সাম্প্রতিক লেখালিখি RSS feed
  • সুরের ভুবনে
    সুরের ভুবনেসরিৎ চট্টোপাধ্যায় / অণুগল্পদশইঞ্চির স্কার্টটা হাঁটুর চার আঙুল ওপরেই শেষ হয়ে গেছে। লজ্জায় মুখ লাল হয়ে যাচ্ছিল পরমার। কোনরকমে হাঁটুতে হাঁটু চেপে মেক-আপ রুমে দাঁড়িয়েছিল সে। দীপ্তি ওকে বোঝাচ্ছিল।: দ্যাখ, আমাদের কাছে এই একটাই মূলধন, আমাদের গান। এই ...
  • আমেরিকা, আমি এসে গেছি
    আমেরিকা, আমি এসে গেছিআসলে কী --------------অ্যাকচ...
  • আতঙ্কিত ভীমরতি
    আতঙ্কিত ভীমরতিঝুমা সমাদ্দারপরিস্কার দেখতে পাচ্ছি দু' দু'খানা ইন্ডিয়া। দেশের ভিতর দেশ ।একখানা দেশ শপিংমলে গিয়ে খুঁজে খুঁজে ঢেঁকিছাঁটা চাল ( না হে , দিশী নাম নয় , নাম তার ‘ব্রাউন রাইস’), কিউয়ি-স্ট্রবেরীর মতো সাত-বাসী বিদেশী ফল(গাছ-পাকা পেয়ারা-কামরাঙায় ...
  • হালাল বইমেলায় হঠাৎ~
    অফিস থেকে দুঘণ্টা আগে ছাড়া পেয়েই ছুট। ঠিক দুবছর পর একুশের বইমেলায়। বলবেন, কেন? সে এক মেলা উত্তর, না হয় এইবেলা থাক। আপাত কারণ একটাই, অভিজিৎ নাই!ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গেলেই মধুর কেন্টিনের কথা মনে পড়ে। অরুনের চায়ের কাপে চুমুক দিতে ইচ্ছে করে। কিন্তু সেখানে ...
  • নিলামওয়ালা ছ'আনা
    নিলামওয়ালা ছ'আনাসরিৎ চট্টোপাধ্যায় / ছোটগল্পপাঁচতারা হোটেলটাকে হাঁ করে তাকিয়ে দেখছিল সুদর্শন ছিপছিপে লম্বা ছেলেটা। আইপিএল-এর অকশান হবে এই হোটেলেই দুদিন পর। তারকাদের পাশাপাশিই সেদিন ভাগ্যনির্ণয় হবে ওর মতো কয়েকজন প্রায় নাম না জানা খেলোয়াড়ের। পাঁচতারায় ঢোকার ...
  • এক যে ছিল
    ১অমাবস্যা-পূর্ণিমা নয়, বছরের এপ্রিল-মে মাস এলেই জয়েন্টের ব্যথায় কাবু হয়ে পড়ে হরেরাম। গত তিন বছর ধরে এটি হচ্ছে। ক্রনিক রোগ বাঁধলো নাকি! হরেরামের চিন্তা হয়। অথচ চিকিৎসার তো কোনো ত্রুটি নেই। ...
  • পিরীতি রীতি
    পিরীতি রীতিঝুমা সমাদ্দার- কি বইলছিস রে , সহর যাক্যে ইসব তু কি সিখ্যে আইসেছিস , বট্যে ? একদিন চগ্লেট দিব্যে , একদিন পুত্যুল দিব্যে, একদিন কিস কইরব্যেক, একদিন জড়াইঞঁ ধইরব্যেক - ই কি ইনিস্টলমিন পিরিতি 'ট হইঞঁছ্যে ন' কি ? সাত দিন ধইরে ই সব কইরব্যে , আর ...
  • নগরকাকের গল্প
    নগরকাকের গল্প১শামসোজ্জোহা বাসায় এসেই খবর পেয়েছে তার স্ত্রী ও কন্যা একসাথে কাক হয়ে উড়ে গেছে। এটি কোন ভালো খবর না। খারাপ খবর। খারাপ খবরে শামসোজ্জোহার মন খারাপ হল। সে একহাতে জ্বলন্ত সিগারেট রেখে আকাশের দিকে তাকিয়ে ভাবতে লাগল কী করা যায়।দূরে শাহজালাল(র) এর ...
  • পরিস্থিতি
    হিঞ্জেওয়াড়ি ফেজ - ৩ : রাত ৯.৩০----------------...
  • বাংলা ভাষার উৎস সন্ধানে অস্ট্রো এশিয়াটিকের দিকে ফিরুন
    বাংলা ভাষা একটি মিশ্র ভাষা। তার মধ্যে বৈদিক ভাষার অবদান যেমন আছে, তেমনি আছে খেরওয়াল বা সাঁওতালী ভাষার অবদান। আমরা আর্য থেকে উদ্ভূত হয়ে বিভিন্ন মিশ্রণের মধ্যে দিয়ে আজকের চেহারায় এসেছি, এরকম না বলে আমরা অস্ট্রো এশিয়াটিক গোষ্ঠী থেকে উদ্ভূত হয়ে বিভিন্ন ...

জন্তুরা জানে

Rajat Subhra Banerjee

জন্তুরা জ্যান্ত, জান তাই ভরপুর,
জল পান করে তারা নিট – বিনা কর্পূর,
তৃষ্ণা যতটা, ব্যাস – নয় অতিরিক্ত,
ঠ্যাং তুলে করে ফের গাছতলা সিক্ত।

জন্তুরা জানে –
বেশি খেলে আই ঢাই – টান লাগে প্রাণে।

জন্তুরা দল বেঁধে ঘোরে মাঠে ঘাটে,
দিন জুড়ে বিশ্রাম, মাঝে মাঝে খাটে,
খিদে পেলে খেয়ে নেয়, যার যেটা রুচি,
ডাল ভাতে ভরপেট – কেন মিছে লুচি?

জন্তুরা জানে –
ফল গাছে ফল থাকে, চাল থাকে ধানে।

জন্তুরা সারাদিন এটা সেটা সেরে
সন্ধ্যায় সার বেঁধে ঘর বাড়ি ফেরে,

আরও পড়ুন...

একটা অ-সমাপ্ত গল্প (পর্ব: ৩৩ - ৩৫ )

Kaushik Ghosh

৩৩।

কলকাতা থেকে ফিরে আসা ইস্তক মনটা ভীষণ ভালো হয়ে রয়েছে সুধার। এত দিনের স্বপ্ন এবার পূরন হতে চলল। এম.এ.-তে ভর্তি হতে গেছিল ক্যালকাটা ইউনিভার্সিটিতে। ইউনিভার্সিটির চৌহদ্দির বাইরে পায়ে পায়ে বেড়িয়ে এসে হাতে ধরে থাকা মাইনে জমা দেওয়ার বইটার দিকে চেয়ে অদ্ভূত একটা শিহরণ খেলে গেছিল ওর সারা শরীরে। কলেজ স্ট্রীট দিয়ে শিয়ালদা স্টেশনের দিকে হাঁটতে হাঁটতে বাবা অনেক কথাই বলছিল কিন্তু সব কথা ওর কানে ঢুকছিল না। কলকাতায় থেকে পড়তে পারবে - এ সুখ চিন্তাটাই মাথায়-মনে খেলে বেড়াচ্ছিল সারাক্ষণ। দুটো একটা শব্দে

আরও পড়ুন...

শুভায়নের ব্লগায়ন

Shubhayan Ganguli

হারামজাদা দিল্লীর ট্র্যাফিক >:(
একটা সিগনাল পেরোতে যে ৮বার লাল বাতি দেখতে হতে পারে সেটা হাড়ে হাড়ে হৃদয়ঙ্গম কল্লুম আজ >:( >:(
না ... মানে ... দুইবার, তিনবার পর্যন্ত্য ধৈর্য ঠিক থাকে ... এমনকি চতুর্থবারেও "ধ্যার বাল"এর উপর দিয়েই যায় ...... কিন্তু আটবার??????? শালা ... ইত্যাদি ইত্যাদি ইত্যাদি ইত্যাদি ...

কি করি আজ ভেবে না পাই,
পথ থেকে নেমে ফুটপাথে যাই?
কার ঘাড়ে যে গাড়ি চড়াই?
ধাক্কা মেরে কাটি?
না না না না না ...

এসব বিপজ্জনক আইডিয়া সমুহ সমূলে উৎপাটি

আরও পড়ুন...

Gandh0--Manto'r Galpo

Ranjan Roy


গন্ধ : সাদত হসন মন্টো
সেদিনও এমনি বূষ্টি পড়ছিল।জানলার বাইরে অশ্বত্থের পাতাগুলো এমনি করে ভিজছিল।স্প্রিংয়ের গদিওলা সেগুনের খাটে,যেটা এখন জানলার পাশ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে, একটি পাহাড়ি মেয়ে রণধীরের সঙ্গে লেপটে শুয়েছিল। জানলার বাইরে দুধসাদা অন্ধকারে অশ্বত্থের পাতাগুলো ঝুমকোর মত থরথরিয়ে কাঁপতে কাঁপতে নাইতে লেগেছিল।আর থরথর পাহাড়ি মেয়েটি রণধীরের গায়ে লেপটে শুয়েছি

আরও পড়ুন...

আর পাগলামো নয়

Rajat Subhra Banerjee

হঠাৎ সেদিন ইচ্ছে হ’লো, পথের ওপর টুল পেতে
হলদে রঙের বালতি মাথায় গামছা প’রে স্কুল যেতে।

ওমনি আমি ভড়কি দিয়ে আড়াই বোতল জল খেয়ে
হড়বড়িয়ে পালিয়ে গেলুম গোসল ঘরের কল বেয়ে।

যেই সেখানে বসবো ব’লে মোড়ার পানে পা বাড়াই,
ওমনি আবার ইচ্ছে হ’লো, স্টিম-রোলারে গা মাড়াই।

যেমনি ভাবা, তেমনি গেলুম বেলঘোরিয়া, বাস ধ’রে,
গিয়েই খেলুম পেপসি কোলা, শিশির ভেতর ঘাস ভ’রে।

তারপরেতেই এক পা তুলে দিলুম বিকট গান গেয়ে,
“রাবন মামা ঢেকুঁড় তোলেন দশ মুখে দশ পান খেয়ে”।

গান শে

আরও পড়ুন...

শকুন্তলার বিলাত যাত্রা

JAW

পর্ব-১

কিয়ৎ দিন পরে কণ্ববাবু হরিদ্বার তীর্থ হইতে প্রত্যাগমন করিলেন। একদিন তিনি বারান্দায় বসিয়া চা পান করিতেছেন এমন সময় একটি উড়ো SMS আসিল।

'কন্বদা, NRI দুষ্মন্ত বসু শীতকালে দেশে আসিয়াছিলেন, শকুন্তলার
সহিত তাহার নলবনে আলাপ, ফোন নম্বর চালাচালি, ভিক্টোরিয়ায় গমন,
বকখালি ভ্রমন, এবং কালিঘাটে গিয়া মালাবদল সকলই সম্পন্ন
হইয়াছে অতি দ্রুত। শকুন্তলা তৎসহযোগে প্রেগন্যান্ট ও হইয়াছেন।'

কণ্বদা ইহা অবগত হইয়া এবং তাহার অগোচরে ও সম্মতি ব্যতিরেকে বিবাহ
কার্য্য সম্পন্ন

আরও পড়ুন...

কেন আমরা স্বাস্থ্যকেন্দ্র-হাসপাতাল চালাই?

Punyabrata Goon

লেখাটা প্রকাশিত হবে সুন্দরবন শ্রমজীবী হাসপাতালের পত্রিকা 'লোকগাথা'-এ।

১৯৮৩-র ৩রা জুন ছত্তিশগড়ের লোহা-খনি শহর দল্লী-রাজহরার ঠিকাদারী শ্রমিকরা এক হাসপাতাল শুরু করেন। তাঁদের ইউনিয়নের নাম—ছত্তিশগড় মাইন্স শ্রমিক সংঘ, নেতা শংকর গুহ নিয়োগী। ১৯৭৭-এ ইউনিয়নের জন্মের পর ঘর সারানোর ভাতার দাবীতে লড়াই করছিলেন শ্রমিকরা, ২-৩ জুন আন্দোলনরত শ্রমিকদের ওপর গুলি চালালে শহীদ হন এগারো জন—তাঁদের মধ্যে একজন মহিলা, একজন শিশু। সেই শহীদদের স্মৃতিতে হাসপাতালের নাম হল শহীদ হাসপাতাল।

শহীদ হাসপাতাল থেকে অনু

আরও পড়ুন...

চন্দ্রাহতের অব্যয়সমূহ ও পোকায় কাটা খয়েরি বল্কল

অবন্তিকা পাল

১.
মরা ছানাকে মুখে নিয়ে সকাল খোঁজে কাঠবেড়ালি মা...
এখন ভালো থাকার সময় l শোক সন্তাপের দুঃসময়েরা ক্রমশ অবলুপ্তির পথে l মিসিং লিংক খুঁজতে যেও না l ও তোমার কম্ম নয় l সে সরকার নারী-সংরক্ষণ দিয়েছিল l এ সরকার কন্যাশ্রী l অতএব তোমাকে ভালো থাকতেই হবে l এটা বাধ্যতামূলক l কান্না বা ওই তুল্য কোনো ট্যাঁ ফো অথবা টুঁ শব্দ শুনলে- প্রথমে কোর্ট মার্শাল, পরে একশো ঘা বেত l আহ্, প্রতিবাদ কোরো না ! এমনকি তোমাকে মানায় না ঔদ্ধত্য l যৎকিঞ্চিত আস্ফালন করে প্রতিক্রিয়া দেখাতে পারো তোমার বাপের বাড়ি থেকে যৌতুক হিসেবে

আরও পড়ুন...

সবার জন্য স্বাস্থ্যঃ মরীচিকা নয়

Punyabrata Goon

পয়সা না থাকলে ডাক্তার দেখানো যাবে না-ওষুধ কেনা যাবে না। ডাক্তার অপ্রয়োজনীয় ওষুধ লিখলেও আপনি কিনতে বাধ্য। প্রয়োজনীয় ওষুধটা জেনেরিক বা কমদামী ব্র্যান্ডে পাওয়া গেলেও ডাক্তার লিখবেন দামী ব্র্যান্ড। যে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করাতে বলা হল আপনাকে, সেগুলো করাতে হবে ডাক্তারের বলে দেওয়া ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে, হয়ত সেখান থেকে ডাক্তার কাটমানি পাবেন। স্পেশালিস্টকে রেফার করার ক্ষেত্রেও অনেকক্ষেত্রে কাটমানির গল্প।

মনে হয় না অবস্থাটা বদলানো দরকার?
যদি এমন হতো যে, অসুস্থ হলে আপনি কোন ডাক্তারকে দেখাবেন

আরও পড়ুন...

একটা অ-সমাপ্ত গল্প (পর্ব: ৩১ -৩২)

Kaushik Ghosh

৩১।

আজাদ পরিন্দা কভি কিসিকা আপনা না হুয়া। গুরুজী কে আজ শায়রীতে পেয়েছে। গান কম হচ্ছে আর শায়রী বেশি - একটুও ভালো লাগে না শোভার! ভালোটা লাগবে কি করে? কবিতার মানে বুঝতে যদি দশ বার মানে বই খুলতে হয়,তবে তাতে আনন্দ আছে কোন? ভাবটা নয়, ভাষাটাই যে বুঝতে পারেনা শোভা! হিন্দি ভাষাটাই জানেনা ও, তার আবার উর্দূ!

তবে ভাষাটায় একটা মাদকতা আছে - এটা মানতেই হবে! গুরুজীর শায়রী গুলোর বিশেষ মানে না বুঝলেও ওনার গলায় শব্দ গুলোর ধ্বনিময়তা, বাচন ভঙ্গী, উপস্থাপনা আর সকলের মতই ওকেও আবিষ্ঠ করে রাখে। আর সকল

আরও পড়ুন...

শিরোনামহীন

Biplob Rahman

আপনাকে নিয়ে আমি কী লিখতে পারি? কী লেখা উচিৎ? আপনাকে নিয়ে লিখতে গিয়ে টিভিতে দেখা সাগর-রুনি সাংবাদিক দম্পতি হত্যাকাণ্ডের রোমহর্ষক বর্ণনা আমার চোখের সামনে একে একে সিনেমার স্লাইডের মতো ভেসে উঠছে। কম্পিউটার-কি বোর্ড স্লথ থেকে স্লথতর হয়ে আসছে।...

সাগর সারোয়ার, প্রিয় সাগর, বরং আমি বলতে পারি, ক্ষুদে সাংবাদিকতারকালে পাহাড় যাত্রায় আপনার সঙ্গে আমার পরিচয় সেই ১৯৯৬ সালের মধ্যভাগের কোনো এক দুপুরে। পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ নেতা সঞ্জয় চাকমার ঢাবির জগন্নাথ হলের (দক্ষিণ বাড়ি) ৩২০ নম্বর কক্ষ থেকে আল

আরও পড়ুন...

স্বপ্নময়ের মধুদা, হেমকান্ত আর আমানুল্লাহর কথা

Kulada Roy

কুলদা রায়

স্বপ্নময়কে প্রথম দেখি কুইনস লাইব্রেরীতে। নিউ ইয়র্কে। ম্যারিক বুলেভার্ডে। সামনে বাস স্ট্যান্ড। সারি দিয়ে বাস ঢুকছে। বের হচ্ছে। একটুও শব্দ নেই। ঠিক সামনেই লাইব্রেরী। শান্ত। সৌম্য। দাঁড়িয়ে আছে।

স্বপ্নময়ের নাম এর আগে শুনিনি। আমার শোনার কথা নয়। আমি বাংলাদেশের গাঁ-গেরামের মানুষ। খুব বেশি হলে হামেদ খাঁকে চিনি। তাঁর বাপজানের নাম আসমত আলি খাঁ। গ্রাম লাহুড়ি। শঙ্করপাশা। হামেদ খাঁ তার জেব থেকে পুরনো একটা ছোট্ট নোটবুক বের করেন। তার পৃষ্ঠার একপাশে লেখা ধান-পানের হিসাবপাতি। আরেকপাশ

আরও পড়ুন...

একটা অ-সমাপ্ত গল্প (পর্ব: ২৮ - ৩০)

Kaushik Ghosh

২৮।

দিন পাঁচেকের ছুটিটা যেন পড়ে পাওয়া চোদ্দ আনা! হঠাৎ করে এক পশলা খুশির মতন। আগে হলে ভালো লাগত না তেমন; স্কুলে না গেলে ওদের পাঁচজনের এক জনেরও মন ভালো থাকে না। বাকি চার জনের এবার কেমন লাগছে জানে না শোভা, কিন্তু এবার ওর মোটেই তেমন খারাপ লাগছে না - সারাদিন শুয়ে শুয়ে নিজের মনে চিন্তার জলছবি আঁকতে যে এত ভালো লাগে, তা ও এর আগে বোঝেনি কোনদিন। তাই তো সেদিন যখন বড়দিদিমনি ক্লাসে এসে বললেন, উপনির্বাচনের জন্য আগামী পাঁচদিন তোমাদের স্কুল ছুটি থাকবে - তখন তেমন খারাপ লাগেনি শোভার।

তবে এ ছুটিট

আরও পড়ুন...

রুদ

একক

বেশি বাড়ালো না । দুচার কথায় জিকে জিটি জেনে নিয়ে বুকে একটা পাথর বসিয়ে দিল । ফিরিয়ে নে । ফিরে যা ।অগত্যা পাথর নিয়েই উঠে দাঁড়াই এবং দৌড়তে শুরু করি । একতলার দরজাটা আটকাই ছিটকানি তুলে । উঠোনে ঘরের কোণে কাবারি দের সঙ্গে তর্কে মেতে বাড়িশুদ্ধু । দৌড়ে ছাদে উঠে ছাদের দরজা আটকে দি । সিঁড়ি তে বসে একটা কম্বল জড়িয়ে হাঁপাতে থাকি ।

ট্যাট ট্যাটা ট্যাট ট্যাটা । কান চাপা দি । দরজা ভাঙবে এবার ।
কোন শুওরের বাচ্চা দশটা না বাজতেই দরজা লাগালো রে ?
বিশু । রতনবাবু থেকে ফিরল । আজ একটু আগেই । আবার নেবে আসি

আরও পড়ুন...

আছিয়া…

Biplob Rahman

মেয়েটি কোনো বলিউড বা ঢাকাই ছবির হিট নায়িকা শাবনুর, শাবনাজ, শাহনূর–এ রকম কোনো চটকদার নাম বলেনি। নারায়নগঞ্জের গোদনাইলের সরকারি ভবঘুরে আশ্রয় কেন্দ্রের অন্য ভাসমান পতিতাদের ভীড়ে অল্প বয়সী ফর্সা মতোন মেয়েটি একটু দূরে একা দাঁড়িয়ে ছিলো। তার কোলে এক রত্তি একটি দুধের শিশু। সে বোধহয় সেদিন তার সত্যিকারের নামটিই আমাকে বলেছিলো, আমার নাম আছিয়া, আছিয়া বেগম। ...

আমি ও আরেক সহকর্মি মুন্নী সাহার সঙ্গে ভবঘুরে আশ্রয় কেন্দ্রটি ঘুরে ঘুরে সেখানের আশ্রিতাদের সমস্যার কথা শুনছিলাম, নোট নিচ্ছিলাম দ্

আরও পড়ুন...

সরস্বতী পুজো: ইশকুলে মুশকিল

অবন্তিকা পাল

একটানা বেজে চলেছে কিশোরদার বিরহের গান l সমস্ত সন্ধ্যে জুড়ে l কাল আপিস নেই, রুগী দেখা নেই l তাই আজ থেকেই দিব্যি ছুটির মেজাজ l কিন্তু এই ব্যাজারমুখো সঙ্গীতের জ্বালায় সেটাই বা উপভোগ্য হয়ে উঠছে কই ! মন মেজাজের স্বেচ্ছা-কাউনসেলিং করতে এ সময় টিনটিন থেকে টেনিদা, দিদি থেকে মীর কাউকেই তেমন জুতসই মনে হচ্ছে না l একে বইমেলার গ্যাঞ্জামহীন বেদনাতুর সন্ধ্যে l তার ওপর ওই বলিউডি মনোটনি l জীবনের মানে খুঁজে পাওয়াই দায় l এমতাবস্থায় জানতে পারলুম কোনো এক মুসলিম অধ্যুষিত এলাকার প্রাইমারি স্কুলে নাকি জবরদস্তি বন্ধ করা

আরও পড়ুন...

আকাড়া কিশোরী ও একটি নদী

শিবাংশু

আকাড়া কিশোরী ও একটি নদী
-------------------------------
..... আকাড়া কিশোরী যেন সেদিনের বসন্ত পঞ্চমী
হাসি নেই, অশ্রু আছে, দুচোখে চাঁদের ছায়া স্মৃতি টানে, গোপন সাবানে
জলজ গায়ের গন্ধ ।

চলে যায় মরি হায় বসন্তের দিন চলে যায়....
( একদিন, শৈশবে,সমুদ্রে : এই আমি, যে পাথরেঃ- শক্তি চট্টোপাধ্যায়)

বসন্তপঞ্চমী এরকমই ছিলো আমাদের সে বয়সে। বাসন্তী শাড়ি, লুকিয়ে চাওয়া, আতপচালের ছড়ানো সৌরভ, ছুটন্ত সাইকেলে ব্যস্ত পুরোহিত। আর, অন্যদিন যে কথাটা বলা যায়না একান্ত কোনও একজনকে, তা বল

আরও পড়ুন...