Manash Nath RSS feed

Manash Nathএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • তারার আলোর আগুন
    তারার আলো নাকি স্নিগ্ধ হয়, কাল তাহলে কেন জ্বলে মরল বারো, মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে আরো সত্তর জন! তবু মৃত্যু মিছিল অব্যাহত। আজও রাস্তায় পড়ে এক স্বাস্থ্যবান শ্যামলা যুবক, শেষবারের মতো ডানহাতটা একটু নড়ল। কিছু বলতে চাইল কি ? চারপাশ ঘিরে দাঁড়িয়ে থাকা সশস্ত্র ...
  • 'হারানো সজারু'
    ১এক বৃষ্টির দিনে উল্কাপটাশ বাড়ির পাশের নালা দিয়ে একটি সজারুছানাকে ধেইধেই করে সাঁতার কেটে যেতে দেখেছিল। দেখামাত্রই তার মনে স্বজাতিপ্রীতি ও সৌভ্রাতৃত্ববোধ দারুণভাবে জেগে উঠল এবং সে ছানাটিকে খপ করে তুলে টপ করে নিজের ইস্কুল ব্যাগের মধ্যে পুরে ফেলল। এটিকে সে ...
  • সেটা কোনো কথা নয় - দ্বিতীয় পর্ব - ত্রয়োদশ তথা অন্তিম ভাগ
    অবশেষে আমরা দ্বিতীয় পর্বের অন্তিমভাগে এসে উপস্থিত হয়েছি। অন্তিমভাগ, কারণ এরপর আমাদের তৃতীয় পর্বে চলে যেতে হবে। লেখা কখনও শেষ হয় না। লেখা জোর করেই শেষ করতে হয়; সেসব আমরা আগেই আলোচনা করেছি।তবে গল্পগুলো শেষ করে যাওয়া প্রয়োজন কারণ এই পর্বের কিছু গল্প পরবর্তী ...
  • প্রাণের মানুষ আছে প্রাণে..
    'তারা' আসেন, বিলক্ষণ!ক্লাস নাইনযষ্ঠীর সন্ধ্যে। দুদিন আগে থেকে বাড়াবাড়ি জ্বর, ওষুধে একটু নেমেই আবার উর্ধপারা।সাথে তীব্র গলাব্যাথা, স্ট্রেপথ্রোট। আমি জ্বরে ঝিমিয়ে, মা পাশেই রান্নাঘরে গুড় জ্বাল দিচ্ছেন, দশমীর আপ্যায়ন-প্রস্তুতি, চিন্তিত বাবা বাইরের ...
  • জীবনপাত্র উচ্ছলিয়া মাধুরী, করেছো দান
    Coelho র সেই বিখ্যাত উপন্যাস আমাদের উজ্জীবিত করবার জন্যে এক চিরসত্য আশ্বাসবাণী ছেড়ে গেছে একটিমাত্র বাক্যে, “…when you want something, all the universe conspires in helping you to achieve it.”এক এন জি ও'র বিশিষ্ট কর্তাব্যক্তির কাছে কাতর ও উদভ্রান্ত আবেদন ...
  • 'দাগ আচ্ছে হ্যায়!'
    'দাগ আচ্ছে হ্যায়!'ঝুমা সমাদ্দার।ভারতবর্ষের দেওয়ালে দেওয়ালে গান্ধীজির চশমা গোল গোল চোখে আমাদের মুখের দিকে চেয়ে থাকে 'স্বচ্ছ ভারত'- এর 'স্ব-ভার' নিয়ে। 'চ্ছ' এবং 'ত' গুটখা জনিত লালের স্প্রে মেখে আবছা। পড়া যায় না।চশমা মনে মনে গালি দিতে থাকে, "এই চশমায় লেখার ...
  • পাছে কবিতা না হয়...
    এক বিশ্ববন্দিত কবি , কবিতার চরিত্রব্যাখ্যায় বলেছিলেন, '... Spontaneous overflow of powerful feeling,it takes its origin from emotion recollected in tranquility'আমি কবি নই, আমি সুললিত গদ্য লিখিয়েও নই, শব্দ আর মনের ভাব প্রকাশ সর্বদা কলহরত দম্পতি রুপেই ...
  • মনীন্দ্র গুপ্তর মালবেরি ও বোকা পাঠক
    আমি বোকা পাঠক। অনেক পরে অক্ষয় মালবেরি পড়লাম। আমার একটি উপন্যাস চির প্রবাস পড়ে দেবারতি মিত্রর খুব ভাল লাগে। উনিই বললেন, তুমি ওনার অক্ষয় মালবেরি পড় নি? আজি নিয়ে যাও, তোমার পড়া বিশেষ প্রয়োজন। আমি সম্মানিত বধ করলাম। তাছাড়া মনীন্দ্র গুপ্ত আমার প্রিয় কবি প্রিয় ...
  • আপনি কি আদর্শ তৃণমূলী বুদ্ধিজীবি হতে চান?
    মনে রাখবেন, বুদ্ধিজীবি মানে কিন্তু সিরিয়াস বুদ্ধিজীবি। কথাটার ওজন রয়েছে। এই বাংলাতে দেব অথবা দেবশ্রী রায়কে যতজন চেনেন, তার দুশো ভাগের এক ভাগও দীপেশ চক্রবর্তীর নাম শোনেননি। কিন্তু দীপেশ বুদ্ধিজীবি। কবির সুমন বুদ্ধিজীবি। তো, বুদ্ধিজীবি হতে গেলে নিচের ...
  • উন্নয়নের তলায় শহিদদের সমঝোতা
    আশা হয়, অনিতা দেবনাথরা বিরল বা ব্যতিক্রমী নন। কোচবিহার গ্রামপঞ্চায়েতের এই তৃণমূল প্রার্থী তাঁর দলের বেআব্রু ভোট-লুঠ আর অগণতন্ত্র দেখে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, এই তামাশায় তাঁর তরফে কোনও উপস্থিতি থাকবে না। ভোট লড়লে অনিতা বখেরা পেতেন, সেলামি পেতেন, না-লড়ার জন্য ...


বইমেলা হোক বা নাহোক চটপট নামিয়ে নিন রঙচঙে হাতে গরম গুরুর গাইড ।

গুজবের পিছনে

Manash Nath

সবাই বলছে গুজবে কান দেবেন না, কিন্তু মানুষের ধর্মই হল গুজবে কান দেওয়া।আপনি একটা ভাল খবর দিন.. সেটা বন্ধুদের মধ্যেই থাকবে কিন্তু খারাপ খবর মূহুর্তের মধ্যে ছড়িয়ে পড়বে। আপনি ফেসবুকে দেখতে পেলেন আপনার এক বন্ধু লিখেছে দেগঙ্গাতে কি কিছু হচ্ছে? আপনি সেখানে গিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে জিজ্ঞাসা করলেন, আরো অনেকে করলো। একজন বলল হ্যাঁ হ্যাঁ, আমিও শুনেছি!! কি ব্যাপার কে জানে! আরো একজন প্রোফাইল এসে বলল আমার বাড়ি থেকে দশ কিলোমিটার, দাঙ্গার খবর আসছে!! আপনি মোটামুটি নিশ্চিন্ত হলেন যে খবরটার ভিত্তি আছে। উত্তেজনায় আর নিরাপত্তাহীনতায় দু চার জায়গায় ফোন করে খবরটা ছড়ালেন!

আপনি কি জানেন পরিকল্পিত ভাবে শুধু বাঙালি হিসেবে পঞ্চাশ হাজার ফেক প্রোফাইল তৈরি করা হয়েছে। বাংলাদেশের একটি হিন্দু ছেলে আপনাকে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠাল। বাংলাদেশ আপনার আবেগের জায়গা, দেখলেন ছেলেটির পরিবার বন্ধুবান্ধব এর ছবি আছে। স্কুল কলেজের নাম আছে। তারপর সে আপনার কবিতায় কমেন্ট করল... আপনার পুরী যাবার ছবিতে লাইক দিল... আপনিও তার লেখা কবিতায় লাইক দিলেন... ঠিকই তো আছে! একদিন সে শেয়ার করল আমাদের পাড়ার মন্দির মুসলমানেরা ভেঙ্গে দিয়েছে! আপনি কোন কাগজে টিভি চ্যানেলে এমন কোন খবর দেখেননি... কিন্তু আপনি তাকে বিশ্বাস করলেন!আর অজান্তেই একটা চক্রান্তে জড়িয়ে গেলেন!

হিন্দু প্রোফাইল থেকে মুসলমানকে গালাগালি করা হচ্ছে... মুসলমান প্রোফাইল দিয়ে হিন্দুকে গালাগাল করা হচ্ছে আমি আপনি দর্শক। এবার কতদিন এড়িয়ে যেতে পারবেন? আপনিও ঢুকে পড়লেন খেলাটায়.... আর দর্শক যখন খেলায় ঢুকে পড়ে তখনই এই খেলাটা সার্থক হয়ে ওঠে। আমাদের সামাজিক অবস্থান, শিক্ষাদীক্ষা, রুচি সব ভুলে আমরাও এই গালাগালি ঘেন্নাতে মেতে উঠি।নিজেদের অজান্তেই আমরা হয়ে উঠতে থাকি একজন গোঁড়া একজন মৌলবাদী। একজন চাড্ডি, মাকু, ছাগু।

ভারতীয় মিডিয়া খুব যথাযথ ভাবেই দাঙ্গা বা ধর্মীয় উত্তেজনার খবর পরিহার করে। দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতা তাকে এর থেকে বিরত থাকা শিখিয়েছে। নতুন গজানো এই সোশাল মিডিয়া তাই মৌলবাদীদের কাছে এমন গুজব আর তিলকে তাল করার জন্য শ্রেষ্ঠ মাধ্যম হয়ে দাঁড়িয়েছে।

আমি এদেশের একজন সাধারণ মানুষ। কোন রাজনৈতিক দলের সদস্য নই কোনদিন ছিলাম ও না।আমি কোন ইজমের দাস নই। মনে করি এখনো পর্যন্ত গনতন্ত্রের কোন বিকল্প নেই। যখন যাকে সর্বাধিক উপযুক্ত মনে করি তাকে ভোট দিই। মনে না হলে দি না। শাসক দলের সমালোচনা করার পূর্ণ অধিকার আমার আছে। সোশাল মিডিয়া একটা সামাজিক প্ল্যাটফর্ম, সব রাজনৈতিক দলই এখানে প্রোপাগান্ডা করার চেষ্টা করে। কংগ্রেস, সিপিএম, তৃণমূল সবারই সাইবার সেল আছে কমবেশি।কিন্তু এই খেলায় বিজেপি সবাইকে টেক্কা দিয়েছে।নির্বাচন বিশেষজ্ঞ প্রশান্ত কিশোরের পরামর্শে এবং নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে বিজেপি প্রায় একশো কোটি টাকা সাইবার সেলের পিছনে ইনভেস্ট করে। দেশ জুড়ে অসংখ্য ফেক প্রফাইল আর ওয়েবসাইট বানানো হয় যারা দিনরাত প্রোপাগান্ডা ছড়াতে থাকবে। দরকার মত বিভিন্ন ফেক নিউজ, ভিডিও তৈরি করবে। পোস্টার মিম বানাবে সেগুলো ফেক প্রোফাইল দিয়ে ফেসবুকে আর সেখান থেকে হোয়াটস এ্যাপে ছড়াবে। এখানে একটা লিংক দিচ্ছি একটু দেখতে পারেন।
http://amp.indiatimes.com/news/india/bjp-leader-s-kin-alleged-it-cell-
member-among-11-arrested-for-running-isi-spy-ring-in-madhya-pradesh-27
1308.html

এটাও দেখুন
http://www.india.com/news/india/bjp-it-cell-chief-social-media-attacks
-against-narendra-modi-critics-not-directed-by-us-528105/amp/


আমার অনেক বন্ধু মনে করেন পথই হল আসল পথ। রাস্তায় নেমেই মৌলবাদের বিরুদ্ধে লড়াই করতে হবে, প্রতিবাদ করতে হবে। আমি তাদের বলবো সাইবার স্পেসের এই লড়াইটাকে হেলাফেলা করবেন না বন্ধু।সস্তা মোবাইল আর ফ্রি ইন্টারনেটের দৌলতে দেশের কোনায় কোনায় এক মুহুর্তে একটা খবর পৌছে যাচ্ছে। পেড নিউজ, ফেক ভিডিও কি তা কিন্তু অধিকাংশ মানুষ জানে না...মোবাইলে ভেসে আসা ছবি খবরকে তারা বেদবাক্য হিসেবে ধরে নিচ্ছেন।
এই প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়েই আইকন গড়ে তোলা হচ্ছে।নরেন্দ্র মোদির ইমেজ এই সোশাল মিডিয়াতেই গড়ে তোলা হয়েছে।

আজ আমার আপনার ফ্রেন্ডলিস্ট গাদা গাদা ফেক প্রোফাইলে ভরে গেছে। স্বাস্থ্য নিয়ে, শিক্ষা নিয়ে, অর্থনীতি নিয়ে প্রশ্ন তুললেই ধর্মীয় আইডেন্টিটি নিয়ে কূট তর্ক জুড়ে দেওয়া হচ্ছে। যেন ধর্ম ছাড়া আর কোন সমস্যা দেশে নেই। গোলপোস্ট সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। হিন্দু সংহতি হিন্দু নিরাপত্তাহীনতা নিয়ে নানান খবরে উদ্বিগ্ন বন্ধুটি হয়ত এই প্ররোচনায় পা দিয়ে ফেলেছে। বামফ্রন্টের ব্যর্থতা আর তৃণমূলের অপদার্থতা হয়ত তাকে বিজেপির দিকে ঝুঁকিয়েছিল কিন্তু সোশাল মিডিয়া তাকে মৌলবাদী বানিয়ে দিল!! তার রাগ হতাশা ঘৃণাকে অন্য একটি সম্প্রদায়ের দিকে ঘুরিয়ে দিয়ে দাঙ্গা করতে প্ররোচনা দিলো। এখানে একটা ভিডিও শেয়ার করলাম একটু দেখলে বুঝতে পারবেন বিজেপির সাইবার সেল কি ভাবে কাজ করে। কিভাবে ফেক নিউজ ছড়ায়।
https://youtu.be/sqr3aQ4XcDI

শেয়ার করুন


Avatar: pi

Re: গুজবের পিছনে

একেবারেই তাই।
Avatar: dc

Re: গুজবের পিছনে

এইজন্যই আমি ফেবু ব্যাবহার করিনা। আমার ফেবু প্রোফাইলে একটাও বন্ধু নেই। একবার গুরুর ফেবুর মেম্বার হয়েছিলাম, সেখান থেকেও কদিন পর পালিয়েছি।
Avatar: i

Re: গুজবের পিছনে

সে তো আমিও ফেবু তে নাই। কিন্তু ওয়াট্স অ্যাপে তো এই সব মেসেজ আসতেই থাকে গ্রুপে। শিক্ষিত মানুষজন সেই সব নাগাড়ে শেয়ার করেন বিন্দুমাত্র চিন্তাভাবনা না করে। গ্রুপ ছেড়ে দেওয়া কোনো কাজের কথা নয় এখন। আগে হলে ছেড়ে দিতাম। এখন এরকম মেসেজ চোখে পড়লেই যিনি শেয়ার করছেন তাঁকে জিগ্যেস কোরি-তিনি কি ভেবে এটি শেয়ার করলেন? যা লেখা আছে তা তিনি বিশ্বাস করেন? করলে কেন? তিনি আদৌ মেসেজটি পড়েছেন? ইত্যাদি।
কাজ হচ্ছে এখনও অবধি।
Avatar: dc

Re: গুজবের পিছনে

হোয়াটসঅ্যাপেও আমি খুব কম কয়েকটা গ্রুপের মেম্বার, একেবারে চেনা বন্ধুবান্ধব বা আত্মীয়দের গ্রুপ ইত্যাদি। হ্যাঁ, এরকম গ্রুপেও মাঝে মাঝে উদ্ভট মেসেজ চলে আসে, তখন আমিও সেটা নিয়ে রিপ্লাই দি। তবে সবরকম সোশ্যাল মিডিয়ায় ইন্টারয়াকশান যতোটা সম্ভব সীমিত রাখি।
Avatar: কল্লোল

Re: গুজবের পিছনে

কেউ ব্যক্তিগতভাবে ফেবু পছন্দ নাই করতে পারেন। কিন্তু তাতে বিপদ কমে না।
এই ধরনের কিছু চোখে পড়লে তার প্রতিবাদ করুন। অন্তত এটুকু করুন।

Avatar: pi

Re: গুজবের পিছনে

ডিসি, দ্বার বন্ধ করে ভ্রমটারে রুখি, সত্য বলে আমি তবে ইত্যাদি ঃ)
Avatar: dc

Re: গুজবের পিছনে

:d
Avatar: SS

Re: গুজবের পিছনে

গুজব বা ফেক নিউজ কি করতে পারে এইবারের ইউএস ইলেকশনের অ্যানালিসিস করলেই বোঝা যাবে। যাই হোক, গুগল একটা ফ্যাক্ট চেকিং টুল ইনকর্পোরেট করছে সার্চ রেজাল্টের সাথে। আশা করছি ফেসবুকও খুব তাড়াতাড়ি এইরকম কিছু একটা করবে।
https://www.theguardian.com/technology/2017/apr/07/google-to-display-f
act-checking-labels-to-show-if-news-is-true-or-false



আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন