বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

আমার কারাবাস এবং - দ্বিতীয় কিস্তি

আসিফ মহিউদ্দীন

এই লেখা প্রকাশের সময় জানা গেছে, আসিফ মহিউদ্দীন পুনরায় কারারুদ্ধ।

-------------------------------------------------------------------------------------------
( প্রথম কিস্তির পর )


মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা,

আমি জানি আমার এই স্ট্যাটাসটি কিছুদিনের মধ্যেই আপনার টেবিলে পৌছে যাবে, নানা ধরণের গোয়েন্দা সংস্থার লোকজন এবং অনলাইনে কিছু ভাড়াটে ব্লগার সুদৃশ্য ফাইল বানিয়ে আপনার টেবিলে আমার সমস্ত লেখাই পাঠাবে। যেহেতু আপনার সম্মানিত টেবিলে আমার এখন কোন না কোন ভাবে প্রবেশাধিকার জুটে গেছে, তাই আপনাকে কথাগুলো বলার ধৃষ্টতা দেখাচ্ছি।

নাস্তিক হবার 'অপরাধে' রাসেল পারভেজ, সুব্রত শুভ, মশিউর রহমান এবং আমাকে সরকারি নির্দেশ মোতাবেক গ্রেফতার করা হয়েছিল, আরো দুইজন ফেসবুকারকে শুধুমাত্র কোন পেইজে লাইক দেয়ার অপরাধে গ্রেফতার করা হয়েছিল। দীর্ঘদিন আমরা জেলে ছিলাম। যাদের গ্রেফতার করা হয়েছিল, তাদের মধ্য থেকে নিজেকে বাদ দিয়েই বলছি, বাকি তিনজনই প্রগতিশীল চিন্তাভাবনার মানুষ। অসাম্প্রদায়িক সাম্যবাদী বাঙলাদেশ, সাম্প্রদায়িকতা মুক্ত-জামাতশিবির-হিজবুত তাহরীর মুক্ত বাঙলাদেশের পক্ষের এক একজন লড়াকু কিবোর্ড সৈনিক। দীর্ঘদিন ধরে তারা জামাত শিবির এবং অন্যান্য ধর্মান্ধ মৌলবাদীদের সাথে অনলাইনে যুদ্ধ চালিয়ে আসছে, তাদের মিথ্যা প্রচার প্রচারণার জবাব দিয়ে আসছে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বাঙলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখা সম্ভবত তাদের অপরাধ হয়ে গিয়েছিল।

হ্যাঁ, তারা সকলেই নাস্তিক এবং ধর্ম সম্পর্কে তাদের প্রত্যেকের আলাদা আলাদা নিজ নিজ চিন্তা ভাবনা, বিচার বিশ্লেষণ রয়েছে। তারা কেউ খুন করে নি, ডাকাতি করেনি, গাড়ি পোড়ায় নি, মসজিদে আগুন দেয় নি, কোরআন পোড়ায় নি। গোয়েন্দা পুলিশ তাদের গ্রেফতারের সময় একটি প্রশ্নই করেছিল, "আপনারা কি নাস্তিক?" উত্তরটা হ্যাঁ হবার সাথে সাথেই তাদের গ্রেফতার করা হয়েছিল। আর এই গ্রেফতার হয়েছিল হেফাজতে ইসলামের চাপের কারণে। অর্থাৎ নাস্তিক হওয়া বাঙলাদেশে একটি অপরাধ বলেই গণ্য হচ্ছে! তাদের ভাল পুরস্কারই দেয়া হল।

অন্যদিকে, সারাদেশে জ্বালাও পোড়াও করা, বায়তুল মোকাররমে কোরআন পোড়ানো "হেফাজতে জামায়াতে ইসলাম" এর আমীর আল্লামা শফীকে সসম্মানে আপনার সরকার চট্টগ্রামে ফেরত পাঠালো। আপনার সরকার আল্লামা শফীর মত একজনকে এত সম্মান দিয়েছে দেখে কেমন জানি বমি বমি অনুভূতি হয়েছিল, কারণ এই সরকার ক্ষমতায় আসার আগে দীর্ঘদিন ধর্মান্ধ বিএনপি জামাতের বিরুদ্ধে এই ব্লগাররাই আন্দোলন করেছিল। যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবীতে অনলাইন জগত ছিল সর্বদা সোচ্চার কণ্ঠ।

সে যাই হোক, ভোটের রাজনীতিতে কাউকে না কাউকে বলির পাঁঠা বানাতেই হবে। সেটা করেও যদি জামাত শিবির মুক্ত বাঙলাদেশ সম্ভব হয়, ধর্মান্ধতা ও মৌলবাদ মুক্ত আধুনিক দেশ গঠন সম্ভব হয়, তাহলে অনলাইনের সকল ব্লগার এভাবে বলির পাঁঠা হতে একটুও দ্বিধা করবে না। কিন্তু ব্লগারদের বলির পাঁঠাও বানাবেন, আবার আল্লামা শফীদের সসম্মানে বিমানে তুলে চট্টগ্রাম পাঠাবেন, এটা কেমন বিচার হল?

বর্তমানে বাঙলাদেশের প্রধানমন্ত্রী, বিরোধী দলীয় নেত্রী, স্পিকার, পররাষ্ট্রমন্ত্রী হচ্ছেন নারী। আপনি নিশ্চয়ই জানেন, আল্লামা শফী বলেছেন, নারী হচ্ছে তেঁতুলের মত। তাদের দেখলেই সক্ষম পুরুষের মুখে লালা ঝরা উচিত। আরো নানা কথাই তিনি বলেছেন, যা এইখানে লিখলে আমার স্ট্যাটাসটি দুর্গন্ধ হয়ে যাবে। এরপরেও আপনার সরকার এখন পর্যন্ত আল্লামা শফীকে নারী অবমাননার কারণে গ্রেফতার, রিমান্ড, মামলা বা কোন পদক্ষেপই গ্রহণ করে নাই। এর আগে সাইদী বলেছিল, মেয়েরা হচ্ছে কলা, কলা ছিলা থাকলে ছাগলে তো মুখ দেবেই! এগুলো মোটেও নতুন কোন কথা না, ধর্মগুরুরা এই ধরণের বক্তব্য প্রতিটা দিন প্রতিটা ওয়াজে দিয়ে আসছে, সেগুলো দেখার মত কেউ নেই।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনি একজন নারী। যদি এই ধরণের ধর্মগুরুরা এই সব বক্তব্য দিয়ে পার পেয়ে যায়, তাহলে নারীর ক্ষমতায়নের কী অর্থ থাকতে পারে? আজও যদি তাদের এইসব বক্তব্যের পরেও তাদের সম্মান দেয়া হয়-শুধুমাত্র তারা ধর্মের কথিত রক্ষক এই কারণে, তবে জাতি হিসেবে আমরা আর কোথাও মুখ দেখাতে পারবো না।

আল্লামা শফীর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ থেকে মামলা দেখতে চাই, বাঙলাদেশে এই ধরণের বক্তব্য দেয়া সকল ওয়াজকারী-মোল্লা-মাওলানা-আল্লামাদের নিষিদ্ধ করতে আইন দেখতে চাই। তা যদি না করেন, ব্লগাররা আল্লামা শফীর বিরুদ্ধে নারী অবমাননার মামলা করতে বাধ্য হবে। আপনি সিদ্ধান্ত নিন, আপনি অসাম্প্রদায়িক প্রগতিশীল মুক্তমনাদের সাথে থাকবেন, নাকি আল্লামা শফীদের সাথে। আপনি বঙ্গবন্ধুর কন্যা হবেন, নাকি তেঁতুল হবেন। মনে রাখবেন, আল্লামা শফীদের সম্মান দিয়ে কোটি কোটি ভোট পেয়ে ক্ষমতায় যাওয়া যাবে, কিন্তু মানুষ হিসেবে-নারী হিসেবে যতটুকু আত্মসম্মান বোধ থাকে, তা বিক্রি করে দিতে হবে। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার কথা কী ভুলে গেছেন আপনি? কারা করেছিল সেই আক্রমণ?

বেগম খালেদা জিয়ার কাছ থেকে আমাদের কোন প্রত্যাশা নেই, কারণ তিনি নিজে কিছুই সিদ্ধান্ত নেন না। আপনার কাছে প্রত্যাশা রয়েছে, তাই দাবি জানাচ্ছি। ধর্মনিরপেক্ষ বাঙলাদেশের পক্ষে থাকুন, এতে যদি ভোটের রাজনীতিতে হেরেও যান, তারপরেও আপনার নাম অনন্তকাল এদেশের মানুষের হৃদয়ে লেখা থাকবে। ধর্মান্ধ প্রতিক্রিয়াশীল গোষ্ঠী কখনই আপনার পক্ষে থাকবে না, তারা আবারো গ্রেনেড মারবে সুযোগ পেলেই। আর আজকে যারা সরকারের ভাড়াটে ব্লগার হিসেবে আছেন, লাফ ঝাঁপ দিচ্ছেন, ক্ষমতায় না থাকলে তাদেরকেও আর আশেপাশে পাবেন না। পাশে পাবেন আজকে যাদের উপরে নির্যাতন চালানো হল তাদেরকেই।

পক্ষ বিপক্ষ চিনুন, এবং অবস্থান পরিষ্কার করুন। বাঙলাদেশ এখনও মরে যায় নি।



63 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

কোন বিভাগের লেখাঃ অপর বাংলা 
শেয়ার করুন


Avatar: anirban basu

Re: আমার কারাবাস এবং - দ্বিতীয় কিস্তি

খুব ভালো লাগলো। আসিফদের লড়াইয়ের প্রতি সলিডারিটি। সেই সঙ্গে এই লেখাটি গুরুতে প্রকাশের সঙ্গে যাঁরা যুক্ত তাঁদের সবাইকে অনেক ধন্যবাদ।
Avatar: aranya

Re: আমার কারাবাস এবং - দ্বিতীয় কিস্তি

শুধু এই লেখাগুলো পড়ার জন্যই গুরুতে আসা।
প্রতিবেদনের ওপরে লেখা আসিফ আবার জেলে। সঙ্গে আছি বলে বাস্তবে কোন লাভ নেই, কিন্তু আর কি ই বা বলতে পারি।
বাংলাদেশের সাথে একটা আত্মিক যোগ অনুভব করি, আসিফ মহিউদ্দীন, বিপ্লব রহমান, শহীদ রাজীব হায়দার - এদের মত মানুষদের জন্যই সোনার বাংলার স্বপ্ন এখনও বেঁচে আছে।
স্বপ্ন-টা বেঁচে থাক।
Avatar: de

Re: আমার কারাবাস এবং - দ্বিতীয় কিস্তি

দুটো পর্বই পড়লাম! পাশে থাকলাম এই অসম লড়াইয়ের -- যদিও জানিনা লড়াইয়ের বাংলাদেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে ভবিষ্যত ঠিক কি!
Avatar: সে

Re: আমার কারাবাস এবং - দ্বিতীয় কিস্তি

আসিফ মহিউদ্দীনএর সৎসাহসকে কুর্ণিশ জানাই।
শুধু উদ্বেগ : এই সাহসী ভদ্রলোকের কণ্ঠ না রুদ্ধ করে দেওয়া হয়। দুনিয়ার সর্বত্র যে অন্যায় অবিচার চলছে সেই ধারায় ইনিও না বলি হন।
Avatar: siki

Re: আমার কারাবাস এবং - দ্বিতীয় কিস্তি

আমি আসিফের সঙ্গে জেল খাটতে চাই।
Avatar: san

Re: আমার কারাবাস এবং - দ্বিতীয় কিস্তি

লেখকের সাহসের প্রতি শ্রদ্ধা জানাই।
Avatar: বিপ্লব রহমান

Re: আমার কারাবাস এবং - দ্বিতীয় কিস্তি

অভিনন্দন আসিফ। কুপমন্ডুকতা নিপাত যাক।।
Avatar: ইনাসি

Re: আমার কারাবাস এবং - দ্বিতীয় কিস্তি

আসিফ মহিউদ্দীন > আপনাকে কুর্ণিশ জানাই। শাসক তার আইন ব্যবহার করে আপনাকে বা আপনাদের নাজেহাল করার চেষ্টা করবে কিন্তু শাস্তি দিতে পারবে না। কিন্তু আপনি হঠাত খুন হয়ে গেলে ভবিষ্যত প্রজন্মের ক্ষতি। সাবধানে থাকবেন।
Avatar: ইনাসি

Re: আমার কারাবাস এবং - দ্বিতীয় কিস্তি

অভ্র ব্যবহার করে খন্ড 'ত' কি করে লিখব কেউ জানাবেন?

Avatar: siki

Re: আমার কারাবাস এবং - দ্বিতীয় কিস্তি

t`` = ৎ
Avatar: ইনাসি

Re: আমার কারাবাস এবং - দ্বিতীয় কিস্তি

siki> ধন্যবাদ. ৎ
Avatar: বিপ্লব রহমান

Re: আমার কারাবাস এবং - দ্বিতীয় কিস্তি

"আবার জামিন পেলেন ব্লগার আসিফ"
http://www.banglanews24.com/detailsnews.php?nssl=bd1a2f7e2e21ddb684863
50bf98e579d&nttl=07082013215831

___
আসিফ, আবারো অবিরাম লিখুন। শুভ কামনা।
Avatar: aranya

Re: আমার কারাবাস এবং - দ্বিতীয় কিস্তি

বাঃ, খুব ভাল খবর।
Avatar: ইনাসি

Re: আমার কারাবাস এবং - দ্বিতীয় কিস্তি

Facebook এ এই post টা পেলাম

আরজ আলী মাতুব্বর (Aroj Ali Matubbar)
প্রথমে বলা হল ওরা নাস্তিক, ওরা ইসলামের শত্রু, ওদের কতল করতে হবে, জবাই দিতে হবে।
ওমনি আমরা দৌড় ঝাঁপ শুরু করে দিলাম, বোঝাতে লাগলাম আমরা এক একজন পাক্কা ইমানদার, লুঙ্গি উঁচু করে খৎনা দেখিয়ে দিলাম, নে বাবা ভাল করে দেখ। আমাদেরও ইমানী জজবা কম নয়!

এরপরে ওরা হিন্দুদের মালাউন বলে জবাই শুরু করলো, ওমনি আমরা আবারো দৌড় ঝাঁপ শুরু করে দিলাম। ছিঃ, মালাউনদের সাথে আমাদের কোন সম্পর্ক নেই, ওরা তো মূর্তি পূজা করে, ওরা ভারতে গিয়ে মরলেই পারে! শালারা সব ভারতের দালাল, আমরা ভারতকে ঘৃণা করি, আমরা হিন্দুদের ঘৃণা করি!

তারপরে ওরা নারী ধর্ষণ শুরু করলো, ওমনি আমরা আবারো লাফ ঝাঁপ দিতে লাগলাম। বলতে লাগলাম, আরে, নারীরা পর্দা করলে তো এই ধর্ষণ হতো না। বেহায়া বেশরম নারীদের উচিত শিক্ষা হয়েছে বটে!

ওরা তারপরে বললো, ওরা তো চাকমা মারমা সাঁওতাল। এই দেশে ওদের থাকার কোন অধিকার নেই, ওদের ভূমি থেকে উচ্ছেদ করতে হবে। ওমনি আমরা লাফ ঝাঁপ শুরু করে দিলাম, আমাদের বাঙালিত্ব উগ্রভাবে চাগার দিয়ে উঠলো। শালারা বাঙলাদেশে কী করে? এই দেশ বাঙালির, কোন চাকমা মারমা সাঁওতালের এইখানে জায়গা নাই!

এরপরে তারা বললো শালারা কমিউনিস্ট, ওদের জবাই করা এখন দ্বীনী দায়িত্ব। ওমনি আমরা আবারো লাফাতে লাগলাম। বোঝাতে লাগলাম আমরা কমিউনিস্টদের ঘৃণা করি। কমিউনিস্টরা রাশিয়া নাইলে চীন চলে যাক, এদেশের কমিউনিস্টদের কোন জায়গা নেই। আমরা আল্লাহর আইন চাই, সৎলোকের শাসন চাই!

এভাবে এক একটি শয়তানি শুরু হল, এবং আমরাও তাদের তালে তালে কোমর দুলিয়ে নাচতে লাগলাম। আস্তে আস্তে আমাদের শক্তি কমতে থাকলো, কমতেই থাকলো। ওদের তালে তালে নাচতে নাচতে কখন যে আমরাই জামাত শিবিরে পরিণত হলাম, আমাদের রক্তমাংসে পাকি প্রেতাত্মা ঢুকে গেল, বুঝতেই পারলাম না।

জামাত শিবির প্রশ্নে কোন আস্তিক নাস্তিক নাই, জামাত শিবির প্রশ্নে কোন হিন্দু মুসলমান নাই, জামাত শিবির প্রশ্নে কোন নারী পুরুষ নাই, জামাত শিবির প্রশ্নে কোন চাকমা মারমা সাঁওতাল বাঙালি নাই, জামাত শিবির প্রশ্নে কোন ডান বাম কমিউনিস্ট নাই। আছে শুধু জামাত শিবির এবং এদেশের জাত পাত ধর্ম বর্ণ লিঙ্গ নির্বিশেষে অসংখ্য মানুষ।

আমরা যত বিভক্ত হব, আমাদের শক্তি তত কমতে থাকবে এবং তাদের শক্তি তত বাড়তে থাকবে। এই সহজ বিষয়টা আজকে আমাদের বুঝতেই হবে। আর কোন উপায় নেই।।

কৃতজ্ঞতাঃ আসিফ মহিউদ্দীন।
Avatar: Goutam Choudhuri

Re: আমার কারাবাস এবং - দ্বিতীয় কিস্তি

বাংলাদেশ আমাদের পথ দ্যাখাক ! আসলে বাংলাদেশই শেষাবধি পথ দ্যাখাবে ।

**গৌতম চৌধুরি, উবুদশ**


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন