Arijit Guha RSS feed

নিজের পাতা

Arijit Guhaএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • ফেসবুক একাউন্ট
    ঘর ঝাঁট দিতে এসে কাজের মেয়ে নিচু গলায় বললো, আপা! আমার রিকোয়েস্টটা এক্সেপ্ট করেন। আমি হতভম্ব গলায় বললাম, কিসের রিকোয়েস্ট?-ফেসবুক। রিকোয়েস্ট পাঠাইছি।: ও আচ্ছা! নাম কি?-ড্যাডিস প্রিন্সেস শাপলা!আমি নিজেকে সামলালাম।‌ এত অবাক হ‌চ্ছি কেন? কিছুদিন আগেই তো ...
  • ব্যালেন্স
    ছুটতে ছুটতে বাসের দরজার হাতলে হাত পেয়ে গেল স্মিতা। পাদানিতে পা রেখে আস্তে ছুঁড়ে দিল নিজেকে ভেতরে। জানলা থেকে রে রে করে ওঠা মুখগুলো এবার সোচ্চার, " এমনি করে কেউ ওঠে? বাড়িতে কেউ নেই নাকি?" মাথা নিচু করে সামনের দিকে এগিয়ে যায় স্মিতা। ড্রাইভারের পেছনের দরজায় ...
  • রুপচর্চা
    প্রোফাইল পিক আপডেট দেয়ার কিছুক্ষণ পর‌ই এক নামকরা বিউটিশিয়ান ফেসবুক ফ্রেন্ড আপু আমাকে নক দিলেন,-হ্যালো! একটা কথা জানতে পারি?আমি রিপ্লাই দিলাম, শিওর আপু,বলেন।আপু-কি ক্রিম ইউজ করোআমি একটা চশমাপরা ইমোজি দিয়ে রিপ্লাই দিলাম, ফেয়ার এন্ড লাভলী।আপু মেসেজ সিন ...
  • সমাজ গঠনের জন্য নৈতিক ঈশ্বরের প্রয়োজন হয়নি, সমাজের জটিলতাই নির্ধারণ করেছে ধর্মকে
    ধর্মের গুরুত্ব কী - এই প্রশ্নের উত্তরে অনেকেই বলে থাকেন সমাজের স্থিতিশীলতা ও নৈতিকতা রক্ষা করা, অনেকে বলেন যদি ধর্ম না থাকে তবে মানুষ অনৈতিক কাজ করা শুরু করবে। কেউ খারাপ কাজ করলে ইহকালে বা পরকালে তার শাস্তি হবে, আর ভাল কাজ করলে তিনি পুরস্কৃত হবেন এটা ...
  • সাইকো
    কয়েকদিন ধরে আমি প্রচন্ড আতঙ্কে আছি। ভয়ে রাতে ঘুমাতে পারি না।‌ সারাটা দিন অদ্ভুত এক অনুভূতি কাজ করে নিজের মধ্যে। কেন‌ জানিনা আমার মন বলছে আমার বর আমাকে খুন করবে। এটা মনে হ‌ওয়ার পেছনে কোনো যুক্তি নাই। আমার বর খুব ভালো একজন মানুষ।‌ নরম-সরম,কখনো‌ কোনো ...
  • জুম চাষ: একটি সংক্ষিপ্ত পর্যালোচনা
    [ও ভেই যেই বেক্কুনে মিলি জুম কাবা যেই/পূব ছড়া থুমত বর রিজেভ' টুগুনোত/ পুরান রাঙ্গা ভূঁইয়ানি এবার বলি উত্যে হোই চেগার/ সে জুমোনি এ বঝরত মিলিমুলি খেই।...চাকমা কবিতা...ও আমার ভাই বন্ধুরা চল চল সকলে মিলে জুম কাটতে যাই/ বড় বড় পাহাড়ের চূড়ায়/ দূরের পূর্ব ...
  • দুটি বই
    ইতিহাসে যদি প্রশ্ন আসত, "অ্যামেরিকার স্বাধীনতা যুদ্ধে ছিয়াত্তরের মন্বন্তরের প্রভাব আলোচনা করো" আমি দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ফেল করতাম। কিন্তু এখন এলে এই লিখব - ১৭৫৭ সালে যুদ্ধ নামক প্রহসনে বাংলা চলে গেলে লর্ড ক্লাইভের হাতে। শাসনের থেকেও বড় কথা যথেচ্ছ শোষণের ভার ...
  • গুহাচিত্র
    গত এক বছর হল আমরা গুহাচিত্রের মাধ্যমে পরস্পরের সঙ্গে কথা বলছি। আমরা মানে আমাদের পাড়ার লোকেরা। আমরা ফ্ল্যাটের দেয়ালে গুহাচিত্র আঁকছি। আমরা ছাদের জলের ট্যাঙ্কে গুহাচিত্র আঁকছি। আমরা সর্বত্র গুহাচিত্র আঁকছি।এই গুহাচিত্র আঁকার সূচনাকালকে আমরা প্যালিওলিথিক ...
  • মৃত্যুর চার ঘণ্টা পরও মৃত শূকরের মস্তিষ্কের কার্যকারিতাকে আংশিকভাবে ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হলেন বিজ্ঞানীগণ! মৃত্যুর ধারণা নিয়ে শুরু হল নতুন বিতর্ক…
    https://ichef.bbci.c...
  • আমার ছেলেবেলার শবেবরাত
    ছেলেবেলার শবেবরাতগুলো ছিল বেশ আদরের। সকালে শীতের আমেজ। রোদ ঝলমল। বিকেলে হাল্কা ঠান্ডার উলের হাফ শোয়েটার। রমজান মাস আসছে।তারই আনন্দমুখর ট্রেলার শবেবরাত। স্মৃতি গুলো আজও মনে বাঁসা করে আছে। ক্ষনে ক্ষনে ঝিলিক দেয়। মনের অতল গভীরে কিজানি আবার মিলিয়েও যায়। মধুর ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

Arijit Guha প্রদত্ত সর্বশেষ দু পয়সা

লেখকের আরও পুরোনো লেখা >> RSS feed

মহাভারতে উদারতার আত্তীকরণ

চন্দ্রবংশজাত বিখ্যাত রাজা পুরুরবার পুত্র ছিল আয়ু। আয়ু হয়ত তত বিখ্যাত হতেন না, যদি না তিনি এক বিখ্যাত পুত্রসন্তানের জন্ম দিতেন। পুরাণে মহারাজ আয়ুকে সাধারণত ত্রিভুবন জয়ী রাজা নহুশের পিতা হিসেবেই দেখা হয়। পুত্রের পরিচয়য়েই মহারাজ আয়ু বিখ্যাত। নহুশের জন্মকাহিনী অনেকটা পুরনো দিনের হিন্দি সিনেমার মত। আয়ু ও ইন্দুমতীর কিছুতেই সন্তান জন্মাচ্ছে না। এক মুনির আশীর্বাদে একটি স্বর্গীয় ফল ইন্দুমতী খাওয়ার পর তিনি গর্ভধারণ করেন। এক দৈত্য দৈববলে জানতে পারে আয়ু আর ইন্দুমতীর যে পুত্র জন্মাবে তার হাতেই সেই দৈত্যের মৃ

the accidental prime minister রিভিউ

২০০৫ সালের মে মাসে ইউপিএ সরকারের প্রথম বর্ষপূর্তিতে হঠাৎ একটা খবর উঠতে শুরু করল যে প্রধাণমন্ত্রী সব ক্যাবিনেট মিনিস্টারের একটা রিপোর্ট কার্ড তৈরি করবেন।মনমোহন সিং যখন মস্কোতে, এনডিটিভি একটা স্টোরি করল যে নটবর সিং এর পারফর্মেন্স খুব বাজে এবং রিপোর্ট কার্ডে নাকি তাঁর নাম সবার শেষে এসেছে এতই বাজে নাম্বার পেয়েছেন উনি।নটবর সিং খবরটা শুনে খুব আহত হলেন।অসুস্থতাজনিত কারণে ছুটিও নিয়ে নিলেন।মস্কোতে মনমোহন সিং এর কানে খবরটা পৌঁছাতে মিডিয়া অ্যাডভাইজারকে উনি বললেন খোঁজ নিতে এনডিটিভি কি রিপোর্ট করেছে।সব শোনার

অর্ধেক আকাশ

দিল্লির রাস্তা আজ লালে লাল।দিল্লি আজ লালঝান্ডার দখলে।মিছিলের ছবি আর ভিডিওগুলো দেখছি আর মনে মনে একটু আপশোষ হচ্ছে।ব্যক্তিগত কারনের জন্য এবার যেতে পারলাম না বলে।শ্রমিক কৃষক মহিলা কারা নেই সেই মিছিলে!বিশেষ করে মহিলারা! দৃপ্ত পদক্ষেপে এগিয়ে আসা তাদের ছবি আমাকে টেনে নিয়ে যাচ্ছে গতবছরের এক দৃশ্যে।গতবছর নভেম্বরে ট্রেড ইউনিয়নগুলোর যৌথ প্ল্যাটফর্মের ডাকে তিনদিনের ধর্না দেওয়া হয়েছিল পার্লামেন্ট স্ট্রিটে সংসদের শীতকালীন অধিবেশন শুরুর দিনে।তো সেই ধর্নায় যোগ দেওয়ার জন্য আমাদের সংগঠনের ৪০ জনের একটা দল চেপে

জ্ঞানের বিপ্লব- মানব ইতিহাসের শুরু

জর্জ অরওয়েলের খুব বিখ্যাত একটি উপন্যাস আছে অ্যানিলাম ফার্ম বলে।আমার খুব প্রিয় বই এটি।কমিউনিস্ট বিরোধী প্রোপাগান্ডার মধ্যে একদম ওপরের সারিতে রয়েছে এই বইটি।বইটিতে রূপকের মাধ্যমে একটা কমিউনিস্ট দেশের আভ্যন্তরীণ নানা সমস্যা দুর্বলতাকে তুলে ধরা হয়েছে।মূলত আক্রমণটা করা হয়েছিল সোভিয়েত ইউনিয়নকে।বইটার ন্যারেটিভের জন্য নয়, আমার ভালো লাগার কারন ফর্মটার জন্য।ম্যানর ফার্মের সব জন্তুরা একবার ওল্ড মেজর যে নাকি একটা শুয়োর ছিল তার নেতৃত্বে একটা মিটিং এ বসল।সেখানে মানুষকে তাদের শত্রু হিসেবে চিহ্নিত করা হল আর মিস্

বুলবুল-এ-হিন্দ

পাকিস্তান তৈরি হওয়ার পর পাকিস্তান ক্রিকেট দলের প্রথম ভারত সফর।সাল ১৯৫২। প্রথম টেস্ট দিল্লিতে।পাকিস্তান দাঁড়াতেই পারল না।ইনিংস ডিফিট।ভারত জয়ী এক ইনিংস সত্তর রানে।লখনৌর দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচে টসে জিতে পাকিস্তান নামল ব্যাট করতে।প্রথম ইনিংসে তুলল ৩৩১ রান।নজর কাড়ল পাকিস্তানের ওপেনিং ব্যাটসম্যান নজর মহম্মদ।ওপেন করে পুরো ইনিংস শেষ হওয়া অব্দি নট আউট থেকে ১২৪ রানের দুর্ধর্ষ ঝকঝকে ইনিংস খেলে যখন প্যাভিলিয়নে ফিরছিল তখন পুরো পাকিস্তান সেই ছেলেটাকে নিয়ে ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখলেও, এমনকি নিজেও নিজের কেরিয়ারের প্র

ক্যানভাস(ছোট গল্প)

#ক্যানভাস


সন্ধ্যে ছটা বেজে গেলেই আর অফিসে থাকতে পারে না হিয়া।অফিসের ওর এনক্লেভটা যেন মনে হয় ছটা বাজলেই ওকে গিলে খেতে আসছে।যত তাড়াতাড়ি পারে কাজ গুছিয়ে বেরোতে পারলে যেন হাঁপ ছেড়ে বাঁচে।এই জন্য সাড়ে পাঁচটা থেকেই কাজ গোছাতে শুরু করে।ছটা বাজলেই ওর ডেক্সের কম্পিউটার লগ অফ হয়ে যায়।এই রোগটা কয়েকমাস ধরে শুরু হয়েছে।আগে এটা ছিল না।একসময় এরকমও হয়েছে আটটা সাড়ে আটটা বেজে গেছে, অথচ হিয়া কম্পিউটারে মুখ গুঁজে পড়ে রয়েছে।বাকি সব কলিগরা বেরিয়ে গেছে, ওর কোনো ভ্রুক্ষেপ নেই।অবশেষে সিকিউরিটি এসে যখন

এক অজানা অচেনা কলকাতা

১৬৮৫ সালের মাদ্রাজ বন্দর,অধুনা চেন্নাই,সেখান থেকে এক ব্রিটিশ রণতরী ৪০০ জন মাদ্রাজ ডিভিশনের ব্রিটিশ সৈন্য নিয়ে রওনা দিলো চট্টগ্রাম অভিমুখে।ভারতবর্ষের মসনদে তখন আসীন দোর্দন্ডপ্রতাপ সম্রাট ঔরঙ্গজেব।কিন্তু চট্টগ্রাম তখন আরাকানদের অধীনে যাদের সাথে আবার মোগলদের আদায় কাচকলায় সম্পর্ক।দুর্ধর্ষ আরাকানদের মোগলরা কিছুতেই পরাজিত করতে পারে নি।রণতরীটি চট্টগ্রামে গিয়ে অন্য ডিভিশনের সেনাদের সাথে যোগ দেবে।তার কারন ব্রিটিশদের সাথে মোগলদের বাঙলাপ্রদেশ নিয়ে এক স্বার্থের সংঘাত ঘটেছে,সেই সংঘাত মেটাতেই ব্রিটিশরা আরা

ভারতবর্ষ

গতকাল বাড়িতে শিবরাত্রির ভোগ দিয়ে গেছে।একটা বড় মালসায় খিচুড়ি লাবড়া আর তার সাথে চাটনি আর পায়েস।রাতে আমাদের সবার ডিনার ছিল ওই খিচুড়িভোগ।পার্ক সার্কাস বাজারের ভেতর বাজার কমিটির তৈরি করা বেশ পুরনো একটা শিবমন্দির আছে।ভোগটা ওই শিবমন্দিরেরই।ছোটবেলায় ঠাকুমার সাথে বাজারে গেলেই মন্দিরের ঘন্টা বাজিয়ে আসতাম।চরণামৃতর সাথে দুটো নকুল দানা ছিল ফ্রি।নতুন কেউ বাজারে এলে চট করে মন্দিরটা খুঁজে পাবে না।মেন এন্ট্রান্স দিয়ে ঢুকে বাঁ দিকে গেলে প্রথমে মাছের বাজার পড়বে।মাছের বাজার ছাড়িয়ে সবজি বাজারের দিকে একটু এগোলে বাঁ দ

টুকরো ঘটনা

সকালে উঠেই জয়রাজ ভট্টচার্যের এই পোষ্টটা পেলাম।এর সাথে আমারও কিছু কথা মনে পড়ে গেল।আগে ওর লেখাটা দিই।

গনেশ ঘোষের তখন বাহাত্তর তিয়াত্তর বছর বয়স, সিদ্ধার্থর সরকার রাজ্যে, দক্ষিণ কলকাতা কেন্দ্রে তাঁকে হারিয়েই প্রিয়রঞ্জন প্রথমবার সাংসদ। কিছু চ্যাংড়া কংগ্রেসি কালী পুজোর চাঁদা চাইতে বাড়িতে গেছে। তার বিখ্যাত অতি নম্র গলায় গনেশ ঘোষ বলেন- আমি তো কম্যুনিস্ট, পুজোতে চাঁদা দিই না, আপনারা কোন সমাজকল্যাণের কাজে চাঁদা চাইলে নিশ্চই দেবো। মানুদা, প্রিয়দার জমানা, কাটা পাইপের ছিটকিনি লাগানো মেশিন বের

১৯৪৬, এক ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের বছর

সদ্য তখন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হয়েছে।ফ্যাসিস্ট বাহিনীর চূড়ান্ত পরাজয় ঘটেছে।পৃথিবীর ইতিহাসে এক যুগসন্ধিক্ষণ।পৃথিবী জুড়ে সব মানুষের বাধ ভাঙা উচ্ছ্বাস। যারা যারা যুদ্ধে নিজের প্রিয়জনকে হারিয়েছে, তারাও এই বিভৎসতার শেষে হাপ ছেড়ে বেঁচেছে।সারা পৃথিবীর মুক্তিকামী মানুষ এই যুদ্ধে চেয়েছিল হিটলারের পরাজয়।কারন পৃথিবী নিয়ন্ত্রণের ভার এক উন্মাদের হাতে পরলে সে যে কী ভয়াবহ অবস্থা হত তার ধারণাও করা যায় না।
কিন্তু বাংলায়, তখনকার অবিভক্ত বাংলা প্রদেশে অবস্থাটা একটু অন্যরকম।ভারতে তখন চলছে ব্রিটিশ শাসন, আর ব
>> লেখকের আরও পুরোনো লেখা >>

এদিক সেদিক যা বলছেনঃ

08 Sep 2018 -- 01:33 PM:মন্তব্য করেছেন
অনেকদিন পর বামপন্থীদের নিয়ে স্বপ্ন দেখছি।হমারা লড়াই জারি রহেগা।চাবুক।
08 Sep 2018 -- 01:33 PM:মন্তব্য করেছেন
অনেকদিন পর বামপন্থীদের নিয়ে স্বপ্ন দেখছি।হমারা লড়াই জারি রহেগা।চাবুক।
05 Sep 2018 -- 10:15 PM:মন্তব্য করেছেন
https://postimg.cc/image/qf9lcq4c1/d8103210/
05 Sep 2018 -- 10:15 PM:মন্তব্য করেছেন
https://postimg.cc/image/i9rjef36p/98735ced
05 Sep 2018 -- 10:14 PM:মন্তব্য করেছেন
https://postimg.cc/image/cx2p0qa9t/dc1a080d
05 Sep 2018 -- 10:14 PM:মন্তব্য করেছেন
https://postimg.cc/image/9dgrasx8h/54b5618d
05 Sep 2018 -- 10:13 PM:মন্তব্য করেছেন
https://postimg.cc/image/9q85gwuwx/d8989133/
05 Sep 2018 -- 09:42 PM:মন্তব্য করেছেন
আমার এই লেখাটা পুরোটাই প্রায় হারারি থেকেই নেওয়া হ্যাঁ, মানুষের প্রজাতি(শুধু সেপিয়েন্স নয়, পুরো মানব ...
26 Mar 2017 -- 07:52 PM:ভাটে বলেছেন
বারো তেরো বছর আগেকার কথা।তখন হৈ হৈ করে দুর্গা পুজো কালি পুজোর চাঁদা তুলতাম।একবার হয়েছে কি যে যে বাড়ি ...
23 Mar 2017 -- 07:12 PM:ভাটে বলেছেন
এটা যুদ্ধ। হ্যা যুদ্ধই এটা।যুদ্ধে কোনো আত্মীয় স্বজন বন্ধু বান্ধব হয় না।সবাই শত্রুপক্ষ।নাহ, আমার কথা ...
16 Mar 2017 -- 06:42 PM:টইয়ে লিখেছেন
#টুকরোটাকরা_৩ আগেরদিন গৌরীদেবি আর কুঞ্জলাল গাঙ্গুলির গল্প বলেছি।আজ তাদের ছেলে কিশোরক ...
16 Mar 2017 -- 06:41 PM:টইয়ে লিখেছেন
@pi ওনার বম্বে টকিজে কাজ করার সময় যে অভিজ্ঞতা হয় তাই নিয়ে একটা ছোট গল্প লিখেছিলেন।সেই গল্পের কথাই বল ...
15 Mar 2017 -- 07:26 PM:টইয়ে লিখেছেন
#টুকরোটাকরা_২ ভাগলপুরের 'রাজা' উপাধিধারী উকিল শিবচন্দ্র ব্যানার্জির ছেলে উকিল সতীশচন্দ্র ...
15 Mar 2017 -- 06:05 PM:ভাটে বলেছেন
#টুকরোটাকরা_২ ভাগলপুরের 'রাজা' উপাধিধারী উকিল শিবচন্দ্র ব্যানার্জির ছেলে উকিল সতীশচন্দ্র ...
13 Mar 2017 -- 10:10 AM:টইয়ে লিখেছেন
#টুকরোটাকরা_১ বম্বে টকিজের ব্যানারে হিমাংশু রায়ের অনেক ছবির গল্পকার ও চিত্রনাট্যকার ছিলে ...
13 Mar 2017 -- 09:48 AM:টই খুলেছেন
টুকরোটাকরা ১
12 Oct 2016 -- 05:46 PM:টইয়ে লিখেছেন
'ওম শ্রী শ্রী দুর্গা মাতা সহায় নমঃ' পরপর পাঁচবার। ওম শ্রী শ্রী সরস্বতী মাতা সহায় নমঃ
12 Oct 2016 -- 05:44 PM:টই খুলেছেন
দশমীর পরের দিন