রৌহিন RSS feed

রৌহিন এর খেরোর খাতা। হাবিজাবি লেখালিখি৷ জাতে ওঠা যায় কি না দেখি৷

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • জ্যামিতিঃ পর্ব ৫
    http://bigyan.org.in...
  • সেখ সাহেবুল হক
    শ্রীজগন্নাথ ও ছোটবেলার ভিড়-----------------...
  • মাতৃত্ব বিষয়ক
    এটি মূলতঃ তির্যকের 'রয়েছি মামণি হয়ে' ও শুচিস্মিতা'র 'সন্তানহীনতার অধিকার'এর পাঠপ্রতিক্রিয়া।-----...
  • ভারতে বিজ্ঞান গবেষণা
    ভারতে বিজ্ঞান গবেষণা ও সেই সংক্রান্ত ফান্ডিং ইত্যাদি নিয়ে কিছুদিন আগে 'এই সময়' কাগজে একটা লেখা প্রকাশিত হয়েছে। http://www.epaper.ei...
  • কেমন হবে বেণীমাধব?
    - দিস ব্লাডি ইউনিয়ন কালচার ইস ক্র্যাপ। আপিস ফেরত পথে চিলড্ বিয়ারে চুমুক দিয়ে বলেছিল অসীম। কেতাদুরস্ত মাল্টিন্যাশন্যালে প্রজেক্ট ম্যানেজার অসীম। ব্যালেন্স শিট, ডেটা মাইনিং, ক্লায়েন্ট মিটিং’র কচকচানি, তার উপর বিরক্তিকর ট্রাফিক, আর গোদের উপর বিষ ফোড়া ...
  • ইফতার আর সহরির মাঝে
    কলকাতার বুকের মধ্যে যে কত অগুন্তি কলকাতা লুকিয়ে আছে! রমজান মাসে সূর্য ডুবে গিয়ে রাত ঘনিয়ে এলে মধ্য কলকাতার বুকে জেগে ওঠে এক আশ্চর্য বাজার। যে বাজার শুরু হয় রাত দশটার থেকে আর তুঙ্গে ওঠে রাত বারোটা একটা নাগাদ। ফিয়ার্স লেন, কলুটোলা, জাকারিয়া স্ট্রিট, সাবেক ...
  • #বাহামণিরগল্প
    অনেক অনেক দূরে শাল বনের জঙ্গলের মধ্যে দিয়ে একটা লাল মাটির পথ ছিল আর পথের শেষে ছোট্ট একটা গ্রাম। সেই গ্রামে একটা ছোট্ট মেয়ের বাড়ি। জানি এ পর্যন্ত পড়েই আপনারা ভুরু কুঁচকে ভাবছেন, এ আর নতুন কথা কি? পথের শেষে গ্রাম থাকবেই আর সে গ্রামে যে একটা না একটা মেয়ে ...
  • হেতিমগঞ্জ বাজার
    নিলয় সেইদিন আমাদের আইসা বলে যে বিজনপুর নামে একটা জায়গা আছে এবং সেখানে অতি অদ্ভুত একটি ঘটনা ঘটে গেছে, একটি মেয়ে আচানক মাছে পরিণত হইছে। তাও পুরা মাছ না, অর্ধেক মাছ। আমাদের জীবন সমান্তরালে বইতে থাকা নদীর প্রবাহ বিশেষ, এতে কোন বিরাট ঢেউ কিংবা উথাল পাতাল ...
  • জলধরবাবুর ভগ্নাংশ
    ম্যাঘে ম্যাঘে ব্যালা গড়িয়ে আসে। নয় নয় করেও পঞ্চাশের ধাক্কা বয়েস হতে চলল জলধরবাবুর। তবে আজকাল পঞ্চাশ-টঞ্চাশ নস্যি। পঁচাশি-নব্বই পার করে দিচ্ছে লোকে হাসতে হাসতে। এ তো আর শরৎবাবুর আমলের নাটক-নবেল নয় যে চল্লিশ পেরোলেই পুরুষমানুষ সুযোগ্য ছেলের হাতে সংসারের ...
  • গর্ব
    গর্ব----------------...

প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

রৌহিন

গত তিনদিন ধরে ফেসবুকের আকাশে বাতাসে ঘুরে বেড়াচ্ছে সেই অমোঘ বানী – অমর্ত্য সেন বলেছেন তালাকের ফলে মাত্র ১.৩% মুসলিম মহিলা বিচ্ছিন্না এবং ক্ষতিগ্রস্ত, অতএব তিন তালাক কোন সমস্যাই নয়। অমর্ত্য বামপন্থী (পড়ুন বামৈস্লামিক) বুদ্ধিজীবি বলেই এমন অসংবেদী কথা বলতে পারেন। এতেই প্রমাণ হল বামেরা কেবল মুসলিম তোষণকেই ধর্মনিরপেক্ষতা বোঝেন। তারা সিউডো সেকুলার। ইত্যাদি, প্রভৃতি।
প্রথমে একটু বিষয়টা বোঝা প্রয়োজন। কতটা সত্যি, কতটা জল, ইত্যাদি। ঘটনা হল প্রাতীচী ট্রাস্টের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে এই স্টাডি লিঙ্কটি নেই। সেটা সম্ভবত: প্রাতীচীরই গাফিলতি – ওএবসাইটটি আপডেটেড নয়। অতএব আমাদের ভরসা এ বিষয়ে টাইমস অফ ইন্ডিয়ায় প্রকাশিত একটি রিপোর্ট। http://m.timesofindia.com/city/kolkata/Death-not-talaq-does-them-part-
in-Bengal/articleshow/55934400.cms

এই রিপোর্ট ফার্স্ট হ্যান্ড নয় কিন্তু কয়েকটা ব্যপার এখান থেকে বোঝাই যায়। প্রথমত: প্রাতীচী ট্রাস্ট শুধু তার অবজার্ভেশনটুকু প্রকাশ করেছেন – নিরীক্ষার ফলাফল। এটা সমস্যা কি না এ নিয়ে বক্তব্য রাখেননি। রেখে থাকলে সেটা এমনিতেও পদ্ধতিগত ভুল ধরা হত কারণ এই ধরণের সমীক্ষা থেকে কোন সিদ্ধান্তে আসা সম্ভব নয় – তা করাও হয় না। দ্বিতীয়ত:, অমর্ত্য এ বিষয়ে আদৌ কিছু বলেনি, তার সংস্থা একটা সমীক্ষা প্রকাশ করেছে মাত্র। এটাকে অমর্ত্যর বক্তব্য বলে প্রচার করলে এরপর থেকে দিলীপ ঘোষের কথাও মোদীর বক্তব্য হিসাবে প্রচার পেতে পারে। তৃতীয়ত:, ১.৩% র হিসাব কোন ডেটা সেটে সেটা পরিষ্কার জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।
এই সমীক্ষার বাইরেও একটা বিরাট বড় সমাজ আছে। তাতে মুসলমান বলে একটা সম্প্রদায় আছে। গরীব বলেও একটা সম্প্রদায় আছে। তাদের নিয়ে শহুরে বাবুদের, শাইনিং পরহিতাকাঙখী মধ্যবিত্তদের, হিন্দুত্ববাদী সংখ্যাগুরু সমাজের বিপুল পরিমাণ মাথাব্যথাও আছে। তিন তালাকের ফলে গরীব মুসলমান নারী কত কষ্টে আছে সে কথা ভেবে কয়েক পুকুর জল এদের চোখ দিয়ে গড়িয়েও গেছে। তা সেই সমাজকে আমরা কে কে দেখেছি কাছ থেকে? আমার নিজের দেখা খুব কম – আমি সমাজসেবক কোনদিন ছিলাম না – বিপ্লবী হবার শৌখিন মজদুরির শখও বহুদিন হল ঘুঁচেছে। তবে আমাদের পৈতৃক বাড়ি, যা এককালে গন্ডগ্রামই ছিল এখন কালের চাকায় চড়ে মফস্বলের দোরগোড়ায় উপনীত, সেখানে আমাদের বাড়ির পরেই শুরু হয় মুসলমান পাড়া। চেনা খুব সহজ। পাকা রাস্তা এবং ইলেক্ট্রিকের পোল, এখনো, আমাদের বাড়িতে এসেই শেষ হয়ে যায়। আগে মুসলমান পল্লী। গরীব মুসলমান পরিবার সব। আর কাজের সূত্রে কিছু গ্রামে গঞ্জে ঘুরে ফিরে দেখা কিছু পরিবার। তাদের দুয়েকজনের ঘরে পাত পেড়ে খেতেও হয়েছে কখনো সখনো বাধ্য হয়ে। আমার ভদরলোকি উঁচু নাক সিঁটকে রেখে। তা এটুকুই চেনা জানা। তালাকপ্রাপ্তা কারোর সাথে আলাপ হয়নি। নির্যাতিতা অসহায় নারী অনেক দেখেছি। এগুলো তথ্য হিসাবে অকিঞ্চিৎকর।
গুণীজনেরা বলবেন এত সারকাজম লেখার মান নষ্ট করে – এতটার প্রয়োজন ছিল না। আমার মতে ছিল। ছিল কারণ শাইনিং মধ্যবিত্ত এবং হিন্দুত্ববাদীদের এই হঠাৎ করে তালাক দরদী হয়ে ওঠায় আমি নির্যাতিতার পাশে দাঁড়ানোর সদিচ্ছা আদৌ দেখতে পাচ্ছি না। এটা নেহাৎই একটা রাজনৈতিক বক্তব্য, কারণ তাদের নিজেদের মহিলাদের জন্য এভাবে তাদের প্রাণ কাঁদে না। তাদের ঘরে এখনো “পরম্পরা”র নামে, “ভারতীয় সংস্কৃতি”র নামে নারী নির্যাতনের চাষ। এবং এই অছিলায় তিন তালাকের বিরোধিতা করার নামে একই সাথে একটু ইসলামকে গালিও দেওয়া গেল আবার অভিন্ন দেওয়ানী আইনের হয়ে একটু দালালীও করে নেওয়া গেল। চালনি বলে ছুঁচকে ---
বামপন্থীদের এই প্রসঙ্গে কী অবস্থান, এটা এই মুহুর্তে বেশ জটিল প্রশ্ন। কারণ বামপন্থী কারা, বামপন্থাই বা সঠিক কোনটা, এ নিয়ে দ্বন্দ্ব ও ধন্ধ অব্যাহত। আমি আমার মত করে বামপন্থার সংজ্ঞা স্থির করেছি এবং সেই সংজ্ঞা অনুযায়ী আমি নিজেকে বাম বলে মনে করি। অতএব এ বিষয়ে আমার ব্যক্তিগত অবস্থানটুকু বলব যা আমার ধারণানুযায়ী বামপন্থার বক্তব্য। এই বক্তব্যের দায় অন্য কোন বামপন্থী নাই নিতে পারেন।
১। তিন তালাক প্রথা সমর্থন করিনা। কারণ তা বর্তমান রূপে লিঙ্গ নিরপেক্ষ নয়, নারীবিরোধী। এই প্রথার পরিবর্তন চাই। যে মুসলিম মহিলারা এবং তাঁদের যেসব সহযোগীরা এজন্য মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ড এবং ভারতীয় আইন ব্যবস্থার বিরুদ্ধে লড়ছেন তাঁদের সমর্থন করি।
২। অভিন্ন দেওয়ানি আইন সমর্থন করিনা। কারন ভারতীয় আইন বর্তমান রূপে প্রচুর অসঙ্গতিপূর্ণ এবং নিজেই লিঙ্গ নিরপেক্ষ নয়। এই আইনের আমূল সংস্কার না হওয়া অবধি অভিন্ন দেওয়ানী আইন আসলে হিন্দু আইনই। তা সমদর্শী নয়।
৩। মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ড, হিন্দু আনডিভাইডেড ফ্যামিলি এক্ট, ম্যারেড উওম্যান এক্ট – এগুলির বিলুপ্তি চাই। পরিবর্তে এগুলির নতুন বিকল্প চাই যারা আধুনিক আইন ব্যবস্থা ও জীবনধারার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ হবে।
৪। আদিবাসীদের নিজস্ব বিচার ব্যবস্থা বা সালিশী সভার বিলুপ্তি চাইনা। কিন্তু সেই সভায় কোন বহিরাগতের কোনরকম প্রভাব থাকা চলবে না। কৌমের বাইরের কারো বিচার সালিশী সভায় চলবে না।
৫। সমাজের সমস্ত স্তরে সব রকম লিঙ্গভিত্তিক নির্যাতনের অন্ত চাই। শুধু নারীর ওপর নির্যাতন নয়, সমকামী, রূপান্তরকামী, রূপান্তরিত, উভকামী, হিজড়া, ইত্যাদিদের প্রতি সহমর্মী এবং সমতাপূর্ণ আইন চাই।
এগুলো আমার চাওয়া – আমার মতে বামপন্থী হিসাবে। অবস্থান। সংখ্যাগুরুর আগ্রাসনের বিরুদ্ধে। শাইনিং ইন্ডিয়ার বিরুদ্ধে। রাষ্ট্রক্ষমতার দম্ভের বিরুদ্ধে। আমার দেশের মানুষের পক্ষে।


মন্তব্যের পাতাগুলিঃ [1] [2] [3] [4] [5] [6] [7] [8] [9] [10]   এই পাতায় আছে 121 -- 140
Avatar: ছোটোলোক

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

যাবে। ;-)
Avatar: Atoz

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

কেউ যদি গেয়ে ফ্যালে, "করুণাধারায় এসো হে করুণানিধি" ? ঃ-)
Avatar: ranjan roy

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

তিন তালাকে ফিরি?
মনে হয় না কেউ এখানে ওটা থাক, ওটা তো ওদের ব্যাপার গোছের বলেছেন। ওটা অসহ্য, কারণ অমানবিক ও লিঙ্গবৈষম্যের সূচক।
তবে এটা কোন নতুন কথা নয়, আগেও অনেকে বলেছেন, প্রতিবাদ করেছেন। এবার মুসলিম মহিলাদের বিভিন্ন সংগঠন এগিয়ে এসে খোলা গলায় প্রতিবাদ করছেন, অর্থোডক্সির আসন নড়ে উঠেছে--এটাই আশার কথা।
একই ভাবে সমস্ত ধার্মিক দেওয়ানি বিধিরও অমানবিক ও লিঙ্গ অসাম্যের সূচক ধারাগুলোকে ছুঁড়ে ফেলার দিন আগত। ব্যস্‌!
যাঁরা বলছেন --এত কথায় কাজ কি? আনো অভিন্ন দেওয়ানি বিধি ; সব হিন্দু/মুসলিম/শিখ/ক্রিশ্চান বিধিগুলো চুলোয় যাবে। না রহেগা বাঁশ, না বজেগী বাঁশুরী-- তাঁরা একবার ভেবে দেখুন।
সপ্তপদী গমন হিন্দু ম্যারেজ অ্যাক্টের অভিন্ন অঙ্গ। ওটা না হলে হিন্দু বিধিতে বিয়ে অসম্পূর্ণ। অভিন্ন দেওয়ানি বিধিতে ওসব ভোগে যাবে। চান কি?
আর সিভিল ম্যারেজ অ্যাক্ট তো রয়েইছে। মুস্লিম/হিন্দু যাই হোন, সিভিল ম্যারেজ অ্যাক্টে বিয়ে করতে কোন বাধা তো নেই। শিক্ষিত সাঁওতাল বা মুসলিম বা হিন্দু মেয়ের ওই অ্যাক্টে বিয়ে করতে কোন বাধা তো নেই।
Avatar: ranjan roy

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

@ ছোটোলোক,
সংযুক্ত হিন্দু পরিবারের কথা তুললাম কারণ ওটা বিভেদসূচক। মুসলিম/ক্রিশ্চান সংযুক্ত পরিবারে কোন করছাড় নেই। হিন্দু পরিবারের জন্যে আছে।
আর আমার মৃত্যুর পর শবদেহের কী গতি হবে সেটা আমার স্ত্রী/সন্তান , না থাকলে সরকার ঠিক করে ল্যাঠা চোকায়--সে আমি যাই লিকে যাই! ওরা চুপচাপ পুড়িয়ে দিলে বা দাহ করলে কোন আইন কিস্যু করতে পারবে না।
যেমন আমার দেহদানের ব্যাপারে বউ নানান ফালতু ফ্যাকড়া তুলচে--যেমন সময় মত গ্রহীতা আসে না, বউবাচ্চার বডি নিয়ে ভোগান্তি হয়। আমি ভয় দেখাচ্চি আমার ইচ্ছা অপূর্ণ হলে ভূত হয়ে ঘাড় মটকাবো!
কিন্তু শুনছি --নাস্তিকের আত্মা নেই, তাই ভূত হওয়ার চান্স নেই!!
Avatar: Atoz

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

আরে দূর! ওগুলো তো আচার! ওগুলো দিয়ে কোন্‌ কচু হবে?ভুলিয়ে ভালিয়ে কালীঘাটে নিয়ে গিয়ে সপ্তপদী হেঁটে দিল আর কোনো রেজিস্ট্রি ফেজিস্ট্রি কিছু করল না। দু'দিন পর বর/বৌ ভেগে গেল। এদের ব্যাপারে কী হবে? আইনী সাহায্য পাবে কী করে এরা?
Avatar: Abhyu

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

রঞ্জনদা, আমার মনে হচ্ছে দেহ দানের ব্যাপারে আপনার চেয়ে আপনার স্ত্রীর প্র্যাকটিক্যাল সেন্স বেশি। উনি খুবই ঠিক বলেছেন। মানুষ কোথায় মারা যাবে সে তো আর ঠিক করা নেই। সেখানের ইনফ্রাস্ট্রাকচার কেমন সেটা না জেনে গোঁ ধরে থাকলে ...

আর, আপনারই লজিকে সিভিল ম্যারেজ অ্যাক্টে বিয়ে করে তারপরে সপ্তপদী, দ্বিপদী বা সহস্রপদী - কোনোটা করতেই বাধা আছে কি?
Avatar: ranjan roy

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

@ এতোজ,
বর/বৌ যে কোন সময়ে ভাগতে পারে বা ভাগে।
ভালবাসা মরে গেলে তাকে বুকে করে ঘুরে বেড়ানোর চেয়ে দাহ করা সমীচীন।ঃ((((
( এটা কোথা থেকে টুকেছি মনে পড়ছে না!)

@ অভ্যু,
চোখ বুজলে কী আর করা!
না, কোন বাধা নাই। অনেকে তাই দুটোই করে।
Avatar: ranjan roy

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

btw, অভ্যু,
সিভিল ম্যারেজ অ্যাক্ট তো আছেই--এতে হিন্দু মুসলিম শিখ ইসাই সবার সুযোগ আছে।
তোমার কথা মেনেই তার পর কেউ যদি সহস্রপদী করে বা নিকাহ্‌নামা করে বা চার্চে যায় তাতে আপত্তি কী? কেন আবার আর একটা ইউনিফর্ম কোড চাই?
কিন্তু বহুবিবাহ ও তিন তালাক নিষিদ্ধ হউক, সরব সমর্থন !!!
Avatar: Atoz

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

আরে কী জ্বালা! "বিবাহ" জিনিসটা তো শুধু পেরেম পীরিত খেলু খেলু না, প্রচুর দায়দায়িত্ব সম্পত্তি ফম্পত্তি হ্যানো ত্যানো বিস্তর ব্যাপার থাকে, নাহলে আইনকানুনের ঝামেলা আনতো বা কোন্‌ আহাম্মক?
দু'দিন নেচেগেয়ে খেলুখেলু করে তারপরে "বাই বাই বেবী ডোন্ট বী অ্যালোন" করে ভেগে গেলেই হত! ঃ-)
Avatar: ranjan roy

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

এতোজ,
এগজ্যাকটলি! তাই বৈচিত্র্য উড়িয়ে দিয়ে একটা ধর-তক্তা-মার-পেরেক ইউনিফর্মিটি আনা কতটুকু কাম্য?

ইলেক্শন নিয়ে সুপ্রীম কোর্টের ও'রম ধর-তক্তা নির্দেশ আর জাস্টিস চন্দ্রচুড়ের ডিসেন্ট নোটটা দেখুন!
Avatar: Abhyu

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

রঞ্জনদা, মনে করুন একজন হিন্দু গায়ক ক্যাসেটের রয়্যালটি থেকে অনেক টাকা পান। বিবাহ বিচ্ছেদের পর উনি বউকে অনেক টাকা খোরপোষ দিতে বাধ্য হতেন। টাকা বাঁচাতে টুক করে মুসলমান হয়ে গেলেন। এরকম হওয়া সম্ভব?
Avatar: Atoz

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

আরে এরকমই তো হয় বহু কেসে। এক ধর্ম থেকে অন্য ধর্মে পালানো, এক আইনকে কাঁচকলা দেখিয়ে অন্য আইনে পালানো।
আইনে ইউনিফর্মিটি না থাকলে আইনের কোনো মানেই হয় না। একটা স্বাধীন সার্বভৌম দেশের নাগরিক, অথচ ভিন্ন ভিন্ন আইনে চলছে বিভিন্ন গোষ্ঠী, এই জিনিসটার মতন অযৌক্তিক আর কিছু হয় না।
বৈচিত্র ফৈচিত্র করে করে যারা নাচছেন, তাদের জিগাই ভাবুন একবার বৈচিত্রের দোহাই দিয়ে যদি ক্রিমিনাল ল্য গুলো আলাদা হত? কী একটা ভীষণ ক্যাওটিক কান্ড হত? তখন কেন চুপ থাকেন? বৈচিত্রের দোহাই দিয়ে কোথাও ডুয়েল, কোথাও হেড হান্টিং, কোথাও অনার কিলিং ---এসব আইনসম্মত করে দিন না?????
Avatar: ranjan roy

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

অভ্যু,
হয় না। পারে না। মহিলাটির সঙ্গে বিবাহ যদি হিন্দু বিবাহ আইনে হয়ে থাকে তবে তার নিষ্পত্তি সেই আইন অনুযায়ী হবে। মামলাচলাকালীন পুরুষ মুসলমান হয়ে গেলেও।
ঠিক যেমন ক্রিমিনাল কেসে কেউ মার্ডার করে পাগল হওয়ার দোহাই দিল। কিন্তু দেখা হবে মার্ডার করার সময় সে সত্যিই পাগল ছিল কি না!
Avatar: ranjan roy

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

এতোজ,
সেই জন্যেই তো বলছি-- সিভিল আর ক্রিমিনালে গোলাবেন না। দুটোর জুরিসপ্রুডেন্স আলাদা, প্রমাণের মাপকাঠি আলাদা। ক্রিমিনালে বিয়ন্ড অল ডাউট প্রমাণ করতে হয়।
আর সিভিল হল ব্যক্তি বনাম ব্যক্তি; ক্রিমিনাল হল রাষ্ট্র বনাম ব্যক্তি ( সে একটি ব্যক্তি অপর ব্যক্তিকে খুন করলেও)।
তাই বলছি সবাইকে বাটার সাতনম্বর জুতো পরাতে চান কেন? সবার জন্যে এক আইন? একই মাপকাঠি? তাহলে তো এস সি/এস টি অ্যাক্ট চলে না। শিখদের দাড়ি পাগড়ি (ফৌজে) চলে না।
ধরুন, ভগবানের ভুলে আমাকে আপনার বাড়িতে খেতে ডাকলেন। কিন্তু আমার যে ধনেপাতায়/ ইলিশমাছে/ মুড়িঘন্টে/মাছের তেলের বড়াভাজায় গা গোলায়। কিন্তু শুঁটকি মাছে কোন অসুবিধে নেই। সেদিন যদি রান্নার সব পদেই ধনেপাতা দেওয়া হয়ে থাকে তাহলে কি আমার জন্যে একটু আলুভাতে আর ডাল (মাছের মাথা দিয়ে নয়) জুটবে না?
Avatar: ছোটোলোক

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

মামলা চলাকালীন কেন? মামলা হবার আগেই ধর্মান্তরিত হলেই কেল্লা ফতে।
Avatar: Abhyu

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

Avatar: ছোটোলোক

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

রঞ্জনবাবুর পোস্টে স্ববিরোধ দেখা যাচ্ছে। একটা দেখিয়ে দিই। "মহিলাটির সঙ্গে বিবাহ যদি হিন্দু বিবাহ আইনে হয়ে থাকে তবে তার নিষ্পত্তি সেই আইন অনুযায়ী হবে। মামলাচলাকালীন পুরুষ মুসলমান হয়ে গেলেও।" এর রেফারেন্স এই টেক্সটের পরিপ্রেক্ষিতে "...মনে করুন একজন হিন্দু গায়ক ক্যাসেটের রয়্যালটি থেকে অনেক টাকা পান। বিবাহ বিচ্ছেদের পর উনি বউকে অনেক টাকা খোরপোষ দিতে বাধ্য হতেন। টাকা বাঁচাতে টুক করে মুসলমান হয়ে গেলেন..."
এখানে বিবাহ বিচ্ছেদের মামলার কথা লেখা নেই। বোঝা যাচ্ছে যে লোকটা আরো বিয়ে করতে চায় এবং সেকারণে মুসলমান হলে বিশেষ সুবিধা পাবে। তা এক্ষেত্রে লোকটা অন্য বিয়েটা করবার আগেই মুসলমান হয়ে যাবে, কারণ একমাত্র ঐ ধর্মমতেই বহুবিবাহ এখনো ভারতে স্বীকৃত। কাজেই, লোকটি বিবাহ বিচ্ছেদের মামলায় যাবেই না। প্রথমে ধর্মান্তরিত হবে, তারপরে সেই ধর্মের বিবাহআইনানুসারে আরো বিয়ে করবে।
এর সঙ্গে বাটার জুতো, ধনেপাতা দিয়ে ইলিশমাছ কি শুঁটকি মাছের সম্পর্ক নেই। এই গণ্ডিটার বাইরে বেরিয়ে দেখবার প্রয়োজন আছে মাত্র।
Avatar: রৌহিন

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

শুধু তর্কের জন্যই তর্ক চালিয়ে গিয়ে কী লাভ? রঞ্জনদা আমার মতে আপনিই থেমে যান কারণ আপনার যুক্তিটা এনারা বুঝতে চাইছেন না (বুঝতে পারছেন না এটা অবশ্যই নয়)। সুতরাং বোঝাতে পারবেন না
Avatar: Atoz

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

আরে রঞ্জনদা, এইসব কি উল্টাপাল্টা বকছেন? আইনের সঙ্গে দাড়ি পাগড়ি বাটার জুতা শুঁটকি ধনেপাতা ইলিশ এইসব গুলাচ্ছেন কেন? উদ্দেশ্যপ্রণোদিত? আগেও এইসব সাতপাক কড়িখেলা সুবচনী খোঁড়া হাঁস ইত্যাদি এনেছেন আপনার যুক্তিতে। এইগুলো আইন নয় । তবে কেন আইনপ্রসঙ্গে এইসব বলছেন বারবার? কেন?
Avatar: ranjan roy

Re: প্রসঙ্গ তিন তালাক: প্রতীচী ট্রাস্ট: অমর্ত্য সেন: এবং চাড্ডিত্ব

এই বিষয়ে আমার শেষ পোস্টঃ
১)
@ছোটলোক,

একজন হিন্দুমতে বিয়ে করেছে। আবার বিয়ে করার জন্যে বা খোরপোষ এড়িয়ে যাওয়ার কথা ভেবে টুক করে মুসলমান হয়ে গেল!
--বেশ। কিন্তু মুসলমানের বিয়ে কন্ট্র্যাক্ট। কলমা না পড়ে সেই হিন্দু বিবাহিত প্রথম বউ অটোমেটিক্যালি "টুক করে" মুসলমান হতে পারবে না। কাজেই সে যদি ডিভোর্স নেয়/দেয় তাহলে তার নিষ্পত্তি হিন্দু ম্যারেজ অ্যাক্টে হবে। কারণ স্বামী ধর্মান্তরিত হলেও তাঁর ধর্ম অপরিবর্তিত এবং তাঁদের বিবাহ হিন্দু ম্যারেজ অ্যাক্টে হয়েছিল বলে। আবার শুধু বিয়ে করার জন্যে মুসলমান হলে দ্বিতীয় বিয়েটি সুপ্রীম কোর্টের মতে null & void।
উদাঃ ধর্মেন্দ্র-হেমা ও মহেশ ভাট ও পরবর্তী বিয়েগুলো। তাঁদের পরবর্তী সহধর্মিণীরা এসব জেনেই ঘর করছেন। মহেশের স্বীকৃতি অনুযায়ী ভালমত ট্যাঁকের কড়ি খসেছে।
২)
@এতোজ,
এইসব সুবচনীর খোঁড়া হাঁস, শুঁটকি মাছের কথা তুলেছিলাম এই কথাটা বোল্ডলি আন্ডারলাইন করতে যে সিভিল অ্যাক্টের ও তার জুরিসপ্রুডেন্সের উদ্ভব হয়েছে (সর্বদেশে, সর্বকালে) নির্দিষ্ট কালখন্ডে নির্দিষ্ট সমাজে সমাজটির আচার-ব্যবহার-বিশ্বাস-মূল্যবোধ-সংস্কৃতিকে স্বীকৃতি দিয়ে।
আবার একই কারণে এর বিবর্তন/পরিবর্তন ও হয়।
সিভিল অ্যাক্ট কোন স্বয়ম্ভু বা মহাশূন্য থেকে খসে পড়া নক্ষত্র নয়।
উদাহরণ/বিধবা বিবাহ বা হিন্দু সম্পত্তির আইন। উত্তরাধিকার আইন --একই সঙ্গে বঙ্গে দায়ভাগ (জীমূতবাহন প্রণীত) ও বঙ্গকে বাদ দিয়ে বাকি ভারতে মিতাক্ষরা আইন। আবার এগুলোর সংস্কার হয়ে আজ একটি হিন্দু আইন।

এবার আমার অক্ষমতা স্বীকার করে নিয়ে সবাইকে ধন্যবাদ দিয়ে (কারণ সবাই আমাকে নতুন করে ভাবতে বাধ্য করেছেন) আমি কাটলাম।

মন্তব্যের পাতাগুলিঃ [1] [2] [3] [4] [5] [6] [7] [8] [9] [10]   এই পাতায় আছে 121 -- 140


আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন