রৌহিন RSS feed

রৌহিন এর খেরোর খাতা। হাবিজাবি লেখালিখি৷ জাতে ওঠা যায় কি না দেখি৷

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • সুইডেনে সুজি
    আঁতুরঘরের শিউলি সংখ্যায় প্রকাশিত এই গল্পটি রইল আজ ঃদি গ্ল্যামার অফ বিজনেস ট্রাভেল সুইডেনে সুজি#############পিও...
  • প্রাইভেট ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজঃ সর্বজয়া ভট্টাচার্য্যের অভিজ্ঞতাবিষয়ক একটি ছোট লেখা
    টেকনো ইন্ডিয়া ইউনিভারসিটির এক অধ্যাপক, সর্বজয়া ভট্টাচার্য্য একটি পোস্ট করেছিলেন। তাঁর কলেজে শিক্ষকদের প্রশ্রয়ে অবাধে গণ-টোকাটুকি, শিক্ষকদের কোনও ভয়েস না থাকা, এবং সবথেকে বড় যেটা সমস্যা, শিক্ষক ও ছাত্রদের কোনও ইউনিয়ন না থাকার সমস্যা নিয়ে। এই পর্যন্ত নতুন ...
  • চিরতরে নির্বাসিত হবার তো কথাই ছিল, প্রিয় মণিময়, শ্রী রবিশঙ্কর বল
    "মহাপৃথিবীর ইতিহাস নাকি আসলে কতগুলি মেটাফরের ইতিহাস"। এসব আজকাল অচল হয়ে হয়ে গেছে, তবু মনে পড়ে, সে কতযুগ আগে বাক্যটি পড়ি প্রথমবার। কলেজে থাকতে। পত্রিকার নাম, বোধহয় রক্তকরবী। লেখার নাম ছিল মণিময় ও মেটাফর। মনে আছে, আমি পড়ে সিনহাকে পড়াই। আমরা দুজনেই তারপর ...
  • বাংলা ব্লগের অপশব্দসমূহ ~
    *সংবিধিবদ্ধ সতর্কীকরণ: বাংলা ব্লগে অনেক সময়ই আমরা যে সব সাংকেতিক ভাষা ব্যবহার করি, তা কখনো কখনো কিম্ভুদ হয়ে দাঁড়ায়। নতুন ব্লগার বা সাধারণের কাছে এসব অপশব্দ পরিচিত নয়। এই চিন্তা থেকে এই নোটে বাংলা ব্লগের কিছু অপশব্দ তর্জমাসহ উপস্থাপন করা হচ্ছে। বলা ভালো, ...
  • অ্যাপ্রেজাল
    বছরের সেই সময়টা এসে গেল – যখন বসের সাথে বসে ফর্মালি ভাঁটাতে হবে সারা বছর কি ছড়িয়েছি এবং কি মণিমুক্ত কুড়িয়েছি। এ আলোচনা আমার চিরপরিচিত, আমি মোটামুটি চিরকাল বঞ্চিতদেরই দলে। তবে মার্ক্সীস ভাবধারার অধীনে দীর্ঘকাল সম্পৃক্ত থাকার জন্য বঞ্চনার ইতিহাসের সাথে আমি ...
  • মিসেস গুপ্তা ও আকবর বাদশা
    এক পার্সি মেয়ে বিয়ে করলো হিন্দু ছেলেকে। গুলরুখ গুপ্তা তার নাম।লভ জিহাদ? হবেও বা। লভ তো চিরকালই জিহাদ।সে যাই হোক,নারীর ওপর অবদমনে কোন ধর্মই তো কম যায় না, তাই পার্সিদেরও এক অদ্ভুত নিয়ম আছে। ঘরের মেয়ে পরকে বিয়ে করলে সে স্বসম্প্রদায়ের ধর্মীয় অনুষ্ঠানে অংশ ...
  • সমবেত কুরুক্ষেত্রে
    "হে কৃষ্ণ, সখা,আমি কীভাবে আমারই স্বজনদের ওপরে অস্ত্র প্রয়োগ করবো? আমি কিছুতেই পারবো না।" গাণ্ডীব ফেলে দু'হাতে মুখ ঢেকে রথেই বসে পড়েছেন অর্জুন আর তখনই সেই অমোঘ উক্তিসমূহ...রণক্ষেত্...
  • আলফা গো জিরোঃ মানুষ কি সত্যিই অবশেষে দ্বিতীয়?
    আরও একবার বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি আমাদের এই চিরন্তন প্রশ্নটার সামনে এনে দাঁড় করিয়েছে -- আমরা কিভাবে শিখি, কিভাবে চিন্তা করি। আলফা গো জিরো সেই দিক থেকে টেকনোক্র্যাট দের বহুদিনের স্বপ্ন পূরণ।দাবার শুধু নিয়মগুলো বলে দেওয়ার পর মাত্র ৪ ঘণ্টায় শুধু নিজেই নিজের সাথে ...
  • ছড়া
    তুষ্টু গতকাল রাতে বলছিলো - দিদিভাই,তোমার লেখা আমি পড়ি কিন্তু বুঝিনা। কোন লেখা? ঐ যে - আলাপ সালাপ -। ও, তাই বলো। ছড়া তো লিখি, তা ছড়ার কথা যে যার মতো বুঝে নেয়। কে কবে লিখেছে লোকে ভুলে যায়, ছড়াটি বয়ে চলে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে। মা মেয়েকে শেখান, ...
  • ঘিয়ে রঙের চৌবনি বা ভ্রমরগাথা
    বাতাসের গায়ে লেখা (Wriiten on the Wind) নামে ছবি ছিল একটা। টসটসে রোদ্দুরের মতন ঝাঁ আর চকচকে মতন। বাতাসের গায়ে লেখা। আসলে প্রতিফলকের চকচকানি ওটা। যার ওপরে এসে পড়বে আলোর ছটা। বা, সঙ্গীতের মূর্ছনা। কিছু একটা সাজানো হবে মনে কর। তার মানে তার পোয়া বারো। এবারকার ...

গুরুচণ্ডা৯র খবরাখবর নিয়মিত ই-মেলে চান? লগিন করুন গুগল অথবা ফেসবুক আইডি দিয়ে।

প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

রৌহিন

গত তিনদিন ধরে ফেসবুকের আকাশে বাতাসে ঘুরে বেড়াচ্ছে সেই অমোঘ বানী – অমর্ত্য সেন বলেছেন তালাকের ফলে মাত্র ১.৩% মুসলিম মহিলা বিচ্ছিন্না এবং ক্ষতিগ্রস্ত, অতএব তিন তালাক কোন সমস্যাই নয়। অমর্ত্য বামপন্থী (পড়ুন বামৈস্লামিক) বুদ্ধিজীবি বলেই এমন অসংবেদী কথা বলতে পারেন। এতেই প্রমাণ হল বামেরা কেবল মুসলিম তোষণকেই ধর্মনিরপেক্ষতা বোঝেন। তারা সিউডো সেকুলার। ইত্যাদি, প্রভৃতি।
প্রথমে একটু বিষয়টা বোঝা প্রয়োজন। কতটা সত্যি, কতটা জল, ইত্যাদি। ঘটনা হল প্রাতীচী ট্রাস্টের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে এই স্টাডি লিঙ্কটি নেই। সেটা সম্ভবত: প্রাতীচীরই গাফিলতি – ওএবসাইটটি আপডেটেড নয়। অতএব আমাদের ভরসা এ বিষয়ে টাইমস অফ ইন্ডিয়ায় প্রকাশিত একটি রিপোর্ট। http://m.timesofindia.com/city/kolkata/Death-not-talaq-does-them-part-
in-Bengal/articleshow/55934400.cms

এই রিপোর্ট ফার্স্ট হ্যান্ড নয় কিন্তু কয়েকটা ব্যপার এখান থেকে বোঝাই যায়। প্রথমত: প্রাতীচী ট্রাস্ট শুধু তার অবজার্ভেশনটুকু প্রকাশ করেছেন – নিরীক্ষার ফলাফল। এটা সমস্যা কি না এ নিয়ে বক্তব্য রাখেননি। রেখে থাকলে সেটা এমনিতেও পদ্ধতিগত ভুল ধরা হত কারণ এই ধরণের সমীক্ষা থেকে কোন সিদ্ধান্তে আসা সম্ভব নয় – তা করাও হয় না। দ্বিতীয়ত:, অমর্ত্য এ বিষয়ে আদৌ কিছু বলেনি, তার সংস্থা একটা সমীক্ষা প্রকাশ করেছে মাত্র। এটাকে অমর্ত্যর বক্তব্য বলে প্রচার করলে এরপর থেকে দিলীপ ঘোষের কথাও মোদীর বক্তব্য হিসাবে প্রচার পেতে পারে। তৃতীয়ত:, ১.৩% র হিসাব কোন ডেটা সেটে সেটা পরিষ্কার জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।
এই সমীক্ষার বাইরেও একটা বিরাট বড় সমাজ আছে। তাতে মুসলমান বলে একটা সম্প্রদায় আছে। গরীব বলেও একটা সম্প্রদায় আছে। তাদের নিয়ে শহুরে বাবুদের, শাইনিং পরহিতাকাঙখী মধ্যবিত্তদের, হিন্দুত্ববাদী সংখ্যাগুরু সমাজের বিপুল পরিমাণ মাথাব্যথাও আছে। তিন তালাকের ফলে গরীব মুসলমান নারী কত কষ্টে আছে সে কথা ভেবে কয়েক পুকুর জল এদের চোখ দিয়ে গড়িয়েও গেছে। তা সেই সমাজকে আমরা কে কে দেখেছি কাছ থেকে? আমার নিজের দেখা খুব কম – আমি সমাজসেবক কোনদিন ছিলাম না – বিপ্লবী হবার শৌখিন মজদুরির শখও বহুদিন হল ঘুঁচেছে। তবে আমাদের পৈতৃক বাড়ি, যা এককালে গন্ডগ্রামই ছিল এখন কালের চাকায় চড়ে মফস্বলের দোরগোড়ায় উপনীত, সেখানে আমাদের বাড়ির পরেই শুরু হয় মুসলমান পাড়া। চেনা খুব সহজ। পাকা রাস্তা এবং ইলেক্ট্রিকের পোল, এখনো, আমাদের বাড়িতে এসেই শেষ হয়ে যায়। আগে মুসলমান পল্লী। গরীব মুসলমান পরিবার সব। আর কাজের সূত্রে কিছু গ্রামে গঞ্জে ঘুরে ফিরে দেখা কিছু পরিবার। তাদের দুয়েকজনের ঘরে পাত পেড়ে খেতেও হয়েছে কখনো সখনো বাধ্য হয়ে। আমার ভদরলোকি উঁচু নাক সিঁটকে রেখে। তা এটুকুই চেনা জানা। তালাকপ্রাপ্তা কারোর সাথে আলাপ হয়নি। নির্যাতিতা অসহায় নারী অনেক দেখেছি। এগুলো তথ্য হিসাবে অকিঞ্চিৎকর।
গুণীজনেরা বলবেন এত সারকাজম লেখার মান নষ্ট করে – এতটার প্রয়োজন ছিল না। আমার মতে ছিল। ছিল কারণ শাইনিং মধ্যবিত্ত এবং হিন্দুত্ববাদীদের এই হঠাৎ করে তালাক দরদী হয়ে ওঠায় আমি নির্যাতিতার পাশে দাঁড়ানোর সদিচ্ছা আদৌ দেখতে পাচ্ছি না। এটা নেহাৎই একটা রাজনৈতিক বক্তব্য, কারণ তাদের নিজেদের মহিলাদের জন্য এভাবে তাদের প্রাণ কাঁদে না। তাদের ঘরে এখনো “পরম্পরা”র নামে, “ভারতীয় সংস্কৃতি”র নামে নারী নির্যাতনের চাষ। এবং এই অছিলায় তিন তালাকের বিরোধিতা করার নামে একই সাথে একটু ইসলামকে গালিও দেওয়া গেল আবার অভিন্ন দেওয়ানী আইনের হয়ে একটু দালালীও করে নেওয়া গেল। চালনি বলে ছুঁচকে ---
বামপন্থীদের এই প্রসঙ্গে কী অবস্থান, এটা এই মুহুর্তে বেশ জটিল প্রশ্ন। কারণ বামপন্থী কারা, বামপন্থাই বা সঠিক কোনটা, এ নিয়ে দ্বন্দ্ব ও ধন্ধ অব্যাহত। আমি আমার মত করে বামপন্থার সংজ্ঞা স্থির করেছি এবং সেই সংজ্ঞা অনুযায়ী আমি নিজেকে বাম বলে মনে করি। অতএব এ বিষয়ে আমার ব্যক্তিগত অবস্থানটুকু বলব যা আমার ধারণানুযায়ী বামপন্থার বক্তব্য। এই বক্তব্যের দায় অন্য কোন বামপন্থী নাই নিতে পারেন।
১। তিন তালাক প্রথা সমর্থন করিনা। কারণ তা বর্তমান রূপে লিঙ্গ নিরপেক্ষ নয়, নারীবিরোধী। এই প্রথার পরিবর্তন চাই। যে মুসলিম মহিলারা এবং তাঁদের যেসব সহযোগীরা এজন্য মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ড এবং ভারতীয় আইন ব্যবস্থার বিরুদ্ধে লড়ছেন তাঁদের সমর্থন করি।
২। অভিন্ন দেওয়ানি আইন সমর্থন করিনা। কারন ভারতীয় আইন বর্তমান রূপে প্রচুর অসঙ্গতিপূর্ণ এবং নিজেই লিঙ্গ নিরপেক্ষ নয়। এই আইনের আমূল সংস্কার না হওয়া অবধি অভিন্ন দেওয়ানী আইন আসলে হিন্দু আইনই। তা সমদর্শী নয়।
৩। মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ড, হিন্দু আনডিভাইডেড ফ্যামিলি এক্ট, ম্যারেড উওম্যান এক্ট – এগুলির বিলুপ্তি চাই। পরিবর্তে এগুলির নতুন বিকল্প চাই যারা আধুনিক আইন ব্যবস্থা ও জীবনধারার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ হবে।
৪। আদিবাসীদের নিজস্ব বিচার ব্যবস্থা বা সালিশী সভার বিলুপ্তি চাইনা। কিন্তু সেই সভায় কোন বহিরাগতের কোনরকম প্রভাব থাকা চলবে না। কৌমের বাইরের কারো বিচার সালিশী সভায় চলবে না।
৫। সমাজের সমস্ত স্তরে সব রকম লিঙ্গভিত্তিক নির্যাতনের অন্ত চাই। শুধু নারীর ওপর নির্যাতন নয়, সমকামী, রূপান্তরকামী, রূপান্তরিত, উভকামী, হিজড়া, ইত্যাদিদের প্রতি সহমর্মী এবং সমতাপূর্ণ আইন চাই।
এগুলো আমার চাওয়া – আমার মতে বামপন্থী হিসাবে। অবস্থান। সংখ্যাগুরুর আগ্রাসনের বিরুদ্ধে। শাইনিং ইন্ডিয়ার বিরুদ্ধে। রাষ্ট্রক্ষমতার দম্ভের বিরুদ্ধে। আমার দেশের মানুষের পক্ষে।

শেয়ার করুন


মন্তব্যের পাতাগুলিঃ [1] [2] [3] [4] [5] [6] [7] [8] [9] [10]   এই পাতায় আছে 141 -- 160
Avatar: Atoz

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

আরে ক্রিমিনাল অ্যাক্ট ও তো তাই। এককালে পাথর ছুঁড়ে হত্যা করা, স্বামীর চিতায় জ্যান্ত স্ত্রীকে পুড়িয়ে মারা, জগন্নাথের রথের চাকার সামনে পড়ে স্বেচ্ছায় প্রাণ দেওয়া, ডুয়েল লড়ে বিবাহ- প্রতিদ্বন্দ্বীকে মেরে ফেলা, বীরত্ব প্রমাণ রাখতে যুদ্ধবন্দীদের মাথা কেটে মিনার বানানো, এসবও তো আইন ছিল, আহা জনগোষ্ঠীর নিজস্ব ইয়ে মানে স্বাতন্ত্র দেখাতে হবে না?
এবারে ভাবুন, এইসব ব্যাপারগুলো, জনগোষ্ঠীর নিজস্ব স্বাতন্ত্র বৈচিত্র ইত্যাদির দোহাই দিয়ে চালু রাখতে পারেন না কেন? কেন সেই ক্ষেত্রে একটা কথাও বলতে পারেন না? কারণ গায়ে লাগছে, ওসব সিরিয়াস ব্যাপার, মানুষের প্রাণ নিয়ে টানাটানি। তাই তখন কম্প্রোমাইজ করে ফ্যালেন। কিন্তু স্বাতন্ত্র বৈচিত্র ইত্যাদির দোহাই দিয়ে আদিবাসীদের জন্য আলাদা সিভিল কোড রাখতে চান, যাতে "ওদের" পিছিয়ে রাখা যায় ঐ চক্করে ফেলে। নিজেদের গায়েও লাগলো না, এদিকে আপদগুলো টিট হয়েও রইল। সাপও মরলো, লাঠিও অক্ষত রইল।

Avatar: Atoz

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

আর, ঐ ডিভোর্সের চক্করে পড়বে না বলেই তো লোকটা মুসলমান হয়ে গেল! বৌ হিন্দু হোক কি মুসলমান কি ক্রিশ্চান কি বৌদ্ধ----কী আসে যায়? ও তো ডিভোর্স করবে না বৌ কে। ঐ বৌ রেখেই আর এক বিয়ে করবে নাকের ডগায় কাঁচকলা দেখিয়ে। মোটেই দু নম্বর বিয়ে নাল ভয়েড না, কারণ মুসলমানের বহু-বিবাহের আইনী বৈধতা রয়েছে।
Avatar: ছোটোলোক

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

নতুন করে ভাবতে চান না কেন রঞ্জনবাবু? নতুন করে ভাবতে ক্ষতিটা কোথায়? পুরোনো দিনে যা যা হয়েছে এমনি আইনের বিবর্তনও- সমস্তই নতুন করে ভাবা হয়েছিল বলেই তো। নইলে যুগ যুগ ধরে বস্তাপচা পুরোনো সবকিছুই তো চলতে থাকবে তাই না? যেমন মনে করুন, স্ত্রীর নামের আগে w/o লেখা হতে থাকবেই।
Avatar: ranjan roy

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

@ এতোজ,
"মোটেই দু নম্বর বিয়ে নাল ভয়েড না, কারণ মুসলমানের বহু-বিবাহের আইনী বৈধতা রয়েছে।"
--তাহোলে যখন ধর্মেন্দ্র/ মহেশ ভাট ঠিক আপনার লাইনে ভেবে মুসলমান হোয়ে দ্বিতীয় বিয়ে করলেন--সেগুলো সুপ্রীম কোর্ট নাল অ্যান্ড ভয়েড কোরে দিল কেন?
@ ছোটোলোক,
কেন নতুন কোরে ভাবব না? তাহলে তিন তালাক কে ছেঁটে ফেলার কথা কেন বলতাম? শুধু বলতে চাইছি যে আমি/আপনি ভাবলেই একটি কম্যুনিটির সংস্কার/ সংস্কৃতি/ রীতিনীতি (কখনও কখনও আমাদের চোখে হাস্যকর হলেও) বদলানো যায় না। আইন করলেও হয় না। গ্রামে নাবালিক বিয়ের জন্যে কজন বাপ/মাকে জেলে পোরা হয়। অথচ প্রতিবছর হচ্ছে। ধীরে ধীরে কমছে। আসলে সচেতনতা বাড়ছে। প্রতিরোধ / প্রতিবাদ বাইরে থেকে করা যথেষ্ট নয়। বিপ্লব রপ্তানী করা যায় না।
আবার বলছি, ক্রিমিনাল আইন--রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অপরাধ ঠেকাতে। আর সিভিল ব্যক্তির সঙ্গে ব্যক্তির বিরোধ মেটাতে। তফাৎ টা প্লীজ খেয়াল করুন।

মাইরি আর কোন তর্ক করব না। মাক্কালী!!
Avatar: মাইরি

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

"শুধু বলতে চাইছি যে আমি/আপনি ভাবলেই একটি কম্যুনিটির সংস্কার/ সংস্কৃতি/ রীতিনীতি (কখনও কখনও আমাদের চোখে হাস্যকর হলেও) বদলানো যায় না। আইন করলেও হয় না। " - শুধুই কি হাস্যকর ? "ক্রিমিনাল আইন--রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অপরাধ ঠেকাতে। আর সিভিল ব্যক্তির সঙ্গে ব্যক্তির বিরোধ মেটাতে।" - তাহলে অন্য সংখ্যালঘুকম্যুনিটির সংস্কার/ সংস্কৃতি/ রীতিনীতি কি দোষ করলো ,তাদের তো কোনো অসুবিধে নেই একই সিভিল আইন মানতে ? পুরুষতান্ত্রিক অমানবিক প্রথা গুলোকেও কবে সচেতনতা বাড়বে ভেবে চুপ করে দেখবেন আর মনকে স্তোকবাক্য দেবেন "প্রতিরোধ / প্রতিবাদ বাইরে থেকে করা যথেষ্ট নয়। বিপ্লব রপ্তানী করা যায় না।"
Avatar: দ

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

Avatar: ছোটোলোক

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

এই কেসটা নিয়ে খুব আলোচনা হচ্ছে। টিভিতে দেখাচ্ছিল।

Avatar: Atoz

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

আরে রঞ্জনদা, কোথাকার কোন্‌ ভাট না ধর্মেন্দ্র না অসুরেন্দ্র এইসব দেখে কী করবো? বলুন যে মুসলমান পুরুষের বহু স্ত্রী রাখা ভারতীয় আইনে স্বীকৃত নাকি স্বীকৃত নয়? সরাসরি হ্যাঁ কিংবা না করে উত্তর দিন।
Avatar: d

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

মহেশ ভাট, ধর্মেন্দ্র দুজনেই ভারতের নাগরিক, যা করেছেন এবং যা যা হয়েছে সবই ভারতীয় আইন, আইনের ফাঁকফোকর , ভারতীয় সমাজ ইত্যাদিতেই হয়েছে।
'কোথাকার কোন' সুদূর দেশে বা সুদুর গ্রহে হয় নি। কাজেই অপ্রাসঙ্গিক কিছু নয়।
Avatar: ranjan roy

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

@এতোজ,
"বলুন যে মুসলমান পুরুষের বহু স্ত্রী রাখা ভারতীয় আইনে স্বীকৃত নাকি স্বীকৃত নয়? সরাসরি হ্যাঁ কিংবা না করে উত্তর দিন।"
--- ও রে বাবা! আদালত বসিয়ে দিলেন যে!ঃ))
এটা তো পাবলিক ডোমেইনে আছেই যে মুসলিম বিবাহ আইনে অধিকতম চার স্ত্রী স্বীকৃত; কিন্তু সিভিল বা স্পেশাল ম্যরেজ অ্যাক্টে নয়।
কিন্তু আমার পয়েন্টটা মিস করেছেন। অভ্যু'র প্রশ্নে-- খোরপোষের দায়িত্ব এড়াতে মুসলমান হওয়া-- জাঠ ও ভাটের উদাহরণ প্রাসংগিক এই জন্যে যে মহামান্য সুপ্রীম কোর্ট কেবল আইনের ফাঁক দিয়ে ব্যক্তিগত সুবিধে নেওয়ার জন্যে ধর্মান্তরণ করে বিয়েকে অবৈধ ঘোষণা করে দিয়েছেন-- ওইসব উদাহরণ তুলেই। কাজেই অভ্যুর কাল্পনিক উদাহরণ সংগত নয়।
Avatar: Atoz

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

আরে কী জ্বালা! ধর্মান্তরণ কীসের জন্য সেটা সেই লোক বলতে যাবে কোন্‌ দুঃখে? সে তো বলবে পরম প্রেমময় দর্শন অথবা দুঃখীর দুঃখে একাত্ম হবার জন্য ইত্যাদি ইত্যাদি।

কিন্তু আসল কথা হল আইনে আছে চার স্ত্রী স্বীকৃত। এইটা এড়িয়ে যাবার রাস্তা কোথায়?
Avatar: nari

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

শুধু তো তাৎক্ষণিক তালাক নয়,বহুবিবাহ ও তো একটা পুরুষতান্ত্রিক কুপ্রথা। এককালে হিন্দুসমাজেও বহুল প্রচলিত ছিল জোর করে বন্ধ করতে আইন করা হয়েছে । মহিলা সন্তানের সম্পত্তির অধিকার থেকে বঞ্চিত করাও আরেকটা কুপ্রথা । সামাজিক সংস্কারের অপেক্ষায় আরো কত বছর এই কুপ্রথা গুলো চলবে ? প্রগতিশীল মুসলিম মেয়েদের মতকে গুরুত্ব দিতে হবে । দেশের আইনবলেই ধর্মবর্ণ নির্বিশেষে মহিলাদের তাদের আইনি অধিকার দিতে হবে, দরকারে জোর করেই।
Avatar: ranjan roy

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

নারী,
আপনার সঙ্গে ১০০% সহমত। সমস্ত রকম জেন্ডার বায়াসড্‌ এবং নারীবিদ্বেষী ও অমানবিক প্রথাগুলোকে বদলাতে হবে। বহুবিবাহ, বালিকাবিবাহ, তিনতালাক সবকিছুই। এমনকি সম্পত্তিতে মেয়েদের সমানাধিকার।
যদি হিন্দু সম্পত্তির আইনের সংশোধনে দেখবেন এখনও পারিবারিক সম্পত্তিতে মেয়েদের অধিকার ঠিক ভাইদের মতন সমান নয়। এগুলো হয়েছে এবং হবে পুরুষের বদান্যতায় নয়, মেয়েদের কন্ঠস্বরে ওজন বাড়লে।
আমার বক্তব্য শুধু ইউনিফর্ম সিভিল কোডই এর সঠিক নিদান-- এই কথাটির বিরুদ্ধে। কারণ সিভিল কোড শুধু বিয়ে, তালাক ও সম্পত্তির অধিকারেই সীমিত নয়।


Avatar: ranjan roy

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

@মাইরি,
১)"তাহলে অন্য সংখ্যালঘুকম্যুনিটির সংস্কার/ সংস্কৃতি/ রীতিনীতি কি দোষ করলো ,তাদের তো কোনো অসুবিধে নেই একই সিভিল আইন মানতে ?"
--- তাই কি? তাহলে সিভিল ম্যারেজ অ্যাক্ট থাকলেও ক'জন শিখ/বৌদ্ধ/ক্রিশ্চান/জৈন এবং আদিবাসী সম্প্রদায় তাতে রেজিস্ট্রি করে বিয়ে করেন আর ক'জন নিজেদের সংস্কার/সংস্কৃতি অনুযায়ী বিয়ে করেন--ভেবে বলুন।

২)

@ মাইরি,
"পুরুষতান্ত্রিক অমানবিক প্রথা গুলোকেও কবে সচেতনতা বাড়বে ভেবে চুপ করে দেখবেন আর মনকে স্তোকবাক্য দেবেন""

---কে বলেছে এমন কথা? ইউনিফর্ম সিভিল কোডের সমালোচনা করলেই "পুরুষতান্ত্রিক অমানবিক প্রথা গুলোকে" চুপ করে দেখা ধরে নেবেন?
অনেকবার বলছি প্রত্যেক ধর্মীয় আইন বা সামাজিক রীতিনীতির প্রতিক্রিয়াশীল ধারাগুলোর অবিলম্বে সংস্কার দরকার। যেমন তিন তালাক। দেখুন যে মুসলিম নারীরা এর সংস্কারের দাবিতে আজ সরব তাঁরা কেউ ইউনিফর্ম কোডের কথা বলচেন না। তাঁরা কি তাহলে পিতৃতান্ত্রিক অমানবিকতাকে মেনে নিচ্ছেন?

শুধু ইউনিফর্ম কোড করলেই সব ঠিক হয়ে যাবে এমন সহজ সরল সমাধানের স্বপ্ন থেকে জেগে উঠুন। বাস্তব সমস্যাটি বহুমাত্রিক।
আর কারও জন্যে কোন বিশেষ অধিকার থাকবে না , যেহেতু রাষ্ট্রের চোখে সব নাগরিক ( জাতি/ধর্ম/লিঙ্গ নির্বিশেষে) সমান--- তাহলে বাস্তবিক অবস্থাকে অস্বীকার করা হয়। "সাম্য" ও "সমতা"কে গুলিয়ে ফেলা হয়।
তাহলে চাকরিতে এসসি/এসটি/ বিকলাঙ্গ/ প্রাক্তন সৈনিক/মহিলা কোটা সব ছেঁটে ফেলতে হয়। আর কাশ্মীর এবং সমস্ত আদিবাসী অঞ্চলে বাইরের কেউ (ভারতের নাগরিক হলেও) আদিবাসীর জমি কিনতে পারেন না। এই আইনটিও ছেঁটে ফেলা উচিত--কি বলেন?
Avatar: ranjan roy

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

এতোজ,
"ধর্মান্তরণ কীসের জন্য সেটা সেই লোক বলতে যাবে কোন্‌ দুঃখে?"
-- অব্শ্যই জাঠ/ভাট কেউ আসল উদ্দেশ্য বলেন নি। কিন্তু মহামান্য আদালত ঘটনাপরম্পরা এবং ক্যানন অফ প্রগজিমিটির ভিত্তিতে আসল উদ্দেশ্য ঠিকই ধরে ফেলেছেন ও বিয়েটি আইনের স্তরে অসিদ্ধ ঘোষণা করেছেন।
আর ধার্মিক কানুন ছাড়াও সিভিল প্রসিডিওর কোড আছে। তাতে নির্ভরশীল বাপ/মা ও স্ত্রীকে খোরপোষ/দেখাশুনো না করা দন্ডনীয় অপরাধ। এ নিয়ে আজকাল আদালত বেশ কড়া। তাই মুসলিম হোক কি ইহুদী হয়ে যাক, দায়িত্ব থেকে বাঁচার পথ নেই।
এছাড়া মুসলিম বিয়েতে দেনমোহর জমা রাখতে হয়। হিন্দুমতে নয়।
আর কেউ মুসলিম হয়ে প্রথম বউকে যদি তালাক না দেয় বউ দেবে। স্বামীর অন্য পত্নীগ্রহণ হিন্দুমতে বিয়ে হওয়া মহিলার জন্যে ভ্যালিড গ্রাউন্ড। ছেলেটি মুসলিম হওয়ায় জেলে যাবে না। হিন্দু হলে জেলে যেত।
কিন্তু প্রথম বউ (হিন্দু) ডিভোর্স চাইলে পেয়ে যাবে খোরপোষ সমেত।
Avatar: nari

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

মুসলিম বিয়েতে দেনমোহর জমা রাখা কাস্টোমারি ম্যান্ডেটরি নয় , তালাক দিলে বর বৌকে এতো টাকা দিতে বাধ্য থাকবে এই prenuptial agreement পারস্পরিক চুক্তিটি করা সেইসব পাত্রীপক্ষৰ ক্ষেত্রেই সম্ভব যাদের আর্থিক ও সামাজিক প্রতিপত্তি আছে। কিন্তু সেটা কজনের সম্ভব?
"আর ধার্মিক কানুন ছাড়াও সিভিল প্রসিডিওর কোড আছে। তাতে নির্ভরশীল বাপ/মা ও স্ত্রীকে খোরপোষ/দেখাশুনো না করা দন্ডনীয় অপরাধ। এ নিয়ে আজকাল আদালত বেশ কড়া। তাই মুসলিম হোক কি ইহুদী হয়ে যাক, দায়িত্ব থেকে বাঁচার পথ নেই।" - ভুল । মুসলিম পুরুষরা পার্সোনাল ল এর ফাঁক দিয়ে দায়িত্ব এড়িয়ে যান বহু নজির আছে। শাহবানু বা শায়রাবানু দের আদালতের দরজায় করা নাড়তে হয়। কিন্তু কজন পারে ধর্মগোঁড়া পুরুষতন্ত্রের সাথে যুদ্ধ করতে ?
এখানে ভালো লেখা আছে
http://www.epaper.eisamay.com/Details.aspx?id=26919&boxid=১৪১৩৮৯৬৭
কেন মুসলিম নারীকেও অন্য সম্প্রদায়ের নারীদের মতো সমান আইনি অধিকার দেওয়া হবে না? ধর্মীয় গোষ্ঠীর অধিকারের অজুহাতে নারীর প্রতি বৈষম্যকে নেগলেক্ট করা হবে আর কতদিন ? "সাম্য" ও "সমতা" নিয়ে বিতর্কের চেয়ে "মানবিকতা" ও "নারীর সমানাধিকার" বেশি জরুরি
Avatar: s

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

রঞ্জনদা ক্রমাগত প্রথা (রিচুয়াল) ও আইনে গুলিয়ে ফেলছেন। প্রশ্নটা তিন তালাকের তাতে ইউনিফর্ম সিবিল কোর্ট, আদিবাসী, পার্সী, জৈন প্রথা নিয়ে জাস্ট ঘেঁটে দেবার চেষ্টা হচ্ছে।
স্পেড কে বাংলা স্পেড বলুন না দাদা। তিন তালাক বলে মুসলমান পুরুষদের বিবাহবিচ্ছেদ করার অধিকার একটা অসভ্য, জঘন্য এবং অমানবিক প্রথা এবং আইন করে বন্ধ হওয়া দরকার।
এই কথাটা আপনি মানেন কি মানেন না? হ্যাঁ কি না, পাতি ঝেড়ে কাসুন তো দাদা।
Avatar: রৌহিন

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

"তিন তালাক বলে মুসলমান পুরুষদের বিবাহবিচ্ছেদ করার অধিকার একটা অসভ্য, জঘন্য এবং অমানবিক প্রথা এবং আইন করে বন্ধ হওয়া দরকার।
এই কথাটা আপনি মানেন কি মানেন না? হ্যাঁ কি না, পাতি ঝেড়ে কাসুন তো দাদা।" - এই কথাটা রঞ্জনদা বা অন্য কে এখানে বলেনি সেটাই তো বোঝা যাচ্ছে না! তিন তালাক সমর্থন করেন না এটা রঞ্জনদা সহ প্রত্যেকেই একাধিকবার এই থ্রেডে দ্বর্থ্যহীন ভাষায় বলেছেন। কিন্তু অনেকেই দেখছি এই তিন তালাকের শিখন্ডি খাড়া করে ইউ সি সি জরুরী এটাকে চাপিয়ে দিতে চাইছেন। না। ইউ সিসি, বর্তমান ফর্মে, দেশের একমাত্র আইন হবার উপযুক্ত নয়। নারীর সমানাধিকারের প্রশ্নে নয়। ধর্মীয় নিরপেক্ষতার প্রশ্নে নয়। বাস্তব বৈচিত্রের প্রশ্নে নয়। ইউসিসি একটি ইনকমপীটেন্ট প্রস্তাব।
Avatar: s

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

টই টা কিন্তু তিন তালাক নিয়ে, ইউ সি সি নিয়ে না।
আর তিন তালাক আইন করে বন্ধ করতে হলে মুসলমানদের বিবাহবিচ্ছেদ আইন বর্তমান সিবিল আইনের আওতায় আনতে হবে। অর্থাৎ ইউসিসির দিকেই যেতে হবে।
তিন তালাকের নিন্দা করব আবার ইউসিসিও মানব না, এতো যেমন বেনী কেস হয়ে গেলো।
Avatar: amit

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

এটা আগেও একটা টইতে দিয়েছিলুম, আর একবার দিয়ে যাই। যে দেশে আছি এখন , সেখানে আইন বই তে একদম সোজা করে লেখা আছে। ইউরোপ এর সব দেশেই কম বেশি একই জিনিস লেখা আছে। খুব সাধারণ ভাবে সোজা কথায় লেখা, ধর্মীয় রীতি আচার আর দেশের আইনের পার্থক্য যারা ধরতে পারছেন না বা ধরতে চাইছেন না, তাদের জন্য। তার জন্য চিংড়ি মাছ , শুঁটকি মাছ অনেক কিছু খাওয়াতে হচ্ছে ।

""Most religions have rules, but these are not laws
in Australia. For example, the process of divorce,
including custody of children and property settlement,
must follow laws passed by the Australian Parliament.
All Australians have the right to be protected by these
laws. Some religious or cultural practices, such as
being married to more than one person at the same
time, are against Australian law."

এবার এই সাধারণ জিনিস টাকে তথাকথিত বিপ্লবীরা ঘাটার ইচ্ছে হলে ঘাটুন। তাতে নিজেকে প্রগতিশীল মনে করা গেলে যাক। তিন তালাকের সাথে উসিসি এক করে ঘাটা গেলে তো সোনায় সোহাগ ।

এটাই তো পরিষ্কার নয় যে সরকারের ভুল ঠিক কথায় ? মুসলিম মহিলা সংগঠন মামলা করেছে, সুপ্রিম কোর্ট সরকারের মতামত চেয়েছে, সরকার মতামত দিয়েছে, সেখানে কোনটা ভুল ? তাহলে সরকারকে কোনো মতামত না দিয়ে চুপ করে আরো ৫০ বছর বসে থাকলে ভালো হতো কি বলেন ?

মন্তব্যের পাতাগুলিঃ [1] [2] [3] [4] [5] [6] [7] [8] [9] [10]   এই পাতায় আছে 141 -- 160


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন