Muradul islam RSS feed

www.muradulislam.me

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • মেডিকেল কলেজঃ গত দুদিনে যেমন দেখলাম
    গতকাল, শুক্রবার দুপুরে গেছিলাম মেডিকেল কলেজ। যখন পৌঁছালাম, ওখানে বেশ কিছু লোক – যদিও সব মিলিয়ে দুশোর বেশী নয় অবশ্যই – পরিচিত মুখও দেখা গেল কিছু। কাবেরী বসু ছিল, অমিত দত্ত দা ছিলেন, কোয়েল, দেবিকা, আরো কয়েকজন। অরিজিত গুহ চলে এল আরেকটু পরেই। শুভদীপ অবশ্য তখন ...
  • জবা ফুল গাছ সংশ্লিষ্ট গল্প
    সেদিন সন্ধ্যায় দেখলাম একটা লোক গেইটের কাছে এসে দাঁড়িয়েছে। বয়স আনুমানিক পঞ্চাশের উপরে। মাথায় পাকা চুল, পরনে সাধারণ পোষাক। আমার দিকে চোখ পড়তেই লোকটি এগিয়ে এলো।আমি বারান্দায় ছিলাম। নেমে গিয়ে জিজ্ঞেস করলাম, কাকে চাচ্ছেন?লোকটি নরম কন্ঠে বলল, আমি আপনাদের কয়েক ...
  • আবার কাঠুয়া
    ধর্ষণের মামলায় ফরেন্সিক ডিপার্টমেন্টের মুখ বন্ধ খাম পেশ করা হল আদালতে। একটা বেশ বড় খাম। তাতে থাকার কথা চারটে ছোট ছোট খামে খুন হয়ে যাওয়া মেয়েটির চুলের নমুনা। ঘটনাস্থল থেকে সিট ওই নমুনাগুলো সংগ্রহ করেছিল। সেগুলোর ডি এন এ পরীক্ষাও করেছিলেন বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু ...
  • ওই মালতীলতা দোলে
    ২আহাদে আহমদ হইলমানুষে সাঁই জন্ম নিললালন মহা ফ্যারে পড়ল সিরাজ সাঁইজির অন্ত না পাওয়ায়।এক মনে জমিতে লাঙল দিচ্ছিল আলিম সেখ। দুটি জবরজঙ্গী কালো মোষ আর লোহার লাঙল। অঝোরে বৃষ্টি পড়ছে। আজকাল আর কেউ কাঠের লাঙল ব্যবহার করে না। তার অনেক দাম। একটু দূরে আলিম সেখের ...
  • শো কজের চিঠি
    প্রিয় কমরেড,যদিও তুমি আমার একদা অভিভাবক ছিলে, তবুও তোমায় কমরেড সম্মোধন করেই এই চিঠি লিখছি, কারন এটা সম্পূর্নভাবে রাজনৈতিক চিঠি। এই চিঠির মারফত আমি তোমায় শো কজ জানাচ্ছি। তুমি যে রাজনীতির কথা বলে এসেছো, যে রাজনীতি নিয়ে বেচেছো, যে রাজনীতির স্বার্থে নিজের ...
  • ক্যালাইডোস্কোপ ( ১)
    ক্যালাইডোস্কোপ ১। রোদ এসে পড়ে। ধীরে ধীরে চোখ মেলে মানিপ্যান্টের পাতা। ওপাশে অশ্বত্থ গাছ। আড়াল ভেঙে ডেকে যায় কুহু। ঘুমচোখ এসে দাঁড়ায় ব্যালকনির রেলিং এ। ধীরে ধীরে জেগে ওঠা শহর, শব্দ, স্বরবর্ণ- ব্যঞ্জন; যুক্তাক্ষর। আর শুরু হল দিন। শুরু হল কবিতার খেলা-খেলি। ...
  • শেষ ঘোড়্সওয়ার
    সঙ্গীতা বেশ টুকটাক, ছোটখাটো বেড়াতে যেতে ভালোবাসে। এই কলকাতার মধ্যেই এক-আধবেলার বেড়ানো। আমার আবার এদিকে এইরকমের বেড়ানোয় প্রচণ্ড অনীহা; আধখানাই তো ছুটির বিকেল--আলসেমো না করে,না ঘুমিয়ে, বেড়িয়ে নষ্ট করতে ইচ্ছে করে না। তো প্রায়ই এই টাগ অফ ওয়ারে আমি জিতে যাই, ...
  • পায়ের তলায় সর্ষে_ মেটিয়াবুরুজ
    দিল ক্যা করে যব কিসিসে কিসিকো প্যার হো গ্যয়া - হয়ত এই রকমই কিছু মনে হয়েছিল ওয়াজিদ আলি শাহের। মা জানাব-ই-আলিয়া ( বা মালিকা কিশওয়ার ) এর জাহাজ ভেসে গেল গঙ্গার বুকে। লক্ষ্য দূর লন্ডন, সেখানে রানী ভিক্টোরিয়ার কাছে সরাসরি এক রাজ্যচ্যুত সন্তানের মায়ের আবেদন ...
  • ফুটবল, মেসি ও আমিঃ একটি ব্যক্তিগত কথোপকথন (পর্ব ৩)
    ফুটবল শিখতে চাওয়া সেই প্রথম নয় কিন্তু। পাড়ার মোড়ে ছিল সঞ্জুমামার দোকান, ম্যাগাজিন আর খবরের কাগজের। ক্লাস থ্রি কি ফোর থেকেই সেখানে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে পড়তাম হি-ম্যান আর চাচা চৌধুরীর কমিকস আর পুজোর সময় শীর্ষেন্দু-মতি নন্দীর শারদীয় উপন্যাস। সেখানেই একদিন দেখলাম ...
  • ইলশে গুঁড়ি বৃষ্টি
    অনেক সকালে ঘুম থেকে আমাকে তুলে দিল আমার ভাইঝি শ্রী। কাকা দেখো “ইলশে গুঁড়ি বৃষ্টি”। একটু অবাক হই। জানিস তুই, কাকে বলে ইলশে গুঁড়ি বৃষ্টি? ক্লাস এইটে পড়া শ্রী তার নাকের ডগায় চশমা এনে বলে “যে বৃষ্টিতে ইলিশ মাছের গন্ধ বুঝলে? যাও বাজারে যাও। আজ ইলিশ মাছ আনবে ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

আমরহস্য

Muradul islam

শহরে একজন বড় পীরের মাজার আছে তা আপনি জেনে থাকবেন, পীরের নাম শাহজালাল, আদি নিবাস ইয়ামন দেশ। তিনি এস্থলে এসেছিলেন এবং নানাবিদ লৌকিক অলৌকিক কাজকর্ম করে অত্র অঞ্চলে স্থায়ী আসন লাভ করেছেন। গত হয়েছেন তিনি অনেক আগেই, কিন্তু তার মাজার এখনো জাগ্রত। প্রতিদিন দূর দূরান্ত থেকে মানুষেরা আসেন, আসেন ভক্ত আশেকান। নানাজন নানা মানত করেন, গান বাজনা করেন, অনেকে বলেন এইসব বেদাত। এইভাবেই চলে আসছে আর আমরা এই মাজারকে দরগা বলে ডাকি।

ঘটনাটি এই দরগাকে নিয়ে, বা দরগার বিস্ময়কর আমগাছটিকে নিয়ে। আমগাছটি সাধারণ আমগাছ, দেখে বুঝার উপায় নেই এর ভিতরে এত যাদু মাখানো। আমি তো বিশ্বাসই করতে চাই নি যখন শুনেছিলাম অকালে এই আমগাছে একটি আম ধরেছে। বিশাল আম, মাঝারি সাইজের কাঁঠালের মত। সূর্যমূখী আমের মত গায়ের রঙ, লালে হলুদ।

এই আম শহরের লোকদের আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হল। নানাজনের নানা কথা। কেউ বলেন দরগার গজার মাছকে বিষ দিয়ে মেরেছিল দুষ্কৃতিকারীরা, তারই ফলে এই আম ধরেছে অকালে, নিশ্চয়ই কোন বিপদ আসছে। কেউ বলেন বিপদ নয় বিপদ নয়, এসেছে রহমত।

ফটো সাংবাদিকেরা ফটো তুলে নিয়ে যাচ্ছেন, টিভি চ্যানেলের স্থানীয় রিপোর্টাররা ভিডিও করছেন। মোবাইল হাতে ছবি তোলা, ভিডিও করাদের সংখ্যা অগণন।

ঝানু সাংবাদিক প্রশ্ন করেন, আমটা কবে দেখা গেল?

মাজারের ভক্ত, মাথায় লাল ফিতা বাঁধা; চোখ বড় বড় করে বলেন, তিনদিন আগে।

সাংবাদিক প্রশ্ন করেন, কে প্রথম দেখেন?

অনেক দাবীদার বের হয়।

কিন্তু কেউই দাবী করেন না তারা একেবারে শিশু অবস্থা থেকে আমটিকে দেখেছেন। সবাই বলেন হঠাৎ একদিন তাদের চোখে পড়ে পরিণত ও বিস্ময়কর আমটি।

আমটির মুকুল কেউ দেখে নি, তার ধীরে ধীরে বড় হওয়া কেউ দেখে নি। অর্থাৎ, আমটি যেন একেবারে শৈশব কৈশোরহীন।

একথা অযৌক্তিক বলবেন অনেকেই। কিন্তু জায়গাটি দরগা, যুক্তি ও অযুক্তির মাঝামাঝি তার অবস্থান। এখানে প্রায় সবই সম্ভব।

আমি যেদিন আমটিকে দেখলাম সেদিনই বুঝতে পারি আমটি কেবলই আম নয়। তা বিশেষ কিছু। এবং এই বিশেষ কিছু বিশেষ সব ঘটনার জন্ম দেবে।

আমার বুঝায় ভুল ছিল না। আম দখলের নানা দল উপদল বের হলো। ভক্ত আশেকানদের দল, স্থানীয় প্রভাবশালীদের দল, এবং অন্যান্য।

অচিরেই আম গাছ পাহাড়ার জন্য পুলিশ নিয়োগ করতে হবে এমন অবস্থার উদ্ভব হলো। কারণ সমস্ত অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে এই আম খেলে বহু উপকার।

তবে পুলিশকে আর আসতে হয় নি। তার আগেই মৃদু বাতাসে আমটি পড়ে যায়। এমন এক সময় সে পড়ে গাছ থেকে যখন এর আশপাশের মানুষেরা একটু অন্যমনস্ক, একটু উদাসীন।

কেবলমাত্র একজন লোকেরই ব্যাপারটা চোখে পড়ে। তার নামটি আমি জানি না তখন, মধ্যবয়স্ক লোক।

আমটিকে নিয়েই সে দৌড় দেয়।

উদাসীন মানুষের হুশ ফেরে। তারা উপরে তাকায় ও দেখে গাছে নেই আম।

তারা মধ্যবয়স্ক, উদভ্রান্ত লোকটিকে দৌড়াতে দেখে। তারা বিকট সব চিৎকারে, উদ্ভট আহাজারিতে জগত প্লাবিত করে লোকটির পিছনে ধাওয়া দেয়।

লোকটি রাজপথে, মেসার্স হানিফ পরিবহন নামে একটি ট্রাকের নিচে চাপা পড়ে। রক্ত রাস্তা ভেসে যায়।

কিন্তু বিস্ময়কর ব্যাপার, আমটির দেখা মেলে না।

লোকটির স্ত্রী এসেছিল লাশ নিতে, তার নাম আমি জিজ্ঞেস করেছিলাম, বলল হনুফা।

স্বামীর নাম বলল ইতু মিয়া।

ইতু মিয়া আম নিয়ে এমন দৌড় দিল কেন তা আমি বুঝতে চেয়েছি। সে তো ইচ্ছে করলেই ট্রাক দেখে থেমে যেতে পারত। আম পেলে জনতা তাঁকে জানে মেরে ফেলত না নিশ্চিত। তার নিশ্চয়ই এমন কিছু একটা চাওয়া ছিল, যা আমটি পুরণ করে দিত, সে বিশ্বাস করেছিল। নিশ্চয়ই সে চাওয়াটা খুব গভীর কিছু, তা না হলে এমন ঝুঁকি কেউ নেয়! অথবা হতে পারে তুচ্ছ কিছুও, মানুষ মাঝে মাঝে তুচ্ছ কিছুর জন্যও মরে যায়।



শেয়ার করুন



আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন