Sumit Roy RSS feed

Sumit Royএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • মানবিক
    এনআরএস-এর ঘটনা কোনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। এরকম ঘটনা বারেবারেই ঘটে চলেছে এবং ভবিষ্যতে ঘটতে চলেছে আরও। ঘটনাটি সমর্থনযোগ্য নয় অথবা ঘৃণ্য অথবা পাশবিক (আয়রনি); এই জাতীয় কোনো মন্তব্য করার জন্য এই লেখাটা লিখছি না। বরং অন্য কতগুলো কথা বলতে চাই। আমার মনে হয় এই ঘটনার ...
  • ডিগ্রি সংস্কৃতি
    মমতার সবৈতনিক শিক্ষানবিস শিক্ষক-শিক্ষিকা নিয়োগের ঘোষণায় চারপাশে প্রবল হইচই দেখছি। বিশেষ গাদা গাদা স্কুলে হাজার হাজার শিক্ষক পদ শূন্য, সেখানে শিক্ষক-শিক্ষিকা নিয়োগ সংক্রান্ত ব্যাপারে কিছুই না করে এই ঘোষণাকে সস্তায় কাজ করিয়ে নেওয়ার তাল মনে হইয়া খুবই ...
  • বাংলাদেশের শিক্ষিত নারী
    দেশে কিছু মানুষ রয়েছে যারা নারী কে সব সময় বিবেচনা করে নারীর বিয়ে দিয়ে। মানে তাদের কাছে বিয়ে হচ্ছে একটা বাটখারা যা দিয়ে নারী কে সহজে পরিমাপ করে তারা। নারীর গায়ের রং কালো, বিয়ে দিতে সমস্যা হবে। নারী ক্লাস নাইন টেনে পড়ে? বিয়ের বয়স হয়ে গেছে। উচ্চ মাধ্যমিকে ...
  • #মারখা_মেমারিজ (পর্ব ৫)
    স্কিউ – মারখা (০৫.০৯.২০১৮)--------...
  • গন্ডোলার গান
    সে অনেককাল আগের কথা। আমার তখন ছাত্রাবস্থা। রিসার্চ অ্যাসিস্ট্যান্টশিপের টাকার ভরসায় ইটালি বেড়াতে গেছি। যেতে চেয়েছিলাম অস্ট্রিয়া, সুইৎজারল্যান্ড, স্ট্রাসবুর্গ। কারণ তখন সবে ওয়েস্টার্ন ক্লাসিকাল শুনতে শুরু করেছি। মোৎজার্টে বুঁদ হয়ে আছি। কিন্তু রিসার্চ ...
  • শেকড় সংবাদ : চিম্বুকের পাহাড়ে কঠিন ম্রো জীবন
    বাংলাদেশের পার্বত্য জেলা বান্দরবানের চিম্বুক পাহাড়ে নিরাপত্তা বাহিনীর ভূমি অধিগ্রহণের ফলে উচ্ছেদ হওয়া প্রায় ৭৫০টি ম্রো আদিবাসী পাহাড়ি পরিবার হারিয়েছে অরণ্যঘেরা স্বাধীন জনপদ। ছবির মতো অনিন্দ্যসুন্দর পাহাড়ি গ্রাম, জুম চাষের (পাহাড়ের ঢালে বিশেষ চাষাবাদ) জমি, ...
  • নরেন হাঁসদার স্কুল।
    ছাটের বেড়ার ওপারে প্রশস্ত প্রাঙ্গণ। সেমুখো হতেই এক শ্যামাঙ্গী বুকের ওপর দু হাতের আঙুল ছোঁয়ায় --জোহার। মানে সাঁওতালিতে নমস্কার বা অভ্যর্থনা। তার পিছনে বারো থেকে চার বছরের ল্যান্ডাবাচ্চা। বসতে না বসতেই চাপাকলের শব্দ। কাচের গ্লাসে জল নিয়ে এক শিশু, --দিদি... ...
  • কীটদষ্ট
    কীটদষ্টএকটু একটু করে বিয়ারের মাথা ভাঙা বোতল টা আমি সুনয়নার যোনীর ভিতরে ঢুকিয়ে দিচ্ছিলাম আর ওর চোখ বিস্ফারিত হয়ে ফেটে পড়তে চাইছিলো। মুখে ওরই ছেঁড়া প্যাডেড ডিজাইনার ব্রা'টা ঢোকানো তাই চিৎকার করতে পারছে না। কাটা মুরগীর মত ছটফট করছে, কিন্তু হাত পা কষে বাঁধা। ...
  • Ahmed Shafi Strikes Again!
    কয়দিন আগে শেখ হাসিনা কে কাওমি জননী উপাধি দিলেন শফি হুজুর। দাওরায় হাদিস কে মাস্টার্সের সমমর্যাদা দেওয়ায় এই উপাধি দেন হুজুর। আজকে হুজুর উল্টা সুরে গান ধরেছেন। মেয়েদের ক্লাস ফোর ফাইভের ওপরে পড়তে দেওয়া যাবে না বলে আবদার করেছেন তিনি। তাহলে যে কাওমি মাদ্রাসা ...
  • আলতামিরা
    ঝরনার ধারে ঘর আবছা স্বয়ম্বর ফেলেই এখানে আসা। বিষাদের যতো পাখিচোর কুঠুরিতে রাখিছিঁড়ে ফেলে দিই ভাষা৷ অরণ্যে আছে সাপ গিলে খায় সংলাপ হাওয়াতে ছড়ায় ধুলো। কুটিরে রেখেছি বই এবার তো পড়বোই আলোর কবিতাগুলো।শুঁড়িপথ ধরে হাঁটিফার্নে ঢেকেছে মাটিকুহকী লতার জাল ফিরে আসে ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

কিলার বি কেলেঙ্কারি

Sumit Roy


http://cdn.iflscience.com/images/83be9bab-a2f4-5631-b93f-7440e7db35b4/
extra_large-1528453494-cover-image.jpg


পঞ্চাশের দশকে এক ব্রাজিলিয়ান এন্টমোলজিস্ট (পোকামাকড় নিয়ে গবেষণা করে যারা তাদেরকে এন্টমোলজিস্ট বলে) একটা কেলেঙ্কারি ঘটিয়ে বসেন। তিনি ভাবছিলেন, কিভাবে হানি বি বা মৌমাছিদের তৈরি মধুর স্বাদ আরও বেশি বাড়ানো যায়। নরমাল টেস্টে মন ভরছিল না আরকি... তাই তিনি একটা কাজ করে বসলেন। তিনি ইউরোপিয়ান হানি বি এর এর বিভিন্ন প্রজাতির সাথে আফ্রিকান হানি বি এর ক্রস করে হাইব্রিড জাত তৈরি করেন। কিন্তু এর রেজাল্ট যা হল তা ছিল ভয়ানক। এই ক্রসিং এর ফলে যে মৌমাছি তৈরি হয় তারা ছিল অবিশ্বাস্য রকমের আক্রমণাত্মক ও বদরাগী। এদের নাম দেয়া হয় আফ্রিকানাইজড হানি বি। তবে সাধারণ মানুষ এদের আরেক নামে চেন... কিলার বি...

যাই হোক, এই কিলার বি-দেরকে বন্দী করেই রাখা হয়েছিল, কিন্তু ১৯৫৭ সালে এরা পালিয়ে যায়। পালিয়ে যাওয়া কিলার বি এর সংখ্যা একটা দুটো ছিল না, পুরো ২৬টা ঝাক! এরপর এরা বংশবিস্তার করে, উত্তর-দক্ষিণ উভয় আমেরিকাতেই ছড়িয়ে পরে, আর এভাবেই ১৯৮৫ সালে এরা চলে আসে যুক্তরাষ্ট্রে।

এই কিলার বি সম্পর্কে কিছু কথা বলা যায়। এদের আকার ইউরোপিয়ান হানি বি এর চেয়ে ছোট, আর এদের বিষও কম প্রাণঘাতী। কিন্তু তাতে নিশ্চিন্ত হবার কিছু নেই, এদের হিংস্রতা, তাদের রাগী মেজাজই তাদেরকে "কিলার বি"-তে পরিণত করেছে। এরা মানুষকে ৪০০ মিটার অবধি তাড়া করতে পারে, আর সাধারণ মৌমাছিদের চেয়েও এরা ১০ গুণ বেশি হুল ফোটায়। এপর্যন্ত কিলার বি এর "কামড়ে" প্রায় এক হাজার মানুষ মারা গেছে, সেই সাথে ঘোড়া বা অন্যান্য প্রাণী তো আছেই...

কিন্তু কেন এরা এত বেশি এগ্রেসিভ? সেই ব্রাজিলের সাও পাওলো বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরাই এটা বের করার দায়িত্ব নিয়েছেন। গবেষণা করে তারা কি পেলেন সেটা পড়েই আজকে এটা নিয়ে লেখার আগ্রহ তৈরি হল আরকি... গবেষকগণ কিলার বি এর মৌচাকের পাশে একটা চামড়ার বল ছুড়ে দেয়, এরপর কিলার বিরা ক্ষেপে গিয়ে সেই বলে হুল ফোটায়। সেখান থেকে গবেষকগণ কয়েকটা কিলার বি তুলে নিয়ে লিকুইড নাইট্রোজেনে জমিয়ে ফেলেন।

এরপর এই গবেষকগণ এদের মস্তিষ্কের প্রোটিনগুলোর দিকে নজর দেন, যাদেরকে নিউরোপেপটাইড বলা হয়। এটা তারা করেন মাস স্পেকটাল ইমেজিং নামে একটি পদ্ধতিতে। আর দেখেন এই নিউরোপেপটাইড এর দুটো গ্রুপের দৈর্ঘ্যে পার্থক্য রয়েছে।

প্রথম গ্রুপটির নাম হচ্ছে এলাটোস্টেটিনস এ। এই প্রোটিনটি এদের শিক্ষা, স্মৃতি, সাধারণ বিকাশ এর সাথে সম্পর্কিত। আর দ্বিতীয় প্রকরণের প্রটিনকে বলা হয় টাকিকিনিন-রিলেটেড পেপটাইড। এই টাইপের প্রোটিনটি একটু রহস্যময়। কিন্তু সবাই জানেন, এই প্রোটিনটির সাথে সেন্সরি স্টিমুলি এর সম্পর্ক আছে, মানে যেকোন ধরণের সেন্স এর সাথে সম্পর্কিত উদ্দীপনার সাথে এর সম্পর্ক। গবেষকগণ আবিষ্কার করলেন কিলার বি-দের ক্ষেত্রে এই দুরকম প্রোটিন এর দৈর্ঘ্যই নরমাল মৌমাছিদের বেলায় এর যে দৈর্ঘ্য থাকে তার চেয়ে কম। এটা ছাড়াও অবশ্য তারা এদের ব্রেইন ক্লাস্টার বা নিউরোপিলসেও সামান্য পার্থক্য পেয়েছেন।

যাই হোক, এইটুকু পেলেই তো হবে না, আরও দূরে যেতে হবে। গবেষকরা বুঝলেন যে এই প্রোটিনগুলো কিলার বিদের বেলায় খাটো তাই এরা এত রাগী, কিন্তু এর প্রত্যক্ষ প্রমাণ পেতে এই জ্ঞানের প্রয়োগ ঘটানো চাই, নাকি? তারা এবারে কিছু শান্ত শিষ্ট হানি বি-কে ধরে এনে, এদেরকে অজ্ঞান করে দিয়ে এদের মধ্যে ঐ খাটো ভারশনের প্রোটিনগুলোকে ইনজেক্ট করে দিল। ব্যাস, দেখা গেল, ঘুম থেকে ওঠার পর এই শান্ত শিষ্ট মৌমাছিগুলোও কিলার বি-দের মত সাংঘাতিক রকমের আক্রমণাত্মক হয়ে গেছে। এই বছরের ১৮ই মে-তে জার্নাল অফ প্রটিওম রিসার্চ নামক জার্নালে এই গবেষণাটি প্রকাশিত হয়।

কী অসাধারণ আবিষ্কার... আগে কিলার বি বানাতে কষ্ট করে বিভিন্ন প্রজাতির হানি বি ধরে এনে ক্রসিং করতে হত, এখন সেটারও দরকার নেই, এই প্রোটিনগুলোর ইনজেকশন দিলেই চলবে... ইউরেকা!! তবে এখনও পরিষ্কার নয় যে খাটো ভারশনের প্রোটিনগুলোই কেন মৌমাছিদের আচরণে এতটা প্রভাব ফেলছে। এটা জানতে আরও গবেষণা দরকার। যদি জানা যায়, তাহলে শুধু মৌমাছি নয়, আরও অনেক কীটপতঙ্গের আচরণ, তাদের মস্তিষ্কের প্রকৃতি বিষয়ক অন্তর্দৃষ্টি পাওয়া যাবে, তখন এদেরকে নিয়ন্ত্রণ করার, এদেরকে ইতিবাচক কাজে ব্যবহার করার আরও অনেক নতুন উপায়ও হয়তো আবিষ্কার হবে। দেখা যাক, কিলার বি কেলেঙ্কারি থেকে আরও ভাল কিছু পাওয়া যায় কিনা...


তথ্যসূত্র:

১। কিলার বি এর উদ্ভব: http://www.badbeekeeping.com/kerr.htm
২। প্রায় এক হাজার মানুষ হত্যা: http://www.badbeekeeping.com/kerr.htm
৩। জার্নাল অফ প্রটিওম রিসার্চ-এ প্রকাশিত পেপারটি: https://pubs.acs.org/doi/10.1021/acs.jproteome.8b00098

78 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: Atoz

Re: কিলার বি কেলেঙ্কারি

২৬ ঝাঁক খুনে-মৌমাছি পালালো কী করে????? নাকি ওগুলোকে ছেড়ে দিল?
Avatar: pi

Re: কিলার বি কেলেঙ্কারি

ইন্টারেস্টিং কাজ। এরকম ঝরঝরে ভাষায় বিজ্ঞান নিয়ে লিখলে পড়তেও ভাল লাগে। এতে অনেক কৌতূহলের নিরসন হবে, আরো আরো না জানার বন্ধ দরজাও এই লাইন ধরে পরের আবিষ্কারেরা খুলবে নিশ্চয়, কিন্তু অন্য একটা ছোট কৌতূহল। এর বাস্তব প্রয়োগ কিছু আছে? অদূর না হোক সুদূর ভবিষ্যতে?
Avatar: Sumit Roy

Re: কিলার বি কেলেঙ্কারি

কিভাবে পালালো সেটা জানিনা। বাস্তব প্রয়োগ বলতে, কিভাবে এই নিউরোপেপটাইডের প্রোটিন ছোট বড় হবার সাথে মৌমাছির আচরণ কিভাবে নির্ভর করে, এটা জানা গেলে, অনেক পতঙ্গকেই নিয়ন্ত্রণ করার উপায় আবিষ্কৃত হতে পারে...
Avatar: শঙ্খ

Re: কিলার বি কেলেঙ্কারি

আমিও এরম একটা ইন্জেকশান নিতে চাই। কোথায় পাই?
Avatar: দ

Re: কিলার বি কেলেঙ্কারি

বাঃ বাঃ খাসা লাগল পড়তে।
এভাবেই ফ্র্যাঙ্কেনস্টাইন হয় আর কি।


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন