Debasis Bhattacharya RSS feed

Debasis Bhattacharyaএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • দুই বাংলায় এক সাথে নববর্ষ পালন করা প্রসঙ্গে তসলিমা নাসরিনের ফেসবুক স্ট্যাটাসের প্রতিক্রিয়া :
    গত ১৪ এপ্রিল তসলিমা নাসরিন তার ফেসবুক পেজে নববর্ষ পালন নিয়ে একটা পোস্ট লিখেছেন। উনার দেশের বাইরে থাকা নিয়ে আহাজারি আছে, থাকাটা খুব স্বাভাবিক। দেশে আসতে না পারার তীব্র বেদনা অনুভব করা যায় উনার প্রায় লেখাই। উনার এই কষ্ট নিয়ে কিছু বলার নাই। আশাবাদ করতে পারি ...
  • জোড়াসাঁকো জংশন ও জেনএক্স রকেটপ্যাড-৫
    বিংশ শতকের শুরুতে সম্ভ্রান্ত বাঙালির অন্দরমহলে আরো অনেক কিছুর সঙ্গে রবীন্দ্রসঙ্গীতকে কেন্দ্র করে একটা অন্য ধরনের সামাজিক মন্থনও শুরু হয়েছিলো । অমলা দাশ ছিলেন বিখ্যাত দুর্গামোহন দাশের ভাই ভুবনমোহন দাশের কন্যা ও দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জনের ভগ্নী। এছাড়া তিনি ...
  • নোতরদাম ক্যাথিড্রালে অগ্নিকাণ্ড, সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতি, এর স্থাপত্য ও সংস্কারের কিছু ইতিহাস এবং একটি দার্শনিক প্রশ্ন
    https://cdn.iflscien...
  • ফেক আইডি
    ‍ছয়মাস ফেসবুকে প্রেম করার পর আজ প্রথম দেখা করতে এসেছি। রেস্টুরেন্টে বসে বসে পানি খাচ্ছি আর পাশের মেয়েটার দিকে আড়চোখে তাকাচ্ছি। আমার মতো সেও কারোর জন্য অপেক্ষা করছে। আমার নীল ড্রেস পরে আসার কথা ছিল। আমি একটা নীল রঙের কামিজ পরে এসেছি। ছেলেটার সাদা শার্ট ...
  • মৃত্যুঞ্জয়ের মৃত্যু
    মৃত্যুঞ্জয় চক্রবর্ত্তী সারা জীবনভর একদণ্ড সুস্থির ছিল না - কেবলই খুরপি কিনিতেছে! তাহার বদ্ধমূল বিশ্বাস ছিল তাহার পিতামহ, প্রপিতামহ, তস্য পিতা, তস্য পিতা, তস্য পিতা কেহ না কেহ তাহার ভিটামাটির কোন এক স্থানে বহু-বহু বৎসর পূর্বে অনেকটা গুপ্তধন পুঁতিয়া রাখিয়া ...
  • ছাতুমাখা, সাদা টেপজামা আর একলা বৈশাখ
    চৈত্র সংক্রান্তি মানেই যেমন ছাতুমাখা ছিল, তেমনি পয়লা বৈশাখ মানেই ছিল সাদা নতুন টেপজামা, সুতো দিয়ে পাখি, ফুল, দুই একটা পাতা বা ঘাস সেলাই করা। চড়কতলায় মেলা বসত চৈত্র সংক্রান্তির দিন থেকে, কিন্তু একে তো সে বাড়ী থেকে অনেক দূর, চৈত্র বৈশাখের গরমে অতদূরে কে ...
  • নববর্ষের এলোমেলো লেখা আর আগরতলার গল্প
    খুব গরম। দুপুরের ঘুম ডাকাতে নিয়ে গেছে। মনে পড়লো গতকাল অর্থাত্ হারবিষুর দিনে তেতো খাওয়া। আগের দিন বিকেলে আমার বিশালাক্ষী, চোপায় খোপায় সমান ঠাকুরমা আমাকে ভীষ্ম আর হারুকে নিয়ে সরজমিন তদন্তে নেমেছেন,--- গাঙ্গের তলে (চৈত্রের গরমে জল নেমে যাওয়া নদীর ...
  • পয়লা বৈশাখ : একটি অনার্য অডিসি
    প্রশ্নটা উঠতে দেখেছিলুম যখন বাংলা ১৪০০ সন এসে দুয়ারে কড়া নাড়ছিল। সিকি শতাব্দী আগে। তখন আমরা মত্ত ছিলুম কুসুমচয়নে। নব নব অনুষ্ঠান চারিদিকে। সঙ্গীত-সাহিত্য-ইতিহা...
  • শঙ্খ নদী: একটি সংক্ষিপ্ত পর্যালোচনা...
    এক.পাহাড়, অরণ্য, ঝর্ণা ধারায় নয়নাভিরাম, পার্বত্য চট্টগ্রামের আয়তন ৫,০৯৩ বর্গমাইল। বাংলাদেশের এক কোনে দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবান– এই তিন জেলা নিয়ে গড়ে ওঠা পার্বত্যঞ্চালে পাহাড়ি-বাঙালি মিলিয়ে আনুমানিক প্রায় ১৫ লাখ লোক বাস ...
  • করবেটের ইন্ডিয়া
    ছেলেবেলার কোন ইচ্ছে বড়বেলায় পূর্ণ হলে অনেক সময়েই তার স্বাদ খুব মুখরোচক হয়না। ছেলেবেলা থেকে ক্যাভিয়ারের নাম শুনে বড়বেলায় বেড়ালের ভাগ্যে শিকে ছিঁড়ে যখন খেতে পেলাম, তখন মনে হল, "এ বাবা, এই ক্যাভিয়ার!" সবারই বোধহয় এরকম কোন-না-কোন অভিজ্ঞতা আছে। আকাঙ্খা আর ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

মহামূর্খের দল

Debasis Bhattacharya

মূল গল্প : আইজ্যাক আসিমভ

রাইগেল গ্রহের যে দীর্ঘজীবী প্রজাতির হাতে এই গ্যালাক্সির নথিপত্র রক্ষণাবেক্ষণের ভার, সে পরম্পরায় নারন হল গিয়ে চতুর্থজন ।

দুটো খাতা আছে ওনার কাছে । একটা হচ্ছে প্রকাণ্ড জাবদা খাতা, আর অন্যটা তার চেয়ে অনেকটা ছোট । গ্যালাক্সির সমস্ত বুদ্ধিমান প্রাণিদের নাম ওঠে ওই বড় খাতাটায় । আর ছোট খাতায় স্থান পায় শুধু সেই সমস্ত প্রজাতিরা যাদের সভ্যতা খানিকটা পরিণত হয়েছে, এবং সেই সুবাদে যারা গ্যালাক্টিক ফেডারেশনে স্থান পাবার যোগ্য হয়ে উঠেছে । বড় খাতায় উঠে যাওয়া কিছু প্রাণির নাম কখনও কখনও আবার কাটাও পড়ে । মানে, কোনও না কোনও কারণে যারা শেষপর্যন্ত ব্যর্থ হয়েছে, সেইসব প্রজাতির নাম । হয়ত কোনও দুর্ঘটনায় ধ্বংস হয়ে গেছে, বা তাদের শরীরে হয়ত কোনও ভৌত বা রাসায়নিক ঘাটতি ছিল, বা তারা হয়ত মিলেজুলে শান্তিতে থাকবার মত কোনও সুস্থির সমাজ বানিয়ে উঠতে পারেনি, এই রকম সব আর কি । অবশ্য, ছোট খাতায় একবার কোনও প্রজাতির নাম উঠে গেলে সে নাম আর কাটা পড়ে না । অন্তত, আজ পর্যন্ত তেমনটা দরকার পড়েনি ।

দৈত্যাকার শরীর আর অকল্পনীয় বয়স নিয়ে বসে থাকা নারন মুখ তুলে তাকাল । সংবাদ-বাহক হাজির, নতুন সংবাদ আছে নিশ্চয়ই ।

“প্রণাম নেবেন, মহান সত্তা !” সৌজন্য-সম্ভাষণ করল সংবাদ-বাহক ।

“আরে, অত ভদ্রতা করতে হবে না । বল হে, কী খবর ?”

“আরও এক প্রজাতি পরিণতি অর্জন করেছে ।”

“দারুণ খবর হে, দারুণ খবর । বেশ দ্রুতই তো পরিণত হয়ে উঠছে সব দেখছি । প্রতি বছরই একটা না একটা এই রকম খবর আসবেই । তা, এরা কারা ?”

সংবাদ-বাহক গ্যালাক্সির কোড নম্বরটা দিল, আর সেই গ্যালাক্সিতে এদের অবস্থানের স্থানাঙ্কটাও বলে দিল ।

“আরে, হ্যাঁ, জানি তো এ গ্রহটার কথা ।” বলতে বলতে নারন প্রথম খাতায় ওদের নাম যেখানে আছে সে জায়গাটা বার করে ফেললেন, এবং সেখান থেকে সে নাম তুলে দিলেন ছোট খাতায় । গ্রহের নামটা তোলবার সময় ওই প্রাণিদের জনসংখ্যার সবচেয়ে বড় অংশ গ্রহটিকে যে নামে চেনে সেটাই লিখতে হয়, চালু রীতি এই রকমই । নারন সুন্দর টানা হাতের লেখায় লিখলেন : “পৃথিবী” । তারপর বললেন, “এই নতুন প্রাণিরা এক নজির সৃষ্টি করল । এর আগে আর কোনও প্রজাতিই বুদ্ধিমত্তার স্তর থেকে পরিণতির স্তরে এত দ্রুত পৌঁছতে পারেনি । আশা করি এ ব্যাপারে আমাদের কোনও ভুল হচ্ছে না ।”

“সত্যিই তাই মহাশয়, আর কেউই পারেনি।” সায় দিল সংবাদ-বাহক ।

“ওরা তো পরমাণু-শক্তির ব্যবহার শিখে ফেলেছে, তাই না ?”

“আজ্ঞে মহাশয়, তা শিখেছে ।”

“হুম, ওটাই তো মাপকাঠি ।” মুচকি হাসলেন নারন । “তবে তো শিগগিরই ওদের মহাকাশযান এসে ফেডারেশনের সাথে যোগাযোগ করবে, দেরি নেই আর ।”

“আসলে, মহান সত্তা”, কিঞ্চিৎ অস্বস্তির সাথে জানাল সংবাদ-বাহক, “পর্যবেক্ষকেরা জানিয়েছে, ওরা এখনও মহাকাশে যেতে পারেনি।”

বিস্মিত হলেন নারন, “একেবারেই পারেনি কি ? একটা স্পেস-স্টেশনও বানাতে পারেনি বলছ ?”

“না মহাশয়, এখনও পারেনি ।”

“কিন্তু, পরমাণু-শক্তির ব্যবহার তো শিখে গেছে বলছ । বোমা ফাটিয়ে পরীক্ষা-টরীক্ষাগুলো তবে কোথায় করে ওরা ?”

“নিজেদের গ্রহেই করে, মহাশয় ।”

“অ্যাঁ, নিজেদের গ্রহেই, বলছ কী তুমি !” ফেটে পড়ল নারনের বিস্মিত বজ্রকণ্ঠ, উত্তেজনায় তাঁর বিশফুট লম্বা দেহটি আসন ছেড়ে টান টান হয়ে দাঁড়িয়ে পড়ল ।

“আজ্ঞে হ্যাঁ মহাশয়, তাইই ।”

তাঁর কলমটি টেনে নিলেন নারন, তারপর ছোট খাতায় একটু আগেই তুলে নেওয়া সর্বশেষ সংযোজনটি ধীরেসুস্থে কেটে দিলেন । এও নজিরবিহীন, এমন কাজ তাঁকে এর আগে কখনও করতে হয়নি । কিন্তু, নারন হলেন গিয়ে মহাপ্রজ্ঞাবান । ওদের যে শেষপর্যন্ত কী দশা হবে, সেটা তাঁর চেয়ে পরিষ্কার করে আর কে-ই বা বুঝবে গোটা গ্যালাক্সিতে ?

“মহামূর্খের দল !” আপনমনে বিড়বিড় করে বললেন নারন ।

[অনুবাদ : দেবাশিস্‌ ভট্টাচার্য]


394 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: b

Re: মহামূর্খের দল

বাঃ।
Avatar: Debs

Re: মহামূর্খের দল

Silly Asses, ehh? Golpota besh bhalo lage.. Probably, one of the shortest of Asimov and very charming.. anubad ta o chomotkar hoyche..
Avatar: Debasis Bhattacharya

Re: মহামূর্খের দল

ঠিক তাই, 'সিলি অ্যাসেস' । মতামতের জন্য ধন্যবাদ, ভাল লেগেছে জেনে ভরসা পেলাম । আরও দুয়েকটি সাই-ফাই অনুবাদের ইচ্ছে রইল ।
Avatar: dc

Re: মহামূর্খের দল

রাইজেল গ্রহ না, জাতি হবে। আর এই গ্যালাক্সি না, গ্যালাক্সিগুলোর হবে। (শুধু এই গ্যালাক্সি হলে গ্যালাক্সির কোড নং দরকার হয়না)। অনুবাদ ভালো লাগলো।
Avatar: Debs

Re: মহামূর্খের দল

This is just a suggestion, but I really like " Does a bee care?" by the same author.. It's got a certain flavour.. Maybe you could do that next?.. Again, just a suggestion..
Avatar: ani

Re: মহামূর্খের দল

দারুন গল্প এবং অনুবাদ!
Avatar: Debasis Bhattacharya

Re: মহামূর্খের দল

dc, আপনি ঠিকই বলছেন, আমার ভুল হয়েছে । দুঃখিত । সংশোধন করতে পারলেই ভাল হত, কিন্তু এখানে তো সে উপায় নেই । যাই হোক, আপনাকে ধন্যবাদ ।
Avatar: Debasis Bhattacharya

Re: মহামূর্খের দল

Debs, আমি "Does a bee care?" পড়িনি । গল্পটি আকারে ছোট না হলে এই মুহূর্তে অনুবাদের সময় পাব না । পড়ে দেখার আগ্রহ হচ্ছে । কোনও লিঙ্ক দিতে পারেন ?
Avatar: Debasis Bhattacharya

Re: মহামূর্খের দল

ani, ভরসা দেবার জন্য ধন্যবাদ ।
Avatar: Atoz

Re: মহামূর্খের দল

নারায়ণ নারায়ণ। ঃ-)
চমৎকার হয়েছে।
Avatar: Atoz

Re: মহামূর্খের দল

এই গল্পের আরেকটা অনুবাদ কিছুকাল আগে পড়েছি সচলে। এই যে লিংক। ঃ-)
http://www.sachalayatan.com/guest_writer/57039
Avatar: Deb

Re: মহামূর্খের দল

বাহ্। আরো হোক।
Avatar: বিপ্লব রহমান

Re: মহামূর্খের দল

সাই ফাই সাইসাই করে উড়ুক। #ব্রেভো! 🌷
Avatar: Debasis Bhattacharya

Re: মহামূর্খের দল

লিঙ্ক-এর জন্য ধন্যবাদ, Atoz । ভাল অনুবাদ, বাংলাদেশী বাংলা ভারি মিষ্টি । তবে, নারন-এর মুখে যৌনগন্ধী গালি মোটেই ভাল লাগেনি, যতই সে বিরক্ত হয়ে থাকুক --- বিশেষত যখন ওটাই শিরোনাম । এই লিঙ্ক-টি আগে দেখিনি, তবে এপার বাংলাতেই কোনও এক ছোটোমোটো গল্প সংকলনে এটি দেখেছি বলে আবছা মনে পড়ছে ।
Avatar: সলিল

Re: মহামূর্খের দল

চমৎকার অনুবাদ। এরকম ছোট আরো অনুবাদ করো। ছোট বললাম তোমার সময়াভাবে রং কথা মনে রেখে।
Avatar: সলিল

Re: মহামূর্খের দল

সময়াভাবের
Avatar: শঙ্খ

Re: মহামূর্খের দল

বাহ
Avatar: Debasis Bhattacharya

Re: মহামূর্খের দল

ধন্যবাদ সলিলদা । ঠিকই বলেছেন, ছোট ছাড়া বড় অনুবাদের কাজ ধরা এখন খুব মুশকিল আমার পক্ষে ।


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন