Sushovan Patra RSS feed

Sushovan Patraএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • আজকের নাটক -পদ্মাবতী
    পরের পর নাটক আসতেই থাকে আজকাল। গল্প সাধারণ, একটা জনগোষ্ঠীর গরিষ্ঠ অংশের অহংকে সুড়সুড়ি দেওয়া প্লট। তাদের বোঝান যে বাকিরা ও তাদের পূর্বপুরুষেরা লুঠতরাজ করে তোমাদের লাট করে দিয়েছিল, আজই সময় হয়েছে বদলা নিয়ে নাও, নয়ত কাল আবার ওরা তোমাদের শেষ করে দেবে। এই নাটক ...
  • বেশ্যাদ্বার
    বেশ্যাদ্বার (প্রথম পর্ব)প্রসেনজিৎ বসুরামচন্দ্র দুর্গাপুজো করছেন। রাবণবধের জন্য। বানরসেনা নানা জায়গা থেকে পুজোর বিপুল সামগ্রী জোগাড় করে এনেছে। রঘুবীর পুজো শুরু করেছেন। ষষ্ঠীর বোধন হয়ে গেছে। চলছে সপ্তমীর মহাস্নান। দেবীস্বরূপা সুসজ্জিতা নবপত্রিকাকে একেকটি ...
  • অন্য পদ্মাবতী
    রাজা দেবপালের সহিত দ্বন্দ্বযুদ্ধে রানা রতন সিংয়ের পরাজয় ও মর্মান্তিক মৃত্যুর সংবাদ রাজপুরীতে পঁহুছানোমাত্র সমগ্র চিতোরনগরীতে যেন অন্ধকার নামিয়া আসিল। হায়, এক্ষণে কে চিতোরের গরিমা রক্ষা করিবে? কেই বা চিতোরমহিষী পদ্মাবতীকে শত্রুর কলুষ স্পর্শ হইতে বাঁচাইবে? ...
  • আমার প্রতিবাদের শাড়ি
    আমার প্রতিবাদের শাড়িসামিয়ানা জানেন? আমরা বলি সাইমানা ,পুরানো শাড়ি দিয়ে যেমন ক্যাথা হয় ,গ্রামের মেয়েরা সুচ সুতো দিয়ে নকশা তোলে তেমন সামিয়ানাও হয় । খড়ের ,টিনের বা এসবেস্টাসের চালের নিচে ধুলো বালি আটকাতে বা নগ্ন চালা কে সভ্য বানাতে সাইমানা টানানো আমাদের ...
  • টয়লেট - এক আস্ফালনগাথা
    আজ ১৯শে নভেম্বর, সলিল চৌধুরী র জন্মদিন। ইন্দিরা গান্ধীরও জন্মদিন। ২০১৩ সাল অবধি দেশে এটি পালিত হয়েছে “রাষ্ট্রীয় একতা দিবস” বলে। আন্তর্জাতিক স্তরে গুগুল করলে দেখা যাচ্ছে এটি আবার নাকি International Men’s Day বলে পালিত হয়। এই বছরই সরকারী প্রচারে জানা গেল ...
  • মার্জারবৃত্তান্ত
    বেড়াল অনেকের আদরের পুষ্যি। বেড়ালও অনেককে বেশ ভালোবাসে। তবে কুকুরের প্রভুভক্তি বা বিশ্বাসযোগ্যতা বেড়ালের কাছে আশা করলে দুঃখ লাভের সম্ভাবনা আছে। প্রবাদ আছে কুকুর নাকি খেতে খেতে দিলে প্রার্থনা করে, আমার প্রভু ধনেজনে বাড়ুক, পাতেপাতে ভাত পড়বে আমিও পেটপুরে ...
  • বসন্তবৌরী
    বিল্টু তোতা বুবাই সবাই আজ খুব উত্তেজিত। ওরা দেখেছে ছাদে যে কাপড় শুকোতে দেয়ার একটা বাঁশ আছে সেখানে একটা ছোট্ট সবুজ পাখি বাসা বেঁধেছে। কে যেন বললো এই ছোট্ট পাখিটার নাম বসন্তবৌরী। বসন্তবৌরী পাখিটি আবার ভারী ব্যস্তসমস্ত। সকাল বেলা বেরিয়ে যায়, সারাদিন কোথায় ...
  • সামান্থা ফক্স
    সামান্থা ফক্সচুপচাপ উপুড় হয়ে শুয়ে ছবিটার দিকে তাকিয়েছিলাম। মাথায় কয়েকশো চিন্তা।হস্টেলে মেস বিল বাকি প্রায় তিন মাস। অভাবে নয়,স্বভাবে। বাড়ি থেকে পয়সা পাঠালেই নেশাগুলো চাগাড় দিয়ে ওঠে। গভীর রাতের ভিডিও হলের চাম্পি সিনেমা,আপসু রাম আর ফার্স্ট ইয়ার কোন এক ...
  • ইংরাজী মিডিয়ামের বাংলা-জ্ঞান
    বাংলা মাধ্যম নাকি ইংরাজী মাধ্যম ? সুবিধা কি, অসুবিধাই বা কি? অনেক বিনিদ্র রজনী কাটাতে হয়েছে এই সিদ্ধান্ত নিতে! তারপরেও সংশয় যেতে চায় না। ঠিক করলাম, না কি ভুলই করলাম? উত্তর একদিন খানিক পরিস্কার হল। যেদিন একটি এগার বছরের আজন্ম ইংরাজী মাধ্যমে পড়া ছেলে এই ...
  • রুশ বিপ্লবের ইতিহাস
    রুশ বিপ্লবের ইতিহাসরাশিয়ায় শ্রমিকশ্রেণির নেতৃত্বে রাষ্ট্র ক্ষমতা দখলের বিষয়টিকেই বলা হয় রুশ বিপ্লব। ১৯১৭ সালের ৭ নভেম্বর থেকে ১৭ নভেম্বর পর্যন্ত ‘দুনিয়া কাঁপানো দশদিন’ সময়পর্বের মধ্যে এই বিপ্লবের চূড়ান্ত পর্বটি সংগঠিত হয়েছিল।অবশ্য দুনিয়া কাঁপানো এই দশ ...

মুক্ত বাজার

Sushovan Patra

নরেন্দ্র মোদী নিশ্চয় খুশি হয়েছেন। হওয়ারই কথা। প্রধানমন্ত্রী’র ঘনিষ্ঠ বন্ধু, ফোর্বস ম্যাগাজিনে প্রকাশিত ভারতবর্ষের ১০০ জন ধনকুবের’দের ক্রমাঙ্কে টানা দশ বছর শীর্ষ স্থান ধরে রেখেছেন। গত বছরে, রেকর্ড হারে, ৬৭% সম্পত্তি বাড়িয়ে, আজ তিনি ৩৮০০ কোটি ডলারের মালিক। লেডিস অ্যান্ড জেন্টলম্যান, পুট ইওর হ্যাণ্ডস টুগেদার ফর ওয়ান অ্যান্ড অনলি, মু-কে-শ আম্বানি ¹।
নরেন্দ্র মোদী নিশ্চয় আরও খুশি হয়েছেন। হওয়ারই কথা। প্রধানমন্ত্রী’র ঘনিষ্ঠ সহযোগীর পুত্র, ‘লস মেকিং’ কোম্পানির মালিক থেকে রাতারাতি কোটিপতি বিজনেস টাইকুন হয়েছেন। গত বছরে, অলীক ক্ষমতায়, ১৬,০০০গুন বাড়িয়ে, তার কোম্পানি ৮০.৫ কোটি ‘টার্নওভার’ কুড়িয়েছে। লেডিস অ্যান্ড জেন্টেলম্যান, পুট ইওর হ্যাণ্ডস টুগেদার ফর ডি অনলি সান অফ অমিত শাহ, মি-স্টা-র জয় শাহ ² ।
রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল অবশ্য বুক ফুলিয়ে বলছেন জয় শাহ’র ব্যবসার এই শ্রীবৃদ্ধি “সবটাই বৈধ” ³ । ইনিই সেই পীযূষ গোয়েল যিনি কিছুদিন আগে বলেছিলেন “দেশের বিভিন্ন কোম্পানিতে ব্যাপক কর্মী ছাঁটাই অর্থনীতির পক্ষে ভালো লক্ষণ। অর্থাৎ কর্মীরা অন্য কোম্পানির চাকরি না খুঁজে নিজেরাই কোম্পানি খুলছে” ⁴ ।
যে অর্থনীতির লক্ষণ ভালো বলে পীযূষ গোয়েল আপাতত উদ্বাহু হয়েছেন, সেই অর্থনীতির নিয়মেই কিন্তু আপনার রেশনে চিনিটা বাদ পড়ছে; রান্নার গ্যাসে ভর্তুকিটা উঠে যাচ্ছে; পি.এফ’র সুদটা কমে যাচ্ছে; বাড়ির লোনের অনুমোদন পেতে আপনার জুতোর সুকতলা খয়ে যাচ্ছে। আবার, সেই একই অর্থনীতির নিয়মেই, সরকার বাজেটে নিয়ম করে কর্পোরেট ট্যাক্সে ছাড় দিচ্ছে; রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্ক ‘বিগ-বিজনেস হাউস’র লক্ষ কোটির ঋণ ‘রাইট অফ করছে; মুকেশ আম্বানি আরও বড়লোক হচ্ছে আর জয় শাহ তুড়ি মেরে ১৫.৬ কোটি টাকার “বন্ধকহীন ঋণ” আদায় করছে ² । এই অর্থনীতি’কেই পীযূষ গোয়েলরা আদর করে ‘মুক্ত বাজার অর্থনীতি’ বলে ডাকেন।
দেশের বাজারকে ‘মুক্ত’ করে, ১৯৯১’র ২৪’শে জুলাই বাজেট বক্তৃতায় ভিক্টর হুগো কে উদ্ধৃত করে মনমোহন সিং বলেছিলেন "উদারনীতি অপরিহার্য এবং অবশ্যম্ভাবী। অর্থনৈতিক সংস্কার আর্থিক ক্ষেত্রে স্থিতিশীলতা আনবে। সামাজিক সমতা ও ন্যায় প্রতিষ্ঠা করবে। ব্যয় সংকোচের পথে হেঁটে, পাঁচ বছর পর দেশে আর কেউ গরীব থাকবে না।" করতালি তে মুখরিত হয়েছিলো লন্ডন থেকে লোনাভেলা, কেন্ট থেকে ক্যাওড়াতলা। বামপন্থী’দের প্রবল আপত্তি জাস্ট তুড়ি মেরে উড়িয়ে দিয়ে, তাঁদের আদর্শ কে ‘বস্তাপচা’ দাগিয়ে দিয়ে, মুক্তবাজার অর্থনীতির ইনফ্যাচুয়েশেনের লুস-মোশেনে ভেসে গিয়েছিলো তাবড় সংবাদ মাধ্যমের দিস্তা-দিস্তা নিউজ প্রিন্ট। আর আজ, মুক্তবাজার অর্থনীতির পথে ২৬ বছর চোখ বন্ধ করে পথ চলার পর, আমাশার বেগ যদি প্রশমিত হয়ে গিয়ে থাকে তাহলে, সেদিনের তাঁবেদার’রা কি একটু বলবেন দেশের ঠিক কোন চুলোয় প্রতিষ্ঠা হয়েছে “সামাজিক সমতা ও ন্যায়”? কোন জন্নতে এসেছে "আর্থিক স্থিতিশীলতা"? কোথায় মিটেছে গরীবি? কেমনই বা আছে অর্থনীতি?
বিশ্ব-বাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম ৭৫% কমে যখন ১২.৫৮ টাকা/লিটার, ব্রিক্স’র অন্তর্ভুক্ত সমস্ত ‘ইমারজিং ইকনমির’ গ্রাফ যখন ঊর্ধ্বগামী, ঠিক তখনই গত ৬টি কোয়ার্টারে নিয়ম করে কমেছে দেশের জি.ডি.পি ⁵ বৃদ্ধির হার। এখন ৫.৭। প্রতি বছর যে দেশে ১.২ কোটি নতুন কর্মসংস্থান প্রয়োজন, সেখানে লেবার ব্যুরো জানিয়েছে ২০১৫-১৬ অর্থবর্ষে বেকারত্বের হার ৫% -গত পাঁচ বছরের সর্বোচ্চ ⁶ । আন্তর্জাতিক ম্যানেজমেন্ট কনসালটেন্ট ফার্ম ‘ম্যাকেন্সি’র রিপোর্টে “দেশের ১৬.৬ কোটি অসংগঠিত শ্রমিক এই মুহূর্তে আশঙ্কাজনক ভাবে বেকার” ⁷। ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’, ‘স্টার্ট আপ ইন্ডিয়া’র গল্পের গরু আকাশে উড়লেও, বাস্তব এটাই যে, চলতি আর্থিক বছরের শেষ কোয়ার্টারে ম্যানুফ্যাকচারিং সেক্টরে সূচক বৃদ্ধির হার ১.২% আর শিল্পোৎপাদনে গত ২৫ বছরের সর্বনিম্ন ⁸ ⁹ । কয়েক মাসে বন্ধ হয়েছে ২১২টি স্টার্ট-আপ কোম্পানি ¹⁰। দেশের অর্থনীতির ভয়ঙ্কর চিত্র বাই-মান্থলি রিপোর্টে কার্যত মেনেও নিয়েছে নিয়েছে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক ¹¹ । এস.বি.আই লিখেছে “দেশের অর্থনীতির নিম্নগামিতা দীর্ঘমেয়াদি। ¹² ” ওয়ার্ল্ড ব্যাঙ্ক জানিয়েছে “ভারতীয় অর্থনীতির প্রবণতা বিপজ্জনক” ¹³ । নোট বাতিলের তুঘলঘি সিদ্ধান্তের পর আই.এম.এফ’র মতেও ভারতবর্ষ আর ‘ফাস্টেস্ট গ্রোয়িং ইকনমি’ নয় ¹⁴ ।
গর্ভাচেভ আর ইয়েলৎসিন দেখানো মুক্ত বাজার অর্থনীতির রঙিন স্বপ্নে বুঁদ হয়ে তখন ভাঙ্গছে সোভিয়েত। জনৈক মিখাইল’র সেই সময়ের অভিজ্ঞতা তাঁর নোবেল জয়ী “সেকেন্ড-হ্যান্ড টাইমঃ দ্য লাস্ট অফ দ্য সোভিয়েতস” বইয়ে লিখেছেন বেলারুশিয়ান সাংবাদিকা স্বেতলানা অ্যালেক্সিভিচ -“সোভিয়েত ভাঙ্গার খুশিতে আমি মস্কোর হোয়াইট হাউসের সামনে মানব বন্ধনে হাত মিলিয়ে ছিলাম। কমিউনিজম আর যাতে কোনদিন ফিরে না আসে তার জন্য জীবন বাজি রেখেছিলাম। আমরা বলেছিলাম কমিউনিজম চিরকালের জন্য মৃত। তারপর কেটে গেছে ২৫টা বছর। আমার ছেলে এখন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ে। কদিন আগে গিয়েছিলাম তার হোস্টেলে। দেখি ডেস্কের উপর পড়ে আছে মার্ক্সের দাস ক্যাপিটাল। আড়ি পেতে শুনলাম আমার ছেলে আলোচনা করছে কমিউনিস্ট ম্যানিফেস্টো নিয়ে। নিজের চোখ, আর কান’কেই বিশ্বাস করতে পারছিলাম না। মনে হয়েছিল নিজের হাতে যে মার্ক্স কে কফিন বন্দী করে এসেছিলাম সেই মার্ক্সই কি আবার ফিরে এল?”
আজ্ঞে হ্যাঁ, মার্ক্স ফিরে এল। ফিরে এল কারণ, তামাম দুনিয়া জুড়ে আবার দেউলিয়া মুক্ত বাজার অর্থনীতির। ফিরে এলো, কারণ উদারনীতির বধ্যভূমি আমেরিকা’তেও মানুষের প্রাণের থেকে সস্তায় বিক্রি হচ্ছে মানুষ মারা বন্দুক। ফিরে এলো কারণ, শ্রমিক ধর্মঘটে, কৃষক বিক্ষোভে, চাকরির দাবী তে, মজুরি আদায়ের লড়াইয়ে আবার উত্তাল বিশ্বের অলি-গলি।
আপনি একটা কেন একশটা পার্টি অফিস ভাঙ্গুন; একশটা কেন হাজারটা কমরেড মারুন; হাজরাটা কেন লক্ষ রক্ত পতাকা পোড়ান; কিন্তু যতদিন অন্যের শ্রমের বিনিময়ে মুকেশ আম্বানি মুনাফা লুটবে, যতদিন হাঙ্গার ইনডেক্সে লজ্জার বিনিময়ে জয় শাহ পকেট ভরবে, ততদিন মার্ক্স ঠিক ফিরে ফিরে আসবে। ডিয়ার অমিত শাহ, আপনি শুধু কেরালা কেন, পারলে, কাশ্মীর থেকে কন্যাকুমারী, ২,৮৫৬ কিলোমিটার লম্বা “জন-রক্ষা” পদযাত্রা করুন, তাতে, আপনার ওজন কিছুটা কমতে পারে, মেদও কিছুটা ঝরতে পারে; কিন্তু ইতিহাস সাক্ষী, মার্ক্স কিন্তু কফিন বন্দী থাকবে না। ইতিহাস সাক্ষী, মার্ক্স কোনদিন কফিন বন্দী থাকেনি।



আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন