গুরুচণ্ডা৯র খবরাখবর নিয়মিত ই-মেলে চান? লগিন করুন গুগল অথবা ফেসবুক আইডি দিয়ে।

লাভ-জিহাদ

দময়ন্তী

হিন্দু ও খ্রীশ্চান সংগঠনগুলির অভিযোগের মূল বক্তব্য হল মুসলিম যুবকেরা হাজারে হাজারে হিন্দু ও খ্রীশ্চান মেয়েদের প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিয়ে ও ধর্মান্তরকরণ করছে এবং এই সবই নাকি করাচ্ছে "লাভ-জিহাদ' নামে একটি মৌলবাদি মুসলিম সংগঠন।

আরও পড়ুন...

মেয়ে কুকুর নিরুদ্দেশ

দময়ন্তী

সম্প্রতি জানা গেল, মুম্বাই শহরের পোষা কুকুরের মালিকরা এক অভূতপূর্ব সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছেন। তাঁদের পোষা কুকুরদের মিলিত হওয়ার জন্য কুকুরী পাওয়া যাচ্ছে না।

আরও পড়ুন...

ইন্টারনেট ঠিকানা এবার অন্য ভাষায়?

অরিজিৎ মুখার্জী

শুধুমাত্র www.guruchandali.com নয় - কিছুদিন পর থেকে ব্রাউজারে টাইপ করতে পারবেন ডাব্লুডাব্লুডাব্লু.গুরুচন্ডা৯.কম বা আরো ছোট করে শুধু গুরুচন্ডা৯.কম - আর পৌঁছে যাবেন গুরুচন্ডা৯-র পাতায়।

আরও পড়ুন...

সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা ঃ দেশে বিদেশে

খবরোলা

সংবাদমাধ্যমের মতপ্রকাশের স্বাধীনতা সুনিশ্চিত করার দাবীতে ১৯৮৫ সালে যাত্রা শুরু করে Reporters Without Borders নামে একটি এন জি ও।

আরও পড়ুন...

ধরপাকড়ের রাজনীতি ও তৃণমূল কংগ্রেস

সোমনাথ রায়

পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতির গত আড়াই বছরের গতিবিধি থেকে এটা স্পষ্ট যে জনসমর্থনের ভরকেন্দ্রটি সিপিআইএমের হাত থেকে তৃণমূল কংগ্রেসের দিকে নিশ্চিতভাবে প্রতিসৃত হয়েছে।

আরও পড়ুন...

এ আমির অন্তরালে .....বীভৎস বিবর

তিস্তা দাস

যত টাকা থাকলে সরকারী হাসপাতালে হেনস্থা হবার বিপর্যয় (বোধহয় শব্দটির ভুল প্রয়োগ হলো, কারণ এটাই সত্যি যে হেনস্থা হওয়াটাই সেখানে ঘটনা, "দুর্ঘটনা' নয়) আমাদের ঘাড়ে নিতে হত না, ততটা আর্থিক স্বচ্ছলতা আমাদের ছিলনা।

আরও পড়ুন...

ইল্লিগ্যাল ইমিগ্র্যান্ট

অনির্বাণ বসু

এবার বাজারে এসে গেল বেআইনী অভিবাসী (Illegal Immigrant) হ্যালোউইন কসটিউম। হ্যালোউইন জিনিসটা এখনও ভারতে সেভাবে আসেনি তবে ভ্যালেন্টাইনস ডে, ফাদার্স ডে, মাদার্স ডে এইসবের পিছু পিছু নিশ্চয় একদিন এসে পড়বে।

আরও পড়ুন...

এ আমির অন্তরালে .....বীভৎস বিবর

তিস্তা দাশ

পৃথিবীতে এক একজন মানুষ থাকেন যাঁদের অতি দূরত্বেও থাকেনা কোনো পরিত্রাণকারী। সময়ের উপর্যুপরি প্রহারে যখন পিঠ ঠেকে যায় অন্তিম দেওয়ালে, তখন স্রেফ অস্তিত্ব রক্ষার তাগিদেই তাকে তার মত করে ফুঁসে উঠতে হয়। বিস্ফোরণের মত ফেটে পড়তে হয় প্রহারকের ওপর। সে প্রহারক ব্যক্তিবিশেষই হোক বা সমাজ!

আরও পড়ুন...

রাজধানীর ইতিকথা

শমীক মুখোপাধ্যায়

অনেকে এসেছিলেন সেদিন। ভোপালের বেগম একইসঙ্গে বোরখা এবং টেনিস শু পরেছিলেন। সাদা চামড়ার লোকজন ভিড় করে দাঁড়িয়েছিল রাস্তার দুধারে। গান স্যালুট আর কামানের তোপধ্বনিতে চঞ্চল হয়ে উঠেছিল হাতি আর ঘোড়ার দল। তাদের ইতস্তত দাপাদাপিতে মারা গেছিল অনেক লোক। অবশ্যই, তারা কালা নেটিভ আদমির দল।

আরও পড়ুন...

আমিও কি হিটলিস্ট-এ?

সুভানু ভট্টাচার্য

যে দেশে জন্মেছি, বড় হয়েছি, যে দেশকে ভালবেসেছি (বা বলা ভাল, ভালবাসার প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে চলেছি) এবং যে দেশ আমায় কদিন আগেই ভোটাধিকার দিয়েছে, সেই দেশের শাসনযন্ত্রের সাম্প্রতিক অপরূপ উদ্যোগগুলোর তারিফ না করে কি থাকা যায়? সুনাগরিক হতে গেলে রাষ্ট্রের প্রতি অন্ধ আনুগত্যের কর্তব্যটা আছে না, সেই তাগিদেই কিছু লিখতে বসা। কেউ আবার হুট করে দেশদ্রোহী বললে খুব খারাপ লাগবে কিন্তু!

আরও পড়ুন...

মাওবাদী

শ্যামল পাইন

আমি একটু ৩০০০০ ফুট ওপর থেকে ভারতের অবস্থা দেখতে চাই যাতে প্রতিটি গাছে চোখ না পড়ে পুরো বনভুমিতে চোখ পড়ে। যদি তাই দেখি তো বলব স্বাধীনতার পর থেকে , বিশেষত: ১৯৯১ এর পরে ভারতের উন্নতি হয়েছে স্পেকট্যাকুলার। এটা বলছি পৃথিবীর অন্য উন্নয়নশীল দেশের সঙ্গে তুলনা করে। ভারতের গণতন্ত্র সম্বন্ধে গুচর কিছু মানুষের সন্দেহ থাকলেও পৃথিবীর ছয় বিলিয়ন মানুষের কোন সন্দেহ নেই। তবে আমেরিকা, ব্রিটেন সহ কোন দেশেই গণতন্ত্র পারফেক্ট নয়। আর ১৯৯১ এর পর ১৫ বছরে ভারতে যা গ্রোথ হয়েছে তা চীনের ১৯৭৯ থেকে প্রথম ১৫ বছরের গ্রোথের সঙ্গে তুলনীয়। এটা হয়েছে ভারত গণতন্ত্র হওয়া সত্বেও।

আরও পড়ুন...

শিলিগুড়ি পুরমেয়র নির্বাচন -- জোটে চোটঃ বেআব্রু বাম শিবির

অভিজিৎ মজুমদার

শিলিগুড়ি পুর নিগম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় বিগত ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০০৯। ১৫ সেপ্টেম্বর ফলাফল ঘোষিত হলে দেখা যায় ৪৭টি আসনের মধ্যে কংগ্রেস-তৃণমূল জোট ৩০টি আসনে জয়লাভ করে নির্ধারক বহুমত হাসিল করেছে। অন্যদিকে, সিপিএম ১৫টি এবং আর এস পি ও ফরোয়ার্ড ব্লক ১ টি করে আসন পেয়ে শোচনীয়ভাবে পর্যুদস্ত হয়। ২০০৪-এ বামফ্রন্টের মোট আসন সংখ্যা ছিল ৩৬। কংগ্রেস ও তৃণমূল কংগ্রেস আলাদাভাবে লড়ে ১১টি আসন পেয়েছিল। বামফ্রন্টের জয়যাত্রা অব্যাহত ছিল বিগত ২৭ বছর ধরে।

আরও পড়ুন...

শাইনিং ইন্ডিয়া, কালো ভারত

সৈকত বন্দ্যোপাধ্যায়

অবস্থা উদ্বেগজনক, সন্দেহ নেই। ছত্রধর মাহাতো দিয়ে শুরু। তারপর রোজই ধরপাকড় চলছে। সংবাদপত্রে প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক জানিয়েছে, যে, এখন থেকে মাওবাদী বলতে শুধু জঙ্গী কার্যকলাপ নয়, জঙ্গীদের প্রতি মতাদর্শগত সমর্থনও বোঝাবে। ফলে যে সমস্ত বুদ্ধিজীবীরা মাওবাদীদের প্রতি রাজনৈতিক সমর্থন যুগিয়ে চলেছেন, তাঁদের বিরুদ্ধেও একই ধরণের ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে। এর কয়েকদিনের মধ্যেই পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যসচিব এবং পুলিশ অফিসাররা স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছেন, যে, মাওবাদী বা জনসাধারণের কমিটির মধ্যে বিশেষ পার্থক্য তাঁরা দেখছেন না। গ্রেপ্তারের পর ছত্রধর মাহাতোকে জেরা করে জনসাধারণের কমিটিকে সাহায্য করেছেন এরকম বহু মানুষের নাম পাওয়া গেছে। এবং সহায়তাকারী এই সমস্ত যেকোনো লোকের বিরুদ্ধেই কেন্দ্রীয় বে আইনী কার্যকলাপ নিরোধক আইন (ইউএপিএ) মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে। শুধু ঘোষণাতেই ব্যাপারটা থেমে নেই। গ্রেপ্তার চলছে। বন্ধ করা হচ্ছে ছাপাখানা। এই লেখা লিখতে লিখতেও আরও কিছু গ্রেপ্তার হয়ে যাবে, সন্দেহ নেই।

আরও পড়ুন...