ঋক আর কিছুনা RSS feed

ঋক আর কিছুনাএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • শো কজের চিঠি
    প্রিয় কমরেড,যদিও তুমি আমার একদা অভিভাবক ছিলে, তবুও তোমায় কমরেড সম্মোধন করেই এই চিঠি লিখছি, কারন এটা সম্পূর্নভাবে রাজনৈতিক চিঠি। এই চিঠির মারফত আমি তোমায় শো কজ জানাচ্ছি। তুমি যে রাজনীতির কথা বলে এসেছো, যে রাজনীতি নিয়ে বেচেছো, যে রাজনীতির স্বার্থে নিজের ...
  • ক্যালাইডোস্কোপ ( ১)
    ক্যালাইডোস্কোপ ১। রোদ এসে পড়ে। ধীরে ধীরে চোখ মেলে মানিপ্যান্টের পাতা। ওপাশে অশ্বত্থ গাছ। আড়াল ভেঙে ডেকে যায় কুহু। ঘুমচোখ এসে দাঁড়ায় ব্যালকনির রেলিং এ। ধীরে ধীরে জেগে ওঠা শহর, শব্দ, স্বরবর্ণ- ব্যঞ্জন; যুক্তাক্ষর। আর শুরু হল দিন। শুরু হল কবিতার খেলা-খেলি। ...
  • শেষ ঘোড়্সওয়ার
    সঙ্গীতা বেশ টুকটাক, ছোটখাটো বেড়াতে যেতে ভালোবাসে। এই কলকাতার মধ্যেই এক-আধবেলার বেড়ানো। আমার আবার এদিকে এইরকমের বেড়ানোয় প্রচণ্ড অনীহা; আধখানাই তো ছুটির বিকেল--আলসেমো না করে,না ঘুমিয়ে, বেড়িয়ে নষ্ট করতে ইচ্ছে করে না। তো প্রায়ই এই টাগ অফ ওয়ারে আমি জিতে যাই, ...
  • পায়ের তলায় সর্ষে_ মেটিয়াবুরুজ
    দিল ক্যা করে যব কিসিসে কিসিকো প্যার হো গ্যয়া - হয়ত এই রকমই কিছু মনে হয়েছিল ওয়াজিদ আলি শাহের। মা জানাব-ই-আলিয়া ( বা মালিকা কিশওয়ার ) এর জাহাজ ভেসে গেল গঙ্গার বুকে। লক্ষ্য দূর লন্ডন, সেখানে রানী ভিক্টোরিয়ার কাছে সরাসরি এক রাজ্যচ্যুত সন্তানের মায়ের আবেদন ...
  • ফুটবল, মেসি ও আমিঃ একটি ব্যক্তিগত কথোপকথন (পর্ব ৩)
    ফুটবল শিখতে চাওয়া সেই প্রথম নয় কিন্তু। পাড়ার মোড়ে ছিল সঞ্জুমামার দোকান, ম্যাগাজিন আর খবরের কাগজের। ক্লাস থ্রি কি ফোর থেকেই সেখানে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে পড়তাম হি-ম্যান আর চাচা চৌধুরীর কমিকস আর পুজোর সময় শীর্ষেন্দু-মতি নন্দীর শারদীয় উপন্যাস। সেখানেই একদিন দেখলাম ...
  • ইলশে গুঁড়ি বৃষ্টি
    অনেক সকালে ঘুম থেকে আমাকে তুলে দিল আমার ভাইঝি শ্রী। কাকা দেখো “ইলশে গুঁড়ি বৃষ্টি”। একটু অবাক হই। জানিস তুই, কাকে বলে ইলশে গুঁড়ি বৃষ্টি? ক্লাস এইটে পড়া শ্রী তার নাকের ডগায় চশমা এনে বলে “যে বৃষ্টিতে ইলিশ মাছের গন্ধ বুঝলে? যাও বাজারে যাও। আজ ইলিশ মাছ আনবে ...
  • দুখী মানুষ, খড়ের মানুষ
    দুটো গল্প। একটা আজকেই ব্যাংকে পাওয়া, আর একটা বইয়ে। একদম উল্টো গল্প, দিন আর রাতের মতো উলটো। তবু শেষে মিলেমিশে কি করে যেন একটাই গল্প।ব্যাংকের কেজো আবহাওয়া চুরমার করে দিয়ে চিৎকার করছিল নীচের ছবির লোকটা। কখনো দাঁত দিয়ে নিজের হাত কামড়ে ধরছিল, নাহলে মেঝেয় ঢাঁই ...
  • পুরীযাত্রা
    কাল রথের মেলা। তাই নিয়ে আনন্দ করার বয়স পেরিয়ে গেছে এটা মনে করাবার দরকার নেই। তবু লিখছি কারণ আজকের সংবাদপত্রের একটি খবর।আমি তাজ্জব কাগজে উকিলবাবুদের কান্ডকারখানা পড়ে। আলিপুর জাজেস কোর্ট ও পুলিশ কোর্টে প্রায় কোন উকিলবাবু নেই, দু চারজন জুনিয়র ছাড়া। কি ...
  • আমার বন্ধু কালায়ন চাকমা
    প্রথম যৌবন বেলায় রাঙামাটির নান্যাচরের মাওরুম গ্রামে গিয়েছি সমীরণ চাকমার বিয়েতে। সমীরণ দা পরে শান্তিচুক্তি বিরোধী ইউপিডিএফ’র সঙ্গে যুক্ত হন। সেই গ্রুপ ছেড়েছেন, সে-ও অনেকদিন আগের কথা। এরআগেও বহুবার চাকমাদের বিয়ের নিমন্ত্রণে গিয়েছি। কিন্তু ১৯৯৩ সালের শেষের ...
  • শুভ জন্মদিন শহীদ আজাদ
    আজকে এক বাঙ্গালি বীরের জন্মদিন। আজকে শহীদ আজাদের জন্মদিন। মাগফার আহমেদ চৌধুরী আজাদ। মুক্তিযুদ্ধে ঢাকার কিংবদন্তীর ক্র্যাক প্লাটুনের সদস্য, রুমির সহযোদ্ধা এবং অবশ্যই অবশ্যই মোসাম্মাৎ সাফিয়া বেগমের সন্তান। শহীদ আজাদ হচ্ছেন এমন একজন মানুষ যার কথা বলতে গেলে ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

হরিপদ কেরানিরর বিদেশযাত্রা

ঋক আর কিছুনা

অনেকদিন আগে , প্রায় সাড়ে তিন বছর আগে এই গেঁয়ো মহারাজ , তখন তিনি আরোই ক্যাবলা , আনস্মার্ট , ছড়ু ছিলেন , মানে এখনও কম না , যাই হোক সেই সময় দেশের বাইরে যাবার সুযোগ ঘটেছিলো নেহাত আর কেউ যেতে চায়নি বলেই । না হলে খামোখা আমার নামে একটা আস্ত ভিসা হবার চান্স নেই এ তো আপনারা জানেনই । তুতলে তুতলে ইংরিজি বলি , কুতরে কুতরে কোড করি , সে হেন আমার বিদেশ যাত্রায় কলেজের সহপাঠী/পাঠিনী, দূর সম্পর্কের আত্মীয় প্রায় সামনা সামনি বলেই দিয়েছিলো , ওও বিদেশ যাচ্ছে ! সত্যি বিদেশ গুলোর আর জাত রইলো না। তা সত্যি বলতে সে কথা আমারও মনে হয়েছিলো , আমায় নির্ঘাত ঘুমের ঘোরে ভুল করে হ্যাঁ হ্যাঁ যাও বলে দিয়েছে, কিংবা আরেকটা কূট প্রশ্ন মাথায় ঘুরঘুর করছিলো , আচ্ছা আমার হাত থেকে বাঁচতেই হ্যাঁ হ্যাঁ ভাই তুই যা তো বলে দেয়নি তো? লজ্জার মাথা খেয়ে আমি অবশ্য আর কাউকে সে নিয়ে কিছু বলিনি ।
যাক অবশেষে সে দিন সমাগত হয়েছে । আমি এর আগে এয়ারপোর্টেই যাইনি তো প্লেনে চড়া ! সুতরাং অনলাইন চেকিন জাতীয় কথাবার্তা আমার কাছে হিব্রু হবে স্বাভাবিক। আমার ফ্লাইটের দীর্ঘ সময় আগেই পৌঁছে গেছি , টেনশন বাপু আমি নিতে পারিনা। কি একখানা ফর্ম দিলো ফিলাপ করতে , অভিবাসন সংক্রান্ত না কি মনে নেই সত্যি বলছি । ফর্ম টা কোনো রকমে ফিলাপ করেছি অফিসারকে জিজ্ঞেস টিজ্ঞেস করেই , নিজের বিদ্যা বুদ্ধিতে পুরোটা করতে পারিনি সত্যি বলছি । যাকগে । কোন দিকে যাবো কি করবো তা তো তেমন বুঝিনা , তাও এদিক সেদিক জিজ্ঞেস করে কোনো রকমে উঠে নিজের সিটে বসেছি । সিটবেল্টটাও কপাল জোরে লাগিয়ে ফেলেছি । জানলা দিয়ে দেখতে পাচ্ছি কোলকাতা শহরটা আমার চেনা পরিবেশটা কেমন ছোট হতে হতে মিলিয়ে যাচ্ছে । মন খারাপ করছিলো না তেমন , উত্তেজিত বেশী ছিলাম বলেই এরপর কি হবে এরপর কি হবে জানার আগ্রহে । খেতে দিতে আমি সাগ্রহে খুলেছি, খুবই খারাপ টেস্টের খাবার দাবার ছিলো , যদিও সেটা ভারতীয় খাবারই এরপরের গুলো আরো সরেস । এ ফ্লাইটটা যাবে সিঙ্গাপুর তক । ওখান থেকে আবার প্লেন বদল ঘটবে, হংকংএ আরেকবার!! আপনারা যারা ফ্রিকোয়েন্ট ফ্লায়ার খুব খ্যা খ্যা করে হাসছেন জানি , কিন্তু এক ক্যাবলা আন্সমার্ট , গেঁয়ো ছেলের জায়গায় ভেবে দেখুন দিকি। আমার ইংরাজি যেমন শক্ত , ওদের ইংরাজিও তেমনই জটিল । সাইন ল্যাঙ্গুয়েজে কোনোরকমে তো ওয়াইফাই এর ডিটেইলস নেওয়া গেলো , বাড়িতে এট্টু খবর দিতে হবে , হোয়াটস্যাপ অত বহুল হয়ে ওঠেনি তখনো , আমার এক বন্ধুকে খবর দেবো সে আবার বাড়িতে । কোলকাতায় যথেষ্ট রাত হলেও তারা জেগেই আছে জানি । আশ্চর্য ব্যাপার ঠিক মতো পৌঁছেও গেলাম আমার নির্দিষ্ট প্লেনের সামনে । এরপর প্লেনে শুধু দুটো ঘটনাই বলব । এক, আমার কথা শুনেই বুঝেছেন , হিন্দু নন ভেজ সিলেক্ট করা আমার পক্ষে অসম্ভব জিনিস, ইনফ্যাক্ট জানতামই না অমন কিছু হয়, তাই , চিকেন বিরিয়ানি জোটেনি , জুটেছিলো ব্রকোলি সেদ্দ , আলু সেদ্ধ , পান্ডু রোগে মৃত ফ্যাকাশে ল্যাম্ব সেদ্ধ সহ একটা মিল , যা খেয়ে ব্রকোলি বিভীষিকা ঘটেছিলো আমার । আর দুই , আমার পাশের সিট ফাঁকা ছিলো , দিব্যি গুটিশুটি মেরে ঘুমাচ্ছিলাম , ঘুম থেকে উঠে দেখি আমার প্লেন টা মাঝ আকাশে স্থির হয়ে ভেসে আছে । মিনিটপনেরো পরেও একই জিনিস দেখে আমি আইল সিট এর ভদ্রলোককে জিজ্ঞেস করতে বাধ্য হই , প্লেন এরকম থেমে আছে কেন? না না আপনারা হাসবেন না , সিঙ্গেল লাইন ট্রেনে চড়ে আমার অভ্যেস , আমার পক্ষে এ প্রশ্ন কিচ্ছু অস্বাভাবিক না , হতেই পারে কিছু প্লেন পাস করার ব্যাপার আছে । উনি অবশ্য হাসেননি , হয়ত এরকম উজবুক দেখে অভ্যস্ত বা যে প্লেনে এরকম প্রায় সিটে উঠে ঘুমোতে পাররে তাকে না ঘাঁটানোই যুক্তি সম্মত মনে করেছিলেন । উনি বলে দিয়েছিলেন , যে ওটা ইলিউশন , আমরা এতো উপরে আছি খালি মেঘ দেখে অমন মনে হচ্ছে , আর তাছাড়া প্লেনের ভিতর ভাসমান অবস্থায় স্পীড বোঝা যাবে না স্বাভাবিক।
এই যে মর্নিং শোজ দ্য ডে বলে , এই প্লেন যাত্রায় বোঝা গেছিলো আমি আরো এরকম অনেক ছড়াবো , আর এরকমই অনেক সহৃদয় লোক পাবো দূর দেশে । লস এঞ্জেলেস এয়ারপোর্টে নামার আগে নারকেল নাড়ু ডিক্লেয়ার করতে হবে কিনা এ সংকট থেকে এক ভদ্রলোক উদ্ধার করেছিলেন মনে আছে । এয়ারপোর্টে নেমে সারি সারি বাস ট্যাক্সির মেলায় আমি যখন লাগেজ নিয়ে দিশেহারা , আরেকজন আমায় বলে দিয়েছিলেন কোথা থেকে ক্যাব মেলে । আবার ক্যাবে উঠে যখন ঝাঁ চকচকে আকাশ (হ্যাঁ রাস্তার থেকে আগে আমার আকাশটাই চোখ টেনেছিলো) , দেখে হাঁ করে গিলছি , সেই ক্যাবচালকে আমার গন্তব্যস্থল জানিয়ে , উনিই আবার আমায় ফোন দিয়ে সাহায্য করেছিলেন , রুম্মেট কে জানিয়ে দিতে বলে ।
তা তারপর তো সপ্তা দুই ল্যাজে গোবরে করে কাটলো , টাইম ম্যানেজমেন্ট জানিনা তখনো , কাজ কল মেল প্রাইয়োরাটাইজ করতে পারছি না , আটটায় কফি খেয়ে রান্নার জোগাড় করে রান্না বসিয়ে এগারোটায়টায় যখন চিকেন হুইসেল দিচ্ছে আমি তখন ইস্ত্রি টা কতটা গরম পরীক্ষা করবো কিভাবে ভাবছি ওদিকে ফোন বাজছে অফশোর কল করছে । সব মিটিয়ে এক্টায় ঘুমাতে গেছি , সাতটায় উঠে মনে পরেছে এই রে সাড়ে ছটায় তো কল ছিলো! এদিকে একটা পি ওয়ান ইস্যু! তারপর যা হয় , ধীরে ধীরে সব সামলে যায় সব অভ্যেস হয়ে যায় , সব কাজ এক্ষুনি করতে হবে না সেটা বুঝে যাওয়া যায় , লাঞ্চটা ভরে রেখে দিলে আগের রাত থেকে সকালে পনেরো মিনিট সেভিংস টা বুঝে নেওয়া যায় ।
তারো অনেকদিন পর নীচের লেখাটা লিখেছিলাম , একদিন।
আমি যে রাস্তাটা দিয়ে রোজ হেঁটেহেঁটে অফিস যাই সেই রাস্তাটা এখন দোটানায় পড়ে গেছে সেজে উঠেবে না বিবাগী হবে । লাল হলুদ সবুজ গাছের সারি দিয়ে সাজতেও ইচ্ছে আবার সব ছেড়ে ফেলে চলে যাওয়ার বাসনাটাও কম নয়। দূর পাহাড়ের চুড়য় বরফ জমা শুরু হয়েছে। আমার এই দেশে প্রথম শীত । আর আমি বেজায় শীত কাতুরে। তাই একটু ভয়ে ভয়েই আছি। কিন্তু এমন মন ভালো করা দৃশ্য দেখলে ভয়টাও থমকায়। শীতের হাওয়া অগ্রাহ্য করে আমি রোজ লাঞ্চ এর সময় বাইরেটা বসি।দেখি হলুদ হয়ে যাওয়া গাছ গুলো কেমন গালিচা পেতে দিচ্ছে আর একটু একটু করে কেমন নিঃস্ব হয়ে যাচ্ছে । মোটে সাত মাস দেশের বাইরে, এখনও কথায় কথায় মন খারাপ করে।
কিছুদিন আগে রকি মাউন্টেইন গিয়েছিলাম। বড্ড ভালো লেগেছিল। গাছের ছায়ার ফাঁকে রোদ্দুর , ঝর্নার জলের আওয়াজ, পাখির ডাক ছাড়া আরকোন আওয়াজ নেই। গিয়েছিলাম যাদের সাথে তাদের থেকে আলাদা হয়েগিয়েছিলাম মাঝখানে। এইসব জায়গাএ গিয়ে অনর্থক বকবক করতে ভালো লাগে না ।ইচ্ছে করে চুপটি করে সারাদিন বসে থাকি। অবশ্য বসে থাকা হয়নি। দলের বাকিরা খুজে পেয়ে গেলো।
তারপর হাইকিং , উফফ আর পারা যাচ্ছে না আর কত দূর করতে করতে পৌছলাম একটা লেকের ধারে , ছায়া ঢাকা , নীল রোদ মেখে শুয়ে আছে ।চড়াই উতরাই করতে করতে হটাৎ চোখ জুড়নও হ্রদ দেখলে প্রানের ভিতরে বেশ আরাম হয় আর আমি এমনিতেই জল পাগলা।
এদেশ তা আমার কাছে এখনও কেতাওয়ালা রেস্টুরান্ট এর মত। দারুন ঝকঝকে দারুন সাজপোশাক পরা লোক এসে খাবার সাজিয়ে গেলো। নিয়ম মেনে খেয়ে চলে এলাম। আর আমার দেশটা প্রচণ্ড খিদের মুখে আমার মাএর বেড়ে দেওয়া খাবার এর মত। গরুর রচনা টাইপ উদাহরন দেখেই বুঝছেন আমি পেটুক মানুষ। আর এই সাত মাস নিজের হাতের রান্না আমায় পেটুকশ্রেষ্ঠ করে তুলেছে খাবার এর কথা শুনলেই চোখ কান সজাগ হয়ে যায় , কেউ যদি ভদ্রতা করেও বলে আসিস একদিন আমাদের বাড়ি , আমি ক্যালেন্ডার বের করে বলি কবে বলোতো, তারিখটা নোট করে নিই।
দুর্গা পুজোর দিন গুলো আর তার আগের সেই পুজো আসছে পুজো আসছে দিনগুলো তো এখানে বেজায় খারাপ ভাবে কাটল। পুজর গন্ধটাই পেলাম না । পূজোর প্রায় ১০ দিন পর টিকেট কেটে পূজো দেখতে গেছিলাম। সে বেজায় ঘটনাবহুল ব্যাপার। আমি একবন্ধু দম্পতির সাথে গিয়েছিলাম। তারা বেজায় চটে গেছে, তাদের আমার বাবা মা ভেবেছে বলে। স্বাভাবিক আমার মত ধেড়ে বাচ্ছার বাবা মা ভাবলে চটাই উচিত। আমি অবশ্য যতটা বিব্রত হওয়া উচিত ছিল ততটা হতে পারিনি। কারন সেই আবার খাওয়া। আমায় ওনারা কিড মিল খেতে ডাকছইলেন বারবার। আর আমি পূজর দিন কাউকে দুখু দিতে নেই এই আপ্তবাক্য স্মরণ করে বাচ্ছাদের এবং নিজের মনে দুঃখ দিতে নেই বলে বড়দের খাবার দু্টোই সাটাতে ব্যাস্ত হয়ে পড়ায় অন্যদিকে মন দিতে পারিনি। তবে দুগগা ঠাকুর দেখে ঢাক বাজিয়ে আর বিচিত্রানুষ্ঠান দেখে দুটো দিন মন্দ কাটেনি। কলকাতা বা বাড়ির পূজোর ধারে কাছে আসে না ত বটেই তবে নাই মামার চেয়ে কানা মামাই মন্দ কি।

শেয়ার করুন


Avatar:  munia

Re: হরিপদ কেরানিরর বিদেশযাত্রা

খুব ভালো লাগল! হাসলাম আবার পুজো আসছে তাই বিদেশের প্রথম পুজোর কথা মনে করে গলার কাছটা কেমন টনটনিয়ে উঠলো।
আপনার লেখা শেয়ার করতে পারি?
Avatar: ঋক আর কিছুনা

Re: হরিপদ কেরানিরর বিদেশযাত্রা

নিঃসন্দেহে পারেন । অনেক ধন্যবাদ , আর সত্যি বিদেশের প্রথম পুজোটা ...। :'(
Avatar: ঋক আর কিছুনা

Re: হরিপদ কেরানিরর বিদেশযাত্রা

গাদাগুচ্ছের বানান ভুল করেছি লেখাটায় , তাই যারা পড়বেন ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি , এখানে কারেক্ট করাও যায় না আর।
Avatar: Munia

Re: হরিপদ কেরানিরর বিদেশযাত্রা

ধন্যবাদ! এখানে শেয়ার করলাম।
http://www.banglaadda.com/addaghar?pagenum=1&forumid=1
Avatar: pi

Re: হরিপদ কেরানিরর বিদেশযাত্রা

দিব্বি লাগলো ঃ)
Avatar: pi

Re: হরিপদ কেরানিরর বিদেশযাত্রা

মুনিয়াদেবী, পেস্ট করলে একটু লিন্কটাও দিয়ে দেবেন। এটাতো এই সাইটের ব্লগের লেখা।
Avatar: ঋক আর কিছুনা

Re: হরিপদ কেরানিরর বিদেশযাত্রা

থ্যাংকু পাইদি :)
Avatar: Munia

Re: হরিপদ কেরানিরর বিদেশযাত্রা

নিশ্চয়ই, পাই দেবী :)


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন