Muhammad Sadequzzaman Sharif RSS feed

Muhammad Sadequzzaman Sharifএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • দি গ্ল্যামার অফ বিজনেস ট্রাভেল। আরোরা সাহেব
    দি গ্ল্যামার অফ বিজনেস ট্রাভেল।আরোরা সাহেব।সাল টা ১৯৯৩ / ৯৪।সদ্য বছর ৩ কলেজ ছেড়ে মাল্টিন্যাশনাল চাকরি, চরকির মত সারা দেশ ঘুরে বেড়াচ্ছি। সকালে দিল্লী, বম্বে, মাদ্রাস (তখনো মুম্বাই / চেন্নাই হয় নি) গিয়ে রাতে ফিরে বাড়ির ভাত খাওয়া তখন এলি তেলি ব্যাপার আমার ...
  • মাজার সংস্কৃতি
    মাজার সংস্কৃতি কোন দিনই আমার পছন্দের জিনিস ছিল না। বিশেষ করে হুট করে গজিয়ে উঠা মাজার। মানুষ মাজারের প্রেমে পরে সর্বস্ব দিয়ে বসে থাকে। ঘরে সংসার চলে না মোল্লা চললেন মাজার শিন্নি দিতে। এমন ঘটনা অহরহ ঘটে। মাজার নিয়ে যত প্রকার ভণ্ডামি হয় তা কল্পনাও করা যায় ...
  • এখন সন্ধ্যা নামছে
    মৌসুমী বিলকিসমেয়েরা হাসছে। মেয়েরা কলকল করে কথা বলছে। মেয়েরা গায়ে গা ঘেঁষটে বসে আছে। তাদের গায়ে লেপ্টে আছে নিজস্ব শিশুরা, মেয়ে ও ছেলে শিশুরা। ওরা সবার কথা গিলছে, বুঝে বা না বুঝে। অপেক্ষাকৃত বড় শিশুরা কথা বলছে মাঝে মাঝে। ওদের এখন কাজ শেষ। ওদের এখন আড্ডা ...
  • ছবিমুড়া যাবেন?
    অপরাজিতা রায়ের ছড়া -ত্রিপুরায় চড়িলাম/ ক্রিয়া নয় শুধু নাম। ত্রিপুরায় স্থাননামে মুড়া থাকলে বুঝে নেবেন ওটি পাহাড়। বড়মুড়া, আঠারোমুড়া; সোনামুড়ার সংস্কৃত অনুবাদ আমি তো করেছি হিরণ্যপর্বত। আঠারোমুড়া রেঞ্জের একটি অংশ দেবতামুড়া, সেখানেই ছবিমুড়া মানে চিত্রলপাহাড়। ...
  • বসন্তের রেশমপথ
    https://s19.postimg....
  • ভারতীয় প্রযুক্তিবিদ্যা ও লিঙ্গ অসাম্য
    ভারতের সেরা প্রযুক্তি শিক্ষার প্রতিষ্ঠান কোনগুলি জিজ্ঞেস করলেই নিঃসন্দেহে উত্তর চলে আসবে আইআইটি। কিন্তু দেশের সেরা ইনস্টিটিউট হওয়া সত্ত্বেও আইআইটি গুলিতে একটা সমস্যা প্রায় জন্মলগ্ন থেকেই রয়েছে। সেটা হল ছাত্র-ছাত্রী সংখ্যার মধ্যে তীব্ররকমের লিঙ্গ অসাম্য। ...
  • যে কথা ব্যাদে নাই
    যে কথা ব্যাদে নাইআমগো সব আছিল। খ্যাতের মাছ, পুকুরের দুধ, গরুর গোবর, ঘোড়ার ডিম..সব। আমগো ইন্টারনেট আছিল, জিও ফুন আছিল, এরোপ্লেন, পারমানবিক অস্তর ইত্যাদি ইত্যাদি সব আছিল। আর আছিল মাথা নষ্ট অপারেশন। শুরু শুরুতে মাথায় গোলমাল হইলেই মাথা কাইট্যা ফালাইয়া নুতন ...
  • কাল্পনিক কথোপকথন
    কাল্পনিক কথোপকথনরাম: আজ ডালে নুন কম হয়েছে। একটু নুনের পাত্রটা এগিয়ে দাও তো।রামের মা: গতকাল যখন ডালে নুন কম হয়েছিল, তখন তো কিছু বলিস নি? কেন তখন ডাল তোর বউ রেঁধেছেন বলে? বাবা: শুধু ডাল নিয়েই কেন কথা হচ্ছে? পরশু তো মাছেও নুন কম হয়েছিল। তার বেলা? ...
  • ছদ্ম নিরপেক্ষতা
    আমেরিকায় গত কয়েক বছর ধরে একটা আন্দোলন হয়েছিল, "ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার" বলে। একটু খোঁজখবর রাখা লোকমাত্রেই জানবেন আমেরিকায় বর্ণবিদ্বেষ এখনো বেশ ভালই রয়েছে। বিশেষত পুলিশের হাতে কৃষ্ণাঙ্গদের হেনস্থা হবার ঘটনা আকছার হয়। সামান্য ট্রাফিক ভায়োলেশন যেখানে ...
  • শুভ নববর্ষ
    ২৫ বছর আগে যখন বাংলা নববর্ষ ১৪০০ শতাব্দীতে পা দেয় তখন একটা শতাব্দী পার হওয়ার অনুপাতে যে শিহরণ হওয়ার কথা আমার তা হয়নি। বয়স অল্প ছিল, ঠিক বুঝতে পারিনি কি হচ্ছে। আমি আর আমার খালত ভাই সম্রাট ভাই দুইজনে কয়েকটা পটকা ফুটায়া ঘুম দিছিলাম। আর জেনেছিলাম রবীন্দ্রনাথ ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

বাংলাদেশে ফেসবুক বন্ধের জন্য আকুল আবেদন !!

Muhammad Sadequzzaman Sharif

বাংলাদেশে ফেসবুক বন্ধের জন্য আকুল আবেদন জানাচ্ছি। আমরা আসলে তৈরি না এই ধরনের মাধ্যমের জন্য। বিশাল জনগোষ্ঠী শিক্ষার নামে আল্লাই জানে কি শিখে শিক্ষিত হচ্ছে। তথাকথিত শিক্ষিতদের বাহিরে আরও আছে আরও বিশাল আরেক অশিক্ষিত সমাজ। যাদের কাছে সব চেয়ে বড় জ্ঞানী হচ্ছে এলাকার লম্বা দাড়ি আর টাকনুর উপরে পায়জামা পড়া মসজিদের ইমাম সাহেব। এদের সবার হাতেই ফেসবুক। এইটা আসলে কি, খায় না মাথায় দেয় তার সম্পর্কে বিন্দু মাত্র ধারনা না থাকা সত্যেও এই বিশাল জনগোষ্ঠী এই মাধ্যম ব্যবহার করে চলছে। আর তাদের খেসারত দিতে হচ্ছে সমাজের এমন এক শ্রেণী যাদের কোন ধারনাই নেই ফেসবুক নামের এই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম দিয়ে আসলে কি হয়। তারা হয়ত এর নামও শুনেনি এই জীবনে। অথচ খেসারত দিচ্ছে হুট করে নিমিষের মধ্যে সর্বশান্ত হয়ে।

ফেসবুকে টিটু রায় নামের এক ব্যাক্তি কি কি পোস্ট করছে আর তাতে ইসলাম নামক ধর্মের সমস্ত আগল খুলে পরে গেলো। মুসলিম নামক যে জাতি আছে এই দেশের তাদের আজব এক যে অনুভূতি আছে তাতে প্রচণ্ড আঘাত লাগলো।যদি সত্যই কোন ধর্মের মান সম্মান অন্যের ফেসবুক পোস্টের উপরে নির্ভর করে তাহলে সেই ধর্ম কে বাঁচানোর মনে হয় আর কোন উপায় থাকে না। টিটুর নামে মামলা করা হলো কিন্তু মামলা করে ধর্মের যে ক্ষতি হয়েছে তা সম্ভবত পূরণ হলো না। আজ শুক্রবার, জুম্মাবার, জুম্মা নামাজের পরে আমার প্রাণ প্রিয় মুসলিম ভাইয়েরা এক হয়ে যা ক্ষতি হয়েছে তা পুরনের চেষ্টা করেছে, এবার পথ একটু ভিন্ন। টিটু রায়ের বাড়িতে আগুন। আগুনে টিটু রায়ের তিনটি ঘর পুড়ে ফিনিশ। কিন্তু এতেও ধর্মের যে অপমান হয়েছে তার কিছু মাত্র শোধ হয় না। আর তাই আমার ভাইয়েরা ঝাপিয়ে পড়ল টিটু রায়ের আসেপাসের বাড়ির উপরে।তাদের অপরাধ তাদের বাড়ি টিটু রায়ের বাড়ির পাসে, এর চেয়ে বড় অপরাধ আর কি হত পারে এই দেশে? ফলাফল টিটু রায়ের তিনটি ঘর ছাড়াও সুধীর রায়ের ছয়টি ঘর, অমূল্য রায়ের দুটি ঘর, বিধান রায়ের দুটি ঘর, কৌশল্ল রায়ের দুটি, কুলীন রায়ের একটি, ক্ষীরোদ রায়ের একটি, দীনেশ রায়ের একটি ঘর মোট সাতটি বাড়ির ১৫টা ঘর পুড়ে ফিনিশ!!! এতে ধর্মের যে অপমান হয়েছে, যে ক্ষতি হয়ে গেছে তা পূরণ হয়ে গেছে কিনা তা এখনো জিহাদি ভাইয়েরা কাওকে জানায়নি বা কোন সংবাদ মাধ্যমেও প্রকাশ হয়নি। তবে টিটু রায়ের ঘরে সামনে আহাজারি করতে করতে তাঁর মা জিতেন বালা, ‘আমরা কিছুই জানি না। কেন আমাদের বাড়িঘরে আগুন দেওয়া হলো। এখন আমি কেমন করিয়া বাস করব।’ ধরনের কথা বলেছে বলে প্রথম আলো প্রকাশ করেছে। তবে আনুমান করা যায় সম্ভত জিহাদি ভাইদের জিহাদি জোশ সহজে যেতে চাইনি। পুলিশের সাথে সংঘাতে এগারো জন আহত এবং এক জিহাদি ভাই মারা যাওয়ার পর তারা নিজ নিজ ডেরায় ফিরে গেছে।

তো, এই দেশে আমি ফেসবুক দিয়ে কি করব? খুব কি জরুরি ফেসবুক আমার দেশে? অমূল্য রায়ের ঘরের টিনের চালা থেকে কি জরুরি ফেসবুক আমার দেশে? যে বৃদ্ধা আহাজারি করেছে তার সব শেষ হয়ে গেছে বলে, তার চোখের জলের থেকে কি বেশি দামি ফেসবুক বাংলাদেশে? আমরা এক অসভ্য সময়ের অসভ্য জাতি, কোন দিন যদি সভ্য হতে পারি, কোনদিন যদি মানুষের আহাজারির মূল্য বুঝতে পারি, কোন দিন যদি সব হারানোর ব্যাথা অনুভব করতে পারি, যদি এমন দিন আসে যেদিন ধর্মের আগে মানুষ মানুষ কে চিনবে। যদি এমন দিন আসে সেদিন আমরা আবার সভ্য সমাজে মুখ দেখব, ফেসবুক, টুইটার ইচ্ছামত চলাব। অশিক্ষিত জনগোষ্ঠীর কাছে আমার চাওয়ার কিচ্ছু নাই আর।

শেয়ার করুন


Avatar: utpal mitra

Re: বাংলাদেশে ফেসবুক বন্ধের জন্য আকুল আবেদন !!

সবার যদি এই বিচার বোধ থাকতো
Avatar: de

Re: বাংলাদেশে ফেসবুক বন্ধের জন্য আকুল আবেদন !!

এই খবর গুলো উঠে আসাও জরুরী! মেইনস্ট্রীম মিডিয়া এসব খবর চেপে যায়!


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন