Arijit Guha RSS feed

Arijit Guhaএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • আজকের নাটক -পদ্মাবতী
    পরের পর নাটক আসতেই থাকে আজকাল। গল্প সাধারণ, একটা জনগোষ্ঠীর গরিষ্ঠ অংশের অহংকে সুড়সুড়ি দেওয়া প্লট। তাদের বোঝান যে বাকিরা ও তাদের পূর্বপুরুষেরা লুঠতরাজ করে তোমাদের লাট করে দিয়েছিল, আজই সময় হয়েছে বদলা নিয়ে নাও, নয়ত কাল আবার ওরা তোমাদের শেষ করে দেবে। এই নাটক ...
  • বেশ্যাদ্বার
    বেশ্যাদ্বার (প্রথম পর্ব)প্রসেনজিৎ বসুরামচন্দ্র দুর্গাপুজো করছেন। রাবণবধের জন্য। বানরসেনা নানা জায়গা থেকে পুজোর বিপুল সামগ্রী জোগাড় করে এনেছে। রঘুবীর পুজো শুরু করেছেন। ষষ্ঠীর বোধন হয়ে গেছে। চলছে সপ্তমীর মহাস্নান। দেবীস্বরূপা সুসজ্জিতা নবপত্রিকাকে একেকটি ...
  • অন্য পদ্মাবতী
    রাজা দেবপালের সহিত দ্বন্দ্বযুদ্ধে রানা রতন সিংয়ের পরাজয় ও মর্মান্তিক মৃত্যুর সংবাদ রাজপুরীতে পঁহুছানোমাত্র সমগ্র চিতোরনগরীতে যেন অন্ধকার নামিয়া আসিল। হায়, এক্ষণে কে চিতোরের গরিমা রক্ষা করিবে? কেই বা চিতোরমহিষী পদ্মাবতীকে শত্রুর কলুষ স্পর্শ হইতে বাঁচাইবে? ...
  • আমার প্রতিবাদের শাড়ি
    আমার প্রতিবাদের শাড়িসামিয়ানা জানেন? আমরা বলি সাইমানা ,পুরানো শাড়ি দিয়ে যেমন ক্যাথা হয় ,গ্রামের মেয়েরা সুচ সুতো দিয়ে নকশা তোলে তেমন সামিয়ানাও হয় । খড়ের ,টিনের বা এসবেস্টাসের চালের নিচে ধুলো বালি আটকাতে বা নগ্ন চালা কে সভ্য বানাতে সাইমানা টানানো আমাদের ...
  • টয়লেট - এক আস্ফালনগাথা
    আজ ১৯শে নভেম্বর, সলিল চৌধুরী র জন্মদিন। ইন্দিরা গান্ধীরও জন্মদিন। ২০১৩ সাল অবধি দেশে এটি পালিত হয়েছে “রাষ্ট্রীয় একতা দিবস” বলে। আন্তর্জাতিক স্তরে গুগুল করলে দেখা যাচ্ছে এটি আবার নাকি International Men’s Day বলে পালিত হয়। এই বছরই সরকারী প্রচারে জানা গেল ...
  • মার্জারবৃত্তান্ত
    বেড়াল অনেকের আদরের পুষ্যি। বেড়ালও অনেককে বেশ ভালোবাসে। তবে কুকুরের প্রভুভক্তি বা বিশ্বাসযোগ্যতা বেড়ালের কাছে আশা করলে দুঃখ লাভের সম্ভাবনা আছে। প্রবাদ আছে কুকুর নাকি খেতে খেতে দিলে প্রার্থনা করে, আমার প্রভু ধনেজনে বাড়ুক, পাতেপাতে ভাত পড়বে আমিও পেটপুরে ...
  • বসন্তবৌরী
    বিল্টু তোতা বুবাই সবাই আজ খুব উত্তেজিত। ওরা দেখেছে ছাদে যে কাপড় শুকোতে দেয়ার একটা বাঁশ আছে সেখানে একটা ছোট্ট সবুজ পাখি বাসা বেঁধেছে। কে যেন বললো এই ছোট্ট পাখিটার নাম বসন্তবৌরী। বসন্তবৌরী পাখিটি আবার ভারী ব্যস্তসমস্ত। সকাল বেলা বেরিয়ে যায়, সারাদিন কোথায় ...
  • সামান্থা ফক্স
    সামান্থা ফক্সচুপচাপ উপুড় হয়ে শুয়ে ছবিটার দিকে তাকিয়েছিলাম। মাথায় কয়েকশো চিন্তা।হস্টেলে মেস বিল বাকি প্রায় তিন মাস। অভাবে নয়,স্বভাবে। বাড়ি থেকে পয়সা পাঠালেই নেশাগুলো চাগাড় দিয়ে ওঠে। গভীর রাতের ভিডিও হলের চাম্পি সিনেমা,আপসু রাম আর ফার্স্ট ইয়ার কোন এক ...
  • ইংরাজী মিডিয়ামের বাংলা-জ্ঞান
    বাংলা মাধ্যম নাকি ইংরাজী মাধ্যম ? সুবিধা কি, অসুবিধাই বা কি? অনেক বিনিদ্র রজনী কাটাতে হয়েছে এই সিদ্ধান্ত নিতে! তারপরেও সংশয় যেতে চায় না। ঠিক করলাম, না কি ভুলই করলাম? উত্তর একদিন খানিক পরিস্কার হল। যেদিন একটি এগার বছরের আজন্ম ইংরাজী মাধ্যমে পড়া ছেলে এই ...
  • রুশ বিপ্লবের ইতিহাস
    রুশ বিপ্লবের ইতিহাসরাশিয়ায় শ্রমিকশ্রেণির নেতৃত্বে রাষ্ট্র ক্ষমতা দখলের বিষয়টিকেই বলা হয় রুশ বিপ্লব। ১৯১৭ সালের ৭ নভেম্বর থেকে ১৭ নভেম্বর পর্যন্ত ‘দুনিয়া কাঁপানো দশদিন’ সময়পর্বের মধ্যে এই বিপ্লবের চূড়ান্ত পর্বটি সংগঠিত হয়েছিল।অবশ্য দুনিয়া কাঁপানো এই দশ ...

টুকরোটাকরা_৫

Arijit Guha

'শো ম্যান অফ দ্যা মিলেনিয়াম' এমনি এমনি হওয়া যায় না।সব তো আর হরলিক্স নয় যে লোকে রাজ কাপুরকে এমনি এমনি খাবে।রাজ কাপুর নিজেও হয়ত জানতেন না সিনেমার প্রতি তার দায়বদ্ধতা কোন জায়গায় নিয়ে গেছেন উনি।সেটা যারা তার সাথে কাজ করেছে তারাই বলতে পারে।তার লিপে কেউ যদি প্লে ব্যাক করেন তাহলে সেই শিল্পীর রিহার্সালের সময়টা পুরোটা থেকে গানটা তুলতেন এবং গান গাওয়ার সময় গায়ক কিভাবে অঙ্গভঙ্গি করেন সেগুলো খুব খুঁটিয়ে লক্ষ্য করতেন।এরপর গানটা যখন সিনেমায় ব্যাবহার করা হত তখন ঠিক সেই ভাবেই গানের সাথে এক্সপ্রেশনগুলো দিতেন যেগুলো গায়ক গান গাওয়ার সময় দিয়েছিলেন।
মেরা নাম জোকার সিনেমায় এ ভাই জারা দেখ কে চলো গানটা রিহার্সাল থেকে শুরু করে ফাইনাল টেক অবদি রাজ কাপুর পুরো সময়টা মান্না দের সাথে সাথে লেপ্টে থেকেছেন।যখনই সময় পেয়েছেন রাজ কাপুর বলছেন মান্না দে কে, 'দাদা এক জন জোকারের লাইফ খুন দুঃখের।তার হাসি দেখে লোকে হাসে তার বোকামি দেখে লোকে।হাসে এমনকি সে যখন দুঃখ পায় তখনো তার দুঃখ দেখে লোকে হাসে।আপনি গানটি এমনভাবে গান যাতে পথচলতি লোকে তার পাশের লোকের দিকে তাকিয়ে বলতে পারে 'এ ভাই জারা দেখ কে চলো'।প্রসঙ্গত রাজ কাপুরের এই কথার অনেক বছর পরে হাল আমলের একজন ছোট পর্দার কমেডি পারফর্মার একই কথা একটু অন্য ভাবে বলে একটা ঘটনার কথা বলেছিলেন।বলছিলেন লোকে।আমাদের কি ভাবে আমরা ভেবে পাই না।বন্ধুর বাবা মারা যাওয়ার পর বন্ধুর সাথে শ্মশানঘাটে যাওয়াতে ওখানে লোকজন ওনাকে ঘিরে ধরে বলছে দাদা কিছু একটা মজার জিনিস করে দেখান।তো যাই হোক, মান্না দে গানটার যেদিন ফাইনাল রেকর্ডিং করছেন সেদিন উনি দেখছেন রাজ কাপুর কাচের ঘরের বাইরে দাঁড়িয়ে গানটার সাথে লিপ মিলিয়ে নেচে নেচে অভিনয় করে চলেছেন।গানটার অসাধারণ পিকচারাইজেশন মনে আছে নিশ্চয়ই।লাগা চুনরি মে দাগ গানটার লিপ মেলানো দেখে মান্না দে পর্যন্ত নিজের চোখকে বিশ্বাস করতে পারেন নি যে গানটা উনি গেয়েছেন না রাজসাহেব।

লতা মঙ্গেশকর সাধারণত সব গানই একবার টেক করতেন এবং একবারেই ওকে হত।সত্যম শিবম সুন্দরম গানটা যখন গাওয়া হল, সেটা প্রথমবারে ওকে হল।সবাই শুনে লতাজির খুব প্রশংসাও করলেন খুব ভালো হয়েছে বলে।রাজকাপুর শুনেই একবারে নাকচ করে দিলেন।অন্য কোনো পরিচালক হলে হয়ত লতাজিকে কিছুই বলতে পারতেন না।কিন্তু রাজকাপুর অন্য ধরনের লোক।লতাজিকে এরপর ডেকে বললেন ওটা একটা দশ বারো বছরের মেয়ের গলায় গান।তোমাকেও ওরকম ভাবেই গাইতে হবে।
শিল্পীরা ঠিকই শিল্পীদের বোঝে।ওই কথা শোনার পর লতা মঙ্গেশকর দশ বছরের পদ্মিনী কোলাপুরিকে ডেকে তার সাথে অনেকক্ষণ ধরে নানান গল্প করে গেলেন।তারপর যখন গানটা গাইলেন কেউ বুঝতেও পারল না যে সত্যি ওটা কোন বাচ্চা মেয়ে গায় নি।



আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন