Prativa Sarker RSS feed

Prativa Sarkerএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • অনন্ত দশমী
    "After the torchlight red on sweaty facesAfter the frosty silence in the gardens..After the agony in stony placesThe shouting and the crying...Prison and palace and reverberationOf thunder of spring over distant mountains...He who was living is now deadWe ...
  • ঘরে ফেরা
    [এ গল্পটি কয়েক বছর আগে ‘কলকাতা আকাশবাণী’-র ‘অন্বেষা’ অনুষ্ঠানে দুই পর্বে সম্প্রচারিত হয়েছিল, পরে ছাপাও হয় ‘নেহাই’ পত্রিকাতে । তবে, আমার অন্তর্জাল-বন্ধুরা সম্ভবত এটির কথা জানেন না ।] …………আঃ, বড্ড খাটুনি গেছে আজ । বাড়ি ফিরে বিছানায় ঝাঁপ দেবার আগে একমুঠো ...
  • নবদুর্গা
    গতকাল ফেসবুকে এই লেখাটা লিখেছিলাম বেশ বিরক্ত হয়েই। এখানে অবিকৃত ভাবেই দিলাম। শুধু ফেসবুকেই একজন একটা জিনিস শুধরে দিয়েছিলেন, দশ মহাবিদ্যার অষ্টম জনের নাম আমি বগলামুখী লিখেছিলাম, ওখানেই একজন লিখলেন সেইটা সম্ভবত বগলা হবে। ------------- ধর্মবিশ্বাসী মানুষে ...
  • চলো এগিয়ে চলি
    #চলো এগিয়ে চলি #সুমন গাঙ্গুলী ভট্টাচার্যমন ভালো রাখতে কবিতা পড়ুন,গান শুনুন,নিজে বাগান করুন আমরা সবাই শুনে থাকি তাই না।কিন্তু আমরা যারা স্পেশাল মা তাঁদেরবোধহয় না থাকে মনখারাপ ভাবার সময় না তার থেকে মুক্তি। আমরা, স্পেশাল বাচ্চার মা তাঁদের জীবন টা একটু ...
  • দক্ষিণের কড়চা
    দক্ষিণের কড়চা▶️অন্তরীক্ষে এই ঊষাকালে অতসী পুষ্পদলের রঙ ফুটি ফুটি করিতেছে। অংশুসকল ঘুমঘোরে স্থিত মেঘমালায় মাখামাখি হইয়া প্রভাতের জন্মমুহূর্তে বিহ্বল শিশুর ন্যায় আধোমুখর। নদীতীরবর্তী কাশপুষ্পগুচ্ছে লবণপৃক্ত বাতাস রহিয়া রহিয়া জড়াইতে চাহে যেন, বালবিধবার ...
  • #চলো এগিয়ে চলি
    #চলো এগিয়ে চলি(35)#সুমন গাঙ্গুলী ভট্টাচার্যআমরা যারা অটিস্টিক সন্তানের বাবা-মা আমাদের যুদ্ধ টা নিজের সাথে এবং বাইরে সমাজের সাথে প্রতিনিয়ত। অনেকে বলেন ঈশ্বর নাকি বেছে বেছে যারা কষ্ট সহ্য করতে পারেন তাঁদের এই ধরণের বাচ্চা "উপহার" দেন। ঈশ্বর বলে যদি কেউ ...
  • পটাকা : নতুন ছবি
    মেয়েটা বড় হয়ে গিয়ে বেশ সুবিধে হয়েছে। "চল মাম্মা, আজ সিনেমা" বলে দুজনেই দুজনকে বুঝিয়ে টুক করে ঘরের পাশের থিয়েটারে চলে যাওয়া যাচ্ছে।আজও গেলাম। বিশাল ভরদ্বাজের "পটাকা"। এবার আমি এই ভদ্রলোকের সিনেমাটিক ব্যাপারটার বেশ বড়সড় ফ্যান। এমনকি " মটরু কে বিজলী কা ...
  • বিজ্ঞানের কষ্টসাধ্য সূক্ষ্মতা প্রসঙ্গে
    [মূল গল্প - Del rigor en la ciencia (স্প্যানিশ), ইংরিজি অনুবাদে কখনও ‘On Exactitude in Science’, কখনও বা ‘On Rigour in Science’ । লেখক Jorge Luis Borges (বাংলা বানানে ‘হোর্হে লুই বোর্হেস’) । প্রথম প্রকাশ – ১৯৪৬ । গল্পটি লেখা হয়েছে প্রাচীন কোনও গ্রন্থ ...
  • একটি ঠেকের মৃত্যুরহস্য
    এখন যেখানে সল্ট লেক সিটি সেন্টারের আইল্যান্ড - মানে যাকে গোলচক্করও বলা হয়, সাহেবরা বলে ট্র্যাফিক টার্ন-আউট, এবং এখন যার এক কোণে 'বল্লে বল্লে ধাবা', অন্য কোণে পি-এন্ড-টি কোয়ার্টার, তৃতীয় কোণে কল্যাণ জুয়েলার্স আর চতুর্থ কোণে গোল্ড'স জিম - সেই গোলচক্কর আশির ...
  • অলৌকিক ইস্টিমার~
    ফরাসী নৌ - স্থপতি ইভ মার একাই ছোট্ট একটি জাহাজ চালিয়ে এ দেশে এসেছিলেন প্রায় আড়াই দশক আগে। এর পর এ দেশের মানুষকে ভালোবেসে থেকে গেছেন এখানেই স্থায়ীভাবে। তার স্ত্রী রুনা খান মার টাঙ্গাইলের মেয়ে, অশোকা ফেলো। আশ্চর্য এই জুটি গত বছর পনের ধরে উত্তরের চরে চালিয়ে ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

তারার আলোর আগুন

Prativa Sarker

তারার আলো নাকি স্নিগ্ধ হয়, কাল তাহলে কেন জ্বলে মরল বারো, মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে আরো সত্তর জন! তবু মৃত্যু মিছিল অব্যাহত। আজও রাস্তায় পড়ে এক স্বাস্থ্যবান শ্যামলা যুবক, শেষবারের মতো ডানহাতটা একটু নড়ল। কিছু বলতে চাইল কি ? চারপাশ ঘিরে দাঁড়িয়ে থাকা সশস্ত্র পুলিশের মধ্য থেকে কেউ বলে উঠল, যা ওঠ। আর নাটক করিস না।

এই ভিডিও ভাইরাল। ভাইরাল ওটাও, যেখানে মস্ত গাড়ির ছাদের ওপর শুয়ে পুলিশ এসল্ট রাইফেল তাক করছে নিরস্ত্র জনতার ওপর। পেছন থেকে নির্দেশ ভেসে এল, অন্তত একটাকে মারতে হবেই।

কল্যাণকামী রাষ্ট্র যখন নাগরিকের ভালোমন্দ ভাবা বন্ধ ক'রে সুবিধে পাইয়ে দেয় মাল্টিন্যাশনাল বানিয়াদের, যখন জঙল কেটে, তামা গলানোর পর পড়ে থাকা গাদ উপ্পার নদীতে ঢেলে রুদ্ধ করে তার সুপেয় ধারা, ঘরে ঘরে মরতে থাকা মানুষগুলোর কান্না তুচ্ছ করে লাভের কড়ি গোণে, তখন তারার আলোয় আগুন ধরে যায়, স্টারলাইট হয়ে ওঠে দাবানল। যেমন হয়েছে তামিলনাড়ুর তুতিকোরিনে।
কুখ্যাত ব্রিটিশ মাল্টিন্যাশনাল কম্পানি বেদান্তের শাখা স্টারলাইট কপার ইউনিট এদেশে তামানিষ্কাশনে ফার্স্ট বয়। পরিবেশ পর্ষদ ফর্ষদ তার পোষা কুকুর। নির্বাচনী চাঁদা দিয়েছে কোটি কোটি টাকা। কংগ্রেসকে একটু কম, মোদীর দলকে অনেক বেশি। শেষের জন আবার এতো সেয়ানা, বৈদেশিক মুদ্রা পার্টিফান্ডে আসবার বাধানিষেধ তুলে দিয়ে এক্কেবারে মুখ মুছে ভদ্রলোক।
ফলে উশুল তো করে নিতেই হবে। শুধু সাইটে নয়, আশেপাশের বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে ছড়িয়ে পড়ছে মারাত্মক দূষণ। তবু এবছর স্টারলাইট চারলক্ষ টন তামা নিষ্কাশনকে আটলক্ষে নিয়ে যেতে বদ্ধপরিকর। মরে মরুক কালা আদমির দল। ডলার পাউন্ডের কাছে ওদের প্রাণের দাম কানাকড়িও নয়। কিন্তু দশ দশটা গাঁয়ের লোক শ্বাসকষ্ট, চোখ জ্বালায় ভুগছে বিশ বছর। ছড়িয়ে পড়ছে চর্মরোগ। সবচেয়ে বড়কথা ক্যান্সারের সংখ্যা বেড়ে যাচ্ছে হু হু ক'রে। যত সময় যাচ্ছে সব আবেদন নিবেদন ব্যর্থ করে কষ্টগুলো বেড়ে যাচ্ছে।
২০১৩ সালেও মামলা হয়েছিল। গড়িয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট অব্দি। আশ্চর্যজনকভাবে কোম্পানিটি রেহাই পেয়ে যায়, যদিও সে দোষী সাব্যস্ত হয়েছিল আইনের ভুল ব্যাখ্যা, লাইসেন্সবিহীন ব্যবসা আর পরিবেশদূষণের দায়ে। মাননীয় বিচারপতিদের মনে হয়েছিল, আহা ভারতবর্ষে তামার জন্য উন্নয়ন বন্ধ হয়ে যাবে। তাই তারা যৎকিঞ্চিত ফাইন দিতে বলেই স্টারলাইটকে সানশাইন হবার মদত যোগালেন।
তারপর থেকে ও অঞ্চলে যেটা চলল সেটাকে টক্সিক টেররিজম বললে কিছু ভুল হয় না। মাটির নীচের জলে অবাধ বিষ মিশতে লাগল। রোগ বাড়তে লাগল লাগামছাড়া। এই কম্পানী লাভের হার বাড়াবার জন্য কিই না করেছে ! যতটা উঁচু চিমনী লাগাবার কথা তার থেকে অনেক কম দৈর্ঘের অসংখ্য চিমনি সারা কারখানায়। যাতে খরচ কমে, কিন্তু দূষণ বাড়ে বহুগুণ।

তামিলরা গামছা কাঁধে নেয়, সিনেমায় দেখি, কিন্তু বৌদ্ধিক নেতৃত্ব সেগুলোকে লিডারদের চেয়ার মোছার কাজে ব্যবহার করে কম। সিভিল সোসাইটি এইবার আন্দোলনের রাশ হাতে নিয়ে লিফলেট বিলি করতে লাগল। জমায়েত তুতিকোরিনের প্রশাসনিক ভবনের সামনে। কে না এসেছিল কাল সেখানে! কলেজের ছাত্রী থেকে কৃষকবধূ, প্রফেশনাল থেকে বেকার যুবক। দশহাজার মানুষ বা তার চেয়েও বেশি। এসল্ট রাইফেল নিয়ে পুলিশও তৈরি ছিল। দু একটা লাশ না পড়লে মাল্টিন্যাশনালের রক্তপিপাসা মিটবে না। অপদার্থ AIADMK সরকার নাকি ভেবেছিল দু হাজার বিক্ষোভকারীর বেশি হবে না। একশ দিন ছাড়িয়ে গেল যে বিক্ষোভের আয়ু তাতে মাত্র দুহাজার!
বেশ তো, তাহলে রাবার বুলেট গেল কই ! এসল্ট রাইফেলই বা এলো কোদ্দিয়ে !

আজ স্টারলাইট বলছে, গেট খুলে দিচ্ছি। গুজবে কান দেবার আগে কারখানার ভেতরে ঢুকে দেখুন নিয়মভঙ্গ হচ্ছে কিনা।
তাজ্জব ব্যাপার, পরিবেশদূষণ ঘটছে কারখানাকে কেন্দ্র করে বিস্তীর্ণ এলাকায়। কারখানার ভেতর দেখে হবেটা কি ! নজর ঘুরিয়ে দেবার মরিয়া চেষ্টা আর কি !
যাদুগোড়া হেরে গেছে। সেখানে বিকলাঙ্গ শিশুরা সাপের মতো ধুলোর ওপর বুকে হাঁটে। নিয়মগিরি কিভাবে পেরেছে শ্রদ্ধেয় পরিমল ভট্টাচার্যের বইতে তার সবটা জেনেছি।
তুতিকোরিন জয়ী হোক । বিষমুক্ত আকাশে সত্যি তারারা স্নিগ্ধ আলো দিক আবার।

56 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: দ

Re: তারার আলোর আগুন

তুতিকোরিন জয়ী হোক
Avatar: সিকি

Re: তারার আলোর আগুন

তুতিকোরিনের মানুষের সাথে আছি।
Avatar: aranya

Re: তারার আলোর আগুন

রবার বুলেট, জল কামান এগুলোর ব্যবহার কেন হয় না, এ প্রশ্ন আমার বহুদিনের, বেশি খরচসাপেক্ষ? অব্শ্য প্রতিভা যা লিখেছেন, ভিডিও ক্লিপিং-এ দেখা যাচ্ছে - 'পুলিশ এসল্ট রাইফেল তাক করছে নিরস্ত্র জনতার ওপর। পেছন থেকে নির্দেশ ভেসে এল, অন্তত একটাকে মারতে হবেই' - এটা সত্যি হলে মানুষ মারারই প্ল্যান ছিল।

এই বেদান্ত কম্পানি-টাকে ভারতে ব্যবসা করারই অনুমতি দেওয়া উচিত নয়, এতই জঘন্য এদের অতীত ইতিহাস
Avatar: সিকি

Re: তারার আলোর আগুন

অন্য কারণে এখন মেজর গগৈ খবরের শিরোনামে, তবে এই দুর্দিনে ভারতমাতার এই মহান সন্তানকেই মনে পড়ে। আর্মির জিপের সামনে একজনকে বেঁধে ঘোরালেই তো এত গুলিটুলি চালাতে হত না - পেলেট গান ছিল - ট্রায়েড অ্যান্ড টেস্টেড মেথড। কাশ্মীরে ব্যবহার করে অভূতপূর্ব সাফল্য মিলেছে, কতজনকে জীবনের মত অন্ধ করে দেওয়া গেছে।

বড্ড বেশি মানুষ যাচ্ছে বানের জলে ভেসে।
Avatar: aranya

Re: তারার আলোর আগুন

পরিমল ভট্টাচার্যের বইটা পড়তে ইচ্ছে করছে। নিয়মগিরি নিয়ে গুরুতে কোন টই ছিল?
Avatar: dc

Re: তারার আলোর আগুন

আজ পেপারে দেখলাম চেন্নাই হাইকোর্ট এই কারখানার এক্সপ্যান্শান প্ল্যান বা সেকেন্ড ইউনিট বন্ধ রাখতে বলেছে, আর চার মাসের মধ্যে পাবলিক শুনানি করতে বলেছে, তার পর সেকেন্ড ইউনিট নিয়ে ডিসিশান হবে। এটা ভালো পদক্ষেপ।
Avatar: aranya

Re: তারার আলোর আগুন

ভাল খবর। ভারতে একমাত্র বিচার ব্যবস্থাই তাও কিছুটা কাজ করে
Avatar: সিকি

Re: তারার আলোর আগুন

ও রকম মনে হয়।
Avatar: aranya

Re: তারার আলোর আগুন

সুপ্রিম কোর্ট তো কিছু ভাল জাজমেন্ট দিয়েছে অতীতে - যেমন গুরুর বুলবুলভাজায় পরিমলের লেখা থেকে -
'প্রত্যাশামতেই বেদান্ত আদালতে গেল। দেশের সর্বোচ্চ আদালত যা রায় দিল তা অপ্রত্যাশিত এবং অভূতপূর্ব, আক্ষরিক অর্থেই। নিয়মগিরির সঙ্গে সেখানকার অধিবাসীদের ধর্মীয় ভাবাবেগ জড়িত, সুপ্রিম কোর্ট জানাল, তাই খনিটা হবে কী না সেটা ঠিক করবে ওখানকার গ্রামের মানুষ। প্রতিটি গ্রামে গ্রামসভার আয়োজন করবে রাজ্যের পঞ্চায়েত দপ্তর, পরিদর্শক হিসেবে উপস্থিত থাকবে একজন জেলা স্তরের বিচারপতি'

কলকাতা হাইকোর্ট এবার ভাঙড়ে নির্বাচনে প্রার্থীদের হোয়াটস অ্যাপে মনোনয়ন পেশ-কে বৈধতা দিয়েছে
Avatar: aranya

Re: তারার আলোর আগুন

অন্য ডিপার্টমেন্ট গুলোর তুলনায় জাস্টিস ডিপার্টমেন্ট মন্দের ভাল, সেখানেও শাসকের পছন্দের লোক বসান হয় ঠিকই, তবে অতটা বায়াসড নয় এখনও
Avatar: dc

Re: তারার আলোর আগুন

বেদান্ত টাকা ছড়িয়ে লোকাল অ্যাডমিনিস্ট্রেশান, পলিটিশিয়ান আর মনিটরিং এজেন্সিদের কিনে রেখে দিয়েছে। তবে কোর্ট যদি পুরো প্রসেসটা মনিটর করে তাহলে ঠিকমতো ব্যপারটা মিটমাট করা যেতেও পারে। কোর্ট যদি ঐ কারখানাটায় ঠিকমতো দূষণ নিয়ন্ত্রন পদক্ষেপ নিতে বাধ্য করে তাহলে ভালো হয়। দেখা যাক।
Avatar: Prativa Sarker

Re: তারার আলোর আগুন

পরিমল ভট্টাচার্যের বইটার নাম "সত্যি রূপকথা", সভ্যতা উন্নয়ন ও ওড়িশার এক উপজাতির সংগ্রাম। অবভাস প্রকাশনী।
আর ভিডিও দুটোই কাল অন্তর্জালে দেখেছি নিজের চোখে।
রাতে এন ডি টিভিতেও।
Avatar: বিপ্লব রহমান

Re: তারার আলোর আগুন

তুতিকোরিনের জয় হোক!
Avatar: sd

Re: তারার আলোর আগুন

Avatar: দ

Re: তারার আলোর আগুন

Avatar: dc

Re: তারার আলোর আগুন

The Tamil Nadu government today shut down the Sterlite copper smelting plant in Tuticorin for good, meeting the long standing demand of the local residents. The decision, said Chief Minister E Palaniswami, has been made "in respect to public sentiments".

যাঃ ঃ(
Avatar: এলেবেলে

Re: তারার আলোর আগুন

সিঙ্গুরের ক্ষেত্রে যখন সুপ্রিম কোর্ট রায় দিয়েছিল বা তার আগে যা হচ্ছিল-টচ্ছিল তখন তারা দেখা গিয়েছিল নাকি গোধুলি গগনে মেঘে ঢেকে গিয়েছিল তা জানবার বড় সাধ হয়। প্রসঙ্গ তো একই অথচ দৃষ্টিভঙ্গী কত পাল্টে যায়!
Avatar: dc

Re: তারার আলোর আগুন

স্টারলাইটের এখনকার প্ল্যান্টটাই শুধু বন্ধ করা নয়, সরকার এক্সপ্যানশান প্ল্যানও নাকচ করে দিয়েছেঃ(

https://timesofindia.indiatimes.com/city/madurai/tamil-nadu-cancels-la
nd-allotment-to-vedanta-plant-in-tuticorin/articleshow/64374105.cms


ওদিকে সিয়াচেনে সৈন্যরা দাঁড়িয়ে আছে, তার বিরুদ্ধে তো কোন প্রতিবাদ নেই! একটা প্ল্যান্ট চালাতে দিতে যতো আপত্তি। ছি! ছি!


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন