স্বাতী রায় RSS feed

Swati Rayএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • দুই বাংলায় এক সাথে নববর্ষ পালন করা প্রসঙ্গে তসলিমা নাসরিনের ফেসবুক স্ট্যাটাসের প্রতিক্রিয়া :
    গত ১৪ এপ্রিল তসলিমা নাসরিন তার ফেসবুক পেজে নববর্ষ পালন নিয়ে একটা পোস্ট লিখেছেন। উনার দেশের বাইরে থাকা নিয়ে আহাজারি আছে, থাকাটা খুব স্বাভাবিক। দেশে আসতে না পারার তীব্র বেদনা অনুভব করা যায় উনার প্রায় লেখাই। উনার এই কষ্ট নিয়ে কিছু বলার নাই। আশাবাদ করতে পারি ...
  • জোড়াসাঁকো জংশন ও জেনএক্স রকেটপ্যাড-৫
    বিংশ শতকের শুরুতে সম্ভ্রান্ত বাঙালির অন্দরমহলে আরো অনেক কিছুর সঙ্গে রবীন্দ্রসঙ্গীতকে কেন্দ্র করে একটা অন্য ধরনের সামাজিক মন্থনও শুরু হয়েছিলো । অমলা দাশ ছিলেন বিখ্যাত দুর্গামোহন দাশের ভাই ভুবনমোহন দাশের কন্যা ও দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জনের ভগ্নী। এছাড়া তিনি ...
  • নোতরদাম ক্যাথিড্রালে অগ্নিকাণ্ড, সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতি, এর স্থাপত্য ও সংস্কারের কিছু ইতিহাস এবং একটি দার্শনিক প্রশ্ন
    https://cdn.iflscien...
  • ফেক আইডি
    ‍ছয়মাস ফেসবুকে প্রেম করার পর আজ প্রথম দেখা করতে এসেছি। রেস্টুরেন্টে বসে বসে পানি খাচ্ছি আর পাশের মেয়েটার দিকে আড়চোখে তাকাচ্ছি। আমার মতো সেও কারোর জন্য অপেক্ষা করছে। আমার নীল ড্রেস পরে আসার কথা ছিল। আমি একটা নীল রঙের কামিজ পরে এসেছি। ছেলেটার সাদা শার্ট ...
  • মৃত্যুঞ্জয়ের মৃত্যু
    মৃত্যুঞ্জয় চক্রবর্ত্তী সারা জীবনভর একদণ্ড সুস্থির ছিল না - কেবলই খুরপি কিনিতেছে! তাহার বদ্ধমূল বিশ্বাস ছিল তাহার পিতামহ, প্রপিতামহ, তস্য পিতা, তস্য পিতা, তস্য পিতা কেহ না কেহ তাহার ভিটামাটির কোন এক স্থানে বহু-বহু বৎসর পূর্বে অনেকটা গুপ্তধন পুঁতিয়া রাখিয়া ...
  • ছাতুমাখা, সাদা টেপজামা আর একলা বৈশাখ
    চৈত্র সংক্রান্তি মানেই যেমন ছাতুমাখা ছিল, তেমনি পয়লা বৈশাখ মানেই ছিল সাদা নতুন টেপজামা, সুতো দিয়ে পাখি, ফুল, দুই একটা পাতা বা ঘাস সেলাই করা। চড়কতলায় মেলা বসত চৈত্র সংক্রান্তির দিন থেকে, কিন্তু একে তো সে বাড়ী থেকে অনেক দূর, চৈত্র বৈশাখের গরমে অতদূরে কে ...
  • নববর্ষের এলোমেলো লেখা আর আগরতলার গল্প
    খুব গরম। দুপুরের ঘুম ডাকাতে নিয়ে গেছে। মনে পড়লো গতকাল অর্থাত্ হারবিষুর দিনে তেতো খাওয়া। আগের দিন বিকেলে আমার বিশালাক্ষী, চোপায় খোপায় সমান ঠাকুরমা আমাকে ভীষ্ম আর হারুকে নিয়ে সরজমিন তদন্তে নেমেছেন,--- গাঙ্গের তলে (চৈত্রের গরমে জল নেমে যাওয়া নদীর ...
  • পয়লা বৈশাখ : একটি অনার্য অডিসি
    প্রশ্নটা উঠতে দেখেছিলুম যখন বাংলা ১৪০০ সন এসে দুয়ারে কড়া নাড়ছিল। সিকি শতাব্দী আগে। তখন আমরা মত্ত ছিলুম কুসুমচয়নে। নব নব অনুষ্ঠান চারিদিকে। সঙ্গীত-সাহিত্য-ইতিহা...
  • শঙ্খ নদী: একটি সংক্ষিপ্ত পর্যালোচনা...
    এক.পাহাড়, অরণ্য, ঝর্ণা ধারায় নয়নাভিরাম, পার্বত্য চট্টগ্রামের আয়তন ৫,০৯৩ বর্গমাইল। বাংলাদেশের এক কোনে দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবান– এই তিন জেলা নিয়ে গড়ে ওঠা পার্বত্যঞ্চালে পাহাড়ি-বাঙালি মিলিয়ে আনুমানিক প্রায় ১৫ লাখ লোক বাস ...
  • করবেটের ইন্ডিয়া
    ছেলেবেলার কোন ইচ্ছে বড়বেলায় পূর্ণ হলে অনেক সময়েই তার স্বাদ খুব মুখরোচক হয়না। ছেলেবেলা থেকে ক্যাভিয়ারের নাম শুনে বড়বেলায় বেড়ালের ভাগ্যে শিকে ছিঁড়ে যখন খেতে পেলাম, তখন মনে হল, "এ বাবা, এই ক্যাভিয়ার!" সবারই বোধহয় এরকম কোন-না-কোন অভিজ্ঞতা আছে। আকাঙ্খা আর ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

পায়ের তলায় সর্ষে_ মেটিয়াবুরুজ

স্বাতী রায়

দিল ক্যা করে যব কিসিসে কিসিকো প্যার হো গ্যয়া - হয়ত এই রকমই কিছু মনে হয়েছিল ওয়াজিদ আলি শাহের। মা জানাব-ই-আলিয়া ( বা মালিকা কিশওয়ার ) এর জাহাজ ভেসে গেল গঙ্গার বুকে। লক্ষ্য দূর লন্ডন, সেখানে রানী ভিক্টোরিয়ার কাছে সরাসরি এক রাজ্যচ্যুত সন্তানের মায়ের আবেদন জানাতে চললেন তিনি। সঙ্গে আরেক ছেলে সিকন্দর হাশমত। অথচ যার জন্য করা, সেই নবাবই রয়ে গেলেন কলকাতায়। সাল ১৮৫৬। আসলে নবাবটি একটু অন্য ধাতের - যুদ্ধ বিগ্রহ রাজ্য শাসনের থেকে তাঁর মন বেশি গান- নাচ- কবিতা-প্রেম এই সবে।

সে বছরই রাজ্য হাতছাড়া হবার পরে মে মাসে লন্ডন যাবেন বলে কলকাতায় এসেছেন নবাব। লক্ষণৌ থেকে বারাণসী - সেখান থেকে দু মাসের নৌকা ভ্রমণ - স্টিমার ম্যাকলয়েড এ চড়ে কলকাতা। কলকাতায় এসে নবাব আর লড়লেন না - অজুহাত ভগ্নস্বাস্থ্য । মাঝ বয়সী বেগমসাহেবা চললেন বিদেশে। কুইনের সঙ্গে দেখা করে সুবিচার জোগাড় করার আশায়। মায়ের স্বপ্ন অবশ্য পুরণ হয় নি। ভিক্টোরিয়ার সঙ্গে তার যে মোলাকাত হয়, সেটি শুধুই সৌজন্যসাক্ষাৎ - তারপরে তিনি ব্রিটিশ পার্লামেন্টে যে আবেদন করেন সেটি নিয়েও অকারণ তাল-বাহানা করে সরকার। ইতিমধ্যে হয় ১৮৫৭ র সিপাহী বিদ্রোহ। ওয়াজিদ কে ইংরেজ্ রা সাময়িক ভাবে বন্দী করে ফোরট উইলিয়ামে - জুন ১৮৫৭ থেকে জুলাই ১৮৫৯ অবধি তিনি নজরবন্দী থাকেন ফোর্ট উইলিয়ামের ভিতর, আরমহারস্ট কুঠীতে। এদিকে ল্ক্ষ্শনৌ তে ওয়াজিদ আলির এক বেগম হজরত মহল বিদ্রোহে যোগ দেন। এরপর আর বেগমের আশা পুরণ হওয়ারও কোন সম্ভাবনা থাকে না - দেশের পথে রওনা দেন। পথেই মৃত্যু - প্যারিসের Père Lachaise তে সমাধি দেওয়া হয় তাকে। রাজ সম্মান জানাতে উপস্থিত ছিলেন তুর্কী আর পারস্যের সুলতানের প্রতিনিধি। দিনটা ২৪ শে জানুয়ারী, ১৯৫৮। কলকাতায় সেদিন কলকাতা বিশ্ব বিদ্যালয়ের বরষ-পূর্তি উৎসব।

নবাবের কি হল? নজরবন্দীর থেকে মুক্তি পাওয়ার পরে তার ঠিকানা হল পরীখানা - বেগম, তওয়ায়েফদের সৌন্দর্যে সত্যিই সেখানে পরী নেমে আসে যেন। নবাব রইলেন তার পশু, পাখি, কবিতা, নাচ, গান আর হারেম সুন্দরীদের নিয়ে। বছরে বার লক্ষ টাকা পেন্সন। তারই মধ্যে সংসার চালান ৩৮৪ জন বেগম নিয়ে। লক্ষণৌ নগরীর আদলে গড়ে তুললেন ইমামবাড়া, মসজিদ, চিড়িয়াখানা। এই চিড়িয়াখানার থেকেই নাকি একবার এক বাঘ পালিয়ে গঙ্গা পেরিয়ে ওপারের শিবপুরের বট্যানিকাল গার্ডেনে গিয়ে হানা দেয়!

এত কথা কেন? আজ সকালে গিয়েছিলাম মেটিয়াবুরুজ সফরে। হেরিটেজ ওয়াক কলকাতার ব্যবস্থাপনায়। শ্রীনন্দার তত্ত্বাবধানে Space and Memory : The Exile Walk -এ অংশ নিতে। জানতাম ইতিহাসের বেশিটাই আর নেই, কারণ ১৮৮৭ সালে নবাবের মৃত্যুর পরে ইংরেজরা নবাবের সব সম্পত্তি দখল করে নেয়, তবু যেটুকু আছে সেই টুকুও হারিয়ে যাওয়ার আগে দেখে ফেলাটা দরকার মনে হল। পরীখানা, যেটা বোধহয় এখন রেলের সম্পত্তি, সেটা দেখার লিস্টিতে ছিল না। ছিল চারটি ঐতিহাসিক মনুমেন্ট - Qasrul Buqa Imambara. আজকেই প্রথম জানলাম ইমামবাড়া আর মসজিদের মধ্যে তফাত। জন্মে ইস্তক হুগলীর ইমামবাড়া দেখেও জানা ছিল না যে ইমামবাড়া তে মহরমের মিছিলের জিনিসপত্র রাখা থাকে। অবশ্য বাড়ি ফিরে গুগুল বাবার দৌলতে জানলাম যে ইমামবাড়াতে মেয়ে এবং শিশুদের ঢোকার মানা নেই যেটা মসজিদে বারণ। এই Qasrul Buqa Imambara চারপাশের বাড়ীঘরের দখলদারির মধ্যে কোনক্রমে এখনও নিজের অস্তিত্ব টিকিয়ে রেখেছে। ছোট্ট একটি বাড়ী অথবা ঘরই বলা উচিত - শুধু রাস্তার উপর বোর্ডটি আছে বলে বোঝা এটি খুব সম্ভবতঃ মেটিয়াবুরুজের প্রথম ইমামবাড়া।

পরের গন্তব্য শাহী মসজিদ। ভিতরে ঢোকা গেল না। বাইরে থেকেই যেটুকু দেখা - আমাদের চোখে মসজিদ বলতেই যে ছবি ভাসে, তার থেকে বেশ খানিকটা আলাদা। কোন গোল গম্বুজ নেই মাথার উপরে , নেই সরু লম্বা নজর কাড়া মিনারেট। তবে ছাদের উপরে সূর্যের নিশানটি বেশ ইউনিক। কোন এক সময় হয়তো গঙ্গার পাড়েই ছিল এই মসজিদ। এখন সে সব দেওয়ালে ঢেকে গেছে। শুনেছিলাম এই মসজিদের ভিতরে একটি মারবেলের মিরহাব আছে - কিন্তু ভিতরে ঢুকতে না পারায় সেটা দেখার সৌভাগ্য হল না।

এর পরের যে গন্তব্য সেটি নবাবের এক স্ত্রীর বানান এক ইমামবাড়া। নাম বোধহয় বেগম মসজিদ। আসলে শ্রীনন্দা যখন এর নাম বলছিল আমি তখন মন দিয়ে সেখানকার উঠোনের রান্নার প্রস্তুতি দেখছিলাম - দরিদ্রদের খাওয়ানর প্রস্তুতি চলছে। বিশাল বিশাল হাড়িতে রান্না চেপেছে। যে কোন ধর্মস্থানের এটাই একমাত্র মহিমা - চাইলে অতি সহজে সে জনকল্যাণের কেন্দ্র হয়ে উঠতে পারে। যে কোন ডোল সিস্টেমের কুফল নিয়ে আলোচনা হতেই পারে - তবু যার অধিক আছে তার এই ভূমিকাটুকুই বড় ভালো। ভিতরের দেওয়ালটি অসাধারণ সুন্দর - কাঁচের উপর রং দিয়ে মার্বেলের উপর ইনলে কাজের এফেক্ট আনা হয়েছে। সব জায়গাতেই বড় বড় ঝাড়-লণ্ঠন ঝোলানো। আমাদের আধুনিক ইন্টিরিয়রের চোখে এতটুকু জায়গায় এত বড় ঝাড়লনঠন একটু বেমানান লাগে বটে। কিন্তু হয়তো সেই প্রাক ইলেক্টিরিসিটি যুগে সেটাই দস্তুর ছিল।

আজকের শেষ দ্রষ্টব্য শাহী ইমামবাড়া - মধ্যযুগের কারুকার্যময় উত্তর বা পশ্চিম ভারতীয় মসজিদ বা ইমামবাড়ার তুলনায় সে কিছু নয় অবশ্য। তবু সরল সাদাসিদের উপর বেশ। লক্ষনৌর সিবতৈনবাদ ইমামবাড়ার আদলে তৈরি। নবাবও ঘুমিয়ে আছেন এখানেই। এখানেই আছে নবাবী আমলের তাজিয়া। আর আছে নবাবের ইনসিগনিয়া - একটি বিশালাকৃতির সূর্য-সদৃশ ব্রোঞ্জের ঢালের উপর সিংহ, সূর্য , জোড়া ফেরেস্তার ছবি। অবাক লাগে সেই এক সূর্য হিন্দু রাজপুত রাজ্যেরও প্রতীক আবার মুসলিম অযোধ্যার নবাবেরও প্রতীক। প্রকৃতির তো কোন ধর্ম নেই।

নবাব ছিলেন কতদিনই বা - ১৮৫৬ থেকে ১৮৮৭ - মোটে একত্রিশ বছর। নিজের চারপাশে গণ্ডী কেটে বসবাস করেছেন। স্থানীয় বরেণ্যদের সঙ্গে তেমন মিশেছেন কি? পড়ি নি কোথাও। তেমন ভাবে মেশেন নি স্থানীয় সুন্নি মুসলমানদের সঙ্গেও। তবু তাঁর দরবারের সারেঙ্গীর সুর, কত্থকের বোল ধীরে ধীরে মিশে গেল বাঙ্গালীর জীবনে। গোরেবাজ, পতংবাজ , মেয়েবাজ মানুষটা জায়গা পেলেন ইতিহাসে। সে সৌভাগ্য হয় নি অবশ্য সেই মানুষগুলোর যারা সারা ভারত থেকে বিশেষত উত্তর প্রদেশ, বিহার ইত্যাদি থেকে এসে পৌছেছিলেন কলকাতায় তারপর কন্ট্র্যাক্ট লেবার হিসেবে পাড়ি দিয়েছেন মরিশাস, ত্রিনিদাদ, সুরিনাম ইত্যাদি দিকে দিকে। ১৮৩৩ থেকে ১৯১৭ - চলেছে এই পর্ব। দাসপ্রথার থেকে কিছু মাত্র উন্নত কি? মনে তো হয় না। আরও অদ্ভুত হল এই পর্বের একটা বড় সময় কালকে আমরা বলি বাংলার নবজাগরণ পর্ব যার কেন্দ্রে রয়েছে কলকাতা। অথচ তখন কলকাতাই ছিল এই নব্য দাসপ্রথার অন্যতম কেন্দ্র। প্রদীপের নীচেই অন্ধকার! আর যে ওয়াজিদ আলি শাহ তখন সংস্কৃতির পেট্রণ হচ্ছেন, তখন তাঁর প্রাক্তন রাজ্যের প্রজারাও তো এভাবে হারিয়ে যাচ্ছেন চেনা মাটি, চেনা দেশ ছেড়ে - তবু কোন মুজরোর আসরের সুর কাটল কি? নবাবদের সঙ্গে অবশ্য সাধারণ মানুষের কি ই বা সম্পর্ক! প্রায় বার লাখ লোক এই ভাবে দেশ ছাড়তে বাধ্য হয়। ১৮৭৩ সালের ৫ই জুন ( সে বছরই বিহারে মহাদুর্ভিক্ষ হয়) কলকাতা থেকে প্রথমবারের জন্য লাল্লা রুখ জাহাজে চেপে ৩৯৯ জন শ্রমিক গিয়ে পৌঁছায় আখের ক্ষেতে কাজ করার জন্য। হোক না সুরিনাম ডাচ কলোনি - লাভের টাকা গুণে নিতে পারলে তার জন্য শ্রমিক খুঁজে দেবেন চিরশত্রু ইংরেজরাও। যারা বলেন করপোরেট রাজত্বের আমলেই সীমাহীন লোভের জাল বোনা শুরু হয়েছে আর তার আগে প্রায় রাম রাজ্য ছিল, তাদের একটু এই সব ইতিহাস পড়ে দেখতে বলি। সুরিনাম সরকার তাদের এই পিতৃপুরুষদের মাইগ্রেশনকে মান্যতা দিতে তাদের যাত্রা পথের দুই প্রান্তে বসান দুটি একই রকম মাই-বাপ স্ট্যাচু। একটি কলকাতায় , একটি পারামারিবো তে। সেই সুরিনাম মেমোরিয়াল স্ট্যাচু দিয়ে আমরা আজকের হাঁটা শুরু করেছিলাম।

প্রায় আড়াই- পৌনে তিন ঘন্টা হাঁটার পরে পেটে তখন আগুন জ্বলছে। হেরিটেজ ওয়াকের বদান্যতায় জুটল একটি দুর্ধর্ষ ব্রেকফাস্ট। নিহারি আর তন্দুরি রুটি। কলেস্টরলের নিয়মিত ওষুধের দাপটে রেড মিট প্রায় বন্ধই - তবু তুলতুলে একটি বৃহদাকার মাংস খন্ড যার উপরের দিকটায় প্রায় এক ইঞ্চি পরিমাণ চর্বি আর জিভে দিলেই গলে যাচ্ছে - এ জিনিস ছাড়া যাবে না। গতকালের রথের পাঁপড় মিশে গেল আজকের নিহারির ঝোলে।

( যে ছবিগুলো তুলেছিলাম সেগুলো ঠিক পাতে দেবার যোগ্য নয় - নিজের চোখে দেখে আসাটা অনেক ভালো। আর জায়গাটার বেশ ট্যুরিজম সম্ভাবনা আছে - কিনতু সেজন্য একটু রাস্তাঘাট পরিচ্ছন্ন করা , একটু সৌধগুলোর রক্ষণাবেক্ষণ, একটু মশা মাছি কমান এগুলো প্রয়োজন। সরকার যদি নাও তাকায় , একটা লোক্যাল NGO হতে পারে যারা স্থানীয় ছেলে মেয়েদের ট্রেনিং দিয়ে walk এর বন্দোবস্ত করল আর লাভ দিয়ে জায়গাটার রক্ষণাবেক্ষণ করল। ভাবা যায়? )

281 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: দ

Re: পায়ের তলায় সর্ষে_ মেটিয়াবুরুজ

বাঃ যেতে হবে একবার।
Avatar: শঙ্খ

Re: পায়ের তলায় সর্ষে_ মেটিয়াবুরুজ

ভালো লাগল পড়ে। যেতে হবে।
Avatar: প্রতীক

Re: পায়ের তলায় সর্ষে_ মেটিয়াবুরুজ

সিংহ-সূর্য প্রতীকের জন্ম আড়াইহাজার বছর আগের দারিউসের আখামেনিদ পারস্য। 'lion-sun emblem' লিখে সার্চ দিয়ে দেখতে পারেন।
Avatar: স্বাতী রায়

Re: পায়ের তলায় সর্ষে_ মেটিয়াবুরুজ

@প্রতীক অনেক ধন্যবাদ। দেখলাম। আরও খুঁজতে গিয়ে দেখলাম যে এই অযোধ্যার লোকজনের মুল লুকিয়ে আছে আজকের আজারবাইজানে - আর পারস্যের সঙ্গে বিবাহ যোগ তো ছিলই। তাই হয়তো এম্বলেমটা অনুপ্রাণিত ছিল - অন্য কোন ইতিহাস জানলে একটু জানাবেন।
Avatar: I

Re: পায়ের তলায় সর্ষে_ মেটিয়াবুরুজ

দারুণ লেখা। আর একটু চলত না?
Avatar: ।

Re: পায়ের তলায় সর্ষে_ মেটিয়াবুরুজ




আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন