Swarnendu Sil RSS feed

Swarnendu Silএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • মাজার সংস্কৃতি
    মাজার সংস্কৃতি কোন দিনই আমার পছন্দের জিনিস ছিল না। বিশেষ করে হুট করে গজিয়ে উঠা মাজার। মানুষ মাজারের প্রেমে পরে সর্বস্ব দিয়ে বসে থাকে। ঘরে সংসার চলে না মোল্লা চললেন মাজার শিন্নি দিতে। এমন ঘটনা অহরহ ঘটে। মাজার নিয়ে যত প্রকার ভণ্ডামি হয় তা কল্পনাও করা যায় ...
  • এখন সন্ধ্যা নামছে
    মৌসুমী বিলকিসমেয়েরা হাসছে। মেয়েরা কলকল করে কথা বলছে। মেয়েরা গায়ে গা ঘেঁষটে বসে আছে। তাদের গায়ে লেপ্টে আছে নিজস্ব শিশুরা, মেয়ে ও ছেলে শিশুরা। ওরা সবার কথা গিলছে, বুঝে বা না বুঝে। অপেক্ষাকৃত বড় শিশুরা কথা বলছে মাঝে মাঝে। ওদের এখন কাজ শেষ। ওদের এখন আড্ডা ...
  • ছবিমুড়া যাবেন?
    অপরাজিতা রায়ের ছড়া -ত্রিপুরায় চড়িলাম/ ক্রিয়া নয় শুধু নাম। ত্রিপুরায় স্থাননামে মুড়া থাকলে বুঝে নেবেন ওটি পাহাড়। বড়মুড়া, আঠারোমুড়া; সোনামুড়ার সংস্কৃত অনুবাদ আমি তো করেছি হিরণ্যপর্বত। আঠারোমুড়া রেঞ্জের একটি অংশ দেবতামুড়া, সেখানেই ছবিমুড়া মানে চিত্রলপাহাড়। ...
  • বসন্তের রেশমপথ
    https://s19.postimg....
  • ভারতীয় প্রযুক্তিবিদ্যা ও লিঙ্গ অসাম্য
    ভারতের সেরা প্রযুক্তি শিক্ষার প্রতিষ্ঠান কোনগুলি জিজ্ঞেস করলেই নিঃসন্দেহে উত্তর চলে আসবে আইআইটি। কিন্তু দেশের সেরা ইনস্টিটিউট হওয়া সত্ত্বেও আইআইটি গুলিতে একটা সমস্যা প্রায় জন্মলগ্ন থেকেই রয়েছে। সেটা হল ছাত্র-ছাত্রী সংখ্যার মধ্যে তীব্ররকমের লিঙ্গ অসাম্য। ...
  • যে কথা ব্যাদে নাই
    যে কথা ব্যাদে নাইআমগো সব আছিল। খ্যাতের মাছ, পুকুরের দুধ, গরুর গোবর, ঘোড়ার ডিম..সব। আমগো ইন্টারনেট আছিল, জিও ফুন আছিল, এরোপ্লেন, পারমানবিক অস্তর ইত্যাদি ইত্যাদি সব আছিল। আর আছিল মাথা নষ্ট অপারেশন। শুরু শুরুতে মাথায় গোলমাল হইলেই মাথা কাইট্যা ফালাইয়া নুতন ...
  • কাল্পনিক কথোপকথন
    কাল্পনিক কথোপকথনরাম: আজ ডালে নুন কম হয়েছে। একটু নুনের পাত্রটা এগিয়ে দাও তো।রামের মা: গতকাল যখন ডালে নুন কম হয়েছিল, তখন তো কিছু বলিস নি? কেন তখন ডাল তোর বউ রেঁধেছেন বলে? বাবা: শুধু ডাল নিয়েই কেন কথা হচ্ছে? পরশু তো মাছেও নুন কম হয়েছিল। তার বেলা? ...
  • ছদ্ম নিরপেক্ষতা
    আমেরিকায় গত কয়েক বছর ধরে একটা আন্দোলন হয়েছিল, "ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার" বলে। একটু খোঁজখবর রাখা লোকমাত্রেই জানবেন আমেরিকায় বর্ণবিদ্বেষ এখনো বেশ ভালই রয়েছে। বিশেষত পুলিশের হাতে কৃষ্ণাঙ্গদের হেনস্থা হবার ঘটনা আকছার হয়। সামান্য ট্রাফিক ভায়োলেশন যেখানে ...
  • শুভ নববর্ষ
    ২৫ বছর আগে যখন বাংলা নববর্ষ ১৪০০ শতাব্দীতে পা দেয় তখন একটা শতাব্দী পার হওয়ার অনুপাতে যে শিহরণ হওয়ার কথা আমার তা হয়নি। বয়স অল্প ছিল, ঠিক বুঝতে পারিনি কি হচ্ছে। আমি আর আমার খালত ভাই সম্রাট ভাই দুইজনে কয়েকটা পটকা ফুটায়া ঘুম দিছিলাম। আর জেনেছিলাম রবীন্দ্রনাথ ...
  • আসিফার রাজনৈতিক মৃত্যু নিয়ে কিছু রাজনৈতিক কথা
    শহিদদের লম্বা মিছিলে নতুন নাম কাশ্মীরের কাঠুয়া জেলার আট বছরের ছোট্ট মেয়ে আসিফা। এক সপ্তাহ ধরে স্থানীয় মন্দিরে হাত-পা বেঁধে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে অজ্ঞান করে তাকে ধর্ষণ করা হল একাধিক বার, শ্বাসরোধ করে খুন করা হল মন্দিরের উপাসনালয়ে। এবং এই ধর্ষণ একটি প্রত্যক্ষ ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

আনন্দের বাজারে হাম্পটি ডাম্পটি

Swarnendu Sil

পথিকের প্রদর্শিত পথ সুজয়যুক্ত করতে আনন্দের বাজারে এখন হাম্পটি ডাম্পটি।

গতকাল ( ৬ই এপ্রিল, ২০১৮) যে দৈনিক দৈনিক না পড়লে আপনি পিছিয়ে পড়বেন তাঁরা আপনাকে এগিয়ে রাখতে জেনেভা থেকে নিয়ে এলেন হাম্পটি ডাম্পটি কে ( এখানে দেখুনঃঃ http://www.anandabazar.com/others/science/cern-discovers-humpty-dumpty
-particle-at-lhcb-experiment-dgtl-1.782195?ref=hm-editorschoice
)। লিংক খুললেই দেখবেন, প্রতিবেদনে সুজয় চক্রবর্তী লিখছেন: "ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র কণাদের সাম্রাজ্যেও এ বার সেই ‘হাম্পটি ডাম্পটি কণা’র দেখা মিলল। এই প্রথম। জেনিভার অদূরে, ‘সার্ন’-এর ভূগর্ভস্থ লার্জ হ্যাড্রন কোলাইডারের এলএইচসি-বি পয়েন্টে। ‘সার্ন’-এর তরফে জানানো হয়েছে, ২০১২ সালে ‘ঈশ্বর কণা’ বা ‘হিগস্‌ বোসন’ আবিষ্কারের পর কণা-পদার্থবিজ্ঞানের ইতিহাসে এই আবিষ্কার যথেষ্টই তাৎপর্যপূর্ণ।চোখের পলক পড়তে না পড়তেই ওই ‘হাম্পটি ডাম্পটি কণা’ও কোথায় যেন উধাও হয়ে গেল! টুকরো টুকরো হয়ে ভেঙে গেল দু’টি আলোর কণা- ‘ফোটন’-এ। এক সেকেন্ডের ১০ লক্ষ ভাগের এক ভাগ সময়ের মধ্যেই।"

বিষয়টা কি? জেনেভার কাছে সার্ণ গবেষণাগার (CERN) পয়লা এপ্রিল তারিখে একটা পোস্ট দেন নিজেদের ওয়েবসাইটে। তাতে বলা হয় যে 'হাম্পটি-ডাম্পটি' কণা আবিষ্কার হয়েছে। (এখানে দেখুনঃ https://home.cern/about/updates/2018/04/humpty-dumpty-particle-discove
red
)।

খ্যাতনামা বিজ্ঞান সাংবাদিক এই খবরটিই বাংলায় আমাদের পরিবেশন করেছেন। ওনারা স্বভাব-সাহিত্যিক, তাই হাম্পটি-ডাম্পটি কে ও কারা সে বিষয়ে সচিত্র প্রাঞ্জল বর্ণনাও আছে পরিবেশনায়। "অবিকল ডিমের মতো দেখতে হাম্পটি ডাম্পটি পাঁচিল থেকে আচমকা পড়ে গিয়ে টুকরো টুকরো হয়ে গিয়েছিল! তার খেল খতম হয়েছিল বরাবরের মতো। রাজার ঘোড়ারা বিস্তর চেষ্টা করেছিল। হাম্পটি ডাম্পটিকে জোড়া লাগাতে খুব কসরৎ করেছিল রাজার সেনারা। তবু টুকরো টুকরো হয়ে যাওয়া হাম্পটি ডাম্পটিকে আর জোড়া লাগানো যায়নি।"

তা, এতে সমস্যাটা কী? যাঁরা এখনো সার্ণের মূল লেখাটা পড়েননি বা তারিখটা খেয়াল করেননি, তাঁদের জন্যে জানাই, সার্নের মূল লেখাটি আদৌ কোনো বিজ্ঞানিক আবিষ্কারের ঘোষণা নয়, ওটি ছিল পয়লা এপ্রিলের ফাজলামি মাত্র। সেটা থেকেই বাংলা সংবাদপত্রের প্রতিবেদক একটি সিরিয়াস লেখা নামিয়ে দিয়েচেন।

সার্নের সেই ইয়ার্কিমূলক মূল লেখার কিছু সংক্ষিপ্তসার দেওয়া যাক।

"The LHCb experiment at CERN’s Large Hadron Collider (LHC) has announced the discovery of Eggeron ηgg (eta-gg), familiarly known as the “Humpty Dumpty” particle, the smallest lump of nuclear glue."

বলা বাহুল্য, ইটা হচ্ছে গ্রীক বর্ণমালার e, ফলত \eta gg হচ্ছে egg, ডিম। চক্রবর্ত্তীদের জন্যে তোড়ায় বাঁধা, যদিও ঘোড়ার কিনা সে নিয়ে এখনো সম্ভবত সার্নে গবেষণা চলছে।

পরমাণুর নিউক্লিয়াসেও আঠা বা glue নেইকো, ফলত বাক্যটি যে নিছক অর্থহীন ছ্যাবলামো তা বুঝতে আইনস্টাইন হতে হয় না, শুধু বাংলার বিজ্ঞান সাংবাদিক না হলেই চলে সম্ভবত।


ওই পোস্টে ডিম সংক্রান্ত ফাজলামির আর কিছু নমুনা --

"Hard-boiled scientists"
" which allowed ηgg to coagulate." ( ডিমের সাদা অংশের বা ওভালবুমিন-এর জমে যাওয়াকে coagulation বলা হয়, শব্দটির মূল ব্যবহার এই অর্থে, যদিও একই রকম প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রে অন্যত্র ব্যয়ভার হয়)
" “It is an eggstraordinary result,” explains Giovanni Passalova, chef of the LHCb collaboration and INFN researcher."
এখানে eggstraordinary ছাড়াও অন্য সূত্র আছে। chef মানে রাধুনী, যা অবধারিতভাবেই কবিকল্পনায় chief হয়ে বাংলায় 'প্রধান' হয়েছেন, এমনকি প্রতিবেদক নাকি এই পাসালোভা ভদ্রলোকের থেকে ইমেইলও পেয়েছেন, অথচ পাসালোভা নামে সার্ণে কেউ নেই। LHCB র spokesperson এর নাম Giovanni Passaleva, পাসালেভা, লোভা নন। কিন্তু টুকতে বাঙালি বিজ্ঞান সাংবাদিকদের ভুল ব্রিটিশ আমল থেকে কেউ কখনো দেখাতে পারেনিকো।

" “It took us some time to unscramble the data but sunny-side up we cracked it."

" At one point, we were treading on eggshells to prevent other collaborations from poaching the data."

" But, at the end of the day, you can’t make an omelette without breaking some eggs."

মন্তব্য নিষ্প্রয়োজন। কিন্তু বস্তুত এর পরেও সার্ণের মূল পোস্ট শেষ হচ্ছে এইভাবে

" Today, with the discovery of the ηgg, we have finally opened up the path to the great unification between subatomic physics and molecular gastronomy”.

এর সাথেও শেষ লাইনে আর একটি লিঙ্ক ছিল যাতে ছিল আরও বেশি অর্থহীন একটা পোস্ট। কিন্তু বিজ্ঞানসাধকের জ্ঞানলিপ্সা ঠেকায় সার্ণ কেন, তার বাবারও অসাধ্য। বাংলায় এসব 'সরল' করে লেখা হচ্ছে এইভাবেঃ "এই ‘হাম্পটি ডাম্পটি কণা’- ‘এগেরনস্‌’-ও খুবই ক্ষণস্থায়ী। তা চোখের পলক পড়তে না পড়তেই দু’টি ফোটন কণায় ভেঙে যায়। আর তাত্ত্বিক ভাবে সম্ভাবনা থাকলেও সেই ভেঙে যাওয়া দু’টি ফোটন কণা থেকে এই ‘এগেরনস্‌’দের আর ফিরিয়ে আনা যায় না। তার মানে, যে ভাবে এক বার ডিম ভাঙলে তার টুকরোটাকরাগুলিকে জুড়ে বাস্তবে আর কিছুতেই গোটা ডিম বানিয়ে ফেলা যায় না, তেমনই ‘এগেরনস্‌’ ভেঙে যে দু’টি ফোটন কণার জন্ম হয়, তাদের জুড়ে আবার ‘এগেরনস্’ কণা বানানো অন্তত বাস্তবে অসম্ভবই।" অত্যন্ত গুরুগম্ভীর ব্যাপার, সন্দেহ নেই।

সবশেষে, বাংলায় সংবাদটি পরিবেশিত হয়েছে ৬ই এপ্রিল। সাংবাদিক মহাশয় একটু কষ্ট করে ২ তারিখ সার্ণের ওই পোস্টটা আবার মিলিয়ে দেখে নিতে গেলেই দেখতে পেতেন ২রা এপ্রিল সার্ণ ওই পোস্টে আপডেট দিয়ে পাঠক-পাঠিকাবর্গকে জিগ্যেস করেছে যে পয়লা এপ্রিলের ঠাট্টা কেমন লেগেছে। বিজ্ঞানভিক্ষু তখন সম্ভবত প্রতিবেদনটি লিখছিলেন তাই সেটুকু কষ্ট আর করে ওঠা হয়নি, বদলে উনি সেই সময় pure force এর বঙ্গানুবাদ করে 'পবিত্র বল' লেখায় ব্যস্ত ছিলেন।

হাম্পটির যেমন ডাম্পটি ছিল, আমাদের বিজ্ঞানভিক্ষুও তেমনি জানিয়েছেন সল্টলেকের ‘ভেরিয়েব্‌ল এনার্জি সাইক্লোট্রন সেন্টার (ভিইসিসি)’-এর প্রাক্তন অধিকর্তা, বিশিষ্ট কণাপদার্থবিজ্ঞানী বিকাশ সিংহও তাঁকে এ তথ্যের সত্যতা সম্পর্কে নিশ্চিত করেছেন। একজন কণাপদার্থবিদ কাঁচা ঘুম থেকে উঠেও শুধুই দুটো গ্লুওন দিয়ে গঠিত কণার 'সত্যতা' নিশ্চিত করবেন এটা মেনে নিতে মন চায় না, তাই তিনিও ঠাট্টা করেছিলেন কিনা, নাকি বাকি সবটার মত এইটাও সাংবাদিক মহাশয়ের উর্বর মস্তিষ্কপ্রসূত সেইটা অবশ্য এ অধমের জানা নেই।

----------------------------------------------------------------------------------------------------------------

কৃতজ্ঞতাঃঃ লেখাটি সম্পাদনায় সহায়তা করেছেন সৈকত বন্দ্যোপাধ্যায়।

সংশোধনঃঃ উপরে একটা বিশ্রী ভুল করেছি। ইটা গ্রীক বর্ণমালার e লেখাটা নিছক ভুল, গ্রীকের e অবশ্যই এপসাইলন। সার্নের মূল পোস্টে ইটা লেখা অবশ্যই eta র সাথে e এর মিল করেই এবং \eta gg দিয়ে egg বোঝাতে চেয়েই।
বানান সংশোধনীঃঃ coagulation প্রসঙ্গে ' ব্যয়ভার' শব্দটি 'ব্যবহার' হবে এবং সার্ন-এর বাংলা বানান সর্বত্রই এইটা, অর্থাৎ দন্ত ন হবে, কিছু কিছু জায়গায় মূর্ধণ্য ণ হয়ে গেছে।

শেয়ার করুন


মন্তব্যের পাতাগুলিঃ [1] [2] [3]   এই পাতায় আছে 34 -- 53
Avatar: paps

Re: আনন্দের বাজারে হাম্পটি ডাম্পটি

বিকাশ সিনহা আর আনন্দবাজারের এই অ্যাটিটিউড্টাকে গোদা বাঙ্গলায় বলে 'ভাঙব তবু মচকাবনা মানসিকতা'।
Avatar: de

Re: আনন্দের বাজারে হাম্পটি ডাম্পটি

আবেগের কি বেগ! হাম্পটি-ডাম্পটি নিয়ে ইয়ার্কি? অ্যাঁ!

ওনার কাছ থেকে অবিশ্যি এর থেকে বেশী কিছু প্রত্যাশাও নেই!
Avatar: Sudipta Das

Re: আনন্দের বাজারে হাম্পটি ডাম্পটি

এই লিংক টা একটু দেখুন সবাই তাহলে বুঝতে পারবেন যে আপনারা যা ভাবছেন আসল অবস্থা তার থেকেও খারাপ
http://www.anandabazar.com/others/science/prof-bikash-sinha-criticises
-cern-dgtlx-1.784858?ref=hm-editorschoice

Avatar: lcm

Re: আনন্দের বাজারে হাম্পটি ডাম্পটি

নাসা-ও তো এপ্রিল ফুল পোস্ট করত, Moon is made of cheese - এমন কি একটা অনেক দিন আগে একটা চাঁদের ছবি দিয়ে পোস্ট করেছিল নাসা।
Avatar: lcm

Re: আনন্দের বাজারে হাম্পটি ডাম্পটি

বিকাশ সিন্‌হা কে? ইনি কি খুব নামকরা পদার্থবিজ্ঞানী?
খবরের নীচে রয়েছে ইনি একটি বৈজ্ঞানিক সংস্থার প্রাক্তন অধিকর্তা এবং পদ্মভূষণ জয়ী বিজ্ঞানী।
Avatar: b

Re: আনন্দের বাজারে হাম্পটি ডাম্পটি

হাবেগ।
Avatar: সবকা সাথ, সবকা বিকাশ

Re: আনন্দের বাজারে হাম্পটি ডাম্পটি

বিকাশবাবুর লেখা পড়ে জাস্ট হুব্বা হয়ে গেলাম। আচ্ছা ইনিই সেই বিকাশ সিনহা নন, যিনি পরমাণু বিদ্যুতের পক্ষে সরকারের হয়ে ক্যাম্পেন করেন আর তার বিরোধীদের গাল পাড়েন? বিজ্ঞানচর্চা করার সময় আছে ওনার?

Avatar: sswarnendu

Re: আনন্দের বাজারে হাম্পটি ডাম্পটি

আমি জাস্ট হাঁ হয়ে গেলাম আজকের বিকাশ সিনহার লেখাটা পড়ে!! আর কিছু বলার নেই। ছি ছি ছি।
Avatar: de

Re: আনন্দের বাজারে হাম্পটি ডাম্পটি

ওনার লেখাটা ইংরাজীতে ট্রান্স্লেট করে সার্নকে পাঠানো উচিত - সরকারী পয়সায় সার্নে বছরে বেশ কয়েকবার এনারা এমনিই ভিজিটে যান - গিয়ে কিছুটা অপ্রস্তুতে পড়বেন -
Avatar: S

Re: আনন্দের বাজারে হাম্পটি ডাম্পটি

বিকাস সিনহার লেখাটা ট্রান্সলেট করে পাঠান আর বলুন সামনেই আসছে ওয়ার্ল্ড লাফটার ডে, সেখানে পোস্ট করতে।
Avatar: S

Re: আনন্দের বাজারে হাম্পটি ডাম্পটি

"‘সার্ন’-এর গবেষণার সঙ্গে আমি দীর্ঘ দিন ধরে জড়িত। পরিচিত। কোনও দিন কোনও আবিষ্কারের খবর নিয়ে ‘সার্ন’কে ই-মেল করে এই ধরনের ঠাট্টা-মস্করা করতে আমি অন্তত দেখিনি। ‘সার্ন’ অতীতে এমন মজা-টজা করেছে বলেও শুনিনি কোনও দিন।"

প্রথমতঃ "জড়িত"। "পরিচিত"। এই দুটোর মানে আলাদা।

আর সার্ন প্রচিবছর এপ্রিল ফুল পোস্ট করে। বোঝাই যাচ্ছে ইনি সার্নের সাথে পরিচিতও নন।

https://home.cern/about/updates/2017/04/ancient-particle-accelerator-d
iscovered-mars


https://home.cern/about/updates/2016/04/sonified-higgs-data-show-surpr
ising-result



Avatar: S

Re: আনন্দের বাজারে হাম্পটি ডাম্পটি

প্রতিবছর।
Avatar: Ishan

Re: আনন্দের বাজারে হাম্পটি ডাম্পটি

এটা নিয়ে আরেকটা লেখা লেখা উচিত। আমারই হাত নিশপিশ করছে। :-) খালি একটা কথা বলো। হাম্পটি ডাম্পটি কণার পূর্বাভাষ সত্যিই ৪০ বছর আগে করা হয়েছিল? আমি বিজ্ঞানে কাঁচা। তাই জানতে চাই।
Avatar: sswarnendu

Re: আনন্দের বাজারে হাম্পটি ডাম্পটি

ধুর মাথা খারাপ নাকি? এরকম কিসস্যু করা হয়নিকো। দুটো গ্লুয়ন দিয়ে তৈরী কণা!!! গাঁজাখোরে হবে না, পাতাখোর লাগবে।

Avatar: lcm

Re: আনন্দের বাজারে হাম্পটি ডাম্পটি

যথেষ্ট স্বর্ণপদক পাচ্ছে না বলে বিকাশবাবু সার্ন-কে খুব হ্যাঠা করেছেন। সোনা দিয়ে বৈজ্ঞানিক সাফল্য পরিমাপ করছেন। অবশ্য সোনার দাম যেভাবে বেড়েছে।

Avatar: শঙ্খ

Re: আনন্দের বাজারে হাম্পটি ডাম্পটি

লজ্জাজনক!
Avatar: cm

Re: আনন্দের বাজারে হাম্পটি ডাম্পটি

Avatar: S

Re: আনন্দের বাজারে হাম্পটি ডাম্পটি

লসাগুদা ঃ))
Avatar: sswarnendu

Re: আনন্দের বাজারে হাম্পটি ডাম্পটি

cm,
অনেক অনেক ধন্যবাদ।

তাহলে অন্তত makes a bit of sense. আবারো thank you. I stand corrected.


Avatar: sswarnendu

Re: আনন্দের বাজারে হাম্পটি ডাম্পটি

ishan,
cm লিন্ক দিয়েছেন৷ 40 পাল্টে 20 করে নিলে ওইটুকুটা অন্তত ঠিক৷ আমার ভুলের জন্য ক্ষমাপ্রার্থী৷

মন্তব্যের পাতাগুলিঃ [1] [2] [3]   এই পাতায় আছে 34 -- 53


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন