ্য ভাষায়, সেই একই কারণে বৌদ্ধদের ঘুড়ি ওড়ানো বন্ধ। কিন্তু এ ঘুড়ি ওড়ানোর যে মজা তা তো ছাড়া যাবে না! অতএব ঘুড়ির কারিগরী মাথায় রেখে বিশ্বকর্ম্মার সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হল তাকে। মাটিতে তুমি অনেক কিছুই করতে পার। কিন্তু আকাশে না পারলে আর পারলে কি? ওটাই তো আসল কেদ্দানি! সে কেদ্দানির জন্যই বাছা হল স্থপতিগুরুর পূজোর দিনকে। বৌদ্ধদের ঘুড়ি ওড়া এদেশে থেমে গেলেও, বিশ্বকর্ম্মার শ্রমশীল ভক্তদের ঘুড়ি উড়তেই থাকলো।।

আরও পড়ুন...

জুবিন মেহতার কনসার্ট প্রসঙ্গে

সন্মিত চ্যাটার্জী

 ১৯৪৮ এ যখন সাড়ে সাত লাখ প্যালেস্তিনীয় বাস্তুহারা হন,তখন এই অর্কেস্ট্রা তাদের ‘যাতায়াতের জন্য ইজরায়েল সরকারের সাঁজোয়া গাড়ি ব্যবহার করত’।১৯৭৬ তে ইজরায়েলী দখলদারী চলাকালীন(যে অংশ ১৯৪৮ এ দখল হয়নি) জুবিন মেহতা ‘ইউরোপ থেকে একটি অস্ত্রবোঝাই বিমানে করে এসে পৌঁছান’ । ‘১৯৬৭ সালে যুদ্ধ চলাকালীন এই অর্কেস্ট্রা ইজরায়েলী সৈন্যদের সামনেও অনুষ্ঠান করে’ । এবং এই সমস্ত তথ্য কোনো প্রতিবাদী লিফলেট থেকে নয়,বরং ইজরায়েল ফিলার্মোনিক অর্কেস্ট্রার অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে পাওয়া। এবং ফিলার্মোনিক অর্কেস্ট্রা কখনোই প্রকাশ্যভাবে ইজরায়েলের প্যালেস্তাইন নীতির সমালোচনা করেনি।প্যালেস্তিনীয় মানুষদের সপক্ষে কোনো বিবৃতি দেয়নি।বিরোধিতা করেনি ‘ব্র্যান্ড ইজরায়েল’ এর।বরং ইজরায়েলী সেনাবাহিনীর সামনে অনুষ্ঠান করার কথা গর্বিতভাবেই ঘোষনা করেছে(এই তথ্যও ওয়েবসাইট থেকে পাওয়া যায়)।

আরও পড়ুন...

মরণ-ঝাঁপ ও জনগণেশ

পরিমল ভট্টাচার্য

বিগত আড়াই দশক ধরে এই রাজ্যে সরকারের ভ্রান্ত নীতি আর ব্যবসায়িক পুঁজির যুগলবন্দীতে সরকারি স্কুল শিক্ষা ব্যবস্থাকে ক্রমশ পঙ্গু করে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের রমরমা হয়েছে। বলা বাহুল্য, তাতে পৌরহিত্য করেছে সংবাদমাধ্যমের একাংশ, সমাজের বিপুল অংশের মানুষের মধ্যে এই ব্যাপারে সহমত নির্মাণ করেছে। (তাতে পুরোহিতের ছাঁদার যোগান নিশ্চিত হয়েছে, সেটা বিজ্ঞাপনের পাতায় চোখ রাখলেই টের পাওয়া যায়।) মধ্যবিত্ত তো বটেই, নিম্ন আয়ের মানুষেরাও আজ এক প্রকার বাধ্য হয়েছেন এই বেসরকারি ব্যবস্থার কাছে যেতে। সমাজের বিভিন্ন স্তরে দানা বেঁধে উঠছে অনিশ্চয়তা, স্নায়ুচাপ, ক্ষোভ। 

দমদমে ক্রাইস্ট চার্চ স্কুলের ঘটনা এই জটিল পরিস্থিতির ইঙ্গিতবাহী। যে চা-দোকানি মেয়েকে সরকারি অবৈতনিক স্কুলে না পাঠিয়ে আয়ের সিংহভাগ খরচ করে পাড়ার নামজাদা মিশনারি প্রতিষ্ঠানে পড়তে পাঠাচ্ছেন, আর যে মাংসবিক্রেতা টাকার অভাবে ভাইঝিকে পাঠাতে পারলেন না, যে মধ্যবিত্ত গৃহবধূ  স্কুলের দিদিমণির কাছে মেয়েকে টিউশন পড়তে পাঠিয়েছেন “স্পেশাল কোচিং” – এর আশায়, আর যে বস্ত্র ব্যবসায়ী ফি বছর স্কুলে মোটা টাকা ডোনেশান দেন মেয়েকে “স্পেশাল অ্যাটেনশন” -এর  লোভে, যে অভিভাবক সেটা দিতে পারেন না, আর যে ছোকরা বিপিও কর্মচারী চোখ শানিয়েছে স্কুল ছুটির পর  স্কার্টের নীচে কিশোরী হাঁটু দেখে ... এরা সকলেই ভেতরে এক-একটি কালো চোরা স্রোত পুষে  অপেক্ষা করে থাকে, আর একদিন একটি মর্মান্তিক ঘটনা, সেই ঘটনাকে ঘিরে রটনা, এই সব স্রোতগুলোকে মিলিয়ে দেয়। আর সবাই ইটপাটকেল নিয়ে জড়ো হয় দিনভর লাইভ সম্প্রচারিত উন্মত্ত  জনগণেশের  পুজোয়।

আরও পড়ুন...

বাংলা ব্লগের ওপর নয়া খড়্গ

বিপ্লব রহমান

ব্লগ সাইটটির নির্মাতা ও আমারব্লগ লিমিটেডের পরিচালক সুশান্ত দাসগুপ্ত এক সংবাদ বিবৃতিতে জানান, আমারব্লগ ডটকম বাংলাদেশের কিছু কিছু আইআইজি থেকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে বলে নিশ্চিত সংবাদ পাওয়া গিয়েছে। গত ছয় মাসে এ নিয়ে  তৃতীয়বারের মত বাংলাদেশে আমারব্লগ ডটকম বন্ধ করা হলো। গত দুবারের মতো এবারও আমারব্লগ ডটকম কর্তৃপক্ষ এখন পর্যন্ত এ নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে কোন সরকারি কিংবা আনুষ্ঠানিক চিঠি পায়নি। ব্লগ কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে অনুসন্ধান করে জানাতে পেরেছে যে বেসরকারি এবং সরকারি ইন্টারনেট প্রভাইডারকে আমারব্লগ ডটকম সম্পূর্ণভাবে ব্লক করবার সরকারি নির্দেশ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন...

কামদুনি , এখন

কুসুম্বা

 কামদুনির নাছোড়বান্দা মানুষ ব্যাঙ্কশাল কোর্টে নজরদারি চালিয়ে যেতে চান| তাই সব ডেটেই তাঁরা আসেন কলকাতা| কিন্তু পুলিশ তাঁদের প্রতিদিন হয়রানি করে| আসার পথে তাঁদের গাড়ি বারবার বেরাস্তায় ডাইভার্ট করে দেয়া হয়| কোর্টের কাছে তাদের গাড়ি রাখতে দেওয়া হয়না, পুলিশ টাকা চায়| ক্ষুব্ধ মানুষগুলো জানান যে সরকার যদি ভেবে থাকে যে বারাসাত থেকে কলকাতায় কেস নিয়ে এনে ও পুলিশ দিয়ে হয়রানি করে কামদুনির আন্দোলনকারীদের থামিয়ে দেবে তবে তারা ভুল করছে, ভিক্ষে করে হলেও তাঁরা আসবেন| ১০সেপ্টেম্বর তাই আরো বেশী সংখ্যায় এসেছিলেন তাঁরা| এপয়া ও মৈত্রী সংগঠনের কর্মীরাও হাজির ছিলেন| জিপিও-র সামনে পুলিশ তাদের বেধরক লাঠিপেটা করে, অপরাজিতার ছোটো ভাই ও মৌসুমি কয়াল সহ বেশ কয়েকজনকে আহত রক্তাক্ত করে এবং ১১জনকে গ্রেপ্তার করে লালবাজার লকআপে নিয়ে যায়, বাকীদের হেয়ার স্ট্রীট থানায়|

আরও পড়ুন...

নো ওয়ান কিলড ফেলানি

একরামুল হক শামিম

২০১৩ সালের ১৩ আগস্ট অত্যন্ত গোপনীয়তা বজায় রেখে শুরু হয় ফেলানী হত্যাকাণ্ডের বিচার। সকালে কোচবিহারের সোনারীতে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) ১৮১ ব্যাটালিয়নের সদর দপ্তরে উক্ত বিচারকাজ শুরু হয়। বিএসএফ এর আইন The Border Security Force Act, 1968 অনুযায়ী গঠন করা হয় জেনারেল সিকিউরিটি ফোর্সেস কোর্ট। মোট পাঁচজন বিচারক বিচার প্রক্রিয়া চালান আর কোর্ট পরিচালনা করেন বিএসএফের গুয়াহাটি ফ্রন্টিয়ারের ডি আই জি কমিউনিকেশনস সি পি ত্রিবেদী। ১৪ আগস্ট বুধবার থেকে শুনানি শুরু হয়। কনস্টেবল অমিয় ঘোষের বিরুদ্ধে ভারতীয় দন্ডবিধির ৩০৪ ধারায় অনিচ্ছাকৃত খুন এবং বিএসএফ আইনের ১৪৬ ধারায় অভিযোগ আনা হয়। এই অমিয় ঘোষ তাঁর ৫ দশমিক ৫৬ মিলিমিটার ইনসাস রাইফেল থেকে গুলি চালিয়েছিলেন, যাতে নিহত হয় ফেলানী। ফেলানীকে হত্যার দায়ে বিএসএফের অভিযুক্ত কনস্টেবল অমিয় ঘোষ ঘটনার পর থেকেই ক্লোজ অ্যারেস্ট থাকেন। অর্থাৎ তিনি তাঁর ইউনিটের ১৮১ নম্বর ব্যাটালিয়নের এলাকার মধ্যেই সীমিতভাবে ঘোরাফেরা করতে পারতেন। শুনানির শুরুতে অভিযুক্ত ব্যক্তির বক্তব্য শোনা হয়। নিজের রাইফেল থেকে গুলি চালিয়ে ফেলানীকে হত্যা করলেও এর জন্য দোষ স্বীকার করেনি কনস্টেবল অমিয় ঘোষ। এরপর ১৯ আগস্ট ফেলানীর বাবা নুরুল ইসলাম ও মামা আবদুল হানিফের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়। জেনারেলসিকিউরিটি ফোর্সেস কোর্ট ৬ সেপ্টেম্বর বিচারকাজ শেষ করে।  রায়ে ভারত-বাংলাদেশসীমান্তে বিএসএফের গুলিতে নিহত বাংলাদেশী কিশোরী ফেলানী খাতুন হত্যার মামলায় অভিযুক্ত সীমান্তরক্ষী অমিয় ঘোষকে নির্দোষ ঘোষণা করা হয়। রায়ের পরে বিএসএফের ১৮১ নম্বর ব্যাটালিয়নের কনস্টেবল অমিয় ঘোষকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। দ্য বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্স অ্যাক্ট ১৯৬৮ অনুযায়ী জেনারেল সিকিউরিটি ফোর্সেস কোর্টের রায়ের চূড়ান্ত ছাড়পত্রের জন্য বাহিনীর মহাপরিচালকের কাছে পাঠাতে হয়। সেই প্রক্রিয়া শুরুর কথাও জানানো হয়।
 
দুখঃজনক হলেও সত্য, জেনারেল সিকিউরিটি ফোর্সেস কোর্টের এই বিচার ন্যায়বিচারকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। 'নো ওয়ান কিলড জেসিকা'র মতো যেন বলা হলো 'নো ওয়ান কিলড ফেলানী'! বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে ব্যক্তি ফেলানীর ওপর যে নির্মম ও অমানবিক আচরণ করা হয়েছে তা কোনো আন্তর্জাতিক আইনেই সমর্থিত হতে পারে না। এ প্রসঙ্গে গার্সিয়াঅ্ যান্ড গারজা মামলায় আদালতের পর্যবেক্ষণের কথা আবারও মনে করা যেতে পারে।
 

আরও পড়ুন...

বাজে গল্প ৩- চুম্বক

বিক্রম পাকড়াশী

প্রত্যেক আবিষ্কারের যেমন একটি পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থাকে, এই টেকনোলজিরও খুঁত ডিম বেচতে গিয়েই ধরা পড়ে। ডিমের ভেতরে ও খোসায় অধিক আয়রন থাকার দরুন কিছুদিনের মধ্যেই ডিমের গায়ে জল ও অক্সিজেনের সংস্পর্শে এসে জং পড়া শুরু হয় ও ফেরোসোফেরিক অ্যাসিড উৎপন্ন হয়ে খাবার অযোগ্য করে তোলে।  ডিম কোম্পানীরা কিছুদিনের মধ্যেই গবেষণার মাধ্যমে স্টেনলেস ডিম তৈরি করতে সক্ষম হয়, কিন্তু তার দাম ধরাছোঁয়ার বাইরে হওয়াতে সাধারন মুরগির ডিম কেনাই মানুষের পক্ষে শ্রেয় হয়ে ওঠে।

আরও পড়ুন...

আমার কারাবাস এবং - চতুর্থ কিস্তি

আসিফ মহিউদ্দীন

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে রয়েছে একটি বৃহৎ উপাসনালয়, পাপ মোচন জেলখানায় নিঃসন্দেহে গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার; কারণ পাপ মোচন না হলে পরবর্তী পাপের প্রেরণা কোথা থেকে আসবে? ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারটির উপাসনালয়ে যাওয়ার জন্য কারা কর্তৃপক্ষ নিদেনপক্ষে একজন সাধারণ কারা প্রহরীর অনুমতি গ্রহণের প্রয়োজন হয়না। অথচ কারাগারের লাইব্রেরীতে প্রবেশের জন্য জেল সুপারসহ তিন স্তরের কারা প্রহরীর অনুমতি গ্রহণের প্রয়োজন হয়। তবে বেশিরভাগ সময়ই কেউ এত ঝামেলা পোহাতে চায় না, বা এই অনুমতিই মেলে না।
উপাসনালয়ে কেউ গেলে তাতে আমার বিন্দুমাত্র আপত্তি নেই, যার খুশি যাক উপাসনালয়ে যার খুশি যাবে নাপিতালয়ে। কিন্তু লাইব্রেরীতে যাবার ব্যাপারে পরোক্ষ নিষেধাজ্ঞা, বাধা সৃষ্টি করা কয়েদীদের অপরাধ প্রবণতা কতটা কমাবে নাকি বাড়াবে, সেই সম্পর্কে চিন্তার অবকাশ রয়েছে। কারাগারের নিয়ন্ত্রণ আরোপ এবং কঠোর শৃঙ্খলা মানুষের মনকে কতটা মুক্ত করে, স্বাধীন করে আর কতটা পরাধীন করে তাকে অপরাধ চক্রের মধ্যে আবদ্ধ করে, তার পরিসংখ্যান খুব সহজেই মেলে। মিশেল ফুকো এনলাইটমেন্টের মানবতাবাদী শাস্তি প্রয়োগের তত্বকে ফালাফালা করে দেখিয়ে দিয়েছেন, ওগুলো সবই আরো শক্তিশালী ও সূক্ষ্ণভাবে মানুষকে শৃঙ্খলিত করে। উল্লেখ্য, আমাদের কারাগারে ছোট অপরাধী প্রবেশ করে অভিজ্ঞ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত অপরাধী হয়েই বের হয়, আর পাপ মোচনের সুব্যবস্থা থাকলে তো কথাই নেই।

কারাগারের লাইব্রেরীটি মধ্যযুগীয় গালগল্পমূলক বইপত্রে পরিপূর্ণ স্বাভাবিকভাবেই। জেলখানায় গিয়ে লাইব্রেরীর খবর নেয়ার চেষ্টা করা হলে খুব সন্দেহের দৃষ্টিতে তাকানো হয়। কারা প্রহরীদের দৃষ্টি দেখে নিজেকে একজন ভিনগ্রহের প্রাণী বলেও মনে হতে পারে। শুধু তাই নয় কারাগারে কোন বিদ্যালয়ও নেই, অশিক্ষিত নিরক্ষর মানুষগুলোকে অক্ষরজ্ঞানটুকু পর্যন্ত দেয়ার কোন ব্যবস্থা নেই। সাধারণত ধারণা করা হয় কারাগার ভয়ঙ্কর ভয়ঙ্কর সব অপরাধীতে পরিপূর্ণ। তবে সত্য হচ্ছে, কারাগারের অধিকাংশ মানুষ অত্যন্ত নিম্নবিত্ত পরিবারের, যারা আইনের মারপ্যাঁচ বোঝে না বা ভাল উকিল ধরতে পারেনি, বা তাদের কোন উকিলই নেই। যাদের টাকা আছে তারা আইনের ফাঁক ফোকর গলে ঠিকই বের হয়ে গেছে, আর যারা বের হতে পারে নি তারাই হতভাগার মত পরে আছে। প্রচুর সংখ্যক মানুষকে ৫৪ ধারায় গ্রেফতার করা হয়েছে, একজন ২ বছর তিন মাস ধরে জেলে বসে আছে, তার কোন শাস্তিও হয় নি! এমনকি সে এই বিষয় নিয়ে প্রতিবাদীও না, এটাকে নিজের নিয়তি মনে করে জেলে বসে আছে। আল্লাহ যেদিন চাইবে সেদিন তার জামিন হবে, এমনটা ভেবে আশায় দিন গুনছে শিক্ষা-বঞ্চিত এই হতভাগা মানুষটি।

কারাগারের কয়েদীদের সাথে কথা বলে জানা গেল, কারা হাসপাতালের ঔষধ খেয়ে কোন কাজ হয়না, বরঞ্চ পেট খারাপ বা বুকে ধড়ফড় জাতীয় সমস্যা হয়। কথাগুলো শুনে ব্যাপারটা আমার তদন্ত করতে ইচ্ছা হলো, কিন্তু সুযোগ ছিল না। তাদের এই কথাগুলো পরবর্তীতে পরিষ্কার হল।
পৃথিবীর প্রতিটি দেশে জীবনরক্ষাকারী ঔষধের মেয়াদ উত্তীর্ণ হবার তারিখ কঠোরভাবে মনিটর করা হয়। জীবনরক্ষাকারী ঔষধের মেয়াদ চলে গেলে তা শরীরের জন্য ক্ষতিকর হয়ে দাঁড়ায় এমনকি তা বিষ বলেও গণ্য হতে পারে। মেয়াদ-উত্তীর্ণ ঔষধের জন্য অনেক বড় বড় কেলেঙ্কারি ঘটে গেছে পুরো পৃথিবীতে। বেশ কিছুদিন কারা হাসপাতালের ঔষধ খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ার পরে খেয়াল করে দেখলাম, মেয়াদ লেখা অংশটি তারা ঔষধের পাতা থেকে কেটে ফেলে তারপরে দেয়। এভাবে বেশ কিছুদিন যাবার পরে একপাতা ঔষধ পেলাম যেখানে মেয়াদ অংশটি ছিল। দেখলাম ঐ ঔষধটির মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে, তাই তারা ঐ অংশটি কেটে কয়েদীদের দিচ্ছে। এই পাতাটির মেয়াদ অংশটুকু কোনভাবে তারা কাটতে ভুলে গেছে।
প্রিজন সেল, পিজি হাসপাতালের ডিরেক্টর বরাবর এই বিষয়ে জানানোর পরে পিজির ডিরেক্টর থেকে একটা চিঠি যায় জেল কর্তৃপক্ষের কাছে, এবং জেলের ফার্মাসিস্ট আস্বাদ এসে দেখা করে। সে এসে এমন একটা ভাব করে যে, এত সামান্য বিষয় আমি কেন পিজির ডিরেক্টরকে জানালাম! এই ঔষধ খেয়ে তো আর আমি মারা যাই নি! মারা গেলে তারপর একটা কথা ছিল! অর্থাৎ মারা যাবার পরে কেন আমি অভিযোগ করলাম না, সেটা একটা মস্তবড় অপরাধ হয়ে গেছে! যদিও আমি বুঝতে পারলাম না যে, মারা যাবার পরে আমি কীভাবে অভিযোগ দায়ের করতাম, আর সেই অভিযোগ দায়ের করে ফায়দাটাই বা কী হতো!
সে আরো জানালো, এরকম তো হতেই পারে। এই নিয়ে এত বাড়াবাড়ির কি আছে! আমি তাকে জিজ্ঞেস করলাম, আপনি ফার্মাসিস্ট হয়েছেন কি যোগ্যতায়? আপনি জানেন, এটা একটা মস্তবড় অপরাধ? এই অভিযোগে আপনার জেল হতে পারে?
সে আমাকে জানালো এইসব কথাকে সে পাত্তা দেয় না একটুও। সে পয়সা পাতি খরচ করেই এই পজিশনে এসেছে, একটু পয়সা না কামালে চলবে কীভাবে?
আমি জানতে চাইলাম, পয়সা কামাবার ধান্ধায় হাজার হাজার মানুষের জীবন ঝুঁকির মধ্যে ফেলছেন, আবার বড় গলায় কথা বলছেন? এরপর আমি ব্যাপারটা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ অথবা পত্রিকাতে ছাপাবার কথাও বললাম। সে অবলীলায় জানালো, পত্রিকার সাংবাদিকরাও জেলের নানা দুর্নীতির ভাগ প্রতিমাসেই পেয়ে যান, তাই এই বিষয়ে প্রথম সাড়ির কোন দৈনিক পত্রিকা কোনদিন উচ্চবাচ্য করবে না। সে আমাকে রীতিমত হুমকি দিল যে, এই নিয়ে আমি যেন আর উচ্চবাচ্য না করি। উচ্চবাচ্য করলে আমার সমস্যা হবে।
একই সাথে, সে আমাকে জানালো আপনি তো একজন নাস্তিক। রোগ শোক এগুলা সৃষ্টিকর্তা দেয়, এবং তিনিই তা সারিয়ে তোলেন। ঔষধ তো অছিলা মাত্র। স্রষ্টা চাইলে এই ঔষধেই কাজ হবে, আর স্রষ্টা না চাইলে ভাল ঔষধেও কিছু হবে না! তার কথা শুনে আমি হতভম্ব হয়ে গেলাম!

কোন সাংবাদিকের যদি আমার এই লেখাটি নজরে আসে, তার কাছে অনুরোধ জানাবো, ব্যাপারটি নিয়ে পত্রিকাতে লিখুন, প্রয়োজনে তদন্ত করে দেখুন। প্রচুর কয়েদী, কারা প্রহরী ও তাদের পরিবারের জীবন এই সব লোকদের হাতে জিম্মি হয়ে আছে। আমরা ভেজাল খেয়ে খেয়ে এখন মেয়াদ উত্তীর্ণ ঔষধও হজম করে ফেলি, কিন্তু সবাই তা পারে না। যারা পারে না, তাদের মৃত্যুকে হত্যা হিসেবেই গণ্য করতে হবে, এবং দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে।

কারাগারের নিরক্ষর মানুষগুলো, এমনকি অনেক পড়ালেখা করা মানুষও ঔষধের মেয়াদ খেয়াল করেন না। কারাগারে নিয়তির উপরে নির্ভর করানোর শিক্ষা দেয়া হয়, কোন বিদ্যালয় বা পাঠাগার বিষয়ে কারা কর্তৃপক্ষের কোন চিন্তা নেই। কোন কারা কর্তৃপক্ষের যদি এই স্ট্যাটাসটি নজরে আসে, অনুগ্রহ করে কারাগারে একটি বিদ্যালয় স্থাপন করুন, এবং কয়েদীদের লাইব্রেরীতে প্রবেশের অধিকার দিন। তারা যেন একটি করে বই রাতের বেলা তাদের সেলে নিয়ে আসতে পারে, পড়তে পারে। প্রয়োজনে আমি সেই বিদ্যালয়ে বিনামূল্যে শিক্ষকতা করতেও রাজি আছি।

কারাগারের মানুষগুলো বিজ্ঞান শিখুক, যুক্তিবাদ পড়ুক, মহাবিশ্ব এবং পৃথিবী সম্পর্কে জানুক-বুঝুক। যারা বইয়ের খোঁজ পায়, মহাবিশ্বের বিশালতা যাদের কাছে ধরা দেয়, জানার আগ্রহ যাদের তাড়িত করে, তারা তুচ্ছ ইয়াবার ব্যবসার জন্য অন্যের পেটে ছুরি চালাতে পারে, এমনটা আমি বিশ্বাস করি না।
 

আরও পড়ুন...

সবার জন্য বিনামূল্যে অত্যাবশ্যক ও জীবনদায়ী ওষুধ চাই

পুণ্যব্রত গুণ


বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সাম্প্রতিক অত্যাবশ্যক ওষুধের তালিকায় আছে ৩৭৪টা ওষুধ। ভারতের জাতীয় তালিকায় ওষুধের সংখ্যা ৩৪৮। অথচ ভারতের বাজারে ওষুধ ফর্মুলেশনের সংখ্যা ১ লাখ ছাড়িয়েছে।
এত ফর্মুলেশন তাহলে কেন? একই ওষুধ আলাদা আলাদা কোম্পানী বাজার-জাত করে আলাদা আলাদা নামে। তারপর আছে একাধিক ওষুধের নির্দিষ্ট মাত্রায় মিশ্রণ, যার অধিকাংশই অপ্রয়োজনীয়। এছাড়া আছে অপ্রয়োজনীয় অনেক ফর্মুলেশন, যেমন—কাফ সিরাপ, হজমী ওষুধ, টনিক...।

প্রচুর ওষুধ, মানুষের জন্য ওষুধ নেই...

আরও পড়ুন...