Sarit Chatterjee RSS feed

Sarit Chatterjeeএর খেরোর খাতা।

আরও পড়ুন...
সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • কম্প্যানি কোম্পানি কনফারেন্স
    নব্বই এর দশকে “শাসো কি জরুরত হ্যা জ্যায়সে...” এবং “ইয়ে কালে কালে আঁখে...” এই দুই যুগান্তকারী ঢেঊয়ের মধ্যবর্তী কোন এক সময়ে আমাদের সাথে পরিচয় হয় ‘ক্যালোরি’ নামক জিনিসটির। তবে সেই ক্ষণে ক্যালোরির অর্থ আমাদের কাছে নিতান্তই আক্ষরিক ছিল – শক্তির একক হিসাবে। আরো ...
  • দ্বন্দ্বসমাস ও কবির মুকুট
    শুদ্ধ সঙ্গীতের ভাষা মানে শুধু সুরের ভাষা। যেসব প্রাকৃতিক শব্দ থেকে মানুষের মনে সুরের ধারণা তৈরি হয়েছিলো, যেমন বিভিন্ন পশুপাখির ডাক, তা একান্ত ভাবে সুরের পর্দানির্ভর অনুভূতি। সৃষ্টি হবার পর বহুদিন পর্যন্ত সুর'কে কথার ভার বহন করতে হয়নি। আদিম সুরের ধারাটিকে ...
  • বাৎসরিক লটারী
    মূল গল্প – শার্লি জ্যাকসনভাবানুবাদ- ঋতম ঘোষাল "Absurdity is what I like most in life, and there's humor in struggling in ignorance. If you saw a man repeatedly running into a wall until he was a bloody pulp, after a while it would make you laugh because ...
  • যৎকিঞ্চিত ...(পর্ব ভুলে গেছি)
    নিজের সঙ্গীত প্রতিভা নিয়ে আমার কোনোকালেই সংশয় ছিলনা। বাথরুম থেকে ক্যান্টিন, সর্বত্রই আমার রাসভনন্দিত কন্ঠের অবাধ বিচরণ ছিল।প্রখর আত্মবিশ্বাসে মৌলিক সুরে আমি রবীন্দ্রসংগীত গাইতুম।তবে যেদিন ইউনিভার্সিটি ক্যান্টিনে বেনারস থেকে আগত আমার সহপাঠীটি আমার গানের ...
  • রেজারেকশান
    রেজারেকশানসরিৎ চট্টোপাধ্যায় / অণুগল্পব্যাঙ্গালুরু এয়ারপোর্টে বাসু এতক্ষণ একা একা বসে অনেককিছুই ভাবছিল। আজ লেনিনের জন্মদিন। একটা সময় ছিল ওঁর নাম শুনলেও উত্তেজনায় গায়ে কাঁটা দিত। আজ অবশ্য চারদিকে শোনা যায় কত লক্ষ মানুষের নাকি নির্মম মৃত্যুর জন্য দায়ী ছিলেন ...
  • মন্টু অমিতাভ সরকার
    পর্ব-১মন্টু ছুটছিল।যেভাবে সাধারণ মানুষ বাস ধরার জন্যে ছোটে তেমনটা নয়।মন্টু ছুটছিল।যেভাবে ফাস্ট বোলার নিমেষে ছুটে আসে সামনে ব্যাট হাতে দাঁড়িয়ে থাকা প্রতিপক্ষের পেছনের তিনটে উইকেটকে ফেলে দিতে তেমনটা নয়।মন্টু ছুটছিল।যেভাবে সাইকেল চালানো মেয়েটার হাতে প্রথম ...
  • আমিঃ গুরমেহর কৌর
    দিল্লি ইউনিভার্সিটির শান্তিকামী ছাত্রী গুরমেহর কৌরের ওপর কুৎসিত অনলাইন আক্রমণ চালিয়েছিল বিজেপি এবং এবিভিপির পয়সা দিয়ে পোষা ট্রোলের দল। উপর্যুপরি আঘাতের অভিঘাত সইতে না পেরে গুরমেহর চলে গিয়েছিল সবার চোখের আড়ালে, কিছুদিনের জন্য। আস্তে আস্তে সে স্বাভাবিক ...
  • মৌলবাদের গ্রাসে বাংলাদেশ
    বাংলাদেশে শেখ হাসিনার সরকার হেফাজতে ইসলামের একের পর এক মৌলবাদি দাবীর সামনে ক্রমাগত আত্মসমর্পণ করছেন। গোটা উপমহাদেশ জুড়ে ধর্ম ও রাজনীতির সম্পর্ক শুধু তীব্রই হচ্ছে না, তা সংখ্যাগুরু আধিপত্যর দিকে এক বিপজ্জনক বাঁক নিচ্ছে। ভারতে মোদি সরকারের রাষ্ট্র সমর্থিত ...
  • নববর্ষ কথা
    খ্রিস্টীয় ৬২২ সালে হজরত মহম্মদ মক্কা থেকে ইয়াথ্রিব বা মদিনায় যান। সেই বছর থেকে শুরু হয় ইসলামিক বর্ষপঞ্জী ‘হিজরি’। হিজরি সন ৯৬৩ থেকে বঙ্গাব্দ গণনা শুরু করেন মুঘল সম্রাট আকবর। হিজরি ৯৬৩-র মহরম মাসকে ৯৬৩ বঙ্গাব্দের বৈশাখ মাস ধরে শুরু হয় ‘ তারিখ ই ইলাহি’, যে ...
  • পশ্চিমবঙ্গের মুসলিমরা কেমন আছেন ?
    মুসলিমদের কাজকর্মের চালচিত্রপশ্চিমবঙ্গের মুসলিমদের অবস্থা শীর্ষক যে খসড়া রিপোর্টটি ২০১৪ সালে প্রকাশিত হয়েছিল তাতে আমরা দেখেছি মুসলিম জনগোষ্ঠীর সবচেয়ে গরিষ্ঠ অংশটি, গোটা জনগোষ্ঠীর প্রায় অর্ধেক দিন মজুর হিসেবে জীবিকা অর্জন করতে বাধ্য হন। ৪৭.০৪ শতাংশ মানুষ ...

সেই পলাশের তিন পাত

Sarit Chatterjee

সেই পলাশের তিন পাত
সরিৎ চট্টোপাধ্যায় / অণুগল্প

প্রচন্ড ঝড় বৃষ্টির এক রাতে পোয়াতি পেঁপেগাছটার বড় মায়া হল। ওর পায়ের কাছেই সদ্য অঙ্কুরিত এক অচেনা গাছের চারা তার প্রথম তিনটে কচি পাতা নিয়ে ঝড়ের দাপটে প্রায় মাটিতে লুটিয়ে পড়ছে। সর্বশক্তি দিয়ে সেদিন পেঁপেগাছটা হাত বাড়িয়ে ঝুঁকে পড়েছিল, বলেছিল, ভয় পাস নে রে খোকন, আমি আছি তো! আর সারা রাত তার আঁচলের আড়ালে ভয়ে কেঁপে কেঁপে উঠেছিল পলাশের কচি পাতাগুলো।

লাল মাটি, গুড় জাল দেওয়া গন্ধ, দামাল গন্ধেশ্বরী। বুধু সারেঙ হারমোনিয়াম বাজাতো। সেদিন ছোপধরা দাঁত বার করে একবার বলেছিল বটে, হেই মেস্টর, তু কি পাগল হই গিলি? সব দিয়া দিবি তো ফুরায়ে যাবি যে।

ত্রিদিব ভাদুড়ি গা করেন নি। ওর জহুরির চোখ তখন উত্তেজনায় জ্বলছিল।

আগে বলা হত অর্কেস্ট্রা পিট। এই প্রসেনিয়ামকেও যে এভাবে ব্যবহার করা যায় তিনি সত্যিই জানতেন না। অবাক চোখে সেদিন তিনি শুধু দেখেছিলেন একরত্তি ওই ছেলেটাকে। সৌরদীপ দত্ত। বাপ সাবড়াকোণের আইটিআইতে ভর্তি করে দিলেও কোনো লাভ হয় নি। ওর মন প্রাণ সবই ছিল কেবল মাত্র থিয়েটার।

গোটা দৃশ্যটা ছিল ওরই আইডিয়া। কার্টেন লাইনের সামনে, ডাঊন-লেফ্ট-এ পাঁচ-বাই-দুইয়ের একটা তক্তার ওপর চট পাতা। তার ওপর কয়েক বালতি আধ-ভেজা মাটি। কোদাল হাতে বাপের কবর খুঁড়ছে ছেলেটা। উল্টো দিকের ফার্স্ট উইংগস্ থেকে আড়াআড়ি একটা প্রোফাইলে ধরা কয়েক মুহূর্ত। কোদালের টানে কাদা মাটি ছিটকে পড়ছে প্রথম সারিতে বসা দর্শকের পায়ের কাছে।
ভাদুড়ি স্যর সেদিনই ঠিক করেছিলেন নিজে হাতে তৈরি করবেন এই ছেলেটাকে।

কাজ চলছিল। ছেলেটা এরই মধ্যে বারবার প্রমাণ করেছে যে ত্রিদিব মাস্টার ভুল করেন নি। কিন্তু কয়েক বছর পর ও-হেনরির একটা নাটকের বর্ণান্তরণ করার সময় মারাত্মক এক ভুল করে ফেললেন অভিজ্ঞ সেই নাট্যকার। হয়ত ইচ্ছাকৃতই ছিল সে ভুল। স্বপ্নভঙ্গের তেতো স্বাদটা অনেকদিন থেকেই অসহ্য হয়ে উঠছিল। ফলে, অবিলম্বেই ক্ষমতাসীন দলের চক্ষুশূল হয়ে উঠল বাঁকুড়ার এই নাট্যগোষ্ঠী। কলকাতায় অডিটোরিয়াম পাওয়া বন্ধ হয়ে গেল। তারপর, প্রায় দু'বছর কেটে গেছে আজ এই অজ্ঞাতবাসে। এখানে বিশটা শো হলেও কেউ পাত্তা দেয় না। সংস্কৃতির ধারক, বাহক - সবই যে কলকাতা।

সময়টা খারাপ যাচ্ছে। দলের মনোবল ক্রমশ ভেঙে পড়ছে। রিহার্সাল ছেড়ে মাঝেমাঝেই কলকাতায় মরিয়া হয়ে ছুটে যাচ্ছেন ত্রিদিব। এদিকে, ততদিনে বেশ নাম করেছে সৌরদীপ। নতুন নাটকের প্রস্তুতি শেষ কিন্তু গন্তব্য তো সেই কলকাতা! আর বাঁকুড়া? সেটা যেন ঠিক কোথায়! বাঁকড়ি আবার থ্যাটার করে! যে করে হোক কলকাতায় জাস্ট দুটো শো চাই। ব্যস! সৌরদীপ অবশ্য আজকাল মাঝেমধ্যে কলকাতার একটা ক্লাবের হয়ে কাজ করছে। ত্রিদিব নিজেই বলেছিলেন, কর, কর! অনেক কিছু শিখতে পারবি ওখানে।

একদিন, হঠাৎ সৌরদীপ বলল যে অ্যাকাডেমিতে পরপর চারটে শো ও পাইয়ে দিতে পারবে, কিন্তু -- !
- কিন্তু কী রে বেটা? সহাস্যে প্রশ্ন করলেন ভাদুড়ি স্যর। পয়সা কড়ি বাদে যা চায় আমরা রাজি। বলে ফেল!
- ভাদুড়িদা, নির্দেশনা আমাকেই করতে দিতে হবে। ওদের সাথে তেমনটাই কথা হয়েছে, কথাগুলো বলে আজ কিন্তু চোখ নামাল না সৌরদীপ।

ফ্যালফ্যাল করে কিছুক্ষণ শুধু ওর দিকে তাকিয়ে রইলেন আধ-বুড়ো, প্রেসারের রুগী মানুষটা। তারপর যখন ইন্দ্রাণী বাচ্চু সজল, সব এক এক করে সৌরদীপকেই সমর্থন করল, কেন জানি খুব একটা আর অবাক হলেন না তিনি। প্রায় বিশ বছরের সঙ্গী তিরিশ ইঞ্চি উঁচু কাঠের চেয়ারটা থেকে নেমে ওর কাঁধে হাত রেখে শুধু বললেন, বেশ তো! আমি জানি তুই ভালই কাজ করবি!
পায়ে হাত দিয়ে প্রণাম করল সৌরদীপ। রিহার্সাল রুম জুড়ে তখন এক অদ্ভুত থমথমে পরিবেশ। ত্রিদিব আরো কিছু হয়ত বলতেন কিন্তু কেন জানি সবার দিকে চেয়ে শুধু বললেন, ভাল থাকিস তোরা।

দরজার বাইরে এসে একবার বুক ভরে শ্বাস নিলেন ত্রিদিব ভাদুড়ি। শ্রাবণের শেষ। বাতাসে তিলের পুলি আর হয়ত প্রসেনিয়ামের সেই মাটির সোঁদা গন্ধ মিলে এক অপূর্ব আবহ সৃষ্টি করেছে।

বুধু সারেঙ এগিয়ে এলো। ছলছল চোখে বলল, কইছিলাম, বাপের কবর ফুঁড়ি বার হব!
- ও আমার চেয়েও ভাল কাজ করবে। তুই দেখে নিস বুধু।
- তুই মানুষ নস রে মেস্টর! মাথা নেড়ে সারেঙ বলে। তারপর, কাঁপা হাতে একটা বিড়ি ধরায়। বলে, এখন কী করবি?
- জানি না রে বুধু। ক'দিন যাক। এখন তো হাতে অঢেল সময়।
- তু যাবি মেস্টর? যাবি মুদের গেরাম?

ভিজতে ভিজতে পাশাপাশি হাঁটছে দুই বন্ধু। দূরে, বিশাল এক পলাশগাছ বসন্তের অপেক্ষায় মাথা উঁচু করে মাঠজুড়ে দাঁড়িয়ে।

একা।

---------//---------


Avatar: d

Re: সেই পলাশের তিন পাত

বাঃ
Avatar: সিকি

Re: সেই পলাশের তিন পাত

বাঃ।
Avatar: মনোজ ভট্টাচার্য

Re: সেই পলাশের তিন পাত

সরিতবাবু,

গল্পটা দারুণ হয়েছে !

তবে এটা শুধু গল্প নয় ! এরকম ঘটনা হয়েছে ! - নাট্যদলের ক্ষেত্রে প্রায়শই এই জিনিশ হয়েছে ! নাম বলে লাভ নেই !

দলের নেতা ও সচরাচর পরিচালকও বটে - একাগ্রভাবে দলের উন্নতি ও জনপ্রিয় করতে করতে ভুলেই যান - তারও পায়ের তলায় ঘাস গজিয়ে যায় ! - তখন নতুনের প্রতি আবাহনের হাত বাড়িয়ে দেওয়াই রীতি !

মনোজ


Avatar: ranjan roy

Re: সেই পলাশের তিন পাত

আমি হতবাক।
কী কষ্টের লেখা! কী সুন্দর করে লেখা! মনোজ যা বললেন সব সত্যি, আমরা অনেকেই জানি। কিন্তু তাকে এভাবে ফুটিয়ে তোলা! কব্জির জোর আছে।
Avatar: Titir

Re: সেই পলাশের তিন পাত

অসম্ভব ভালো লাগল।
Avatar: T

Re: সেই পলাশের তিন পাত

ভালো লাগল।
Avatar: π

Re: সেই পলাশের তিন পাত

বেশ।
Avatar: Sarit Chatterjee

Re: সেই পলাশের তিন পাত

সবাইকে ধন্যবাদ। মনোজবাবু ও তিতির, আপনাদের কমেন্ট পড়ে খুব ভাল লাগল।
হ্যাঁ, সবটাই স্বাভাবিক। পলাশকে আমি দোষী সাব্যস্ত করি নি। শুধু পেঁপেগাছদের কষ্টটা তুলে ধরতে চেয়েছি। শুধু যদি, কোনোক্রমে দু'জনেই পাশাপাশি থাকতে পারতো!
সরিৎ



আপনার মতামত দেবার জন্য নিচের যেকোনো একটি লিংকে ক্লিক করুন