সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • রংচুগালা: বিপন্ন আদিবাসী উৎসব
    [ওই ছ্যাড়া তুই কই যাস, কালা গেঞ্জি গতরে?/ছেমড়ি তুই চিন্তা করিস না, আয়া পড়ুম দুপুরে/ হা রে রে, হা রে রে, হা রে রে…ভাবানুবাদ, গারো লোকসংগীত “রে রে”।]কিছুদিন আগে গারো (মান্দি) আদিবাসী লেখক সঞ্জিব দ্রং আলাপচারিতায় জানাচ্ছিলেন, প্রায় ১২৫ বছর আগে গারোরা আদি ...
  • মুক্ত বাজার
    নরেন্দ্র মোদী নিশ্চয় খুশি হয়েছেন। হওয়ারই কথা। প্রধানমন্ত্রী’র ঘনিষ্ঠ বন্ধু, ফোর্বস ম্যাগাজিনে প্রকাশিত ভারতবর্ষের ১০০ জন ধনকুবের’দের ক্রমাঙ্কে টানা দশ বছর শীর্ষ স্থান ধরে রেখেছেন। গত বছরে, রেকর্ড হারে, ৬৭% সম্পত্তি বাড়িয়ে, আজ তিনি ৩৮০০ কোটি ডলারের মালিক। ...
  • আমরহস্য
    শহরে একজন বড় পীরের মাজার আছে তা আপনি জেনে থাকবেন, পীরের নাম শাহজালাল, আদি নিবাস ইয়ামন দেশ। তিনি এস্থলে এসেছিলেন এবং নানাবিদ লৌকিক অলৌকিক কাজকর্ম করে অত্র অঞ্চলে স্থায়ী আসন লাভ করেছেন। গত হয়েছেন তিনি অনেক আগেই, কিন্তু তার মাজার এখনো জাগ্রত। প্রতিদিন দূর ...
  • সিনেমার ডায়লগ নিয়ে দু চার কথা
    সাইলেন্ট সিনেমার যুগে বাস্টার কিটন বা চার্লি চ্যাপ্লিনের ম্যানারিজমের একটা বিশেষ আকর্ষন ছিল যেটা আমরা অস্বীকার করতে পারিনা। চোখে মুখের অভিব্যক্তি সংলাপের অনুপস্থিতি পূরণ করার চেষ্টা করত। আর্লি সিনেমাতে ডায়লগ ছিল কমিক স্ট্রীপের মত। ইন্টারটাইটেল হিসাবে ...
  • সিঁদুর খেলা - অন্য চোখে
    সত্তরের দশকের উত্তর কলকাতার প্রান্তসীমায় তখনো মধ্যবিত্ততার ভরা জোয়ার. পুজোরা সব বারোয়ারি. তবু তখনো পুজোরা কর্পোরেট দুনিয়ার দাক্ষিণ্য পায় নি. পাড়ার লোকের অর্থ সাহায্যেই মা দুর্গা সেজে ওঠেন তখনো. প্যান্ডাল হপিং তখন শুরু হয়ে গেছে. পুজোর সময় তখনই মহঃ আলি ...
  • অন্য রূপকথা
    #অন্য_রূপকথা পর্ব এক একদেশে এক রানী ছিল। সেই রানীর রাজ্যে কত ধন, কত সম্পত্তি। তাঁর হাতিশালে হাতি, ঘোড়াশালে ঘোড়া, আর গাড়িশালে খানকয়েক রোল্স রয়েস আর মার্সিডিজ বেন্জ এমনিই গড়াগড়ি যেত। সেই রাজ্যের নাম ছিল সুবর্ণপুর। যেমন নাম, তেমনি দেশ। ক্ষেতে ফলত সোনার ফসল, ...
  • ফাতেমা
    ফাতেমা। আম্মির কাজে হাত লাগায় যে, যাকে আমি 'আপা' বলি, তার মেয়ে। ক্লাস সেভেনে পড়ে। মা দু'বাড়ি কাজ করে আর বাবা ভ্যান চালায়। ভাই-বোন-বাপ-মা মিলিয়ে জনা পাঁচেকের সংসার। গেল মাসে, সেই আপার হঠাৎ পেটে ব্যথা। ডাক্তার জানালো, অ্যাপেন্ডিক্স। পয়সা-কড়ি , সবাই মিলে ...
  • একটা অর্ধ-সমাপ্ত গল্প
    পর্ব ১।ঘুম ভাঙতেই পাশ ফিরে মা, বাবা আর ছোট্ট ভাইটাকে একবার দেখে নিল ডোডো। সবাই ঘুমোচ্ছে। খাট থেকে আস্তে করে নেমে, ঘরের বাইরে চলে এল। ঘরটা থেকে বেরোলে ডান হাতে আরেকটা বেডরুম। এটার দরজা বন্ধ। সেটা পেরোলে একটা খুব ছোট্ট গলি দিয়ে ডাইনিঙ রুম। গলিটার একটা ...
  • ভেঙ্গে যাওয়ার শব্দ
    নুরুন্নবী ভাবিয়া যায়। আমি নতুন ভাষায় কথা বলব। নতুন ভাষায় তুই তাই করে কথা বলব নামীদামী লোকের লগে। কবিতা বলব, গান লেখব, ইচ্ছা হইলে অশ্রাব্য কুকথা লেইক্ষা টেইক্ষা ভরাইয়া ফেলব। কিন্তু কেউ বুঝতে পারবে না। নুরুন্নবী ভেতরে ভেতরে উৎসাহ পায়। পানি খাওয়ার গ্লাসের ...
  • তার বিজলি সে পতলে...
    কলকাতায় বন্ধু যারা ছিলেন তারা হয় শহর ছেড়েছেন, নয় বন্ধুত্ব, কেউ কেউ দুটোই। শেষ বন্ধু যারা থেকে গেছেন তাদের সঙ্গে মাঝে মাঝে ফোনে কথা হত। মনে আছে মনাশে থাকার সময় একবার পুজোয় তাঁদের ফোন পেলাম, এবং আমি যে জঙ্গলে থাকতাম সেখানে যে পুজো ইত্যাদি হয়না, আমি যে মোটের ...

হলদিঘাটের লড়াই

dd

হলদিঘাটের লড়াই

শুরুর আগে
***************************
বেশী পিছিয়ে গেলে তো মুষ্কিল। ঐ ১৫৬৮ সাল। প্রায় পুরো রাজপুতেরাই আকবরের বশ্যতা স্বীকার করে নিয়েছে। আর সেই বিশ্ববন্দিত কমিক্সের বিখ্যাত গলের মতন শুধু মেওয়ার হাতের মুঠোর বাইরে। আর এক ভয়ানক লড়াইএ চিতোর দুর্গের পতনের পর মেওয়ারের রাজা উদয় সিং,আশ্রয় নিলেন পাশের জংগলে। বছর চারেক পর তার মৃত্যু হলে,তার ছেলে রানা প্রতাপ ইন এক্সাইল মেওয়ারের রাজা হলেন ।

প্রথমটায় কিন্তু রানা প্রতাপ, আকবরের সাথে টক্কর নিতে যান নি।তার নিজের ছেলে অম

আরও পড়ুন...

নেট নিউট্রালিটি, এক্কেবারে নিউট্রালি

Soumit Deb


গত শনিবার একজনের সাথে বেজায় তর্ক হয়েছে। বিষয় নেট নিউট্রালিটি। তর্ক বলা ভুল কারন আমি কোনো কথা বলবার সুযোগ পাইনি। প্রথমেই আমায় জিজ্ঞেস করা হলো বল ব্যান্ডউইথ কি? আমি তার উত্তরে একটা চা চাইলাম। কারন আমার কাছে ইন্টারনেট মানে ফ্যালো কড়ি মাখো থ্রিজি। নেটওয়ার্ক স্লো থাকলে খিস্তি, কল ড্রপ হলে আরও খিস্তি। সালা ইয়ের নেটওয়ার্ক বলা ছাড়া এগুলো ক্যানো হচ্ছে তার কোনো কারন আমার জানা নেই। কখনও রুচিও হয়নি জানার। তো যা বলছিলাম, সেই তর্ক থেকে এই সিদ্ধান্তে আসি যে এতদিন শুধু পড়েছি, জেনেছি, বোঝার চেষ্টা করেছি বিপ

আরও পড়ুন...

মুক্তির জন্য সাংস্কৃতিক প্রয়াস ২

Salil Biswas

পাওলো ফ্রেইরি-র শিক্ষাতত্ত্ব নিয়ে কাজ করার আগে একটা ভয় দেখানোর দরকার আছে। আপনি কাজ করবেন কিন্তু সীমিত সময়ে জীবিত মানুষ নিয়ে, যাদের জীবনের অনেকটা সময় কিন্তু আপনার হাতে থাকবে। দায় কিন্তু অনেকটাই আপনার উপর বর্তাবে।
পাওলো ফ্রেইরি-র শিক্ষাতত্ত্ব আমি যেটুকু বুঝেছি তা মূলত কাজ করতে করতে, যে বোঝাটা আজও প্রতি পদে পাল্টাচ্ছে, আশা করি, উন্নততর হচ্ছে। পদ্ধতি যতটা বুঝছি, তা থেকেই বুঝতে পারছি যে তার প্রয়োগ অনেক সময়েই ত্রুটিপূর্ণ হচ্ছে। একটা কারণ হয়ত এটা বুঝতে না পারা (বা আত্মতুষ্টিও হতে পারে) যে প্রত্যেক

আরও পড়ুন...

কুর্দ'দের জন্য কোন ক্রিসমাস নেই

Debabrata Chakrabarty


“History books will write how the Kurds without a state fought ISIS and fascist Turkey together. “

তুরস্কের ২কোটির অধিক কুর্দ জনজাতি এবং দক্ষিণ তুরস্কের বাসিন্দাদের এই বছরে অন্তত কোন ক্রিসমাস নেই । কেক কাটা বা টার্কি ভোজনের পরম্পরাও অনুপস্থিত ,ইংরাজি নববর্ষ পালনের উন্মাদনা নেই ,পারস্পরিক উপহার বিনিময় নেই ,বরং রাতের পর রাত সদর দরজায় সামরিক বাহিনীর কড়া নাড়ার আশঙ্কায় বিনিদ্র রাত্রি যাপনের বাস্তবতা আছে । শহরের রাস্তায় ,গলিপথে ট্রেঞ্চ খননের , ব্যারিকেড তৈরি করার ,মলোটভ ককটেল বানা

আরও পড়ুন...

ভাষা, আত্মসম্মান ও অধিকার – পা চাটতে লাগে শুধু জিভ

Garga Chatterjee

পুরো দুনিয়া জুড়ে ব্যবসার একটা প্রাথমিক নিয়ম আছে। ইংরেজিতে এই নিয়ম-কে বলে ‘কাস্টমার ইজ কিং’ অথবা ‘কাস্টমার ইজ অলওয়েজ রাইট’। এর ভাবার্থ হলো, কোন পরিষেবা দানের ক্ষেত্রে, গ্রাহকের সুবিধে-অসুবিধে, সেইটাই আসল। যে পরিষেবা দিচ্ছে, যেহেতু যে গ্রাহকের থেকে টাকা নিচ্ছে, তাই তার দায়িত্ব হলো গ্রাহক-কে তার সুবিধে মত পরিসেবা দেওয়া। গ্রাহকের কাজ নয় পরিষেবা-দাতার সুবিধে মত ছাঁচে নিজেকে তৈরী করা। দুঃখের বিষয় হলো, নিখিল বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ শহর আমাদের এই কলকাতায় এই নিয়মটি বাঙালিদের ক্ষেত্রে খাটে না। এক

আরও পড়ুন...

রাষ্ট্র মানেই অপাপবিদ্ধ।

Purandar Bhat

কয়েকদিন ধরে বাজারী মিডিয়াতে ছত্তিসগড়ে মাওবাদীদের নৃশংসতা নিয়ে বেশ কিছু প্রতিবেদন বেরোচ্ছিলো। কোথায় নাকি মাওবাদীরা শিশুকে রড দিয়ে পিটিয়ে মেরে ফেলেছে আবার কোথাও ইস্কুল পড়ুয়াদের গুলি করে মেরেছে। মাওবাদীরা যে প্রয়োজনে নৃশংস হতে পারে তা আমরা জানি, পশ্চিমবঙ্গে তারা কি ভাবে নিরস্ত্র ইস্কুল মাস্টার থেকে বৃদ্ধ ক্ষেতমজুর খুন করেছে তা আমরা দেখেছি। কিন্তু তবুও একটা খটকা ছিলো কারণ ছত্তিসগড়ের দুটো ঘটনাতেই সংবাদপত্রগুলো যাকে উদ্ধৃত করেছিলো সে হলো বস্তার জেলার পুলিশ প্রধান এসআরপি কাল্লুরি। এই কাল্লুরি এক ইন্টার

আরও পড়ুন...

jayadrath badh

dd

জয়দ্রথ বধ
**********************************
কতকগুলো ডিসক্লেইমার।
এক তো শুধুমাত্র কালীপ্রসন্ন সিংহ সম্পাদিত মহাভারতের অনুবাদ ফলো করেছি, আর কোনোই ভার্শন নয়।
অলৌকিক অংশগুলো ছেঁটে বাদ দিয়েছি।
সংখ্যা, যেমন "ষাঠ হাজার ক্ষত্রিয় নিহত হলো" ইত্যাদি অসম্ভব সংখ্যা পুরোটা বাদ দেই নি। মনে হলো সেগুলো লিখলে একটা ধারনা করা যাবে , সেই জন্য।
***********************************************************
কুরুক্ষেত্র যুদ্ধের আঠারো দিনের মধ্যে চতুর্দশ দিনের লড়াইটাই ছিলো সব থেকে বেশে রক্তক্ষ

আরও পড়ুন...

শ্মশান এবং শীতকাল

Sakyajit Bhattacharya

প্রতিবছর শীতকাল পড়লেই অবধারিতভাবে চোখে ভেসে ওঠে আমার পাড়া থেকে এক কিলোমিটার দুরের সিরিটি শ্মশানের ছবি। মনে পড়ে যায় তার কারণ এখানে এক ডিসেম্বরের সন্ধেবেলায় আমি প্রথম লাশ দেখেছিলাম। পুড়তে নয়, ভেসে যাচ্ছিল আদি গংগার গা বেয়ে। তখন কুয়াশা জড়ানো সন্ধ্যে। দুই পাশের মেয়ে বউরা মুখে আঁচল চাপা দিয়ে বলছিল “আহা গো, কার বডি?” লাশ “আমি স্বেচ্ছাচারী” বলেছিল কি না খবরে প্রকাশ নেই।
বস্তুত আমাদের পাড়ায় এই জীবিত মৃতের কথোপকথন, কুয়াশার মনোরম মনোটনাস ম্যাজিক মোমেন্ট, রহস্য কথকতা প্রবাদ এসব জিনিস শুরু হয়ে যায় সত্তর

আরও পড়ুন...

ক্ষণিক

সুকান্ত ঘোষ

অফিস কম্পিউটারের কমিউনিকেটারে অনেক দিন পর হীতেশের বার্তা ভেসে উঠে –

- কেমন আছিস শোভন?
- আরে হীতেশ, অনেক দিন পর – ভাবি, ছেলে মেয়ে কেমন আছে?
- ভালো সবাই – তুই কি খবরটা দেখেছিস কাগজে?
- কি খবর? কোন কাগজে? আমি আসলে বাংলা ছাড়া –

টিং করে শব্দের সাথে একটা ইংরাজী কাগজের লিঙ্ক চলে আসে। ক্লিক করার আগে লিঙ্কের শেষের কয়েকটি শব্দের দিকে চোখ চলে যায় শোভনের – এক মুহুর্তের জন্য যেন সময় থমকে দাঁড়ায়। পাশের এক পেজে লিঙ্কটা খুলতে থাকে – বামদিকের কোণে খুব চেনা দুটি ছবি ভেসে ওঠে – একটা

আরও পড়ুন...

লাল ইস্কুল, গোলাপী খাতা আর চোরকাঁটা

শারদ্বত

লাল ইস্কুলের খাতাগুলো বড্ড মায়াময় হালকা গোলাপী আর হালকা সবুজ রঙের। তা সে হার্ড-বাউন্ড হান্ড্রেড পেজ প্লেন, রেজিস্টার, ফিফটিটু প্লেন, রেজিস্টার, নাইন্টিটু প্লেন আর রেজিস্টার যাই হোক না কেন। তাতে কীসব আশ্রমবালকদের কালো কালো স্কেচ কিংবা কেমন অদ্ভুত টাইপ সরস্বতীর কালো কালো ছবি... বয়েজ স্টোরে কাজলদার কাছ থেকে শুনে শুনে নামগুলো মুখস্ত হয়ে গেছে তদ্দিনে। এই লোকটা কেমন অদ্ভুত, বেশি পেন কিনলেই বকে। বা রে, আমি কিনলে তো তোমাদেরই ভালো...!

হান্ড্রেড পেজ রেজিস্টারটাকে আমি সহ্য করতে পারি না একদম। ছোট ক

আরও পড়ুন...

সুজেট জর্ডন মামলার রায় সম্পর্কে কিছু খটকা

সুজেট জর্ডনের ধর্ষণ মামলায় নিম্ন আদালত রায় দিয়েছেন সকলেই সমান দোষী। তিনজনকে পুলিশ ধরতে পেরেছে আর মূল অভিযুক্ত ফেরার। যে তিনজনকে ধরা হয়েছে তাদের জন্য সরকারী কৌঁসুলী ন্যুনতম সাজা চেয়েছেন। নিম্ন আদালত ও এঁদের দশ বছর করে জেলহাজতের নির্দেশ দিয়েছেন। তাই নিয়ে কলকাতা জুড়ে শুরু হয়েছে তোলপাড়। 'রাজ্য জুড়ে' বললাম না কারণ এই নিয়ে শিলিগুড়ি বা পুরুলিয়ায় কতটা বিতর্ক হচ্ছে তার কোনও খবর আমার কাছে নেই।
যাই হোক যে কতগুলো ব্যপার অদ্ভুত লাগছে সেগুলো একটু লিখে রাখি।

১) মূল অভিযুক্ত কাদের খান ছাড়া বাকী তিন

আরও পড়ুন...

পিতামহদের উদ্দেশ্যে

শিবাংশু

অহনি অহনি ভূতানি গঞ্চংতিয় যমালয়ম ।
শেষ স্থাবরম ইচ্ছন্তি কিম আশ্চর্যম অতহ পরম ।।
(বনপর্বঃ মহাভারত)

মৃত্যু না থাকলে কী কী হতো বলা যায়না। হয়তো অনেক কিছুই অন্যরকম হতো। তবে এটা ঠিক যে পৃথিবীতে কোনও ঈশ্বরের কল্পনাও থাকতো না। কোনও গোষ্ঠীবদ্ধ 'ধর্ম'ও থাকতো না নিশ্চিত। প্রনাবি ( প্রমথনাথ বিশী) একটি গল্প লিখেছিলেন, " ভগবান কি বাঙালি ?" সেখানে তিনি বলেছিলেন এই বিষয়টি নিয়ে পৃথিবীর বৃহত্তম থিসিসটি লেখা হবে। কারণ এটাই হবে মানুষের শেষ থিসিস। যেহেতু ভগবান বাঙালি প্রমাণ হয়ে গেলে পৃথিবীতে আর কোনও

আরও পড়ুন...

বাজম্-ই-শাহ্জাহানাবাদ

লালকিল্লা, দেওয়ান-ই-আম, দেওয়ান-ই-খাস, জামা মসজিদ, চওরি বাজার, খারি বাওলি এই নামগুলোর সাথে পরিচয় সেই ক্লাস থ্রী ফোর থেকে| অর্ধেক শব্দের মানে বুঝি, অর্ধেক বুঝি না, কিন্তু শব্দগুলোর মধ্যে কী একটা আকর্ষণ আছে যা টেনে রাখে| আমার কল্পনায় আমাদের উঠোনের নারকেল গাছের নীচের নির্জন কোণা হয়ে যায় লাহোরি গেট আর নিতান্ত মধ্যবিত্ত বাড়ীর স্নানঘরটি একটাও আয়না না থাকা সত্ত্বেও হয়ে যায় শিশমহল| কিছু আত্মীয়স্বজন থাকতেন দিল্লীতে আরও কিছুজন যেতেন তাঁদের কাছে বেড়াতে আর এই যাওয়া আসার পরে পরেই শুনতাম এই নামগুলো আর সম্ভ

আরও পড়ুন...

আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলির উত্কর্ষ – পিছিয়ে থাকা নিয়ে কিছু ভাবনা

Garga Chatterjee

প্রতি বছর বিশ্বের কিছু নামী সংস্থা দুনিয়ার সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি বিশাল রেঙ্কিং তালিকা এনে উপস্থিত করেন। কোন বছরেই কোন তালিকাতেই সেখানে ভারতীয় সংঘরাষ্ট্রের কোন বিশ্ববিদ্যালয় প্রথম ২০০-র মধ্যে আসে না। সেই নিয়ে এখানকার কিছু লোক একটু চিন্তা ব্যক্ত করেন। আর কেউ কেউ বলেন ওসব রেঙ্কিং আসলে পশ্চিমা দুনিয়ার চক্রান্ত, যাতে কিনা আমাদেরকে জোর করে হারিয়ে দেওয়া হয় (তারা বেমালুম চেপে যান যে শ্রেষ্ঠ ২০০-র তালিকায় একাধিক এশীয় বিশ্ববিদ্যালয় থাকে, থাকে চীনের একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়)। যেসব পন্ডিত মনে কর

আরও পড়ুন...

প্রাইভেট টিউটর

Anik Chakraborty


‘ভাই আর্জেন্ট, ‘অন্তরিত তামার তার’ এর ইংরেজি কী হবে? কুইক…’

ফোনের ওপাশে বসুর চাপা গলা। অম্লান বসু- ফার্স্ট ইয়ারের ক্লাস রিপ্রেজেন্টেটিভ, টিটি বোর্ডে অপ্রতিরোধ্য, গমগমে গলায় ‘উদভ্রান্ত সেই আদিম যুগে…’ শুরু করলে ক্যান্টিনে বাকি সব চুপ- সেই বসুর সন্ধ্যাবেলায় চাপা গলায় আর্জেন্ট ফোন মানেই ওর ভোকাবুলারিতে টান। তমলুকের ছেলে, সোনার ফ্রেমে বাঁধিয়ে রাখার মত মাধ্যমিক- উচ্চমাধ্যমিকের রেজাল্ট, কিন্তু ওর ছাত্রকে পড়াতে বসলেই দরদরিয়ে ঘামে। পদার্থবিদ্যা আর ফিজিক্স যে দুটো দুই গোলার্ধের বিষয়, দু’টো

আরও পড়ুন...