Ashoke Mukhopadhyay RSS feed

Ashoke Mukhopadhyayএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • ফেসবুক একাউন্ট
    ঘর ঝাঁট দিতে এসে কাজের মেয়ে নিচু গলায় বললো, আপা! আমার রিকোয়েস্টটা এক্সেপ্ট করেন। আমি হতভম্ব গলায় বললাম, কিসের রিকোয়েস্ট?-ফেসবুক। রিকোয়েস্ট পাঠাইছি।: ও আচ্ছা! নাম কি?-ড্যাডিস প্রিন্সেস শাপলা!আমি নিজেকে সামলালাম।‌ এত অবাক হ‌চ্ছি কেন? কিছুদিন আগেই তো ...
  • ব্যালেন্স
    ছুটতে ছুটতে বাসের দরজার হাতলে হাত পেয়ে গেল স্মিতা। পাদানিতে পা রেখে আস্তে ছুঁড়ে দিল নিজেকে ভেতরে। জানলা থেকে রে রে করে ওঠা মুখগুলো এবার সোচ্চার, " এমনি করে কেউ ওঠে? বাড়িতে কেউ নেই নাকি?" মাথা নিচু করে সামনের দিকে এগিয়ে যায় স্মিতা। ড্রাইভারের পেছনের দরজায় ...
  • রুপচর্চা
    প্রোফাইল পিক আপডেট দেয়ার কিছুক্ষণ পর‌ই এক নামকরা বিউটিশিয়ান ফেসবুক ফ্রেন্ড আপু আমাকে নক দিলেন,-হ্যালো! একটা কথা জানতে পারি?আমি রিপ্লাই দিলাম, শিওর আপু,বলেন।আপু-কি ক্রিম ইউজ করোআমি একটা চশমাপরা ইমোজি দিয়ে রিপ্লাই দিলাম, ফেয়ার এন্ড লাভলী।আপু মেসেজ সিন ...
  • সমাজ গঠনের জন্য নৈতিক ঈশ্বরের প্রয়োজন হয়নি, সমাজের জটিলতাই নির্ধারণ করেছে ধর্মকে
    ধর্মের গুরুত্ব কী - এই প্রশ্নের উত্তরে অনেকেই বলে থাকেন সমাজের স্থিতিশীলতা ও নৈতিকতা রক্ষা করা, অনেকে বলেন যদি ধর্ম না থাকে তবে মানুষ অনৈতিক কাজ করা শুরু করবে। কেউ খারাপ কাজ করলে ইহকালে বা পরকালে তার শাস্তি হবে, আর ভাল কাজ করলে তিনি পুরস্কৃত হবেন এটা ...
  • সাইকো
    কয়েকদিন ধরে আমি প্রচন্ড আতঙ্কে আছি। ভয়ে রাতে ঘুমাতে পারি না।‌ সারাটা দিন অদ্ভুত এক অনুভূতি কাজ করে নিজের মধ্যে। কেন‌ জানিনা আমার মন বলছে আমার বর আমাকে খুন করবে। এটা মনে হ‌ওয়ার পেছনে কোনো যুক্তি নাই। আমার বর খুব ভালো একজন মানুষ।‌ নরম-সরম,কখনো‌ কোনো ...
  • জুম চাষ: একটি সংক্ষিপ্ত পর্যালোচনা
    [ও ভেই যেই বেক্কুনে মিলি জুম কাবা যেই/পূব ছড়া থুমত বর রিজেভ' টুগুনোত/ পুরান রাঙ্গা ভূঁইয়ানি এবার বলি উত্যে হোই চেগার/ সে জুমোনি এ বঝরত মিলিমুলি খেই।...চাকমা কবিতা...ও আমার ভাই বন্ধুরা চল চল সকলে মিলে জুম কাটতে যাই/ বড় বড় পাহাড়ের চূড়ায়/ দূরের পূর্ব ...
  • দুটি বই
    ইতিহাসে যদি প্রশ্ন আসত, "অ্যামেরিকার স্বাধীনতা যুদ্ধে ছিয়াত্তরের মন্বন্তরের প্রভাব আলোচনা করো" আমি দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ফেল করতাম। কিন্তু এখন এলে এই লিখব - ১৭৫৭ সালে যুদ্ধ নামক প্রহসনে বাংলা চলে গেলে লর্ড ক্লাইভের হাতে। শাসনের থেকেও বড় কথা যথেচ্ছ শোষণের ভার ...
  • গুহাচিত্র
    গত এক বছর হল আমরা গুহাচিত্রের মাধ্যমে পরস্পরের সঙ্গে কথা বলছি। আমরা মানে আমাদের পাড়ার লোকেরা। আমরা ফ্ল্যাটের দেয়ালে গুহাচিত্র আঁকছি। আমরা ছাদের জলের ট্যাঙ্কে গুহাচিত্র আঁকছি। আমরা সর্বত্র গুহাচিত্র আঁকছি।এই গুহাচিত্র আঁকার সূচনাকালকে আমরা প্যালিওলিথিক ...
  • মৃত্যুর চার ঘণ্টা পরও মৃত শূকরের মস্তিষ্কের কার্যকারিতাকে আংশিকভাবে ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হলেন বিজ্ঞানীগণ! মৃত্যুর ধারণা নিয়ে শুরু হল নতুন বিতর্ক…
    https://ichef.bbci.c...
  • আমার ছেলেবেলার শবেবরাত
    ছেলেবেলার শবেবরাতগুলো ছিল বেশ আদরের। সকালে শীতের আমেজ। রোদ ঝলমল। বিকেলে হাল্কা ঠান্ডার উলের হাফ শোয়েটার। রমজান মাস আসছে।তারই আনন্দমুখর ট্রেলার শবেবরাত। স্মৃতি গুলো আজও মনে বাঁসা করে আছে। ক্ষনে ক্ষনে ঝিলিক দেয়। মনের অতল গভীরে কিজানি আবার মিলিয়েও যায়। মধুর ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

বিজ্ঞানের অ(নেক?)-ক্ষমতা # পর্ব-৫

Ashoke Mukhopadhyay

[৭] অপরাবিদ্যা

শেষ করার আগে জরুরি কথাগুলো আর একবার সারসংক্ষেপ করে বলি। ধর্মীয় আধ্যাত্মিক ধারণাগুলো কেন বিজ্ঞানের খাতায় পাওয়া যাবে না—বুঝে নেবার জন্য। ধর্ম এবং অধ্যাত্মবাদের তুলনায় বিজ্ঞান খুবই দুর্বল এবং ভিরু প্রকৃতির। ঈশ্বর আত্মা পরমাত্মা পুনর্জন্ম ব্রহ্ম জাতীয় অত্যন্ত গুরুগম্ভীর জটিল জিনিসগুলি প্রমাণ করার মতো মালমশলা বা সাহস কোনোটাই এর নেই। এটা তার নিতান্তই সীমাবদ্ধতা, বা অক্ষমতাও বলা যায়!

ধর্ম ও আধ্যাত্মিক সাধনায় জ্ঞানলাভ করা এক দিক থেকে কত সহজ। এক একজন মুনি ঋষি সাধু সন্ত পির পয়গম্বর একবার কিছুক্ষণ ধ্যানে বসলেই অনায়াসে জগত সংসারের যাবতীয় নিগূঢ় রহস্যের সুগভীর মর্মার্থ জেনে ফেলতে পারেন। শুধু বর্তমান নয়, ভূত এবং ভবিষ্যতও তখন তাঁদের নখদর্পণে চলে আসে। সেই জ্ঞান আর দু তিন হাজার বছরেও পুরনো হয় না। তাজা এবং অটুট থাকে। তাঁদের এই ক্ষমতা সত্যিই ঈর্ষণীয়! বিজ্ঞানের বা বিজ্ঞানীদের যদি এরকম ক্ষমতা থাকত, তাহলে আমাদের যে কত সুবিধা হত বলে বোঝানো যাবে না। অথবা, এক এক যুগের সাধু সন্তরা যদি ধ্যানে বসে সমকালীন বা উত্তরকালীন বিজ্ঞানের জটিল সমস্যাগুলিরও সমাধান অন্তর্দর্শন করে বলে যেতেন, তাতে দারুণ উপকার হত। কিন্তু মুশকিল হচ্ছে এই যে তাঁরা ধ্যানে বসলেই পার্থিব ছোটখাট সমস্যার কথা একেবারেই ভুলে যান। তাঁরা যাকে বলেন পরাবিদ্যা, পরম বা পারমার্থিক জ্ঞান, সেই ইশ্বর আত্মা পরমাত্মা চতুর্বর্গ মোক্ষ ইত্যাদি আধ্যাত্মিক ব্যাপারেই তাঁদের মন প্রাণ নিবেদন করে বসেন।

বিজ্ঞানীদের জানার ক্ষেত্রটি হল উপনিষদের ভাষায় অপরাবিদ্যা, নিম্ন স্তরের জড়জাগতিক ব্যবহারিক জ্ঞান। তাঁদের ধ্যানযোগের সাহায্যে জ্ঞানযোগের ক্ষমতা না থাকায় জানার গতিও খুব ধীর স্থির মন্থর। তাঁদের প্রতিটি পদক্ষেপে জড়িয়ে থাকে নানা রকম সংশয় প্রশ্ন সতর্কতা, বার বার ঘাড় ঘুরিয়ে পেছন ফিরে দেখা। খালি চোখে, হাতে নিয়ে, মনে মনে একা একা ভেবে তাঁরা কোনো কিছুর থই পান না; তাঁদের অনবরত যন্ত্রপাতির সাহায্য নিতে হয়, মাপজোক করতে হয়, আঁক কষতে হয়, কত সব হিসাব মেলাতে হয়; দশ জনে মিলে শলাপরামর্শ তথা আদান প্রদান করতে হয়, সম্মেলনে বসে তর্ক বিতর্ক করতে হয়। এত সব না করে তাঁরা অতি সামান্য ব্যাপারেও কোন জ্ঞান লাভ হয়েছে বলে ভাবতে পারেন না, জেনেছেন কিনা নিশ্চিত হতে পারেন না। এই জন্য বিজ্ঞানের পক্ষে নির্ভুল তত্ত্বে পৌঁছনো খুব কঠিন। বহু বার ভুল করে, সেই ভুল সংশোধন করে, একটু এগিয়েই সে হোঁচট খেয়ে পড়ে। আবার এর ওর হাত ধরে খানিকটা হেঁটে সে এগোতে থাকে। তার এক একটা তত্ত্বে ভুল ধরা পড়ে, পরীক্ষায় ভুল হয়, অঙ্কে অনেক সময় মিলতে চায় না। তখন দশ বিশ জনে এক জায়গায় বসে কথা বলে তর্ক করে ভুলগুলিকে বের করেন এবং শুধরে নেন। তার ভিত্তিতে সে আরও কয়েক পা এগোয়। তারপর আবার ভুল করে, ভুল ধরা পড়ে, সংশোধন হয়, আবার কিছুটা অগ্রগতি হয়। মাঝে মধ্যে এক আধজন নিউটন, ম্যাক্সওয়েল, আঁতোয়া লরেন্ত লাভোয়াশিয় (১৭৪৩-৯৪), জন ডালটন (১৭৬৬-১৮৪৪), চার্ল্‌স ডারউইন, দ্‌মিত্রি মেন্দেলিয়েভ (১৮৩৪-১৯০৭), ইভান পাভলভ (১৮৪৯-১৯৩৬), মারি কুরি (১৮৬৭-১৯৩৪), আলবার্ট আইনস্টাইন, প্রমুখ এসে হয়ত এক একটা ক্ষেত্রে অনেকটা করে এগিয়ে দেন। এই ভাবেই বিজ্ঞান একটু একটু করে ছোট ছোট পায়ে ক্রমাগত এগিয়ে চলেছে।

তবে আশার কথা একটাই—বিজ্ঞানের জ্ঞানভাণ্ডার ক্রমশই বেড়ে চলেছে। আজ পর্যন্ত মানুষ যা কিছু জেনেছে, এই বৈজ্ঞানিক রাস্তাতেই সম্ভব হয়েছে। বেদান্ত মতের “তত্ত্বমসি” “অহম ব্রহ্মাস্মি” “অয়মাত্মা ব্রহ্ম” “সোহহং” ইত্যাদি, কিংবা গেরস্ত মতের “তিনি করান”, “সকলই তোমারই ইচ্ছা”, “মেলাবেন তিনি মেলাবেন”, ইত্যাদি ধর্মীয় আধ্যাত্মিক জ্ঞানগর্ভ মন্ত্রের দ্বারা মানুষের জ্ঞানভাণ্ডার জ্ঞানজগতের কোনো শাখাতেই এক দানাও বাড়েনি। একটু রূঢ় শোনালেও কথাটা বোধ হয় অস্বীকার করা যাবে না।
তবু ঘটনা হল, বিজ্ঞানীরাও এই গ্রহেরই বাসিন্দা। এই গ্রহের সামাজিক সাংস্কৃতিক ইতিহাসেরই তাঁরা ফসল। তাঁদের অনেকেই ছোটবেলা থেকে যে ধর্ম বিশ্বাস কুসংস্কারের আবহাওয়ায় বড় হয়ে ওঠেন, বিজ্ঞানের জগতে ঢুকেও তার সবটা মন থেকে ধুয়ে মুছে ফেলতে পারেন না। তখন তাঁদের কারোর কারোর ইচ্ছা হয়, বিজ্ঞানের পরিভাষা দিয়েই ঈশ্বর বা আত্মার বর্ণনা দেওয়া যায় কিনা পরখ করে দেখতে। কাপ্রা প্রমুখ বিজ্ঞানী এবং বিজ্ঞান লেখকদের এই হচ্ছে মনস্তত্ত্ব। কিন্তু বাইবেলের সঙ্গে বিজ্ঞানের বিরোধটা ইউরোপে এতটাই চর্চিত যে বাইবেলে আধুনিক বিজ্ঞানের হদিশ আছে বলা তাঁদের কারোর পক্ষেই আজ আর সম্ভব নয়। তাই তাঁরা হাত বাড়িয়েছেন ভারতীয় বা চিনা প্রাচীন ধর্মশাস্ত্রগুলির দিকে। আর তার সাথে জুড়ে দিচ্ছেন এক নিরাধার মন্তব্য: সব ধর্মেরই মূল কথা নাকি একই। এইভাবেই তাঁরা বাইবেলকে পাশে ঠেলে দিয়েও খ্রিস্টধর্মকেও বিজ্ঞানের পাতে পরিবেশনের প্রচেষ্টায় রত। আর এই বলার প্রয়াসকে দেখিয়েই বোধ হয় ফাইনম্যান ক্যালটেক-এর সেই সভায় বলেছিলেন, বিজ্ঞান আর ধর্মের মধ্যে সঙ্গতি সম্ভব। সত্যিই তো, বলায় কী আসে যায়? বিজ্ঞানের তো আর এতে জাত যাচ্ছে না! মাঝখান থেকে ধর্মের একটু হলেও মর্যাদা বাড়ছে। এ কি এক রকম সঙ্গতি নয়?

না। সঙ্গতি মানে এরকম সহজ সরল ব্যাপার নয়। সঙ্গতি মানে এক জায়গা থেকে অপর জায়গার জ্ঞানের খোঁজ পাওয়া যায়। এক জায়গার জ্ঞানের সাথে অপর জায়গার জ্ঞানের বিরোধ হয় না। দুটো জায়গাতেই জ্ঞানের পদ্ধতি একই রকম। ইত্যাদি। আমরা এতক্ষণ দেখে এলাম, এর কোনোটাই সত্য নয়। হ্যাঁ, বিজ্ঞানের কিছু শব্দ কি ধর্মীয় আধ্যাত্মিক আলোচনার ভেতরে গুজে দেওয়া যায় না? নিশ্চয়ই যায়। ইলেকট্রনের স্পন্দন আর নটরাজের নাচের মধ্যে কি কবিরা সাদৃশ্য দেখতে পারেন না? নিশ্চয়ই পারেন। তাতেও সেটা বিজ্ঞান হয় না। অধ্যাত্মবাদই থাকে, কবিতাই হয়। ঘন কালো মেঘপুঞ্জের মধ্যে ঘন কালো কেশদামের তুলনা করে, তার মধ্যে গতি আর তরঙ্গের খেলা দেখিয়ে, ভালো কবিতা অবশ্যই লেখা যায়। কিন্তু তাতে মেঘ বা চুলের কোনোটারই বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা দাঁড়ায় না! আবেগের সমন্বয় আর জ্ঞানের সঙ্গতি একেবারেই আলাদা জিনিস।

ফাইনম্যানও আসলে খুব সূক্ষ্মভাবে সেই কথাটা ধরাতে চেয়েছিলেন। বলেছিলেন, বিজ্ঞানীরা যদি বিজ্ঞানের মতো করে ঈশ্বরে বিশ্বাস করতে চান, তাহলে তাঁদের বলতে হবে, হ্যাঁ, ভগবান একজন থাকার সম্ভাবনা সত্যিই আছে। ধার্মিক লোকেদের মতো করে তাঁরা কখনই বলবেন না, “ভগবান আছেই”।

ওনার মুখেই বাকিটা শোনা যাক: “Although there are scientists who believe in God, I do not believe that they think of God in the same way as religious people do. If they are consistent with their science, I think that they say something like this to themselves: "I am almost certain there is a God. The doubt is very small." That is quite different from saying, "I know that there is a God." I do not believe that a scientist can ever obtain that view—that really religious understanding, that real knowledge that there is a God—that absolute certainty which religious people have.” আর সেই সঙ্গেই তিনি বলেছিলেন, “This very subtle change is a great stroke and represents a parting of the ways between science and religion.”

অর্থাৎ, বিজ্ঞানীরা ঈশ্বরের কথা বলতে বসেও ধর্মের রাস্তায় যান না, বিজ্ঞানের রাস্তাতেই থাকেন। সঙ্গতি-টঙ্গতির কথা বলতে বলতেই ফাইনম্যান বুঝিয়ে দিলেন, দুটো জায়গার জ্ঞানন পদ্ধতি একেবারেই আলাদা। রসিক মানুষ তো! যারা ভোজ দিয়েছে, ভালো মন্দ খাওয়াচ্ছে, তাদের মন রেখেই কথাগুলো বললেন, আবার বেশ কায়দা করে বিজ্ঞানের মূল শিক্ষাটাও শ্রোতাদের মাথায় ঢুকিয়ে দেবার একটা চেষ্টা করলেন!!

তবে হ্যাঁ।

এই যে ইদানীং বারবার বিজ্ঞানের সঙ্গে ধর্মের সমন্বয়ের চেষ্টা হচ্ছে, এতে একটা জিনিস খুব প্রকট হয়ে উঠেছে: ধর্ম অধ্যাত্মবাদ এখন এক পরিচয় সঙ্কটে পড়েছে। তার নিজস্ব শব্দভাণ্ডার দিয়ে সে আজ আর তার ঐশ্বরিক অধ্যাত্মবিদ্যার মহিমা আগের মতো প্রকাশ করতে বা বজায় রাখতে পারছে না। বিজ্ঞানের মতো অপরাবিদ্যার পার্থিব জড় জ্ঞানের শব্দভূষণ পেলে তার ভালো হয়, মর্যাদা বাড়ে। কিন্তু বিজ্ঞান এক্ষেত্রে একেবারে নিরুপায়। এই অবস্থায় কোনো পির পয়গম্বর বা অবতার এসে একটা রাস্তা বাতলাতে পারলে ধর্মকে বাঁচাতে সুবিধা হবে। তার বদলে, বিজ্ঞানের কাছে ঈশ্বর আত্মা ব্রহ্মের ব্যাপারে সমর্থন চাইলে তাকে খামোখা লজ্জা দেওয়া হবে। এই সমস্ত বিরাট বিরাট ভাবগম্ভীর বিষয় তার পরিধিরও বাইরে, ক্ষমতারও বাইরে। █

গ্রন্থপঞ্জি

বাংলা

স্বামী অভেদানন্দ (১৯৮৬), মরণের পারে (১৪শ পুনর্মুদ্রণ); শ্রীরামকৃষ্ণ বেদান্তমঠ, কলকাতা।

শৈবাল গুপ্ত (১৯৯৩), “রাজনীতি বিজ্ঞান ধর্ম নৈতিকতা”; দেশ, বর্ষ ৬০ সংখ্যা ১৬, ৫ জুন ১৯৯৩।

অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুর (১৯৮৩), বাংলার ব্রত; বিশ্বভারতী, কলকাতা।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর (১৯৬১ক), “শেষের কবিতা”, রবীন্দ্ররচনাবলী (জন্মশতবার্ষিক সংস্করণ), ৯ম খণ্ড; পশ্চিম বঙ্গ সরকার, কলকাতা।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর (১৯৬১খ), “পূজারিণী”, রবীন্দ্ররচনাবলী (জন্মশতবার্ষিক সংস্করণ), ১ম খণ্ড; পশ্চিম বঙ্গ সরকার, কলকাতা।

সত্যেন্দ্রনাথ বসু (১৯৯২), “গালিলিও” এবং “শিক্ষা ও বিজ্ঞান”; সত্যেন্দ্রনাথ বসু রচনা সঙ্কলন; বঙ্গীয় বিজ্ঞান পরিষদ, কলকাতা।

স্বামী বিবেকানন্দ (১৯৮৯ক), “গীতা প্রসঙ্গ”; স্বামীজীর বাণী ও রচনা, ৮ম খণ্ড; উদ্বোধন কার্যালয়, কলকাতা।

স্বামী বিবেকানন্দ (১৯৮৯খ), “দেববাণী”; স্বামীজীর বাণী ও রচনা, ৪র্থ খণ্ড; উদ্বোধন কার্যালয়, কলকাতা।

স্বামী বিবেকানন্দ (১৯৮৯গ), “জাফনায় বক্তৃতা--বেদান্ত” এবং “আর্য ও তামিল”; স্বামীজীর বাণী ও রচনা, ৫ম খণ্ড; উদ্বোধন কার্যালয়, কলকাতা।

অশোক মুখোপাধ্যায় (২০১৩), বিজ্ঞান বিজ্ঞানী ও সমাজ; উত্তরণ সমাজ, বহরমপুর।

অশোক মুখোপাধ্যায় (২০১৭), “গণিতশাস্ত্রের পরিচয় রহস্য”; নেহাই, ৫ম সংখ্যা, মার্চ ২০১৭।

প্রফুল্লচন্দ্র রায় (২০০১), “জাতিভেদ সমস্যা” এবং “জাতিভেদ—হিন্দু সমাজের উপর তাহার অনিষ্টকর প্রভাব”; শ্যামল চক্রবর্তী (সম্পাদিত), আচার্য প্রফুল্লচন্দ্রের প্রবন্ধ; আজকাল, কলকাতা।

মেঘনাদ সাহা (১৯৮৬), “সমালোচনার উত্তর” এবং “উপসংহার”; শান্তিময় চট্টোপাধ্যায় (সম্পাদিত), মেঘনাদ রচনা সঙ্কলন; ওরিয়েন্ট লংম্যান, কলকাতা।

সমরেন্দ্র নাথ সেন (১৯৯৪), বিজ্ঞানের ইতিহাস (অখণ্ড), ২য় খণ্ড; শৈব্যা প্রকাশন, কলকাতা।

শ্রীশ্রী রামকৃষ্ণ কথামৃত (১৯৮৬), পীযুষ কান্তি চট্টোপাধ্যায় (সম্পাদিত), দিনানুক্রমিক সংস্করণ; দেব সাহিত্য কুটির, কলকাতা।

ইংরেজি

W. W. Rouse Ball (2003), “Pierre Simon Laplace (1749-1827)”; in A Short Account of the History of Mathematics; Dover, New York (first published in 1908).

Mani Bhaumik (2006), Code Named God; Penguin Books India, New Delhi.

Bernardino M. Bonansea (1986), “Campnella’s Defence of Galileo”; W. A. Wallace (Edited), Reinterpreting galileo; Catholic University of America Press, Washington D.C.

Fritjof Capra (1978), The Tao of Physics; Collins.

Fritjof Capra (1988), The Turning Point; Fontana Paperbacks, London.

Edward Clodd (1905), Animism: The seed of religion; Constable & Co., London.

E. B. Cowell and A. E. Gough (1882, trans.), Sarva-Darsana-Sangraha by Madhava Acharya; Trübner & Co. London. Available on-line at: https://archive.org/stream/sarvadarsanasamg035018mbp#page/n23/mode/2up

Paul Davies (1984), God and the New Physics; Simon and Schuster, New York.

Paul Davies (1992), The Mind of God; Simon and Schuster, New York.

Frederick Engels (1974), Dialectics of Nature; Progress Publishers, Moscow.

Richard P. Feynman (1956), "The Relation of Science and Religion" (transcript of a talk at the Caltech YMCA Lunch Forum on May 2, 1956).
http://calteches.library.caltech.edu/49/2/Religion.htm

Frank Gaglioti (2000), “A man of insight and courage: Giordano Bruno, philosopher and scientist”; World Socialist Website, 2000: http://www.wsws.org/en/articles/2000/02/brun-f16.html

Ernst Häckel (1934), The Riddle of the Universe; Watts & Co., London.

Swami Jitatmananda (1986), Modern Physics and Vedanta; Bharatiya Vidya Bhavan, Mumbai.

Swami Jitatmananda (1991), Holistic Science and Vedanta; Bharatiya Vidya Bhavan, Mumbai.

Nrishingh Charan Panda (1991), Maya In Physics; Motilal Baranasi Dass, Delhi.

Amaury de Riencourt (1980), The Eye of Shiva: Eastern Mysticism and Science; William Morrow, New York.

Michael Talbot (1993), Mysticism and the New Physics; Penguin Books.

Frank J. Tipler (1994), Physics and Immortality: Modern Cosmology, God and the Resurection of the Dead; Doubleday, New York.

F. M. A. Voltaire (1935), Selected Writings; Watta & Co., London.

Gary Zukav (1979), The Dancing Wu Li Masters; Bantam Books, New York.


68 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন



আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন