Sarit Chatterjee RSS feed

Sarit Chatterjeeএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • মানবিক
    এনআরএস-এর ঘটনা কোনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। এরকম ঘটনা বারেবারেই ঘটে চলেছে এবং ভবিষ্যতে ঘটতে চলেছে আরও। ঘটনাটি সমর্থনযোগ্য নয় অথবা ঘৃণ্য অথবা পাশবিক (আয়রনি); এই জাতীয় কোনো মন্তব্য করার জন্য এই লেখাটা লিখছি না। বরং অন্য কতগুলো কথা বলতে চাই। আমার মনে হয় এই ঘটনার ...
  • ডিগ্রি সংস্কৃতি
    মমতার সবৈতনিক শিক্ষানবিস শিক্ষক-শিক্ষিকা নিয়োগের ঘোষণায় চারপাশে প্রবল হইচই দেখছি। বিশেষ গাদা গাদা স্কুলে হাজার হাজার শিক্ষক পদ শূন্য, সেখানে শিক্ষক-শিক্ষিকা নিয়োগ সংক্রান্ত ব্যাপারে কিছুই না করে এই ঘোষণাকে সস্তায় কাজ করিয়ে নেওয়ার তাল মনে হইয়া খুবই ...
  • বাংলাদেশের শিক্ষিত নারী
    দেশে কিছু মানুষ রয়েছে যারা নারী কে সব সময় বিবেচনা করে নারীর বিয়ে দিয়ে। মানে তাদের কাছে বিয়ে হচ্ছে একটা বাটখারা যা দিয়ে নারী কে সহজে পরিমাপ করে তারা। নারীর গায়ের রং কালো, বিয়ে দিতে সমস্যা হবে। নারী ক্লাস নাইন টেনে পড়ে? বিয়ের বয়স হয়ে গেছে। উচ্চ মাধ্যমিকে ...
  • #মারখা_মেমারিজ (পর্ব ৫)
    স্কিউ – মারখা (০৫.০৯.২০১৮)--------...
  • গন্ডোলার গান
    সে অনেককাল আগের কথা। আমার তখন ছাত্রাবস্থা। রিসার্চ অ্যাসিস্ট্যান্টশিপের টাকার ভরসায় ইটালি বেড়াতে গেছি। যেতে চেয়েছিলাম অস্ট্রিয়া, সুইৎজারল্যান্ড, স্ট্রাসবুর্গ। কারণ তখন সবে ওয়েস্টার্ন ক্লাসিকাল শুনতে শুরু করেছি। মোৎজার্টে বুঁদ হয়ে আছি। কিন্তু রিসার্চ ...
  • শেকড় সংবাদ : চিম্বুকের পাহাড়ে কঠিন ম্রো জীবন
    বাংলাদেশের পার্বত্য জেলা বান্দরবানের চিম্বুক পাহাড়ে নিরাপত্তা বাহিনীর ভূমি অধিগ্রহণের ফলে উচ্ছেদ হওয়া প্রায় ৭৫০টি ম্রো আদিবাসী পাহাড়ি পরিবার হারিয়েছে অরণ্যঘেরা স্বাধীন জনপদ। ছবির মতো অনিন্দ্যসুন্দর পাহাড়ি গ্রাম, জুম চাষের (পাহাড়ের ঢালে বিশেষ চাষাবাদ) জমি, ...
  • নরেন হাঁসদার স্কুল।
    ছাটের বেড়ার ওপারে প্রশস্ত প্রাঙ্গণ। সেমুখো হতেই এক শ্যামাঙ্গী বুকের ওপর দু হাতের আঙুল ছোঁয়ায় --জোহার। মানে সাঁওতালিতে নমস্কার বা অভ্যর্থনা। তার পিছনে বারো থেকে চার বছরের ল্যান্ডাবাচ্চা। বসতে না বসতেই চাপাকলের শব্দ। কাচের গ্লাসে জল নিয়ে এক শিশু, --দিদি... ...
  • কীটদষ্ট
    কীটদষ্টএকটু একটু করে বিয়ারের মাথা ভাঙা বোতল টা আমি সুনয়নার যোনীর ভিতরে ঢুকিয়ে দিচ্ছিলাম আর ওর চোখ বিস্ফারিত হয়ে ফেটে পড়তে চাইছিলো। মুখে ওরই ছেঁড়া প্যাডেড ডিজাইনার ব্রা'টা ঢোকানো তাই চিৎকার করতে পারছে না। কাটা মুরগীর মত ছটফট করছে, কিন্তু হাত পা কষে বাঁধা। ...
  • Ahmed Shafi Strikes Again!
    কয়দিন আগে শেখ হাসিনা কে কাওমি জননী উপাধি দিলেন শফি হুজুর। দাওরায় হাদিস কে মাস্টার্সের সমমর্যাদা দেওয়ায় এই উপাধি দেন হুজুর। আজকে হুজুর উল্টা সুরে গান ধরেছেন। মেয়েদের ক্লাস ফোর ফাইভের ওপরে পড়তে দেওয়া যাবে না বলে আবদার করেছেন তিনি। তাহলে যে কাওমি মাদ্রাসা ...
  • আলতামিরা
    ঝরনার ধারে ঘর আবছা স্বয়ম্বর ফেলেই এখানে আসা। বিষাদের যতো পাখিচোর কুঠুরিতে রাখিছিঁড়ে ফেলে দিই ভাষা৷ অরণ্যে আছে সাপ গিলে খায় সংলাপ হাওয়াতে ছড়ায় ধুলো। কুটিরে রেখেছি বই এবার তো পড়বোই আলোর কবিতাগুলো।শুঁড়িপথ ধরে হাঁটিফার্নে ঢেকেছে মাটিকুহকী লতার জাল ফিরে আসে ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

সরদার বেগম

Sarit Chatterjee

সরদার বেগম

১৯৩৪ সাল। লুধিয়ানার এক আদালতে ১৩ বছরের একটা ছেলেকে জজসাহেব জিজ্ঞাসা করলেন, তুমি কার সঙ্গে থাকতে চাও আব্দুল হায়ি?
ছেলেটা শুধু একবার ঘৃণার দৃষ্টিতে তাকাল তার পিতার দিকে, তারপর কাঠগড়ায় দাঁড়ানো অপরূপ সুন্দরী সরদার বেগমের ত্রস্ত চাহনির জবাবে দৃঢ় কণ্ঠে বলল, আমার মায়ের সঙ্গে।

শুধু রূপের খাতিরে সরদার বেগমকে বিয়ে করেছিল লুধিয়ানা শহরের মাঝারিমাপের জমিদার ফজল মোহম্মদ। মদ্যপ, দুশ্চরিত্র, নৃশংস। কাশ্মিরের এক মধ্যবিত্ত পরিবারের এই মেয়েটার প্রথাগত শিক্ষা তেমন কিছু ছিল না। কিন্তু তা সত্ত্বেও একমাত্র সন্তানকে নিয়ে ঘর ছেড়ে বেরিয়ে এসেছিলেন তিনি, আদালতের শরণাপন্ন হয়েছিলেন বিবাহবিচ্ছেদের জন্য। কিন্তু অত সহজ ছিল না সেটা। ফজল মোহম্মদ ছেলের দখল দাবী করেছিল। ছ'বছর চলেছিল সেই মোকদ্দমা। অবশেষে সেই সন্তানের বিবৃতির ওপর ভরসা করে আদালত সরদার বেগমের হাতে তুলে দেয় তাকে মানুষ করার দায়িত্ব, মেনে নেয় এক মা'য়ের অধিকার। কিন্তু তার বদলে সেই মাকে ছেড়ে দিতে হয় ভরণপোষণের আর সম্পত্তির ন্যায্য অধিকার।

অমানুষিক পরিশ্রম করে ছেলেকে মানুষ করছিলেন তিনি। একসময় লুধিয়ানা রেলস্টেশনের পাশে এক কুঁড়েঘরে থাকত মা আর ছেলে। ভালো ছাত্র ছিল আব্দুল। পাঠ্যক্রমের বাইরে উর্দু আর ফারসি শিখেছিল মৌলানা ফারাজ হরিয়ানবির কাছে। পরে, লাহোরে দয়াল সিং কলেজে পড়াশুনো করেছিল সে।

১৯৪৫ সালে তার প্রথম কবিতার বই, 'তলখিয়াঁ' ছাপা হয়। ১৯৪৬ সালে বাংলার মন্বন্তরের ওপর প্রকাশিত হয় তার কাব্যগ্রন্থ, 'কাহত্-এ-বংগাল'। তার শায়রির ধার সহ্য না করতে পেরে পাকিস্তান সরকার গ্রেপ্তারীর পরোয়ানা জারি করেছিল। দেশভাগের কয়েকমাস পর ভারতে ফিরে আসতে বাধ্য হয় আব্দুল।

উর্দু ও হিন্দি কবিতার জগতে ওর খ্যাতি বাড়তে থাকে। একদিন ডাক আসে শচিনদেব বর্মনের কাছ থেকে। ১৯৫১ সালে শচিনদেবের সুর আর ওর শব্দমালায় সৃষ্টি হয় ছায়াছবি 'বাজি'। তার ক'বছর পর আসে 'পেয়াসা'। ভারতবর্ষে সেদিন এমন কেউ ছিল না যে এই বিস্ময়কর প্রতিভার নাম শোনেনি।
ততদিনে অবশ্য আব্দুল হায়ি তার পিতৃদত্ত নাম ছেড়ে শুধু পোশাকী নামটাই ব্যবহার করতেন।
সাহির লুধিয়ানবি।

কবি লিখলেন, 'আগে ভি, জানে না তু, পিছে ভি, জানে না তু, যো ভি হ্যায়, বস য়হি ইক পল মে', গাইলেন আশা ভোঁসলে।
লিখলেন, 'তু হিন্দু বনেগা না মুসলমান বনেগা, ইন্সান কি ঔলাদ হ্যায় ইন্সান বনেগা', গাইলেন মোহম্মদ রফি।
লিখলেন, 'আল্লাহ তেরো নাম, ঈশ্বরও তেরো নাম', গাইলেন লতা মঙ্গেশকর।
লিখলেন, 'মেরে দিল মে, আজ কেয়া হ্যায়, তু কহে তো ম্যায় বতা দুঁ', গাইলেন কিশোর কুমার।
লিখলেন, 'অ্যায় মেরে জোহরাজঁবি', গাইলেন মান্না দে।

বছরের পর বছর তিনি চমকে দিচ্ছিলেন সবাইকে তাঁর গান দিয়ে। দু'বার সর্বশ্রেষ্ট গীতিকারের পুরস্কার, পদ্মশ্রী পুরস্কার, এ সবই পান তিনি তাঁর কলমের জোরে।

কিন্তু শৈশবের যন্ত্রণা তাঁর পিছু ছাড়েনি। বহু নারীর সান্নিধ্য পেয়েছিলেন, যেমন কবি অমৃতা প্রিতম, কণ্ঠশিল্পী সুধা মালহোত্রা, কিন্তু কোনদিন বিবাহ করেননি। অতিরিক্ত মদ্যপান করতেন, ভয়ঙ্কর রাগ ছিল।

নিজের সম্বন্ধে তিনি বলতেন, আমি আর কবি হলাম কখন? শুধু তো সিনেমাতে গান লিখি। তাই বোধহয় লিখেছিলেন, 'ম্যায় পল দো পল কা শায়র হুঁ, পল দো পল মেরি কহানি হ্যায়, পল দো পল মেরি হস্তি হ্যায়, পল দো পল মেরি জওয়ানি হ্যায়' ...

"मैं पल दो पल का शायर हूँ, पल दो पल मेरी कहानी है
पल दो पल मेरी हस्ती है, पल दो पल मेरी जवानी है
मुझसे पहले कितने शायर, आए और आकर चले गए,
कुछ आहें भरकर लौट गए, कुछ नग़मे गाकर चले गए
वो भी एक पल का किस्सा थे, मै भी एक पल का किस्सा हूँ
कल तुमसे जुदा हो जाऊँगा, जो आज तुम्हारा हिस्सा हूँ"

কিন্তু গল্পটা শুরু করেছিলাম সরদার বেগমকে নিয়ে। তাঁর কী হলো?
শেষ জীবন পর্যন্ত ছেলের সঙ্গেই ছিলেন তিনি সাহিরের জুহুর বাংলোতে। অসম্ভব ভালোবাসতেন সাহিরকে। ওর কোনও বন্ধু এলেই অনুযোগ করতেন, 'পুত্তর, বহুৎ পীতা হ্যায় সাহির আজকল, মনা করো না!'

১৯৭৬ সালে মারা যান সরদার বেগম। অনেকের ধারণা মায়ের জন্যই কোনদিন বিয়ে করেনি সাহির। এক প্রখ্যাত অতিমানব তো 'ইডিপাস কম্প্লেক্স' বলে আখ্যাও দিয়েছিল এই সম্পর্ককে।

চারবছর পর ১৯৮০ সালে মাত্র ৫৯ বছর বয়সে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে চিরবিদায় নিলেন সাহির।
যদিও তাঁর অদ্ভুত কলম আগেই তাঁর ডেথ পোয়েমটি লিখে গেছিল ...

"कल और आयेंगे नगमो की खिलती कलियाँ चुनने वाले,
मुझसे बेहतर कहनेवाले,
तुमसे बेहतर सुननेवाले;
कल कोई उनको याद करे,
क्यूँ कोई मुझको याद करे?
मसरूफ ज़माना मेरे लिए क्यूँ
वक़्त अपना बर्बाद करे?"

মায়েদের তো জগত চিরকাল তাদের কৃতি সন্তানের মধ্যে দিয়েই চিনে এসেছে। তারা যে মায়ের জাত! সন্তানের পরিচয়েই তাদের পরিচয়।
তাই এভাবেই মাতৃদিবসে এক মা'কে শ্রদ্ধা জানালাম।

সরিৎ চট্টোপাধ্যায়
১৪০৫২০১৭

133 বার পঠিত (সেপ্টেম্বর ২০১৮ থেকে)

শেয়ার করুন


Avatar: সিকি

Re: সরদার বেগম

বাঃ।
Avatar: dc

Re: সরদার বেগম

দারুন ভাল্লাগলো। লেখাটাও ভাল্লাগলো, আর ইয়ে কবিতাগুলোও ভাল্লাগলো।
Avatar: San Gita

Re: সরদার বেগম

সাহির লুধিয়ানভি আমার খুব পছন্দের কবি।
Avatar: pi

Re: সরদার বেগম

ভাল। কিন্তু ঐ যে লিখেছেন না,' মায়েদের তো জগত চিরকাল তাদের কৃতি সন্তানের মধ্যে দিয়েই চিনে এসেছে। তারা যে মায়ের জাত! সন্তানের পরিচয়েই তাদের পরিচয়।' , এবার একটু উল্টোটাও হোক ? মায়ের পরিচয়ে সন্তানের পরিচয় ? বা, যার যার নিজের কাজে নিজের পরিচয়ই তো আরো ভাল। কাছের কেউ ভাল কিছু করলে, তার আনন্দ তো অন্য জায়গায়, পরিচয় ছাড়াও সেটা আসে।
আর এই যে সন্তানের মধ্যে দিয়েই মায়েদের নিজেকে তুলে ধরা, নিজের কিছু করার থাকলেও তা না করে, গুণ থাকলে তার ব্যবহার না করে, কখনো বাধ্য হয়ে, কখনো বাই চয়েজ, এটাকেই গ্লোরিফাই করা আর কতদিন চলবে ? বাবাদের জগত যখন সাধারণভাবে এভাবে গড়ে ওঠে না, তখন মায়েদেরটাই বা আর কতদিন ও কেন ?
Avatar: PM

Re: সরদার বেগম

সোহা আলি কে লোকে শর্মিলা থাকুরের মেয়ে, সওলিকে তৃপ্তি মিত্রের মেয়ে, রইমা সেন সুচিত্রা সেনের মেয়ে মায় কোন্কোনা সেনকেও অপর্না সেনের মেয়ে বোলতেই অনেকে বেশি স্বচ্ছন্দ। ছেলে মেয়ে প্রতিভায় মা বাবা কে ছপিয়ে না গেলে মা বাবর নামেই পরিচিত হবে।।না হলে উল্টোটা।।
Avatar: pi

Re: সরদার বেগম

এখানে ব্যতিক্রম না, 'মায়েদের তো জগত চিরকাল তাদের কৃতি সন্তানের মধ্যে দিয়েই চিনে এসেছে' , এই জেনেরালাইসড স্টেটমেন্টটা নিয়ে বলেছি।

আর আপনি তো সেইসব সন্তানদের নাম করলেন যাদের লোকজন তাও চেনে, নাম করতে চাইলে সেরকম আরো নামও করা যায় , যেখানে সন্তান পরিচিতই নয়, আর জগতে কৃতী, পরিচিত মহিলা নেই, এমন তো নিশ্চয় না।

Avatar: dc

Re: সরদার বেগম

সে তো কচির মা আর পুঁটির মেয়ে দেরও সবাই চেনে :p
Avatar: de

Re: সরদার বেগম

ভারী ভালো লেখা -
Avatar: পুপে

Re: সরদার বেগম

"যার যার নিজের কাজে নিজের পরিচয়ই তো আরো ভাল।" - একদম একমত পাইদি। সরদার বেগমের সন্তান খ্যাতিমান হয়েছেন, পুরস্কার পেয়েছেন - খুবই ভালো কথা। কিন্তু সন্তান যদি কালে কালে প্রখ্যাত না-ও হয়ে উঠতেন, তাতেও তখনকার দিনে তখনকার সমাজে অন্যায়ের প্রতিবাদ করে, "মানিয়ে" না নিয়ে, ঘর ছেড়ে বেরিয়ে এসে সিঙ্গল মাদার হয়ে জীবন-যাপন করার সিদ্ধান্ত নেওয়াটাই একটা বিরাট অ্যাচিভমেন্ট।
সরিৎ, আপনাকে ধন্যবাদ এমন একজনের কথা তুলে ধরার জন্য। ভাল লাগলো।
Avatar: Sarit Chatterjee

Re: সরদার বেগম

pi
লক্ষ্য করুন আমি কী লিখেছি।
'তারা যে মায়ের জাত!'
ওই বিস্ময়বোধক চিহ্নে এই ব্যাপারে আমার অভিমত বা বিদ্রূপটুকু লুকিয়ে আছে।
সকলকে ধন্যবাদ লেখাটা পড়ার জন্য।
সরিৎ
Avatar: বিপ্লব রহমান

Re: সরদার বেগম

সাহির লুধিয়ানভি সম্পর্কে জেনে ভাল লাগলো। লেখার ভেতরের হিন্দিটুকুর ভাবানুবাদ থাকলে আরো ভাল হতো। সেটুকু ধরতে পারলাম না।
Avatar: শিবাংশু

Re: সরদার বেগম

বিপ্লবের জন্য,

"....কবিতার আধফোটা কুঁড়িগুলি চয়ন করতে
কাল অনেকেই আসবে
আমার থেকে ভালো কথক
তোমার থেকে ভালো শ্রোতা
কাল কেউ তাদের মনে রাখবে
কেনই বা মনে রাখবে আমায়
ব্যস্ত জীবন কেন আমার জন্য
অপচয় করবে নিজের সময়

(আমি দু'এক মূহুর্তের কবি
আমার কথা শুধু মূহুর্তের জন্য
আমার অস্তিত্ব দু'এক মূহুর্তের
আমার যৌবনও দু'এক মূহুর্ত...)



Avatar: গবু

Re: সরদার বেগম

শিবাংশুর যুগলবন্দিতে একটা "ওয়াহ" রেখে গেলাম। সরিৎবাবুকেও অনেক ধন্যবাদ


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন